এশিয়া কাপ দিয়ে বিশ্বকাপে চোখ মাশরাফির

Send
রবিউল ইসলাম, দুবাই থেকে
প্রকাশিত : ২২:৫৬, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:৫৬, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৮

ট্রফি সামনে ছয় দলের অধিনায়কশনিবার বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৫টায় পর্দা উঠছে এশিয়া কাপের। উদ্বোধনী দিনে মুখোমুখি বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা। এর আগে শুক্রবার বিকেলে দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ছয় দলের অধিনায়কের সামনে উন্মোচিত হয় এশিয়া কাপের ট্রফি।

এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ের ট্রফি উন্মোচন অনুষ্ঠানে সামনের ওয়ানডে বিশ্বকাপের প্রসঙ্গ ঘুরেফিরেই এসেছে। ভারতীয় অধিনায়ক রোহিত শর্মা ও বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা এশিয়া কাপের গুরুত্ব বুঝিয়েছেন খুব ভালো করে। তারা মনে করেন, বিশ্বকাপের আগে দলের কম্বিনেশন সাজাতে এশিয়া কাপ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

স্টেডিয়ামের কনফারেন্স রুমে ছয় অধিনায়ককে নিয়ে ট্রফি উন্মোচন অনুষ্ঠানটি বেশ আলো ছড়িয়েছে। যদিও সংবাদমাধ্যমকে খুব বেশি প্রশ্ন করার সুযোগ দেয়নি আয়োজকরা। যতটুকু হয়েছে, সেই প্রশ্নের বেশিরভাগ অংশ জুড়েই থাকলো ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের প্রসঙ্গ। এর সঙ্গে এশিয়া কাপ বিশ্বকাপে কতটা প্রভাব ফেলবে, সেই আলোচনারও হয়েছে।

আপাতত মাশরাফির লক্ষ্য এশিয়ার কাপের প্রথম ম্যাচ জয়। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে উদ্বোধনী ম্যাচ জয় দিয়ে রাঙাতে চান বাংলাদেশ অধিনায়ক। তবে মহাদেশীয় শ্রেষ্ঠত্বের এই লড়াই দিয়ে ঠিকই তিনি চোখ রাখছেন ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপে। মাশরাফি বলেছেন, ‘এশিয়া কাপ নিয়ে অনেকেই অনেক কিছু বলেছে। সবার মতো আমারও মনে হয় এই টুর্নামেন্টটি দারুণ ও আকর্ষণীয় হবে। আমাদের জন্য এই টুর্নামেন্টে ভালো করাটা জরুরি। শুরুটা ভালো করা খুব বেশি প্রয়োজন। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শুরুটা ভালো হলে টুর্নামেন্টে আমাদের ভালো করা সম্ভব হবে।’

এরপরই মাশরাফি চোখ রাখলেন বিশ্বকাপে, ‘বিশ্বকাপের আগে কম্বিনেশন সাজাতে এশিয়া কাপ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। যদিও এর আগে আমাদের এবং সবাইকে অনেক সিরিজ খেলতে হবে। সেগুলো দারুণ সয়াহক হবে।’

এর আগেও সংযুক্ত আরব আমিরাতে এশিয়া কাপের আসর বসেছে। এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো মরুর বুকে হতে যাচ্ছে এশিয়া কাপের লড়াই। দুর্ভাগ্য, তাতে খেলার সুযোগ পাচ্ছে না স্বাগতিকরা। বাছাই পর্বের বাধা উতরাতে পারেনি আরব আমিরাত। তাদের হতাশ করে মূল আসরে জায়গা করে নিয়েছে হংকং।

আগামীকাল (শনিবার) বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ দিয়ে পর্দা ওঠা এশিয়া কাপের ফাইনাল হবে ২৮ সেপ্টেম্বর। শিরোপার লড়াইয়ে নামছে ৬ দল। দুটি গ্রুপে ভাগ হয়ে খেলবে দলগুলো। ‘এ’ গ্রুপে রয়েছে ভারত, পাকিস্তান ও হংকং। আর গ্রুপ ‘বি’ গ্রুপে বাংলাদেশের সঙ্গী শ্রীলঙ্কা ও আফগানিস্তান। দুই গ্রুপ থেকে সেরা চার দল নিয়ে হবে ‘সুপার ফোর’।

/আরআই/কেআর/

লাইভ

টপ