স্কিলের ঘাটতি সংকুচিত হলো কোথায়?

Send
গাজী আশরাফ হোসেন লিপু
প্রকাশিত : ১৭:৩৫, মার্চ ১২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:২৪, মার্চ ১২, ২০১৯

গাজী আশরাফ হোসেন লিপু।টেস্ট ম্যাচের প্রথম দু’দিন বৃষ্টির জন্য পরিত্যক্ত হওয়ার পর এই টেস্টটি ড্র হতে পারে এমন অনুমান প্রায় সবাই করেছে। সর্বশেষ খেলে আসা সিরিজে এই মাঠেই আমরা পাহাড় সমান রান করেছিলাম বলেই ম্যাচের ফলাফল ড্র আগাম ঘোষণা আমজনতার অধিকাংশ মানুষই করেছিলো। সেটি মোটেই দলের কাছে বাড়তি কিছু চাওয়া নয় বলে আমি বিশ্বাস করি।

মুশফিকবিহীন বাংলাদেশ একাদশ টস হারার পর যখন ব্যাট করতে নামলো তখন সবুজ গালিচার মতো পিচ টিভিতে দেখে আমি বেশ ঘাবড়ে গিয়েছিলাম। না জানি কত সাংঘাতিক বলের সাইড মুভমেন্ট বা বাউন্স হয়। দু’দিন বৃষ্টির কারণে পিচ কাভার করা ছিলো, তাই বাড়তি আর্দ্রতা বোলারদের বাড়তি কত সুবিধা দেয় তা ভেবে দুশ্চিন্তা বাড়ছিলো। প্রথম দিনের প্রথম দু’ঘণ্টা বোলারদের জন্য পিচে প্রাণ থাকে অফুরন্ত। এ কথাটি ছোটবেলা থেকেই শুনে আসছি এবং দেখেছি বহু ম্যাচে তার কার্যকারিতা। কিন্তু এমন সবুজ গালিচার পিচে দু’দিন বৃষ্টির পর প্রথম ঘণ্টায় এমন ব্যাটিং ফ্রেন্ডলি পিচ দেখেছি বলে মনে করতে পারছি না।

অভিজ্ঞ তামিমের সঙ্গে নবাগত সাদমান ইসলাম খুবই স্বাচ্ছন্দ্যে ব্যাটিং করেছে যথেষ্ট আক্রমণাত্মক ছন্দে। যা ছিলো আমার ভাবনার সম্পূর্ণ বিপরীত চিত্র। এমন চমৎকার শুরুটা আমরা ধরে রাখতে পারিনি মূলত আমাদের স্কিল ও টেম্পারমেন্টের অভাবে। ম্যাচের ২০ ওভার পরে বোলিং ক্রিজের প্রশস্ততা ব্যবহার করে গ্র্যান্ডহোম চমৎকার একটা অ্যাঙ্গেল সৃষ্টি করে স্বাভাবিক গতির বলকে খেলা কিছুটা কঠিন করে তুলেছিলেন। তিনি কিছু মুভমেন্ট পাচ্ছিলেন পিচ থেকে এবং অপর প্রান্ত থেকে বাঁহাতি ওয়াগনার তার বোলিং ক্রিজের চমৎকার ব্যবহারের সঙ্গে কার্যকরী জোনে বাউন্সারের পর বাউন্সার মেরে দুই ইনিংসে ৯টি উইকেট নিয়ে শর্ট পিচ বল করে আমাদের স্কিলের ঘাটতি উন্মোচিত করেছে। অপর বাঁহাতি বোলার ট্রেন্ট বোল্ট ওপরে বল করে বরাবরই বাড়তি সুইং আদায় করার চেষ্টা করে ৮টি উইকেট তুলে নিয়েছে। ডানহাতি পেস বোলারের চেয়ে আমাদের ব্যাটসম্যানরা বাঁহাতি বোলারের বিরুদ্ধে যথেষ্ট অস্বস্তিতে ভোগে।

প্রকৃত পক্ষে টেস্ট ম্যাচ এমন একটি জায়গা যেখানে ফুটওয়ার্ক, টাইমিং সমৃদ্ধ স্কয়ার কাট, ড্রাইভ ও আক্রমণাত্মক পুল ও হুক খেলার আদর্শ জায়গা। তেমনি সলিড ডিফেন্স এবং সুইং করা ওভার পিচ ও বাউন্সার ছাড়ার শৈল্পিক কৌশল দেখানোর আদর্শ জায়গা। এই ম্যাচটির ব্যাটিং হাইলাইটস দেখলে আমাদের কিছু চমৎকার শট খেলার স্কিলের উন্নয়নের পাশাপাশি ঘাটতির জায়গাটি এত চোখে পড়ার মতো যে ১১৭ ওভারেই ২০টি উইকেট দুই ইনিংসে আমরা হারিয়েছি।

আমাদের মতো দেশের জন্য তিন ফরম্যাটে একই হেড কোচ তত্ত্বের সঙ্গে আমি দ্বিমত পোষণ করি। টেস্টের জন্য ভিন্ন হেড কোচ থাকলে টেস্ট ম্যাচের আগে এই প্রস্তুতি নিয়ে তিনি কখনোই যেতে চাইতেন না। প্রয়োজনে তিনটি টেস্টের জায়গায় দুটি টেস্ট খেলা শ্রেয়তর মনে করতেন এবং একটি টেস্টের জন্য রাখা বাড়তি ৮ দিন চ্যালেঞ্জিং অনুশীলনে এবং কিছুটা বিশ্রামে রাখতেন খেলোয়াড়দের। একই সঙ্গে অনেক আগে থেকেই প্রথম সারির ব্যাটসম্যানদের নিয়ে আলাদা করে অনুশীলন করতেন। দলের ব্যাটিং কোচকে এই টেস্ট ফরম্যাটে হেড কোচের দায়িত্ব দেওয়া যেতে পারে। তিনিই যার মাঝে টেস্ট ম্যাটারিয়াল দেখতে পাবেন তাকে সেই ফরম্যাটের জন্য গড়ে তুলতে পারবেন।

আজও রিয়াদ পার্টনারবিহীন হয়ে গেলেন শেষ অবধি। তিনি সৌম্যর জায়গায় ব্যাট করতে আসতে পারতেন। দলনায়ক হিসাবে তাকে তার সিদ্ধান্ত গ্রহণে আরও আক্রমণাত্মক হতে হবে। যেমন বোলিং করার ক্ষেত্রে তিনি নিজেকে গুটিয়ে রাখলেন।

হোম সিরিজে সফলতার জন্য আমরা যতদিন নিম্নমানের স্লো পিচ তৈরি করবো, ততদিন পেস বোলারদের কাছ থেকে রাতারাতি কোনও উন্নতি আশা করা মুশকিল। পেস বোলিং স্কিলের উন্নয়নে কোনও সুযোগ হোম সিরিজে নেই। পারলে দুই প্রান্ত থেকে নতুন বল দিয়ে স্পিন আক্রমণ রচনা করা হয়। পেস বোলাররা সরাসরি নিউজিল্যান্ডে পারফর্ম করবে আশা করা কঠিন। তারপরেও নবীন বোলিং ইউনিট নির্বাচন নিয়ে বেশ বড় বিতর্ক ছিলো। এর মাঝে রাহী যে সুযোগ সৃষ্টি করেছিলো তা সফল হয়নি। ক্যাচিং স্কিলেও দুর্বলতা আমাদের পিছু ছাড়ছে না।

টেস্ট ক্রিকেটে আমাদের এগোতে হলে পিচের উন্নয়নে বিনিয়োগ করতে হবে। ভালো কিউরেটর আনতে হবে, পিচের আদর্শ পরিচর্যা করতে হবে। মৃত্যুকূপ বানিয়ে ম্যাচ জিততে চাই না হোম সিরিজে। ভারত-অস্ট্রেলিয়ার চতুর্থ ওয়ানডেতে ভারতের মাটিতে অস্ট্রেলিয়া ৩৫৯ রান তাড়া করে জিতলো। ভারত ইচ্ছা করলে স্পিন সহায়ক পিচ তৈরি করে সিরিজটি জিতে নিতে পারতো, কিন্তু তা করেনি। তাদের ক্রিকেট দর্শন পাল্টাচ্ছে। আদর্শ কন্ডিশনে প্রত্যেককে তার সেরাটা দিতে হবে। পরিশ্রম করতে হবে সেরাটা যেন ম্যাচে প্রয়োগ করতে পারে। সময় এসেছে আমাদের ক্রিকেট দর্শনেও উন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় সংস্কার করার।

/এফআইআর/

লাইভ

টপ