এটাকে বাংলাদেশের সেরা দল বলেও ভয় ফারুকের!

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৮:৪৯, এপ্রিল ১৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:৫৯, এপ্রিল ১৮, ২০১৯

ফারুক আহমেদ২০০৭ সালের পর ২০১৫ বিশ্বকাপে প্রধান নির্বাচক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন ফারুক আহমেদ। এখন অবশ্য নির্বাচক নন। বাইরে থেকে খোঁজ খবর রাখছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটের। দুইদিন আগে দেওয়া বাংলাদেশের বিশ্বকাপ দলকে সময়ের সেরা দল হিসেবে বিবেচনা করলেও কিছু সমস্যা চোখে পড়েছে সাবেক এই ক্রিকেটার ও নির্বাচকের।

বৃহস্পতিবার মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে ফারুক আহমেদ বিশ্বকাপ দল নিয়ে নিজের মূল্যায়ন জানালেন এভাবেই, ‘আমার মনে হয় দল ভালো হয়েছে। সম্ভাব্য সেরা ক্রিকেটারদের নিয়ে দলটি হয়েছে।’ এর সঙ্গে অসঙ্গতিও চোখে পড়েছে তার, ‘একজন লেগস্পিনার হলে দল পরিপূর্ণ হতো। যেহেতু আমাদের লেগ স্পিনার নেই, সাকিব আল হাসানের সঙ্গে অফ স্পিনার ও ৫-৭টা ব্যাটসম্যান আছে, কিছু অভিজ্ঞ ক্রিকেটারও আছে। যাদের তিনটি বিশ্বকাপ খেলার মতো অভিজ্ঞতা আছে। তারপরেও বাংলাদেশ দলকে আমার পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা। আশা করি তারা ভালো করবে।’

দল নিয়ে সন্তুষ্ট থাকলেও ফারুক আহমেদের ভয় অন্য জায়গায়। দল ঘোষণা হওয়ার পরও ক্রিকেটাররা কেউ নির্ভার থাকতে পারছে না। কেননা আগামী ২২ মে পর্যন্ত দলে পরিবর্তনের সুযোগ আছে। বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান পাপন ও প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নুও বেশ কয়েকবার এই দিকটি আলোচনায় এনেছেন। আর এখানেই যত আপত্তি ফারুকের। সাবেক এই নির্বাচক মনে করেন এমন ঘোষণার ফলে বিশ্বকাপ দলের ক্রিকেটাররা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগবে, তাদের আত্মবিশ্বাস কমে যেতে পারে!

এই অবস্থায় দল ঘোষণা করেও টিম ম্যানেজমেন্ট অনিশ্চয়তায় ভোগার কারণে বাংলাদেশ না আবার বিপদে পড়ে! সেই ভয়ের কথা জানিয়ে ফারুক বলেছেন, ‘টিম ম্যানেজমেন্ট দল নিয়ে একটু অনিশ্চয়তায় আছে। এটা আমার ভালো লাগেনি। এখনো যদি বলা হয় ২২-২৩ মে পর্যন্ত খেলোয়াড় পরিবর্তনের সুযোগ আছে, আয়ারল্যান্ড সিরিজের পারফরম্যান্স দেখে দল ঘোষণা করা হবে। এসব কথা আমি ভালো ভাবে দেখি না।’ যার ব্যাখ্যায় তিনি বলেছেন, ‘এর ফলে দলের খেলোয়াড়রা সবাই আত্মবিশ্বাসহীনতায় ভুগবে। এসব না বলে যদি বলতাম- এটাই আমাদের সেরা দল, যারা ফর্মে নেই আশা করবো তারা ফর্মে ফিরে আসবে। তাহলে কিন্তু আত্মবিশ্বাসটা বেড়ে যেত। এইদিক থেকে মনে হয়েছে একটু দূরদর্শিতার অভাব রয়েছে।’

পঞ্চম পেসার হিসেবে আলোচনায় ছিলেন শফিউল ইসলাম ও তাসকিন আহমেদ। কিন্তু তাদের দুজনকে বাদ দিয়ে বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে জাতীয় দলের হয়ে কোনও ওয়ানডে না খেলা আবু জায়েদ রাহীকে। বিশ্বকাপের দলে রাহীর অন্তর্ভুক্তিকে চমক বলে মনে হয়েছে সাবেক এই প্রধান নির্বাচকের, ‘আমার মনে হয় রাহী ভালো পছন্দ। দলে কিছু চমকে দেওয়ার মতো উপাদান থাকা ভালো। আমরা সবাই জানি যে সে ওয়ানডে খেলেনি। কমপক্ষে পাঁচ বছর ধরে ঘরোয়া পর্যায়ে ভালো পারফর্ম করেছে। ঘরোয়া ক্রিকেটের অভিজ্ঞতা রাহীকে ভালো খেলতে সাহায্য করবে। আশা করি রাহী চমক হয়ে আমাদের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারবে।’

অভিজ্ঞ ক্রিকেটাররা ভালো করলে এই আসরেও বাংলাদেশের ভালো করার সম্ভাবনা আছে বলে মনে করেন ফারুক আহমেদ, ‘২০১৫ বিশ্বকাপে আমরা ভালো করেছি। ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে আমাদের ভালো খেলার অভিজ্ঞতা আছে। সেটা বিবেচনা করলে মনে হয়, অভিজ্ঞরা ভালো খেললে আমাদের ভালো ফলের সম্ভাবনা থাকবে।’

/আরআই/এফআইআর/

লাইভ

টপ