হাঙ্গেরির ভিসা না পেয়ে হতাশ হৃদয়-জাবেদ

Send
তানজীম আহমেদ
প্রকাশিত : ১৮:২১, এপ্রিল ১৯, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:২৭, এপ্রিল ১৯, ২০১৯

ইমরান হোসেন হৃদয় (বাঁয়ে) ও জাবেদ খানবিশ্ব টেবিল টেনিস চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নেওয়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন জাবেদ খান ও ইমরান হোসেন হৃদয়। কিন্তু দুজনেরই ভিসার আবেদন প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। সেজন্য ভীষণ হতাশ তারা।

২১ এপ্রিল হাঙ্গেরির বুদাপেস্টে শুরু হতে যাওয়া টিটির সেরা প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের চার প্রতিযোগীর অংশ নেওয়ার কথা। তবে সোনম সুলতানা সোমা ও মৌমিতা আলম রুমি ভিসা পেলেও জাবেদ-হৃদয়ের সেই সৌভাগ্য হয়নি। হাঙ্গেরি সরকারের আশঙ্কা, তারা নাকি সেখানেই থেকে যাবেন! তাই প্রত্যাখ্যাত হয়েছে তাদের ভিসার আবেদন।

অথচ দুজনেরই বিদেশ সফরের অভিজ্ঞতা কম নয়। কাতারের দোহায় এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ, জাপানের টোকিওতে বিশ্ব টেবিল টেনিস চ্যাম্পিয়নশিপ এবং স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে কমনওয়েলথ গেমসে অংশ নিয়েছেন জাবেদ। হাঙ্গেরি যাওয়ার সুযোগ না পেয়ে হতাশ জাবেদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেছেন, ‘আমি ভাবতেই পারিনি হাঙ্গেরির ভিসা পাবো না। এটা শুধু আমার নয়, সারা দেশের লজ্জা। আমরা তো ফেডারেশনের মাধ্যমে আবেদন করেছি, ব্যক্তিগতভাবে যাচ্ছি না। আমাদের কাছে ব্যাংক সলভেন্সির কাগজপত্র চেয়েছিল। সেটা দিয়েছি, কিন্তু ওরা তাতে সন্তুষ্ট হতে পারেনি। আমরা  কম বেতনে চাকরি করি, এছাড়া ক্লাব থেকে নগদ টাকা পাই। হয়তো ব্যাংকের কাগজপত্র দেখে তারা সন্তুষ্ট হতে পারেনি।’

২০১৭ সালের জাতীয় চ্যাম্পিয়ন ক্ষোভের সঙ্গে বলেছেন, ‘ওরা মনে করেছে আমরা হাঙ্গেরিতে থেকে যাব। তাই ভিসা দেয়নি। কিন্তু আমি জাপান-স্কটল্যান্ডে খেলেছি। ইংল্যান্ড এবং এশিয়ার বেশ কয়েকটি দেশের ভিসাও আছে আমার। আমি কেন হাঙ্গেরিতে থেকে যাব? সেখানে থেকে কী হবে? আমি তো দেশের প্রতিনিধিত্ব করতে যাচ্ছি। তাছাড়া আমার আর্থিক অবস্থা খারাপ নয়, বাংলাদেশে সম্মানের সঙ্গেই বসবাস করছি।’

ভারত, চীন, কাতার ও ইংল্যান্ডে লাল-সবুজ পতাকার প্রতিনিধিত্ব করা হৃদয়েরও ‘হৃদয়’ ভেঙে গেছে। তার কথা, ‘জীবনের প্রথম বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে খেলার আশা করেছিলাম। কিন্তু ভিসা না পাওয়ায় যেতে পারছি না। সব কাগজপত্র দিলেও আমাদের দুজনের ভিসা প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। এর ফলে আমাদের দেশের ভাবমূর্তিই ক্ষুন্ন হয়েছে। দূতাবাসের কর্মকর্তাদের আশঙ্কা, আমরা হাঙ্গেরিতে থেকে যাব। কিন্তু আমাদের সেখানে থাকার কোনও ইচ্ছেই নেই। আমরা শুধু দেশের হয়ে খেলতে চাই।’   

টেবিল টেনিস ফেডারেশনের সহ-সভাপতি হাসান মুনীরও খুব হতাশ, ‘বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে খেলার সুযোগ সহজে পাওয়া যায় না। হাঙ্গেরিতে খেলতে পারলে হৃদয়-জাবেদের অভিজ্ঞতা বাড়তো, অনেক কিছু শিখতে পারতো। ওরা তো ফেডারেশন থেকে যাচ্ছে। আমরা সরকারি অনুমতিপত্র সহ সব ধরনের কাগজ দিয়েছিলাম। তারপরও ভিসা না পাওয়া হতাশাজনক।’

আরও পড়ুন:

দুই টেবিল টেনিস খেলোয়াড়কে ভয়ে ভিসা দেয়নি হাঙ্গেরি!

/টিএ/এএআর/

লাইভ

টপ