মুজিববর্ষে ঢাকায় আসতে পারেন মেসি-রোনালদোরা

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২১:৩১, মে ২১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:৪০, মে ২১, ২০১৯

b36627943a00c312267a55323c32444fঢাকায় মাঠ মাতিয়ে গেছেন লিওনেল মেসি। ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর এখনও আসা হয়নি বাংলাদেশে। তবে এবার তাকেও দেখা যেতে পারে ঢাকায়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকীতে বাফুফের পরিকল্পনা অনুযায়ী মেসি কিংবা রোলানাদোকে দেখা যেতে পারে বাংলাদেশে।

২০২০ সালে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ফুটবল বিশ্বের বড় কোনও দুটি দেশ কিংবা ক্লাবকে নিয়ে ঢাকায় প্রীতি ম্যাচ আয়োজনের ইচ্ছা বাফুফের। জাতীয় দলের তালিকায় রয়েছে পর্তুগাল, ইতালি, জার্মানি ও ইংল্যান্ড। এই দলগুলোর যে কোনও দুটি প্রীতি ম্যাচে মুখোমুখি হতে পারে বাংলাদেশে। আর যদি তাদের না পাওয়া যায়, তাহলে বিকল্প হিসেবে ইউরোপের বড় ক্লাব, যেমন- লিভারপুল, বার্সেলোনা, বায়ার্ন মিউনিখ কিংবা পিএসজি রয়েছে বাফুফের চিন্তায়।

বার্সেলোনার অধিনায়ক মেসি, তাই কাতালান ক্লাবটি বাংলাদেশে এলে নিশ্চিতভাবেই বাফুফের চাওয়া থাকবে এই আর্জেন্টাইন যেন আসেন দলের সঙ্গে। যদি সেটা হয়, তাহলে ২০১১ সালের পর আবার বাংলাদেশে আসবেন সময়ের অন্যতম সেরা খেলোয়াড়। মেসির ব্যাপারে নিশ্চিত করে কিছু না বললেও তার ক্লাব বার্সেলোনা পরিকল্পনায় আছে বাফুফের।

মঙ্গলবার সংবাদমাধ্যমকে সংস্থাটির সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ বলেছেন, ‘যদি আমরা জাতীয় দল না পাই, তাহলে চেষ্টা থাকবে ইউরোপ থেকে বড় ক্লাবগুলোকে আনার।’ সেই ক্লাবগুলো কারা হতে পারে, সেই ধারণাও দিয়েছেন তিনি, ‘আমরা চেষ্টা করবো বার্সেলোনা, লিভারপুল, বায়ার্ন মিউনিখ কিংবা পিএসজির মধ্যে দুই ক্লাবকে নিয়ে আসার।’

তবে বাফুলের মূল লক্ষ্য জাতীয় দল। বিশ্বের বড় দুটি দেশকে এনে মুজিববর্ষ রাঙিয়ে নিতে ‍চায় তারা। সেই লক্ষ্যে ইতিমধ্যে তারা সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর পাশপাশি এজেন্সির সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেছে। সোহাগ নিশ্চিত করেছেন খবরটি, ‘আমরা বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকীতে ইউরোপ থেকে দুটি দল কিংবা দুটি ক্লাবের মধ্যে একটি প্রীতি ম্যাচ আয়োজন করতে চাই। আমাদের সভাপতি (কাজী সালাউদ্দিন) সেটা কমিটির সভাতে আগেই বলেছেন। আমরা যোগাযোগও শুরু করেছি। তবে এখনই কোনও কিছু নিশ্চিত হয়নি। আরও কিছুদিন পর বিস্তারিত বলা যাবে।’

অবশ্য ইউরোপের দলগুলোর সূচি অনেক আগে থেকেই নির্ধারণ হয়ে থাকে। বাফুফে এখন চাইলেই তাদের পাবে কিনা, সেই সংশয় থেকেই যাচ্ছে। সোহাগের কথাতেও পাওয়া গেল সেই ইঙ্গিত, ‘সবার সঙ্গে যোগাযোগ চলছে। চিঠি দিয়েছি। এজেন্সির সঙ্গে কথা বলছি। সাধারণত ম্যাচগুলো অনেক আগেই ঠিক হয়ে থাকে। আমাদের পক্ষে দল পাওয়া কঠিন হতে পারে। তবে কেউ কেউ বলছে প্রস্তাব বিবেচনা করছে। কেউ বলেছে অনেক দেরি হয়ে গেছে। তবে আমরা আশা ছাড়ছি না।’

জাতীয় দলের ম্যাচ আয়োজন করতে ৬০ থেকে ৭০ কোটি টাকা লাগবে। ক্লাব দলের আয়োজনেও ব্যয় কম নয়। তবে শুধু টাকা নয়, সূচিতেও নজর রাখতে হচ্ছে। ক্লাবের ম্যাচ হলে তা ২০২০ সালের জুলাইতে হতে পারে। আর জাতীয় দলের ম্যাচ আগস্ট থেকে অক্টোবরের মধ্যে।

তবে যে দল আসুক না কেন, সেরা খেলোয়াড়দের নিয়ে গড়া দল পেতে আগ্রহী বাফুফে। আলোচনায় থাকায় পর্তুগাল এলে স্বাভাবিকভাবেই প্রত্যাশা থাকবে রোনালদোকে ‍পাওয়ার। বাফুফে সাধারণ সম্পাদক জানিয়েছেন তেমনটাই, ‘যদি আমরা পর্তুগাল দলকে পাই, তাহলে লক্ষ্য থাকবে যেন রোনালদো আসেন। এছাড়া অন্য যে দলই পাই না কেন, সেই দলে যেন বড় তারকারা থাকে, সেটার দিকে লক্ষ্য রেখে আমরা এগোবো।’

/টিএ/কেআর/

লাইভ

টপ