‘বিশ্বকাপে আমার প্রথম লক্ষ্য ডেভিড মিলারের উইকেট’

Send
রবিউল ইসলাম
প্রকাশিত : ২০:৫৭, মে ২৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:০৩, মে ২৩, ২০১৯

ওয়েস্ট ইন্ডিজের ড্যারেন স্যামি ২০১৮ সালের বিপিএলে তার ১ ওভারে নিয়েছিলেন ৩২ রান। ২০১৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে সেই মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের ১ ওভারেই ডেভিড মিলার নেন ৩১ রান! ডেথ ওভারে এমন আরও কিছু বাজে ওভারের উদাহরণ আছে তার। যদিও অতীতের হতাশা কাটিয়ে আস্থার জায়গা তৈরি করে নিয়েছেন দলে। বিশ্বকাপে তিনি স্বপ্ন দেখেন দলের জয়ে অবদান রাখার। সেই সঙ্গে মিলারের সঙ্গে বোঝাপড়াটাও মিটিয়ে নিতে চান এই বিশ্বকাপে। প্রথমবার ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় আসরে সুযোগ পাওয়া তরুণ এই পেস বোলিং অলরাউন্ডারের বাংলা ট্রিবিউনের সঙ্গে কথোপকথনের বড় অংশ জুড়ে ছিল আসন্ন বিশ্বকাপ-  

বিশ্বকাপ ট্রফি হাতে সাইফউদ্দিনবাংলা ট্রিবিউন: ২০১৫ বিশ্বকাপের সময় জাতীয় দলে অভিষেক হয়নি আপনার। অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের টুর্নামেন্ট দেখেছেন নিশ্চয়?

সাইফউদ্দিন: ওই সময় অনূর্ধ্ব-১৯ দলে ছিলাম। বিকেএসপিতে খেলা চলছিল। ওই আসরে প্রতিটি ম্যাচেই আমি শিহরিত ছিলাম। বিশেষ করে, ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচটির কথা কখনোই ভুলতে পারব না। ওই ম্যাচে রুবেল (হোসেন) ভাই অসাধারণ বোলিং করেছিলেন। তার বোলিং দেখে শিহরিত হয়েছিলাম।

বাংলা ট্রিবিউন: চার বছরের ব্যবধানে রুবেলের সঙ্গেই বিশ্বকাপ খেলতে যাচ্ছেন, ভাবতে কেমন লাগছে?

সাইফউদ্দিন: সত্যিই অন্যরকম অনুভূতি। বয়সভিত্তিক ক্রিকেটে সবসময় চিন্তা করেছি, ভালো খেলতে পারলে জাতীয় দলে সুযোগ আসবেই। জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়ার পর থেকে বিশ্বকাপ নিয়ে স্বপ্ন দেখেছি। এখন ভাবতে ভালো লাগছে- আমিও বিশ্বকাপ দলের একজন। নির্বাচক-অধিনায়ক আমার ওপর যে আস্থা রেখেছেন, তার প্রতিদান দিতে চাই।

বাংলা ট্রিবিউন: পেস বোলিং অলরাউন্ডার হিসেবে দলে সুযোগ পেয়েছেন। বিশ্বকাপের মঞ্চে পেস আক্রমণের নেতৃত্বেও হয়তো দেখা যাবে আপনাকে। কী ভাবছেন?

সাইফউদ্দিন: গত বিপিএল ও সর্বশেষ প্রিমিয়ার লিগটা আমার ভালো কেটেছে। দুই জায়গাতেই আমি নতুন বলে বোলিং করেছি। ত্রিদেশীয় সিরিজের কিছু ম্যাচেও নতুন বলে বোলিং করেছি। নতুন বলে বোলিং করা বোলারদের দায়িত্ব কিছুটা বেশি। ওদের চেষ্টা করতে হয় উদ্বোধনী জুটি যেন ভয়ঙ্কর না হয়ে ওঠে। আমার ওপর এই দায়িত্ব এলে চেষ্টা করব নিজের সেরাটা দেওয়ার। সবচেয়ে বড় কথা লাইন-লেন্থ বজায় রেখে আমাকে বোলিং করতে হবে, সেটা করতে পারলে সাফল্য আসবে।

Saifuddinবাংলা ট্রিবিউন: বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের স্বভাবসুলভ উইকেট থাকবে না, বিষয়টি মাথায় রেখেই বোলিং করতে হবে। কীভাবে পরিকল্পনা সাজাচ্ছেন?

সাইফউদ্দিন: আমরা সবাই জানি, বিশ্বকাপে ব্যাটিং নির্ভর উইকেট হবে। সুতরাং বোলিং বিভাগকে বাড়তি দায়িত্ব নিতে হবে। আগেই বলেছি, ওই কন্ডিশনে জোরের ওপর বোলিং করে লাইন-লেন্থ বজায় রাখা জরুরি। তাহলেই রানের চাকা আটকে রাখা যাবে। অবশ্যই বোলিংয়ে ভেরিয়েশন জরুরি। তবে এটা নিশ্চিত,  বিশ্বকাপে ব্যাটসম্যানদের তুলনায় বোলারদের চ্যালেঞ্জে নিতে হবে বেশি। বিশ্বকাপের আগে আমরা যথেষ্ট প্রস্তুতি নেওয়ার সুযোগ পেয়েছি। আশা করি মাঠে পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়ন করতে পারব।

বাংলা ট্রিবিউন: আয়ারল্যান্ডের ত্রিদেশীয় সিরিজ জয় কতটা কাজে দেবে?

সাইফউদ্দিন: আয়ারল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের কন্ডিশনে অনেকটাই কাছাকাছি। সিমিলার কন্ডিশন হওয়ার কারণে আমাদের প্রস্তুতিটা ভালো হয়েছে। আয়ারল্যান্ডে আমাদের বোলিং বিভাগ ভালো করেছে। প্রায় সব ম্যাচেই আমরা প্রতিপক্ষকে খুব বেশি রান করতে দেইনি। এই অভিজ্ঞতা বিশ্বকাপে কাজে লাগবে। সেই সঙ্গে ত্রিদেশীয় সিরিজ জিতে দলের সবাই খুব আত্মবিশ্বাসী। আশা করি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ খুব ভালো কিছু করতে পারবে।

বাংলা ট্রিবিউন: নতুনদের জন্য বিশ্বকাপ ‍দারুণ মঞ্চ। আপনিও নিশ্চয় স্মরণীয় করে রাখতে চান প্রথম বিশ্বকাপ?

সাইফউদ্দিন: অবশ্যই, নতুনদের জন্য বিশ্বকাপ দারুণ মঞ্চ। এখানে ভালো করা মানেই খ্যাতি পাওয়া। বিশেষ করে, আমরা যারা জুনিয়র, তাদের জন্য এটা বড় প্ল্যাটফর্ম। এই মঞ্চে চাইব এমন কিছু করতে, যাতে আলোচিত হতে পারি।

Saifuddin-4বাংলা ট্রিবিউন: এরপরও নির্দিষ্ট কোনও লক্ষ্য নিশ্চয় আছে।

সাইফউদ্দিন: ব্যাটসম্যান হিসেবে আমি যেহেতু লোয়ার অর্ডারে ব্যাটিং করব, অবশ্যই আমার জন্য ভালো সুযোগ আসবে ম্যাচ-উইনিং পারফরম্যান্স করার। বোলিংয়েও ধারাবাহিকভাবে ভালো করতে চাই। ক্রিকেট দলীয় খেলা, তাই দলের জন্য খেলার চেষ্টা করব। দলকে জেতাতে যতটুকু অবদান রাখা দরকার, সবটাই দেওয়ার চেষ্টা করব। 

বাংলা ট্রিবিউন: বিশ্বকাপে বিশেষ কোনও ব্যাটসম্যানের উইকেট নেওয়ার লক্ষ্য আছে?

সাইফউদ্দিন: বলে-কয়ে তো আর উইকেট নেওয়া যায় না। তবে আমার প্রথম লক্ষ্য থাকবে ডেভিড মিলারের উইকেট পাওয়া। সেই সঙ্গে ভারতের বিরাট কোহলি, পাকিস্তানের শোয়েব মালিক, অস্টেলিয়ার ডেভিড ওয়ার্নারের উইকেট নিতে পারলে তৃপ্তি পাবো। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, অধিনায়ক আমার হাতে যখনই বল তুলে দেবেন, চেষ্টা করব ব্রেক থ্রু এনে দিতে।

বাংলা ট্রিবিউন: ডেভিড মিলারের উইকেটই কেন?

সাইফউদ্দিন: সেভাবে ভাবিনি। তবে পুরোনো ক্ষত বয়ে বেড়াচ্ছি এখনও্। রাস্তা-ঘাটে বের হলে অনেকে নানা রকম প্রশ্ন করে। আমি অবশ্য চুপ থাকি। তবে আক্ষেপ আছে। মিলারের বিপক্ষে বোলিং করে বোঝাতে চাই— ওটা ছিল দুর্ঘটনা, আমি এতটা বাজে বোলার নই।

/আরআই/কেআর/

লাইভ

টপ