আফগানদের আনন্দের জোয়ারে ভাসাতে চান নবী

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ২২:২২, মে ২৬, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০০:২৬, মে ২৭, ২০১৯

মোহাম্মদ নবীআন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আফগানিস্তানকে এখন আর শিক্ষানবিশ বলা যাবে না। তাদের অগ্রগতি চোখে পড়ার মতো। দিন যতই যাচ্ছে, তাদের নিয়ে প্রত্যাশা বাড়ছে বিশ্বাস করেন অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবী। সবশেষ পাকিস্তানের বিপক্ষে জিতেছে তারা, ম্যাচটি প্রস্তুতি হলেও আফগানিস্তানের সবাই খুুুশিতে ফেটে পড়েছিল। বিশ্বকাপেও দেশবাসীকে এভাবে আনন্দের জোয়ারে ভাসাতে চান নবী।

আগামী রবিবার ব্রিস্টলের কাউন্টি গ্রাউন্ডে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচ খেলবে আফগানিস্তান। এর আগে সোমবার স্বাগতিক ইংল্যান্ডের সঙ্গে শেষ প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে নামবে তারা। পাকিস্তানের বিপক্ষে দুর্দান্ত জয়ের ধারা ধরে রেখেই ইংলিশদের মুখোমুখি হচ্ছে গত বিশ্বকাপে গ্রুপেই ছিটকে যাওয়া আফগানরা।

নবীর নেতৃত্বে আফগানিস্তান চার বছর আগে বিশ্বকাপের প্রথম জয় পেয়েছিল স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে। এরপর ৫ ম্যাচ হেরে পুল পর্বেই বিদায় নেয় তারা। কিন্তু তারপর থেকে শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশের মতো দলকে হারানোর অভিজ্ঞতা হয়েছে দলটির। এই সাফল্যের পথে লেগ স্পিনার রশিদ খান টি-টোয়েন্টির শীর্ষ বোলার হয়েছে। আইপিএলেও ছিল তার দাপট, নবীও কম যাননি। আর এই আত্মবিশ্বাসী আফগানিস্তান প্রথমবার পাকিস্তানের বিপক্ষে জয়ের স্বাদ পেয়েছে।

বাছাই পর্বে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে এই বিশ্বকাপে জায়গা করে নিয়েছে আফগানিস্তান। নবী স্বীকার করলেন, তার দেশের সাড়ে তিন কোটি মানুষ এখন তাদের নিয়ে স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে। তিনি বলেছেন, ‘২০১৫ সাল থেকে এই এখন পর্যন্ত ভাবুন, আফগানিস্তানের দল একেবারে ভিন্ন। এই দলটি এখন পরিপূর্ণ এবং আমরা অনেক বেশি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছি।’

এসব সাফল্য দেশের মানুষের প্রত্যাশা বাড়িয়েছে বললেন আফগান অলরাউন্ডার, ‘দেশের মানুষের প্রত্যাশা এখন অনেক বড় কিছুর। কারণ শ্রীলঙ্কা, বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের মতো দলের বিপক্ষে আমরা ধারাবাহিকভাবে জিতছি। আর সেটাই আমাদের বিশ্বকাপে জয়ের সুযোগ বাড়িয়ে দিচ্ছে। আমাদের প্রস্তুতি একদম ঠিকঠাক। আমরা প্রস্তুত।’

হারতে নয়, ইংল্যান্ডে জিততেই এসেছেন জানালেন নবী, ‘দুই বা তিন জন খেলোয়াড় আইপিএলে ছিল, শীর্ষ মানের খেলোয়াড়দের বিপক্ষে খেলার অভিজ্ঞতা হয়েছে আমাদের এবং ওয়ার্মআপেও পাকিস্তানকে হারালাম। এখানে আমরা হারতে আসিনি, যতগুলো মাচ পারি আমরা জিততে চাই।’

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচ খেলবে আফগানিস্তান। ওই দিন তাদের দেশের সবাই সব কাজ বন্ধ করে দিয়ে শুধু এই ম্যাচের দিকে তাকিয়ে থাকবে বললেন নবী। ক্রিকেটের প্রতি আফগানদের ভালোবাসার কথা জানালেন তিনি, ‘আফগানিস্তানে ক্রিকেট এক নম্বর খেলা। জাতীয় দল যখন খেলে তখন সব কাজ বাদ। সবাই থেমে যায় এবং আমাদের খেলা দেখে।’

প্রস্তুতি ম্যাচ হলেও পাকিস্তানের বিপক্ষে জয়ে বাধভাঙা উদযাপন করেছে দেশবাসী। নবী বলেছেন, ‘পাকিস্তানের বিপক্ষে আমাদের ম্যাচটা ছিল কেবল প্রস্তুতি, কিন্তু তারপরও পুরো দেশ এই জয় উদযাপন করেছে। কারণ তাদের বিপক্ষে এটাই ছিল আমাদের প্রথম জয়। এটাই আমাদের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিচ্ছে। প্রত্যেক ম্যাচ গুরুত্বপূর্ণ, কারণ তারা সবাই দেখবে। আমরা জিতলে তারা আনন্দ করবে।’ আইসিসি

/এফএইচএম/

লাইভ

টপ