গোলখরা কাটানোর প্রত্যাশা জীবনের

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২১:০১, জুন ০৯, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:০৯, জুন ০৯, ২০১৯

62463655_449464088950153_6681082243248553984_nসুযোগ কাজে লাগিয়ে গোল করাই ফরোয়ার্ডের প্রধান দায়িত্ব। কিন্তু সেটা ঠিকঠাক পালন করতে পারছেন না বাংলাদেশের আক্রমণভাগের খেলোয়াড়রা। কম্বোডিয়া ও লাওসের বিপক্ষে দুটি ম্যাচেই একমাত্র গোল করেছেন মিডফিল্ডার রবিউল হাসান, তাও বদলি নেমে। বাংলাদেশের ফরোয়ার্ডদের এই দুর্দশা লাওসের বিপক্ষে বিশ্বকাপ প্রাক বাছাইয়ের দ্বিতীয় লেগে কাটবে বিশ্বাস নাবীব নেওয়াজ জীবনের।

লাওসের মাঠে বাংলাদেশের ফরোয়ার্ডরা একাধিক সুযোগ পেয়েও গোল করতে পারেনি। এবার ঘরের মাঠে গোল করাকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিচ্ছেন জীবন। রবিবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুশীলনের আগে আত্মবিশ্বাসী কন্ঠে তিনি বলেছেন, ‘লাওসের মাঠে গোল পেলে অবশ্যই ভালো লাগতো। আমি চেষ্টা করেছিলাম। আসলে সেভাবে সুযোগ তৈরি করতে পারিনি। এখন নিজেদের মাঠে গোলের জন্য চেষ্টা থাকবে।’

১০ গোল করে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে এখন দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতা আবাহনীর জীবন। কিন্তু প্রায় তিন বছর হলো জাতীয় দলে গোল পাননি তিনি। ২০১৬ সালের পর থেকে গোলখরায় ভুগছেন এই ফরোয়ার্ড। তবে লিগের পারফরম্যান্স আত্মবিশ্বাসী করে তুলছে জীবনকে, ‘লাওসের মাঠে গোলের দেখা পাইনি। এবার ঘরের মাঠে খেলা, তাই বাড়তি চাপ তো থাকার কথা। তারপরও লিগে ধারাবাহিকভাবে গোল করছি। এতে পরের ম্যাচে গোল করার আত্মবিশ্বাস আছে আমার।’

লাওসের মাঠে ১-০ গোলে জেতায় ঢাকায় ড্র করলেও বিশ্বকাপের বাছাই পর্ব নিশ্চিত করবে বাংলাদেশ। কিন্তু জিতেই এই বাধা পার করতে চান জীবন, ‘আমাদের মাঠে খেলা, আমরা জেতার জন্য নামবো। ভালো ফলের জন্য সেরাটা দিতে হবে আমাদের। অর্ধেক কাজ এখনও বাকি।’

জাতীয় দলের ম্যানেজার সত্যজিৎ দাশ রুপু এই প্রাক বাছাইয়ের ম্যাচকে ‘যুদ্ধ’ হিসেবে দেখছেন, ‘আসলে আমরা যে যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছি, তার অর্ধেকটা জয় করেছি। এখনো অর্ধেক বাকি আছে। লাওসে ম্যাচ জিতেছি, এখন ঢাকায় যদি জিততে না পারি তাহলে সেটা হবে অর্থহীন। এখন ঢাকার ম্যাচটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। খেলোয়াড়রা উজ্জীবিত আছে। আশা করছি এভাবে খেলতে পারলে ভালো কিছু হবে।’

ঢাকার ম্যাচে ফরোয়ার্ডদের ওপর প্রত্যাশা বেশি করছেন এই কর্মকর্তা, ‘যদি ম্যাচ শুরুর ১৫ থেকে ২০ মিনিটের মধ্যে গোল করতে পারি তখন তারা (লাওস) গোল শোধে আক্রমণে আসবে। তখন আবার আমরা আক্রমণে যেতে পারবো, গোল ব্যবধান বাড়ানোর সুযোগ থাকবে। এই জন্য ফরোয়ার্ডদের অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে। তাহলেই ম্যাচ জেতা কিছুটা সহজ হবে আমার বিশ্বাস।’

/টিএ/এফএইচএম/

লাইভ

টপ