অস্বস্তি কাটিয়ে লিটনের এই ইনিংস

Send
রবিউল ইসলাম, টন্টন থেকে
প্রকাশিত : ০১:৫৫, জুন ১৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০২:০৯, জুন ১৮, ২০১৯

লিটন খেলেছেন অপরাজিত ৯৪ রানের ইনিংসটানা তিন ম্যাচ বাইরে থাকার পর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মোহাম্মদ মিঠুনের বদলে একাদশে সুযোগ পেলেন। তাও আবার নিয়মিত ওপেনার হিসেবে খেলা লিটন দাসকে খেলতে হলো পাঁচ নম্বরে! শুরুটা তাই ছিল অস্বস্তিতে, তবে সময় গড়ানোর সঙ্গে সাবলীলভাবে খেলেছেন তিনি। ম্যাচ শেষে এই ব্যাটসম্যান জানিয়ে গেছেন তেমনটাই।

দারুণ ফর্মে থেকেও টিম কম্বিনেশনের কারণে একাদশে সুযোগ পাচ্ছিলেন না লিটন । আয়ার‌ল্যান্ডের ডাবলিনে একটি ম্যাচে সুযোগ পেয়ে খেলেছিলেন ৭৬ রানের ইনিংস। এরপর ভারতের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচেও লিটনের ব্যাট থেকে এসেছিল ৭৩ রানের ইনিংস। তবু মূল ম্যাচের একাদশে জায়গা হয়নি। অবশেষে সুযোগ পেয়েই নিজের সামর্থ্যের প্রমাণ দিলেন তিনি।

টন্টনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে শুরুতে কিছুটা নার্ভাস ছিলেন লিটন। যদিও সময় গড়ানোর সঙ্গে খোলস ছেড়ে বেরিয়ে আসেন ২৪ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যান। ২৯ ওয়ানডে খেলার অভিজ্ঞতা থাকা লিটন এবারই প্রথম পাঁচ নম্বরে ব্যাটিং করেছেন। এর আগে কিছু ম্যাচ তিন ও চার নম্বরে ব্যাটিং করলেও বেশিরভাগ সময় তাকে দেখা গেছে ওপেনারের ভূমিকায়। এবার পাঁচ নম্বরে খেলতে নেমে কিছুটা নার্ভাস ছিলেন লিটন।

ম্যাচ শেষে মিক্সড জোনে সংবাদমাধ্যমকে নিজের অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করলেন এভাবে, ‘ব্যাটিংয়ে যাওয়ার সময় নার্ভাস ছিলাম। মিডল অর্ডারে খেলার অভ্যাস খুব একটা নেই। যেহেতু টিম ম্যানেজমেন্ট আমাকে সুযোগ দিয়েছে। আমি মনে করেছি এই সুযোগটা কাজে লাগানো উচিত। তবে আমি নার্ভাস ছিলাম। সাকিব ভাই আমাকে সাহায্য করেছে। খেলার মাঝখানে অনেক কথা-বার্তা বলেছে, যেগুলো আমার চাপ কমাতে ভূমিকা রেখেছে।’

ঠিক কখন চাপ কাটিয়ে উঠতে পেরেছেন, এমন প্রশ্নের জবাবে লিটন বলেছেন, ‘৩০ রান করার পর আমি নিজের মতো ব্যাটিং করতে পেরেছি।  আগেই বলেছি আমি সবকিছুতে নার্ভাস ছিলাম। ৩০ রান করার পর আমার মনে হয়েছে, এই উইকেটে আমি রান করতে পারব।  এর আগে আমি ঠিক মতো ব্যাটিং করতে পারছিলাম না। ৩০ রান হওয়ার পর সাবলীল খেলতে পেরেছি।’

সঙ্গে আরও যোগ করলেন, ‘আয়ারল্যান্ডে আমি অনেক আগে ম্যাচ খেলেছি, প্রস্তুতি ম্যাচও বেশ আগে খেলেছি। যতদিন না পর্যন্ত নিয়মিত ম্যাচ না খেলতে পারব, আসলে ফিলিংসটা বোঝা সম্ভব নয়। এই জন্যই আমার নার্ভাস লেগেছে। আমি অনেক দিন খেলার বাইরে। অনিয়মিত হয়ে মাঠে নামলে চাপ থাকবেই।’

চাপ কমাতে সাকিব কী ধরনের পরামর্শ দিয়েছেন? লিটনের উত্তর, “সাকিব ভাই বলেছেন, ‘উইকেটটা অনেক সহজ। কিছুক্ষণ খেললে সহজ-স্বাভাবিকভাবে খেলা যাবে। জোর না করে স্বাভাবিক খেলা খেলো।’ এছাড়া ওনার ব্যাটিংটা আমাকে অনেক সাহায্য করেছে। আমি স্বাভাবিক হতে পেরেছি। ঘরোয়া ক্রিকেটে অনেক রান করলেও আমি কখনোই ফিনিশ করতে পারেনি। এবার শেষ করতে পেরে ভালো লাগছে।”

লিটন নিজেও কিন্তু সাকিবকে পরামর্শ দিয়েছেন, ‘‘আমি সাকিব ভাইকে বলেছিলাম, ‘এমন সুযোগ বারবার আসবে না। আপনি অপরাজিত থাকলে আপনার গড়টা বাড়বে। একটু চেষ্টা করেন।’’

/কেআর/

লাইভ

টপ