প্রতারণা করে ধরা পড়লেন বাংলাদেশের দাবা কোচ

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৯:১৫, জুলাই ১৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৩৯, জুলাই ১৩, ২০১৯

টয়লেটে মোবাইলে দাবার চাল দেখছেন রাউসিসবাংলাদেশের দাবা অঙ্গনে খুবই পরিচিত মুখ ইগর রাউসিস। লাটভিয়ার এই সুপার গ্র্যান্ডমাস্টার ষষ্ঠবারের মতো বাংলাদেশের কোচের দায়িত্ব পেতে যাচ্ছিলেন। ফাহাদ-শিরিনদের দীক্ষিত করতে জুলাইয়ের শেষ দিকে তার আসার কথা ছিল। কিন্তু সেটা আর হচ্ছে না। কারণ জালিয়াতি করে ধরা পড়েছেন বর্তমানে চেক প্রজাতন্ত্রের হয়ে খেলা ৫৮ বছর বয়সী এই দাবাড়ু।
ফ্রান্সের স্ট্রাসবুর্গ ওপেন চলার সময় টয়লেটে বসে লুকিয়ে দাবার চাল দেখছিলেন রাউসিস। গত কয়েক বছর ধরে ফিদে রেটিং গ্রাফে অবিশ্বাস্য রকমের উন্নতি ছিল। রাউসিসের পারফরম্যান্স দেখে গত বছর টুইটারে তার নাম সরাসরি উল্লেখ না করে প্রতারণার অভিযোগ আনেন ব্রিটিশ গ্র্যান্ডমাস্টার ড্যানি গরমালি ও আন্তর্জাতিক মাস্টার লরেন্স ট্রেন্ট। তাকে নিয়ে সন্দেহ ছিল বিশ্ব দাবার সর্বোচ্চ সংস্থা ফিদেরও। শেষ পর্যন্ত ‍সুযোগের অপেক্ষায় ছিল তারা এবং হাতেনাতে ধরা পড়লেন রাউসিস।

তবে টয়লেটে তার এই ছবিটি কিভাবে তোলা হয়েছে সেটা অস্পষ্ট। দাবার আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে মোবাইল ফোন ব্যবহার নিষিদ্ধ। ফোনে চেজবেস অ্যাপের মতো শক্তিশালী ‘ইঞ্জিন’ অ্যাপস ব্যবহার করে কম্পিউটারের মাধ্যমে গেম বিশ্লেষণ ও দাবার পরবর্তী চাল কী হতে পারে দেখে নেওয়া যায়। সাধারণত বেশির ভাগ দাবা টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়ার আগে মেটালডিটেক্টর দিয়ে প্রতিযোগীদের যাচাই করা হয়।

লাটভিয়া, বাংলাদেশ ও চেক প্রজাতন্ত্রকে প্রতিনিধিত্ব করা রাউসিস গত বছর বিশ্বের শীর্ষ ১০০ জন দাবাড়ুর তালিকায় জায়গা করে নেয়। পঞ্চাশ পেরিয়েও তার এই পারফরম্যান্স বাড়িয়ে দেয় সন্দেহ। রাশিয়ান গ্র্যান্ড মাস্টার ও দাবা বিশেষজ্ঞ আন্দ্রে দেভিয়াৎকিন বলেছেন, ‘আমি সবসময় দেখেছি ৩০ এর পর দাবায় সাধারণত এত বিশাল উন্নতি খুবই কম। কিন্তু জিএম ইগর রাউসিস, যার বয়স ৫৭!, এখন তিনি শীর্ষ ১০০ তে, যার রেটিং ২৬৫৭।’

বয়সের বাধা ভেঙে ফেলা রাউসিসের ঈর্ষণীয় পারফরম্যান্সের কারণ জানতেই ফিদে তাকে রাখে সন্দেহের আওতায়। শেষ পর্যন্ত হাতেনাতে ধরা খেলেন তিনি। ফিদে জানায়, পুলিশ রাউসিসের বিষয়টি তদন্ত করছে। তবে শাস্তি হিসেবে তাৎক্ষণিকভাবে টুর্নামেন্ট থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

টয়লেটে বসে লুকিয়ে মোবাইল ফোন ব্যবহারের বিষয় নিশ্চিত করে লিখিত বিবৃতি দিয়েছেন রাউসিস। এক বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘গতকাল আমি কোথায় যেন হারিয়ে গিয়েছিলাম। লিখিতভাবে (বিবৃতি) আমি টয়লেটে মোবাইল ফোন ব্যবহারের কথা নিশ্চিত করেছি। আমি আর কী বলবো? আমি এরই মধ্যে আমার শেষ খেলা খেলে ফেললাম।’

রাউসিসকে আনার সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে বাংলাদেশের দাবা ফেডারেশনও। বিকল্প হিসেবে অন্য কারও খোঁজে নামবে তারা। ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শাহাবুদ্দিন শামীম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেছেন 'এটা আমাদের জন্য বিব্রতকর খবর। বিভিন্ন মিডিয়াতে এই খবর দেখার পর আমরা তাকে আজ (শনিবার) না করে দিয়েছি। আগামী ২০ জুলাই তার ঢাকায় আসার কথা ছিল। দেড় মাসের জন্য বাংলাদেশ দলের কোচের দায়িত্ব নিতেন তিনি। এখন আমাদের বিকল্প কোচ খুঁজতে হবে।'

/টিএ/এফএইচএম/

লাইভ

টপ