সাকিবের কী দোষ!

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২২:০৫, আগস্ট ০৪, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:০৬, আগস্ট ০৪, ২০১৯

সাকিব আল হাসানরংপুর রাইডার্সে আগেও খেলেছেন সাকিব আল হাসান। ২০১৫ সালে বিপিএলের তৃতীয় আসরে রংপুরের অধিনায়ক ছিলেন তিনি। পরের তিন মৌসুম ঢাকা ডায়নামাইটস খেলে এবার রংপুরের সঙ্গে চুক্তি করেছিলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। কিন্তু তার এই চুক্তি ভালোভাবে নেয়নি ঢাকা ডায়নামাইটস কর্তৃপক্ষ। অথচ সাকিবের কোনও দোষ নেই। তিনি তো নিয়ম মেনেই চুক্তি করেছেন।  

বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল বলছে, তাদের সঙ্গে নতুন চুক্তি করার আগে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো পছন্দের খেলোয়াড়ের সঙ্গে চুক্তি করতে পারবে না। তাদের ঘোষণার আগে রংপুর রাইডার্স সাকিব এবং কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে চুক্তি করেছে।

কিন্তু সাকিব-মুশফিকের চুক্তির বৈধতা দিতে রাজি নয় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটির পরিচালক মাহবুব আনাম বলেছেন, ‘২০১২ সালে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর সঙ্গে ছয় মৌসুমের জন্য চুক্তি হয়েছিল। বিপিএলের ষষ্ঠ আসরের পর চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়েছে। এই মৌসুমে নতুন করে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পর খেলোয়াড়দের সঙ্গে চুক্তি করার সুযোগ আসবে। যেহেতু সেটা হয়নি, তাই সাকিব সহ যারা চুক্তি করেছেন তাদের চুক্তি স্বাভাবিকভাবেই অবৈধ।’

অথচ বিপিএলের প্রত্যেক আসরেই দলবদল করেছেন আইকন খেলোয়াড়রা। নিজের পছন্দের দলে যোগ দিয়েছেন আগেও। তারই ধারাবাহিকতায় সাকিব এবার রংপুরে নাম লিখিয়েছেন। 

সাকিবের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পরও তাকে না পেয়ে ক্ষুব্ধ রংপুর রাইডার্সের প্রধান নির্বাহী ইশতিয়াক সাদিক। বিপিএল বর্জনের হুমকি দিয়ে তিনি বলেছেন, ‘আমরা এভাবে খেলতে পারি না। প্রতি বছর আমরা ১০ থেকে ১৫ কোটি টাকা খরচ করি। অথচ তারা (বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল) প্রতি বছর নতুন নতুন নিয়ম নিয়ে হাজির হয়। দরকার হলে আমরা এবার খেলবো না। বিসিবির হাতে তো অনেক দল আছে। তারা সেই দলগুলোকে নিয়ে টুর্নামেন্টে খেলুক!’  

রংপুরের প্রধান নির্বাহীর কথায় স্পষ্ট, সাকিব ইস্যুতে তিনি কতটা ক্ষুব্ধ। ক্ষোভ হওয়ারই কথা। আগের ছয়টি আসরে আইকনরা দল বদল করেছেন নিয়মিত। যেমন ২০১৬ সালে সাকিব রংপুর থেকে ঢাকায় গিয়েছিলেন। আর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বরিশাল থেকে খুলনায়।  ‍মুশফিকুর রহিম সিলেট থেকে বরিশালে যোগ দেন সেবার। সৌম্য সরকারকে রংপুর এবং সাব্বির রহমানকে রাজশাহী নতুন আইকন হিসেবে দলে নিয়েছিল সেই বছর।

২০১৭ সালেও এসেছিল পরিবর্তন। কুমিল্লা থেকে রংপুরে যোগ দিয়েছিলেন মাশরাফি মুর্তজা। তামিম ইকবাল চিটাগং থেকে কুমিল্লায়, মুশফিক বরিশাল থেকে রাজশাহীতে আর সাব্বির রাজশাহী থেকে সিলেটে যান। 

এ বছরের জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত বিপিএলের ষষ্ঠ আসরেও এসেছে পরিবর্তন। আইকন হিসেবে রাজশাহীতে যোগ দিয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান, আর লিটন দাস গিয়েছেন সিলেটে। শেষ মুহূর্তে রাজশাহী থেকে মুশফিক চলে যান চিটাগং ভাইকিংসে।

প্রত্যেক আসরেই দল বদল করেন আইকন ক্রিকেটাররা। বিপিএলে এটা নতুন কিছু নয়। তাই এবার সাকিবের দল বদলে অস্বাভাবিক কিছু ছিল না। কিন্তু ঢাকা ডায়নাইমাইটস এটা মেনে নিতে পারেনি। যদিও সাকিবের এখানে কোনও দোষই নেই।

/আরআই/এএআর/

লাইভ

টপ