আগামী বিশ্বকাপে চমক দেখাবে বাংলাদেশ

Send
রবিউল ইসলাম, কলকাতা থেকে
প্রকাশিত : ১৮:৩২, মার্চ ২৫, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:৪১, মার্চ ২৫, ২০১৬

Mashrafe-Bin-Mortaza-of-Bangladesh-celebrates-7৬ষ্ঠবারের মতো টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এ পর্যন্ত সবগুলো আসরেই অংশ নিয়েছে বাংলাদেশ। কিন্তু এখন পর্যন্ত গ্রুপ পর্ব পার হতে পারেনি টাইগাররা। প্রথম চার আসরে সরাসরি ১০টি টেস্ট খেলুড়ে দেশ অংশ নিলেও শেষ দুই আসরে র‌্যাংকিংয়ের প্রথম ৮টি দল সরাসরি অংশ নিয়েছে। বাকি দুটি দলকে সহযোগী দেশগুলোর সঙ্গে বাছাইপর্বে অংশ নিতে হয়েছে। বাছাইপর্বের দুই গ্রুপে চ্যাম্পিয়ন দল সুযোগ পেয়েছে টুর্নামেন্টের মূল পর্বে খেলার।

র‌্যাংকিংয়ে পিছিয়ে থাকার কারণে ২০১৪ ও ২০১৬ বিশ্বকাপে বাছাইপর্ব খেলতে হয়েছে লাল-সবুজদের। তবে ‍দুবারই বাছাইপর্বের বাধা পেরিয়ে মূল পর্ব খেলেছে বাংলাদেশ। আগের বারের মতো এবারও সেমিফাইনাল খেলার স্বপ্নটা ধুলিস্যাৎ হয়ে গেছে বুধবার ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ হেরে।

তবে মাশরাফির আশা পরবর্তী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ চমক দেখাবে। তখন বাংলাদেশের ক্রিকেটে আরও উন্নতি হবে। সেখানে নতুন এক বাংলাদেশকে দেখবে ক্রিকেট বিশ্ব। ২০২০ সালে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে অনুষ্ঠিত হবে আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসর। দুই বছর পর পর হওয়ার কথা থাকলেও ২০১৮ সালে হচ্ছে না বৈশ্বিক এই টুর্নামেন্টটি।

আগামী আসরে বাংলাদেশ খেললেও বর্তমান দলে থাকা ক্রিকেটারদের অনেকেই থাকবেন না এটা নিশ্চিত। মাশরাফির এটাই শেষ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ! সেই সঙ্গে রিয়াদ-সাকিব-মুশফিকরা ওই পর্যন্ত থাকবেন কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন থাকছে। সব মিলিয়ে তাই ২০২০ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ কী করবে এটাও নিশ্চিত করে বলা খুব কঠিন।

তবুও মাশরাফি মনে করেন, তার দল এই ফরম্যাটে দারুণ ক্রিকেট খেলছে। এই আসরে সফল না হলেও আগামী আসরে তার দল ভালো ফল পাবে। শুক্রবার সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘টি-টোয়েন্টিতে যদি বাংলাদেশের অতীত রেকর্ড দেখেন। সেখানে খুব একটা ভালো ছিলে না। বর্তমানে আমরা ভালো অবস্থানে আছি। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের কিছু খেলোয়াড় আমাদের ছিল না। এখন নতুন কিছু খেলোয়াড় এসে আমাদের ওই গ্যাপটা পূরণ করেছে। এজন্যই আমি বললাম পরের বিশ্বকাপে আমাদের ভিন্ন দল হিসেবে দেখা যাবে।’

এখনও একটি ম্যাচ বাকি টাইগারদের। তারপরও মাশরাফির কথায় উঠে এলো এই টুর্নামেন্টের প্রাপ্তিগুলো। তিনি বলেন, ‘আমার খুব ভালো লেগেছে ছেলেরা যেভাবে খেলেছে; এটা দেখে। ভারতে আসার আগেও আমরা কনফিউশনে ছিলাম উইকেট সম্পর্কে। কেননা এর আগে আমরা ভারতে কখনও খেলিনি। ছোট ছোট ভুল না করলে হয়তো ২-১ টি ম্যাচ আমরা জিততে পারতাম। তবে এটা নিয়ে পড়ে থাকতে চাই না। আমাদের সামনে এগিয়ে যেতে হবে। এই অভিজ্ঞতা আমাদের কাজে লাগবে। রেজাল্ট বাদ দিলে নির্দিষ্ট কিছু খেলোয়াড়ের ভালো সময় গেছে এই টুর্নামেন্টে।'

/এমআর/

লাইভ

টপ