ঢাকার দর্শকদের চিৎকারে রোবট সোফিয়াও বিভ্রান্ত

Send
হিটলার এ. হালিম
প্রকাশিত : ১৯:৫০, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৭ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৩৬, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৭

সোফিয়াবুধবার বিকালে দর্শকদের জন্য দুই ঘণ্টা সময় রেখেছিল রোবট সোফিয়া। কিন্তু সব মিলিয়ে ৪০ মিনিটের বেশি সে তাদের সামনে থাকতে পারেনি। তাদের হৈ চৈ ও চিৎকারে সোফিয়া ঠিক করতে পারছিল না কার প্রশ্নের জবাব দেবে– উপস্থাপকের না দর্শকদের। ১০ মিনিটের কিছু বেশি সময় স্থায়ী হওয়া এই পর্বে মাত্র কয়েকটি প্রশ্নের জবাব দিয়ে মঞ্চ থেকে সরে যায় সোফিয়া।

বুধবার দুপুর আড়াইটা থেকে বিকাল সাড়ে চারটা–এই ২ ঘণ্টা দর্শকদের জন্য ‘বরাদ্দ’ রেখেছিল সোফিয়া। কথা ছিল মঞ্চে সোফিয়ার কথা শুনবেন তারা। দর্শকদের প্রশ্ন করার কোনও সুযোগ ছিল না এ পর্বে।   

সোফিয়াকে দেখতে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলনকেন্দ্রের বাইরে ছিল উপচে পড়া ভিড়প্রশ্নোত্তর পর্ব শুরু হওয়ার আগে অনুষ্ঠানের উপস্থাপক গাউসুল আলম শাওন সোফিয়ার নির্মাতা ডেভিড হ্যানসনের সঙ্গে আলাপচারিতায় মেতে ওঠেন। এ পর্বে হ্যানসন সোফিয়ার নির্মাণ কাহিনি বর্ণনা করেন। তিনি বলেন, তিনি রোবটকে মানুষের কাজের বিকল্প বা প্রতিযোগী হিসেবে তৈরি করেননি। বরং মানুষের সহযোগী হিসেবে তৈরি করছেন। ফলে কখনোই রোবট মানুষের প্রতিদ্বন্দ্বী হবে না।

সোফিয়াকে মঞ্চে নিয়ে আসা হয় দুপুর ২টা ৪০ মিনিটের দিকে। সোফিয়াকে প্রশ্নোত্তর পর্বের জন্য প্রস্তুত করতেই কিছু সময় চলে যায়। এরইমধ্যে দর্শকের চাপ বাড়তে থাকে, এক পর্যায়ে শুরু হয় হৈ চৈ, চিৎকার। এ পর্বে সোফিয়াকে প্রশ্ন করেন করেন উপস্থাপক শাওন। প্রশ্ন জোরে হলেও সোফিয়ার নিচুস্বরের উত্তর দর্শকদের কান পর্যন্ত না পৌঁছানোয় তাদের চিৎকার আরও বাড়তে থাকে। 

এ দেশে কেমন লাগছে–এই প্রশ্নের জবাবে সোফিয়া বলে, ‘আমি আনন্দিত, অভিভূত।’ সে বলে, জামদানি এ দেশের মানুষের এবং এটা তাদের অধিকারও। এজন্যই মনে হয় আমাকে জামদানির কাপড় পরানো হয়েছে। এসময় সোফিয়ার পরনে ছিল হলুদ-সাদা রঙের জামদানি টপস ও স্কার্ট। সোফিয়াকে ডিজিটাল বাংলাদেশ, ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড, সোফিয়ার জোডিয়াক সাইন ইত্যাদি নিয়ে প্রশ্ন করা হয়। কিন্তু উত্তর ঠিক বোঝা যায়নি। এক প্রশ্নের জবাবে সোফিয়া বলে, ‘আমরা মানুষের রিপ্লেস হতে নয়, সহযোগী হতে এসেছি।’

এসময় মঞ্চে আসেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। তখন সোফিয়ার কাছে জানতে চাওয়া হয় সে প্রতিমন্ত্রী সম্পর্কে কিছু জানে কিনা। সোফিয়া বলে, জুনাইদ আহমেদ পলক, আইসিটি ডিভিশনের প্রতিমন্ত্রী। পলকও সোফিয়াকে প্রশ্ন করেন। তিনি এ সময় শুভেচ্ছা স্মারক হিসেবে সোফিয়াকে নৌকা উপহার দেন।

এর আগে সকালে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড উদ্বোধনের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কথা বলেন সোফিয়ার সঙ্গে। প্রধানমন্ত্রী তাকে বলেন, ‘হ্যালো সোফিয়া, কেমন আছ?’’ জবাবে সোফিয়া বলে, ‘হ্যালো মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আমি গর্ব অনুভব করছি।’ এসময় সোফিয়া প্রধানমন্ত্রীকে বলে, ‘জানি, আপনার নাতনির নামও আমার মতো।’ আরও অনেক কথার পর সোফিয়া প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ জানায় ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৭’ উদ্বোধন করতে।

বুধবার শুরু হয় চার দিনব্যাপী আইসিটি-বিষয়ক মেগা ইভেন্ট ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৭’। ‘রেডি ফর টুমরো’ প্রতিপাদ্যে এতে প্রযুক্তিভিত্তিক বিভিন্ন উদ্ভাবন ও অর্জন তুলে ধরা হচ্ছে। গত ৯ বছরেরও বেশি সময়ে আইসিটি খাতে দেশের যে অর্জন– তা নিয়ে বাংলাদেশ আগামীর জন্য প্রস্তুত বলে এ বছরের প্রতিপাদ্যে ইঙ্গিত করা হয়েছে।

ছবি: সাজ্জাদ হোসেন। 

 

/এইচএএইচ/এএম/

লাইভ

টপ