behind the news
Vision  ad on bangla Tribune

এক লাখ নারী উদ্যোক্তা তৈরি করবে সরকার

হিটলার এ. হালিম১২:১৪, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৫

নারী উদ্যোক্তা তৈরি করবে সরকারদেশের এক লাখ গ্রামীণ নারীকে উদ্যোক্তা তৈরি করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগ। আইসিটি বিভাগের বাস্তবায়নাধীন ‘ওয়ান ফ্যামিলি ওয়ান ওম্যান: এম্পাওয়ারিং ওম্যান থ্রু আইসিটি’ প্রকল্পের মাধ্যমে এ উদ্যোগ বাস্তবায়ন করবে সরকার।
আইসিটি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, দেশের ৬৪ জেলার এক লাখ গ্রামীণ নারীকে উদ্যোক্তা হিসেবে তৈরি করা হবে এবং তাদেরকে ল্যাপটপ, সার্ভার ও স্টোরেজ সুবিধা দেওয়ার মাধ্যমে নেটওয়ার্কের আওতায় আনা হবে। এ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৫৬১ দশমিক ৪৭ কোটি টাকা।
নারীদের কীভাবে উদ্যোক্তা হিসেবে তৈরি করা হবে- জানতে চাইলে আইসিটি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, বিভিন্ন প্রক্রিয়া অনুসরণ করে বাছাই করা নারীদের আউটসোর্সিং প্রশিক্ষণ দিয়ে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে গড়ে তোলা হবে। একেকজন নারী ফ্রিল্যান্সারই হবে উদ্যোক্তা।

জানা যায়, দেশের প্রতি জেলা থেকে অন্তত ১ হাজার ৫৬২ জন নারী সরকারের এই উদ্যোগের সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পারবেন। শুধু জেলা শহর থেকেই নয়, উপজেলা থেকেও সম্ভাবনাময় ও উদীয়মান নারীদের এই উদ্যোগের জন্য বেছে নেওয়া হবে। অবশ্য তার আগে সংশ্লিষ্ট জেলা ও উপজেলা এলাকায় প্রচার-প্রচারণা চালানো হবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে। তারপর একটি নির্দিষ্ট বাছাই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নারীদের এই প্রকল্পের জন্য বেছে নেওয়া হবে বলে জানা গেছে। বাছাই প্রকিয়ার মধ্যে সাধারণ জ্ঞান প্রতিযোগিতা, এমসিকিউ পরীক্ষার মাধ্যমে বেছে নেওয়া হতে পারে।

এ বিষয়ে নারী উদ্যোক্তা টিম ইঞ্জিনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সামিরা জুবেরী হিমিকা বলেন, আইসিটি বিভাগের এটি একটি মহৎ উদ্যোগ। তবে তিনি মনে করেন- প্রশিক্ষণ দিয়ে দুম করে ফ্রিল্যান্সার তৈরি করা যায় না। কারণ ফ্রিল্যান্সারকে ক্লায়েন্ট হ্যান্ডেল করতে হয়, মার্কেটপ্লেসে বিড করে কাজ আনতে হয়। তা না হলে তিনি পেমেন্ট পাবেন না। নারীদের উদ্যোক্তা প্রশিক্ষণের পাশাপাশি এসব বিষয়েও প্রশিক্ষণ দিতে হবে।

তবে এই খাতে নারীদের দুটি চ্যালেঞ্জ আছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, তাদের সফল হতে হলে নিরবছিন্ন ইন্টারনেট দিতে হবে এবং পর্যাপ্ত সময় দিতে হবে। তিনি বলেন, একজন ফ্রিল্যান্সারকে তার কাজের জন্য পর্যাপ্ত সময় দিতে হয়। একজন নারীর পক্ষে এত সময় দেওয়া সবসময় সম্ভব না-ও হতে পারে। এসব বিষয় নারীদের মাথায় রাখতে হবে। তিনি আরও বলেন, নারীদের উদ্যোক্তা হিসেবে তৈরির প্রশিক্ষণের দ্বিতীয় পর্যায়ে থাকতে পারে ইনকাম জেনারেট করা এবং মার্কেট তৈরি করা।

সরকারের উদ্যোগে সম্মিলিতভাবে দেশে চলছে ফ্রিল্যান্সারদের জন্য আউটসোর্সিং প্রশিক্ষণ। লার্নিং-আর্নিং নামের ওই প্রকল্পে নারী ও পুরুষ উভয়কেই প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। তবে এতে নারীর অংশগ্রহণ থাকলেও তা কখনওই সন্তোষজক ছিল না। ফলে নারীদের প্রশিক্ষণ দিয়ে সরকার নারী উদ্যোক্তা তৈরি করতে চায়। পাশাপাশি পিছিয়ে পড়া বা একেবারে গ্রামীণ নারীদের আত্মবিশ্বাস ফিরিয়ে দিয়ে এবং আত্মমর্যাদাসম্পন্ন করে তুলতে এবার আইসিটি বিভাগ এই উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে। আইসিটি বিভাগ মনে করছে- এই প্রকল্পের মাধ্যমে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে নারীর ক্ষমতায়ন করা যাবে।

/এইচএএইচ/এএইচ /

Global Brand  ad on Bangla Tribune

লাইভ

IPDC  ad on bangla Tribune
টপ