অফিস ছুটি হলেও গ্রাহক সেবা ক্ষতিগ্রস্ত হবে না: বাংলালিংক

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৭:০৬, ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৩৩, ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৬

বাংলালিংকের প্রধান কার্যালয়ের সামনের দৃশ্য

কর্মী ছাঁটাইকে কেন্দ্র করে মোবাইলফোন অপারেটর বাংলালিংকের প্রধান কার্যালয় রবিবারের জন্য ছুটি ঘোষণা করা হলেও এর কোনও গ্রাহক সেবা পেতে সমস্যায় পড়বেন না বলে আশ্বস্ত করেছেন অপারটেরটির শীর্ষ কর্মকর্তারা। রবিবার বিকেলে বাংলালিংকের প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে কর্মকর্তারা জানান, এটি বাংলালিংকের একেবারে অভ্যন্তরীণ একটি বিষয়। এরফলে গ্রাহক সেবা বাধাগ্রস্ত হবে না।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলালিংকের সিসিও শিহাব আহমেদ, জনসংযোগ বিভাগের সহকারী মহাব্যবস্থাপক মামুন অর রশিদসহ আরও অনেকে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, সোমবার থেকে যথারীতি এবং যথা সময়ে প্রধান কার্যালয়ে দাফতিরক কাজকর্ম শুরু হবে। ছাঁটাই হওয়া কর্মী সম্পর্কে বাংলালিংকের ভাষ্য, বাংলালিংকের সব ধরনের আইন ও বিধি মেনেই সংশ্লিষ্ট কর্মীকে ছাঁটাই করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে বিভ্রান্ত হওয়ার কোনও সুযোগ নেই। 

সংশ্লিষ্ট সূত্রে আরও জানা গেছে, রবিবার থেকেই বাংলালিংকে ভলান্টিয়ার সেপারেশন স্কিম চালু হয়েছে। ওই স্কিমের আওতায় কোনও কর্মী যদি স্বেচ্ছায় বাংলালিংক থেকে অব্যাহতি নিতে চান তাহলে তাকে বিশেষ বাড়তি সুবিধা দেওয়া হবে। মূলত ওই মিটিং চলাকালে পাওয়ার অ্যাসিসট্যান্ট ম্যানেজার মো. মোস্তাক অসুস্থ হয়ে পড়েন।

এর আগে রাজধানীর গুলশানে বাংলালিংকের প্রধান কার্যালয় ও ঢাকার বাইরের সব আঞ্চলিক কার্যালয় রবিবারের জন্য ছুটি ঘোষণা করা হয়।

বাংলালিংকের জনসংযোগ বিভাগের সহকারী ব্যবস্থাপক অংকিত সুরেকা বাংলা ট্রিবিউনকে জানিয়েছিলেন, রবিবার প্রধান কার্যালয় ছুটি ঘোষণা করা হলেও গ্রাহক সেবা কেন্দ্র ও কলসেন্টারগুলো খোলা থাকবে।

বাংলালিংকের প্রধান কার্যালয়ের একজন কর্মী প্রকৌশলী শরিফুল ইসলামকে ছাঁটাইকে কেন্দ্র করে সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বৃহষ্পতিবার রাতে কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেন। ওইদিন প্রায় ৯ ঘন্টা অপারেটরটির প্রধান কারিগরি কর্মকর্তা পিরিহেনি এলহামিকে আটকে রাখেন।

শরিফুল ইসলামের চাকুরিচ্যুতির বিষয়টি বিবেচনার আশ্বাস দিয়ে সেদিন তিনি রাত ৩টার দিকে কার্যালয় থেকে বের হন। ওই ঘটনার পর থেকেই বাংলালিংক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বাংলালিংক এমপ্লয়িজ ইউনিয়নের বিরোধ শুরু হয়। ওই পরিস্থিতি সামাল দিতেই আজ প্রধান কার্যালয়সহ সারাদেশের আঞ্চলিক কার্যালয়গুলোতে ছুটি ঘোষণা করেন কর্তৃপক্ষ।

গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিরাজুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, বাংলালিংকের প্রধান কার্যালয়ে অসন্তোষ চলছে এমন খবর পেয়ে তারা ওই কার্যালয়ের সামনে অতিরিক্ত ফোর্স মোতায়েন করেন। যাতে যেকোনও ধরনের পরিস্থিতি দ্রুত মোকাবেলা করা যায়।

সংশ্লিষ্টরা জানান, রবিবার অফিস শুরুর আগে কর্মচারী ইউনিয়ন প্রতিবাদ কর্মসূচির ঘোষণা দিলে কর্তৃপক্ষ অফিস শুরুর সময় সকাল সাড়ে ৯টা থেকে এক ঘন্টা এগিয়ে আনেন। প্রধান ফটকের বাইরে মোতায়েন করা হয় আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। বাহিনীর সদস্যরা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চেক করে অফিসে ঢুকতে দেন। মূলত এই আচরণের প্রতিবাদে তখন থেকেই কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ফুঁসতে থাকেন। এরইমধ্যে দুপুরে বাংলালিংক এমপ্লয়িজ ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক পাওয়ার অ্যাসিসট্যান্ট ম্যানেজার মো. মোস্তাককে অপারেটরটির কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ডেকে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার সময় তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে ভর্তিও করা হয় বলে জানা গেছে।

জেইউ/এইচএএইচ/

লাইভ

টপ