সেকশনস

বঙ্গবন্ধুর ছবি ব্যবহার: নিয়ম কী বলে?

আপডেট : ১৫ আগস্ট ২০১৭, ১৭:৫৪

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পঞ্চম শ্রেণির এক শিশুর আঁকা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি দিয়ে আমন্ত্রণপত্র প্রকাশের পর বরগুনার সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) গাজী তারিক সালমনের বিরুদ্ধে মামলা ও তার জামিন আবেদন বাতিলের ঘটনার পর নতুন করে প্রশ্ন উঠেছে, বঙ্গবন্ধুর ছবি ব্যবহারের নিয়ম কী। কিভাবে ছবি ব্যবহার করা যাবে বা যাবে না, এ ব্যাপারে কোনও আইন বা লিখিত কোনও নিয়ম আছে কিনা?— এসব প্রশ্ন এখন অনেকেরই। আইনজীবীরা বলছেন, সংবিধানে প্রতিকৃতি ব্যবহারের নিয়ম আছে। সেই অনুযায়ীই ব্যবহার করতে হবে ছবি। আর গবেষকরা বলছেন, ছবির ব্যবহার কিভাবে হবে, সেটা সামাজিক মূল্যবোধ দিয়েই বুঝতে হবে।

সংবিধানের ৪-এর ক অনুচ্ছেদে উল্লেখ আছে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার ও প্রধান বিচারপতির কার্যালয় এবং সকল সরকারি ও আধা-সরকারি অফিস, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, সংবিধিবদ্ধ সরকারি কর্তৃপক্ষের প্রধান ও শাখা কার্যালয়, সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশের দূতাবাস ও মিশনসমূহে সংরক্ষণ ও প্রদর্শন করতে হবে।

সংবিধানের এই বিধান অফিসের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। কিন্তু একজন নাগরিক চাইলে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি আঁকতে পারবেন কিনা, সে নিয়ে কোনও নিয়ম নেই। শিশুর হাতে আঁকা বঙ্গবন্ধুর ছবিকে বিকৃত বলে মামলা করে দেওয়া যাবে কিনা তা নিয়ে যখন আলোচনা হচ্ছে, তখন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার জবাব দিয়ে বলেছেন, ‘বঙ্গবন্ধুর হুবহু ছবি আজ পর্যন্ত কেউ আঁকতে পারেনি। আমরাও যেসব ছবি ব্যবহার করি সেসব ছবিতেও কিছু খুঁত থাকে। হুবহু হয় না, সেটা আমি জানি।’

তবে জাতির পিতার ছবি নিয়ে অন্য কোনও আইন না থাকলেও বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে কোনও অবমাননাকর বক্তব্য প্রচার বা অপপ্রচারে লিপ্ত থাকলে বা এ ধরনের কাজে মদদ দিলে ব্যবস্থা নিতে আসছে ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট-২০১৬। এর খসড়ার একটি অংশে জাতির পিতা এবং মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে বিকৃত তথ্য প্রকাশের বিরুদ্ধে ডিজিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে নেতিবাচক অপপ্রচারের জন্য শাস্তির প্রস্তাব রয়েছে।

খসড়া আইনের ১৫(৫) ধারায় বলা হয়েছে, ‘কোনও ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা বিদেশি নাগরিক যদি ইলেকট্রনিক মিডিয়াতে মুক্তিযুদ্ধ বা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বা আদালত কর্তৃক মীমাংসিত মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক বিষয়াবলী বা জাতির পিতার বিরুদ্ধে কোনও অবমাননাকর মন্তব্য, প্রচার বা অপপ্রচারে লিপ্ত হয় বা সেটাতে মদদ দেয়; তা হলে ওই ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা বিদেশি নাগরিক ডিজিটাল সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড সংঘটনের অপরাধ করেছেন বলে গণ্য হইবে।’ এ ধরনের অপরাধের জন্য তিন বছর থেকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড অথবা এক কোটি টাকা পর্যন্ত জরিমানা বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত করার বিধান রাখা হয়েছে।

তবে এই আইন দিয়ে কোনও ছবিতে বঙ্গবন্ধুকে বিকৃতভাবে ‍উপস্থাপন করা হয়েছে—এমন অভিযোগে মামলা করার সুযোগ থাকলে বঙ্গবন্ধুকে অনুভবের প্রচেষ্টা থেমে যাবে বলে আশঙ্কা করছেন গবেষকরা। শুধু তাই নয়, বঙ্গবন্ধুর ওপর প্রকৃত গবেষণা নিয়েও কোনও প্রশ্ন ওঠার কারণ নেই বলে মন্তব্য তাদের। ছবি ব্যবহার ও জাতির পিতাকে নিয়ে লেখালেখির ক্ষেত্রে শিগগিরই একটি সমন্বিত নিয়ম কিভাবে সামনে হাজির করা যায়, সে বিষয়েও কাজ করার কথা বলছেন তারা।

একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘কতগুলো জিনিস খুবই দৃষ্টিকটু। যথার্থ অর্থে এগুলো বন্ধ করা উচিত। বঙ্গবন্ধুর ছবি ছোট করে দিয়ে স্থানীয় নেতাদের ছবি বড় করে দেওয়ার মতো ঘটনাগুলো ঘটছে। এগুলো নিন্দনীয়। আত্মপ্রচারের জন্য বঙ্গবন্ধুর ছবি ব্যবহার করছে অনেকেই। যারা এসব করছে, তাদের উদ্দেশ্যটা আগে বুঝতে হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘এগুলো আইন দিয়ে বন্ধ করা সম্ভব না। বরং আমাদের যে মূল্যবোধের জায়গাগুলো, সেগুলো নার্সিং জরুরি।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের সভাপতি সোনিয়া নিশাত আমিন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু মহান ব্যক্তিত্বের অধিকারী। গবেষণা যদি বস্তুনিষ্ঠ হয় ও মানসম্পন্ন তত্ত্বাবধায়কের অধীনে হয়, তাহলে আমরা আস্থা রাখতে পারি। জাতির জনক ও মুক্তিযুদ্ধে অবদান রেখেছেন যে নেতারা, তাদের বিষয়ে কখনও মানহানিকর মন্তব্য করা হলে মানহানি মামলা হওয়াই উচিত। কারণ সেগুলো উদ্দেশ্যপ্রণোদিত সমালোচনা, গবেষণা নয়।’

আইনজীবী ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ছবি কিভাবে ব্যবহার করা হবে বা হবে না বা কোনটা করলে অপরাধ হবে, সেটা আইন দিয়ে নির্ধারণ সম্ভব না। এই বিষয়টি বরং আইনের চেয়ে সামাজিক মূল্যবোধ থেকে আসতে হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনের ফলে জনমনে মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে আলোচনায় ভীতি তৈরি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে এরকম বিধান না থাকাই শ্রেয়।’

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ‘এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট করে কোনও আইন নেই। তবে সংবিধানে জাতির জনকের প্রতিকৃতি ব্যবহারের নিয়ম যথাযথভাবে উল্লেখ আছে। সেটিই মানা হয়।’

/টিআর/টিএন/

সম্পর্কিত

স্বামী কাবিননামা না দেওয়ায় স্ত্রীর ‘আত্মহত্যা’

স্বামী কাবিননামা না দেওয়ায় স্ত্রীর ‘আত্মহত্যা’

নারী-পুরুষ সমতা কত দূর?

আন্তর্জাতিক নারী দিবস আজনারী-পুরুষ সমতা কত দূর?

সুজনকে আইনি নোটিশ পাঠাইনি: রকিবুল

সুজনকে আইনি নোটিশ পাঠাইনি: রকিবুল

শেষ মুহূর্তে বেনজেমার গোলে হার এড়ালো রিয়াল মাদ্রিদ

শেষ মুহূর্তে বেনজেমার গোলে হার এড়ালো রিয়াল মাদ্রিদ

বাংলাদেশের হার ছাপিয়ে আলোচনায় পিটারসন

বাংলাদেশের হার ছাপিয়ে আলোচনায় পিটারসন

৮ ইস্যুতে বাংলাদেশ-ভারত সচিব পর্যায়ের বৈঠক আজ

৮ ইস্যুতে বাংলাদেশ-ভারত সচিব পর্যায়ের বৈঠক আজ

ইন্টারনেটের গতিতে সুদান-উগান্ডার চেয়েও পিছিয়ে বাংলাদেশ

ইন্টারনেটের গতিতে সুদান-উগান্ডার চেয়েও পিছিয়ে বাংলাদেশ

৯ বছরের শিশুকে ধর্ষণ করে ৬২ বছরের ছোট্ট মিয়া

৯ বছরের শিশুকে ধর্ষণ করে ৬২ বছরের ছোট্ট মিয়া

মোংলায় আসছে ভারতীয় যুদ্ধজাহাজ

মোংলায় আসছে ভারতীয় যুদ্ধজাহাজ

সৈয়দপুরে কুকুরের কামড়ে ৬ জন হাসপাতালে

সৈয়দপুরে কুকুরের কামড়ে ৬ জন হাসপাতালে

৭ মার্চের ভাষণ তুর্কি ভাষায় অনুবাদ

৭ মার্চের ভাষণ তুর্কি ভাষায় অনুবাদ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধন করতে হবে: ইসলামী আন্দোলন

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধন করতে হবে: ইসলামী আন্দোলন

সর্বশেষ

গিনির সেনানিবাসে ব্যাপক বিস্ফোরণ, নিহত অন্তত ২০

গিনির সেনানিবাসে ব্যাপক বিস্ফোরণ, নিহত অন্তত ২০

ভারতে পালিয়ে যাওয়া পুলিশ সদস্যদের ফেরাতে চায় মিয়ানমার

ভারতে পালিয়ে যাওয়া পুলিশ সদস্যদের ফেরাতে চায় মিয়ানমার

রাজনৈতিক দলের ৩৩ শতাংশ নারী নেতৃত্বের বাধ্য-বাধকতা নেই

রাজনৈতিক দলের ৩৩ শতাংশ নারী নেতৃত্বের বাধ্য-বাধকতা নেই

১০ হাজার টাকা পাওয়ার খবরে শিক্ষার্থীদের আবেদনের হিড়িক

১০ হাজার টাকা পাওয়ার খবরে শিক্ষার্থীদের আবেদনের হিড়িক

করোনা শনাক্তের সংখ্যা ১১ কোটি ৭৪ লাখ ছাড়িয়েছে

করোনা শনাক্তের সংখ্যা ১১ কোটি ৭৪ লাখ ছাড়িয়েছে

দেশে করোনার থাবার আদ্যোপান্ত

দেশে করোনার থাবার আদ্যোপান্ত

ওবায়দুল কাদের আজ দিশেহারা: কাদের মির্জা

ওবায়দুল কাদের আজ দিশেহারা: কাদের মির্জা

‘এ বিজয় মুজিব ও আ.লীগের নয়, সাড়ে ৭ কোটি মানুষের’

‘এ বিজয় মুজিব ও আ.লীগের নয়, সাড়ে ৭ কোটি মানুষের’

টিভি পর্দায় আজ ট্রান্সজেন্ডার নারীর সংবাদ পাঠ ও অভিনয়

টিভি পর্দায় আজ ট্রান্সজেন্ডার নারীর সংবাদ পাঠ ও অভিনয়

নারী দিবসে ‘আঁধার ভাঙার শপথ’

নারী দিবসে ‘আঁধার ভাঙার শপথ’

নারী দিবস উপলক্ষে ৭ রূপে সেজেছেন নওশাবা

নারী দিবস উপলক্ষে ৭ রূপে সেজেছেন নওশাবা

৭ মার্চ উদযাপনে আহসান মঞ্জিলে আশতবাজির ঝলক

৭ মার্চ উদযাপনে আহসান মঞ্জিলে আশতবাজির ঝলক

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

নারী-পুরুষ সমতা কত দূর?

আন্তর্জাতিক নারী দিবস আজনারী-পুরুষ সমতা কত দূর?

৮ ইস্যুতে বাংলাদেশ-ভারত সচিব পর্যায়ের বৈঠক আজ

৮ ইস্যুতে বাংলাদেশ-ভারত সচিব পর্যায়ের বৈঠক আজ

ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বজ্রসহ বৃষ্টি বা শিলাবৃষ্টি হতে পারে

ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বজ্রসহ বৃষ্টি বা শিলাবৃষ্টি হতে পারে

১০ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান পাচ্ছেন স্বাধীনতা পুরস্কার

১০ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান পাচ্ছেন স্বাধীনতা পুরস্কার

এক বছরে শনাক্ত সাড়ে পাঁচ লাখ ছাড়ালো

এক বছরে শনাক্ত সাড়ে পাঁচ লাখ ছাড়ালো

৭ মার্চের ভাষণ নিয়ে অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে: তথ্যমন্ত্রী

৭ মার্চের ভাষণ নিয়ে অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে: তথ্যমন্ত্রী

এবারের নারী দিবসে সম্মাননা পাচ্ছেন ৫ জয়িতা

এবারের নারী দিবসে সম্মাননা পাচ্ছেন ৫ জয়িতা

কত বাধা পেরিয়ে এলো ৭ মার্চের ভাষণ!

কত বাধা পেরিয়ে এলো ৭ মার্চের ভাষণ!

৭ মার্চের ভাষণ ঐতিহাসিক দলিল হয়ে উঠলো যেভাবে

৭ মার্চের ভাষণ ঐতিহাসিক দলিল হয়ে উঠলো যেভাবে

যেভাবে আসে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি

৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণযেভাবে আসে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি


[email protected]
© 2021 Bangla Tribune
Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.