X
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৭ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

‘মিয়ানমার মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে, আর বাংলাদেশ মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা করছে’

আপডেট : ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১৮:৫০

মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক (ফাইল ছবি) মিয়ানমার সরকার মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে, অন্যদিকে বাংলাদেশ সরকার ওই দেশের নাগরিকদের আশ্রয় দিয়ে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা করেছে বলে বাংলা ট্রিবিউনের কাছে মন্তব্য করেছেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক। তিনি বলেন, ‘রাখাইন রাজ্যের নির্যাতিত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীদের আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ মানবতার পরিচয় দিয়েছে— এটা আমরা বিশ্ববাসীর কাছে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি।’
মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক গণ-আদালতের শুনানিতে মানবাধিকার কমিশনের ভূমিকার কথা বলতে গিয়ে বুধবার (২০ সেপ্টেম্বর) রোহিঙ্গা সংকট বিষয়ে কাজী রিয়াজুল হক এসব কথা বলেন। গত ১৭ সেপ্টেম্বর মালয়েশিয়ায় ওই শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। এতে তিনি ছাড়াও অংশ নেন কমিশনের সচিব হিরন্ময় বাড়ৈ ও উপ-পরিচালক এম রবিউল ইসলাম।
কাজী রিয়াজুল হক বলেন, ‘গণ-আদালতে কমিশনের পক্ষ থেকে মিয়ানমারের নাগরিকদের হত্যা ও নির্যাতনের পরিপ্রেক্ষিতে জাতিসংঘ, আশিয়ান, ওআইসিসহ বিশ্বের অন্যান্য আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক সংস্থাগুলোর মিয়ানমার সরকারের ওপর চাপ তৈরি করা উচিত। মিয়ানমার যেন এই নির্যাতন বন্ধ করতে বাধ্য হয় এবং বাংলাদেশে পালিয়ে আসা তাদের নাগরিকদের ফেরত নিতে বাধ্য হয়— এ বিষয়ে জনমত গড়ে তোলার উদ্দেশ্য ছিল আমাদের। আমরা সেটাই করেছি।’
মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘ওরা আমাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছিল। সেখানে গিয়ে আমরা বলেছি, মিয়ানমার সরকার, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের ওপর যে নির্যাতন করেছে সেটা অমানবিক। তারা (রোহিঙ্গারা) নিজ দেশ ছাড়তে বাধ্য হয়েছে, তাদের হত্যা করা হয়েছে। এই নির্যাতন মানবাধিকারের লঙ্ঘন এবং এটা গণহত্যার সামিল। আমরা তাদের জানিয়েছি, কেবল ২৫ আগস্টের পর থেকেই আমাদের দেশে চার লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থী আশ্রয় নিয়েছে।’
কাজী রিয়াজুল হক আরও বলেন, ‘আমরা সেখানে উপস্থিত সবাইকে বলেছি, মিয়ানমার নিজ দেশের নাগরিকদের ওপর যে নির্যাতন চালিয়েছে, তা নিশ্চিতভাবে মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন। তাদের নিজ নাগরিকদের ফেরত নিতে হবে, আবার তাদের এই মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিচারও হওয়া উচিত বলে আমরা মনে করি। অন্যদিকে, আমাদের নিজেদের অনেক সমস্যা থাকলেও আমরা নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা করেছি।’
গত ৯ থেকে ১১ সেপ্টেম্বর কক্সবাজারের কুতুপালংসহ বেশকিছু আশ্রয়কেন্দ্র পরিদর্শন করে মানবাধিকার কমিশন। ওই সময় নারী-পুরুষ ও শিশুদের সঙ্গে কথা বলে সেগুলোর ভিডিও রেকর্ডও করা হয়। এসব ভিডিও গণ-আদালতের শুনানিতে উপস্থাপন করা হয় জানিয়ে কাজী রিয়াজুল হক বলেন, ‘এর আগে ২০১৬ সালের অক্টোবরেও যেসব রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসেছিল, তাদের সঙ্গে কথা বলে ভিডিও করেছিলাম আমরা। সব মিলিয়ে ৮ মিনিটের একটি ভিডিওচিত্র আমরা মালেয়শিয়ার আদালতে দেখিয়েছি। এসব ভিডিওতে রোহিঙ্গারা নিজেদের ওপর চলা নির্যাতনের বর্ণনা দিয়েছে। তাই রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন করা হয়নি বলে মিয়ানমার যে দাবি করছে, সেটা এসব ভিডিওতেই মিথ্যা প্রমাণিত হয়।’ পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে দেশের মানুষ ও সরকারের ভূমিকাও সেখানে উপস্থাপন করা হয় বলে জানান তিনি।
শুনানিতে অংশ নেওয়া ব্যক্তিরা মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন দলের প্রধান নেত্রী সু চি প্রসঙ্গে কী বলেছে জানতে চাইলে ড. রিয়াজুল হক বলেন, ‘যারা ওখানে অংশ নিয়েছেন, তারা সবাই গণহত্যা নিয়ে কাজ করে থাকেন। তারা আমাদের প্রশ্ন করেছে, মিয়ানমার সরকারের এ পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ কী করছে? আমরা তাদের বলেছি, মিয়ানমারের নাগরিকদের ফেরত নিতে বাংলাদেশ জনমত তৈরির জন্য কাজ করছে। পাশাপাশি মানবাধিকার কমিশনের পক্ষ থেকে আমরাও কাজ করছি। জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার, ওআইসি ও আশিয়ানের সেক্রেটারি জেনারেলকে চিঠি লিখেছি। সবাইকে বলেছি, মিয়ানমার গণহত্যা চালাচ্ছে, এটা বন্ধ করতে হবে।’ কফি আনান কমিশনের প্রতিবেদন দ্রুত বাস্তবায়নের জন্যও দাবি জানানো হয়েছে বলে জানান মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান।
আরও পড়ুন-
এখন পর্যন্ত রোহিঙ্গাদের ত্রাণে যা যুক্ত হলো

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পুলিশ ফাঁড়ির প্রস্তাব প্রশাসনের

/জেএ/টিআর/

সম্পর্কিত

করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

৬ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

৬ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

পরিবারে বাল্যবিয়ে থাকলে ভিজিডি নয়: সংসদীয় কমিটি

পরিবারে বাল্যবিয়ে থাকলে ভিজিডি নয়: সংসদীয় কমিটি

১৪ কোটি টাকার সিরিঞ্জ কিনবে সরকার

১৪ কোটি টাকার সিরিঞ্জ কিনবে সরকার

করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৪২

বিশ্বব্যাপী টিকাদান কর্মসূচি পরিচালনার জন্য কোভিড-১৯ এর টিকাগুলোকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ হিসেবে ঘোষণা করার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের আয়োজনে ‘গ্লোবাল কোভিড-১৯ সামিট: এন্ডিং দ্যা প্যানডেমিক অ্যান্ড বিল্ডিং ব্যাক বেটার হেলথ সিকিউরিটি’ শীর্ষক শীর্ষ সম্মেলনে প্রচারিত ভিডিও বার্তায় প্রধানমন্ত্রী এ আহ্বান জানান। তিনি বলেন, কার্যকরভাবে বিশ্বব্যাপী টিকা দেওয়ার কার্যক্রম পরিচালনার জন্য কোভিড ভ্যাকসিনগুলোকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ হিসেবে ঘোষণা করা দরকার।

যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় সকাল ১১টায় ভার্চুয়াল এ শীর্ষ সম্মেলনে দেওয়া ভাষণে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন কোভিড-১৯ মহামারী অবসানে ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে আসার জন্য রাষ্ট্র ও সরকার প্রধান, আন্তর্জাতিক সংস্থা, ব্যবসায়ী এবং বেসরকারি নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইডোডো, আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাপোসা এবং জাতিসংঘ মহাসচিব এন্তোনিও গুতেরেস বক্তৃতা করে ন।

ধারণকৃত বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, টিকা লাভের সার্বজনীন অধিকার নিশ্চিত করা লক্ষ্যে সক্ষমতা রয়েছে এমন উন্নয়নশীল ও স্বল্পোন্নত দেশগুলোর মাধ্যমে টিকার স্থানীয় উৎপাদনের সুযোগ দেওয়া উচিত।

হোয়াইট হাউজ আমন্ত্রিতদের জানিয়েছে, এ বছরের শেষের দিকে এবং ২০২২ সালের শুরুতে ফলো-আপ ইভেন্টগুলো অংশগ্রহণকারীদের তাদের প্রতিশ্রুতির জন্য দায়বদ্ধ রাখার উদ্দেশ্যে আয়োজন করা হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার সরকার কোভিড-১৯ মহামারির বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য তিনটি ধাপে পন্থা অবলম্বন করেছে। ‘প্রথমত, জীবন বাঁচানোর লক্ষ্যে পর্যাপ্ত চিকিৎসা সুবিধা, যন্ত্রপাতি, জীবনরক্ষাকারী ওষুধ এবং সম্পদ বরাদ্দ করা হয়েছে। এই পদক্ষেপের মধ্যে রয়েছে আমাদের নাগরিকদের, বিশেষ করে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর জীবিকা সুরক্ষায় সহায়তা প্রদান করা এবং যত তাড়াতাড়ি সম্ভব অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপ পুনরুদ্ধার করা।

তিনি বলেন, ‘আমরা প্রথমে উন্নত স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা এবং সামাজিক সুরক্ষা নেট কর্মসূচির উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি নীতির দিকে মনোনিবেশ করছি।’

দ্বিতীয় ধাপের বর্ণনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার টেকসই অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের জন্য কাজ করছে, যাতে উদ্ভাবন, কর্মসংস্থান এবং বিনিয়োগের ওপর জোর দেওয়া হচ্ছে। 

তৃতীয়ত তিনি বলেন, জলবায়ু স্থিতিস্থাপকতা এবং কম কার্বণ নিঃসরণের দিকে মনোনিবেশ করা হচ্ছে।

কোভিড-১৯ মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের সরকারি উদ্যোগ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘এখন পর্যন্ত আমরা ১৫ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলারের প্রণোদনা প্যাকেজ বরাদ্দ করেছি, দরিদ্র, বয়স্ক, বিধবা, প্রতিবন্ধী ব্যক্তি এবং অনানুষ্ঠানিক খাতের কর্মীসহ ৪ দশমিক ৪ মিলিয়ন সুবিধাভোগীদের ১৬৬ মিলিয়ন ডলার বিতরণ করেছি।’

১৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৩৫ মিলিয়নের বেশি টিকা দেওয়া হয়েছে বলেও সম্মেলনে জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ২০২২ সালের আগস্ট মাসের মধ্যে আমাদের জনসংখ্যার ৮০ শতাংশ লোককে টিকা না দেওয়া পর্যন্ত আমরা প্রতি মাসে ২০ মিলিয়ন মানুষকে টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা করেছি।’ খবর বাসস

/ইউএস/

সম্পর্কিত

৬ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

৬ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

পরিবারে বাল্যবিয়ে থাকলে ভিজিডি নয়: সংসদীয় কমিটি

পরিবারে বাল্যবিয়ে থাকলে ভিজিডি নয়: সংসদীয় কমিটি

১৪ কোটি টাকার সিরিঞ্জ কিনবে সরকার

১৪ কোটি টাকার সিরিঞ্জ কিনবে সরকার

করোনায় আবারও নারী মৃত্যু বেশি

করোনায় আবারও নারী মৃত্যু বেশি

পদ্মা সেতুর নিচের একাংশ দিয়ে নৌযান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:২৪

পদ্মা সেতুর নিচের একাংশ দিয়ে সব ধরনের নৌযান চলাচলে স্থায়ী নিষেধাজ্ঞার নির্দেশনা জারি করেছে সরকার। এ সংক্রান্ত বিশেষ বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। 

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ফেরিসহ অন্যান্য নৌযানগুলোকে দুই প্রান্তের ১ থেকে ৫ নম্বর এবং ৩৯ থেকে ৪৯ নম্বর পিলারের মধ্যবর্তী স্প্যানগুলো পরিহার করে চলাচল করার জন্য স্থায়ীভাবে অনুরোধ করা যাচ্ছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত শিমুলিয়া থেকে বাংলাবাজারগামী লঞ্চসহ অন্যান্য নৌযানগুলোকে পিয়ার নম্বর ১৪ ও ১৫, বাংলাবাজার থেকে শিমুলিয়াগামী লঞ্চসহ অন্যান্য নৌযানগুলোকে পিয়ার নম্বর ১৭ ও ১৮ শিমুলিয়া  থেকে আরিচাগামী (উজানের দিক) নৌযানগুলোকে পিয়ার নম্বর ৬ ও৭ এবং আরিচা থেকে শিমুলিয়াগামী (ভাটির দিক) নৌযানগুলোকে পিয়ার নম্বর ৭ ও৮ এর মধ্যবর্তী স্প্যান দিয়ে চলাচল করার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা যাচ্ছে।

বিআইডব্লিউটিএ’র উপ-পরিচালক স্বাক্ষরিত ওই বিজ্ঞপ্তি সকল নৌ-যানের মালিক/মাস্টার/ড্রাইভারসহ নৌ-অপারেটর মেনে চলার অনুরোধ জানানো হয়।

প্রসঙ্গত, বার বার পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কার পর পদ্মা সেতু এড়িয়ে চলাচলের জন্য ঘাট স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত নেয় নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়।

/এসআই/এমআর/

সম্পর্কিত

আগামী বছরের জুনে যান চলবে পদ্মা সেতুতে

আগামী বছরের জুনে যান চলবে পদ্মা সেতুতে

‘পিলারের সঙ্গে ফেরির ধাক্কা অস্বাভাবিক কিছু নয়’

‘পিলারের সঙ্গে ফেরির ধাক্কা অস্বাভাবিক কিছু নয়’

৬ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:১২

দেশে এখন পর্যন্ত টিকা এসেছে ৪ কোটি ৯৫ লাখ ৮৫ হাজার ৮০ ডোজ। এরমধ্যে ৩ কোটি ৯০ লাখ ৩১ হাজার ৮৯৬ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ এই মুহূর্তে এক কোটি ৫ লাখ ৫৩ হাজার ১৮৪ ডোজ টিকা মজুত আছে। এখন পর্যন্ত প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ২ কোটি ৩৫ লাখ ১৩ হাজার ৩৬২ জনকে এবং দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন এক কোটি ৫৫ লাখ ১৮ হাজার ৫৩৪ জন। আর আজ দুই ডোজ মিলিয়ে দেওয়া হয়েছে ৬ লাখ এক হাজার ২৭৯ ডোজ টিকা। 

এগুলো দেওয়া হয়েছে অক্সফোর্ডের অ্যাস্ট্রাজেনেকা, চীনের তৈরি সিনোফার্ম, ফাইজার ও মডার্নার ভ্যাকসিন। বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো টিকাদান বিষয়ক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি থেকে এসব তথ্য জানা যায়।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের দেওয়া তথ্যমতে, আজ অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ২৭ হাজার ৪০৯ জনকে এবং দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে ৬১৬ জনকে।

পাশাপাশি আজ ফাইজারের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ৬ হাজার ৬৩০ জনকে এবং দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে ৫৭০ জনকে।

এছাড়া সিনোফার্মের টিকা আজ প্রথম ডোজ নিয়েছেন তিন লাখ ৯ হাজার ৩৫৮ জন এবং দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ২ লাখ ৪৫ হাজার ৯৫৯ জন। 

মডার্নার টিকা আজ প্রথম ডোজ নিয়েছেন ২ হাজার ৪১ জন এবং দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে ৮ হাজার ৬৯৬ জনকে।

এখন পর্যন্ত টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন ৪ কোটি ৩৪ লাখ ৪৫ হাজার ৪৫০ জন।

 

/এসও/আইএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

পরিবারে বাল্যবিয়ে থাকলে ভিজিডি নয়: সংসদীয় কমিটি

পরিবারে বাল্যবিয়ে থাকলে ভিজিডি নয়: সংসদীয় কমিটি

১৪ কোটি টাকার সিরিঞ্জ কিনবে সরকার

১৪ কোটি টাকার সিরিঞ্জ কিনবে সরকার

পরিবারে বাল্যবিয়ে থাকলে ভিজিডি নয়: সংসদীয় কমিটি

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:৩৬

পরিবারে বাল্যবিয়ে থাকলে সরকারের ভিজিডি সহায়তা না দেওয়ার সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে এ সুপারিশ করা হয়।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় অধীন ভিজিডি কর্মসূচি বাংলাদেশের গ্রামীণ দুস্থ নারীদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে বাস্তবায়িত একটি সামাজিক নিরাপত্তামূলক কার্যক্রম। দুস্থ পরিবার, বিশেষ করে নারীদের জীবনমান উন্নয়নে এ কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। ভিজিডি উপকারভোগী নারীরা মাসে ৩০ কেজি চাল পান।

দেশের ৪৯৩টি উপজেলার চার হাজার ৫৭৯টি ইউনিয়নে ১০ লাখ ৪০ হাজার নারীকে এই কর্মসূচির মাধ্যমে চাল দেওয়া হচ্ছে। ২০০৯ সাল থেকে গত বছর পর্যন্ত ৯১ লাখ ৮০ হাজার নারীকে ভিজিডি কর্মসূচির মাধ্যমে চাল দেওয়া হয়েছে।

সংসদ সচিবালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বৈঠকে ভিজিডি উপকারভোগী বাছাইয়ের ক্ষেত্রে উপকারভোগীর পরিবারে বাল্যবিয়ে অর্থাৎ ১৫-১৮ বছরের বিবাহিত মেয়ে থাকলে, সেসব পরিবারকে তালিকায় অন্তর্ভুক্ত না করার নির্দেশনা দিয়ে মাঠ পর্যায়ে চিঠি পাঠানোর সুপারিশ করেছে কমিটি।

বৈঠকে গাজীপুরের কালীগঞ্জে জয়িতার প্রশিক্ষণ কেন্দ্রটির ওপরে দুটি তলা নির্মাণের লক্ষ্যে দ্রুত সময়ের মধ্যে কর্মসূচি গ্রহণ করার পুনরায় সুপারিশ করা হয়।

এছাড়া বন্ধ হয়ে যাওয়া প্রশিক্ষণ কেন্দ্রগুলো পুনরায় চালু করার ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হয়।

সভাপতি মেহের আফরোজের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য মো. আব্দুল আজিজ, শবনম জাহান, লুৎফুন নেসা খান, সাহাদারা মান্নান ও কানিজ ফাতেমা আহমেদ অংশ নেন।

 

/ইএইচএস/আইএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

৬ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

৬ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

১৪ কোটি টাকার সিরিঞ্জ কিনবে সরকার

১৪ কোটি টাকার সিরিঞ্জ কিনবে সরকার

করোনায় আবারও নারী মৃত্যু বেশি

করোনায় আবারও নারী মৃত্যু বেশি

একই কর্মস্থলে দুই যুগ ধরে যুব কর্মকর্তারা

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৪৩

দেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় যুব উন্নয়ন কর্মকর্তারা একই কর্মস্থলে বছরের পর পর চাকরি করছেন। কেউ কেউ দুই যুগ ধরে আছেন একই কর্মস্থলে। বিষয়টি সংসদীয় কমিটির নজরে আসার পর পাঁচ বছরের বেশি কেউ এক এলাকায় চাকরি করতে পারবে না বলে সুপারিশ করেছে।

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়।

জানা গেছে, গত আগস্ট মাসের বৈঠকে বিষয়টি আলোচনায় আনেন কমিটির সদস্য সাবেক ফুটবলার আব্দুস সালাম মূর্শেদী। ওই বৈঠকে খুলনার রূপসা উপজেলার যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা ১৭ বছর ধরে এক জায়গায় কাজ করছেন বলে কমিটির নজরে আনা হয়। পরে ওই বৈঠকে জেলা ও উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তারা কোন এলাকায় কত দিন চাকরি করছেন তার তালিকা পরের বৈঠকে উপস্থাপনের জন্য বলা হয়।

কমিটির বৈঠকের কার্যপত্র থেকে জানা গেছে, নড়াইল সদর উপজেলার যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা ২৪ বছর ধরে একই জায়গায় কাজ করছেন। গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ার কর্মকর্তা ২২ বছর, যশোরের অভয়নগরের কর্মকর্তা ২১ বছর, কিশোরগঞ্জের ইটনার কর্মকর্তা ২০ বছর, নেত্রকোনার বারহাট্টার কর্মকর্তা ২০ বছর ধরে একই কর্মস্থলে কাজ করছেন।

বৈঠকে যুব উন্নয়ন অধিদফতরের জেলা ও উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তাদের বিশেষ কোনও কারণ ছাড়া পাঁচ বছর অন্তর অন্যত্র বদলি বাধ্যতামূলক করার সুপারিশ করা হয়।

জানা গেছে, এক কর্মকর্তা এক জায়গায় দীর্ঘদিন চাকরি করলে নানা ধরনের অনিয়মের আশঙ্কা থাকে বলে বৈঠকের আলোচনায় ওঠে আসে। বলা হয়, সরকারি কাজে একজন কর্মকর্তা দীর্ঘদিন এক এলাকায় কাজ করাও ঠিক নয়।

এদিকে সংসদীয় কমিটিতে বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশন নিয়ে আলোচনা হয়।

জেলা পর্যায়ে টেনিস কোর্টগুলো সাধারণ খেলোয়ারদের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়ার, আন্তর্জাতিক মানের প্রশিক্ষণ ও অন্যান্য সকল সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধিসহ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার সুপারিশ করা হয়।

বৈঠকে মন্ত্রণালয় জানায়, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের আর্থিক সহায়তায় দেশের ৬৪ জেলায় বিদ্যমান টেনিস কোর্ট সংস্কার ও অবকাঠামোগুলো আধুনিকায়নের প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। এরইমধ্যে বিশেষ প্রকল্প গ্রহণ করে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের অর্থায়নে দেশের ২৫টি জেলার টেনিস কোর্টের সংস্কার ও উন্নয়ন কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

শেখ জামালের নামে নামকরণকৃত কমপ্লেক্সে ১৫০ জনের আবাসন ব্যবস্থা, অডিটোরিয়াম, অডিটোরিয়াম রেস্টুরেন্ট, সুইমিংপুল, দ্বি-তল পার্কিং ইত্যাদি সুবিধাসহ বহুতল ভবন নির্মাণ করা হবে।

বৈঠকে ক্রীড়া পরিষদ জানায়, শেখ জামালের নামে ওই কমপ্লেক্স তৈরি হলে আবাসন ও ট্রান্সপোর্টেশন খরচ কমিয়ে আন্তর্জাতিক জুনিয়র ও প্রফেশনাল প্রতিযোগিতা আয়োজন সহজ হবে। বছরব্যাপী বিনা প্রতিবন্ধকতায় টেনিস প্রশিক্ষণ ও প্রতিযোগিতার আয়োজন করার জন্য ফেডারেশনের ৮টি টেনিস কোর্টে শেড নির্মাণ করা হলে রোদ, বৃষ্টি, কুয়াশা সকল মৌসুমেই টেনিস খেলা সম্ভব হবে।

প্রস্তাবিত বহুতল ভবনের কক্ষগুলোতে খেলোয়াড়দের আবাসনের ব্যবস্থা করা হলে সেই খরচ দিয়েই আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা সম্ভব হবে।

এশিয়ান টেনিস ফেডারেশনের খেলোয়াড়দের প্রশিক্ষণ, কোচদের প্রশিক্ষণ, রিজিওনাল কোচেস কনফারেন্স আয়োজন, রিজিওনাল মিটিংসহ টেনিসের নানাবিধ ওয়ার্কশপ, সেমিনার ইত্যাদি আয়োজন সম্ভব হবে। জাতীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী খেলোয়াড়দের আবাসন সংকট নিরসন হবে।

ডেভিস কাপ, ফেড কাপসহ জুনিয়র প্রতিযোগিতাগুলো বাংলাদেশে নিয়মিত আয়োজন করা, জুনিয়র টেনিস ইনিশিয়েটিভ প্রোগ্রামের আওতায় দেশব্যাপী টেনিস প্রশিক্ষণ কার্যক্রম সম্প্রসারণ করাসহ বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা জানায় পরিষদ।

কমিটির সভাপতি আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকবের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, আব্দুস সালাম মূর্শেদী, জুয়েল আরেং, মাশরাফি বিন মুর্তজা এবং জাকিয়া তাবাসসুম বৈঠকে অংশ নেন।

/ইএইচএস/এমএস/

সম্পর্কিত

করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

পদ্মা সেতুর নিচের একাংশ দিয়ে নৌযান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা

পদ্মা সেতুর নিচের একাংশ দিয়ে নৌযান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা

৬ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

৬ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

পরিবারে বাল্যবিয়ে থাকলে ভিজিডি নয়: সংসদীয় কমিটি

পরিবারে বাল্যবিয়ে থাকলে ভিজিডি নয়: সংসদীয় কমিটি

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

৬ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

৬ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

পরিবারে বাল্যবিয়ে থাকলে ভিজিডি নয়: সংসদীয় কমিটি

পরিবারে বাল্যবিয়ে থাকলে ভিজিডি নয়: সংসদীয় কমিটি

১৪ কোটি টাকার সিরিঞ্জ কিনবে সরকার

১৪ কোটি টাকার সিরিঞ্জ কিনবে সরকার

করোনায় আবারও নারী মৃত্যু বেশি

করোনায় আবারও নারী মৃত্যু বেশি

‘এবারের ইউপি নির্বাচনে ভোটের টার্নআউট ভালো’

‘এবারের ইউপি নির্বাচনে ভোটের টার্নআউট ভালো’

‘বিদেশি সহযোগিতা না পেলেও কল্যাণকর প্রকল্প বাস্তবায়ন হবে’

‘বিদেশি সহযোগিতা না পেলেও কল্যাণকর প্রকল্প বাস্তবায়ন হবে’

এ বছরের শেষে ৫-জি চালু হবে: সজীব ওয়াজেদ

এ বছরের শেষে ৫-জি চালু হবে: সজীব ওয়াজেদ

বঙ্গবন্ধুর খুনি রাশেদ চৌধুরীকে ফেরত দেবে যুক্তরাষ্ট্র, আশা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

বঙ্গবন্ধুর খুনি রাশেদ চৌধুরীকে ফেরত দেবে যুক্তরাষ্ট্র, আশা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

আইসিটি, নবায়নযোগ্য জ্বালানি ও সামুদ্রিক অর্থনীতিতে মার্কিন বিনিয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

আইসিটি, নবায়নযোগ্য জ্বালানি ও সামুদ্রিক অর্থনীতিতে মার্কিন বিনিয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

সর্বশেষ

পিএসজিকে শেষ মুহূর্তে জেতালেন হাকিমি

পিএসজিকে শেষ মুহূর্তে জেতালেন হাকিমি

করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

গার্মেন্টস পণ্য চুরিকাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

গৃহকর্মে নিয়োজিত শিশুদের জন্য নাদিয়া

গৃহকর্মে নিয়োজিত শিশুদের জন্য নাদিয়া

© 2021 Bangla Tribune