X
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৭ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

আসামি ধরতে না পারায় শেষ হচ্ছে না আলোচিত হত্যা মামলাগুলোর তদন্ত

আপডেট : ২৯ এপ্রিল ২০১৯, ১৬:৩৯

আলোচিত হত্যাকাণ্ড সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি, কুমিল্লার কলেজ ছাত্রী সোহাগী জাহান তনু, চট্টগ্রামে এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু এবং নারায়ণগঞ্জের কিশোর তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী হত্যা মামলার তদন্ত চলছে বছরের পর বছর। এছাড়াও গোপীবাগের কথিত পীর লুৎফর রহমানসহ ছয় হত্যাকাণ্ড, মাওলানা নুরুল ইসলাম ফারুকী, ব্লগার নিলাদ্রী চ্যাটার্জী ওরফে নিলয়, জুলহাজ-মান্নান ও নাজিমুদ্দিন সামাদ হত্যাকাণ্ডের তদন্তের ইতি টানতে পারছেন না তদন্ত কর্মকর্তারা। তাদের ভাষ্য— মামলাগুলো স্পর্শকাতর। তদন্ত চালাতে গিয়ে অনেকগুলো বিষয় খতিয়ে দেখতে হচ্ছে। অনেক আসামিকে ধরা যাচ্ছে না। বেশ কিছু মামলায় আসামিকে চিহ্নিত করাও সম্ভব হয়নি এখনও। যে কারণে মামলার তদন্ত শেষ করে আদালতে চার্জশিটও দেওয়া যাচ্ছে না।


এদিকে, গত ১৭ এপ্রিল এসব হত্যা মামলার অগ্রগতি আদালতকে জানানোর নির্দেশনা চেয়ে উচ্চ আদালতে রিট করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ড. ইউনুছ আলী আকন্দ। ২৩ এপ্রিল রিটের শুনানি থাকলেও আদালত এ বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত দেননি।

সাগর-রুনি হত্যা মামলা

রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের বাসায় সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি খুন হন ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি।  এই নৃশংস জোড়া খুনের পর প্রথমে থানা পুলিশ ও পরে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) তদন্তভার গ্রহণ করে।  হত্যাকাণ্ডের প্রায় দুমাস পর (১৮ এপ্রিল, ২০১২) গোয়েন্দা পুলিশের তখনকার উপকমিশনার (ডিসি ডিবি) ও ডিএমপির মুখপাত্র এবং বর্তমানে ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার ও কাউন্টার টেররিজমের অ্যান্ড ট্রান্স ন্যাশনাল ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম উচ্চ আদালতে উপস্থিত হয়ে তদন্তে ব্যর্থতার কথা জানান। তখন উচ্চ আদালত সুদক্ষ, অভিজ্ঞ এবং এএসপি পদমর্যাদার নিচে নয়— এমন একজন কর্মকর্তাকে দিয়ে এই মামলার তদন্ত করাতে র‌্যাবের ডিজিকে নির্দেশ দেন। এরপর থেকে এই মামলার তদন্ত করছে র‌্যাব। উচ্চ আদালতের নির্দেশনার পর ২০১২ সালের ২৬ এপ্রিল সাগর-রুনির লাশ কবর থেকে তুলে দ্বিতীয় দফায় ময়নাতদন্ত করা হয়। এরপর গত সাত বছরে র‌্যাবের তদন্ত কর্মকর্তা বদল হয়েছেন একাধিকবার।



সাগর-রুনি বর্তমানে সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন র‌্যাব সদর দফতরের ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড ফরেনসিং উইংয়ের সহকারী পরিচালক এএসপি মো. সহিদার রহমান। তিনি বলেন, ‘আমরা তো আন্তরিকভাবেই তদনন্ত চালিয়ে যাচ্ছি। আমরা চেষ্টা করছি শেষ করার জন্য। কিন্তু কিছু বিষয় আছে যেগুলোর কাজ এখন পর্যন্ত শেষ হয়নি। যে কারণে আদালতে চার্জশিট দিতে বিলম্ব হচ্ছে।’


সোহাগী জাহান তনু হত্যা

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ছাত্রী সোহাগী জাহান তনু হত্যার তদন্তও শেষ হয়নি গত তিন বছরে। ২০১৬ সালের ২০ মার্চ সন্ধ্যায় ক্যান্টনমেন্টের ভেতরে একটি বাসায় টিউশনি করতে গিয়ে নিখোঁজ হন তিনি। কয়েকঘণ্টা পর ওই  রাতেই তার স্বজনরা বাসার অদূরের একটি জঙ্গলে তনুর লাশ দেখতে পান। খবর পেয়ে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে। পরদিন তনুর বাবা বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। তনুর বাবা ইয়ার হোসেন কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের অফিস সহায়ক। তাদের বাসাও সেনানিবাসের মধ্যেই।

প্রথমে থানা পুলিশ ও পরে গোয়েন্দা পুলিশের পর ২০১৬ সালের ১ এপ্রিল থেকে মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) কুমিল্লা শাখাকে। বর্তমানে মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন কুমিল্লা সিআইডির ইন্সপেক্টর জালাল আহমেদ। 

সোহাগী জাহান তনু তনু হত্যা মামলার তদন্ত শেষ করে আদালতে অভিযোগপত্র দিতে বিলম্বের কারণ জানতে চাইলে তদন্ত কর্মকর্তা ও সিআইডির ইন্সপেক্টর জালাল আহমেদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘উদ্ধার করা আলামতের ডিএনএ পরীক্ষার জন্য যেগুলো দেওয়া হয়েছিল, সেগুলোর কার্যক্রম এখনও শেষ হয়নি। ডিএনএ ম্যাচিংয়ের রিপোর্টটা এখনও হাতে পাইনি। সেটা না পেলে কোনও সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারছি না।’ ডিএনএ রিপোর্ট পেলেই সিদ্ধান্তে আসা যাবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

মাহমুদা খানম মিতু হত্যা

চট্টগ্রাম মহানগরীর জিইসি মোড় এলাকায় ২০১৬ সালের ৫ জুন দুর্বৃত্তের গুলিতে নিহত হন চট্টগ্রামের তখনকার এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু। সেদিন সকালে ছেলে মাহিরকে স্কুলে পৌঁছে দেওয়ার সময় তাকে হত্যা করা হয়। এই ঘটনায় বাবুল আক্তার বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা তিনজনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। প্রথমে থানা পুলিশ তদন্ত করলেও পরে গোয়েন্দা পুলিশকে মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়। তখন এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ছিলেন ডিবির ইন্সপেক্টর রকিব উদ্দিন। ওই বছরের ১১ জুন  তদন্ত কর্মকর্তাকে বদল করে গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার ও বর্তমানে অ্যাডিশনাল এসপি মো. কামরুজ্জামানকে তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়। এরপর থেকে গত প্রায় তিন বছর এই মামলার তদন্ত করছেন তিনি।

মাহমুদা খানম মিতু তদন্ত কবে নাগাদ শেষ হবে জানতে চাইলে মো. কামরুজ্জামান বলেন, ‘কবে নাগাদ তদন্ত শেষ হবে এটা বলা মুশকিল।’
কী কারণে তদন্তে বিলম্ব হচ্ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘মামলা তো তদন্তাধীন। কারণ, তো থাকেই। আসামি ধরার বাকি আছে। আরও কিছু বিষয় আছে। সেগুলো খতিয়ে দেখা হচ্ছে। যে কারণে তদন্ত শেষ করে অভিযোগপত্র দিতে বিলম্ব হচ্ছে।’


তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী হত্যা

নারায়ণগঞ্জের আলোচিত তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী হত্যার তদন্ত শেষ হয়নি ছয় বছরেও। গত ৫ মার্চ ত্বকী হত্যাকাণ্ডের ছয় বছর শেষ হয়েছে। ২০১৩ সালের ৬ মার্চ বিকালে শহরের শায়েস্তা খান সড়কের বাসা থেকে বেরিয়ে আর বাসায় ফেরেনি ত্বকী। পরে ৮ মার্চ সকালে শহরের চারারগোপে শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে ত্বকীর লাশ পাওয়া যায়। সে রাতেই নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন তার বাবা তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ রক্ষা জাতীয় কমিটির জেলা শাখার আহ্বায়ক রাফিউর রাব্বি।


তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী ত্বকীর বাবা রাফিউর রাব্বির দায়ের করা মামলাটি প্রথমে তদন্ত করেন তখনকার নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মঞ্জুর কাদের। পরে রাফিউর রাব্বির আবেদনে হাইকোর্ট মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেন র‌্যাবকে। ২০১৩ সালের ২০ জুন থেকে তারা এ মামলার তদন্ত করছে। এ মামলার বর্তমান তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল কাজী শামশের উদ্দিন।

ত্বকী হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন কবে নাগাদ জমা দেওয়া হতে পারে জানতে চাইলে কাজী শামশের উদ্দিন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এটি একটি স্পর্শকাতর মামলা। এটার তদন্ত চলছে। কবে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে সেটা বলা কঠিন।’

কী কারণে বিলম্ব হচ্ছে প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘কোনও কারণ নেই। স্পর্শকাতর মামলাগুলো সতর্কভাবেই তদন্ত করতে হয়।তদন্ত শেষ হলেই চার্জশিট দেওয়া হবে আদালতে।’ 


মাওলানা ফারুকী হত্যাকাণ্ড

রাজধানীর পূর্ব রাজাবাজারের বাসায় ২০১৪ সালের ২৭ আগস্ট জঙ্গিদের হাতে খুন হন বেসরকারি টেলিভিশন ‘চ্যানেল আই’ এর কাফেলা অনুষ্ঠানের উপস্থাপক ও হাইকোর্ট মাজার মসজিদের খতিব মাওলানা নুরুল ইসলাম ফারুকী। হত্যাকাণ্ডের একদিন পর ফারুকীর ছেলে ফয়সাল ফারুকী বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আট-নয় জনকে আসামি করে শেরেবাংলা নগর থানায় হত্যা ও ডাকাতির অভিযোগে মামলা দায়ের করেন। প্রথমে থানা পুলিশ ও পরে মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশকে। মামলাটি ডিবিতে স্থানাস্তরের পর তদন্ত কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় ইন্সপেক্টর জুলহাস উদ্দিন আকন্দকে। এক বছরের মাথায় ২০১৫ সালের শেষের দিকে মামলাটি ডিবি থেকে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগে (সিআইডি) হস্তান্তর করা হয়। তখন মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় সিআইডির ইন্সপেক্টর আরশেদ আলী মণ্ডলকে। এরপর তিনি সিআইডি থেকে বদলি হয়ে গেলে মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইমের সিনিয়র এএসপি (বর্তমানে অ্যাডিশনাল এসপি) মাহমুদ তালুকদারকে। মামলাটি এখনও তিনিই তদন্ত করছেন।


মাওলানা ফারুকী সিআইডির অ্যাডিশনাল এসপি মাহমুদ তালুকদার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জেএমবির জঙ্গিরা যে জড়িত, এ ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া গেছে। গুলশানের হলি আর্টিজান মামলার অন্যতম আসামি হাদিসুর রহমান সাগর গ্রেফতারের পর গুরুত্বপূর্ণ অনেক তথ্য পাওয়া গেছে। সেসব তথ্য যাচাই-বাছাই চলছে। মামলাটির তদন্তও শেষ পর্যায়ে। আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে নিশ্চিত হয়েই শিগগির তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়া সম্ভব হবে বলে আশা রাখছি।’

পীর লুৎফরসহ গোপীবাগের ছয় হত্যা


রাজধানীর গোপীবাগের রামকৃষ্ণ মিশন রোডের ৬৪/৬ নম্বর বাড়ির দোতলায় ২০১৩ সালের ২১ ডিসেম্বর রাতে কথিত পীর লুৎফর রহমান (৬০) ও তার ছেলে সরোয়ার ইসলামসহ (৩০) ছয়জনকে গলা কেটে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। বলা হয়, লুৎফর রহমান নিজেকে পীর ও ইমাম মাহদীর সেনাপতি হিসেবে পরিচয় দিতেন। খুন হওয়া অন্য চারজন হলেন— লুৎফরের খাদেম ও ওই বাসার কেয়ারটেকার মনজুর আলম (৩৫) মুরিদ সাইদুর রহমান ওরফে শাহিন (৩০), মজিবুল সরকার (৩২) ও মোহাম্মদ রাসেল (৩০)। 

এই ছয় খুনের মামলাটি গোয়েন্দা পুলিশ তদন্ত শুরু করে। ঘটনার প্রায় দুবছর পর গোয়েন্দা পুলিশের তখনকার যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম এই ঘটনার জন্য জঙ্গি সংগঠন জেএমবির সদস্যদের দায়ী করেন। এরপরও আরও তিন বছরের বেশি সময় পার হয়েছে। কিন্তু মামলার তদন্ত শেষ হয়নি। সম্প্রতি বর্তমানে মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটকে (সিটিটিসি)। 


ব্লগার নীলাদ্রী চট্টোপাধ্যায় নিলয় হত্যা

রাজধানীর পূর্ব গোড়ানের ৮ নম্বর রোডের ১৬৭ নম্বর বাড়ির পঞ্চম তলার ভাড়া বাসায় ২০১৫ সালের ৭ আগস্ট দুপুরে ব্লগার নিলাদ্রী চট্টোপাধ্যায় ওরফে নিলয়কে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। হত্যাকাণ্ডের কয়েকঘণ্টা পর দায় স্বীকার করে আনসার আল ইসলাম নামের একটি জঙ্গি সংগঠন বিভিন্ন গণমাধ্যমে নিলাদ্রী নিলয় ইমেইল বার্তা পাঠায়। হত্যাকাণ্ডের পর নিলয়ের স্ত্রী আশামনি বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা চারজনকে আসামি করে খিলগাঁও থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর প্রথমে খিলগাঁও থানা পুলিশ তদন্ত করলেও পরে এ মামলার তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশকে (ডিবি)। এরপর থেকে মামলাটির তদন্ত চালিয়ে আসছে গোয়েন্দা পুলিশ। ডিবির কর্মকর্তারা তখন জানিয়েছিলেন, এই ঘটনায় আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের (এবিটি) সদস্যরা  জড়িত। সম্প্রতি এ মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটকে (সিটিটিসি)।
ব্লগার নাজিমুদ্দিন সামাদ হত্যা

ব্লগার নাজিমুদ্দিন সামাদকে রাজধানীর সূত্রাপুরের একরামপুর মোড়ে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করা হয় ২০১৬ সালের ৬ এপ্রিল রাত সাড়ে ৮টার দিকে। নাজিমুদ্দিন সামাদ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সান্ধ্যকালীন কোর্সের এলএলএম-এর বি সেকশনের শিক্ষার্থী ছিলেন। এছাড়া সিলেট জেলা ব্লগার নাজিউদ্দিন সামাদ বঙ্গবন্ধু জাতীয় যুব পরিষদের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক এবং গণজাগরণ মঞ্চেরও কর্মী ছিলেন তিনি। পরে এই ঘটনায় স্বজনরা মামলা করতে অনীহা প্রকাশ করলে সূত্রাপুর থানার এসআই নুরুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। প্রথমে থানা পুলিশ ও পরে মামলাটি তদন্ত করে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।এরপর মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটকে (সিটিটিসি)। তদন্তে গোয়েন্দারা জানতে পারেন, ব্লগার নাজিমুদ্দিন সামাদ হত্যার ঘটনায়ও জড়িত ছিল জঙ্গিরা। 
গোপীবাগের ছয় খুন, ব্লগার নিলাদ্রী চট্টোপাধ্যায় নিলয় ও ব্লগার নাজিমুদ্দিন সামাদ হত্যা মামলার তদন্তের অগ্রগতি সম্পর্কে জানতে চাইলে সিটিটিসির উপকমিশনার মহিবুল ইসলাম খান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন,  ‘তদন্তের অনেক অগ্রগতি হয়েছে। চার্জশিট দেওয়ার প্রস্তুতিও রয়েছে আমাদের। জুলহাজ-তনয় মামলাটির চার্জশিট দেবো কয়েকদিনের মধ্যে। এরপর অন্য মামলাগুলোর চার্জশিট চূড়ান্ত করে আদালতে দেওয়া হবে।’ 

/জেইউ/এএইচ/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

‘ইন্টারনেট নির্ভরতার সঙ্গে বাড়ছে ডিজিটাল অপরাধ’

‘ইন্টারনেট নির্ভরতার সঙ্গে বাড়ছে ডিজিটাল অপরাধ’

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:১৭

শুল্ক ফাঁকি দিয়ে স্বর্ণ ‘চোরাচালান করতে গিয়ে’ ধরা পড়েছেন এক সৌদি আরব প্রবাসী। ২ কেজি ৯০০ গ্রাম স্বর্ণবারসহ মোহাম্মদ রিপন নামের ওই প্রবাসীকে আটক করে কাস্টম হাউজের প্রিভেন্টিভ দল।

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ১১টার দিকে এ যাত্রীকে আটক করা হয় বলে জানান ঢাকা কাস্টম হাউজের ডেপুটি কমিশনার (প্রিভেন্টিভ) মো. সানোয়ারুল কবীর।

আটককৃত স্বর্ণের আনুমানিক বাজার মূল্য ২ কোটি টাকা উল্লেখ করে সানোয়ারুল কবীর জানান, শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অভিযান চালিয়ে সৌদি এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট থেকে এক যাত্রীকে আটক করা হয়। যাত্রীর হাতে থাকা হুডি জ্যাকেটের হাতা থেকে স্বর্ণবারগুলো পাওয়া যায়। ফ্লাইটটি রাত ১১টা ১২ মিনিটের দিকে অবতরণ করে।

পাসপোর্ট অনুসারে যাত্রীর নাম মোহাম্মদ রিপন। আটককৃত যাত্রীর বিরুদ্ধে কাস্টমস আইনের সংশ্লিষ্ট ধারা ও বিধি মোতাবেক ফৌজদারি মামলা দায়ের করে থানায় হস্তান্তর করা হবে বলেও জানান এই কাস্টমস কর্মকর্তা।

/সিএ/ইউএস/

সম্পর্কিত

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

‘সর্ব রোগের মহৌষধ’ বলে প্রতারণা: ১৭ জন গ্রেফতার

‘সর্ব রোগের মহৌষধ’ বলে প্রতারণা: ১৭ জন গ্রেফতার

মিরপুরে স্কুলশিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

মিরপুরে স্কুলশিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

রাজধানীতে ধর্ষণের শিকার ৭ বছরের শিশু

রাজধানীতে ধর্ষণের শিকার ৭ বছরের শিশু

গার্মেন্টস পণ্য চুরি

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:০০

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে একের পর এক গার্মেন্ট পণ্য চুরির ঘটনায় উদ্বিগ্ন পোশাক রফতানিকারকরা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন ইউনিট অভিযান চালিয়ে একাধিক চক্রকে গ্রেফতার করলেও থামানো যাচ্ছে না চুরি। পণ্যের চালান বিদেশি ক্রেতার কাছে পৌঁছার পরই মূলত ঘটনা জানাজানি হয়। যাতে গার্মেন্ট কারখানা মালিকদের জরিমানা গোনার পাশাপাশি নষ্ট হচ্ছে দেশের সুনামও। এই অবস্থায় চুরি ঠেকাতে বিশেষ ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কাভার্ডভ্যানে বাধ্যতামূলক জিপিএস বসানোসহ মহাসড়কে সিসিটিভি ক্যামেরাও বসানো হচ্ছে।

এ বিষয়ে গত ১৩ জুলাই পোশাক রফতানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে হাইওয়ে পুলিশের প্রধান অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক মল্লিক ফখরুল ইসলামকে প্রধান করে একটি কমিটি করা হয়। এরপরই উদ্যোগী হয় হাইওয়ে পুলিশ।

কমিটির সদস্য সচিব পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (ট্রাফিক ম্যানেজমেন্ট) মোশারফ হোসেন মিয়াজী বলেন, ‘নানামুখী উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। শিগগিরই চুরি নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে। এ সংক্রান্ত নীতিমালা চূড়ান্ত করার প্রক্রিয়াও চলছে।’

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, গার্মেন্টস পণ্য চুরিতে মূলত কাভার্ডভ্যানের চালকরাই জড়িত থাকে। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বিভিন্ন এলাকায় রীতিমতো গোডাউন ভাড়া করে চোরাই পণ্য রাখে চক্রের সদস্যরা। কোনও কাভার্ডভ্যান যেন মহাসড়ক ছেড়ে আশপাশের গোডাউনে ঢুকতে না পারে সেজন্য জিপিএস সিস্টেম চালুর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে গার্মেন্টস মালিকদেরও এ বিষয়ে জানানো হচ্ছে। জিপিএস প্রযুক্তি লাগানো থাকলে কাভার্ডভ্যানটি অন্য পথে যাচ্ছে কিনা বা কোথাও দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকছে কিনা তা নজরদারি করা যাবে।

হাইওয়ে পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, জিপিএসের পাশাপাশি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ৪৯০টি পয়েন্টে অত্যাধুনিক সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হবে। এক কিলোমিটার পর পর বিভিন্ন দিকে তাক করা মোট ১৫৯০টি সিসিটিভি ক্যামেরা থাকবে। হাইওয়ে পুলিশের কন্ট্রোল রুম থেকে পুরো বিষয়টি নজরদারি করা হবে। এতে মহাসড়কে সংঘটিত অন্য অপরাধও নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা জানান, কমিটির সভায় আরও কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। গার্মেন্ট কারখানা থেকে কাভার্ডভ্যানে পণ্য ওঠানোর আগে চালকের ছবি তুলে রাখা এবং মোবাইল নম্বরসহ বিস্তারিত তথ্য সংরক্ষণ করা হবে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর আরেক কর্মকর্তা জানান, চুরির বিষয়ে গার্মেন্ট কারখানা মালিকদেরও কিছু অবহেলা রয়েছে। কোটি কোটি টাকার পণ্য পাঠানোর সময় পরিবহনের সঙ্গে একজন প্রতিনিধি পাঠানো হলেও চুরি কিছুটা ঠেকানো যেতে পারে। কিন্তু কর্তৃপক্ষ চালকের ওপর ভরসা করে পণ্য বন্দরে পাঠানোর ঝুঁকি নিচ্ছেন।

হাইওয়ে পুলিশের কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপার রহমত উল্লাহ বলেন, ‘মহাসড়কে আমরা নিয়মিত টহল দিয়ে থাকি। আশা করছি চুরির ঘটনা শূন্যের কোঠায় নিয়ে আসা যাবে।’

সম্প্রতি ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ গার্মেন্ট পণ্য চুরি চক্রের হোতাসহ সাত জনকে গ্রেফতার করে। জিজ্ঞাসাবাদে চক্রের সদস্যরা জানিয়েছে, অনেক কাভার্ডভ্যান চালক কারখানায় যাওয়ার আগে গাড়ির নম্বর প্লেট বদলে ভুয়া ড্রাইভিং লাইসেন্সের কপি দিয়ে আসে। যাতে চুরির পর চালককে শনাক্ত না করা যায়।

বাংলাদেশ কাভার্ডভ্যান-ট্রাক-প্রাইমমুভার পণ্য পরিবহন মালিক অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব চৌধুরী জাফর আহম্মদ বলেন, ‘আমরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গার্মেন্ট কারখানা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বসে যৌথভাবে একটি নীতিমালা করছি। এটি বাস্তবায়ন হলে চুরি ঠেকানো যাবে।’

তিনি বলেন, ‘কাভার্ডভ্যান ভাড়া নেওয়ার আগে ওই চালক বা গাড়ির মালিক অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য কিনা তা নিশ্চিত হওয়া এবং চালক কোনও ইউনিয়নের সদস্য কিনা তা নিশ্চিত হতে হবে। সেক্ষেত্রে চুরি হলে চালককে শনাক্ত করা সহজ হবে। আরও কিছু উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আশা করছি সবাই মিলে চুরি ঠেকাতে পারবো।’

 

 

/এফএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের কাজ শুরু

বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের কাজ শুরু

‘সর্ব রোগের মহৌষধ’ বলে প্রতারণা: ১৭ জন গ্রেফতার

‘সর্ব রোগের মহৌষধ’ বলে প্রতারণা: ১৭ জন গ্রেফতার

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:৪৫

চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ, এমন পূর্বাভাস দিয়েছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক-এডিবি।

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) এডিবির ঢাকা কার্যালয় থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তি থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

এডিবি জানায়, শিল্প খাতে শক্তিশালী পুনরুদ্ধারের কারণে এমন প্রবৃদ্ধি অর্জন করবে বাংলাদেশ। এছাড়া বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার হচ্ছে এবং সরকারি উৎপাদন-বান্ধব নীতিমালার কারণে জিডিপি প্রবৃদ্ধি বাড়বে। এ বছর মূল্যস্ফীতি হতে পারে ৫ দশমিক ৮ শতাংশ।

এডিবি তাদের এক প্রতিবেদনে বলেছে, প্রবৃদ্ধি ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে বর্তমানের প্রধান চ্যালেঞ্জ হচ্ছে করোনাভাইরাস মহামারি। এই অভিঘাত মোকাবিলা করেও বিদায়ী ২০২০-২১ অর্থবছরে বাংলাদেশ ৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছিল। এর মধ্যে শিল্প কারখানা ও রফতানি খাত ঘুরে দাঁড়ানোয় চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে সরকার জিডিপি প্রবৃদ্ধির প্রাক্কলন করেছে ৭ শতাংশের বেশি। দেশের সামগ্রিক অর্থনীতি বিবেচনায় নিয়ে এশীয় ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকও মনে করে, বাংলাদেশ এই অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধির ইতিবাচক ধারায় ফিরবে।

এডিবির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এডিবি বাংলাদেশে তার কর্মসূচির অগ্রাধিকার পুনর্বিন্যাস করেছে। স্বাস্থ্য ও সামাজিক সুরক্ষা, দক্ষতা এবং গ্রামীণ উন্নয়ন, পানি ও স্যানিটেশন এবং অর্থ খাতের ওপর জোর দিচ্ছে। ২০২০ সালের প্রথম দিকে কোভিড-১৯ মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে সামাজিক সুরক্ষা, কর্মসংস্থান, ভ্যাকসিন সংগ্রহ এবং জরুরি ব্যবস্থাপনার জন্য ১ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলার অনুমোদিত হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর মনমোহন প্রকাশ বলেন, ‘জীবিকা রক্ষায় জীবন বাঁচানোর জন্য সরকারের নীতিগুলো বাংলাদেশের পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করেছে, যা সাম্প্রতিক কঠিন সময়ে প্রশংসনীয় অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বজায় রাখা বিশ্বের কয়েকটি দেশের মধ্যে একটি। বিচক্ষণ সামষ্টিক অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা, উদ্দীপক ব্যবস্থা এবং সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির দক্ষ বাস্তবায়ন বাংলাদেশের এ অবস্থায় টিকে থাকতে সাহায্য করেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য অব্যাহত প্রচেষ্টা, দ্রুত ভ্যাকসিন দেওয়া এবং অভ্যন্তরীণ সম্পদ সংগ্রহের উন্নতি পুনরুদ্ধারের প্রক্রিয়াকে আরও ত্বরান্বিত করবে।’

 

/এসআই/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের কাজ শুরু

বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের কাজ শুরু

বৃহস্পতিবারের সমাবেশ স্থগিত

বৃহস্পতিবারের সমাবেশ স্থগিত

অর্থমন্ত্রীর মন্তব্যের জবাব দিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রীর মন্তব্যের জবাব দিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী

‘ইন্টারনেট নির্ভরতার সঙ্গে বাড়ছে ডিজিটাল অপরাধ’

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:৪০

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, ইন্টারনেট নির্ভরতা যতবেশি তৈরি হচ্ছে ডিজিটাল অপরাধ ততবেশি বাড়ছে। তা প্রতিরোধে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণ অপরিহার্য। ডিজিটাল অপরাধ শনাক্ত ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ ডিজিটাল প্রযুক্তি দিয়েই করতে হবে, প্রচলিত পুলিশিং পদ্ধতিতে তা সম্ভব নয়। এই ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সবাইকে সম্মিলিত উদ্যোগে কাজ করার পাশাপাশি জনগণের মধ্যে ডিজিটাল নিরাপত্তা বিষয়ে ব্যাপক সচেতনতা তৈরির বিকল্প নেই।

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশের (আইইবি) কম্পিউটার কৌশল বিভাগের উদ্যোগে আইইবি সদর দফতরের কাউন্সিল হলে ‘নিরাপদ ইন্টারনেট: চ্যালেঞ্জ ও করণীয়’ শীর্ষক সেমিনারে ভার্চুয়ালি যুক্ত থেকে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, দেশে ১১ কোটি মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করছে। তাদের মধ্যে খুব সামান্য মানুষ প্রযুক্তির সাথে খাপ খাওয়ানোর দক্ষতা রাখেন। মাত্র কয়েক বছর আগেও ডিজিটাল নিরাপত্তা বলতে কোনও প্রযুক্তি কিংবা অন্য কোনও কৌশল ছিল না। ডিজিটাল নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সাইবার থ্রেড ডিটেকশন ও রেসপন্স কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি দেশে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। এর ফলে ইতোমধ্যে ২২ হাজার পর্ন সাইট এবং ৪ হাজার জুয়ার সাইটসহ আপত্তিকর সাইট বন্ধ করা হয়েছে।

ক্ষতিকর বেশ কিছু গেম বন্ধ করা হয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ফেসবুক ও ইউটিউবসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশিত ক্ষতিকর কন্টেন্ট বন্ধ করার প্রযুক্তি পৃথিবীর কোনও দেশই আবিষ্কার করতে পারেনি। তবে আমাদের দৃঢ় প্রচেষ্টায় তাদের সঙ্গে সুসম্পর্ক তৈরি করার ফলে আমরা আজ কিছুটা সুফল পাচ্ছি। তারা এক সময় মত প্রকাশের স্বাধীনতা কিংবা তাদের কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড দোহাই দিয়ে যে বিষয়গুলো এড়িয়ে যেতে চাইতো এখন সে ক্ষেত্রে পরিবর্তন এসেছে। তারা আমাদের দেশে এখন ভ্যাট-ট্যাক্স দিচ্ছে দিয়ে ব্যবসা করছে, আমাদের যে কোনও অভিযোগ গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে।

ডিজিটাল অপরাধ দমনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থাগুলো দক্ষতার সাক্ষর রাখছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, তাদের আরও বেশি দক্ষ করে গড়ে তুলতে হবে, সারাদেশে তাদের সংখ্যা বাড়াতে হবে।

অনুষ্ঠানে আইইবি কম্পিউটার কৌশল বিভাগের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মো. তমিজ উদ্দীন আহমেদের সভাপতিত্বে এবং সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার সঞ্জয় কুমার নাথের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এবং আইইবি’র প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সবুর, আইইবি’র ভাইস প্রেসিডেন্ট (এইচআরডি) ইঞ্জিনিয়ার মো. নুরুজ্জামান এবং টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও আইইবি'র কেন্দ্রীয় কাউন্সিল সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মো. সাহাব উদ্দিন। সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য দেন, আইইবি’র সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. শাহাদাৎ হোসেন (শীবলু)। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সিটিটিসি’র অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার ইঞ্জিনিয়ার সাইদ নাসিরুল্লাহ।

 

/এসএস/এমআর/

সম্পর্কিত

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের কাজ শুরু

বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের কাজ শুরু

বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের কাজ শুরু

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:৫১

অবশেষে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রবাসীদের জন্য করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের কাজ শুরু হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, আগামী ৩ দিনের মধ্যেই ল্যাব স্থাপনের কাজ শেষ হতে পারে। ৬টি প্রতিষ্ঠানকে ল্যাব স্থাপনের কাজে সহায়তা করছে স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন তৌহিদ-উল আহসান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ল্যাব স্থাপনের জন্য জায়গা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলো কাজ শুরু করেছে।’

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বিমানবন্দরের পার্কিং ভবনের ছাদে ল্যাব স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হলেও তাতে আপত্তি ছিল ল্যাব স্থাপনে অনুমোদন পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর। এই সংকট নিরসন ও নতুন স্থান নির্ধারণের বিষয়ে বিমানবন্দরে এসেছিলেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক।  তারা বিমানবন্দরের ভেতরে জায়গা নির্ধারণ করে দেন। টার্মিনাল ভবনের দ্বিতীয় তলার উত্তর পাশে যাত্রীদের কাছ থেকে স্যাম্পল নেওয়া হবে। নিচ তলায় ল্যাবে পরীক্ষা করা হবে। ইতোমধ্যে ৬টি প্রতিষ্ঠানকে ল্যাব স্থাপনের জায়গা বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।

এর আগে গত ১৫ সেপ্টেম্বর সাতটি প্রতিষ্ঠানকে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার আরটি-পিসিআর ল্যাব বসাতে অনুমোদন দেয় প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রনালয়। এই প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে— স্টেমজ হেলথ কেয়ার (বিডি) লিমিটেড ঢাকা, সিএসবিএফ হেলথ সেন্টার, এএমজেড হাসপাতাল লিমিটেড, আনোয়ার খান মডার্ন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, জয়নুল হক সিকদার ওমেন্স মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হসপিটাল, গুলশান ক্লিনিক লিমিটেড ও ডিএমএফআর মলিকুলার ল্যাব অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক।

এরমধ্যে জয়নুল হক সিকদার ওমেন্স মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হসপিটাল ল্যাব স্থাপনের কাজ থেকে সরে এসেছে।

/সিএ/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

বৃহস্পতিবারের সমাবেশ স্থগিত

বৃহস্পতিবারের সমাবেশ স্থগিত

অর্থমন্ত্রীর মন্তব্যের জবাব দিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রীর মন্তব্যের জবাব দিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

গার্মেন্টস পণ্য চুরিকাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

‘ইন্টারনেট নির্ভরতার সঙ্গে বাড়ছে ডিজিটাল অপরাধ’

‘ইন্টারনেট নির্ভরতার সঙ্গে বাড়ছে ডিজিটাল অপরাধ’

বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের কাজ শুরু

বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের কাজ শুরু

‘সর্ব রোগের মহৌষধ’ বলে প্রতারণা: ১৭ জন গ্রেফতার

‘সর্ব রোগের মহৌষধ’ বলে প্রতারণা: ১৭ জন গ্রেফতার

বৃহস্পতিবারের সমাবেশ স্থগিত

সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলববৃহস্পতিবারের সমাবেশ স্থগিত

অর্থমন্ত্রীর মন্তব্যের জবাব দিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রীর মন্তব্যের জবাব দিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী

মিরপুরে স্কুলশিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

মিরপুরে স্কুলশিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

রাজধানীতে ধর্ষণের শিকার ৭ বছরের শিশু

রাজধানীতে ধর্ষণের শিকার ৭ বছরের শিশু

সর্বশেষ

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

গার্মেন্টস পণ্য চুরিকাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

গৃহকর্মে নিয়োজিত শিশুদের জন্য নাদিয়া

গৃহকর্মে নিয়োজিত শিশুদের জন্য নাদিয়া

হায়দরাবাদকে হারিয়ে শীর্ষে দিল্লি

হায়দরাবাদকে হারিয়ে শীর্ষে দিল্লি

‘তালেবান শো’ কোনও কাজে আসবে না: জার্মানি

‘তালেবান শো’ কোনও কাজে আসবে না: জার্মানি

© 2021 Bangla Tribune