X
রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

যন্ত্রপাতি-লোকবল সংকটে হৃদরোগ হাসপাতাল, ভোগান্তিতে রোগীরা

আপডেট : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:০০

হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের মেঝে থেকে ওয়াশরুমে আবর্জনার স্তূপ নিত্যদিনের দৃশ্য বলে অভিযোগ তুলেছেন রোগী ও স্বজনরা। তাদের অভিযোগ—হাসপাতালটির দুই ভবনের মাঝখানের জায়গা ভরে থাকে খাবারের উচ্ছ্বিষ্ট, প্লাস্টিক, তুলাসহ মেডিক্যাল বর্জ্যে। নিয়মিত পরিষ্কার করা হয় না। এসব আবর্জনার দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে পুরো হাসপালেই। এই উৎকট গন্ধের কারণে রোগীর পাশাপাশি তাদের সঙ্গে আসা স্বজনরা ভোগান্তিতে পড়েন। এছাড়া, হাসপাতালটিতে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতিরও অভাব রয়েছে। ফলে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে এই হাসপাতালে রোগীদের। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এসব বিষয় স্বীকার করে বলছে, লোকবল কম থাকায় নিয়মিত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন কাজ ব্যাহত হচ্ছে।
হাসপাতাল সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গত কয়েক বছরে হৃদরোগীর সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে। যে কারণে সারাদেশ থেকে হৃদরোগীরা এ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসছেন। অন্যান্য হাসপাতালে বেড না থাকলে রোগীদের ফিরিয়ে দিতে পারলেও এ হাসপাতাল থেকে ফেরানো সম্ভব হয় না। এ কারণে হাসপাতালের নির্ধারিত বেডের বাইরে রোগী ভর্তি করতে বাধ্য হয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, রোগীর তুলনায় হাপসাতালের জনবল কম, অনেক বিভাগে চিকিৎসক সংকট রয়েছে। এতে হাসপাতালের কার্যক্রম যেমন ব্যাহত হচ্ছে, তেমনি ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে রোগীদের।
হাসপাতালটিতে চিকিৎসা নিতে ফরিদপুরের কামারখালী থেকে শ্বশুরকে নিয়ে এসেছেন ফাহমিদা। কোনও রকমে শ্বশুরকে পোস্ট সিসিইউতে রাখার ব্যবস্থা করতে পারলেও সেখানে ওয়াশরুম ব্যবহার করতে পারছেন না তিনি। এই প্রসঙ্গে বাংলা ট্রিবিউনকে ফাহমিদা বলেন, ‘এত নোংরা হতে পারে এই হাসপাতালের ওয়াশরুম, এটা জানা ছিল না।’
ফাহমিদার সঙ্গে যখন কথা হচ্ছিল, তখন পাশের বেড থেকে আরেক রোগীর স্বজন বলে ওঠেন, ‘কিছুক্ষণ এখানে থাকুন। এরপর দেখুন নাকে এসে লাগবে গন্ধ, থাকা যায় না।’
স্থান সংকুলান না হওয়ায় হাসপাতালের বারান্দাতে থাকতে হয় রোগীদের (ফাইল ছবি) জানা গেছে, ৪৩৪ শয্যার এই হাসপাতালে বর্তমানে প্রতিদিন ৯০০ থেকে ১ হাজারেরও বেশি রোগী ভর্তি হচ্ছেন। নির্ধারিত বেড়ে স্থান সংকুলান না হওয়ায় হাসপাতালের বিভিন্ন ফ্লোরের মেঝে, সিঁড়ির সামনে, বাথরুমের পাশে যে যেখানে পারছেন, সেখানেই বিছানা পেতে চিকিৎসা নিচ্ছেন।
হাসপাতালের চিকিৎসক ও কর্মকর্তারা বলছেন, ২০০৫ সালের পর থেকে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী পদে নিয়োগ দেওয়া হয়নি। বর্তমানের স্বাস্থ্যখাতের নিয়োগবিধিতে নবসৃষ্ট পদগুলো অন্তর্ভুক্ত না হওয়ায় এই পদগুলোতে নিয়োগ নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।
জানা গেছে, হাসপাতালের সহকারী ও সহযোগী অধ্যাপক পদে বর্তমানে ৮২টি পদের মধ্যে ৫৪টি পদে চিকিৎসক রয়েছেন, শূন্য পদের সংখ্যা ২৮টি আর বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে এই হাসপাতালে ওএসডি হিসেবে কর্মরত আছেন ৪৮ জন। হাসপাতালের অ্যানেসথেসিওলজি বিভাগ, কার্ডিওলজি বিভাগ, সার্জারি বিভাগ, কার্ডিয়াক সার্জারি বিভাগ, ভাসকুলার সার্জারি বিভাগ, পারফিউসনিস্ট, ইএমও ( ব্ল্যাডব্যাংক), জুনিয়র অ্যানেসথেটিস্টসহ বিভিন্ন বিভাগে ২১৫টি পদ থাকলেও বর্তমানে রয়েছেন ১৯০ জন। অর্থাৎ ঘাটতি রয়েছে ২৫ পদে।
এই প্রসঙ্গে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাসপাতালের একাধিক চিকিৎসক বলেন, ‘শিশু কার্ডিওলজি বিভাগে যেখানে চিকিৎসক থাকার কথা আট থেকে ১০জন, সেখানে চিকিৎসক রয়েছেন মাত্র চারজন, কার্ডিয়াক অ্যানেসথেসিয়া বিভাগে তিন ভাগের এক ভাগ রয়েছেন চিকিৎসক। প্যাথলজি, মাইক্রোবায়োলজি ও ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগের একেবারে নাজুক। তারা আরও বলেন, পুরো বিশ্বে হৃদরোগ হাসপাতালে ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগ খুবই গুরুত্বপূর্ণ জায়গা। অথচ এই হাসপাতালের ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক ও প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি নেই। বিভাগটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। কর্তৃপক্ষ এই বিষয়ে একেবারেই নজর দিচ্ছে না বলেও তারা অভিযোগ করেন। এ কারণে রোগীদের সেবা দিতেও হিমশিম খেতে হচ্ছে।
 এদিকে, হাসপাতালটির একজন ওয়ার্ড মাস্টার বলেন, ‘এখানে জনবল সংকট রয়েছে। ওয়ার্ডবয়, আয়া, এমএলএসএস ঘাটতি রয়েছে। আর এর পুরো প্রভাব পড়ে পুরো হাসপাতালে। এই ঘাটতির কারণে হাসপাতালের ভেতরের দিকে নোংরা হয়ে থাকে। ওয়ার্ডের ভেতরে আবর্জনা থাকে, ওয়াশরুমে ঢোকা যায় না দুর্গন্ধের কারণে।’
জানতে চাইলে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. আফজালুর রহমান বলেন, ‘বর্তমানে চিকিৎসক রয়েছেন ৩৩২ জন। কিছু দিন আগে প্রয়োজনীয় পরিমাণ নার্স নিয়োগ দেওয়া হয়েছ। অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীর পদসংখ্যা রয়েছে ৪১৭টি। এরমধ্যে ১৩০টি পদ শূন্য। মূলত এই কর্মকর্তা-কর্মচারী কম থাকার জন্যই রোগীদেরও ভোগান্তি অনেক। কিন্তু সেসব কিছুর সমাধান হতে চলেছে।’
ডা. আফজালুর রহমান আরও বলেন, ‘আরও ১৮২টি পদ সৃষ্টি করা হয়েছে। এই সংক্রান্ত সবকিছু প্রক্রিয়া শেষ করে এখন বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর দফতরে রয়েছে। সেখানের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হওয়ার পরই সরকারি আদেশ জারি হবে। তখন আর জনবল সংকট থাকবে না।’ তখন রোগীদের ভোগান্তির শেষ হবে বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেন।

/এমএনএইচ/

সম্পর্কিত

ডেঙ্গু আক্রান্ত আরও ২৪১ জন হাসপাতালে ভর্তি

ডেঙ্গু আক্রান্ত আরও ২৪১ জন হাসপাতালে ভর্তি

‘১২-১৭ বছর বয়সীদের টিকার সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি’

‘১২-১৭ বছর বয়সীদের টিকার সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি’

চিকিৎসকসহ সাড়ে ৯ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত

চিকিৎসকসহ সাড়ে ৯ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত

৫ লাখেরও বেশি টিকা দেওয়া হয়েছে আজ 

৫ লাখেরও বেশি টিকা দেওয়া হয়েছে আজ 

ব্র্যাকের হাত ধরে স্বাস্থ্যবিধি শিখছে মানুষ

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:১১

রাজধানীর মোহাম্মদপুরে একটি বাসায় গৃহকর্মীর কাজ করেন লাবনী। তার বাসা রায়ের বাজারের বেড়িবাঁধ সংলগ্ন সাদেক খান কৃষি মার্কেটের পাশে। প্রতিদিন কাজে যাওয়ার সময় কৃষি মার্কেটের কোণায় বসানো হাত ধোঁয়ার জায়গায় সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নেন। তিনি জানান, ভালো করে সাবান দিয়ে হাত ধোয়া হলে করোনাভাইরাসসহ অন্যান্য ভাইরাসজনিত রোগ থেকে দূরে থাকা যায়। হাত ধোয়ার সেই জায়গা (হ্যান্ড ওয়াশ স্টেশন) স্থাপন করেছে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক। প্রতিষ্ঠানটির কমিউনিটি সাপোর্ট টিমের সদস্যরা মানুষকে এ ধরনের স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে উদ্বুদ্ধ করতে কাজ করছেন মাঠে।

ব্র্যাকের স্বাস্থ্য, পুষ্টি এবং জনসংখ্যা বিভাগের অধীনে কমিউনিটি সাপোর্ট টিম (সিএসটি ঢাকা) প্রকল্পের আওতায় রাজধানীর দুই সিটি কর্পোরেশন এলাকার ৬৮টি ওয়ার্ডে ১৭০ জন স্বাস্থ্যকর্মী এবং ১৩৬ জন সেচ্ছাসেবী এই কাজে নিয়োজিত আছে সাধারণ মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি বিষয়ক সচেতন করার জন্য, যাতে করোনাভাইরাসের বিস্তার ঢাকা শহরে কম হয়। ইউএনএফপিএ, এফএও এবং যুক্তরাষ্ট্রের ফরেন কমনওয়েলথ ও ডেভেলপমেন্ট অফিসের সহায়তায় এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে ব্র্যাক। প্রকল্পের তথ্য অনুযায়ী, প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে চার মাসে ২ কোটি ১০ লাখ মানুষ এর থেকে লাভবান হবে। প্রকল্পটি জুন থেকে শুরু হয়ে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে বলে জানায় ব্র্যাক।

এই প্রকল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন এলাকায় কমিউনিটি সাপোর্ট টিমের সেচ্ছাসেবীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে সচেতনতা তৈরি করা, হ্যান্ড মাইকের মাধ্যমে জনবহুল জায়গায় সচেতন করা এবং ধর্মীয় ব্যক্তিত্বদের মাধ্যমে মানুষকে করোনাভাইরাসের বিষয়ে সচেতন করার কাজ করছে। কমিউনিটি সাপোর্ট টিমের অধীনে থাকা দুইজন কমিউনিটি স্বাস্থ্যকর্মী দুই সিটি কর্পোরেশন এলাকার বস্তিতে কিছু কিছু ক্ষেত্রে পুনর্ব্যবহারযোগ্য মাস্ক বিতরণ করে, করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের শনাক্ত করে, সন্দেহজনক করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিকে টেলিমেডিসিন সেবার সঙ্গে সংযুক্ত করে এবং টিকার জন্য নিবন্ধনে সহায়তা করে। এ ছাড়া এখন পর্যন্ত ১৬ লাখেরও বেশি মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে। পাশাপাশি দুই সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ৪০৮টি হ্যান্ড ওয়াশিং স্টেশন স্থাপন করা হয়েছে এবং প্রায় ৮০০ জনকে টিকার জন্য নিবন্ধনে সহায়তা করা হয়েছে।

সেচ্ছাসেবীরা জানান, সকাল ৯টা থেকে ৫টা পর্যন্ত তারা বিভিন্ন প্রকল্প এলাকায় কাজ করেন। মানুষকে মাস্ক বিতরণ করে তা সঠিকভাবে পরতে শেখানোসহ হাত ধোয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করেন তারা। এ কাজের জন্য তারা আগেই ব্র্যাকের পক্ষ থেকে প্রশিক্ষণ পেয়েছেন। রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর মোহাম্মদপুরের সাদেক খান কৃষি মার্কেট এলাকায় সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, সিএইচটি’র সেচ্ছাসেবীরা মাইকিং করছেন, মাস্ক বিতরণ করছেন এবং হ্যান্ড ওয়াশ স্টেশনে সাধারণ মানুষকে হাত ধোয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করছেন। এমনকি সঠিক উপায়ে হাত ধোয়ার বিষয়ে ধারনা দিচ্ছেন।

এই মার্কেটের ম্যানেজার মো সানি জানান,  ব্র্যাক এখানে এক মাসের বেশি সময় ধরে কাজ করছে। তাদের সেচ্ছাসেবীদের প্রায়ই দেখি মাস্ক দিচ্ছে। এখানে হাত ধোয়ার স্টেশন একটি বসিয়েছে তারা। কিন্তু পানির রিজার্ভারটা ছোট, চারজন হাত ধুলেই পানি শেষ হয়ে যায়। যদি একটু বড় রিজার্ভার বসানো যেত তাহলে আরও ভালো হতো।   

এই প্রকল্পের আওতায় ধর্মীয় উপাসনায়ে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে সচেতনতার লক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন এবং বাংলাদেশ ব্যাপিস্ট চার্চ ফেলোশিপের সঙ্গে অংশীদার হয়েছে যাতে করে ধর্মীয় নেতৃবৃন্দের মাধ্যমে সচেতনতা তৈরি করা যায় এবং মাস্ক বিতরণ করা যায়। মোহাম্মদপুরের জাফরাবাদ জামে মসজিদের ইমাম আমানুল্লাহ ফারুক জানান, ব্র্যাক আমাদের মাস্ক দিচ্ছে আমরা তা বিতরণ করছি মসজিদে আসা মুসল্লিদের মধ্যে। এ ছাড়া যতটুকু সম্ভব স্বাস্থ্যবিধি পালন করা সম্পর্কে আমরা সচেতন করি।

ব্র্যাকের স্বাস্থ্য পুষ্টি এবং জনসংখ্যা কর্মসূচির পরিচালক মোর্শেদা চৌধুরী জানান, আমরা মানুষকে এখন উদ্বুদ্ধ করছি যেন তারা বুঝতে পারে কীভাবে করোনা প্রতিরোধ করতে হবে। যাতে একসময় কিন্তু সম্পূর্ণ বিষয়টা আমরা তাদের ওপর ছেড়ে দিয়ে চলে আসতে পারি। তারা যেন নিজেরাই তাদের কমিউনিটিতে করোনা প্রতিরোধে কাজ করতে পারে সেটাই আমাদের উদ্দেশ্য। সেটা করতে গিয়ে দেখা যাচ্ছে যে, সবজায়গায় সমান রেসপন্স পাওয়া যায় না। সেটা আমাদের জন্য একটা বড় চ্যালেঞ্জ।

/এসও/এনএইচ/       

সম্পর্কিত

প্রকল্পের রেল গেট কিপারদের চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি

প্রকল্পের রেল গেট কিপারদের চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি

জুস কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি স্কপের

জুস কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি স্কপের

ব্যাংক হিসাব তলবের প্রতিবাদে সাংবাদিকদের সমাবেশ

ব্যাংক হিসাব তলবের প্রতিবাদে সাংবাদিকদের সমাবেশ

আগারগাঁওয়ে ছয়তলা ভবন থেকে পড়ে যুবকের মৃত্যু

আগারগাঁওয়ে ছয়তলা ভবন থেকে পড়ে যুবকের মৃত্যু

বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্লেন্ডেড লার্নিং এগিয়ে নিতে সহযোগিতার আগ্রহ যুক্তরাষ্ট্রের

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:১০

বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনলাইন শিক্ষা ও ব্লেন্ডেড লার্নিং কার্যক্রম এগিয়ে নিতে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) ঢাকার একটি হোটেলে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) প্রতিনিধিদের সঙ্গে এক বৈঠকে ঢাকার মার্কিন দূতাবাসের প্রতিনিধি দল এ আগ্রহের কথা জানান।

ইউজিসির প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য আমেরিকার বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চতর ডিগ্রি আর্জনে স্কলারশিপ দেওয়ার বিষয়েও আগ্রহ প্রকাশ করেছে মার্কিন দূতাবাস।

ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ’র নেতৃত্বে ওই বৈঠকে অংশ নেন ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর, সচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. ফেরদৌস জামান ও আইএমসিটি বিভাগের পরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মাকছুদুর রহমান ভূঁইয়া।

অপরদিকে, ঢাকার মার্কিন দূতাবাসের পাবলিক অ্যাফেয়ার্স অফিসার শন ম্যাকেনতশ, কালচারাল অ্যাফেয়ার্স অফিসার শার্লিনা মরগান, কালচারাল অ্যাফেয়ার্স স্পেশালিস্ট রায়হানা সুলতানা ও ইংলিশ ল্যাংগুয়েজ প্রোপ্রাম কো-অর্ডিনেটর শাওন কর্মকার দ্বি-পাক্ষিক ওই সভায় অংশ নেন।

ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ উচ্চশিক্ষাখাতে সহযোগিতা দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশে মার্কিন দূতাবাসের কর্মকর্তাদের ধন্যবাদ জানান।

ইউজিসির চেয়ারম্যান  আমেরিকার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় উচ্চতর ডিগ্রি অর্জনে বাংলাদেশিদের জন্য টিউশন ফি মওকুফের আহবান জানান। এক্ষেত্রে, ইউজিসি বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় লজিস্টিক সহযোগিতা দেবে বলে জানান চেয়ারম্যান।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষা ক্ষেত্রে যৌথ উদ্যোগে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের বিষয়ে দুপক্ষ একমত পোষণ করে।

/এসএমএ/এমএস/

সম্পর্কিত

এসএসসি ৫ থেকে ১১ নভেম্বর, এইচএসসি ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে

এসএসসি ৫ থেকে ১১ নভেম্বর, এইচএসসি ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে

শিক্ষক ও সহায়ক পদ বাড়ছে প্রাথমিকে, দ্রুত পদোন্নতির সুপারিশ

শিক্ষক ও সহায়ক পদ বাড়ছে প্রাথমিকে, দ্রুত পদোন্নতির সুপারিশ

‘নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে আগে শিক্ষকদের প্রস্তুত করতে হবে’

‘নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে আগে শিক্ষকদের প্রস্তুত করতে হবে’

নতুন শিক্ষাক্রমে হিজড়াদের জন্য যা থাকছে

নতুন শিক্ষাক্রমে হিজড়াদের জন্য যা থাকছে

এসএসসি ৫ থেকে ১১ নভেম্বর, এইচএসসি ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:১৩

এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা আগামী ৫ থেকে ১১ নভেম্বর এবং এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে নেওয়ার সম্ভাব্য সূচি তৈরি করেছে আন্তশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটি। পরীক্ষার শুরুর দুই সপ্তাহ আগে চূড়ান্ত সূচি নির্ধারণ করে তা প্রকাশ করা হবে।

রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সোশ্যাল মিডিয়ায় এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ হয়েছে বলে বিভ্রান্তি ছড়ানো হয়। এ ছাড়া অন্যান্য পরীক্ষা (জেএসসি-জেডিসি) নিয়েও বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছিল।

জানতে চাইলে আন্তশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহাল আহমেদ বলেন, ‘আমরা এসএসসি পরীক্ষা শুরু করতে চাই ৫ থেকে ১১ নভেম্বরের মধ্যে। আর এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়ার কথা বলা হয়েছে ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে। বোর্ড থেকে এখনও চূড়ান্ত তারিখ নির্ধারণ করা হয়নি।‘

সোশ্যাল মিডিয়ায় পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ হয়েছে বলে প্রচার হচ্ছে—এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে অধ্যাপক নেহাল আহমেদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এখনও চূড়ান্ত কোনও তারিখ নির্ধারণ করা হয়নি। পরীক্ষার তারিখ এত অগ্রিম দেওয়া হবে না। চূড়ান্ত তারিখ নির্ধারণ হবে পরীক্ষা শুরুর দুই সপ্তাহ আগে। তাছাড়া আমরা যদি চূড়ান্ত করেও থাকি তারপরও পরীক্ষার দু’-একদিন আগেও তারিখ পরিবর্তন হতে পারে। তাই যতক্ষণ পর্যন্ত আমরা প্রকাশ না করবো ততক্ষণ পর্যন্ত আগে বলার কিছু নেই।’

এর আগে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানিয়েছিলেন, নভেম্বরের মাঝামাঝি এসএসসি ও ডিসেম্বরের শুরুতে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া হবে। পরীক্ষা শুরুর দুই সপ্তাহ তারিখ জানিয়ে দেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, প্রতিবছর ফেব্রুয়ারির শুরুতে এসএসসি এবং এপ্রিলের শুরুতে এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু করোনার কারণে দেড় বছর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। কয়েক দফা ছুটি শেষে গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শ্রেণি কার্যক্রম শুরু হয়।

/এসএমএ/এনএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্লেন্ডেড লার্নিং এগিয়ে নিতে সহযোগিতার আগ্রহ যুক্তরাষ্ট্রের

বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্লেন্ডেড লার্নিং এগিয়ে নিতে সহযোগিতার আগ্রহ যুক্তরাষ্ট্রের

শিক্ষক ও সহায়ক পদ বাড়ছে প্রাথমিকে, দ্রুত পদোন্নতির সুপারিশ

শিক্ষক ও সহায়ক পদ বাড়ছে প্রাথমিকে, দ্রুত পদোন্নতির সুপারিশ

‘নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে আগে শিক্ষকদের প্রস্তুত করতে হবে’

‘নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে আগে শিক্ষকদের প্রস্তুত করতে হবে’

নতুন শিক্ষাক্রমে হিজড়াদের জন্য যা থাকছে

নতুন শিক্ষাক্রমে হিজড়াদের জন্য যা থাকছে

মাদ্রাসা বোর্ডের চেয়ারম্যান ও রেজিস্ট্রারকে তলব

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:১৭

জাতীয় শোক দিবসে সরকারি ছুটির দিনে একটি প্রতিষ্ঠানের অ্যাডহক কমিটি করে প্রজ্ঞাপন জারির বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বাংলাদেশ মাদ্রাসা বোর্ডের চেয়ারম্যান ও রেজিস্ট্রারকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর তাদেরকে হাজির হয়ে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে। একইদিন আদালত এ বিষয়ে পরবর্তী আদেশের দিন নির্ধারণ করেন। 

এক রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। 

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মো. হুমায়ুন কবির। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।

এর আগে বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার গোহাইল শালিখা দাখিল মাদ্রাসার সভাপতি মনোনয়নসহ চার সদস্যের অ্যাডহক কমিটির অনুমোদন দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। গত ১৫ আগস্ট মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানের পক্ষে রেজিস্ট্রারের স্বাক্ষরে এই কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়।

ওই ঘটনায় গোহাইল শালিখা দাখিল মাদ্রাসার এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক ওমর ফারুক প্রজ্ঞাপন জারির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন।

/বিআই/এনএইচ/

সম্পর্কিত

গাজীপুরের জেলা রেজিস্ট্রার ও তার স্ত্রীর সম্পদ অনুসন্ধান করছে দুদক 

গাজীপুরের জেলা রেজিস্ট্রার ও তার স্ত্রীর সম্পদ অনুসন্ধান করছে দুদক 

সাজা প্রদানের নীতিমালা প্রণয়ন কেন নয়: হাইকোর্ট

সাজা প্রদানের নীতিমালা প্রণয়ন কেন নয়: হাইকোর্ট

কাউন্সিলর সেন্টুর সম্পদের তথ্য জানতে চেয়েছে দুদক

কাউন্সিলর সেন্টুর সম্পদের তথ্য জানতে চেয়েছে দুদক

গেঞ্জিতে লেখার সূত্র ধরে হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচন

গেঞ্জিতে লেখার সূত্র ধরে হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচন

দ্রুতই মালয়েশিয়ায় ফিরতে পারছেন না ছুটিতে থাকা প্রবাসীরা

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৪৭

দেশে ছুটিতে থাকা প্রবাসীরা দ্রুতই মালয়েশিয়ায় ফিরতে পারছেন না। করোনার সময়ে যেসব কর্মীরা ছুটিতে বৈধভাবে নিজ নিজ দেশে ছুটিতে এসেছিলেন তারা ২০২১ সালের ভেতর পুনরায় মালয়েশিয়ায় ফিরতে পারছেন না। 

টানা ৪ মাস লকডাউনের পর ইতোমধ্যে সরকার শর্তসাপেক্ষে কিছু বিধিনিষেধ শিথিল করেছে। এই পরিস্থিতিতে আশা করা হয়েছিল ২০২১ সালের শেষের দিকে সীমান্ত খুলে দিলে ছুটিতে থাকা কর্মীরা দেশটিতে ফিরে কাজে যোগ দিতে পারবেন। 

তবে রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) স্থানীয় গণমাধ্যমে এক বিবৃতিতে দেশটির মানবসম্পদমন্ত্রী দাতোক সেরী এম সারাভানান বলেছেন, বিদেশি কর্মীদের মালয়েশিয়ায় পুনরায় প্রবেশের নিষেধাজ্ঞা আবার বাড়ানো হবে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। তিনি বলেন, ছুটিতে থাকা বিদেশি সাধারণ শ্রমিক ও গৃহপরিচারিকা (মেইড) কখন ফিরতে পারবেন সে বিষয়ে মালয়েশিয়ার জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিল, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় আলোচনা করে পরবর্তী নেবে।

বিবৃতিতে আরও বলেন, আমাদের দ্বারা নিবন্ধিত ও লাইসেন্সপ্রাপ্ত বেসরকারি কর্মসংস্থান সংস্থাগুলোকে অনুরোধ করছি উৎস দেশ থেকে গৃহকর্মীদের প্রবেশের বিষয়ে নিয়োগকর্তাদের বিভ্রান্ত করে আমাদের পরামর্শ ছাড়া এমন কোনও বিবৃতি বা বিজ্ঞাপন দেবেন না। মালয়েশিয়ায় সবচেয়ে বেশি ইন্দোনেশিয়ার গৃহকর্মী বা গৃহপরিচারিকা কাজ করে থাকেন। তাই মন্ত্রণালয়গুলো ইন্দোনেশিয়ার সরকারের সঙ্গে গৃহপরিচারিকা নিয়োগের বিষয়ে একটি সমঝোতা স্বারক (এমওইউ) চূড়ান্ত করার জন্য আলোচনার পর্যায়ে রয়েছে। 

উল্লেখ্য, বৈশ্বিক করোনা মহামারি শুরু হওয়ার পর ২০১৯ সালের ১৮ মার্চ থেকে শুরু হয় দেশটিতে সর্বাত্মক লকডাউন। এই সময় থেকে শুরু করে বিভিন্ন সময়ে যে সমস্ত কর্মী ছুটিতে কিংবা জরুরি প্রয়োজনে নিজ নিজ দেশে গিয়েছিলেন তারা এখনও আটকা পড়ে আছেন। ২০২০ এর নভেম্বর থেকে শুরু ২০২১ এর জুন মাসের আগ পর্যন্ত মাই ট্রাভেল পাস (এমটিপি) নামে একটি অনলাইন অ্যাপের মাধ্যমে আবেদন করে মালয়েশিয়াতে কিছু কিছু ছুটিতে থাকা কর্মী প্রবেশ করেছিল। কিন্তু চলতি বছরের জুন মাস থেকে কঠোর লকডাউন শুরু হয়ে যাওয়ায় এমটিপি'র মাধ্যমে আবেদন করে মালয়েশিয়ায় প্রবেশ সম্পূর্ণভাবে বন্ধ হয়ে যায়। দেশে আটকা পড়া অসংখ্য কর্মী যাদের বৈধ ভিসা ও পারমিট রয়েছে তারা কখন মালয়েশিয়ায় ফিরতে পারবেন বিষয়টি নির্ভর করছে মালয়েশিয়ার সরকার কখন অনুমতি দেবে। 

/এনএইচ/

সম্পর্কিত

গ্রিসে ই-পাসপোর্ট সেবা চালু

গ্রিসে ই-পাসপোর্ট সেবা চালু

মেক্সিকোর স্বাধীনতা প্যারেডে বাংলাদেশের মনোমুগ্ধকর প্রদর্শনী

মেক্সিকোর স্বাধীনতা প্যারেডে বাংলাদেশের মনোমুগ্ধকর প্রদর্শনী

জার্মানিতে হামবুর্গে বাংলাদেশ সমিতির আনন্দমেলায় প্রবাসীদের ঢল

জার্মানিতে হামবুর্গে বাংলাদেশ সমিতির আনন্দমেলায় প্রবাসীদের ঢল

পুলিশ পাহারায় বাংলাদেশিদের পাসপোর্ট দিচ্ছে মালয়েশিয়া

পুলিশ পাহারায় বাংলাদেশিদের পাসপোর্ট দিচ্ছে মালয়েশিয়া

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ডেঙ্গু আক্রান্ত আরও ২৪১ জন হাসপাতালে ভর্তি

ডেঙ্গু আক্রান্ত আরও ২৪১ জন হাসপাতালে ভর্তি

‘১২-১৭ বছর বয়সীদের টিকার সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি’

‘১২-১৭ বছর বয়সীদের টিকার সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি’

চিকিৎসকসহ সাড়ে ৯ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত

চিকিৎসকসহ সাড়ে ৯ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত

৫ লাখেরও বেশি টিকা দেওয়া হয়েছে আজ 

৫ লাখেরও বেশি টিকা দেওয়া হয়েছে আজ 

আজও করোনায় নারীমৃত্যু বেশি

আজও করোনায় নারীমৃত্যু বেশি

চলতি মাসেই ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ৫ হাজার ছাড়ালো  

চলতি মাসেই ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ৫ হাজার ছাড়ালো  

এবার কেন ডেঙ্গু ভয়ংকর

এবার কেন ডেঙ্গু ভয়ংকর

করোনায় নারীমৃত্যু পুরুষের দ্বিগুণ

করোনায় নারীমৃত্যু পুরুষের দ্বিগুণ

‘ডেল্টার মতো ভ্যারিয়েন্টের পুনরায় সংক্রমণের আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যায় না’

‘ডেল্টার মতো ভ্যারিয়েন্টের পুনরায় সংক্রমণের আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যায় না’

ডেঙ্গু: সেপ্টেম্বরের ১৭ দিনেই শনাক্ত ৪৮৭২, মৃত্যু ১১

ডেঙ্গু: সেপ্টেম্বরের ১৭ দিনেই শনাক্ত ৪৮৭২, মৃত্যু ১১

সর্বশেষ

গুগলও আনছে ফোল্ডেবল স্মার্টফোন

গুগলও আনছে ফোল্ডেবল স্মার্টফোন

রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে মার্কিন রাষ্ট্রদূত

রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে মার্কিন রাষ্ট্রদূত

দলবদলে এলো আবাহনী, লক্ষ্য শিরোপা

দলবদলে এলো আবাহনী, লক্ষ্য শিরোপা

ব্র্যাকের হাত ধরে স্বাস্থ্যবিধি শিখছে মানুষ

ব্র্যাকের হাত ধরে স্বাস্থ্যবিধি শিখছে মানুষ

বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্লেন্ডেড লার্নিং এগিয়ে নিতে সহযোগিতার আগ্রহ যুক্তরাষ্ট্রের

বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্লেন্ডেড লার্নিং এগিয়ে নিতে সহযোগিতার আগ্রহ যুক্তরাষ্ট্রের

© 2021 Bangla Tribune