X
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

যেভাবে চলবে গণপরিবহন

আপডেট : ২৯ মে ২০২০, ১৭:১৬

গণপরিবহন করোনা সংক্রমণ রোধে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর ফের গণপরিবহন চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। আগামী ৩১ মে থেকে দেশের সব রুটে বাস, ট্রেন ও লঞ্চ চলাচল শুরু হবে। তবে এসব পরিবহন পরিচালনার ক্ষেত্রে কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশনা রয়েছে। এ অবস্থায় পরিবহন সংশ্লিষ্টরা বলছেন, তারা সরকারের নির্দেশনা মেনেই গণপরিবহন পরিচালনা করবেন। যদিও সার্বিক পরিস্থিতিতে দেশের মানুষ ও পরিবহন সংশ্লিষ্টরা তা কতটা মানবে তা নিয়েও শঙ্কা রয়েছে। তবে স্বাস্থ্যবিধিতে একটির পর একটি আসন ফাঁকা রাখার নির্দেশনা থাকায় ভাড়া বাড়ানোর ইঙ্গিত দিয়েছেন তারা। 

বাস, ট্রেন ও লঞ্চ পরিচালনায় কারিগরি টিমের নির্দেশনা:

গত ২৮ মার্চ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে দেশের করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় সহযোগিতার জন্য ৮ জন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। গণপরিবহন পরিচালনা ক্ষেত্রে কমিটি এরইমধ্যে বেশ কিছু কারিগরি নির্দেশনা তৈরি করেছে। এতে বলা হয়েছে, স্টেশনগুলাতে ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম সংরক্ষণ, জরুরি পরিকল্পনা প্রণয়ন, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ক্ষেত্র স্থাপন, প্রতিটি ইউনিটের জবাবদিহি নিশ্চিতকরণ এবং কর্মীদের প্রশিক্ষণ দিতে হবে। কর্মীদের স্বাস্থ্য পর্যবেক্ষণ ও স্বাস্থ্য বিষয়ক অবস্থা নথিভুক্ত করতে হবে। অসুস্থতা অনুভবকারীদের সঠিক সময়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা নিতে হবে। নিরাপত্তা এবং জীবাণুমুক্তকরণ পদ্ধতি মানসম্মত করতে হবে। সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর করোনা নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কে জ্ঞান থাকতে হবে। মাস্ক, গ্লাভস ও জীবাণুনাশক মজুত থাকতে হবে। কর্মীদের স্বাস্থ্য পর্যবেক্ষণ ও স্বাস্থ্য বিষয়ক অবস্থা নথিভুক্ত করতে হবে। যারা অসুস্থতা অনুভব করবে তাদের সঠিক সময়ে চিকিৎসা দিতে হবে।

স্টেশনে আগত যাত্রীদের তাপমাত্রা মাপার জন্য স্টেশনে ইনফ্রারেড থার্মোমিটার রাখতে হবে। যথাযথ শর্তাবলি মেনে একটি জরুরি এলাকা চিহ্নিত করতে হবে। যেসব যাত্রীর শরীরের তাপমাত্রা ৩৭.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি থাকবে তাদের ওই জরুরি এলাকায় অস্থায়ী কোয়ারেন্টিনে রাখতে হবে এবং প্রয়োজন মতো চিকিৎসা দিতে হবে। পোস্টার ও ইলেকট্রনিক স্ক্রিনের মাধ্যমে স্বাস্থ্যজ্ঞান পরিবেশন জোরদার করতে হবে। মাঝারি ও উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা দিয়ে যাতায়াত করা ট্রেনে টিকিটের মাধ্যমে যাত্রীসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ ও যথাসম্ভব যাত্রীদের আলাদা বসার ব্যবস্থা করতে হবে।

পরিবহনে বায়ু চলাচল পদ্ধতি যেন স্বাভাবিক থাকে তা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। যথাযথ তাপমাত্রায় বায়ু চলাচলের জন্য পরিবহনের জানালা খুলে দিতে হবে। চলাচলের স্থানগুলো পরিষ্কার এবং জীবাণুমুক্ত রাখতে হবে। টয়লেটগুলোতে তরল সাবান থাকতে হবে। সম্ভব হলে হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং হাত জীবাণুনাশক যন্ত্র স্থাপন করা যেতে পারে। যাত্রীদের অপেক্ষা করার স্থান, বাস কম্পার্টমেন্ট ও অন্যান্য এলাকা পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে।

প্রতিবার বাস, ট্রেন বা লঞ্চ ছেড়ে যাওয়ার আগে সিট, কেবিন, পরিবহনের মেঝে জীবাণুমুক্ত করতে হবে। জনগণের জন্য ব্যবহার্য জিনিসপত্রগুলো পরিষ্কার এবং জীবাণুমুক্ত করতে হবে। সিট কাভারগুলোকে প্রতিনিয়ত ধোয়া, পরিষ্কার এবং জীবাণুমুক্ত করতে হবে। যাত্রীদের অপেক্ষা করার স্থানে মাস্ক, গ্লাভস ও জীবাণুমুক্তকরণ দ্রব্যাদির পর্যাপ্ত মজুত থাকতে হবে। সব পরিবহনে হাতে ধরা থার্মোমিটার থাকতে হবে। যথাযথ স্থানে একটি জরুরি এলাকা স্থাপন করতে হবে। যেখানে সন্দেহজনক উপসর্গ আছে এমন যাত্রীদের অস্থায়ী কোয়ারেন্টিনে রাখা যাবে। যাত্রী এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ব্যক্তিগত সুরক্ষার ক্ষেত্রে জোর দিতে হবে।

যাত্রীদের অনলাইনে টিকিট কেনার পরামর্শ দিতে হবে। সারিবদ্ধভাবে ওঠা এবং নামার সময়ে যাত্রীদের পরস্পর থেকে এক মিটারেরও বেশি দূরত্ব বজায় রাখতে হবে এবং ভিড় এড়িয়ে চলতে হবে। যাত্রীদের স্বাস্থ্য সচেতন করার জন্য রেডিও, ভিডিও ও পোস্টারের মাধ্যমে সচেতনতামূলক বক্তব্য প্রদান করতে হবে।

তবে এসব নির্দেশনা বাস্তবায়নে এখনো পুরোপুরিভাবে প্রস্তুত হতে পারেনি পরিবহন মালিকরা।

যা বলছেন পরিবহন মালিকরা:

পরিবহন সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, তারা এই বিষয়গুলো মেনে গণপরিবহন পরিচালনা করবেন। তবে বিষয়টি কতটা মানা যাবে তা নিয়েও শঙ্কা রয়েছে। এজন্য সরকারকেও এগিয়ে আসতে হবে। আর যেহেতু একটি বাদ রেখে অপর আসন বিক্রির নির্দেশনা রয়েছে সে হিসেবে যাত্রীসংখ্যা অর্ধেকের চেয়েও কম হবে। সে কারণে ভাড়া পুনর্নির্ধারণের দাবি করেছেন পরিবহন মালিকরা। তারা বলেছেন, যাত্রী যেহেতু অর্ধেকে নেমে যাবে তাই ভাড়াও দ্বিগুণ করতে হবে। আর এ নিয়ে আগামীকাল বিআরটিএ’র সঙ্গে বাস মালিক এবং বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যানের সঙ্গে লঞ্চ মালিকদের বৈঠক হবে। সেখানে ভাড়াসহ সার্বিক বিষয়গুলো নির্ধারণ করা হবে।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব ও ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্ল্যাহ শঙ্কা প্রকাশ করে বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘পরিবহন পরিচালনার ক্ষেত্রে সরকারের পক্ষ থেকে স্বাস্থ্যবিধি পালনের যেসব নির্দেশনা দেওয়া হবে তা মেনেই পরিবহন পরিচালনা করা হবে। কিন্তু সেই নির্দেশনা দেশের সাধারণ মানুষ ও পরিবহনের চালক-হেল্পার এবং মালিকরা কতটা পালন করতে পারবে সে বিষয়টি নিয়ে আমাদের শঙ্কা রয়েছে। এরপরেও আমরা কঠোরভাবে বিষয়টি পালন করার চেষ্টা করবো। আর এ বিষয়ে  শুক্রবার বিকালে বিআরটিএ’র সঙ্গে বৈঠক রয়েছে। সেখানে বিস্তারিত সিদ্ধান্ত হবে।

বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ও শ্যামলী পরিবহনের ম্যানেজিং ডিরেক্টর রাকেশ ঘোষ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে সরকার যেভাবে সিদ্ধান্ত দেবে সেভাবেই পরিবহন পরিচালনা করা হবে। স্বাস্থ্যবিধিতে কোনও ছাড় দেওয়া হবে না। যেসব নির্দেশনা রয়েছে সেগুলো পুরোপুরি পালন করার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। তবে সরকারকে ভাড়া পুনর্নির্ধারণ করতে হবে। আমরা লাভ চাই না। অন্তত যাতে মালিক-শ্রমিকরা লোকসানে না পড়ে।

যেসব দায়িত্ব পালন করবে সিটি করপোরেশন

নগরীর বাস টার্মিনালগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি পালনের বিষয়ে কী ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে সে বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মহাব্যবস্থাপক (পরিবহন) নিতাই চন্দ্র সেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, করোনা শনাক্তের শুরুর দিকে সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিয়ে ডিটিসিএ একটা মিটিং করেছে। সেখানে কীভাবে পরিবহন পরিচালনা করতে হবে তা বিস্তারিত বলে দেওয়া হয়েছে। এরইমধ্যে স্বাস্থ্যবিধিও প্রণয়ন করা হয়েছে। এখানে মূল কাজগুলো পরিবহন মালিকদেরই করতে হবে। আমরা শুধু এনফোর্সমেন্টটাই নিশ্চিত করবো। আর আমাদের জীবাণুনাশক ছিটানো অব্যাহত রয়েছে। যেসব স্থানে জীবাণুনাশক ছিটাতে হবে সেসব স্থানে এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

যেভাবে পরিচালিত হবে ট্রেন

এদিকে সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী ৩১ মে থেকে অল্প সংখ্যক ট্রেন পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেলওয়ে। এজন্য এরইমধ্যে একটি রোডম্যাপও তৈরি করা হয়েছে। এসব ট্রেনে একটি করে সিট ফাঁকা রেখে টিকিট বিক্রি করা হবে। পরিকল্পনা অনুযায়ী সংখ্যা কমিয়ে দুটি গ্রুপে ভাগ করে ট্রেন পরিচালনা করা হবে। এরমধ্যে প্রথম ‘ক’ গ্রুপে রাখা ট্রেনগুলো ৩১ মে থেকে পরিচালনা করা হবে। এই ট্রেনগুলো হচ্ছে- ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে সুবর্ণ এক্সপ্রেস ও সোনার বাংলা এক্সপ্রেস, ঢাকা-সিলেট রুটে কালনী এক্সপ্রেস, ঢাকা-পঞ্চগড় রুটে পঞ্চগড় এক্সপ্রেস, ঢাকা-রাজশাহী রুটে বনলতা এক্সপ্রেস, ঢাকা-লালমনিরহাট রুটে লালমনি এক্সপ্রেস, চট্টগ্রাম-সিলেট-চট্টগ্রাম রুটে উদয়ন/পাহাড়িকা এক্সপ্রেস এবং ঢাকা-খুলনা রুটে চিত্রা এক্সপ্রেস।

আর ‘খ’গ্রুপে রাখা ট্রেনগুলো ৩ জুন থেকে পরিচালনা করতে সুপারিশ করা হয়েছে। এই ট্রেনগুলো হচ্ছে, ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ বাজার রুটে তিস্তা এক্সপ্রেস, ঢাকা-বেনাপোল রুটে বেনাপোল এক্সপ্রেস, ঢাকা-চিলাহাটি রুটে নীলসাগর এক্সপ্রেস, খুলনা-চিলাহাটি রুটে রূপসা এক্সপ্রেস, খুলনা-রাজশাহী রুটে কপোতাক্ষ এক্সপ্রেস, রাজশাহী-গোয়ালন্দঘাট রুটে মধুমতি এক্সপ্রেস, চট্টগ্রাম-চাঁদপুর রুটে মেঘনা এক্সপ্রেস, ঢাকা-কিশোরগঞ্জ রুটে কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস এবং ঢাকা-নোয়াখালী রুটে উপকূল এক্সপ্রেস। তবে ট্রেনে ভাড়া বাড়ানোর বিষয়ে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি।

ট্রেন চালুর বিষয়ে রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পর আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে কিছু আন্তনগর ট্রেন চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আগে যে রুটে পাঁচটি আন্তনগর ট্রেন চলতো, সেই রুটে এখন দুটি ট্রেন চলবে। সেক্ষেত্রে একটা সিট বাদ দিয়ে টিকিট বিক্রি করা হবে। এভাবে আমরা দুই সপ্তাহ ট্রেন চালিয়ে দেখবো। তারপর সরকার থেকে নতুন কোনও নির্দেশনা এলে আমরা আবার বিষয়টি বিবেচনা করব।’

যেভাবে চলবে লঞ্চ

একই নিয়ম অনুসরণ করে পরিচালিত হবে লঞ্চ। এজন্য দেশের বড় বড় লঞ্চগুলোর প্রবেশপথে এরইমধ্যে জীবাণুনাশক টানেল স্থাপন করা হয়েছে। তবে ভাড়া বাড়ানোর ইঙ্গিত দিয়েছেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘স্বাস্থ্যবিধি মেনে শর্তসাপেক্ষে আগামী ৩১ মে থেকে স্বল্পসংখ্যক যাত্রী নিয়ে সীমিত পরিসরে গণপরিবহন চলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তাই লঞ্চও চলবে। তবে শর্ত পরিপালনের বিষয়সহ নানাদিক দিয়ে লঞ্চ মালিকদের সঙ্গে বৈঠক করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেবেন বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যান।’ এই সময়ে ভাড়া বাড়ানোর বিষয়টি নিয়েও ওই বৈঠকে আলোচনা হবে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী। 

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাংলাদেশ লঞ্চ মালিক সমিতির সভাপতি মাহবুব উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘আমরা সরকারের কোনও আদেশ অমান্য করতে পারবো না। তাই আগামী ৩১ মে রবিবার থেকে লঞ্চ চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তবে যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি কতটা মানাতে পারবো, তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দিহান আমি নিজেই। কারণ, ফেরিতে চলাচলের ক্ষেত্রে সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে সাধারণ মানুষের ঘরে ফেরার দৃশ্য দেখেছি।’ 

তিনি বলেন, ‘অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি মেনে লঞ্চ চালালে ধারণ ক্ষমতার পাঁচ ভাগের একভাগ যাত্রী নিয়ে গন্তব্যে রওনা করতে হবে। সেক্ষেত্রে ভাড়া বাড়ানোর বিষয়টি তো প্রাসঙ্গিক। তাই এ বিষয়টি নিয়েও শুক্রবারের বৈঠকে আলোচনা হবে।’

 

/এমআর/এমওএফ/

সম্পর্কিত

‘শেখ হাসিনা জীবন্ত কিংবদন্তি’

‘শেখ হাসিনা জীবন্ত কিংবদন্তি’

জেনেভা যাচ্ছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

জেনেভা যাচ্ছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

দেশে দুর্নীতি রয়েছে অস্বীকার করি না: পরিকল্পনামন্ত্রী

দেশে দুর্নীতি রয়েছে অস্বীকার করি না: পরিকল্পনামন্ত্রী

ইনডেমনিটি অ্যাক্টের মতো বিএনপিকেও বাতিলের দরকার ছিল: শিল্পমন্ত্রী

ইনডেমনিটি অ্যাক্টের মতো বিএনপিকেও বাতিলের দরকার ছিল: শিল্পমন্ত্রী

‘শেখ হাসিনার দূরদৃষ্টিসম্পন্ন চিন্তার ফলে দেশ আজ উন্নত’

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:২১

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক ড. শামসুল আলম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদৃষ্টিসম্পন্ন চিন্তার ফলে ২০১৫ সালেই আমরা নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে আমাদের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করি। ফলে দেশ আজ উন্নত।

সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরাম আয়োজিত "শেখ হাসিনা: নেতৃত্ব, মানবিকতা" বিষয়ক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, মূল্যস্ফীতি ও অর্থনৈতিক পরিকল্পনা আমাদের কি হবে ‑ তা তিনি (শেখ হাসিনা) শুরুতেই নির্ধারণ করেছিলেন। ২০৪১ সালে দেশের অর্থনীতি কি হবে তার রূপরেখাও তিনি করে রেখেছেন।

তিনি আরও বলেন, রূপকল্প-২০২১ সফলভাবে অর্জিত হয়েছে। এমডিজি'র ২১টি লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে আমরা নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই ২০টি লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করে ফেলি।'

বিএনপি'র সময়ের কথা উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম বলেন, আওয়ামী লীগ ১৯৯৭ সালেই পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা গ্রহণ করে। বিএনপি ২০০১ সালে এসে কোনও পরিকল্পনাই গ্রহণ করতে পারেনি। তাদেরকে বিশ্বব্যাংক বললো‑ দারিদ্র্য যেহেতু তোমাদের বড় সমস্যা, তোমরা দারিদ্র্য দূরীকরণ নিয়ে একটা পরিকল্পনা কর। ফলে তারা শুধু দারিদ্র্য দূরীকরণ কৌশলপত্র গ্রহণ করে, কোনও পরিকল্পনা গ্রহণ করতে পারেনি।

অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমানের সভাপতিত্বে সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারী, সাবেক আইজিপি এ কে এম শহীদুল হকসহ আরও অনেকে।

/জেডএ/এমএস/

সম্পর্কিত

জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষেত্রগুলোতে ইতালির সহযোগিতা আহ্বান

জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষেত্রগুলোতে ইতালির সহযোগিতা আহ্বান

ভারতের ফ্লাইট চালুর প্রস্তাবে সম্মতি বাংলাদেশের

ভারতের ফ্লাইট চালুর প্রস্তাবে সম্মতি বাংলাদেশের

সিনোফার্মের ১০ লাখ ডোজ দেশে পৌঁছেছে

সিনোফার্মের ১০ লাখ ডোজ দেশে পৌঁছেছে

বিজিবি-বিএসএফ সম্মেলন: বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক জোরদারের অঙ্গীকার

বিজিবি-বিএসএফ সম্মেলন: বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক জোরদারের অঙ্গীকার

‘শেখ হাসিনা জীবন্ত কিংবদন্তি’

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৫৭

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একজন জীবন্ত কিংবদন্তি। তার নেতৃত্বে ভোটাধিকার ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। দারিদ্র্য কমেছে। তার কারণেই বাংলাদেশ এখন বিশ্বের কাছে মর্যাদাপূর্ণ। তিনি সম্মানিত হলে দেশ ও জনগণ সম্মানিত হয়।

শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) তথ্য অধিদফতর আয়োজিত আলোকচিত্র অ্যালবামের মোড়ক উম্মোচন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী বলেন, ‘এবারের জন্মদিনটা তাৎপর্যপূর্ণ। আজকের দিনের প্রার্থনা— যেন তার শততম জন্মদিন পালন করা যায়। ওই দিন পর্যন্ত যেন তিনি বেঁচে থাকেন।’

তথ্যমন্ত্রী জানান, তিনি কিছুদিন প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি দেখেছেন, শেখ হাসিনা নিজের ঘরে জন্মদিন পালন করেন না। কেক কাটেন না। কোনও অনুষ্ঠানের আয়োজন করলে যেতে চান না। তাই তাকে না জানিয়েই দলের পক্ষ থেকে জন্মদিন পালন করা হয়।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘শেখ হাসিনা গণতন্ত্রের মানসকন্যা।’ ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘দেশে এখন কুঁড়ে ঘর খুঁজে পাওয়া যায় না। ছেঁড়া কাপড় পড়া মানুষ দেখা যায় না। মানুষ খালি পায়ে থাকে না। কারণ, ৪০ শতাংশ থেকে দারিদ্র্য ২০ শতাংশে নামিয়ে এনেছে তার (শেখ হাসিনা) নেতৃত্বের সরকার। দেশ বদলে গেছে। আকাশ থেকে ঢাকা ও চট্টগ্রাম চেনা যায় না। এটা কোনও জাদুর কারণে নয়, এটা শেখ হাসিনার জাদুর নেতৃত্বের কারণে বদলেছে।’

 

/এসআই/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

জেনেভা যাচ্ছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

জেনেভা যাচ্ছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

দেশে দুর্নীতি রয়েছে অস্বীকার করি না: পরিকল্পনামন্ত্রী

দেশে দুর্নীতি রয়েছে অস্বীকার করি না: পরিকল্পনামন্ত্রী

ইনডেমনিটি অ্যাক্টের মতো বিএনপিকেও বাতিলের দরকার ছিল: শিল্পমন্ত্রী

ইনডেমনিটি অ্যাক্টের মতো বিএনপিকেও বাতিলের দরকার ছিল: শিল্পমন্ত্রী

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

জেনেভা যাচ্ছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৫৪

সুইজারল্যান্ডের রাজধানী জেনেভায় যাচ্ছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) রাতে এমিরেটরস এয়ারলাইনসের একটি ফ্লাইটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর ত্যাগ করবেন তিনি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ব্যুরো মিটিংয়ে অংশ নিতে তিনি সেখানে যাচ্ছেন।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সফরকালে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব কাজী জেবুন্নেছা বেগম, স্বাস্থ্যমন্ত্রীর একান্ত সচিব কামরুল হাসান, উপসচিব সাদেকুল ইসলাম এবং ঢাকার তেজগাঁও হেলথ কমপ্লেক্স-এর স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মফিজুল ইসলাম বুলবুল স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সফর সঙ্গী হবেন।

আগামী ৬ অক্টোবর স্বাস্থ্যমন্ত্রী সুইজারল্যান্ড সফর শেষে দেশে পৌঁছবেন বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়।

 

/এসআই/আইএ/

সম্পর্কিত

‘শেখ হাসিনা জীবন্ত কিংবদন্তি’

‘শেখ হাসিনা জীবন্ত কিংবদন্তি’

দেশে দুর্নীতি রয়েছে অস্বীকার করি না: পরিকল্পনামন্ত্রী

দেশে দুর্নীতি রয়েছে অস্বীকার করি না: পরিকল্পনামন্ত্রী

ইনডেমনিটি অ্যাক্টের মতো বিএনপিকেও বাতিলের দরকার ছিল: শিল্পমন্ত্রী

ইনডেমনিটি অ্যাক্টের মতো বিএনপিকেও বাতিলের দরকার ছিল: শিল্পমন্ত্রী

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

দেশে দুর্নীতি রয়েছে অস্বীকার করি না: পরিকল্পনামন্ত্রী

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৪৫

দেশে দুর্নীতি রয়েছে— এটা অস্বীকার করার কিছু নেই বলে মন্তব্য করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। দেশ থেকে দুর্নীতি তাড়াতে হবে হুঁশিয়ারি দিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘দুর্নীতি প্রতিরোধের চাপ অব্যাহত থাকবে। দেশে থেকে বিষঁফোড়া তাড়াতে হবে। কিন্তু কাউকে মারধর করে দুর্নীতি বন্ধ করা যাবে না। বিভিন্ন আইন-কানুন দিয়ে প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।’

সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) জলবায়ু সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ এবং এসডিজি বাস্তবায়ন সংক্রান্ত কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন মন্ত্রী।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) ন্যাশনাল রেচিলিয়েন্ট প্রোগ্রাম (এনপিআর) কর্মসূচির আওতায় তিন দিনের এই প্রশিক্ষণ কর্মশালা সোমবার উদ্বোধন করা হয়।

অনুষ্ঠানে মন্ত্রী বলনে, ‘কাজের মানের সঙ্গে আপস করা যাবে না।  মানসম্মতভাবে কাজ না করলে প্রকল্প বাস্তবায়ন করে লাভ নেই। আমাদের কাজ প্রকল্প আটকানো নয়। কিন্তু প্রকল্প অবশ্যই মানসম্মত হতে হবে। প্রকল্প মানুষের স্বার্থে নিতে হবে। আমরা চাই, দ্রুত কাজ হোক। তবে আইন-কানুনের মধ্যে থেকে কাজ করতে হবে।’ 

পরিকল্পনামন্ত্রী আরও বলেন, ‘জরুরি অবস্থায় আমরা সবাই এক হয়ে কাজ করি। কিন্তু স্বাভাবিক সময়ে কেন সেটি করি না। একই হাত, একই মাথা, একই মানুষ। তাহলে স্বাভাবিক সময়ে কেন জরুরি অবস্থার মতো ভালো কাজ হবে না?’

পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব মুহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরীরর সভাপতিত্বে মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের মহাপরিচালক রাম চন্দ্র দাস, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের মহাপরিচালক আতিকুল হক এবং ইউএন ওমেন বাংলাদেশের প্রতিনিধি গীতাঞ্জলি সিং, বিবিএসের মহাপরিচালক মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ক্লাইমেট চেঞ্জ অ্যান্ড ডিজাস্টার প্রকল্পের পরিচালক রফিকুল ইসলাম। 

মূল প্রবন্ধে রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের কাছে যেসব তথ্য আছে, সেগুলো কাজে লাগতে হবে। এজন্য এই প্রশিক্ষণ কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে। এর মাধ্যমে দু’টি প্রশ্নপত্র চূড়ান্ত করা হবে। যেমন- কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও পরিবেশের নিরাপত্তা বিষয়ে প্রশ্নপত্র চূড়ান্ত করা হবে।’

আতিকুল হক বলেন, ‘সঠিক তথ্য সংগ্রহ, সক্ষমতা বৃদ্ধিতে এই কর্মশালা ভূমিকা রাখবে। আমরা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার জন্য রেসকিউ বোট তৈরি করেছি। নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ডে তা তৈরি হচ্ছে। এই বোটে প্রতিবন্ধী, শিশু ও নারীদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা রয়েছে।’

/ইএইচএস/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

‘শেখ হাসিনা জীবন্ত কিংবদন্তি’

‘শেখ হাসিনা জীবন্ত কিংবদন্তি’

জেনেভা যাচ্ছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

জেনেভা যাচ্ছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ইনডেমনিটি অ্যাক্টের মতো বিএনপিকেও বাতিলের দরকার ছিল: শিল্পমন্ত্রী

ইনডেমনিটি অ্যাক্টের মতো বিএনপিকেও বাতিলের দরকার ছিল: শিল্পমন্ত্রী

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

ইনডেমনিটি অ্যাক্টের মতো বিএনপিকেও বাতিলের দরকার ছিল: শিল্পমন্ত্রী

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:১২

ইনডেমনিটি অ্যাক্টের মতো বিএনপিকেও বাতিল করা দরকার ছিল বলে মন্তব্য করেছেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন। সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবে জয় বাংলা সাংস্কৃতিক ঐক্যজোট ও আওয়ামী শিল্পগোষ্ঠী আয়োজিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন বলেন, ‌‘আমরা আজকে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী পালন করছি। বঙ্গবন্ধু ছিলেন গণতান্ত্রিক নেতা। বিভ্রান্তকারী কোনও দলের সঙ্গে তিনি জড়িত ছিলেন না। তিনি কোনও আন্ডারগ্রাউন্ড পার্টি করতেন না। নির্বাচনের মাধ্যমেই প্রত্যেকটি পরিস্থিতি মোকাবিলা করেছেন তিনি। আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে শেখ হাসিনার সঙ্গে আমরা আছি।’

বিরোধী দল বিএনপির আজকে নির্বাচনে যাওয়ার সাহস নেই মন্তব্য করে শিল্পমন্ত্রী বলেন, ‌‘ক্যান্টনমেন্টের দল বিএনপির বিলুপ্ত হওয়ার কথা ছিল। এটি হত্যাকারীদের দল। তাদের রাজনীতি করতে দেওয়ার কোনও সুযোগই ছিল না। তারা হত্যাকারী, তারা আসামি। আমি আবেদন করবো, জনগণ যেন তাদের প্রত্যাখ্যান করে। তারা ইতিহাসের আস্তাকুঁড়ে চলে যাবে।’

উল্লেখ্য, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারবর্গকে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের শাস্তি এড়াবার ব্যবস্থা প্রদানের জন্য বাংলাদেশে “ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ” আইন প্রণয়ন করা হয়েছিল। ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর তৎকালীন রাষ্ট্রপতি খন্দকার মোশতাক আহমেদ এ ইনডেমনিটি (দায়মুক্তি) অধ্যাদেশ জারি করেন। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর ১৯৯৬ সালের ১২ নভেম্বর সপ্তম জাতীয় সংসদে ইনডেমনিটি আইন বাতিল করা হয়। 

 

/জেডএ/আইএ/

সম্পর্কিত

‘শেখ হাসিনা জীবন্ত কিংবদন্তি’

‘শেখ হাসিনা জীবন্ত কিংবদন্তি’

জেনেভা যাচ্ছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

জেনেভা যাচ্ছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

দেশে দুর্নীতি রয়েছে অস্বীকার করি না: পরিকল্পনামন্ত্রী

দেশে দুর্নীতি রয়েছে অস্বীকার করি না: পরিকল্পনামন্ত্রী

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

‘শেখ হাসিনা জীবন্ত কিংবদন্তি’

‘শেখ হাসিনা জীবন্ত কিংবদন্তি’

জেনেভা যাচ্ছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

জেনেভা যাচ্ছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

দেশে দুর্নীতি রয়েছে অস্বীকার করি না: পরিকল্পনামন্ত্রী

দেশে দুর্নীতি রয়েছে অস্বীকার করি না: পরিকল্পনামন্ত্রী

ইনডেমনিটি অ্যাক্টের মতো বিএনপিকেও বাতিলের দরকার ছিল: শিল্পমন্ত্রী

ইনডেমনিটি অ্যাক্টের মতো বিএনপিকেও বাতিলের দরকার ছিল: শিল্পমন্ত্রী

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে নৌকাবাইচ

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে নৌকাবাইচ

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে আরও জনবল চায় রেল

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে আরও জনবল চায় রেল

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

আসছে মাস্টারপ্ল্যান, বদলে যাবে পর্যটনের চিত্র

আসছে মাস্টারপ্ল্যান, বদলে যাবে পর্যটনের চিত্র

সর্বশেষ

বাংলাদেশের জার্সিতে সাফে খেলা হচ্ছে না কিংসলের

বাংলাদেশের জার্সিতে সাফে খেলা হচ্ছে না কিংসলের

সড়ক চার লেন করা নিয়ে নড়াইলে দুপক্ষের মাঝে উত্তেজনা

সড়ক চার লেন করা নিয়ে নড়াইলে দুপক্ষের মাঝে উত্তেজনা

চানখার পুলে ঢাবি শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার

চানখার পুলে ঢাবি শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার

মাঠকর্মী হিসেবে মাদ্রাসা শিক্ষক ও ইমামদের টার্গেট করতেন রাগীব

মাঠকর্মী হিসেবে মাদ্রাসা শিক্ষক ও ইমামদের টার্গেট করতেন রাগীব

দুবাই যাচ্ছেন বাণিজ্যমন্ত্রী

দুবাই যাচ্ছেন বাণিজ্যমন্ত্রী

© 2021 Bangla Tribune