X
রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

মোশতাকের কেবিনেট সদস্যদের পরিণতি

আপডেট : ১৬ আগস্ট ২০২০, ১৩:৩০

খন্দকার মোশতাক আহমদ স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর তাঁর রক্তের ওপর পা দিয়ে ক্ষমতায় বসেন মোশতাক আহমেদ। বঙ্গবন্ধুর চেয়ার দখল করে দেশের রাষ্ট্রপতি বনে যান তাঁরই মন্ত্রিসভার সদস্য মোশতাক। অবশ্য বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারের হত্যার পরপরই এই খুনের সঙ্গে মোশতাকের জড়িত থাকার বিষয়টিও স্পষ্ট হয়ে যায়। হত্যা পরিকল্পনায় তার সরাসরি জড়িত থাকার বিষয়টি পরবর্তীতে প্রমাণও পাওয়া যায়। মোশতাকের পাশাপাশি বাকশাল সরকারের মন্ত্রিসভার সদস্য তাহের উদ্দিন ঠাকুরেরও সম্পৃক্ততা ছিল বঙ্গবন্ধু হত্যার পেছনে। দু’জনই মূলত একইসঙ্গে পরিকল্পনা করেন। হত্যার পেছনে বঙ্গবন্ধু সরকারের অন্য কোনও সদস্যের সম্পৃক্ততার তথ্য পাওয়া না গেলেও বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভার বেশিরভাগ সদস্যই যোগ দিয়েছিলেন মোশতাকের মন্ত্রিসভায়। মোশতাকের মন্ত্রিসভায় যারা স্থান পেয়েছিলেন, তাদের মধ্যে মাত্র একজন ছিলেন নতুন। বাকিরা সবাই ছিলেন বাকশাল সরকারের মন্ত্রিসভার সদস্য। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট দায়িত্ব নেওয়ার পর  ওই বছরের ৩ নভেম্বর খালেদ মোশাররফ অভ্যুত্থান ঘটালে ৮৩ দিনের মাথায় ৫ নভেম্বর ক্ষমতাচ্যুত হয় মোশতাক সরকার। পরে ৭ নভেম্বর আরেকটি পাল্টা সামরিক অভ্যুত্থানে ক্ষমতায় আসেন জিয়াউর রহমান।

খন্দকার মোশতাক ১২ জন মন্ত্রী এবং ১১ জন প্রতিমন্ত্রী নিয়ে তার মন্ত্রিসভা গঠন করেন। মন্ত্রিসভার ২৩ সদস্যের মধ্যে ২১ জনই ছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বাধীন বাকশালের কেবিনেট সদস্য। তাদের দফতরও খুব একটা পরিবর্তন করা হয়নি। প্রায় সবাইকে আগের দফতর দেওয়া হয়েছিল। বাকশালের মন্ত্রিসভার বাইরে খন্দকার মোশতাক কেবলমাত্র একজনকে তার মন্ত্রিসভায় নতুন করে যুক্ত করেন। এছাড়া মোশতাকের মন্ত্রিসভার প্রতিমন্ত্রী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভার সদস্য ছিলেন না, ছিলেন জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ। মোশতাক ক্ষমতা গ্রহণের সময় প্রধানমন্ত্রীর পদ বিলুপ্ত করা হয়। ফলে তার সরকারে কোনও প্রধানমন্ত্রী ছিলেন না। বাংলাদেশে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট থেকে ১৯৭৮ সালের ২৯ জুন পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর পদ বিলুপ্ত ছিল।

বঙ্গবন্ধুর বাকশাল মন্ত্রিসভার বাণিজ্যমন্ত্রী ও বাকশালের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের ৪ নম্বর সদস্য খন্দকার মোশতাক তার কেবিনেটের রাষ্ট্রপতি হয়ে উপরাষ্ট্রপতি করেন বঙ্গবন্ধু সরকারের ভূমিমন্ত্রী মোহাম্মদ উল্লাহকে।

বঙ্গবন্ধু সরকারের ডেপুটি স্পিকার আব্দুল মালেককে স্পিকার মনোনীত করেন খন্দকার মোশতাক। এছাড়া বাকশালের বিরোধিতাকারী মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক আতাউল গনি ওসমানীকে মন্ত্রীর মর্যাদায় নিরাপত্তা উপদেষ্টা পদে নিয়োগ দেন মোশতাক।

বাকশালের মন্ত্রিসভার সদস্যদের মধ্যে বেশিরভাগই চাপের মুখে খন্দকার মোশতাকের মন্ত্রিসভায় যোগ দেন বলে কথিত রয়েছে। অবশ্য দু-একজন স্বেচ্ছায় ওই মন্ত্রিসভায় যোগ দেন বলেও শোনা যায়।

এদিকে বাকশালের মন্ত্রিসভার ২৯ সদস্যের মধ্যে বন্যা নিয়ন্ত্রণ, পানিসম্পদ উন্নয়ন ও বিদ্যুৎ শক্তি বিষয়ক মন্ত্রী আবদুর রব সেরনিয়াবাতকে ১৫ আগস্ট ঘাতকরা হত্যা করে। মন্ত্রিসভার অন্য সদস্যের মধ্যে জাতীয় তিন নেতা উপ-রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রী এম মনসুর আলী, শিল্পমন্ত্রী এইচ এম কামারুজ্জামান, কৃষিমন্ত্রী আব্দুস সামাদ আজাদ, তথ্য ও বেতার মন্ত্রী এম কোরবান আলী এবং ওই সময় বিদেশে থাকা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. কামাল হোসেন মোশতাকের মন্ত্রিসভায় যোগ দেননি। প্রতিমন্ত্রীদের মধ্যে এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী আব্দুল মোমিন তালুকদার মোশতাকের মন্ত্রিসভায় যোগ দেননি। এদের  মধ্যে সৈয়দ নজরুল ইসলাম, ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী ও কামারুজ্জামানকে মোশতাকের ক্ষমতাচ্যুতির দুই দিন আগে কারাভ্যন্তরে হত্যা করা হয়। তাদের সঙ্গে হত্যা করা হয় জাতীয় চার নেতার অন্যতম এবং বাকশাল পূর্ববর্তী সরকারের অর্থমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদকেও। মন্ত্রিসভায় যেতে অস্বীকৃতি জানালে বাকশালের মন্ত্রীদের খন্দকার মোশতাকের শাসনামল বা তারপরে রাজনৈতিক কারণে কারাবরণ করতে হয়। এদিকে মোশতাকের মন্ত্রিসভায় যোগ দেওয়া বেশ কয়েকজন সদস্য মোশতাকের পতনের পর আবারও আওয়ামী লীগে ফেরত আসেন। তারা দলের গুরুত্বপূর্ণ পদ পাওয়ার পাশাপাশি দলীয় মনোনয়ন পেয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। আবার কেউ কেউ জিয়াউর রহমান ও হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মন্ত্রিসভার সদস্য হন। দু'একজন রাজনীতি থেকে ইস্তফা দেন।

বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর তাঁর মন্ত্রিসভার বাণিজ্যমন্ত্রী ও বাকশালের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য খন্দকার মোশতাক আহমদ নিজেকে রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করেন। তবে, ক্ষমতা গ্রহণের ৮৩ দিনের মাথায় তার পতন হয়। এরপর কিছুদিন বন্দি থাকলেও ১৯৭৬ সালে কারাগার থেকে মুক্তি পান। এ সময় ডেমোক্রেটিক লীগ নামে নতুন একটি দল গঠন করলেও তাতে জনগণের সাড়া মেলেনি। পরে তিনি আরও একাধিকবার জেলে যান। দুর্নীতির মামলায় ৫ বছরের সাজাও হয় তার। ১৯৯৬ সালের ৫ মার্চ তিনি মারা যান।

মোহাম্মদউল্লাহকে ১৯৭৩ সালে রাষ্ট্রপতি করেছিলেন বঙ্গবন্ধু। তার স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে প্রবর্তন হয়েছিল বাকশাল ব্যবস্থা। বাকশাল ব্যবস্থার অধীনে বঙ্গবন্ধু রাষ্ট্রপতি হলে মোহাম্মদউল্লাহকে বাকশাল সরকারের ভূমিমন্ত্রী হিসেবে নিজের মন্ত্রিসভায় স্থান দেন জাতির পিতা। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পরপরই খন্দকার মোশতাকের সরকারে যোগ দেন তিনি। মোশতাক তাকে উপরাষ্ট্রপতি করেন। তিনি জিয়ার সরকারেও মন্ত্রী ছিলেন। তিনি ১৯৯১ সালের নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়নে সংসদ সদস্যও নির্বাচিত হন।

১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ডের মাত্র সপ্তাহখানেক আগে ৮ আগস্ট বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরীকে বাকশালের মন্ত্রিসভায় স্থান দেওয়া হয়। তাকে এর আগে রাষ্ট্রপতিও বানিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর মোশতাকের মন্ত্রিসভায়ও যোগ দেন তিনি। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান। মোশতাকের পতনের পর তিনি রাজনীতিতে আর সক্রিয় ছিলেন না। ১৯৮৫ সালে তিনি জাতিসংঘ মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

একাত্তরে মুজিবনগর সরকারের ঘোষণাপত্র পাঠ করা অধ্যাপক ইউসুফ আলী বাকশাল সরকারের শ্রম, সমাজ কল্যাণ এবং সংস্কৃতি ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান। ১৫ আগস্টের পর তিনি আবারও খুশি মনে যোগ দিয়েছেন খুনি মোশতাকের সরকারে। দায়িত্ব পান পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের। মোশতাকের পতনের পরে তিনি জিয়ার আমলেও মন্ত্রী হন। এরশাদের আমলেও মন্ত্রী ছিলেন তিনি। পরে তিনি আবারও বিএনপির রাজনীতিতে সক্রিয় হন।

বঙ্গবন্ধু সরকারের আইনমন্ত্রী  মনোরঞ্জন ধরও (ময়মনসিংহ) আইনমন্ত্রী হিসেবে মোশতাকের মন্ত্রিসভায় যোগ দেন। তবে মোশতাকের পতনের পর ১৯৭৮ সালে তিনি আওয়ামী লীগে ফিরে আসেন।

বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভা থেকে তাজউদ্দীন আহমদ সরে দাঁড়ালে অর্থমন্ত্রী হন শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. আজিজুর রহমান মল্লিক। তিনি বাকশাল সরকারেও অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। অন্যদের মতো অধ্যাপক মল্লিকও মোশতাকের মন্ত্রিসভায় যোগ দিয়ে একই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান। অবশ্য মোশতাকের পতনের পর তিনি ফের শিক্ষকতা পেশায় ফিরে যান, যোগ দেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে।

স্বাধীন বাংলাদেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ভিসি ড. মোজাফ্ফর আহমদ চৌধুরীকে বাকশাল সরকারে শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব দেন বঙ্গবন্ধু। শিক্ষাবিদ মোজফ্ফর আহমদ চৌধুরীও মোশতাকের মন্ত্রিসভার সদস্য হিসেবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান। মোশতাকের পতনের পর শিক্ষকতা পেশায় ফিরে আসেন। তিনি ১৯৭৮ সালে মারা যান।

বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভার প্রবীণ সদস্য এলজিআরডি মন্ত্রী ফণী ভূষণ মজুমদার (মাদারীপুর) মোশতাকের মন্ত্রিসভায়ও একই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান। জানা যায়, তাকে হাসপাতালে  চিকিৎসাধীন অবস্থা থেকে সরাসরি নিয়ে যাওয়া হয় মোশতাকের মন্ত্রিসভায় শপথ নেওয়ার জন্য। মোশতাকের পতনের পর তিনি ১৯৭৮ সালে ফের আওয়ামী লীগে ফিরে আসেন। এর আগে তিনি ১৯৭৭ সালে গ্রেফতারও হন। তিনি ১৯৭৯ সালে আওয়ামী লীগের হয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নির্বাচিত হন।

বঙ্গবন্ধু সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী আবদুল মান্নান (টাঙ্গাইল) মোশতাকের মন্ত্রিসভায় যোগ দেন। দায়িত্ব পান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের। মোশতাকের পরে তিনি ১৯৭৮ সালে আওয়ামী লীগে ফেরত আসেন। ১৯৯৬ সালে তিনি আওয়ামী লীগের টিকিটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০২ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ছিলেন। তিনি ২০০৫ সালে মারা যান।

সোহরাব হোসেন (মাগুরা) ছিলেন বঙ্গবন্ধু সরকারের পূর্ত মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী। মোশতাকের মন্ত্রিসভায়ও তিনি একই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান। মোশতাক সরকারের পতনের পরে তিনি আওয়ামী লীগে (মিজান) যোগ দেন। ১৯৭৯ সালে সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে পরাজিত হন। ১৯৯৮ সালে তিনি মারা যান।

বঙ্গবন্ধু সরকারের খাদ্য ও পুনর্বাসন মন্ত্রী আবদুল মোমিন (নেত্রকোনা) মোশতাকের খাদ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। তিনি ১৯৭৮ সালে আওয়ামী লীগে ফেরত আসেন। ২০০২ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ছিলেন। ১৯৯৬ ও ২০০১ সালের নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

আসাদুজ্জামান খান (কিশোরগঞ্জ) ছিলেন বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভার পাট মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী। তিনিও যোগ দেন বাকশালের মন্ত্রিসভায়। পান নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব। মোশতাকের পতনের পর তিনি ফিরে আসেন আওয়ামী লীগে। ১৯৭৯ সালে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। জাতীয় সংসদে বিরোধীদলীয় নেতাও নির্বাচিত হন। ১৯৯২ সালে তিনি মারা যান।

বাকশাল সরকারের ডাক, তার ও টেলিযোযোগ প্রতিমন্ত্রী সাবেক ছাত্রলীগ নেতা কে এম ওবায়দুর রহমান (ফরিদপুর) মোশতাকের মন্ত্রিসভায় যোগ দিয়ে একই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান। মোশতাকের পতনের পর তিনি জিয়ার মন্ত্রিসভায় যোগ দেন এবং বিএনপির রাজনীতি শুরু করেন। তিনি খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন বিএনপির মন্ত্রিসভারও সদস্য হয়েছিলেন। জেল হত্যা মামলায় তিনি গ্রেফতার হয়েছিলেন। পরে বিএনপির আমলে রায় হওয়া মামলায় খালাস পান।

দেওয়ান ফরিদ গাজী (সিলেট)  বাকশালের অভ্যন্তরীণ বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। মোশতাকের মন্ত্রিসভায়ও তিনি একই পদ মর্যাদা পান। পরে তিনি আওয়ামী লীগে ফেরত আসেন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ছিলেন। এ সময় তিনি একাধিকবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

বঙ্গবন্ধুর শাসনকালে জাতীয় সংসদের চিফ হুইফ ছিলেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন (মুন্সীগঞ্জ)। মোশতাকের মন্ত্রিসভায় প্রতিমন্ত্রী হিসেবে ভূমি ও বিমান মন্ত্রকের দায়িত্ব পান। পরবর্তী সময় এরশাদ সরকারের মন্ত্রী হন। সর্বশেষ তিনি বিএনপিতে যোগ দেন। জেল হত্যা মামলার আসামি শাহ মোয়াজ্জেম বিএনপির আমলে রায় হওয়া এ মামলায় খালাস পান।

অধ্যাপক নুরুল ইসলাম চৌধুরী (চট্টগ্রাম) ছিলেন বাকশালের শিল্প ও প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী। মোশতাকের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে একই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান তিনি। জেল হত্যা মামলায় আসামি ছিলেন। বিএনপির আমলে ২০০৪ সালে এ মামলার রায় হলে তিনি বেকসুর খালাস পান।

তাহের উদ্দিন ঠাকুর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) বাকশালের তথ্য ও বেতার প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। মোশতাকের মন্ত্রিসভায়ও একই মর্যাদা ও মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান। পরে তিনি জিয়া ও এরশাদ সরকারের সুবিধাভোগী ছিলেন। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার সঙ্গে তাহের ঠাকুরের  সম্পৃক্ততা ছিল। জেল হত্যা মামলায় তিনি গ্রেফতার হয়েছিলেন। তাহের ঠাকুর এ মামলা থেকে খালাস পান।

মোসলেমউদ্দিন খান হাবু মিয়া (মানিকগঞ্জ) বাকশালের পাট প্রতিমন্ত্রী নিযুক্ত হন। মোশতাকের মন্ত্রিসভায়ও পাট প্রতিমন্ত্রী হন। মোশতাকের পতনের পর ১৯৭৮ সালে আওয়ামী লীগে ফিরে আসেন। পরবর্তী সময় মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন।

বাকশালের রেল ও যোগোযোগ প্রতিমন্ত্রী ছিলেন নুরুল ইসলাম মঞ্জুর (পিরোজপুর)। অবশ্য বাকশাল সরকার গঠনের ছয় মাসের মাথায় ১৯৭৫ সালের ২১ জুলাই তাকে মন্ত্রিসভা থেকে অপসারণ করা হয়। অবশ্য খন্দকার মোশতাক তার মন্ত্রিসভায় মঞ্জুরকে জায়গা দেন। দায়িত্ব পান একই মন্ত্রণালয়ের। পরবর্তী সময়ে তিনি বিএনপির রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন। জিয়া সরকারে মন্ত্রীর দায়িত্ব পান। তিনি ১৯৯৬ সালেও বিএনপির প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

মঞ্জুরের অপসারণের পর সৈয়দ আলতাফ হোসেনকে (কুষ্টিয়া) রেল প্রতিমন্ত্রী করেন বঙ্গবন্ধু। ন্যাপ নেতা আলতাফ বাকশাল গঠনের সময় দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বাকশালে যোগ দিয়ে কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা হন। অন্যদের মতো আলতাফ হোসেনও যোগ দেন মোশতাকের মন্ত্রিসভায়। দায়িত্ব পান একই মন্ত্রণালয়ের। মোশতাকের পতনের পর তিনি ন্যাপে ফিরে আসেন। মোজাফফর ন্যাপের একাংশের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

বাকশালের সাহায্য ও পুনর্বাসন প্রতিমন্ত্রী ছিলেন ডা. ক্ষীতিশ চন্দ্র মণ্ডল (পিরোজপুর)। তিনি মোশতাকের মন্ত্রিসভায়ও একই মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হন। ১৯৭৮ সালে আওয়ামী লীগে ফেরত এবং পরবর্তী সময় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত। পরে ডা. ক্ষিতিশ জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়ে মন্ত্রী হন।

বাকশালের বন, মৎস্য ও পশুপালন প্রতিমন্ত্রী রিয়াজউদ্দিন আহমদ ভোলা মিয়া (রংপুর) মোশতাক সরকারের একই মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হন। মোশতাকের পতনের পর ভোলা মিয়া বিএনপি হয়ে জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়ে মন্ত্রী হন।

মোশতাকের মন্ত্রসভায় একমাত্র নতুন সদস্য হিসেবে যুক্ত হন মোমিন উদ্দিন আহমদ (খুলনা)। প্রতিমন্ত্রী হিসেবে তিনি পান যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের। পরে তিনি বিএনপি হয়ে জাতীয় পার্টিতে যোগ দেন। এরশাদ সরকারের শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেন।

বঙ্গবন্ধু বাকশাল গঠনের সিদ্ধান্ত নিলে এর প্রতিবাদ জানান মুক্তিবাহিনীর সর্বাধিনায়কের দায়িত্ব পালন করা জেনারেল এম এ জি ওসমানী। প্রতিবাদে জাতীয় সংসদ সদস্যের পদ থেকে পদত্যাগ করেন তিনি। কিন্তু সেই ওসমানীই আবার মোশতাকের নিরাপত্তা উপদেষ্টার পদ গ্রহণ করেন।

খন্দকার মোশতাক সরকারের পক্ষে আন্তর্জাতিক সমর্থন আদায়ে মহিউদ্দীন আহমদ বিশেষ দূত হন। মোশতাকের পতনের পরে মহিউদ্দীন আহমদ আওয়ামী লীগে ফিরে আসেন। ১৯৮৩ সালের ৮ আগস্ট তিনি দল থেকে  বহিষ্কার হলে বাকশাল গঠন করে তার চেয়ারম্যান হন। ১৯৯৩ সালে বাকশাল আওয়ামী লীগে অন্তর্ভুক্ত হলে তাকে প্রেসিডিয়াম সদস্য করা হয়।

মোশতাক ক্ষমতায় এসে আগের জাতীয় সংসদই বহাল রেখেছিলেন। স্পিকার ছিলেন আবদুল মালেক উকিল। স্পিকার হিসেবে বিদেশে স্পিকারদের একটি সম্মেলনেও যোগ দেন তিনি। পরে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় হন। মালেক উকিল আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন শেখ হাসিনা নেতৃত্বে আসার আগ পর্যন্ত।

বঙ্গবন্ধুর সরকারের সময় সংসদে হুইপ ছিলেন আবদুর রউফ (নীলফামারী)। ওই সরকারের চিফ হুইপ শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনকে মোশতাক প্রতিমন্ত্রী করার পর শূন্য হওয়া চিফ হুইপের পদে আবদুর রউফকে নিয়োগ দেওয়া হয়। পরে অন্যদের মত আবদুর রউফও আওয়ামী লীগে ফিরে আসেন। তিনি ১৯৮৬ ও ১৯৯১ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তবে পরে তিনি ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন গণফোরামে যুক্ত হন। তিনি গণফোরামের সভাপতিমণ্ডলির সদস্য থাকা অবস্থায় ২০১১ সালে মৃত্যু বরণ করেন।

বঙ্গবন্ধুর পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. কামাল হোসেন ১৫ আগস্টের আগে সরকারি কাজে বিদেশ সফরে ছিলেন। জাতির পিতার হত্যার খবর পাওয়ার পর তিনি দেশে আসতে অস্বীকৃতি জানান। অভিযোগ আছে, বঙ্গবন্ধুর জীবিত দুই কন্যার একজন তখন ড. কামাল হোসেনকে লন্ডনে মোশতাক সরকারের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করতে বললেও তখন তা করেননি ড. কামাল। অবশ্য দেশে ফিরে তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন। দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য হন। ১৯৯১ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পরাজয়ের পরে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন তিনি। পরে দল ত্যাগ করে নিজেই নতুন দল গঠন করেন। বর্তমানে তিনি গণফোরামের সভাপতি।

বাকশাল সরকারের কৃষি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলেন আবদুস সামাদ আজাদ (সিলেট)। তিনি মোশতাকের সরকারে যোগ দিতে অস্বীকৃতি জানান। যার কারণে আওয়ামী লীগের অন্য নেতাদের মতো তাকেও কারাগারে যেতে হয়। ১৯৭৮ সালে মুক্তি পাওয়ার পরই তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় হন। পরে তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়নে একাধিকবার এমপি নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালে তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৫ সালের ২৭ এপ্রিল ঢাকায় তার মৃত্যু হয়।

মোশতাক সরকারে যোগ দিতে অস্বীকৃতি  জানানো বাকশাল মন্ত্রিসভার সদস্য এম কোরবান আলী বঙ্গবন্ধুর নৃশংস হত্যাকাণ্ডের পর অন্যান্য আওয়ামী লীগ নেতার সঙ্গে  বাকশালের তথ্য ও বেতার মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত এই মন্ত্রী গ্রেফতার হন এবং প্রায় দুই বছর কারান্তরীণ থাকেন। কোরবান আলী ১৯৭৯ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হিসেবে মুন্সিগঞ্জ-২ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পরাজিত হন। ১৯৮১ সালে তিনি আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নির্বাচিত হন। এম কোরবান আলী ১৯৮৪ সালে এরশাদের মন্ত্রিসভায় যোগ দেন। তিনি প্রথমে পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয়ের এবং পরে পূর্ত ও নগর উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী ছিলেন। ১৯৯০ সালের ২৩ জুলাই ঢাকায় তার মৃত্যু হয়।

বাকশালের প্রতিমন্ত্রীদের মধ্যে একমাত্র আবদুল মোমিন তালুকদার (সিরাজগঞ্জ) মোশতাকের মন্ত্রিসভায় যাননি।  তিনি বাকশালের স্থানীয় সরকার বিভাগের প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। পরবর্তীতে তিনি গ্রেফতার হন। ১৯৭৮ সালে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় হন। ‍তিনি শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ছিলেন। পরে দলের উপদেষ্টা হন। ১৯৯৫ সালের ১৫ আগস্ট তিনি মারা যান।

আরও পড়ুন- 

খন্দকার মোশতাকের উত্থান-পতন 
বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা হয় যেভাবে

বঙ্গবন্ধুর খুনিরা কে কোথায়

/এপিএইচ/আপ-এফএস/এমএমজে/

সম্পর্কিত

স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ফের টিকা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ফের টিকা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

বনভূমিতে প্রশিক্ষণ অ্যাকাডেমি নয়: সংসদীয় কমিটি

বনভূমিতে প্রশিক্ষণ অ্যাকাডেমি নয়: সংসদীয় কমিটি

‘ভাসানচর নিয়ে সমঝোতা চুক্তির আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে’

‘ভাসানচর নিয়ে সমঝোতা চুক্তির আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে’

না জানিয়ে পরিদর্শনে যাবো: শিক্ষামন্ত্রী

না জানিয়ে পরিদর্শনে যাবো: শিক্ষামন্ত্রী

স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ফের টিকা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৫৯

দেশে আবারও স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে টিকাদান কার্যক্রম চালু করতে যাচ্ছে সরকার। সপ্তাহের নির্ধারিত একদিন এ সুযোগ থাকবে।

রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম ফেসবুক লাইভে এসে এ কথা জানান।

এ সময়ে তিনি টিকাদান কার্যক্রম নিয়ে বিস্তারিত পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন। জানান, প্রতি সপ্তাহে নির্ধারিত একদিনের ভিত্তিতে নিবন্ধিত-অনিবন্ধিত এবং ষাটোর্ধ্ব জনগোষ্ঠীকে স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে টিকা নিতে বলা হবে।

তিনি বলেন, ‘টিকা দেওয়ার সময় যারা বয়স্ক, তারা যেন পান—এ বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে।’

‘আমাদের পর্যবেক্ষণ বা পর্যালোচনায় দেখা গেছে, ষাটোর্ধ্ব জনগোষ্ঠী বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সংক্রমিত হয়েছেন এবং তাদের মধ্যে মৃত্যুর সংখ্যাও বেশি’ মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘এটা মাথায় রেখে টিকাদান কার্যক্রমে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।’

অধ্যাপক খুরশীদ আলম বলেন, ‘আমাদের হাতে পর্যাপ্ত টিকা মজুত রয়েছে। ভবিষ্যতে প্রয়োজনীয় টিকা পাওয়ার উৎস নিশ্চিত করা হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় প্রতি মাসে ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে এক কোটিসহ প্রায় দুই কোটির মতো টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আর এ জন্য মাঠ পর্যায়ের টিকাদান কর্মসূচি আরও কীভাবে বাড়ানো যায় বা সম্প্রসারণ করানো যায়, সে বিষয়ে সচেষ্ট রয়েছি।’

মোহাম্মদ খুরশীদ আলম বলেন, ‘ইতোমধ্যে দেশে স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়া হয়েছে, আর তাই সেসব স্কুল কলেজে আগে যেখানে টিকাদান কর্মসূচি চলতো, বিশেষত স্কুল, সেই জায়গাগুলো থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হয়েছে। এ অবস্থায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পাশাপাশি উপজেলা অডিটোরিয়ামে এবং উপজেলার যেকোনও বড় হলরুমে টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করবো।’

তিনি আরও বলেন, ‘ইউনিয়ন পর্যায়ে নিয়মিত টিকাদানের পাশাপাশি স্বাস্থ্য সহকারীদের মাধ্যমে ইউনিয়ন সাব-সেন্টার, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে টিকা দেওয়া হবে। সপ্তাহের যে দুদিন নিয়মিত টিকাদান কার্যক্রম থাকবে না, এমন দুই দিন করোনাভাইরাসের টিকা দেওয়া হবে।

উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনার কর্মকর্তারা কোভিড-১৯-এর টিকাদান কেন্দ্র হিসেবে একটি ইউনিয়ন সাব-সেন্টার, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন করবেন। টিকা প্রত্যাশীরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে টিকার জন্য নিবন্ধন করবেন এবং এসএমএস পাওয়া সাপেক্ষে নির্ধারিত কেন্দ্র থেকে টিকা নেবেন বলে জানান তিনি।

/জেএ/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

বনভূমিতে প্রশিক্ষণ অ্যাকাডেমি নয়: সংসদীয় কমিটি

বনভূমিতে প্রশিক্ষণ অ্যাকাডেমি নয়: সংসদীয় কমিটি

মৃত্যু বাড়লেও কমেছে শনাক্তের হার

মৃত্যু বাড়লেও কমেছে শনাক্তের হার

‘ভাসানচর নিয়ে সমঝোতা চুক্তির আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে’

‘ভাসানচর নিয়ে সমঝোতা চুক্তির আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে’

না জানিয়ে পরিদর্শনে যাবো: শিক্ষামন্ত্রী

না জানিয়ে পরিদর্শনে যাবো: শিক্ষামন্ত্রী

বনভূমিতে প্রশিক্ষণ অ্যাকাডেমি নয়: সংসদীয় কমিটি

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৫৬

কক্সবাজারে বন বিভাগের ৭০০ একর বনভূমিতে সরকারি কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ অ্যাকাডেমি নির্মাণের বিরোধিতা করেছে সংসদীয় কমিটি। ওই জায়গায় যাতে প্রকল্পটি গ্রহণ না করা হয়, কমিটি সেই ব্যবস্থা করতে বলেছে।

রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ বিষয়ে আলোচনা হয়। সংসদীয় কমিটি বলেছে, সংরক্ষিত ওই বিপুল বনভূমি কীভাবে বরাদ্দ দেওয়া হলো, তা খতিয়ে দেখা হবে।

বন অধিদফতর বলছে, বনভূমির মধ্যে প্রস্তাবিত প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে পরিবেশ ও প্রতিবেশ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।  

সংসদীয় কমিটির সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা যেখানে বেদখলে থাকা বনভূমি উদ্ধার করছি। সেখানে সরকারের আরেকটি সংস্থা যদি জমি নিয়ে নেয়, এটা তো ঠিক নয়।’

সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য আরেকটি প্রশিক্ষণ অ্যাকাডেমি নির্মাণ করতে সংরক্ষিত বনভূমির ৭০০ একর জায়গা বরাদ্দ দেওয়ার খবর বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয়। প্রশিক্ষণ অ্যাকাডেমি নির্মাণের জন্য ওই জমি এক টাকা প্রতীকী মূল্যে  জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সংলগ্ন ঝিলংজা বনভূমির ওই এলাকা প্রতিবেশগতভাবে সংকটাপন্ন।

এর আগে ২০১৮ সালে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ‘বঙ্গবন্ধু অ্যাকাডেমি অব পাবলিক অ্যাডমিনিস্টেশন’ নির্মাণের জন্য পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের অধীন পরিবেশ অধিদফতরের কাছে অনাপত্তিপত্র চায়। সংস্থাটি ওই বছরই বিভিন্ন শর্তে অনাপত্তিপত্র দেয়।

ওই এলাকাকে ১৯৩৫ সালে সংরক্ষিত বন হিসেবে ঘোষণা করা হয়। এরপর ১৯৮০ সালে এটাকে জাতীয় উদ্যান ঘোষণা করা হয়। সর্বশেষ ১৯৯৯ সালে প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকা ঘোষণা করা হয়।

২০০১ সালে দেশের বনভূমির যে তালিকা করা হয়, তাতেও ঝিলংজা মৌজা বনভূমি হিসেবে উল্লেখ আছে।

সংসদীয় কমিটিতে মন্ত্রণালয়ের দেওয়া এক প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, ওই জমিতে জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাব মোকাবিলায় উপকূলীয় এলাকায় বনায়ন প্রকল্পের আওতায় সামাজিক বনায়নের মাধ্যমে ১০০ একর সৃজিত বাগান রয়েছে। ২০-২০০ ফুট পর্যন্ত বিভিন্ন উচ্চতার পাহাড় রয়েছে। প্রাকৃতিকভাবে জন্মানো গর্জন, চাপালিশ, তেলসুরসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রয়েছে। ওই এলাকা হাতি, বানর, বন্য শুকর, বিভিন্ন প্রজাতির সাপ ও পাখির আবাসস্থল।

মন্ত্রণালয় বলেছে, ওই এলাকায় প্রস্তাবিত প্রতিষ্ঠান স্থাপন করা হলে পরিবেশ ও প্রতিবেশ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এই জমি বরাদ্দ নিয়েছে ভূমি মন্ত্রণালয় থেকে। পরিবেশ সংরক্ষণ আইন অনুযায়ী, প্রতিবেশগতভাবে সংকটাপন্ন এ বনভূমিতে কোনও ধরনের স্থাপনা নির্মাণ করা নিষেধ।

সংসদীয় কমিটির বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘আমরা বোঝার চেষ্টা করছি— এটা কীভাবে হলো। যদি কেবল জমির দাগ ও খতিয়ান দেওয়া হয় এবং ভূমির আকার ও প্রকৃত বর্ণনা না করে, সেটা হতে পারে কিনা। আমরা মনে করি, সেটাই হয়েছে। এটা আমরা দেখবো। প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে যে অনুমতি এসেছে, সেই দফতরও হয়তো এই বিষয়টি পুরোপুরি জানে না।’

তিনি বলেন, ‘এই জমির বিষয়ে আদালতের নির্দেশনা রয়েছে। সংরক্ষিত বন হিসেবে এই জমির মালিক জেলা প্রশাসন। আর এ জমি কোনও অবস্থাতেই বন্দোবস্তযোগ্য নয় বলে রিমার্ক থাকে। অর্থাৎ, এই জমি কোনও অবস্থাতেই বন্দোবস্ত দেওয়া যাবে না। কাজেই এই জমি বন্দোবস্তো দেওয়ার কোনওি সুযোগ নেই।’

সভাপতি আরও বলেন, ‘জনপ্রশাসনের দক্ষতা ও সক্ষমতা বৃদ্ধিকে আমরা সমর্থন করি। তবে ওই জায়গায় এটা হওয়ার কোনও সুযোগ নেই। কারণ, আমাদের বিধি-নিয়ম এমনকি এটা সংবিধান পরিপন্থী। এটা অন্য জায়গায় হোক।’

ওই প্রকল্প চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়ার জন্য পরিবেশ মন্ত্রণালয়ে একটি চিঠি এসেছে জানিয়ে করে সভাপতি বলেন, ‘আমরা সেই চূড়ান্ত অনুমতি দিতে না করেছি। পাশাপাশি সঠিক তথ্য তুলে ধরতে বলেছি। আমরা চাই, বিষয়টি যেন পুনর্বিবেচনা করা হয়।’

বিষয়টি নিয়ে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রণালয় ভূমি মন্ত্রণালয়কে চিঠি পাঠাবে বলেও তিনি জানান।

বনভূমির ওই জমি বরাদ্দ দেওয়া ‘বিধিসম্মত’ হয়নি উল্লেখ করে সাবের হোসেন বলেন, ‘যেহেতু বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এখন তারা প্রকল্প চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের অনাপত্তিপত্র চেয়েছে। আমরা এটা না দিতে বলেছি। পরিবেশমন্ত্রীও আমাদের সঙ্গে একমত।’

বনবিভাগ থেকে আগেই আপত্তি দেওয়া হয়েছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বন বিভাগ থেকে আগেই বলেছিল— এটা দেওয়া যাবে না। কিন্তু পরিবেশ অধিদফতর থেকে একটা ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছিল। তবে তারা জানতো না জমির ধরন কী। তাদের কাছে হয়তো দাগ ও খতিয়ান নম্বর দেওয়া হয়েছে।’

বৈঠকের পর সংসদ সচিবালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কক্সবাজারে ওই বনাঞ্চলের ৭০০ একর জায়গায় জনপ্রশাসন অ্যাকাডেমি নির্মাণের বিষয়ে মন্ত্রণালয়কে পর্যালোচনা করার সুপারিশ করা হয়।

এছড়া কমিটি ২০২১-২০২২ অর্থবছরে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বিভিন্ন প্রকল্পের বাস্তবায়নের কাজ দ্রুত সম্পন্ন করার সুপারিশ করে।

সাবের চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে কমিটি সদস্য পরিবেশন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন, উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার, নাজিম উদ্দিন আহমেদ, তানভীর শাকিল জয়, খোদেজা নাসরিন আক্তার হোসেন এবং মো. শাহীন চাকলাদার বৈঠকে অংশ নেন।

/ইএইচএস/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ফের টিকা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ফের টিকা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

‘ভাসানচর নিয়ে সমঝোতা চুক্তির আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে’

‘ভাসানচর নিয়ে সমঝোতা চুক্তির আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে’

না জানিয়ে পরিদর্শনে যাবো: শিক্ষামন্ত্রী

না জানিয়ে পরিদর্শনে যাবো: শিক্ষামন্ত্রী

পণ্য পরিবহনে ধর্মঘটের কর্মসূচি, জানে না মন্ত্রণালয়

পণ্য পরিবহনে ধর্মঘটের কর্মসূচি, জানে না মন্ত্রণালয়

৫৯টি আইপি টিভি বন্ধ করলো বিটিআরসি

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৪২

টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি ৫৯টি অবৈধ ও অনিবন্ধিত আইপি (ইন্টারনেট প্রোটোকল) টিভি বন্ধ করেছে। রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে বিটিআরসি।

আইপিটিভি সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় স্পষ্ট করতে এই বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয় বলে জানিয়েছে বিটিআরসি। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, টেলিভিশনে প্রচারিত কনটেন্ট ইন্টারনেট প্রটোকল নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে সম্প্রচার করার প্রক্রিয়া হলো আইপিটিভি। বিটিআরসি কেবল লাইসেন্সধারী আইএসপি প্রতিষ্ঠানগুলোকে আইপিভিত্তিক ডাটা সার্ভিসের (স্ট্রিমিং সেবা, আইপিটিভি, ভিডিও অন ডিমান্ড) অনুমোদন দিয়ে থাকে।

বিটিআরসির কাছ থেকে আইপিটিভি সেবার অনুমোদনপ্রাপ্ত আইএসপি অপারেটররা ইন্টারনেটের মাধ্যমে তথ্য মন্ত্রণালয় অনুমোদিত স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেলের সম্প্রচার শুধু তাদের গ্রাহকদেরই দেখাতে পারবে। তবে প্রতিটি চ্যানেলকে প্রোগ্রাম বা কন্টেন্ট প্রচারে প্রয়োজনীয় চুক্তি, অনুমোদন বা ছাড়পত্র সংশ্লিষ্ট প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান থেকে গ্রহণ করতে হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, সাম্প্রতিককালে লক্ষ করা যাচ্ছে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী অবৈধভাবে ডোমেইন কিনে বা ফেসবুক ও ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে জনগণকে আইপিটিভি প্রদর্শন করছে, যার কোনও বৈধ অনুমোদন নেই। অনুমোদন ছাড়া উক্ত সম্প্রচার অনৈতিক এবং টেলিযোগাযোগ আইনের লঙ্ঘন। যেসব আইপিটিভি বন্ধ করা হয়েছে সেসবের কার্যক্রমের সঙ্গে বিটিআরসির আইপিভিত্তিক ডাটা সার্ভিসের জন্য অনুমোদনপ্রাপ্ত আইএসপি প্রতিষ্ঠানগুলোর কোনও সংশ্লিষ্টতা নেই।

 

/এইচএএইচ/এমআর/এমওএফ/

মৃত্যু বাড়লেও কমেছে শনাক্তের হার

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:১৭

করোনা আক্রান্ত হয়ে নতুন শনাক্ত ও মৃত্যু বেড়েছে। তবে কমেছে দৈনিক শনাক্তের হার। এ সময় করোনায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ৩৮৩ জন, যা গতকাল (শনিবার) ছিল এক হাজার ১৯০ জন। একই সময়ে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪৩ জন, যা গতকাল ছিল ৩৫ জন। 

তবে নতুন শনাক্ত ও মৃত্যু বাড়লেও গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় শনাক্তের হার তার আগের ২৪ ঘণ্টার চেয়ে কম। এ সময়ে করোনায় রোগী শনাক্তের হার পাঁচ দশমিক ৬২ শতাংশ, আর গতকাল ছিল ছয় দশমিক পাঁচ শতাংশ। 

রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন এক হাজার ৩৮৩ জনকে নিয়ে দেশে সরকারি হিসাবে এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হলেন ১৫ লাখ ৪২ হাজার ৬৮৩ জন। এই সময়ে মারা যাওয়া ৪৩ জনকে নিয়ে করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট ২৭ হাজার ২২৫ জন মারা গেলেন বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে একই সময়ে সুস্থ হয়েছেন দুই হাজার ৮৮৭ জন। তাদের নিয়ে দেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট সুস্থ হলেন ১৫ লাখ এক হাজার ৫৪১ জন।

একদিনে করোনার নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ২৪ হাজার ১২৮টি আর পরীক্ষা করা হয়েছে ২৪ হাজার ৬২৩টি। দেশে এখন পর্যন্ত করোনার মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৯৪ লাখ ৩৭ হাজার ৬৫৬টি। এরমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ৬৯ লাখ ৬৬ হাজার ৮০৪টি আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায়  ২৪ লাখ ৭০ হাজার ৮৫২টি।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা রোগী শনাক্তের হার পাঁচ দশমিক ৬২ শতাংশ আর এখন পর্যন্ত ১৬ দশমিক ৩৩ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার ৯৭ দশমিক ৩৩ শতাংশ আর মৃত্যুর হার এক দশমিক ৭৬ শতাংশ।

একদিনে করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া ৪৩ জনের মধ্যে পুরুষ ২২ জন আর নারী ২১ জন। দেশে এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট পুরুষ মারা গেলেন ১৭ হাজার ৫১২ জন আর নারী নয় হাজার ৭১৩ জন। এদের মধ্যে ৯১ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে একজন, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে চার জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে নয় জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ১০ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে তিন জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে পাঁচ জন আর ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে রয়েছেন একজন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানাচ্ছে, মারা যাওয়া ৪৩ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের আছেন ১৯ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের আট জন, রাজশাহী বিভাগের চার জন, খুলনা বিভাগের ছয় জন, সিলেট বিভাগের দুই জন, রংপুর বিভাগের তিন জন আর ময়মনসিংহ বিভাগের আছেন একজন। এদের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ৩৫ জন, বেসরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন আট জন।

/জেএ/এনএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ফের টিকা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ফের টিকা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

সাড়ে তিন মাস পর সর্বনিম্ন শনাক্ত

সাড়ে তিন মাস পর সর্বনিম্ন শনাক্ত

আরও ৩৮ মৃত্যু, শনাক্ত ১৯০৭

আরও ৩৮ মৃত্যু, শনাক্ত ১৯০৭

‘ভাসানচর নিয়ে সমঝোতা চুক্তির আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে’

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৫৫

ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তর শুরু করেছে সরকার। তাদের দেখভালের বিষয়ে সরকার ও জাতিসংঘের মধ্যে আলোচনা চলছে। একটি সমঝোতায় পৌঁছানোর পর সেখানে দ্রুত কাজ শুরু করবে জাতিসংঘ বলে জানিয়েছেন সংস্থাটির আবাসিক প্রতিনিধি মিয়া সেপ্পো। তিনি বলেন, ‘সরকারের সঙ্গে সমঝোতা চুক্তির আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে।’

রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) ফরেন সার্ভিস অ্যাকাডেমিতে ডিক্যাব আয়োজিত ‘ডিক্যাব টকে’ তিনি বলেন, ‘ভাসানচর নিয়ে সরকারের সঙ্গে সমঝোতা চুক্তির আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। গত মার্চে জাতিসংঘের টেকনিক্যাল মিশন তাদের কাজ শেষ করেছে।’

মিয়া সেপ্পো বলেন, ‘ভাসানচর নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সমঝোতার পর আমরা সেখানে দ্রুত সরকারের সঙ্গে অংশীদারিত্বে কাজ শুরু করবো।’

তিনি বলেন, ‘কক্সবাজারে জাতিসংঘের যে ভূমিকা, তা থেকে ভাসানচরে ভূমিকা ভিন্ন হবে। কারণ, দু’টি জায়গার পরিস্থিতি ভিন্ন।’

রোহিঙ্গা সমস্যার রাজনৈতিক সমাধানের বিষয়ে মিয়া সেপ্পো বলেন, ‘মিয়ানমারের সঙ্গে কীভাবে এই সমস্যা নিয়ে আলোচনা করা হবে, সেটি নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যদের মধ্যে মতভেদ আছে।’ এটি একই সঙ্গে রাজনৈতিক ও মানবিক সমস্যা। মিয়ানমার ও বাংলাদেশে অনেক লোকের মানবিক সহায়তার দরকার আছে বলে তিনি জানান।

 

/এসএসজেড/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ফের টিকা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ফের টিকা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

বনভূমিতে প্রশিক্ষণ অ্যাকাডেমি নয়: সংসদীয় কমিটি

বনভূমিতে প্রশিক্ষণ অ্যাকাডেমি নয়: সংসদীয় কমিটি

না জানিয়ে পরিদর্শনে যাবো: শিক্ষামন্ত্রী

না জানিয়ে পরিদর্শনে যাবো: শিক্ষামন্ত্রী

পণ্য পরিবহনে ধর্মঘটের কর্মসূচি, জানে না মন্ত্রণালয়

পণ্য পরিবহনে ধর্মঘটের কর্মসূচি, জানে না মন্ত্রণালয়

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ফের টিকা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ফের টিকা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

বনভূমিতে প্রশিক্ষণ অ্যাকাডেমি নয়: সংসদীয় কমিটি

বনভূমিতে প্রশিক্ষণ অ্যাকাডেমি নয়: সংসদীয় কমিটি

‘ভাসানচর নিয়ে সমঝোতা চুক্তির আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে’

‘ভাসানচর নিয়ে সমঝোতা চুক্তির আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে’

না জানিয়ে পরিদর্শনে যাবো: শিক্ষামন্ত্রী

না জানিয়ে পরিদর্শনে যাবো: শিক্ষামন্ত্রী

পণ্য পরিবহনে ধর্মঘটের কর্মসূচি, জানে না মন্ত্রণালয়

পণ্য পরিবহনে ধর্মঘটের কর্মসূচি, জানে না মন্ত্রণালয়

‘পর্যটনে নেতৃত্ব দেবে বাংলাদেশ’

‘পর্যটনে নেতৃত্ব দেবে বাংলাদেশ’

মুক্ত স্বদেশে ফিরে সেদিন কান্নায় ভেঙে পড়েন বাংলাদেশিরা

মুক্ত স্বদেশে ফিরে সেদিন কান্নায় ভেঙে পড়েন বাংলাদেশিরা

শেখ হাসিনার নেতৃত্বকে সৌদি আরব গুরুত্ব দিয়ে আসছে: সৌদি বাণিজ্যমন্ত্রী

শেখ হাসিনার নেতৃত্বকে সৌদি আরব গুরুত্ব দিয়ে আসছে: সৌদি বাণিজ্যমন্ত্রী

‘ই-কমার্সের জন্য নতুন আইন দরকার’

‘ই-কমার্সের জন্য নতুন আইন দরকার’

সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী বিলে যা ছিল

সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী বিলে যা ছিল

সর্বশেষ

দলবদলে এলো আবাহনী, লক্ষ্য শিরোপা

দলবদলে এলো আবাহনী, লক্ষ্য শিরোপা

ব্র্যাকের হাত ধরে স্বাস্থ্যবিধি শিখছে মানুষ

ব্র্যাকের হাত ধরে স্বাস্থ্যবিধি শিখছে মানুষ

বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্লেন্ডেড লার্নিং এগিয়ে নিতে সহযোগিতার আগ্রহ যুক্তরাষ্ট্রের

বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্লেন্ডেড লার্নিং এগিয়ে নিতে সহযোগিতার আগ্রহ যুক্তরাষ্ট্রের

পাঞ্জাবের নতুন মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চান্নি

পাঞ্জাবের নতুন মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চান্নি

শেষ দুই ম্যাচ জিতে সমাপ্তি টানলো আফগান যুবারা

শেষ দুই ম্যাচ জিতে সমাপ্তি টানলো আফগান যুবারা

© 2021 Bangla Tribune