X
বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ১৩ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

মহামারিতেই মার্কিন ইতিহাসের সবচেয়ে ব্যয়বহুল নির্বাচন

আপডেট : ২৯ অক্টোবর ২০২০, ২৩:৪৫

করোনাভাইরাস মহামারি পরিস্থিতির মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে ব্যয়বহুল নির্বাচন হতে যাচ্ছে এবারের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। সেন্টার ফর রেসপনসিভ পলিটিকস-এর হিসাবে, এবারে হোয়াইট হাউজ, সিনেট ও কংগ্রেসের নিয়ন্ত্রণ পাওয়ার লড়াইয়ের ব্যয় গিয়ে পৌঁছাবে এক হাজার চারশ’ কোটি ডলার। মাত্র চার বছর আগে গড়ে ওঠা আগের রেকর্ড থেকে এবারের ব্যয়ের পরিমাণ প্রায় দ্বিগুণ। মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউ ইয়র্ক টাইমস এ খবর জানিয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, এ বছর যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক খরচের বড় অংশ যাচ্ছে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে। রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী জো বাইডেনের মধ্যকার লড়াইয়ে খরচ হবে প্রায় ৬৬০ কোটি ডলার। ২০১৬ সালে কংগ্রেসের নির্বাচনি প্রচার আর প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচার মিলিয়েও এর চেয়ে কম অর্থ খরচ হয়।

এই ব্যয় বাড়ার নেপথ্যে ভূমিকা রয়েছে উভয় দলের দাতাদের। অনলাইন ও ছোট ছোট দাতার সংখ্যা বাড়তে থাকাই প্রচার শিবিরের তহবিল বৃদ্ধিতে মূল ভূমিকা রেখেছে। একই সময়ে শত শত কিংবা লাখ লাখ কোটি ডলারের মালিকেরাও উদারভাবে প্রচার শিবিরগুলোতে অর্থ দিয়েছেন।

সংগ্রহ করা তহবিলের বড় অংশই যাচ্ছে টেলিভিশন বিজ্ঞাপনের ব্যয়ে। বিজ্ঞাপন পর্যবেক্ষণকারী প্রতিষ্ঠান অ্যাডভার্টাইজিং অ্যানালিটিকসের হিসাবে, এই বছর কেবল প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে টেলিভিশন বিজ্ঞাপনেই ব্যয় হচ্ছে ১৮০ কোটি ডলার। ২০১৬ সালে প্রাথমিক মনোনয়নসহ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারে মোট ব্যয় হয়েছিল ২৪০ কোটি ডলার।

গত ১৪ অক্টোবর পর্যন্ত ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী জো বাইডেনের প্রচার শিবির সংগ্রহ করেছে ৯৩ কোটি ৮০ লাখ ডলার। ধারণা করা হচ্ছে, এই সংগ্রহের পরিমাণ শত কোটি ডলার ছাড়িয়ে যাবে। আর উভয় দল মিলিয়ে হিসাব করলে সংগ্রহের পরিমাণ আরও অনেক বেশি ছাড়িয়ে যাবে।

তবে কেবল প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রচারের ব্যয় নতুন রেকর্ড গড়েছে এমন নয়।

সবচেয়ে ব্যয়বহুল দশটি সিনেট আসনের নির্বাচনের আটটিই ২০২০ সালে। এরমধ্যে রয়েছে নর্থ ক্যারোলিনা। অঙ্গরাজ্যটির দুই প্রার্থী সিনেট সদস্য রিপাবলিকান থম টিলিস এবং ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী কাল কানিংহাম ইতোমধ্যে ২৭ কোটি ২০ লাখ ডলার খরচ করে ফেলেছেন।

এই বছর সিনেট প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ২০ কোটি ডলারের বেশি খরচ হওয়া চার অঙ্গরাজ্যের একটি হলো নর্থ ক্যারোলিনা। বাকিগুলো হলো লোয়া, সাউথ ক্যারোলিনা ও অ্যারিজোনা। প্রার্থীর নিজস্ব অর্থ বাদ দিলে এই পরিমাণ ব্যয় এর আগে আর কখনোই সিনেট প্রতিদ্বন্দ্বিতার ক্ষেত্রে হয়নি।

সাউথ ক্যারোলিনায় রিপাবলিকান সিনেটর লিন্ডসে গ্রাহামের ডেমোক্র্যাটিক প্রতিদ্বন্দ্বী জাইমি হ্যারিসন প্রথম সিনেট প্রার্থী হিসেবে দশ কোটি ডলার সংগ্রহের রেকর্ড গড়েছেন।

ভোটের ফলাফল যাই হোক, এই বছর তহবিল সংগ্রহের দিক থেকে এগিয়ে আছেন ডেমোক্র্যাটরা।

ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী ও তাদের মিত্ররা এই বছর ৫৫০ কোটি ডলার ব্যয় করে ফেলেছে। এর তুলনায় রিপাবলিকানদের ব্যয় ৩৮০ কোটি ডলার। নির্দলীয় সেন্টার ফর রেসপনসিভ পলিটিকসের বিশ্লেষণ অনুযায়ী, এটাই এখন পর্যন্ত ডেমোক্র্যাটদের সবচেয়ে বড় সুবিধা।

ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী জো বাইডেনের তহবিল সংগ্রহের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রেখেছেন ছোট ছোট দাতারা। এই বছরে তার নির্বাচনি প্রচারের ২২ শতাংশই তাদের কাছ থেকে এসেছে। ২০১৬ সালে এসব দাতার অনুদানের পরিমাণ ছিল দুই কোটি ডলারেরও কম। যা ওই বছরের মোট তহবিলের ১৫ শতাংশের কম।

তবে বড় দাতাদের ভূমিকা এখনও প্রভাবশালী থেকে গেছে। ক্যাসিনো ব্যবসায়ী শেলডোন ও তার স্ত্রী মিরিয়াম আদেলসন রিপাবলিকান প্রার্থীদের জন্য প্রায় ১৮ কোটি ৩০ লাখ ডলার অনুদান দিয়েছেন। ডেমোক্র্যাটদের সবচেয়ে বড় দাতা ব্লুমবার্গ ডেমোক্র্যাট কমিটিকে দিয়েছেন দশ কোটি ৭০ লাখ ডলার।

অন্য বড় দাতাদের মধ্যে রয়েছেন সিলিকন ভ্যালির বিভিন্ন প্রযুক্তি ব্যবসায়ীরা। চিকিৎসক ও এক প্রযুক্তি বিনিয়োগকারীর সাবেক স্ত্রী কারলা জারভেটসন ২০১৯ সাল থেকে দুই কোটি ৪০ লাখ ডলার অনুদান দিয়ে চলেছেন সিনেটর এলিজাবেথ ওয়ারেনের প্রচারে। ফেসবুকের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা জাস্টিন মস্কোভিজও দুই কোটি ৪০ লাখ ডলারের বেশি খরচ করেছেন ট্রাম্পবিরোধী বিজ্ঞাপনে।

প্রচারে ব্যয় করা শীর্ষ  ইন্ডাস্ট্রি এখনও ওয়াল স্ট্রিট। সিকিউরিটি অ্যান্ড বিনিয়োগ সাম্রাজ্য থেকে তাদের মোট ব্যয় ২৫ কোটি ৫০ লাখ ডলারের বেশি। এর বেশিরভাগ অংশই গেছে ডেমোক্র্যাট শিবিরে, ১৬ কোটি ১৭ লাখের বেশি। আর রিপাবলিকান শিবিরে গেছে ৯ কোটি ৪৫ লাখ ডলার।

কথিত ‘ডার্ক মানি’র প্রবাহও এবারের মার্কিন রাজনৈতিক প্রচারে ভূমিকা রাখা অব্যাহত রেখেছে। অলাভজনক বিভিন্ন সংস্থা কিংবা নাম প্রকাশ করতে না চাওয়া দাতাদের অর্থই ডার্ক মানি হিসেবে পরিচিত।

সেন্টার ফর রেসপনসিভ পলিটিকস-এর বিশ্লেষণ অনুযায়ী, রাজনৈতিক দলগুলোর জাতীয় কমিটিকে অর্থ দেওয়া প্রায় ৩০ শতাংশ দাতাই নিজেদের পরিচয় প্রকাশ করেননি। এই সুযোগ উভয় দলই নিয়েছে। 

/জেজে/এএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

এক ঘুমে হারিয়ে গেলো দুই দশক!

এক ঘুমে হারিয়ে গেলো দুই দশক!

ক্যাপিটলে হামলার লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন ৪ পুলিশ সদস্য

ক্যাপিটলে হামলার লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন ৪ পুলিশ সদস্য

টিকা নিলেও সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা, মাস্ক পরার পরামর্শ সিডিসি’র

টিকা নিলেও সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা, মাস্ক পরার পরামর্শ সিডিসি’র

১৫ হাজার বছর পুরনো ভাইরাসের সন্ধান

১৫ হাজার বছর পুরনো ভাইরাসের সন্ধান

আমি জ্যোতিষী নই: মমতা

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ১৮:৪৩
image

পেগাসাস স্ক্যান্ডাল নিয়ে ভারতের বিরোধী দলগুলোর নেতাদের বৈঠকে যোগ দেননি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। তবে পরে এক সংবাদ সম্মেলনে স্পষ্ট করে বলেছেন, এই ইস্যুতে যেকোনও সংগ্রামে সামনের সারিতে থাকবেন তিনি। আর এতে ভারতের সব দলগুলোরই ঐক্যবদ্ধ হওয়া উচিত। সেই ঐক্যের নেতৃত্ব দেবেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি রাজনৈতিক জ্যোতিষী নই। পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে। অন্য কেউ নেতৃত্ব দিলে আমার কোনও সমস্যা নেই।’ সম্প্রচারমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

২০১৯ সাল থেকে ১৭টি দেশের সংবাদমাধ্যম মিলে ‘দ্য পেগাসাস প্রজেক্ট’ নামের একটি প্ল্যাটফর্ম থেকে ইসরায়েলি স্পাইওয়্যার ব্যবহার করে ফোনে নজরদারির বিষয়ে অনুসন্ধান চালিয়ে যাচ্ছে। গত ২১ জুলাই এই অনুসন্ধানের ভিত্তিতে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এতে উঠে আসে দুনিয়াজুড়ে নজরদারির শিকার হয়েছেন মানবাধিকার কর্মী, রাজনীতিক, সাংবাদিক, আইনজীবীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার সদস্যরা। ভারতের বেশ কয়েক জন বিরোধী দলীয় নেতার ফোনে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে আড়িপাতা হয়েছে বলেও জানা যাচ্ছে।

পেগাসাস স্ক্যান্ডাল নিয়ে ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরুর চেষ্টায় রয়েছে বিরোধীরা। তারই অংশ হিসেবে বিরোধী দলগুলোর বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই বৈঠকে যোগ না দিলেও তাদের প্রতি সমর্থনের কথা জানান পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ঐক্যবদ্ধ বিরোধী দলের মুখ হবেন কিনা জানতে চাইলে মমতা বলেন, ‘আমি একজন সাধারণ কর্মী, কর্মী হিসেবেই কাজ চালিয়ে যেতে চাই।’

বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে দীর্ঘ মেয়াদে পরিকল্পনার প্রয়োজনের দিকে ইঙ্গিত করে মমতা জানান, পার্লামেন্ট অধিবেশনের পর তিনি এই বিষয়ে ভালোভাবে কাজ শুরু করবেন। তিনি বলেন, ‘আমি গতকাল লালু প্রসাদ যাদবের সঙ্গে কথা বলেছি। আমরা সব দলের সঙ্গেই কথা বলবো।’ চলমান দিল্লি সফরে তিনি কংগ্রেস নেতা সোনিয়া গান্ধী এবং দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সঙ্গেও কথা বলবেন বলেও জানান মমতা।

পশ্চিমবঙ্গের সর্বশেষ নির্বাচনে ব্যাপক জয় পেয়ে ভারতের বিরোধী দলগুলোর কাছে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘এক সঙ্গে কাজ করার একটি সাধারণ প্লাটফর্ম থাকা দরকার। বিরোধী সব রাজনৈতিক দলকেই একসঙ্গে কাজ করতে হবে। আমরা সবাই একসঙ্গে বসবো আর কিছু একটা উপায় বের করবো।’

/জেজে/

সম্পর্কিত

মোদির কাছে পশ্চিমবঙ্গের নাম বদলের কথা তুললেন মমতা

মোদির কাছে পশ্চিমবঙ্গের নাম বদলের কথা তুললেন মমতা

তিনবার করোনায় আক্রান্ত ভারতীয় চিকিৎসক, ২ বার টিকা নেওয়ার পর

তিনবার করোনায় আক্রান্ত ভারতীয় চিকিৎসক, ২ বার টিকা নেওয়ার পর

আগস্টে শিশুদের টিকা দেওয়া শুরু করছে ভারত

আগস্টে শিশুদের টিকা দেওয়া শুরু করছে ভারত

জিন্স প্যান্ট পরায় ভারতে কিশোরীকে পিটিয়ে হত্যা

জিন্স প্যান্ট পরায় ভারতে কিশোরীকে পিটিয়ে হত্যা

সরকারের একাধিক শীর্ষ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করলেন তিউনিসিয়ার প্রেসিডেন্ট

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ১৭:৫৯

রাষ্ট্রের একাধিক শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করেছেন তিউনিসিয়ার প্রেসিডেন্ট কায়েস সাঈদ। প্রধানমন্ত্রীর কাউন্সিলের পরিচালক ও সরকারের মহাসচিবকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিয়েছেন। মঙ্গলবার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের বুলেটিনে বিষয়টি নিশ্চিত করেন প্রেসিডেন্ট সাঈদ।

তিউনিসিয়া গত রবিবার থেকেই রাজনৈতিক উত্তেজনা বিরাজ করছে। প্রধানমন্ত্রীকে আকস্মিক বরখাস্তের পর থেকেই আন্দোলন চলছে দেশজুড়ে। এরই মধ্যে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করেছেন প্রেসিডেন্ট কায়েস সাঈদ।

এক ঘোষণায় তিনি জানান, দায়িত্ব থেকে বরখাস্ত হওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর কাউন্সিলের পরিচালক, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এবং সরকারের মহাসচিবও রয়েছেন। তাদেরকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়ার কারণ জানানি প্রেসিডেন্ট। এতে সংকট আরও ঘনীভূত হওয়ার আশঙ্কা করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

করোনা মহামারি মোকাবিলায় সরকারের অব্যবস্থাপনার জেরে সহিংস বিক্ষোভের পর তিউনিসিয়ার প্রেসিডেন্ট কায়েস সাইদ গত রবিবার সন্ধ্যায় দেশটির প্রধানমন্ত্রী হিসাচ মেচিচকে বরখাস্ত করেন। আগামী ৩০ দিনের জন্য সাময়িকভাবে স্থগিত করেছেন পার্লামেন্ট। প্রেসিডেন্টের এমন পদক্ষেপকে বিরোধীরা ‘অভ্যুত্থান’ হিসেবে অভিহিত করেছে। তবে বিরোধী এবং আন্দোলনকারীদের এমন অভিযোগ নাকচ করেছেন প্রেসিডেন্ট সাঈদ।

পরিস্থিতি মোকাবিলায় রাজধানী তিউনিসসহ নানা জায়গায় মোতায়েন রয়েছে সেনা সদস্য। চলমান সংকট মোকাবিলায় সরকারকে আহ্বান জানিয়েছে তুরস্ক, জার্মানি ও রাশিয়াসহ যুক্তরাষ্ট্র।

/এলকে/

সম্পর্কিত

গণতন্ত্র সংকটে তিউনিসিয়া : ৩০ দিনের কারফিউ জারি

গণতন্ত্র সংকটে তিউনিসিয়া : ৩০ দিনের কারফিউ জারি

তিউনিসিয়ায় রাজনৈতিক অস্থিরতায় বিশ্বের প্রতিক্রিয়া

তিউনিসিয়ায় রাজনৈতিক অস্থিরতায় বিশ্বের প্রতিক্রিয়া

সংকটে তিউনিসিয়ার গণতন্ত্র: পার্লামেন্ট প্রাঙ্গণে সংঘর্ষ, পথে পথে সেনা

সংকটে তিউনিসিয়ার গণতন্ত্র: পার্লামেন্ট প্রাঙ্গণে সংঘর্ষ, পথে পথে সেনা

তিউনিসিয়ায় আল-জাজিরার কার্যালয় বন্ধ, সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত

তিউনিসিয়ায় আল-জাজিরার কার্যালয় বন্ধ, সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত

এক ঘুমে হারিয়ে গেলো দুই দশক!

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ১৭:৪১
image

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসের বাসিন্দা ড্যানিয়েল পোর্টার। ৩৭ বছর বয়সী এই ব্যক্তির রয়েছে স্ত্রী আর দশ বছর বয়সী এক মেয়ে। এক রাতে ঘুমিয়ে সকালে স্বাভাবিকভাবেই ওঠেন তিনি। ভাবতে থাকেন ১৯৯০ এর দশকে রয়েছেন তিনি। তৈরি হতে থাকেন স্কুলে যাওয়ার জন্য। জীবন থেকে দুই দশক আর স্ত্রীকে বিয়ে করা এমনকি মেয়ে থাকার কথাও ভুলে যান তিনি।

হিয়ারিং স্পেশালিস্ট ড্যানিয়েল পোর্টার গত বছরের জুলাইয়ের সেই সকালে ঘুম থেকে উঠে বসের অন্য দিনের মতোই। মনে হতে থাকে পাশে ঘুমিয়ে থাকা নারীকে তিনি চেনেনই না, আয়নায় তাকাতেই দেখতে পান ‘বয়স্ক আর মোটা’ এক লোক তার দিকে তাকিয়ে আছে। সব চিন্তা ছেড়ে স্কুলে যাওয়ার জন্য তৈরি হতে থাকেন। অথচ দুই দশক আগেই স্কুলের পাঠ চুকিয়ে ফেলেছেন তিনি। আর বিছানায় শুয়ে থাকা অদ্ভূত নারীটি তার স্ত্রী। তার সঙ্গে রয়েছে তাদের একটি ১০ বছরের মেয়ে।

৩৬ বছর বয়সে ড্যানিয়েলের সঙ্গে যখন এমন ঘটনা ঘটে তখন তিনি নিজেকে ১৬ বছর বয়সী বলে ভাবছিলেনৈ। ওই সময়ে তার স্ত্রী রুথ তাকে শান্ত করেন আর বোঝান যে, তিনিই তার স্ত্রী আর তাকে অপহরণ করা হয়নি।

রুথ বলেন, ‘সে এক সকালে উঠলো আর সে নিজের পরিচয় এমনকি কোথায় আছে তাও মনে করতে পারছিলো না। খুবই দ্বিধান্বিত ছিলো। এমনটি নিজের ঘরও চিনতে পারছিলো না। সে ভাবছিলো হয়তো সে মাতাল আর কোনও নারীর সঙ্গে তার বাড়িতে গেছে বা তাকে অপহরণ করা হয়েছে। দেখতে পেলাম সে যেন পালানোর পথ খুঁজছে।’

পরে পোর্টারকে নিয়ে তার বাবা-মায়ের বাড়িতে যান রুথ। সেখানে তারা তাকে বোঝাতে সক্ষম হন যে তিনি নিরাপদে আছেন। তবে এখন পর্যন্ত নিজের দশ বছর বয়সী মেয়ে লিবিকে চিনতে পারেননি পোর্টার।

চিকিৎসকেরা জানান ড্যানিয়েল পোর্টার মূলত ট্রান্সিয়েন্ট গ্লোবাল অ্যামনেসিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন। এই রোগে মানুষ হঠাৎ করে অস্থায়ীভাবে স্মৃতি হারিয়ে ফেলেন। চিকিৎসকেরা জানান, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পোর্টার স্বাভাবিক স্মৃতিতে ফিরতে পারেন। কিন্তু এক বছর পার হয়ে গেলেও নিজের হারিয়ে ফেলা ২০ বছর জীবনের স্মৃতি মনে করতে পারেননি তিনি।

সূত্র: ওডিটিসেন্ট্রাল

 

/জেজে/

সম্পর্কিত

ক্যাপিটলে হামলার লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন ৪ পুলিশ সদস্য

ক্যাপিটলে হামলার লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন ৪ পুলিশ সদস্য

টিকা নিলেও সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা, মাস্ক পরার পরামর্শ সিডিসি’র

টিকা নিলেও সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা, মাস্ক পরার পরামর্শ সিডিসি’র

১৫ হাজার বছর পুরনো ভাইরাসের সন্ধান

১৫ হাজার বছর পুরনো ভাইরাসের সন্ধান

সম্পর্ক উন্নয়নে একমত উত্তর-দক্ষিণ কোরিয়া

সম্পর্ক উন্নয়নে একমত উত্তর-দক্ষিণ কোরিয়া

ফের সংঘাতে আজারবাইজান-আর্মেনিয়া, যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব মস্কোর

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ১৭:২৮

নতুন করে সংঘাতে জড়ালো আজারবাইজান ও আর্মেনিয়া। উভয় পক্ষের সংঘর্ষে তিন আর্মেনীয় সেনা নিহত হয়েছেন বলে বুধবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে ইয়েরেভান। সামরিক উত্তেজনা সৃষ্টিতে একে অপরকে দায়ী করেছে দেশ দুটি। 

বুধবার আর্মেনিয়া দাবি করেছে, আজেরি বাহিনী আকস্মিক তাদের সেনাদের ওপর হামলা চালিয়েছে। এতে তাদের তিন সেনা প্রাণ হারিয়েছেন। আহত হন আরও দু’জন। সীমান্ত এলাকায় সংঘাতে জড়ানোর অভিযোগ তুলেছে দেশটি।

আর্মেনিয়ার স্টক গ্রামের সীমান্ত এলাকার কাছেই আজারবাইজানের কেলবাজার অঞ্চল। ওই সীমান্তেই উভয় দেশের নিরাপত্তারক্ষীদের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধের দাবি করেছে আর্মেনীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

একই দিন প্রতিবেশী আজারবাইজানও পাল্টা অভিযোগ তুলেছে আর্মেনিয়ার বিরুদ্ধে। বাকুর প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে, বুধবার কেলবাজার সীমান্তে সেনাদের লক্ষ্য করে গুলি চালায় আর্মেনীয় বাহিনী। এতে তাদের দুই সদস্য আহত হন। তবে আর্মেনিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দাবি, বিনা উসকানিতেই আজেরি বাহিনী হামলা চালিয়েছে।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা তাদের খবরে জানিয়েছে, স্থানীয় সময় সকাল ১০টার দিকে দু’পক্ষের মধ্যে যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব দেয় রাশিয়া। বাকু মস্কোর প্রস্তাব মেনে নিলেও ইয়েরেভান তাতে সাড়া দেয়নি। আর্মেনিয়া এখনও আজারবাইজানের লক্ষ্যবস্তুতে হামলা অব্যাহত রেখেছে, এমন অভিযোগ বাকুর। উত্তেজনা সৃষ্টির জন্য আর্মেনিয়াকেই পুরো দায় নিতে হবে বলেও জানিয়েছে দেশটি।

উল্লেখ্য, নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চল নিয়ে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের পুরনো সংঘাত গত বছরের ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে নতুন করে আবার শুরু হয়। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন জানান, ওই সংঘাতে অন্তত পাঁচ হাজার মানুষ নিহত হয়েছেন। পরে নভেম্বরে রাশিয়ার মধ্যস্থতায় যুদ্ধ বন্ধে উপনীত হয় দু’দেশ।

/এলকে/এমওএফ/

সম্পর্কিত

নাভালনি ও তার ঘনিষ্ঠদের ওয়েবসাইট ব্লক করলো রাশিয়া

নাভালনি ও তার ঘনিষ্ঠদের ওয়েবসাইট ব্লক করলো রাশিয়া

তিউনিসিয়ায় রাজনৈতিক অস্থিরতায় বিশ্বের প্রতিক্রিয়া

তিউনিসিয়ায় রাজনৈতিক অস্থিরতায় বিশ্বের প্রতিক্রিয়া

‘অপ্রতিরোধ্য হামলা’ চালানোর সক্ষমতা রয়েছে রাশিয়ার: পুতিন

‘অপ্রতিরোধ্য হামলা’ চালানোর সক্ষমতা রয়েছে রাশিয়ার: পুতিন

১ মাস ‘ইন্টারনেট বিচ্ছিন্ন’ থাকার পরীক্ষা চালালো রাশিয়া

১ মাস ‘ইন্টারনেট বিচ্ছিন্ন’ থাকার পরীক্ষা চালালো রাশিয়া

তালেবান প্রতিনিধিদের চীন সফর, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ১৭:৩৪
image

আফগানিস্তানের সশস্ত্র গোষ্ঠী তালেবানের নয় সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল চীন সফরে গেছেন। বুধবার তালেবানের তরফে জানানো হয়েছে, দুই দিনের এই সফরে চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই’র সঙ্গে বৈঠকের কথা রয়েছে তাদের। এই বৈঠকে শান্তি প্রক্রিয়া এবং নিরাপত্তা ইস্যুতে আলোচনা হবে। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

তালেবান মুখপাত্র মোহাম্মদ নায়িম এক টুইট বার্তায় লিখেছেন, ‘রাজনীতি, অর্থনীতি ও উভয় দেশের নিরাপত্তা সংশ্লিষ্ট ইস্যু এবং আফগানিস্তানের বর্তমান পরিস্থিতি ও শান্তি প্রক্রিয়া নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে।’

তালেবান আলোচক এবং ডেপুটি নেতা মোল্যা বারাদার আখুন্দের নেতৃত্বাধীন দলটি চীনের আফগান বিষয়ক বিশেষ দূতের সঙ্গেও বৈঠক করেন। এছাড়া চীনা কর্তৃপক্ষের আমন্ত্রণে একটি ভ্রমণেও অংশ নিয়েছেন তারা। চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জানিয়েছেন, উত্তরাঞ্চলীয় শহর তিয়ানজিনে তালেবান প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই।

ধারণা করা হচ্ছে, আফগানিস্তানে যখন সহিংসতা বাড়ছে সেই মুহূর্তে চীন সফরের মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে স্বীকৃতি নিশ্চিতের চেষ্টা করছে তালেবান। গোষ্ঠীটির কাতারে একটি রাজনৈতিক কার্যালয় রয়েছে, সেখানেই শান্তি আলোচনা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এই মাসে তালেবান প্রতিনিধিরা ইরানও সফর করেছেন। সেখানে আফগান সরকারের প্রতিনিধিদের সঙ্গেও বৈঠক করেছেন তালেবান প্রতিনিধিরা।

যুক্তরাষ্ট্র সেনা প্রত্যাহার করে নেওয়ার পর আফগানিস্তানের নিরাপত্তা ক্রমেই ভেঙে পড়ছে। চীন সীমান্তবর্তী আফগানিস্তানের বিস্তৃত এলাকা নতুন করে দখল করে নিতে শুরু করেছে তালেবান। কাতারের শান্তি আলোচনায় অগ্রগতি না হলেও আফগানিস্তানের নতুন নতুন জেলা আর সীমান্ত ক্রসিং দখলে নিচ্ছে তালেবান।

তালেবান মুখপাত্র মোহাম্মদ নায়িম এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘প্রতিনিধিরা চীনকে আশ্বস্ত করেছে যে আফগানিস্তানের ভূমি বেইজিংয়ের বিরুদ্ধে ব্যবহৃত হতে দেওয়া হবে না।’ এছাড়া চীনও আশ্বস্ত করেছে যে আফগানদের সহায়তা অব্যাহত রাখবে বেইজিং। তবে চীন আফগানিস্তানের কোনও ইস্যুতে হস্তক্ষেপ করবে না কিন্তু সমস্যা সমাধান এবং দেশটিতে শান্তি স্থাপনে সহায়তা দেবে।

/জেজে/এমওএফ/

সম্পর্কিত

দোষী সাব্যস্ত হলেন হংকংয়ের বিতর্কিত আইনের প্রথম অভিযুক্ত

দোষী সাব্যস্ত হলেন হংকংয়ের বিতর্কিত আইনের প্রথম অভিযুক্ত

৪৬ আফগান সেনাকে আশ্রয় দিলো পাকিস্তান

৪৬ আফগান সেনাকে আশ্রয় দিলো পাকিস্তান

১৬০ ফুট উঁচু থেকে পড়ে টিকটকার তরুণীর মৃত্যু

১৬০ ফুট উঁচু থেকে পড়ে টিকটকার তরুণীর মৃত্যু

তালেবানের বিরুদ্ধে বিমান হামলা অব্যাহত রাখার ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্রের

তালেবানের বিরুদ্ধে বিমান হামলা অব্যাহত রাখার ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্রের

সর্বশেষ

ঢাকায় গ্রেফতার বেড়েছে

ঢাকায় গ্রেফতার বেড়েছে

শ্রীপুরে এক সপ্তাহে ৪ হত্যাকাণ্ড: স্থানীয়দের মাঝে উদ্বেগ

শ্রীপুরে এক সপ্তাহে ৪ হত্যাকাণ্ড: স্থানীয়দের মাঝে উদ্বেগ

পুঁজিবাজার বন্ধ থাকবে ১ ও ৪ আগস্ট

পুঁজিবাজার বন্ধ থাকবে ১ ও ৪ আগস্ট

শনাক্তের রেকর্ডের দিনে মৃত্যু ২০ হাজার ছাড়ালো

শনাক্তের রেকর্ডের দিনে মৃত্যু ২০ হাজার ছাড়ালো

সাঈদ খোকনের ব্যাংক হিসাব তলব

সাঈদ খোকনের ব্যাংক হিসাব তলব

প্রাথমিক শিক্ষা সংশ্লিষ্টদের ১১ আগস্টের মধ্যে টিকা গ্রহণের নির্দেশ

প্রাথমিক শিক্ষা সংশ্লিষ্টদের ১১ আগস্টের মধ্যে টিকা গ্রহণের নির্দেশ

আমি জ্যোতিষী নই: মমতা

আমি জ্যোতিষী নই: মমতা

সিরিজ জেতানোর ‘পুরস্কার’ পেলেন সৌম্য

সিরিজ জেতানোর ‘পুরস্কার’ পেলেন সৌম্য

এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে অভিযান: ২৪ মামলায় ৩ লাখ ৩১ হাজার টাকা জরিমানা

এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে অভিযান: ২৪ মামলায় ৩ লাখ ৩১ হাজার টাকা জরিমানা

উখিয়া-ঘুমধুমে বন্যার পানিতে ডুবে ৫ জনের মৃত্যু

উখিয়া-ঘুমধুমে বন্যার পানিতে ডুবে ৫ জনের মৃত্যু

কর্মহীনদের সহায়তায়  খাদ্যসামগ্রী অঙ্কুর ফাউন্ডেশনের

কর্মহীনদের সহায়তায় খাদ্যসামগ্রী অঙ্কুর ফাউন্ডেশনের

মাদকের মামলায় ৪ নাইজেরিয়ান কারাগারে

মাদকের মামলায় ৪ নাইজেরিয়ান কারাগারে

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

এক ঘুমে হারিয়ে গেলো দুই দশক!

এক ঘুমে হারিয়ে গেলো দুই দশক!

ক্যাপিটলে হামলার লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন ৪ পুলিশ সদস্য

ক্যাপিটলে হামলার লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন ৪ পুলিশ সদস্য

টিকা নিলেও সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা, মাস্ক পরার পরামর্শ সিডিসি’র

টিকা নিলেও সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা, মাস্ক পরার পরামর্শ সিডিসি’র

১৫ হাজার বছর পুরনো ভাইরাসের সন্ধান

১৫ হাজার বছর পুরনো ভাইরাসের সন্ধান

সম্পর্ক উন্নয়নে একমত উত্তর-দক্ষিণ কোরিয়া

সম্পর্ক উন্নয়নে একমত উত্তর-দক্ষিণ কোরিয়া

আত্মহত্যা বাড়ছে মার্কিন বাহিনীতে, উদ্বেগে পেন্টাগন প্রধান

আত্মহত্যা বাড়ছে মার্কিন বাহিনীতে, উদ্বেগে পেন্টাগন প্রধান

এখনই ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করবে না যুক্তরাষ্ট্র

এখনই ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করবে না যুক্তরাষ্ট্র

এই বছরই ইরাক ছাড়বে মার্কিন বাহিনী

এই বছরই ইরাক ছাড়বে মার্কিন বাহিনী

সত্যি হতে চলেছে ‘মানব সমাজের পতন’ নিয়ে এমআইটি’র ১৯৭২ সালের পূর্বাভাস!

সত্যি হতে চলেছে ‘মানব সমাজের পতন’ নিয়ে এমআইটি’র ১৯৭২ সালের পূর্বাভাস!

তালেবানের বিরুদ্ধে বিমান হামলা অব্যাহত রাখার ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্রের

তালেবানের বিরুদ্ধে বিমান হামলা অব্যাহত রাখার ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্রের

© 2021 Bangla Tribune