X
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন: কী চাইছে চীন, রাশিয়া, ইসরায়েল

আপডেট : ০২ নভেম্বর ২০২০, ১৬:৩০
image

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন সবসময়ই আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের মনোযোগের কেন্দ্রে অবস্থান করে। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পররাষ্ট্রনীতিতে তাৎপর্যপূর্ণ পরিবর্তন এনেছেন। ট্রাম্পের দ্বিতীয় দফার জয়ের মধ্য দিয়ে সে ধারা বজায় থাকবে নাকি ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন এসে নতুন নীতি নির্ধারণ করবেন তা এখনও নিশ্চিত নয়। তবে পারস্পরিক স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট কারণেই চীন, রাশিয়া আর ইসরায়েল এই নির্বাচনের দিকে বিশেষ নজর রাখছে।

চীন

নির্বাচনী প্রচারের পুরো সময়জুড়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং জো বাইডেন ভোটারদের সামনে প্রমাণের চেষ্টা করে গেছেন−চীনের ব্যাপারে কে কার চেয়ে বেশি শক্ত হবেন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক বিশ্লেষণে বলা হয়েছে, কোনও সন্দেহ নেই যে ৩ নভেম্বরের নির্বাচনে তাদের দু'জনের যিনিই জিতুন না কেন, আমেরিকা এবং চীনের সম্পর্কে যে ভাঙন শুরু হয়েছে−তা থামবে না।

চীনের মতো করে আর অন্য কোনও দেশই এতোটা ক্ষোভ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনকে দেখে না। সম্প্রতি দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্য, প্রযুক্তি ও করোনাভাইরাস ইস্যুতে তিক্ততা চরমে পৌঁছেছে। ১৯৭৯ সালে গণপ্রজাতন্ত্রী চীনকে ওয়াশিংটনের প্রথম স্বীকৃতির পর এটিই সর্বোচ্চ মাত্রার তিক্ততা। তবে তারপরও চীনা কর্মকর্তারা নির্বাচনে ট্রাম্পের পরাজয়ে অবস্থার পরিবর্তন হওয়ার আশা করছেন না বললেই চলে। বরং তারা মনে করেন, বাইডেন ট্রাম্পের চেয়ে ‘চীনের প্রতি আরও বেশি কঠোর’ হবেন। তিনি আরও জটিল হবেন।

চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম ও সাধারণ অনলাইনে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনি ক্যাম্পেইনকে দুই বৃদ্ধের মধ্যকার লজ্জাজনক লড়াই হিসেবে আখ্যা দিয়েছে। কাইজিং নামের এক ম্যাগাজিনে লেখা হয়েছে−‘আমেরিকান প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের বিতর্ক কেন কাঁচা বাজারের ঝগড়ার মতো মনে হয়?’

গত সপ্তাহে চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ট্রাম্পকে আক্রমণ করে বলেন, ‘সমসাময়িক বিশ্বে কোনও ধরনের একতরফাবাদ, সংরক্ষণবাদ ও চরম ইগো কখনও কাজ করে না।’

রাশিয়া

২০১৬ সালের নির্বাচনে ট্রাম্পকে বিজয়ী করতে প্রচেষ্টা চালানোর জন্য রাশিয়াকে অভিযুক্ত করে থাকে সিআইএ। এবারও মার্কিন কর্মকর্তারা সতর্ক করে বলেছেন, প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে যে প্রার্থীই জয়ী হোন না কেন, যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করতে ভুয়া তথ্য ব্যবহার অব্যাহত রাখবে রাশিয়া। আর তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হলে মস্কোর প্রচেষ্টা আরও বেশি জোরালো হবে বলেও হুঁশিয়ার করেছেন তারা। মার্কিন কর্মকর্তারা বলছেন, নির্বাচনে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হলে ভুয়া তথ্য ছড়িয়ে নির্বাচনি প্রক্রিয়ার মর্যাদাহানির চেষ্টা করতে পারে রাশিয়া। মার্কিন গোয়েন্দাদের ধারণা, ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেনের প্রচার শিবিরকে অবমূল্যায়নের চেষ্টা করছে মস্কো। মার্কিন সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ এ খবর জানিয়েছে।

এদিকে ক্রেমলিনপন্থী সংবাদমাধ্যমগুলো এবারের নির্বাচনে সহিংসতা ও বিশৃঙ্খলার আশঙ্কা জানাচ্ছে। রাশিয়ার সবচেয়ে জনপ্রিয় ট্যাবলয়েড কমসোমলস্কায়া প্রাভদা এর শিরোনামে বলা হয়, ‘আমেরিকা কি গৃহযুদ্ধ থেকে এক ধাপ দূরে দাঁড়িয়ে আছে?’

তবে বেশিরভাগ রুশ নাগরিক মনে করে, যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে কে জয়ী হলো তাতে তাদের কিছু আসে যায় না। আরসেন পি আরুতইয়ুনিয়ান নামের ২৫ বছর বয়সী এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী বলেন, ‘ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের জন্য ভালো প্রেসিডেন্ট ছিলেন। তবে তাতে কোনও কাজ হয়নি। পুতিনকেই রাশিয়ার জন্য ভালো প্রেসিডেন্ট হতে দিন।’

ইসরায়েল

ডোনাল্ড ট্রাম্পের নেতৃত্বাধীন হোয়াইট হাউস থেকে বিপুল রাজনৈতিক সমর্থন পেয়েছে ইসরায়েলের ডানপন্থী সরকার। তার ‍বদৌলতেই তিনটি আরব দেশের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণ চুক্তিতে পৌঁছাতে পেরেছে তারা। ট্রাম্প জয় না পেয়ে যদি সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জোসেফ বাইডেন জুনিয়র জয় পান, তবে তা ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর জন্য যথেষ্ট ক্ষতির কারণ হতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রে দায়িত্ব পালনকারী সাবেক ইসরায়েলি রাষ্ট্রদূত সাল্লাই মেরিডোর বলেন, ‘ট্রাম্প শাসনক্ষমতায় থাকলে হোয়াইট হাউস ও নেতানিয়াহুর মধ্যকার সম্পর্ক আরও বেশি আলোক ঝলমলে হবে।’

ট্রাম্পের পররাষ্ট্রনীতির সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়েছে মধ্যপ্রাচ্যে। লেবাননের সংবাদপত্র আন্নাহার আল আরাবির কলাম লেখক হিশাম মেলহেম বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটিকরা জয়ী হলে মিসর, সৌদি আরব এবং তুরস্কের স্বৈরশাসকদের জন্য ওয়াশিংটনে কোনও বন্ধু থাকবে না বললেই চলে।

হিশাম আরও বলেন, বাইডেনের বিজয় ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণ নিয়ে সৌদি আরবকে ভাবনায় ফেলতে পারে। কারণ সৌদি আরবকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় থেকে বিচ্ছিন্ন রাষ্ট্র হিসেবে দেখে থাকেন বাইডেন। তার জয়ের পর সৌদি-আমেরিকান সম্পর্কের পুনর্মূল্যায়ন করতে হবে রিয়াদকে।

আবার ট্রাম্পের বিজয় ইসরায়েলিদেরকেও পুরোপুরি আশ্বস্ত করতে পারবে তা নয়। সাবেক ইসরায়েলি রাষ্ট্রদূত মেরিডোর বলেন, ট্রাম্প যে ইসরায়েলের জন্য ভালো সে ব্যাপারে কোনও সন্দেহ নেই। তবে গত চার বছরে বিশ্বে আমেরিকার নেতৃত্ব হ্রাস পাওয়ার ব্যাপারে যে ইসরায়েলিরা জানে না তা নয়। ইসরায়েলের জন্য বড় চিন্তার জায়গা হলো আমেরিকাকে শক্তিশালী হতে হবে। চীনের জ্বালানি চাহিদা ও রাশিয়ার তেলের মূল্য সংক্রান্ত স্পর্শকাতরতার প্রসঙ্গ টেনে মেরিডো বলেন, ‘মধ্যপ্রাচ্যে আমেরিকান উপস্থিতি ও প্রভাব তার প্রতিদ্বন্দ্বীদের জন্য চ্যালেঞ্জ ও দর কষাকষির পরিস্থিতি তৈরি করতে পারে। আমি চাই না আমার নাতি-নাতনিরা চীন ও রাশিয়ার আধিপত্যের অধীনে চলা বিশ্বে বড় হোক।’

 

/বিএ/এমএমজে/

সম্পর্কিত

যুক্তরাষ্ট্রে ১৪৭ যাত্রী নিয়ে ট্রেন লাইনচ্যুত, নিহত ৩

যুক্তরাষ্ট্রে ১৪৭ যাত্রী নিয়ে ট্রেন লাইনচ্যুত, নিহত ৩

বুস্টার ডোজ মানেই প্রস্তুতকারকদের লাভ

বুস্টার ডোজ মানেই প্রস্তুতকারকদের লাভ

মিয়ানমারে দ্রুত গণতন্ত্র ফেরাতে মোদি-বাইডেনের বিবৃতি

মিয়ানমারে দ্রুত গণতন্ত্র ফেরাতে মোদি-বাইডেনের বিবৃতি

মঙ্গল গ্রহে ভূমিকম্প, কাঁপলো দেড় ঘণ্টা

মঙ্গল গ্রহে ভূমিকম্প, কাঁপলো দেড় ঘণ্টা

ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে ৫ ফিলিস্তিনি নিহত

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:৩১

দখলকৃত পশ্চিম তীরে অভিযান চালিয়ে ৫ ফিলিস্তিনিকে গুলি করে হত্যা করেছে ইসরায়েলি বাহিনী। রবিবার রামাল্লাহ এবং জেনিন শহরের কাছে পাঁচটি আলাদা স্থানে অভিযান পরিচালনা করে ইসরায়েল।

ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর দাবি, ফিলিস্তিনি নিহতের জবাবে গাজা উপত্যকা থেকে রকেট হামলার পরিকল্পনা করছে ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাস।

খবরে বলা হয়েছে, তিন ফিলিস্তিনি নিহত হন কাফর বিদু এলাকায়। তাদের মরদেহ আটকে রেখেছে ইসরায়েলি বাহিনী। বাকিজনকে বুরকিনে হত্যা করা হলেও তাকে ইতোমধ্যে দাফন করা হয়েছে।

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে যাওয়ার পথে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেন্নেট দাবি করেন, ইসরায়েলি বাহিনী পশ্চিম তীরে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়েছে। তারা রকেট হামলা চালানোর চেষ্টা করছিল। এ বিষয়ে এখনও হামাসের প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

/এলকে/

সম্পর্কিত

ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড ছাড়তে ইসরায়েলকে আল্টিমেটাম আব্বাসের

ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড ছাড়তে ইসরায়েলকে আল্টিমেটাম আব্বাসের

ইয়েমেনে তুমুল লড়াইয়ে সরকারি বাহিনী ও হুথির ১৪০ যোদ্ধা নিহত

ইয়েমেনে তুমুল লড়াইয়ে সরকারি বাহিনী ও হুথির ১৪০ যোদ্ধা নিহত

বর্ণবাদবিরোধী সম্মেলনে জায়নবাদকে নিশ্চিহ্নের অঙ্গীকার ইরানের

বর্ণবাদবিরোধী সম্মেলনে জায়নবাদকে নিশ্চিহ্নের অঙ্গীকার ইরানের

আফগানিস্তানের দরজায় দুর্ভিক্ষ: জাতিসংঘ

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:৩৯

যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তানে দুর্ভিক্ষ ‘আসন্ন’ উল্লেখ করে সতর্ক করেছে জাতিসংঘ। করোনাভাইরাস এবং শীতকাল পরিস্থিতিকে আরও জটিল করে তুলবে বলে উদ্বেগ জানিয়েছে জাতিসংঘের জনসংখ্যা তহবিল (ইউএনএফপি)।

সংস্থাটির পরিচালক নাটালিয়া কানেম বলেন, তালেবান ক্ষমতায় আসায় পরিস্থিতি আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে। বিশেষ করে সামনের শীতে দুর্ভিক্ষ মাথা চাড়া দিয়ে উঠতে পারে। নিউ ইয়র্ক থেকে ফরাসি সংবাদমাধ্যম এএফপিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি আশঙ্কা করেন, আফগান জনগণের তিন ভাগের এক ভাগ লোক দুর্ভিক্ষের মুখে পড়বে। যার সংখ্যায় প্রায় ৩৩ লাখ মানুষ। 

আফগানিস্তানের বর্তমান স্বাস্থ্য সেবা নিয়েও বেশ উদ্বেগ প্রকাশ কানেম। বলেন, 'সামনের দিনগুলোতে দেশটিতে কীভাবে খাদ্যের যোগান আসবে তার নিশ্চিয়তা নেই। ইতোমধ্যে নারী ও কিশোরীরা নানা সমস্যা ভুগছেন। আফগানিস্তানে প্রসবের সময় এবং গর্ভাবস্থায় মৃত্যুর হার অনেক বেড়ে গেছে’। এ অবস্থায় আফগান জনগণের জরুরিভিত্তিতে সাহায্যের প্রয়োজন মনে করেন জাতিসংঘের জনসংখ্যা তহবিলের এই পরিচালক।

গত ১৫ আগস্ট আশরাফ গণি সরকারের পতন ঘটিয়ে ক্ষমতা দখল করে তালেবান গোষ্ঠী। এরপর থেকেই আফগানিস্তানে সংকট বাড়ছে।

/এলকে/
টাইমলাইন: আফগানিস্তান সংকট
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:৫০
আফগানিস্তানের দরজায় দুর্ভিক্ষ: জাতিসংঘ
২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:২৫
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:২৯
১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:১৮

সম্পর্কিত

তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি আলোচনার টেবিলে নেই: রাশিয়া

তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি আলোচনার টেবিলে নেই: রাশিয়া

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

জালালাবাদে আবারও বিস্ফোরণ, নেপথ্যে আইএসকেপি?

জালালাবাদে আবারও বিস্ফোরণ, নেপথ্যে আইএসকেপি?

সম্পত্তি হাতিয়ে নিতে ২০ বছরে পাঁচ খুন

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:৫১

সম্পত্তি হাতিয়ে নিতে গত ২০ বছরে পরিবারের পাঁচ সদস্যকে খুন করার অভিযোগ উঠেছে লীলু ত্যাগী নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে। ভারতের উত্তর প্রদেশের গাজিয়াবাদে এমন নৃশংস ঘটনায় তাকে আটক করেছে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে সে নিজের অপরাধের কথা স্বীকার করেন তিনি।

পুলিশ জানিয়েছে, গত ১৫ আগস্ট ব্রিজেশ ত্যাগী নামের এক ব্যক্তি থানায় অভিযোগ করেন, এক সপ্তাহ ধরে তার ছেলে রেশুর খোঁজ মিলছে না। ঘটনার তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ জানতে পারে সম্পত্তি নিয়ে ব্রিজেশের সঙ্গে বিবাদ চলছে তার ছোট ভাই লীলুর। পরে মুরাদনগর থেকে গত বুধবার আটক করা হয় লীলুকে।

পুলিশের তথ্যমতে, জিজ্ঞাসাবাদে নিজের অপরাধের কথা স্বীকার করেছে অভিযুক্ত লীলু। সে জানায়, ভাইপোকে অপহরণ করে তার পর তাকে বিষ খাইয়ে খুন করে খালে ফেলে দেয়।

পুলিশের সামনে এছাড়াও চাঞ্চল্যকর স্বীকারোক্তি দেয় লীলু। সে জানায় ২০ বছর আগে ২০০১ সালে প্রথমে দাদা সুধীর ত্যাগীকে বিষ খাইয়ে খুন করে। তার কয়েক মাস পরে সুধীরের আট বছর বয়সী মেয়ে পায়েলকেও একই ভাবে খুন করে সে। জোড়া খুনের তিন বছর বাদে সুধীরের বড় মেয়ে ১৬ বছর বয়সি পারুলকে খুন করে লীলু। এখানেই সে থামেনি। ২০১২ সালে ব্রিজেশের আর এক ছেলে নিশুকেও সে খুন করে।

জানা গেছে, গাজিয়াবাদের একটি জমি রয়েছে যার মূল্য পাঁচ কোটি টাকা। সেই জমি হাতিয়ে নেওয়ার জন্যই একের পর এক খুন করেছে লীলু। লীলুর বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এই ঘটনায় লীলুকে সাহায্য করার অভিযোগে আরও চার জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সূত্র: দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস, আনন্দবাজার

/এলকে/

সম্পর্কিত

সন্ধ্যায় ভারতীয় উপকূলে তাণ্ডব চালাবে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’

সন্ধ্যায় ভারতীয় উপকূলে তাণ্ডব চালাবে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

প্রতিশোধ নিতে বানরের ২২ কিলোমিটার ভ্রমণ

প্রতিশোধ নিতে বানরের ২২ কিলোমিটার ভ্রমণ

ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’

ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’

জার্মানিতে সাধারণ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:১৭

জার্মানির ২০তম জাতীয় নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। নতুন চ্যান্সেলর পেতে স্থানীয় সময় সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া ভোট গ্রহণ শেষ হবে সন্ধ্যা ৬টায়। ১৬টি অঙ্গরাজ্যে একযোগে চলছে ভোটগ্রহণ। এরমধ্যে দিয়ে দীর্ঘ ১৬ বছরের আঙ্গেলা ম্যার্কেল-এর শাসনামলের পর নতুন চ্যান্সেলর পেতে যাচ্ছে জার্মানরা। নির্বাচনকে কেন্দ্র দেশজুড়ে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। 

প্রার্থীরা নানা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন জনগণকে

করোনা মহামারির মধ্যে নির্বাচন আয়োজনের ফলে স্বাস্থ্যবিধি মেনেই নিজের পছন্দের চ্যান্সেলর পদপ্রার্থীকে ভোট দিচ্ছেন সাধারণ মানুষ। যেকোনও অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে জার্মানিজুড়ে নেওয়া হয়েছে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

এবারের জাতীয় নির্বাচনে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী চ্যান্সেলর পদে লড়ছেন না অ্যাঙ্গেলা ম্যার্কেল। তার দল ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্রেটিক ইউনিয়ন (সিডিইউ) থেকে লড়ছেন দলটির বর্তমান চেয়ারম্যান আরমিন লাশেট। সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এসপিডি) থেকে চ্যান্সেলর পদে লড়ছেন জার্মানির ভাইস চ্যান্সেলর ও অর্থমন্ত্রী ওলাফ শলৎস। জনমত জরিপে এখন পর্যন্ত এগিয়ে আছেন তিনি। আর পরিবেশবাদী দল গ্রিন পার্টি থেকে নির্বাচনে অংশ লড়ছেন আনালেনা বেয়ারবক।

এবারের জাতীয় নির্বাচনে চ্যান্সেলর পদপ্রার্থী ল্যাশেট-এর প্রতি পূর্ণ সমর্থনের কথা জানান দিয়েছেন ম্যার্কেল। দুটি শেষ জনমত জরিপে দেখা গেছে, সিডিইউ এবং সিএসইউ থেকে ২৬ পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছে স্যোশাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এসপিডি)। ভোট শেষে আগামী সোমবারের মধ্যে কিছু ফল পাওয়া যেতে পারে।

এবারের নির্বাচনে মোট ভোটার ৬ কোটি ৪০ লাখ। তবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে সবাই বুথে এসে সরাসরি ভোট দেবেন না। মেইলের মাধ্যমে অনেকেই নিজের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেওয়া সুযোগ থাকছে।

/এলকে/

সম্পর্কিত

জার্মানির নির্বাচন: চ্যান্সেলর ম্যার্কেলের উত্তরসূরি হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে কারা

জার্মানির নির্বাচন: চ্যান্সেলর ম্যার্কেলের উত্তরসূরি হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে কারা

‘তালেবান শো’ কোনও কাজে আসবে না: জার্মানি

‘তালেবান শো’ কোনও কাজে আসবে না: জার্মানি

'সতর্ক বার্তা', পারমাণবিক সাবমেরিন ইস্যুতে ফ্রান্সের পাশে জার্মানি

'সতর্ক বার্তা', পারমাণবিক সাবমেরিন ইস্যুতে ফ্রান্সের পাশে জার্মানি

সন্ধ্যায় ভারতীয় উপকূলে তাণ্ডব চালাবে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০৮

সন্ধ্যায় ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশ, উড়িষ্যা ও কালিঙ্গপত্তনামে আঘাত হানতে যাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানার সময় বাতাসের গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ৯৫ কিলোমিটার। রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) এ তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় আবহাওয়া দফতর।

আবহাওয়া দফতরের সবশেষ তথ্যমতে, ঘূর্ণিঝড়টি উড়িষ্যার গোপালপুর থেকে প্রায় ২৭০ কিলোমিটার পূর্ব-দক্ষিণপূর্বে এবং অন্ধ্রপ্রদেশের কলিঙ্গানাপত্তম থেকে ৩৩০ কিলোমিটার পূর্বে অবস্থান করছে। 

ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলায় এবং উদ্ধারকাজ চালাতে উড়িষ্যা এবং অন্ধ্রপ্রদেশে কয়েকভাগে মোতায়েন করা হয়েছে জরুরি বিভাগের কর্মীদের। এরমধ্যে উপকূলের ট্রেন পরিষেবা বাতিল করেছে কর্তৃপক্ষ।

এদিকে গুলাবের প্রভাবে গঙ্গা নদীর তীরবর্তী পশ্চিমবঙ্গের জেলাগুলোতে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে। বেশি প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং পূর্ব মেদিনীপুরে। কলকাতাতে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বাংলাদেশের সমুদ্রবন্দর ও নদীবন্দরে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এ জন্য সমুদ্রবন্দরগুলোকে ২ নম্বর দূরবর্তী সতর্কতা সংকেত এবং নদীবন্দরগুলোকে ১ নম্বর সর্তকতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। একই কারণে ঢাকাসহ সারা দেশেই মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টি হতে পারে।

/এলকে/

সম্পর্কিত

সম্পত্তি হাতিয়ে নিতে ২০ বছরে পাঁচ খুন

সম্পত্তি হাতিয়ে নিতে ২০ বছরে পাঁচ খুন

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানকে এক হাত নিলেন মোদি

প্রতিশোধ নিতে বানরের ২২ কিলোমিটার ভ্রমণ

প্রতিশোধ নিতে বানরের ২২ কিলোমিটার ভ্রমণ

ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’

ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

যুক্তরাষ্ট্রে ১৪৭ যাত্রী নিয়ে ট্রেন লাইনচ্যুত, নিহত ৩

যুক্তরাষ্ট্রে ১৪৭ যাত্রী নিয়ে ট্রেন লাইনচ্যুত, নিহত ৩

বুস্টার ডোজ মানেই প্রস্তুতকারকদের লাভ

বুস্টার ডোজ মানেই প্রস্তুতকারকদের লাভ

মিয়ানমারে দ্রুত গণতন্ত্র ফেরাতে মোদি-বাইডেনের বিবৃতি

মিয়ানমারে দ্রুত গণতন্ত্র ফেরাতে মোদি-বাইডেনের বিবৃতি

মঙ্গল গ্রহে ভূমিকম্প, কাঁপলো দেড় ঘণ্টা

মঙ্গল গ্রহে ভূমিকম্প, কাঁপলো দেড় ঘণ্টা

কমলা হ্যারিসে মুগ্ধ নরেন্দ্র মোদি

কমলা হ্যারিসে মুগ্ধ নরেন্দ্র মোদি

মোদি-কমলার বৈঠক, পাকিস্তানকে সন্ত্রাসীদের সমর্থন বন্ধ করা উচিত: কমলা

মোদি-কমলার বৈঠক, পাকিস্তানকে সন্ত্রাসীদের সমর্থন বন্ধ করা উচিত: কমলা

যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুক হামলায় হতাহত ১৩, হামলাকারীর আত্মহত্যা

যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুক হামলায় হতাহত ১৩, হামলাকারীর আত্মহত্যা

আসিয়ানের প্রতি অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করলো যুক্তরাষ্ট্র

আসিয়ানের প্রতি অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করলো যুক্তরাষ্ট্র

‘আফগানিস্তানে রক্তপাত ও অস্থিতিশীলতার জন্য যুক্তরাষ্ট্র দায়ী’

‘আফগানিস্তানে রক্তপাত ও অস্থিতিশীলতার জন্য যুক্তরাষ্ট্র দায়ী’

অকাস জোটে ভারত-জাপানকে রাখছে না যুক্তরাষ্ট্র

অকাস জোটে ভারত-জাপানকে রাখছে না যুক্তরাষ্ট্র

সর্বশেষ

পরিবহন ফি নিয়ে বিভ্রান্তি, ভোগান্তিতে কুবি শিক্ষার্থীরা

পরিবহন ফি নিয়ে বিভ্রান্তি, ভোগান্তিতে কুবি শিক্ষার্থীরা

শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকে অফিসার পদে ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ

শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকে অফিসার পদে ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৫৮০ মণ্ডপে হবে দুর্গাপূজা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৫৮০ মণ্ডপে হবে দুর্গাপূজা

আরও মতবিনিময় ও সভার দিনক্ষণ জানালো বিএনপি

আরও মতবিনিময় ও সভার দিনক্ষণ জানালো বিএনপি

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

© 2021 Bangla Tribune