সেকশনস

নীলফামারীজুড়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ, হাসপাতালে বাড়ছে রোগী

আপডেট : ১৮ জানুয়ারি ২০২১, ০৪:২৩

হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থিত উত্তরাঞ্চলের জেলা নীলফামারীতে বয়ে চলেছে মৃদু শৈত্য প্রবাহ। ঘন কুয়াশা ও কনকনে ঠাণ্ডা আবহাওয়ায় বিপন্ন হয়ে পড়েছে জনজীবন। মাঘের শুরুতেই এমন আবহাওয়ার সঙ্গে অবশ্য নীলফামারীবাসীর প্রতিবছরেই পরিচয় ঘটে। তবে ঘন কুয়াশা আর শীতের প্রকোপ বাড়ায় সন্ধ্যা নামতেই শহর হয়ে পড়ে স্থবির। ঘরমুখী হয়ে পড়ে পথচারীরা। মাঝে মাঝেই সারাদিনে মিলছে না সূর্যের দেখা। তখন হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করছে দূরপাল্লার যানবাহন।

গত দুই দিনের তাপমাত্রার রেকর্ড অনুযায়ী জানা যায়, নীলফামারীতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল বৃহস্পতিবার (১৪ জানুয়ারি) ৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তবে তাপমাত্রা আবার বাড়ছে। সৈয়দপুর বিমানবন্দর আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়া সহকারী লোকমান হাকিম জানান, শনিবার (১৬ জানুয়ারি) সকাল ১১ টায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১০ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রবিবারও তাপমাত্রা ছিল একইরকম। তিনি জানান, তাপমাত্রার এমন বাড়া কমায় কখনও সূর্যের দেখা মিলছে, আবার সারাদিন আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকছে। এই অবস্থা আরও কয়েকদিন থাকতে পারে। তবে রবিবার সূর্যের দেখা মেলায় তাপমাত্রা দুপুরের দিকে খানিকটা বেড়ে যায়।

এদিকে শীতের তীব্রতায় স্থানীয় হাসপাতালে নিউমোনিয়া, হাঁপানি, ব্রংকাইটিস, অ্যাজমা রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলছে।

নীলফামারী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. অমল চন্দ্র রায় জানান, অতিরিক্ত ঠাণ্ডার কারণে হাসপাতালে ডায়রিয়াসহ বিভিন্ন রোগীর সংখ্যা বাড়লেও তাদের পর্যাপ্ত চিকিৎসার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা রয়েছে। চিকিৎসকরাও আছেন প্রয়োজন অনুযায়ী।

অপরদিকে, তীব্র শীতে বয়স্ক রোগীদের শ্বাসকষ্টের প্রকোপ বেড়েছে। প্রতিদিন আন্তঃবিভাগে অ্যাজমা ও শ্বাসকষ্টের রোগী ১৫ থেকে ১৮ জন ভর্তি থাকে। এছাড়াও করোনার প্রকোপের কারণে বহির্বিভাগে অনেকেই চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরছেন।

আধুনিক সদর হাসপাতাল, নীলফামারী

হাসপাতালের পুরুষ ওয়ার্ডে ৮ নং বিছানার রোগী সাইদুল ইসলাম (৫৫) বলেন, শ্বাসকষ্টজনিত রোগে গত তিনদিন ধরে হাসপাতালে ভর্তি আছি। কিছুটা আরাম বোধ করলেও ঠাণ্ডায় থাকা যাচ্ছে না। আবার অনেকেই প্রয়োজনীয় চিকিৎসার অভাবে বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন। আমিও চলে যাবো।

একই হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. এএসএম রেজাউল করিম জানান, নিউমোনিয়া, হাঁপানি, অ্যাজমা রোগীর সংখ্যা আগের তুলনায় অনেক কমেছে। হাসপাতালে শীতে তেমন একটা প্রভাব পড়ে না। এছাড়াও শীতে রোগের জীবাণু কম ছড়ায়। ভর্তিকৃত রোগীরা যথেষ্ট সেবা পাচ্ছেন বলে দাবি করেন তিনি।

নীলফামারী সিভিল সার্জন ডা. জাহাঙ্গীর কবীর মোবাইল ফোনে জানান, শিশু কিংবা বয়স্ক রোগীদের যে কোনও ধরনের সমস্যা দেখা দিলে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে হবে।

এই শীতে প্রতিকার হিসেবে তিনি সব মানুষকে সব সময় গরম পানি ও গরম পানীয় পান এবং গরম খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন। পাশাপাশি যথেষ্ট বিশ্রাম নেওয়াসহ নিরাপদে থাকার পরামর্শ দেন। এছাড়াও ঠাণ্ডা যাতে না লাগে সেদিকে খেয়াল রাখার পাশাপাশি অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, ধুলাবালি মিশ্রিত আবহাওয়া এবং ধুমপান থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দেন।

সদর উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, শ্রমজীবী, ভ্যানচালক, অটোচালক, শিশু, নবজাতক ও বয়স্করা পড়েছে বিপাকে।

জেলা শহরের ডালপট্টি সড়কের বড় বাজার রিকশাস্ট্যান্ডে কথা হয় ভ্যানচালক জহির উদ্দিনের (৪৫) সঙ্গে। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, ‘গত তিনদিন ধরে ঠাণ্ডা বাতাসে হাত পাও শীতে কনকন করে। ভ্যানের হ্যান্ডেল ধরা যায় না। পেটের দায়ে ভ্যান নিয়ে রাস্তাত গেলেও ভাড়া পাওয়া যায় না। শহরত মাইনসে নাই। আগত য্যাটে কামাই হছিল ৩০০ থাকি ৩৫০ টাকা। এখন ১০০ টাকাও কামাই হয় না। এমন ঠাণ্ডায় বাঁচি কেমন করি?’

একই শহরের বড় বাজার ট্রাফিক মোড়ের জুতার কারিগর (মুচি) বাদল দাস (৩৪) ও রবিদাস (৩৯) বলেন, ‘ঠাণ্ডায় বসে কাজে করা যায় না। আর হামরাতো হাত গুটি বসি থাকির পাই না। হাতের কামাই দিয়ে সংসার চালাই। গত সাতদিন ধরি ঠাণ্ডা বাতাসে রাস্তায় মানুষও নাই, কাজ কামও নাই। চারজনের সংসার চালা ভীষণ দায় হইছে। কয়দিন গেলো করোনা আর এখন কনকন শীতে আয় রোজগার বন্ধ।’

/টিএন/

সম্পর্কিত

সড়ক দুর্ঘটনায় ৭ জেলায় নিহত ৮

সড়ক দুর্ঘটনায় ৭ জেলায় নিহত ৮

হারাগাছ পৌরসভায় আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর জয়

হারাগাছ পৌরসভায় আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর জয়

সৈয়দপুরে প্রথম নারী মেয়র আ.লীগের রাফিকা

সৈয়দপুরে প্রথম নারী মেয়র আ.লীগের রাফিকা

দুই প্রার্থীর সমর্থকদের হাতাহাতিতে ১ জন নিহতের অভিযোগ

দুই প্রার্থীর সমর্থকদের হাতাহাতিতে ১ জন নিহতের অভিযোগ

সৈয়দপুরে জাপা প্রার্থীর ভোট বর্জন

সৈয়দপুরে জাপা প্রার্থীর ভোট বর্জন

হারাগাছ পৌরসভায় বিএনপি সমর্থকদের শোডাউন

হারাগাছ পৌরসভায় বিএনপি সমর্থকদের শোডাউন

ট্রলি ও ভটভটির ধাক্কায় তিন জেলায় নিহত ৩

ট্রলি ও ভটভটির ধাক্কায় তিন জেলায় নিহত ৩

পঞ্চগড়ে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ, মারা গেছেন আহত ইউনুস

পঞ্চগড়ে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ, মারা গেছেন আহত ইউনুস

সর্বশেষ

মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর বিষয়টি হলফনামা আকারে জানাতে বললেন হাইকোর্ট

মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর বিষয়টি হলফনামা আকারে জানাতে বললেন হাইকোর্ট

রাবিতে ভর্তি পরীক্ষা শুরু ১৪ জুন

রাবিতে ভর্তি পরীক্ষা শুরু ১৪ জুন

রাজশাহীতে ঘোষণা ছাড়াই বাস বন্ধ, সাধারণ যাত্রীদের ভোগান্তি

রাজশাহীতে ঘোষণা ছাড়াই বাস বন্ধ, সাধারণ যাত্রীদের ভোগান্তি

বাংলাদেশে করোনার টিকা নিলেন ইংলিশ তিন কোচ

বাংলাদেশে করোনার টিকা নিলেন ইংলিশ তিন কোচ

ভেঙে পড়লো নির্মাণাধীন সেতু

ভেঙে পড়লো নির্মাণাধীন সেতু

দুর্গম এলাকায় স্থানীয়ভাবে শিক্ষক নিয়োগ, ডিজিটাল কনটেন্টে হবে পাঠদান

দুর্গম এলাকায় স্থানীয়ভাবে শিক্ষক নিয়োগ, ডিজিটাল কনটেন্টে হবে পাঠদান

যুক্তরাজ্যে করোনার টিকা পেয়েছে এক তৃতীয়াংশ মানুষ

যুক্তরাজ্যে করোনার টিকা পেয়েছে এক তৃতীয়াংশ মানুষ

অবস্থা ভালো নয়, একেবারে বিছানায় পড়ে গেছি: সুমন

অবস্থা ভালো নয়, একেবারে বিছানায় পড়ে গেছি: সুমন

সিরিয়ার রাজধানী লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা ইসরায়েলের

সিরিয়ার রাজধানী লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা ইসরায়েলের

নতুন রাজনৈতিক দল গড়ার প্রশ্নে যা বললেন ট্রাম্প

নতুন রাজনৈতিক দল গড়ার প্রশ্নে যা বললেন ট্রাম্প

‘দুর্নীতি-অনিয়ম করিনি, সম্মান থাকতে বিদায় নিয়েছি’

‘দুর্নীতি-অনিয়ম করিনি, সম্মান থাকতে বিদায় নিয়েছি’

‘সুবর্ণজয়ন্তীর শপথ হোক দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের’

‘সুবর্ণজয়ন্তীর শপথ হোক দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের’

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সড়ক দুর্ঘটনায় ৭ জেলায় নিহত ৮

সড়ক দুর্ঘটনায় ৭ জেলায় নিহত ৮

হারাগাছ পৌরসভায় আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর জয়

হারাগাছ পৌরসভায় আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর জয়

সৈয়দপুরে প্রথম নারী মেয়র আ.লীগের রাফিকা

সৈয়দপুরে প্রথম নারী মেয়র আ.লীগের রাফিকা

দুই প্রার্থীর সমর্থকদের হাতাহাতিতে ১ জন নিহতের অভিযোগ

দুই প্রার্থীর সমর্থকদের হাতাহাতিতে ১ জন নিহতের অভিযোগ

সৈয়দপুরে জাপা প্রার্থীর ভোট বর্জন

সৈয়দপুরে জাপা প্রার্থীর ভোট বর্জন

হারাগাছ পৌরসভায় বিএনপি সমর্থকদের শোডাউন

হারাগাছ পৌরসভায় বিএনপি সমর্থকদের শোডাউন

ট্রলি ও ভটভটির ধাক্কায় তিন জেলায় নিহত ৩

ট্রলি ও ভটভটির ধাক্কায় তিন জেলায় নিহত ৩


[email protected]
© 2021 Bangla Tribune
Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.