সেকশনস

‘বহুতল টিএসসি’র পরিকল্পনাকে যেভাবে দেখছেন স্থপতিরা

আপডেট : ১৯ জানুয়ারি ২০২১, ১৬:৫৫

ইতিহাস-ঐতিহ্যের জায়গা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র-টিএসসি’র পুরনো ভবন ভেঙে বহুতল ভবন নির্মাণের সিদ্ধান্তে ব্যাপক সমালোচনা সৃষ্টি হয়েছে। এরইমধ্যে নতুন ভবনের নকশা তৈরির কাজও শেষের দিকে। তবে দেশের স্বনামধন্য স্থপতিরা বলছেন, টিএসসির বয়স এখনও একশ’ বছর হয়নি। আইনিভাবে এটি প্রাচীন ভবন নয়। তারা আরও বলছেন, টিএসসির ঐতিহ্য এবং ঐতিহাসিক স্থাপনা সংরক্ষণ অত্যন্ত জরুরি। তা না হলে সাংস্কৃতিক ভারসাম্য নষ্ট হবে। এসব স্থাপনা নষ্ট করলে মানুষের মধ্যে বিভাজন তৈরি হবে। পুরনো ইতিহাস সংরক্ষণ না করলে এগুলোর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হবে খুবই ভয়াবহ। তখন এটি হবে জাতির জন্য গভীর হতাশার।

খ্যাতিমান স্থপতি এনামুল করিম নির্ঝর, যিনি অমর একুশে গ্রন্থমেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশটিকে রুচিশীল নান্দনিকতার সমন্বয়ে সাজিয়ে প্রশংসিত হয়েছিলেন। টিএসসি নিয়ে তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমাদের দেশে চর্চাটা কী, সেটি দেখতে হবে। এ দেশে আমরা ইতিহাসকে শ্রদ্ধা করি না।মানুষের অবদানকে শ্রদ্ধা করতে শিখিনি। সে জন্যই পুরনো জিনিসকে সংরক্ষণ করতে পারছি না। এসব কারণে আমাদের সামাজিক ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে। উন্নয়ন হবেই, এর সঙ্গে মানুষের আচার-ব্যবহার, সংস্কৃতিরও উন্নতি হতে হবে। পৃথিবীর অনেক দেশে বহুতল ভবন হয়েছে। তারা কিন্তু পুরনো জিনিসকে নষ্ট করে করেনি।’

জানা গেছে, গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের স্থাপত্য অধিদফতরের স্থপতিরা টিএসসির নতুন ভবনের নকশা তৈরির কাজ করছেন। কোন আঙ্গিকে নকশা তৈরি করা হচ্ছে, তা সংশ্লিষ্ট স্থপতিদের সঙ্গে কথা বলেও জানা যায়নি। প্রশ্ন করলে এ প্রতিবেদককে এড়িয়ে যান স্থাপত্য অধিদফতরের প্রধান স্থপতি আ স ম আমিনুর রহমান।

টিএসসিতে কত তলা ভবন তৈরি হবে—এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি এড়িয়ে গিয়ে বলেন, ‘কিছুই বলতে পারবো না। এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের যে চাহিদা, সেটির ওপর নির্ভর করবে। চাহিদা অনুযায়ী কত তলা তৈরি করা হবে, তা পরে বলা যাবে। হয়তো আমরা ভাবলাম ১০ তলা ভবন তৈরি হবে, কিন্তু পরে দেখা গেলো বিশ্ববিদ্যালয়ের যে চাহিদা তা ৫ বা ৬ তলার মধ্যে হয়ে যাবে। অনেক সময় সরকার ২০ বা ২৫ তলা ভবন তৈরির কথা বলে, কিন্তু দেখা গেলো যে চাহিদা, সেটি অনুযায়ী সাত বা আটতলার মধ্যেই হয়ে যায়। কিন্তু টিএসসির ক্ষেত্রে এরকম কিছু ঘটছে না।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনেকের অভিযোগ, টিএসসির পাশ দিয়ে মেট্রোরেল তৈরি করা হয়েছে। মেট্রোরেলের জন্যই টিএসসিকে ভাঙার পরিকল্পনা হচ্ছে। তারা আরও বলছেন, যেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোতে ভবন তৈরি করা প্রয়োজন, তা না করে টিএসসি ভেঙে ভবন তৈরি করা হচ্ছে।

সরেজমিন  দেখা যায়, টিএসসির দেয়ালের পাশে মেট্রোরেল নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। সেখানে টিএসসির একটি দেয়াল ভেঙে কাজ করা হয়েছে। যদিও কাজ শেষে দেয়ালটি আবারও নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে।    

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্য দিয়ে মেট্রোরেল নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত ছিল আত্মঘাতী বলে মন্তব্য করেন এনামুল করিম নির্ঝর। তিনি আরও বলেন, ‘যে প্রতিষ্ঠানের পাশে বঙ্গবন্ধু ৭ মার্চের ভাষণ দিয়েছিলেন, যেখানে বাংলা একাডেমি এবং শহীদ মিনার আছে, সেখানে বিভাজন কেন করা দরকার? একটি দেশে আমরা ঐক্যবদ্ধ হতে পারছি না। অন্তত সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রেও তো হতে পারি, বরং আরও বিভাজন সৃষ্টি করা হচ্ছে। এটি আমাদের জন্য গভীর হতাশার। এগুলোর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হবে খুবই ভয়াবহ। ক্ষমতা দিয়ে এসব কাজ করাই যেতে পারে, কিন্তু মানুষকে কখনও অনুপ্রাণিত করা যায় না, হয়তো মানুষকে শাসন করা যায়।’

ইঞ্জিনিয়ারিং আর্কিটেক্টস, এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক স্থপতি আল্লামা আল রাজি বলেন, ‘টিএসসির এখনও ১০০ বছর বয়স হয়নি। সেই অর্থে আইনগতভাবে এটি প্রাচীন ভবন না। এছাড়া এটি হচ্ছে একটি স্থাপনা। এখন আমরা ঐতিহাসিক স্থাপনাকে সংরক্ষণ করবো কী করবো না, সেটি জাতীয় সিদ্ধান্তের ব্যাপার। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল সমস্যা কি টিএসসিতে বহুতল ভবন না হওয়া? নাকি গবেষণা না হওয়া, শিক্ষার মান উন্নত না হওয়া? ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তো আমলা সৃষ্টির জায়গা না। এটির মূল কাজ হলো নতুন জ্ঞান সৃষ্টি করা। সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য অর্থ বরাদ্দ কতটা? টিএসসিতে ভবন তৈরির জায়গা আছে, কিন্তু গবেষণার জন্য বরাদ্দ এত কম কেন?’

নকশা চূড়ান্ত করবেন প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রকৌশলী আবুল কালাম সিকদার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মতামতের ভিত্তিতে গণপূর্ত মন্ত্রণালয়কে কিছু প্রয়োজনীয় চাহিদার কথা জানিয়েছি। সেই চাহিদার আলোকে স্থাপত্য অধিদফতর একটি নকশা তৈরির কাজ করছে। সেটি প্রস্তুত হলে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে দেখাবে। তখন যদি চাহিদা পূরণ হয়, এরপর সেটি প্রধানমন্ত্রীকে দেখানো হবে। তিনিই অনুমোদন দিলে নকশাটি চূড়ান্ত হবে।’

টিএসসিতে হতে পারে ৯ তলা ভবন

এক প্রশ্নের জবাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রকৌশলী আবুল কালাম সিকদার বলেন, ‘সর্বশেষ স্থাপত্য অধিদফতরের সঙ্গে যে সভা হয়েছে, সেখানে অধিদফতরের প্রকৌশলীরা ৯ তলা ভবনের একটি নকশা দেখিয়েছেন।’

মূলত স্থাপত্য অধিদফতরের সঙ্গে যোগাযোগের দায়িত্বে রয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সুপার ইঞ্জিনিয়ার একেএম মাহবুব মুস্তাফা। জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘টিএসসিতে বর্তমানে যেসব অ্যাকোমোডেশন সুবিধা রয়েছে, তা পর্যাপ্ত নয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সংখ্যা বিবেচনা করে অ্যাকোমোডেশন সুবিধা বৃদ্ধি করার প্রস্তাব করেছি। প্রস্তাবনায় টিএসসির মিলনায়তন, ক্যাফেটেরিয়া, সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোর জন্য নির্ধারিত স্থানের সুব্যবস্থার কথা বলা হয়েছে।’

আগামী ৩১ জানুয়ারি স্থাপত্য অধিদফতর টিএসসির মূল নকশা তৈরি করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে দেখাবে। নকশা তৈরির কাজ চলমান রয়েছে বলেও স্থাপত্য অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে।

টিএসসির নকশার বিষয়ে জানতে চাইলে স্থাপত্য অধিদফতরের প্রধান স্থপতি আ স ম আমিনুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পুরোপুরি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান। টিএসসির নকশার কাজ এখনও চলমান। নকশার কাজ শেষ হলে আমরা জুরি কমিটির কাছে পাঠাই। ওনারা দেখে মতামত দিয়ে থাকেন। আমাদের যেভাবে বলা হয়, আমরা সেভাবে নকশার কাজ করি।’

/এসআইআর/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

ধানমন্ডিতে শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু: আসামিদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ১২ এপ্রিল

ধানমন্ডিতে শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু: আসামিদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ১২ এপ্রিল

অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৩০ হাজার ‘বীর নিবাস’ হবে: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী 

অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৩০ হাজার ‘বীর নিবাস’ হবে: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী 

মুশতাকের মৃত্যুতে বিদেশিদের বক্তব্য শিষ্টাচার বহির্ভূত: তথ্যমন্ত্রী

মুশতাকের মৃত্যুতে বিদেশিদের বক্তব্য শিষ্টাচার বহির্ভূত: তথ্যমন্ত্রী

গ্রেফতার শিক্ষার্থীদের মুক্তির দাবিতে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ

গ্রেফতার শিক্ষার্থীদের মুক্তির দাবিতে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ

বাংলাদেশে প্রবেশের অপেক্ষায় ভারতে আটকে আছে ৫৫০০ পণ্যবাহী ট্রাক

বাংলাদেশে প্রবেশের অপেক্ষায় ভারতে আটকে আছে ৫৫০০ পণ্যবাহী ট্রাক

ডিএনসিসিতে কিউলেক্স মশা নিধনে আসছে সমন্বিত অভিযান

ডিএনসিসিতে কিউলেক্স মশা নিধনে আসছে সমন্বিত অভিযান

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনের দাবিতে সাংবাদিকদের মানববন্ধন

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনের দাবিতে সাংবাদিকদের মানববন্ধন

দুদকের তদন্ত কর্মকর্তার অনৈতিক দাবির বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আসামিরা

দুদকের তদন্ত কর্মকর্তার অনৈতিক দাবির বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আসামিরা

মেডিক্যালের ভর্তি পরীক্ষা পেছানোর দাবিতে মানববন্ধন

মেডিক্যালের ভর্তি পরীক্ষা পেছানোর দাবিতে মানববন্ধন

নিবন্ধন ৪৫ লাখ, টিকা নিয়েছেন সাড়ে ৩৩ লাখ

নিবন্ধন ৪৫ লাখ, টিকা নিয়েছেন সাড়ে ৩৩ লাখ

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৭ মার্চ পালনের নির্দেশ, পতাকা উত্তোলন বাধ্যতামূলক

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৭ মার্চ পালনের নির্দেশ, পতাকা উত্তোলন বাধ্যতামূলক

সর্বশেষ

রাতটা কাটলো শুধু পুলিশ হেফাজতে

রাতটা কাটলো শুধু পুলিশ হেফাজতে

‘এক মাস আগে মাটি কাটছি, আইজও টেকা দেয় না পিআইসি’

‘এক মাস আগে মাটি কাটছি, আইজও টেকা দেয় না পিআইসি’

ধানমন্ডিতে শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু: আসামিদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ১২ এপ্রিল

ধানমন্ডিতে শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু: আসামিদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ১২ এপ্রিল

শাবির নতুন ছাত্র উপদেশ ও নির্দেশনা পরিচালক অধ্যাপক জহীর উদ্দিন

শাবির নতুন ছাত্র উপদেশ ও নির্দেশনা পরিচালক অধ্যাপক জহীর উদ্দিন

নিউজিল্যান্ডে নতুন বলেই আসল চ্যালেঞ্জ

নিউজিল্যান্ডে নতুন বলেই আসল চ্যালেঞ্জ

অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৩০ হাজার ‘বীর নিবাস’ হবে: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী 

অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৩০ হাজার ‘বীর নিবাস’ হবে: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী 

জাবিতে তিন দফা দাবিতে ছাত্র ফ্রন্টের মানববন্ধন

জাবিতে তিন দফা দাবিতে ছাত্র ফ্রন্টের মানববন্ধন

মুশতাকের মৃত্যুতে বিদেশিদের বক্তব্য শিষ্টাচার বহির্ভূত: তথ্যমন্ত্রী

মুশতাকের মৃত্যুতে বিদেশিদের বক্তব্য শিষ্টাচার বহির্ভূত: তথ্যমন্ত্রী

নারীকে পিস্তল ঠেকিয়ে ছিনতাই: সেই তিন পুলিশ সদস্য ২ দিনের রিমান্ডে

নারীকে পিস্তল ঠেকিয়ে ছিনতাই: সেই তিন পুলিশ সদস্য ২ দিনের রিমান্ডে

চকলেটের প্যাকেটে ইয়াবা পাচার, গ্রেফতার ১

চকলেটের প্যাকেটে ইয়াবা পাচার, গ্রেফতার ১

গ্রেফতার শিক্ষার্থীদের মুক্তির দাবিতে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ

গ্রেফতার শিক্ষার্থীদের মুক্তির দাবিতে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ

সম্মিলিত ইউনানী-আয়ুর্বেদিক চিকিৎসক পরিষদ সমর্থিত প্রার্থীদের বিজয়ে সংবর্ধনা

সম্মিলিত ইউনানী-আয়ুর্বেদিক চিকিৎসক পরিষদ সমর্থিত প্রার্থীদের বিজয়ে সংবর্ধনা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ধানমন্ডিতে শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু: আসামিদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ১২ এপ্রিল

ধানমন্ডিতে শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু: আসামিদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ১২ এপ্রিল

অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৩০ হাজার ‘বীর নিবাস’ হবে: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী 

অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৩০ হাজার ‘বীর নিবাস’ হবে: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী 

গ্রেফতার শিক্ষার্থীদের মুক্তির দাবিতে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ

গ্রেফতার শিক্ষার্থীদের মুক্তির দাবিতে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ

ডিএনসিসিতে কিউলেক্স মশা নিধনে আসছে সমন্বিত অভিযান

ডিএনসিসিতে কিউলেক্স মশা নিধনে আসছে সমন্বিত অভিযান

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনের দাবিতে সাংবাদিকদের মানববন্ধন

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনের দাবিতে সাংবাদিকদের মানববন্ধন

দুদকের তদন্ত কর্মকর্তার অনৈতিক দাবির বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আসামিরা

দুদকের তদন্ত কর্মকর্তার অনৈতিক দাবির বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আসামিরা

মেডিক্যালের ভর্তি পরীক্ষা পেছানোর দাবিতে মানববন্ধন

মেডিক্যালের ভর্তি পরীক্ষা পেছানোর দাবিতে মানববন্ধন

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৭ মার্চ পালনের নির্দেশ, পতাকা উত্তোলন বাধ্যতামূলক

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৭ মার্চ পালনের নির্দেশ, পতাকা উত্তোলন বাধ্যতামূলক

জরুরি ভিত্তিতে প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের তথ্য চেয়েছে সরকার

জরুরি ভিত্তিতে প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের তথ্য চেয়েছে সরকার


[email protected]
© 2021 Bangla Tribune
Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.