X
বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ৮ বৈশাখ ১৪২৮

সেকশনস

কারাগারের সিসিটিভির ফুটেজ ফাঁস: যা আছে তদন্ত প্রতিবেদনে

আপডেট : ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৭:৫৩

সিনিয়র জেল সুপার ও জেলারসহ চার কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কারাবিধি অনুযায়ী বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করেছে কাশিমপুর কারাগারের সিসিটিভি ফুটেজ ফাঁসের ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি। ওই ঘটনায় কারা বিভাগ, রাষ্ট্র ও সরকারকে বিব্রত এবং হেয় করা হয়েছে বলেও মন্তব্য করা হয় তদন্ত প্রতিবেদনে।

যেসব কারা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে, তারা একে অপরকে প্রতিপক্ষ হিসেবে বক্তব্য তুলে ধরেন তদন্ত কমিটির কাছে। যা তদন্ত প্রতিবেদনে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়। সিনিয়র জেল সুপার রত্না রায়, জেলার নূর মোহাম্মদ মৃধা, ডেপুটি জেলার গোলাম সাকলাইন ও মফিজুল ইসলামের বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলাসহ বিভিন্ন অভিযোগে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে সুপারিশ করা হয়।

‘উত্তেজিত হয়ে টিভিতে ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য দিয়ে কারা বিভাগ, সরকার ও রাষ্ট্রকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য’ দায়ী করে ডেপুটি জেলার গোলাম সাকলাইনের বিরুদ্ধে ‘দৃষ্টান্তমূলক’ বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে বলা হয় প্রতিবেদনে। চার কারা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা ছাড়াও ভবিষ্যতে করণীয় বিষয়ে আরও পাঁচটি সুপারিশ করে কমিটি। এরমধ্যে কারা বিভাগের জন্য কেন্দ্রীয়ভাবে উপযুক্ত মিডিয়া সেল গঠনের মাধ্যমে গণমাধ্যমকে প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদান নিশ্চিত করার কথা বলা হয়। যাতে গণমাধ্যম ও কারা কর্তৃপক্ষের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি না হয়।

প্রসঙ্গত, গত ৬ জানুয়ারি কাশিমপুর কারাগারে বন্দির সঙ্গে এক নারীর দেখা করার সিসিটিভি ফুটেজ ফাঁস হয়। এটি কীভাবে ফাঁস হয়েছে বিষয়টি খতিয়ে দেখতে কারা কর্তৃপক্ষ তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। যে তদন্ত কমিটির প্রধান করা হয় কারা অধিদফতরের যশোর বিভাগের ডিআইজি প্রিজনস মো. ছগির মিয়াকে। কমিটির সদস্য করা হয় কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার (চলতি দায়িত্ব) মো. গিয়াস উদ্দিন ও ফরিদপুর জেলা কারাগারের জেল সুপার আল মাসুমকে। সূত্র জানায়, গত ১১ ফেব্রুয়ারি কমিটি কারা অধিদফতরে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করে।

সূত্র আরও জানায়, ভবিষ্যতের করণীয় বিষয়ে তদন্ত কমিটির পাঁচটি সুপারিশ হলো, জেল কোড অনুযায়ী কারাগারের তথ্য সংরক্ষণ ও তথ্য প্রদানে সংশ্লিষ্ট কারা কর্তৃপক্ষ ব্যর্থতার পরিচয় দেওয়ার বিষয়টি তুলে ধরে কেন্দ্রীয়ভাবে কারা বিভাগের জন্য উপযুক্ত মিডিয়া সেল গঠন করা হয়। কারাবিধি ও সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট সকলের সমন্বয়ের মাধ্যমে সুষ্ঠু কারা প্রশাসন নিশ্চিত করতে আইন অনুযায়ী গণমাধ্যমকে তথ্য দেওয়া নিশ্চিত করা। কারাগারকে একটি রাষ্ট্রীয় স্পর্শকাতর প্রতিষ্ঠান হিসেবে উল্লেখ করে প্রতিটি বিষয়ে কারাবিধি অনুযায়ী চেইন অব কমান্ড প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয়ভাবে পুনর্নির্দেশনা দেওয়া। যেকোনও অনাকাঙ্ক্ষিত ও অপ্রত্যাশিত ঘটনা ঘটলে ভিডিও ফুটেজ ও সংশ্লিষ্ট দাফতরিক রেকর্ডপত্রের যেনও কোনও পরিবর্তন করা না যায় সেজন্য সারাদেশের কারাগার কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা দেওয়া। সিনিয়র জেল সুপার, জেল সুপার ও জেলারের বৈধ অনুমতি ছাড়া বহিরাগতদের কারা এলাকায় প্রবেশের ক্ষেত্রে কঠোর বিধি-নিষেধ আরোপ করা।

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, বর্তমানে সাময়িক বরখাস্ত সিনিয়র জেল সুপার রত্না রায় অফিস প্রধান হিসেবে সার্বিক নিরাপত্তার দায়িত্ব এবং গত ৬ জানুয়ারির ভিডিও ফুটেজের গোপনীয়তা রক্ষা ও সংরক্ষণে ব্যর্থ হয়েছেন। শুধু অন্যান্যদের ওপর দায়িত্ব দেওয়ার বিষয় উল্লেখ করেই নিজ দায়িত্ব এড়ানোর অপচেষ্টা করেছেন। যা দায়িত্বহীনতার শামিল। তার বক্তব্যের প্রতিটি ক্ষেত্রেই জেলারকে প্রতিপক্ষ হিসেবে দেখিয়েছেন। এতে প্রমাণিত হয় জেলার ও সিনিয়র জেল সুপারের মধ্যে চরম সমন্বয়হীনতার অভাব ছিল। দাফতরিক কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের একত্রিত রেখে সমন্বয়ের মাধ্যমে সুষ্ঠুভাবে কারা প্রশাসন পরিচালনা করতে ব্যর্থ হয়েছেন। অধীনস্থদের সুষ্ঠু তদারকি ও অফিস ব্যবস্থাপনায় ব্যর্থতার দায়ে তার বিরুদ্ধে কারা বিধি অনুযায়ী বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া জরুরি।

জেলার নুর মোহাম্মদ মৃধা (বর্তমানে সাময়িক বরখাস্ত) গত ১৪ জানুয়ারি হাজতি আসামি তুষারের দেখার করার বিষয়ে ভিডিও ফুটেজ এডিট করে কারারক্ষী আল আমিনের কাছ থেকে সংগ্রহ করেছেন। এই ভিডিও ফুটেজে যে বিবৃতি প্রচারিত হয়েছে তাতে শুধুমাত্র সিনিয়র জেল সুপার কেন্দ্রিক। জেলার সংশ্লিষ্ট কিছুই দেখানো হয়নি।

ডেপুটি জেলার মো. গোলাম সাকলাইন জেলার নূর মোহাম্মদের সরকারি বাসার ড্রয়িং রুমে বসে যে বক্তব্য দিয়েছেন সেটি একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেল প্রচার হয়েছে। এ বিষয়টিও জেলার তার সরকারি বাসার ড্রয়িং রুমে বক্তব্য দেওয়ার বিষয়টি জানেন না বলে তদন্ত কমিটিকে জানিয়েছেন। কারাবিধি অনুযায়ী কারাগারের যাবতীয় রেজিস্ট্রার, রেকর্ড সংরক্ষণের জন্য জেলার দায়ী থাকার কথা। জেলারকে অধস্তন কর্মচারীদের কার্যাবলী তদারকি তথা যাবতীয় কাজ সঠিক সময় আদায় করে নিতে হবে। যা জেলার যথাযথভাবে পালনে ব্যর্থ হয়েছেন। এ বিষয়ে ভিডিও ফুটেজ নিয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে জেলারের কোনও দায়দায়িত্ব দেখানো হয়নি। এটা প্রমাণ করে যে, ভিডিও ফুটেজ ও দাফতরিক রেকর্ড মিডিয়ার হস্তগত হওয়ার ক্ষেত্রে জেলারের পরোক্ষভাবে হাত রয়েছে। কারাবিধি লঙ্ঘনের অপরাধে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হলো।

প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়, ডেপুটি জেলার মো. গোলাম সাকলাইন কারাগারের তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা নন। তারপরও জেলারের সরকারি বাসার ড্রইং রুমে বসে উত্তেজিত হয়ে বক্তব্য দিয়েছেন। তার সেই ভিডিও ফুটেজের বক্তব্যটি গত ২২ জানুয়ারি একটি টিভি চ্যানেলে প্রচারিত হয়েছে। তিনি কখনও জেলারকে, কখনও নিজেকে দায়মুক্ত করার অপচেষ্টা করেছেন। অত্যন্ত সুকৌশলে মিডিয়ার লোক বা তৃতীয় পক্ষের কোনও ব্যক্তিকে জেলারের সরকারি বাসার ড্রইংরুমে ডেকে ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য দিয়ে কারা বিভাগকে জনসম্মুখে হেয় প্রতিপন্ন করেছেন। একটি সুশৃঙ্খল বাহিনীর বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ গ্রহণকারী দায়িত্বশীল কর্মকর্তা হিসেবে যে ধৃষ্টতার পরিচয় তিনি দিয়েছেন। এতে দেশের কারা বিভাগ, রাষ্ট্র ও সরকারকে বিব্রত করেছেন। তার এমন কার্যকলাপ কারাবিধির সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। তার বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হলো।

ডিপুটি জেলার মফিজুল ইসলাম সিনিয়র জেল সুপার রত্না রায়ের নির্দেশে সিসিটিভি ফুটেজ ও জেলারের নিকট থেকে বুঝে নেওয়ার পর তা সংরক্ষণে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন। যা কারাবিধির পরিপন্থী বিধায় তার বিরুদ্ধেও বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হলো।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে আইজি প্রিজন্স ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মোমিনুর রহমান মামুন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন আমরা হাতে পেয়েছি। সেটি ভালোভাবে খতিয়ে দেখছি। প্রতিবেদনের সুপারিশ বাস্তবায়নের বিষয়টিও আমরা গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করে দেখব। যাতে ব্যক্তিগত স্বার্থে কেউ কারা বিভাগকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে না পারে।

/এমআর/-এনএস/

সম্পর্কিত

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাংবাদিক আবু তৈয়ব গ্রেফতার

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাংবাদিক আবু তৈয়ব গ্রেফতার

মধ্যরাতে হেফাজত নেতা মাওলানা আতাউল্লাহ আমীন গ্রেফতার

মধ্যরাতে হেফাজত নেতা মাওলানা আতাউল্লাহ আমীন গ্রেফতার

পরিবারের সদস্যদের এসিড মেরে যুবকের আত্মহত্যার চেষ্টা

পরিবারের সদস্যদের এসিড মেরে যুবকের আত্মহত্যার চেষ্টা

সালথা তাণ্ডব: সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান গ্রেফতার

সালথা তাণ্ডব: সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান গ্রেফতার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পুলিশ লাইনসে হামলা: প্রধান আসামি যুবদল নেতা গ্রেফতার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পুলিশ লাইনসে হামলা: প্রধান আসামি যুবদল নেতা গ্রেফতার

মিকনকে ক্রসফায়ারে দেওয়া হবে: কাদের মির্জা

মিকনকে ক্রসফায়ারে দেওয়া হবে: কাদের মির্জা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের তাণ্ডব: আরও ৭ গ্রেফতার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের তাণ্ডব: আরও ৭ গ্রেফতার

পোশাক শ্রমিককে সঙ্ঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ

পোশাক শ্রমিককে সঙ্ঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ

পরিত্যক্ত বাড়ি থেকে সরকারি চাল জব্দ

পরিত্যক্ত বাড়ি থেকে সরকারি চাল জব্দ

অক্সিজেনের সংকট নেই: হাইকোর্টকে অ্যাটর্নি জেনারেল

অক্সিজেনের সংকট নেই: হাইকোর্টকে অ্যাটর্নি জেনারেল

প্রবাসীর কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ, মডেল রোমানা রিমান্ডে

প্রবাসীর কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ, মডেল রোমানা রিমান্ডে

এফবিসিসিআই নির্বাচন বন্ধের বিষয়ে হাইকোর্টের রুল

এফবিসিসিআই নির্বাচন বন্ধের বিষয়ে হাইকোর্টের রুল

সর্বশেষ

মূল্য বৃদ্ধির জন্য দায়ী ব্যক্তিদের খুঁজে বের করতে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশ

মূল্য বৃদ্ধির জন্য দায়ী ব্যক্তিদের খুঁজে বের করতে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাংবাদিক আবু তৈয়ব গ্রেফতার

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাংবাদিক আবু তৈয়ব গ্রেফতার

মধ্যরাতে হেফাজত নেতা মাওলানা আতাউল্লাহ আমীন গ্রেফতার

মধ্যরাতে হেফাজত নেতা মাওলানা আতাউল্লাহ আমীন গ্রেফতার

ইসলামপুরের কুখ্যাত নৌ-ডাকাতকে জবাই করে হত্যা

ইসলামপুরের কুখ্যাত নৌ-ডাকাতকে জবাই করে হত্যা

মুম্বাইকে হারিয়ে দিল্লির প্রতিরোধ

মুম্বাইকে হারিয়ে দিল্লির প্রতিরোধ

তিন দিনে বিদেশ গেছেন সাড়ে ৮ হাজার প্রবাসী

তিন দিনে বিদেশ গেছেন সাড়ে ৮ হাজার প্রবাসী

লকডাউন থেকে ভারতকে বাঁচাতে বললেন মোদি

লকডাউন থেকে ভারতকে বাঁচাতে বললেন মোদি

লকডাউন কি করোনাভাইরাসের বিস্তার কম করতে সহায়তা করে?

লকডাউন কি করোনাভাইরাসের বিস্তার কম করতে সহায়তা করে?

কাদের মির্জার ভাই ও ছেলেসহ ৩৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

কাদের মির্জার ভাই ও ছেলেসহ ৩৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

আইনজীবীর সঙ্গে পুলিশের অসৌজন্যমূলক আচরণ, ঢাকা বারের প্রতিবাদ

আইনজীবীর সঙ্গে পুলিশের অসৌজন্যমূলক আচরণ, ঢাকা বারের প্রতিবাদ

বিমানবন্দরে দেখা মিললো বিরাট-অনুশকা কন্যার

বিমানবন্দরে দেখা মিললো বিরাট-অনুশকা কন্যার

ফুরিয়ে যাচ্ছে টিকার স্টক

ফুরিয়ে যাচ্ছে টিকার স্টক

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মধ্যরাতে হেফাজত নেতা মাওলানা আতাউল্লাহ আমীন গ্রেফতার

মধ্যরাতে হেফাজত নেতা মাওলানা আতাউল্লাহ আমীন গ্রেফতার

পরিবারের সদস্যদের এসিড মেরে যুবকের আত্মহত্যার চেষ্টা

পরিবারের সদস্যদের এসিড মেরে যুবকের আত্মহত্যার চেষ্টা

অক্সিজেনের সংকট নেই: হাইকোর্টকে অ্যাটর্নি জেনারেল

অক্সিজেনের সংকট নেই: হাইকোর্টকে অ্যাটর্নি জেনারেল

প্রবাসীর কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ, মডেল রোমানা রিমান্ডে

প্রবাসীর কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ, মডেল রোমানা রিমান্ডে

এফবিসিসিআই নির্বাচন বন্ধের বিষয়ে হাইকোর্টের রুল

এফবিসিসিআই নির্বাচন বন্ধের বিষয়ে হাইকোর্টের রুল

চিকিৎসক-পুলিশের আচরণ অনাকাঙ্ক্ষিত: হাইকোর্ট

চিকিৎসক-পুলিশের আচরণ অনাকাঙ্ক্ষিত: হাইকোর্ট

সিআইডিও মামুনুল হককে রিমান্ডে নিতে চায়

সিআইডিও মামুনুল হককে রিমান্ডে নিতে চায়

৫ মে’র আগে খালেদা জিয়ার সঙ্গে গোপন বৈঠক করেছিলেন বাবুনগরী

হেফাজত নেতার জবানবন্দি৫ মে’র আগে খালেদা জিয়ার সঙ্গে গোপন বৈঠক করেছিলেন বাবুনগরী

মামুনুল হকের রিসোর্টকাণ্ড: সোনারগাঁ থানার ওসিকে বাধ্যতামূলক অবসর

মামুনুল হকের রিসোর্টকাণ্ড: সোনারগাঁ থানার ওসিকে বাধ্যতামূলক অবসর

ভার্চুয়াল কোর্টে জামিন পেয়ে কারামুক্ত ১০ হাজার ৬৮১ হাজতি

ভার্চুয়াল কোর্টে জামিন পেয়ে কারামুক্ত ১০ হাজার ৬৮১ হাজতি

Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.
© 2021 Bangla Tribune