X
সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ৬ বৈশাখ ১৪২৮

সেকশনস

চুড়িহাট্টার আগুন: দুই বছরেও চার্জশিট দেয়নি পুলিশ

আপডেট : ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৬:২৯

রাজধানীর চকবাজারের চুড়িহাট্টায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের দুই বছর পূর্ণ হলো। এ ঘটনায় করা মামলার চার্জশিট এখনও আদালতে জমা দিতে পারেনি পুলিশ। পুলিশ বলছে, এজাহারে সন্দেহভাজন দুই আসামি আছে। যাদের বিষয়ে কোনও তথ্য সংগ্রহ করতে পারেনি তদন্তকারী কর্মকর্তা। যার কারণে চার্জশিট জমা পড়েনি আদালতে।

চুড়িহাট্টার চারতলা ওয়াহেদ ম্যানশনের ক্ষতগুলো নতুন ইটবালিতে সংস্কার হয়েছে। এখন দেখে বোঝার উপায় নেই ২০১৯ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি রাতে দাউ দাউ করে জ্বলছিল ভবনটি। বিভিন্ন ফ্লোর থেকে ছিটকে পড়ছিল লাইটারের গ্যাস, সুগন্ধিসহ বিভিন্ন কেমিক্যালের টিউব। মুহূর্তে আগুন ছড়িয়ে পড়েছিল আশপাশের ভবনে।

এখন পুরো চকবাজার জুড়ে আবার বসেছে ছোট ছোট কেমিক্যালের গুদাম। সরু গলিতে ঢুকছে সিএনজিচালিত পিকআপ ভ্যান। গলির মুখে খাবার দোকানগুলোতে জ্বলছে চুলাও। এমনকি ওয়াহেদ ম্যানশনের সামনেই বসেছে অনিরাপদ নানা দাহ্য পদার্থের দোকান।

আগুন লাগার দিন যে রেস্তোরাঁর সিসিটিভি ফুটেজ দেখে বোঝা গিয়েছিল আগুনের ভয়াবহতা, সেই রেস্তোরাঁর সামনে আবার চুলা জ্বলছে। দেখে মনে হবে সরু রাস্তা দিয়ে যাওয়া যাত্রীরা ওই আগুন থেকেও নিরাপদ নয়।

আজও ভবনটির দিকে তাকিয়ে স্বজনরা

ঠিক দুই বছর আগে এই দিনে আগুনে স্বামী হারান পুরান ঢাকার বাসিন্দা ফাতেমা আক্তার। শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় তাকে ওই ভবনের সামনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেলো। প্রশ্ন করতেই জানান, তার স্বামী ফয়সালের শরীরের প্রায় শতভাগই পুড়ে গিয়েছিল আগুনে। ফাতেমা অভিযোগ করে বলেন, এই যে মামলা হয়েছে, তাতে কী হয়েছে? বাড়ির মালিকরা তো ১০ দিনও জেলখানায় ছিলেন না। জামিনে বের হয়ে ঘোরাফিরা করছেন। পুড়ে যাওয়া ভবনের সংস্কারও করেছেন। সরকারও বলেছিল, আমাদের পাশে দাঁড়াবে। এখনও কেউ দাঁড়ায়নি। প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন করছি, তিনি যেন অন্তত আমাদের পাশে দাঁড়ান।

পুড়ে যাওয়া যুবক মাহিরের বাবা নাসির উদ্দিন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, এ ঘটনায় যে আইনি প্রক্রিয়া চলছে তাতে আমরা খুশি না। নিমতলীতে যখন ঘটনাটা ঘটেছিল তখন যদি সরকার কড়া ব্যবস্থা নিতো, তবে চুড়িহাট্টা ট্র্যাজেডি ঘটতো না। এখনও যদি এই ঘটনায় সরকার ব্যবস্থা না নেয়, তবে সামনে আবারও এমন ভয়াবহ ঘটনা ঘটবে। আমরা চাই রাসায়নিক দ্রব্যের ব্যবসা সরকার আবাসিক এলাকা থেকে সরিয়ে নিক। আর কোনও বাবা যেন সন্তান না হারায়। 

‘ভবনটির দুই মালিককে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। তাদেরকে যদি ঠিকঠাক জিজ্ঞাসাবাদ করা হতো, তবে বের হয়ে আসতো অনেক কিছু। আজও গোডাউনের মালিককে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। সন্তান হারিয়েছি। কিন্তু বিচার পেলাম না।’ আক্ষেপ নাসির উদ্দিনের।

সন্তুষ্ট পুলিশ

এই মামলার গুরুত্বপূর্ণ অংশ ছিল ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন। যেটা প্রস্তত করতেই সময় লেগেছে অনেক। এখন ময়নাতদন্ত ও ডিএনএ প্রতিবেদনের কী অবস্থা জানতে চাইলে ঢামেক ফরেনসিক বিভাগের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক ডা. সোহেল মাহমুদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘৬৭টি মরদেহের ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন তৈরি করেছি। ডিএনএ রিপোর্টগুলোও হাতে পেয়েছি। আমাদের দিক থেকে সকল কাগজপত্র পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছি।’

ডিএনএ ও ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পরও কেন চার্জশিট দেওয়া যাচ্ছে না জানতে চাইলে চকবাজার থানার ওসি মওদুদ হাওলাদার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এই মামলায় দু’জন গ্রেফতার হয়েছিলেন। তারা জামিনে আছেন। আমরা সব ধরনের প্রতিবেদন হাতে পেয়েছি। এজাহার নামীয় দু’জন সন্দেহভাজন আসামি আছে। যাদের নাম-ঠিকানা এখনও পাইনি। দ্রুতই পাবো। তবে সেটা পাই বা না পাই, চার্জশিটের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়ে নেব। পুলিশ রিপোর্টও দেবো। মামলার অগ্রগতিতে আমরা সন্তুষ্ট।’

পুলিশ সন্তুষ্ট হলেও মামলা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মামলার বাদী মো. আসিফ আহম্মেদ। তিনি বলেন, ‘দুই বছর হয়ে গেলো, মামলার অগ্রগতি নেই। বিষয়টা দুঃখজনক। কিন্তু আরও দুঃখের বিষয়, প্রশাসনের চোখের সামনেই ভবনটির আশপাশে আবারও রাসায়নিকের গুদাম গড়ে উঠেছে।’ 

২০১৯ সালে ২০ ফেব্রুয়ারি রাতে রাজধানীর চকবাজার চুড়িহাট্টার মোড়ে কেমিক্যাল থেকে ছড়িয়ে পড়া আগুনে ওয়াহেদ ম্যানশনসহ আশপাশের পাঁচটি ভবন পুড়ে যায়। অগ্নিকাণ্ডে প্রাণ হারায় ৭২ জন। এর মধ্যে ৬৭ জনের মরদেহ ঢামেকে আসে। যার মধ্যে পুরুষ ৫৮, নারী ৫ এবং শিশু ৪ জন। আহত হয় আরও অনেকে। ফায়ার সার্ভিসের ৩৭টি ইউনিট ১৪ ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। ভয়াবহ এ অগ্নিকাণ্ডের পরদিন ২১ ফেব্রুয়ারিতে অবহেলার কারণে সৃষ্ট অগ্নিসংযোগের ফলে মৃত্যু ঘটাসহ ক্ষতিসাধনের অপরাধে চকবাজারের ওয়াটার ওয়ার্কস রোডের ৩২/৩৩ নম্বর বাড়ির বাসিন্দা মো. আসিফ চকবাজার থানায় মামলা করেন।

 

 

 
 
/এফএ/

সম্পর্কিত

সরকারের সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টায় হেফাজত

সরকারের সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টায় হেফাজত

‘চিকিৎসকের সঙ্গে পুলিশের এমন আচরণ কাম্য নয়’

‘চিকিৎসকের সঙ্গে পুলিশের এমন আচরণ কাম্য নয়’

কোথায় লকডাউন?

কোথায় লকডাউন?

খাদ্য উৎপাদন দ্বিগুণ করতে কৃষকদের সহায়তা দিচ্ছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী

খাদ্য উৎপাদন দ্বিগুণ করতে কৃষকদের সহায়তা দিচ্ছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী

বিড়ম্বনা বাড়িয়েছে মুভমেন্ট পাস?

বিড়ম্বনা বাড়িয়েছে মুভমেন্ট পাস?

পুলিশকে ফাঁকি দিলেই যেন করোনা থেকে রক্ষা পাবে

পুলিশকে ফাঁকি দিলেই যেন করোনা থেকে রক্ষা পাবে

যুবদলের সাবেক সভাপতি মজনু রিমান্ড শেষে কারাগারে

যুবদলের সাবেক সভাপতি মজনু রিমান্ড শেষে কারাগারে

ইউপি ভবনে মামুনুল সমর্থকদের হামলা, গ্রেফতার ৩

ইউপি ভবনে মামুনুল সমর্থকদের হামলা, গ্রেফতার ৩

হাতিরঝিল রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব চান মেয়র আতিক

হাতিরঝিল রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব চান মেয়র আতিক

জেএমবির ভারপ্রাপ্ত আমির রেজাউল হক কারাগারে

জেএমবির ভারপ্রাপ্ত আমির রেজাউল হক কারাগারে

‘ওই চিকিৎসকের শব্দ প্রয়োগ অত্যন্ত অরুচিকর ও লজ্জাজনক’

‘ওই চিকিৎসকের শব্দ প্রয়োগ অত্যন্ত অরুচিকর ও লজ্জাজনক’

সর্বশেষ

ভারতে খোলা বাজারে পাওয়া যাবে করোনা ভ্যাকসিন

ভারতে খোলা বাজারে পাওয়া যাবে করোনা ভ্যাকসিন

নেতাকর্মীদের ধৈর্য ধরতে বললেন বাবুনগরী

নেতাকর্মীদের ধৈর্য ধরতে বললেন বাবুনগরী

ঈদ আয়োজন নিয়ে এসেছে ফেইসরঙ

ঈদ আয়োজন নিয়ে এসেছে ফেইসরঙ

সরকারের সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টায় হেফাজত

সরকারের সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টায় হেফাজত

‘চিকিৎসককে হয়রানি করায় চিকিৎসাসেবা ব্যাহতের শঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে’

‘চিকিৎসককে হয়রানি করায় চিকিৎসাসেবা ব্যাহতের শঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে’

‘চিকিৎসকের সঙ্গে পুলিশের এমন আচরণ কাম্য নয়’

‘চিকিৎসকের সঙ্গে পুলিশের এমন আচরণ কাম্য নয়’

৩৬ দল, গ্রুপ পর্ব নেই, বৃহস্পতিবারে ম্যাচ... আর কী পাল্টালো চ্যাম্পিয়নস লিগে?

৩৬ দল, গ্রুপ পর্ব নেই, বৃহস্পতিবারে ম্যাচ... আর কী পাল্টালো চ্যাম্পিয়নস লিগে?

কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর স্নাতক ভর্তি পরীক্ষার তারিখ চূড়ান্ত

কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর স্নাতক ভর্তি পরীক্ষার তারিখ চূড়ান্ত

কোথায় লকডাউন?

কোথায় লকডাউন?

২ ডোজ টিকা নিয়েও করোনায় আক্রান্ত ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং

২ ডোজ টিকা নিয়েও করোনায় আক্রান্ত ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং

খাদ্য উৎপাদন দ্বিগুণ করতে কৃষকদের সহায়তা দিচ্ছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী

খাদ্য উৎপাদন দ্বিগুণ করতে কৃষকদের সহায়তা দিচ্ছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী

কালবৈশাখী ঝড়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ লণ্ডভণ্ড

কালবৈশাখী ঝড়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ লণ্ডভণ্ড

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

‘চিকিৎসকের সঙ্গে পুলিশের এমন আচরণ কাম্য নয়’

‘চিকিৎসকের সঙ্গে পুলিশের এমন আচরণ কাম্য নয়’

কোথায় লকডাউন?

কোথায় লকডাউন?

বিড়ম্বনা বাড়িয়েছে মুভমেন্ট পাস?

বিড়ম্বনা বাড়িয়েছে মুভমেন্ট পাস?

যুবদলের সাবেক সভাপতি মজনু রিমান্ড শেষে কারাগারে

যুবদলের সাবেক সভাপতি মজনু রিমান্ড শেষে কারাগারে

হাতিরঝিল রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব চান মেয়র আতিক

হাতিরঝিল রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব চান মেয়র আতিক

জেএমবির ভারপ্রাপ্ত আমির রেজাউল হক কারাগারে

জেএমবির ভারপ্রাপ্ত আমির রেজাউল হক কারাগারে

‘ওই চিকিৎসকের শব্দ প্রয়োগ অত্যন্ত অরুচিকর ও লজ্জাজনক’

‘ওই চিকিৎসকের শব্দ প্রয়োগ অত্যন্ত অরুচিকর ও লজ্জাজনক’

ঢিলেঢালা চেকপোস্ট

ঢিলেঢালা চেকপোস্ট

তথ্যপ্রযুক্তি আইনে নুরের বিরুদ্ধে আরও এক মামলা

তথ্যপ্রযুক্তি আইনে নুরের বিরুদ্ধে আরও এক মামলা

Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.
© 2021 Bangla Tribune