সেকশনস

ফাইজারের টিকায় তৈরি হচ্ছে হার্ড ইমিউনিটি, দাবি ইসরায়েলের

আপডেট : ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ২৩:২৯

মার্কিন ফাইজার ও জার্মানির বায়োএনটেকের উদ্ভাবিত করোনাভাইরাস ভ্যাকসিনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়ে আলোচনা চলছে। এর মধ্যেই ইসরায়েল দাবি করেছে, ফাইজারের ভ্যাকসিন প্রয়োগের পর থেকে দেশটিতে করোনার সংক্রমণ কমে গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, জনগণের বড় একটি অংশের মধ্যে রোগ প্রতিরোধ শক্তি গড়ে উঠেছে। হার্ড ইমিউনিটির পথে যাচ্ছে ইসরায়েল। নতুন এক প্রতিবেদনে এমন দাবির কথা তুলে ধরেছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। মার্কিন সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ এখবর জানিয়েছে।

নরওয়েতে ফাইজারের ভ্যাকসিন নেওয়ার ২৩ জন বয়স্ক মানুষের মৃত্যুর ঘটনায় হইচই পড়ে যায়। ভ্যাকসিনের সুরক্ষা কতটা সে নিয়ে প্রশ্ন তোলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও। এমন পরিস্থিতিতে ইসরায়েল ফাইজারের টিকা নিয়ে এমন প্রতিবেদন  প্রকাশ করলো।

গত বছর ২০ ডিসেম্বর থেকে মার্কিন ফার্মা জায়ান্ট ফাইজার ও তাদের সহযোগী জার্মান রিসার্চ সেন্টার বায়োএনটেক গণটিকাকরণ শুরু করে ইসারায়েলে। দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দাবি, ডিসেম্বর থেকে এখন পর্যন্ত ফাইজারের টিকার ডোজ প্রায় ৯৯ শতাংশ কার্যকর ছিল। সংক্রমণে মৃত্যুহার কম। কোনও জটিল পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি।

ব্রিটেনে প্রথম ফাইজারের ভ্যাকসিনের প্রয়োগ শুরু হয়। পরে যুক্তরাষ্ট্র। আর এখন বিশ্বের অনেক দেশেই টিকা দিচ্ছে ফাইজার-বায়োএনটেক। ব্রিটেন প্রথম জানিয়েছিল, ফাইজারের টিকার ডোজে তীব্র অ্যালার্জি দেখা যাচ্ছে কয়েকজনের শরীরে। টিকার ডোজে সে দেশের দুই স্বাস্থ্যকর্মীর শরীরে তীব্র পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেওয়ার পরেই এই কথা জানানো হয়। তবে ব্রিটেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় দাবি করেছে, ওই দুই স্বাস্থ্যকর্মীর আগে থেকেই অ্যালার্জির প্রবণতা ছিল, তাই টিকার ডোজে অ্যাডভার্স সাইড এফেক্টস দেখা গিয়েছে।

পরে যুক্তরাষ্ট্রও দাবি করে টিকার ডোজে এক স্বাস্থ্যকর্মীর শরীরে তীব্র অ্যালার্জি বা অ্যানাফিল্যাক্সিস দেখা গিয়েছে। অ্যানাফিল্যাক্সিস হলো ‘সিভিয়ার অ্যালার্জিক রিঅ্যাকশন’ । সারা শরীরে র‍্যাশ হযে যায়, বমিভাবে, মাথাব্যথা দেখা দেয়। রক্তচাপ আচমকা কমে যেতে পারে, পালস রেট কমে যায়। অ্যালার্জি তীব্রভাবে ছড়িয়ে পড়ে মৃত্যুও হতে পারে। শরীরে অ্যালার্জির থাকলে এই টিকা নেওয়া যাবে না বলে আগেই সতর্ক করা হয়েছিল।

সমালোচনা তৈরি হয় নরওয়ের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের রিপোর্ট সামনে আসার পরে। জানা যায়, টিকার ডোজ নেওয়ার পরেই ২৩ জন প্রবীণ ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। তবে টিকার ডোজেই এই মৃত্যু কিনা সে নিয়ে প্রশ্ন ওঠে।

ইসরায়েল দাবি করেছে, সার্স-কভ-২ ভাইরাসের যে হারে মিউটেশন বা জিনগত পরিবর্তন শুরু হয়েছিল, সেটা এখন কমেছে বলেই মনে করা হচ্ছে। গবেষকের দাবি, এখনও অবধি একটা ক্লাস্টারের মধ্যে করোনার অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে। অর্থাৎ ওই গোষ্ঠীর মানুষদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ শক্তি গড়ে উঠছে।

তাদের মতে যে এলাকাগুলোতে করোনা আক্রান্তদের রক্তে অ্যান্টিবডি মিলেছে সেখানে ধীরে ধীরে সংক্রমণ বৃদ্ধির হার কমবে। তার কারণ, কোনও এলাকার মোট জনসংখ্যার একটা অংশের মধ্যে যদি রোগ প্রতিরোধ শক্তি গড়ে উঠতে শুরু করে তাহলে বাকিরাও অনেকটাই সুরক্ষিত হয়ে যান। কারণ ভাইরাস আর বেশি মানুষের মধ্যে সংক্রামিত হতে পারে না। একটা পর্যায়ের পরে গিয়ে ভাইরাল স্ট্রেন দুর্বল হতে থাকে। নির্মূল না হলেও নিষ্ক্রিয় হয়ে যায়। সংক্রমণ বৃদ্ধির হার কমে। এইভাবেই গড়ে ওঠে হার্ড ইমিউনিটি।

ইসরায়েল এই হার্ড ইমিউনিটির পথেই যেতে চলেছে বলে দাবি দেশটির স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের।

/এএ/

সম্পর্কিত

আটকে পড়া রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে বাংলাদেশ বাধ্য নয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আটকে পড়া রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে বাংলাদেশ বাধ্য নয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

‘১৬ কোটি ক্ষুধার্ত, দুর্ভিক্ষের মুখে ৫০ লাখ ইয়েমেনি’

‘১৬ কোটি ক্ষুধার্ত, দুর্ভিক্ষের মুখে ৫০ লাখ ইয়েমেনি’

জিনজিয়াং-এর পরিস্থিতি নিয়ে জাতিসংঘের মানবাধিকার প্রধানের উদ্বেগ

জিনজিয়াং-এর পরিস্থিতি নিয়ে জাতিসংঘের মানবাধিকার প্রধানের উদ্বেগ

অবশ্যই টিকা নেবো: প্রধানমন্ত্রী

অবশ্যই টিকা নেবো: প্রধানমন্ত্রী

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদন অগ্রহণযোগ্য: সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদন অগ্রহণযোগ্য: সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

টিকা নিয়েছেন তোফায়েল আহমেদ

টিকা নিয়েছেন তোফায়েল আহমেদ

ইসরায়েলকে বসতি ধ্বংস থামানোর আহ্বান

ইসরায়েলকে বসতি ধ্বংস থামানোর আহ্বান

নির্বিচারি হয়ে উঠেছে মিয়ানমারের পুলিশ

নির্বিচারি হয়ে উঠেছে মিয়ানমারের পুলিশ

হাইতিতে বন্দি পালানোর সময় কারা পরিচালকসহ নিহত ২৫

হাইতিতে বন্দি পালানোর সময় কারা পরিচালকসহ নিহত ২৫

সর্বশেষ

কারাগারে লেখক মুশতাকের মৃত্যুতে ক্ষুব্ধ টিআইবি

কারাগারে লেখক মুশতাকের মৃত্যুতে ক্ষুব্ধ টিআইবি

৭ মার্চের ভাষণ অবশ্যই ইতিহাস: মির্জা ফখরুল

৭ মার্চের ভাষণ অবশ্যই ইতিহাস: মির্জা ফখরুল

আসামের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের বৈঠক

আসামের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের বৈঠক

একদিনে শনাক্ত ৪০৭, মৃত্যু ৫ জনের

একদিনে শনাক্ত ৪০৭, মৃত্যু ৫ জনের

রবিবার বগুড়া পৌরসভায় ভোট, ৫৬টি কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ

রবিবার বগুড়া পৌরসভায় ভোট, ৫৬টি কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ

আটকে পড়া রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে বাংলাদেশ বাধ্য নয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আটকে পড়া রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে বাংলাদেশ বাধ্য নয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

লেখক মুশতাকের মৃত্যুর ঘটনায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি

লেখক মুশতাকের মৃত্যুর ঘটনায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি

‘ডিজিটাল বাংলাদেশে ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়া আমাদের কর্তব্য’

‘ডিজিটাল বাংলাদেশে ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়া আমাদের কর্তব্য’

‘ডা. শাহাদাতের মামলা মোকাবিলা করবে কমিশন’

‘ডা. শাহাদাতের মামলা মোকাবিলা করবে কমিশন’

জাহানারা বললেন, ‘এখন আমরা ফিট’

জাহানারা বললেন, ‘এখন আমরা ফিট’

বাংলাদেশিদের জন্য প্রথম শ্রেণির সেবা আনছে এমিরেটস

বাংলাদেশিদের জন্য প্রথম শ্রেণির সেবা আনছে এমিরেটস

মুশতাককে নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট: ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেফতার ১

মুশতাককে নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট: ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেফতার ১

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

আটকে পড়া রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে বাংলাদেশ বাধ্য নয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আটকে পড়া রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে বাংলাদেশ বাধ্য নয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

‘১৬ কোটি ক্ষুধার্ত, দুর্ভিক্ষের মুখে ৫০ লাখ ইয়েমেনি’

‘১৬ কোটি ক্ষুধার্ত, দুর্ভিক্ষের মুখে ৫০ লাখ ইয়েমেনি’

জিনজিয়াং-এর পরিস্থিতি নিয়ে জাতিসংঘের মানবাধিকার প্রধানের উদ্বেগ

জিনজিয়াং-এর পরিস্থিতি নিয়ে জাতিসংঘের মানবাধিকার প্রধানের উদ্বেগ

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদন অগ্রহণযোগ্য: সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদন অগ্রহণযোগ্য: সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

ইসরায়েলকে বসতি ধ্বংস থামানোর আহ্বান

ইসরায়েলকে বসতি ধ্বংস থামানোর আহ্বান

নির্বিচারি হয়ে উঠেছে মিয়ানমারের পুলিশ

নির্বিচারি হয়ে উঠেছে মিয়ানমারের পুলিশ

হাইতিতে বন্দি পালানোর সময় কারা পরিচালকসহ নিহত ২৫

হাইতিতে বন্দি পালানোর সময় কারা পরিচালকসহ নিহত ২৫


[email protected]
© 2021 Bangla Tribune
Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.