X
বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ৮ বৈশাখ ১৪২৮

সেকশনস

রংপুরের বিভিন্ন উপজেলায় এক কেজি ধান-চালও কেনা যায়নি!

আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০০:১৭

শষ্য ভাণ্ডার বলে খ্যাত রংপুরে আমন মৌসুমে খাদ্য বিভাগের ধান-চাল সংগ্রহ অভিযান পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। ২৮ ফেব্রুয়ারি সংগ্রহ অভিযান শেষ হচ্ছে। তবে লক্ষ্যমাত্রার ১০ ভাগও পূরণ হয়নি। অন্যদিকে কৃষকদের থেকে সরাসরি ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা এক ভাগও পূরণ হয়নি। ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা যেখানে ছিল ১০ হাজার ৩৮২ মেট্রিক টন, সেখানে কেনা হয়েছে মাত্র দুই হাজার মেট্রিক টন। অন্যদিকে, চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৭ হাজার ৬৩৮ মেট্রিক টন। কিন্তু কেনা হয়েছে মাত্র এক হাজার ৩৯১ মেট্রিক টন।

রংপুর জেলা খাদ্য কর্মকর্তার দফতর সূত্রে জানা গেছে, এবার আমন মৌসুমে শষ্য ভাণ্ডার রংপুর জেলা ও ৮ উপজেলার জন্য লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে দেয় খাদ্য বিভাগ। কিন্তু খাদ্য বিভাগের নিবন্ধিত অটোরাইস মিলসহ হাসকিং তিনশ'র বেশি থাকলে চুক্তি করে মাত্র ৬৩ জন চালকল মালিক। এরপরেও চুক্তিবদ্ধ চালকল মালিকরা চুক্তি অনুযায়ী চাল দেননি।

গত বছর বোরো মৌসুমেও রংপুর জেলায় ধান-চাল ক্রয় অভিযান ব্যর্থ হয়। সেবারও খাদ্য বিভাগ ঘোষণা দিয়েছিল যে সব চুক্তিবদ্ধ মিলার চুক্তি করেও চাল দেয়নি। সে সময় বলা হয়েছিল যারা ধান-চাল দেয়নি তাদের আর্নেস্ট মানি বাজেয়াপ্তসহ চুক্তি বাতিল করা হবে। পাশাপাশি নতুন করে আর চুক্তি করা হবে না বলেও জানানো হয়েছিল। তবে শেষ পর্যন্ত খাদ্য বিভাগ নিজেই নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে পারেনি।

একইভাবে খাদ্য বিভাগের নির্ধারণ করা দামের চেয়ে বাজারে ধানের দাম বেশি হওয়ায় কৃষকরা এবার ধান বিক্রয় করতে রাজি হয়নি। তার ওপর খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তাদের দুর্নীতি ও ঘুষ বাণিজ্য এবং হয়রানির কারণে কৃষকরা ধান বিক্রি করতে যায়নি।

খাদ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, রংপুর জেলায় এবার উপজেলা ওয়ারি ধান ও চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী রংপুর সদর উপজেলায় ধান কেনার কথা ছিল এক হাজার ৭১ মেট্রিক টন। বিপরীতে এক কেজি ধান কিনতে পারেনি খাদ্য বিভাগ। অন্যদিকে চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল দুই হাজার ৯৬৬ মেট্রিক টন। বিপরীতে কেনা হয়েছে মাত্র ২৬৭ মেট্রিকটন চাল।

অপরদিকে বদরগঞ্জ উপজেলায় ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল এক হাজার ৬ মেট্রিক টন। কেনা হয়নি এক কেজিও। চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল এক হাজার ৮৪ মেট্রিক টন, কেনা হয়েছে মাত্র ২০ মেট্রিক টন।

মিঠাপুকুর উপজেলায় ধান কেনার কথা ছিল চার হাজার ১৯৮ মেট্রিক টন, কেনা হয়নি এক কেজিও। চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল তিন হাজার ৮৫৮ মেট্রিক টন, বিপরীতে কেনা হয়েছে মাত্র ৪১৯ মেট্রিক টন। পীরগঞ্জ উপজেলায় ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল এক হাজার ১৯৪ মেট্রিক টন, কেনা হয়েছে মাত্র দুই হাজার টন। চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল তিন হাজার ৮০২ মেট্রিক টন, কেনা হয়েছে মাত্র ৬৭৯ মেট্রিক টন। তারাগঞ্জ উপজেলায় ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৫০২ মেট্রিক টন, কেনা হয়নি এক কেজিও। চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল দুই হাজার ৬৭৪ মেট্রিক টন, কেনা হয়নি এক কেজিও।

অন্যদিকে গঙ্গাচড়া উপজেলায় ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮৫০ মেট্রিক টন, কেনা হয়নি এক কেজিও। চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ৬৭৬ মেট্রিক টন, তবে চালও কেনা যায়নি। কাউনিয়া উপজেলায় ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৫৯৪ মেট্রিক টন। তবে এক কেজি ধানও কেনা যায়নি। আর চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল এক হাজার ২৯৪ মেট্রিক টন, সেখানে চাল কেনা হয়েছে মাত্র চার হাজার ৬০০ মেট্রিক টন।

পীরগাছা উপজেলায় ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৯৬৭ মেট্রিক টন, কেনা হয়নি এক কেজিও। অন্যদিকে চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল এক হাজার ২৮৪ মেট্রিক টন, তবে চালও কেনা সম্ভব হয়নি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক খাদ্য কর্মকর্তা জানান তারাগঞ্জ, গঙ্গাচড়া ও পীরগাছা খাদ্য বিভাগের গুদাম ও উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তারা এক কেজিও ধান ও চাল কিনতে পারেননি। এ জন্য তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।

সার্বিক বিষয়ে জানতে কথা হয় রংপুর জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আব্দুল কাদেরের সঙ্গে। তিনি ধান-চাল সংগ্রহ অভিযান সফল করা যায়নি বলে স্বীকার করেন। তিনি বলেন, ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময় সীমা রয়েছে। এটা বৃদ্ধি করার কোনও আদেশ আসেনি।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মাত্র ৬৩ জন মিলারের সঙ্গে চুক্তি করা হয়েছিল। তবে তারাও চাল পুরোপুরি দিতে পারেনি। বাজারমূল্য বেশি হওয়ায় কৃষকরাও ধান বিক্রি করেনি।

তবে খাদ্য বিভাগের একটি সূত্র জানায়, ২০১৯ সালে বাজার মূল্যের চেয়ে বেশি দামে চাল কেনা হয়েছিল। সে সময় তারাগঞ্জের একটি অটোরাইস মিলসহ জেলার অনেক মিল বন্ধ থাকলেও ঘুষ বাণিজ্যের মাধ্যমে চাল কেনা দেখিয়ে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছিল। পুরো বিষয়ে উচ্চ পর্যায়ে তদন্ত করে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি খোদ খাদ্য বিভাগের কর্মীদের।

 

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

মূল্য বৃদ্ধির জন্য দায়ী ব্যক্তিদের খুঁজে বের করতে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশ

মূল্য বৃদ্ধির জন্য দায়ী ব্যক্তিদের খুঁজে বের করতে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশ

তিন দিনে বিদেশ গেছেন সাড়ে ৮ হাজার প্রবাসী

তিন দিনে বিদেশ গেছেন সাড়ে ৮ হাজার প্রবাসী

আইনজীবীর সঙ্গে পুলিশের অসৌজন্যমূলক আচরণ, ঢাকা বারের প্রতিবাদ

আইনজীবীর সঙ্গে পুলিশের অসৌজন্যমূলক আচরণ, ঢাকা বারের প্রতিবাদ

আজও তাপমাত্রার রেকর্ড, রাজশাহীতে ৪০.৩ ডিগ্রি 

আজও তাপমাত্রার রেকর্ড, রাজশাহীতে ৪০.৩ ডিগ্রি 

‘নারী চিকিৎসকের প্রতি পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেটের অসৌজন্যমূলক আচরণ দেখা যায়নি’

‘নারী চিকিৎসকের প্রতি পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেটের অসৌজন্যমূলক আচরণ দেখা যায়নি’

তথ্যপ্রযুক্তি আইনে নুরের বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবেদন ৬ জুন

তথ্যপ্রযুক্তি আইনে নুরের বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবেদন ৬ জুন

লকডাউনে মাঠে পুলিশ, ঝুঁকি এড়াতে জনগণকে সতর্ক থাকার আহ্বান

লকডাউনে মাঠে পুলিশ, ঝুঁকি এড়াতে জনগণকে সতর্ক থাকার আহ্বান

করোনায় কর কমিশনার আলী আসগরের মৃত্যু

করোনায় কর কমিশনার আলী আসগরের মৃত্যু

নিষিদ্ধ ঘোষিত আনসার আল ইসলামের দুই সদস্য গ্রেফতার

নিষিদ্ধ ঘোষিত আনসার আল ইসলামের দুই সদস্য গ্রেফতার

কর্মহীন মানুষের জন্য মেয়র আতিকের বরাদ্দ

কর্মহীন মানুষের জন্য মেয়র আতিকের বরাদ্দ

শহরে বস্তিবাসীর আয় ১৪ শতাংশ কমে গেছে: গবেষণা

শহরে বস্তিবাসীর আয় ১৪ শতাংশ কমে গেছে: গবেষণা

৭৪ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

৭৪ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

সর্বশেষ

সুপার লিগ থেকে সরে দাঁড়িয়েছে ৬ ক্লাব

সুপার লিগ থেকে সরে দাঁড়িয়েছে ৬ ক্লাব

তীব্র পানির সংকটে লকডাউন ভেঙে রাস্তায় মানুষ

তীব্র পানির সংকটে লকডাউন ভেঙে রাস্তায় মানুষ

গ্রামীণ জনপদে শহরের ছোঁয়া

গ্রামীণ জনপদে শহরের ছোঁয়া

দ্বিতীয় ওভারেই উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ

দ্বিতীয় ওভারেই উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ

তুরস্কে অনুষ্ঠিতব্য আফগান শান্তি আলোচনা স্থগিত

তুরস্কে অনুষ্ঠিতব্য আফগান শান্তি আলোচনা স্থগিত

নেটফ্লিক্সে নতুন: আসছে আলো-অন্ধকারের লড়াই

নেটফ্লিক্সে নতুন: আসছে আলো-অন্ধকারের লড়াই

লকডাউনে বাঙ্গি চাষিদের মাথায় হাত

লকডাউনে বাঙ্গি চাষিদের মাথায় হাত

তিন পেসার নিয়ে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

তিন পেসার নিয়ে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

জর্জ ফ্লয়েড হত্যাকাণ্ড, পুলিশ কর্মকর্তা ডেরেক দোষী সাব্যস্ত

জর্জ ফ্লয়েড হত্যাকাণ্ড, পুলিশ কর্মকর্তা ডেরেক দোষী সাব্যস্ত

টিভিতে আজ

টিভিতে আজ

ধানে চিটা, কৃষকের মাথায় হাত

ধানে চিটা, কৃষকের মাথায় হাত

বুনো হাতির আতঙ্কে কাপ্তাই, চালু হবে সোলার ফেন্সিং

বুনো হাতির আতঙ্কে কাপ্তাই, চালু হবে সোলার ফেন্সিং

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

লকডাউনে ক্ষতির মুখে পান চাষিরা

লকডাউনে ক্ষতির মুখে পান চাষিরা

কমেছে পেঁয়াজের দাম

কমেছে পেঁয়াজের দাম

লকডাউন উপেক্ষা করেই অষ্টমী স্নানে পুণ্যার্থীর ঢল

লকডাউন উপেক্ষা করেই অষ্টমী স্নানে পুণ্যার্থীর ঢল

কাদের মির্জা পুলিশের হাতে লাঞ্ছিত!

কাদের মির্জা পুলিশের হাতে লাঞ্ছিত!

ভারত গিয়ে আক্রান্ত হয়ে ফিরছেন বাংলাদেশিরা

ভারত গিয়ে আক্রান্ত হয়ে ফিরছেন বাংলাদেশিরা

সড়কে যুবকের সঙ্গে হাতাহাতি, এসআইসহ ৩ সদস্য প্রত্যাহার

সড়কে যুবকের সঙ্গে হাতাহাতি, এসআইসহ ৩ সদস্য প্রত্যাহার

সাড়ে ৫ ঘণ্টায় আয় ৩০ টাকা, চালের কেজি ৪৫!

সাড়ে ৫ ঘণ্টায় আয় ৩০ টাকা, চালের কেজি ৪৫!

প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরে দু’মাসেই  ফাটল!

প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরে দু’মাসেই ফাটল!

পঞ্চগড়-ঢাকা সবজি ট্রেন সার্ভিস চালু

পঞ্চগড়-ঢাকা সবজি ট্রেন সার্ভিস চালু

Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.
© 2021 Bangla Tribune