X
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১০ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

‘বন্ধ’ হলেও দিব্যি আছেন তারা

আপডেট : ০৪ মার্চ ২০২১, ০১:১২

বন্ধের সময়েও সরকারি সিদ্ধান্ত অমান্য করে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) হলগুলোতে বেশ কিছু ছাত্রকে হলে অবস্থান করতে দেখা যাচ্ছে। সাধারণ শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, এদের বেশিরভাগই সরকারি দলের ভ্রাতৃপ্রতীম সংগঠন ছাত্রলীগের নেতাকর্মী। প্রশাসন থেকে হলে অবস্থান নিষিদ্ধ করা হলেও তারা সে সিদ্ধান্ত মানছেন না, চারটি হলের প্রভোস্টদের জ্ঞাতসারেই হলে নিয়মিত অবস্থান করছেন তারা। এদের কেউ পরীক্ষার দোহাই দিয়ে, কেউ বা লেখাপড়ার দোহাই দিয়ে ক্যাম্পাসে থেকে রাজনৈতিক কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছেন। যদিও প্রশাসনের আইন প্রয়োগের কঠোরতা দেখা গেছে সাধারণ শিক্ষার্থীদের বেলায়। তাদের হলে অবস্থানের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সাম্প্রতিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আগামী ১৭ মে থেকে সব বিশ্ববিদ্যালয়ে একইসঙ্গে আবাসিক হল খুলে দেওয়া হবে এবং ২৪ মে থেকে ক্লাস-পরীক্ষা শুরু হবে। এ সিদ্ধান্তের পর সব ধরনের পরীক্ষা, ক্লাস বন্ধ করে শিক্ষার্থীদের বাড়িতে অবস্থানের নির্দেশ দিয়েছে সরকার। এসময়ের মধ্যে কোভিড-১৯ এর টিকা নিতে বলা হয়েছে তাদের। স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, টিকা নিয়ে তবেই তারা হলে উঠতে পারবে। এর আগে করোনা সংক্রমণের ভয়ে গত বছরের মার্চ থেকে সরকারের নির্বাহী আদেশে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেওয়া হয়। মাঝে অনলাইনে ক্লাস-পরীক্ষা চালানোর নির্দেশ থাকলেও নানা কারণে বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয়ে এই পাঠদান পদ্ধতি আশানুরূপ সফল হয়নি। এ কারণে সেমিস্টার পরীক্ষা সশরীরে হাজির হয়ে দেওয়ার দাবি ছিল শিক্ষার্থীদেরই। এজন্য বেশিরভাগ ক্যাম্পাসে সংশ্লিষ্ট ব্যাচের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতে এলেও তাদের থাকতে হয়েছে আশেপাশের মেসগুলোতে। তবে পরীক্ষার কারণে এবং ক্লাস করা, বই-খাতা নেওয়া ইত্যাদি অজুহাতে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোতে ছাত্র-ছাত্রীদের আগমন প্রায় নিয়মিতই হচ্ছে। এর সুযোগ নিয়ে দরীয় পদ পদবীর প্রভাব খাটিয়ে অনেক ছাত্রলীগ নেতা নিজের কক্ষেই রাতযাপনের জন্য উঠে গেছেন। প্রশাসন বিষয়টি জানে। হল প্রভোস্টদের সবাই বিষয়টি অবগত। তবে কেউ নিয়ম না মানায় চারটি হলে ছাত্রনেতাদের অবস্থান এখন ওপেন সিক্রেট। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে, গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে অবৈধভাবে তারা হলে থাকছেন। এই পরিস্থিতিতে গত সোমবার (১ মার্চ) রাত ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনের সামনে কুবি শাখা ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত দুই শিক্ষার্থী আহতও হয়েছেন। আহত দুই শিক্ষার্থী হচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয় দত্ত হলের ছাত্রলীগ কর্মী প্রীতম সেন এবং সোহেল হাওলাদার।

কুমিল্লা-বিশ্ববিদ্যালয়

প্রত্যক্ষদর্শী ও দলীয় সূত্রে জানা গেছে, সাধারণ এক শিক্ষার্থীকে উত্ত্যক্ত করার ঘটনায় মাসখানেক আগে শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত হল ছাত্রলীগ কর্মী সালমান চৌধুরীর সঙ্গে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল ছাত্রলীগের কর্মী সোহেল হাওলাদারের হাতাহাতি ও মারামারি হয়। ওই ঝামেলার জেরে গত সোমবার রাত ১০টার দিকে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এমরান কবির চৌধুরীর বাসভবনের সামনে দত্ত হলের ছাত্রলীগের কর্মী সালমান চৌধুরী অন্তত ১০ জন ছাত্রলীগ কর্মী নিয়ে বঙ্গবন্ধু হলের ছাত্রলীগের কর্মী সোহেল হাওলাদারের ওপর হামলা চালায়। এ সময় সোহেল হাওলাদারের ডান চোখের ওপরে জখম হয়। হামলায় বঙ্গবন্ধু হল ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সত্যজিৎ সাহা, সাংগঠনিক সম্পাদক ওয়াসিফুল ইসলামসহ আরও অন্তত আটজন সোহেলের সাহায্যে এগিয়ে এলে দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি, কিল-ঘুষি ও মারামারি হয়। এসময় দত্ত হলের ছাত্রলীগ কর্মী প্রীতম সেন ও বঙ্গবন্ধু হলের সোহেল হাওলাদার আহত হন। পরে তাঁদের হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এর আগেও করোনাকালেই গত ডিসেম্বরে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা ম্যাজিক প্যারাডাইস পার্কের সামনের সড়কে মারামারিতে জড়ান।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শুধু ছাত্র হল নয় নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বিশ্ববিদ্যালয়ের নওয়াব ফয়জুন্নেছা চৌধুরানী হলেও ছাত্রীরা অবস্থান করতেন। সেই সময় কুবির চারটি হলের সামনে ক্যাম্পাস ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা রাতে ক্যাম্পাসে আড্ডা, হলের সামনে মিছিল, মিটিংসহ নানা কর্মসূচি পালন করছেন। করোনাকালীন সময়ের কারণে হলের দায়িত্বে থাকা প্রভোস্টরা স্বাভাবিক সময়ের তো খোঁজ-খবর রাখেন না। যার ফলে হলে যে কোনও সময় যে কোনও ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে যাওয়ায় অস্বাভাবিক নয়। করোনার সময়ে হল খুলে রাখা ও নজরদারির অভাবে সিলেটের এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে ঘটা অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এখনও বাজে দৃষ্টান্ত হয়ে আছে সবার সামনে। আর সরকারি নির্দেশ না মেনে হলে অবস্থানের কারণে যেখানে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলো থেকে আবাসিক শিক্ষার্থীদের বের করে দেওয়া হয়েছে, সিলেটের শাহজালাল ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের হলে ঢুকতে দেওয়া হয়নি, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পাসের বাইরে পরীক্ষার জন্য অবস্থান করতে হয়েছে সেখানে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে হলে ছাত্রলীগ নেতা পরিচয়ে অবস্থান স্পষ্টভাবেই সরকারি নির্দেশনা না মানা। দলীয়ভাবেও ছাত্রলীগ নেতাদের এ সময়ে হলে থাকার কোনও নির্দেশনা নেই।

বন্ধ ক্যাম্পাসে হলে কিভাবে ছাত্রলীগ নেতারা থাকছেন এবং সাধারণ শিক্ষার্থীরা থাকার সুযোগ পাচ্ছেন না জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত হল প্রভোস্ট ড. মো. জুলহাস মিয়া জানান, অফিশিয়ালি বিশ্ববিদ্যালয়ের হল বন্ধ। তারা কীভাবে থাকেন আমার জানা নেই। সরকারের সিদ্ধান্ত আনুযায়ী, আমাদের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে হলে কোনও ছাত্র থাকতে পারবে না। অফিশিয়ালি হল বন্ধের পরও যদি কেউ থেকে থাকে ওই ছাত্রদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

হলে থেকে ছাত্রলীগের মারামারির বিষয়ে জানতে চাইলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল প্রভোস্ট মো. জিয়া উদ্দিন জানান, দুই হলের ছাত্রদের মধ্যে মারামারি হলের ভেতরে নয় বাইরে হয়েছে। ক্যাম্পাস বন্ধ থাকায় অফিশিয়ালিভাবে হলও বন্ধ রয়েছে। তার দাবি হলে কোনও ছাত্র থাকে না এবং থাকতে পারবে না।

তিনি বলেন, প্রয়োজনীয় কোনও কাজ থাকলে ছাত্ররা হলে আসে, আবার চলে যায়। তারা হলে থাকতে পারবেন না সেই বিষয়ে আমরা তৎপর। ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের আসা-যাওয়া আছে, সেখানে তারা মিছিল মিটিং করছেন। তবে কোন হলেও ভেতরে এই বন্ধ অবস্থায় বাস করার সুযোগ নেই।

যদিও তার হলে এখনও বেশ কিছু ছাত্র দলীয় পরিচয়ে অবস্থান করছে এমন অভিযোগ করেছে সাধারণ ছাত্ররা। হল ঘুরেও এমন চিত্র দেখা গেছে।

সরকারি নির্দেশনা না মেনে ছাত্ররা কিভাবে বন্ধ হলে থাকেন জানতে চাইলে কাজী নজরুল ইসলাম হল প্রভোস্ট মো. এমদাদুল হক জানান, ক্যাম্পাস বন্ধ অবস্থায় হলে ছাত্রদের থাকার নিয়ম নেই। নভেম্বরের দিকে হঠাৎ পরীক্ষা চালু হওয়ার পর কিছু ছাত্র হলে থাকা শুরু করেছে। হলে ছাত্রলীগ কিংবা ক্যাম্পাসে কোন দলের নেতাকর্মী সেটা আমরা বিবেচনা করি না। আমরা সবাইকে ছাত্র হিসেবে জানি। সরকার সিদ্ধান্ত নিয়ে সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের হল এবং পরীক্ষা বন্ধ করায় আমরা সকল ছাত্রকে পুনরায় হল ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছি।

এ বিষয়ে কথা বলতে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. ইলিয়াছ মিয়া এবং সাধারণ সম্পাদক মো. রেজাউল ইসলাম মাজেদের সঙ্গে মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও সম্ভব হয়নি। হলে অবস্থানরত অন্য ছাত্ররাও প্রকাশ্যে কথা বলতে চাননি। তবে তাদের সবাই পরীক্ষার অজুহাত দেখিয়েছেন। এখন পরীক্ষা নেই তাহলে হল ছাড়বেন কিনা এ প্রশ্নের জবাব এড়িয়ে গেছেন বেশিরভাগই, কয়েকজন বলেছেন, ‘দেখি’।

হলে ছাত্রলীগের মারামারি এবং থাকার বিষয়ে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এমরান কবির চৌধুরী বলেন, ক্যাম্পাস ছাত্রদের মধ্যে সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্ব নিয়ে একটু সমস্যা হয়েছে। আমি প্রক্টরকে দায়িত্ব দিয়েছি বিষয়টি মীমাংসা করে দিতে। আর করোনাকালীন সময়ে দীর্ঘ একটি বছর বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ। কিছুদিন আগে পরীক্ষার কারণে বই এবং কাগজপত্র নেওয়ার জন্য শিক্ষার্থীরা আসা-যাওয়া করেছে। তারা তো অপরাধী না, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস এবং হল তাদেরই। তবে সরকারের কোনও সিদ্ধান্ত যেন শিক্ষার্থীরা অমান্য করতে না পারে সেই দিকে আমি সব সময় খেয়াল রাখছি।

/টিএন/

সম্পর্কিত

সামাজিক বনে প্রবাসীর মোবাইলফোন কেড়ে নিলো প্রেমিকা ও সহযোগীরা   

সামাজিক বনে প্রবাসীর মোবাইলফোন কেড়ে নিলো প্রেমিকা ও সহযোগীরা  

কুবি শিক্ষার্থীর চোখে মরিচের গুঁড়া দিয়ে ফেলে যায় ছিনতাইকারীরা    

কুবি শিক্ষার্থীর চোখে মরিচের গুঁড়া দিয়ে ফেলে যায় ছিনতাইকারীরা    

নভেম্বরে কুবিতে ক্লাস শুরুর সুপারিশ

নভেম্বরে কুবিতে ক্লাস শুরুর সুপারিশ

জবির মেডিক্যাল সেন্টারে ভর্তি পরীক্ষা দিলেন ৩ শিক্ষার্থী

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৪:৩৯

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) কেন্দ্রের অধীন গুচ্ছভুক্ত ২০ বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘বি’ ইউনিটের পরীক্ষায় বিশেষ ব্যবস্থাপনায় অংশ নিয়েছেন তিন পরিক্ষার্থী। রবিবার (২৪ অক্টোবর) দেশের ২২টি কেন্দ্রে ৬৭ হাজার ১১৭ পরীক্ষার্থীর মধ্যে জবি কেন্দ্রে আসন ছিল সাত হাজার ৭৯৩ জন পরীক্ষার্থীর। 

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, জবিতে চার জন বিশেষ শিক্ষার্থী আবেদন করলেও অংশগ্রহণ করেন তিন জন। তাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিক্যাল সেন্টারে পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়। এরমধ্যে একজন শারীরিকভাবে প্রতিবন্ধী, একজন দৃষ্টি শক্তিহীন ও অপরজন অন্তঃসত্ত্বা। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মো. ইমদাদুল হক বলেন, ‘সমস্যায় থাকা ওই শিক্ষার্থী যাতে অন্যদের মতো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পান সে জন্যই বিশেষ ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে। ভবিষ্যতে বিশেষ শিক্ষার্থীদের জন্য আমরা আরও সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেবো।’

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষায় শাবিতে উপস্থিতি ৯৫ শতাংশ

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষায় শাবিতে উপস্থিতি ৯৫ শতাংশ

পরীক্ষা দিতে এলেন মেয়ে, কিউআর কোড বলছে ছেলে 

পরীক্ষা দিতে এলেন মেয়ে, কিউআর কোড বলছে ছেলে 

১২ হাজার ভর্তি পরীক্ষার্থীর ৩৮০০ জনই অনুপস্থিত

১২ হাজার ভর্তি পরীক্ষার্থীর ৩৮০০ জনই অনুপস্থিত

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার ‘এ’ ইউনিটের ফল প্রকাশ

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার ‘এ’ ইউনিটের ফল প্রকাশ

রিট তোলার শর্তে রাবি শিক্ষককে সভাপতি নিয়োগের প্রস্তাব

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৪:৪৪

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ক্রপ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের অধ্যাপক মু. আলী আসগরকে রিট তুলে নিতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। বিনিময়ে তাকে সভাপতি নিয়োগের প্রস্তাব দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে পাঠানো এক চিঠিতে এই প্রস্তাব দেওয়া হয়। তবে অধ্যাপক আলী আসগর বলছেন, তিনি রিট পিটিশন তুলবেন না।

গত ৭ অক্টোবর রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আব্দুস সালাম স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে বলা হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের লিগ্যাল সেলের মতামত অনুসারে ওই চিঠি ইস্যুর তারিখ হতে সাত দিনের মধ্যে রিট পিটিশনটি তুলে নেওয়ার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র অফিসে (রেজিস্ট্রার দফতর) দাখিলের অনুরোধ করা হলো। রিট পিটিশন তুলে নেওয়া হলে মু. আলী আসগরকে ক্রপ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগে সভাপতি হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধি অনুসারে নিয়োগ দেওয়া হবে। 

এ ব্যাপারে অধ্যাপক আলী আসগর বলেন, ‘আমি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রস্তাবে রাজি না। নিঃশর্তে বিভাগের চেয়ারম্যান হিসেবে যোগদান করতে চাই। এটা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় আইন ১৯৭৩ অনুযায়ী আমার অধিকার।’

জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যেষ্ঠতার ক্রমানুসারে অধ্যাপক সাইফুল ইসলামের পরে বিভাগের সভাপতি হিসেবে আলী আসগর নিয়োগ পাওয়ার কথা। সাইফুল ইসলামের সভাপতির মেয়াদ শেষ হয় ২০২০ সালের ৮ মে। কিন্তু তার পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন জ্যেষ্ঠতার ক্রম লঙ্ঘন করে অধ্যাপক আলী আসগরের পরিবতর্তে আবুল কালাম আজাদকে সভাপতি নিয়োগ দেয়।

এই ঘটনায় ওই বছরের জুনে হাইকোর্টে রিট করেন অধ্যাপক আলী আসগর। রিট পিটিশনে ওই বছরের ২৭ সেপ্টেম্বর তাকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় আইন-১৯৭৩ অনুযায়ী ক্রপ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের সভাপতি হিসেবে নিয়োগ প্রদানে কেন উপাচার্য ও রেজিস্ট্রারকে নির্দেশনা প্রদান করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট।  

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আব্দুস সালাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের লিগ্যাল সেলের পরামর্শে রিট তোলার অনুরোধ করেছি। সাত কার্যদিবস শেষ হয়েছে। অধ্যাপক আলী আসগর এখনও উত্তর জানাননি। এখন লিগ্যাল সেলের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

জবির মেডিক্যাল সেন্টারে ভর্তি পরীক্ষা দিলেন ৩ শিক্ষার্থী

জবির মেডিক্যাল সেন্টারে ভর্তি পরীক্ষা দিলেন ৩ শিক্ষার্থী

আবাসিক হলে শাবি শিক্ষার্থীদের ফুল-মাস্কে বরণ

আবাসিক হলে শাবি শিক্ষার্থীদের ফুল-মাস্কে বরণ

ঢাবি ক্যাম্পাসে ফিরলো বিশ্বকাপের উন্মাদনা 

ঢাবি ক্যাম্পাসে ফিরলো বিশ্বকাপের উন্মাদনা 

ঢাবিতে ৭৬তম জাতিসংঘ দিবস উদযাপন

ঢাবিতে ৭৬তম জাতিসংঘ দিবস উদযাপন

আবাসিক হলে শাবি শিক্ষার্থীদের ফুল-মাস্কে বরণ

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৪:৩০

দীর্ঘ ১৯ মাস পর আবাসিক হলে ফিরতে শুরু করেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক শিক্ষার্থীরা। ফুল, কেক, চকলেট, হলের নাম ও লোগো সম্বলিত মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে আবাসিক শিক্ষার্থীদের বরণ করে নিচ্ছে বিভিন্ন হলের কর্তৃপক্ষ। শিক্ষার্থীদেরকে হলে উঠতে দেখাতে হচ্ছে অন্তত একডোজ করোনা টিকা নেওয়ার প্রমাণপত্র। এজন্য হলগুলোর গেটে চেয়ার-টেবিল নিয়ে বসেছেন হলের কর্মচারীরা। 

এদিকে সোমবার (২৫ অক্টোবর) সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে অনলাইনে ‘হলে প্রত্যাবর্তন’ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন শাবি উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ।  

 এ সময় উপাচার্য বলেন, দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর আমাদের আবাসিক হল খুলে দেওয়া হয়েছে। এতে শিক্ষার্থীদের পদচারণায় ক্যাম্পাস আবারো প্রাণ ফিরে পাবে। সামনে আরও নতুন নতুন হল হবে, এগুলো সম্পূর্ণ আধুনিক ব্যবস্থাপনায় তৈরি করা হবে। ইতোমধ্যে আমরা শিক্ষার্থীদের এক ডোজ টিকা নিশ্চিতের ব্যবস্থা করেছি। তবুও কোনও শিক্ষার্থী বাদ পড়লে তাদের দ্রুত টিকার আওতায় নিয়ে আসবো। এছাড়া শিক্ষার্থীদের হলে থাকতে হলে বৈধতা থাকতে হবে। বৈধতা ছাড়া কোনও শিক্ষার্থী হলে থাকতে পারবেন না। 

কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে ফিরছে। আমরা করোনা থেকে সুরক্ষার জন্য সবাইকে টিকার আওতায় নিয়ে আসতে চেষ্টা করছি। এজন্য ক্যাম্পাসেই টিকা দেওয়া হচ্ছে। শিক্ষার্থীদেরকে ক্যাম্পাসে সর্বোচ্চ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম শৃঙ্খলা অবশ্যই সকলকে মেনে চলতে হবে। রেজিস্ট্রেশন ছাড়া কোনও শিক্ষার্থীকে হলে না থাকার আহ্বান জানান তিনি।  

আবাসিক হলে ছাত্রীদের বরণ করতে ছিল কেক-মিষ্টির আয়োজন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আনোয়ারুল ইসলাম, ছাত্র উপদেশ ও নির্দেশনা পরিচালক অধ্যাপক জহির উদ্দিন আহমেদ, প্রক্টর ড. মো. আলমগীর কবীর, রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ইশফাকুল হোসেন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রভোস্ট সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ সামিউল ইসলাম।  এছাড়া অনুষ্ঠানে অনলাইনে যুক্ত ছিলেন শাহপরান হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান খান, সৈয়দ মুজতবা আলী হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. আবু সাইদ আরেফিন খান নোবেল, প্রথম ছাত্রী হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. জায়েদা শারমিন, বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের ভারপ্রাপ্ত প্রভোস্টসহ বিভিন্ন হলের সহকারী প্রভোস্টবৃন্দ, আবাসিক শিক্ষার্থীবৃন্দ ও বিভিন্ন হলের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। 

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

সাস্ট ক্লাবের নতুন কমিটির শপথ ও দায়িত্ব গ্রহণ 

সাস্ট ক্লাবের নতুন কমিটির শপথ ও দায়িত্ব গ্রহণ 

শাবির নৃবিজ্ঞান বিভাগের দায়িত্ব নিলেন অধ্যাপক জাকারিয়া

শাবির নৃবিজ্ঞান বিভাগের দায়িত্ব নিলেন অধ্যাপক জাকারিয়া

মঙ্গলবার থেকে শাবির মেডিক্যাল সেন্টারে টিকা দেওয়া শুরু

মঙ্গলবার থেকে শাবির মেডিক্যাল সেন্টারে টিকা দেওয়া শুরু

শাবিপ্রবিতে ঢাবির ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা চলছে

শাবিপ্রবিতে ঢাবির ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা চলছে

ঢাবি ক্যাম্পাসে ফিরলো বিশ্বকাপের উন্মাদনা 

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ২০:০৬

ক্রিকেটের কোনও বড় আসর মানে বাংলার ঘরে ঘরে, পাড়ায় পাড়ায় কিংবা মোড়ের চায়ের দোকানে উন্মাদন। পিছিয়ে থাকে না ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি কিংবা আবাসিক হলগুলো। তবে করোনা মহামারিতে খেলাও যেমন ছিল না, আবার হল বন্ধ থাকায় দীর্ঘদিন এমন হইহুল্লোরও ছিল ঢাবি ক্যাম্পাসে। বিশ্বকাপের শ্রীলঙ্কা-বাংলাদেশ ম্যাচ দিয়ে যেন সেই উন্মাদনাই ফিরে এলো।

ক্রিকেটে সবশেষ উত্তেজনায় মেতেছিল ২০২০ সালে ভারতের সাথে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ের দিন। যুব টাইগারদের বিশ্ব জয়ে আনন্দ মিছিল করেছিল শিক্ষার্থীরা। এরপর দীর্ঘ প্রায় দুই বছর শিক্ষার্থীরা না থাকায় এমন দৃশ্য অনুপস্থিত ছিল। গত ৫ অক্টোবর হল খোলার পর থেকে আবারও মুখরিত হতে শুরু করে ঢাবি ক্যাম্পাস। শুরু হয় গান-কবিতার কনসার্ট, টিএসসির আড্ডা। 

চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সুপারে টুয়েলভে বাংলাদেশ কোয়ালিফাই করার পর আবারও সেই ক্রিকেটীয় উন্মাদনায় মেতেছেন ঢাবি শিক্ষার্থীরা। টাইগারদের চার-ছয় আর প্রতিপক্ষের উইকেটের পতনে গর্জন করে ওঠে শিক্ষার্থীরা। যদিও শেষ পর্যন্ত শ্রীলঙ্কার কাছে ৫ উইকেটের হার নিয়ে মণক্ষুণ্ন হতে হয়েছে দর্শকদের।

বিশ্বকাপের উদ্মাদনা বাড়াতে টিএসসির পায়রা চত্বরে প্রজেক্টরে বড় স্ক্রিনে খেলা দেখার আয়োজন করেছেন শিক্ষার্থীরা। এছাড়াও খেলা চলাকালে বিশেষ করে প্রথম ইনিংসে সূর্যসেন হল, বঙ্গবন্ধু হল, বিজয় একাত্তরের হলসহ সব হল থেকেই শোনা গেছে  ক্রিকেট পাগল শিক্ষার্থীদের গর্জন, প্রায় একই দৃশ্য মেয়েদের হলগুলোতেও। 

টিএসসিতে খেলা দেখছিলেন হাসান আলী নামে এক শিক্ষার্থী। তিনি বলেন, অনেকদিন পর ক্যাম্পাসে ফিরে এমনিতেই খুব ভালো লাগছে। তার ওপর আবার বিশ্বকাপ ক্রিকেট শুরু হয়েছে। টিএসসিতে বড় স্ক্রিনে খেলা, সেই ক্রিকেটীয় উত্তেজনা। প্রিয় আঙিনায় খেলা দেখতে পেরে আমি খুবই উচ্ছ্বসিত।

/ইউএস/

সম্পর্কিত

আবারও মুখর ঢাবির টিএসসি

আবারও মুখর ঢাবির টিএসসি

ঢাবির 'ঘ' ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

ঢাবির 'ঘ' ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

ঢাবি ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

ঢাবি ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

ঢাবির ‘গ’ ইউনিটের পরীক্ষা শুক্রবার, প্রতি আসনে লড়বেন ২২ শিক্ষার্থী

ঢাবির ‘গ’ ইউনিটের পরীক্ষা শুক্রবার, প্রতি আসনে লড়বেন ২২ শিক্ষার্থী

ঢাবিতে ৭৬তম জাতিসংঘ দিবস উদযাপন

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৪১

ঢাকা ইউনিভার্সিটি মডেল ইউনাইটেড নেশনস অ্যাসোসিয়েশন-ডিইউএমইউএনএ’র উদ্যোগে ৭৬তম জাতিসংঘ দিবস উদযাপন করা হয়েছে।

রবিবার (২৪ অক্টোবর)  বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের মিলনায়তনে জাতিসংঘ দিবস উপলক্ষে ‘নিউ ইমারজেন্স অব বাংলাদেশ ইন দ্য গ্লোবাল অ্যারিনা’

শীর্ষক এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারে ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ‘২০৩০ সালের মধ্যে জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনের লক্ষ্যে বিশ্বের সকল দেশ কাজ করে যাচ্ছে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের পথে বাংলাদেশ ইতোমধ্যেই অনন্য অগ্রগতি সাধন করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অসাধারণ বিচক্ষণতা, দক্ষতা ও নেতৃত্বের মাধ্যমে দেশ ও জাতির সামগ্রিক আর্থ-সামজিক উন্নয়ন ঘটেছে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এখন সারা বিশ্বের কাছে রোল মডেল। অসাধারণ নেতৃত্বের গুণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতোমধ্যেই ‘জুয়েল ইন দ্য ক্রাউন অব দ্য ডে’ সহ অসংখ্য আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিও লাভ করেছেন।’

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন এবং দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে যথাযথ ভূমিকা পালনের জন্য উপাচার্য ঢাকা ইউনিভার্সিটি মডেল ইউনাইটেড নেশনস অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানান।

ডিইউএমইউএনএ’র সভাপতি মোহাম্মদ আশিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে সেমিনারে সংগঠনের মডারেটর ও ঢাবি আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. দেলোয়ার হোসেন মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। সাংবাদিক ও কলামিস্ট অজয় দাস গুপ্ত এবং ইউনাইটেড নেশনস ইন্ড্রাস্ট্রিয়াল ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশনের কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ জাকিউজ জামান প্রবন্ধের ওপর আলোচনায় অংশ নেন।

 

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

১৯ মাস পর প্রাণ ফিরেছে জাবি ক্যাম্পাসে

১৯ মাস পর প্রাণ ফিরেছে জাবি ক্যাম্পাসে

স্বাস্থ্য ও জীবন বিমার আওতায় ঢাবি শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

স্বাস্থ্য ও জীবন বিমার আওতায় ঢাবি শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

পরীক্ষা দিয়েও ১৬০০ শিক্ষার্থী অনুপস্থিত, ওয়েসাইট থেকে সরলো ফল

পরীক্ষা দিয়েও ১৬০০ শিক্ষার্থী অনুপস্থিত, ওয়েসাইট থেকে সরলো ফল

চবিতে ১৯ অক্টোবর ক্লাস শুরুর পর ১৬ দিনের ছুটি

চবিতে ১৯ অক্টোবর ক্লাস শুরুর পর ১৬ দিনের ছুটি

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সামাজিক বনে প্রবাসীর মোবাইলফোন কেড়ে নিলো প্রেমিকা ও সহযোগীরা   

সামাজিক বনে প্রবাসীর মোবাইলফোন কেড়ে নিলো প্রেমিকা ও সহযোগীরা  

কুবি শিক্ষার্থীর চোখে মরিচের গুঁড়া দিয়ে ফেলে যায় ছিনতাইকারীরা    

কুবি শিক্ষার্থীর চোখে মরিচের গুঁড়া দিয়ে ফেলে যায় ছিনতাইকারীরা    

নভেম্বরে কুবিতে ক্লাস শুরুর সুপারিশ

নভেম্বরে কুবিতে ক্লাস শুরুর সুপারিশ

চবির শিক্ষকদের বিরুদ্ধে মিছিল করলো কারা?

চবির শিক্ষকদের বিরুদ্ধে মিছিল করলো কারা?

‘দুপুরেও কথা হয়, সন্ধ্যায় শুনি আমাদের বন্ধু আর নেই’

‘দুপুরেও কথা হয়, সন্ধ্যায় শুনি আমাদের বন্ধু আর নেই’

টিকা নিলেন চবি পরিবারের দেড় হাজার সদস্য  

টিকা নিলেন চবি পরিবারের দেড় হাজার সদস্য  

করোনার বন্ধে চবির আপ্যায়ন খরচ ৩৭ লাখ 

করোনার বন্ধে চবির আপ্যায়ন খরচ ৩৭ লাখ 

পরিবহন ফি নিয়ে বিভ্রান্তি, ভোগান্তিতে কুবি শিক্ষার্থীরা

পরিবহন ফি নিয়ে বিভ্রান্তি, ভোগান্তিতে কুবি শিক্ষার্থীরা

কুবির ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশে ১৪ ভুল

কুবির ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশে ১৪ ভুল

সর্বশেষ

রাজারবাগ পীর সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে দুদক, সিআইডি ও সিটিটিসির তদন্ত চলবে

রাজারবাগ পীর সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে দুদক, সিআইডি ও সিটিটিসির তদন্ত চলবে

চল্লিশদিন উপন্যাসের সঙ্গে সহবাস, মৃত্যু পর্যন্ত

পর্ব—একচল্লিশদিন উপন্যাসের সঙ্গে সহবাস, মৃত্যু পর্যন্ত

নয়া পল্টনে বিএনপি নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

নয়া পল্টনে বিএনপি নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

এইচএসসি পাসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরির সুযোগ

এইচএসসি পাসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরির সুযোগ

‘সম্প্রীতির স্বার্থে’ বিক্ষোভ মিছিল করেনি বিএনপি

‘সম্প্রীতির স্বার্থে’ বিক্ষোভ মিছিল করেনি বিএনপি

© 2021 Bangla Tribune