X
সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ৯ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

কয়েক মিনিটের তাণ্ডবে হাজারো কৃষকের স্বপ্নভঙ্গ

আপডেট : ০৫ এপ্রিল ২০২১, ২০:১৩

কৃষকের কান্নায় ক্রমশ ভারি হয়ে উঠছে নেত্রকোনা জেলার হাওরাঞ্চল হিসেবে খ্যাত খালিয়াজুরী, মদন ও মোহনগঞ্জ উপজেলা। রবিবার (৪ এপ্রিল) রাতের কয়েক মিনিটের কালবৈশাখী ঝড়ে হাজারো কৃষকের স্বপ্ন মুহূর্তে বিলীন হয়ে গেছে। শীষে ধান নেই, জমিতে শুধু ধান গাছ দাঁড়িয়ে রয়েছে। সোমবার সকাল থেকে হাওরাঞ্চলে চলছে কৃষকদের বিলাপ করা কান্না।

নেত্রকোনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, চলতি বোরো মৌসুমে খালিয়াজুরী উপজেলায় ১৯ হাজার ৯ শত ৫০ হেক্টর, মদনে ১৭ হাজার ৩ শত ৪০ হেক্টর ও মোহনগঞ্জ উপজেলায় ১৭ হাজার ৪৫ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ করা হয়েছে। এবার আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় বোরো ধানের ফলন ভাল হয়েছে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি ধান উৎপাদন হবে বলে আশা ছিলো কৃষকদের। বেশির ভাগ জমির ধানই পাকতে শুরু করেছে। আর কয়েক দিনের মধ্যে ব্রি-আর ২৮ জাতের ধানের পাশাপাশি হাইব্রিড জাতের ধান কাটা শুরু হতে যাচ্ছে। এরি মধ্যে আগে লাগানো কিছু কিছু জমিতে ধান কাটা শুরু হয়েছে। সারা বছরের একমাত্র হাড়ভাঙা কষ্টে ফলানো সোনার ফসল ঘরে তুলতে অনেকেই বিভোর সময় পার করছে। জমিতে পাকা ধানের মৌ মৌ গন্ধে কৃষকের মুখে হাসির ঝিলিক দেখা গেছে। কিন্তু গত রবিবার সন্ধ্যার আগ মুহূর্তে মাত্র কয়েক মিনিটের কালবৈশাখী ঝড়ের গরম বাতাস যেন কৃষকদের সব স্বপ্ন বিলীন করে দিয়েছে। ধার-দেনা করে এক ফসলী জমির ফসল হারিয়ে পথে বসা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই কৃষকের।

মদনের তিয়শ্রী ইউনিয়নের বাগজান গ্রামের কৃষক আবুল মিয়া, খালিয়াজুরী উপজেলার মেন্দীপুর গ্রামের আরিফ মিয়া, মোহনগঞ্জ উপজেলার হাটনাইয়া গ্রামের হাসেম মিয়া, নলজুরী গ্রামের হেলিম মিয়াসহ অনেকেই জানান, হাওরের এক ফসলী বোরো জমির ফসল দিয়ে সারা বছর পরিবার নিয়ে জীবিকা নির্বাহ করি। রবিবার সন্ধ্যায় কয়েক মিনিটের গরম বাতাসে জমির সব ফসল নষ্ট হয়ে গেছে। ঋণ করে জমিতে ফসল উৎপাদন করেছিলাম। এখন সারা বছর খাবো কি আর কি দিয়ে ঋণ পরিশোধ করবো। সরকার যদি আমাদের পাশে না দাঁড়ায় তাহলে পথে বসা ছাড়া আর কোনো উপায় থাকবে না।

সোমবার সকালে মদন উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বুলবুল আহমেদসহ কৃষি বিভাগের লোকজন হাওরাঞ্চল পরিদর্শন করেছেন।

মদন উপজেলার ভারপ্রাপ্ত কৃষি অফিসার রায়হানুল হক জানান, রবিবার সন্ধ্যায় কালবৈশাখী ঝড়ে হাওরাঞ্চলের কৃষকদের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

নেত্রকোনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ হাবিবুর রহমান জানান, খবর পেয়ে আমি স্থানীয় কৃষি অফিসারদের নিয়ে মদন, মোহনগঞ্জ ও কালিয়াজুরী উপজেলার বিভিন্ন হাওরাঞ্চল পরিদর্শন করছি। তিনি জানান, যে সমস্ত জমিতে এখনও ধান পাকেনি সে সমস্ত জমির ধান গরম বাতাসের কারণে চিটা হতে পারে। আমাদের লোকজন মাঠে আছে। ক্ষয়ক্ষতির সঠিক পরিমাণ নিরূপণের চেষ্টা চলছে।

 

/এনএইচ/

সম্পর্কিত

১০ বছর যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধার ভাতা তুলেছেন রাজাকার

১০ বছর যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধার ভাতা তুলেছেন রাজাকার

এক জেলায় ১০ মাসে সড়কে ঝরলো ১৩৬ প্রাণ

এক জেলায় ১০ মাসে সড়কে ঝরলো ১৩৬ প্রাণ

নৌকার জনসভায় বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের হামলার অভিযোগ

নৌকার জনসভায় বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের হামলার অভিযোগ

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে করোনা উপসর্গে ৪ জনের মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে করোনা উপসর্গে ৪ জনের মৃত্যু

মাছ ও শুঁটকি আহরণ যাত্রা শুরু হচ্ছে জেলেদের

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ২০:১২

বঙ্গোপসাগরের সুন্দরবন উপকূলসংলগ্ন দুবলারচরে মাছ ও শুঁটকি আহরণ শুরু হচ্ছে। ঝড়-জলোচ্ছ্বাস, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও জলদস্যু আতঙ্ক মাথায় নিয়ে সোমবার দিবাগত রাত ১২টার পর মোংলার পশুর নদীর চিলা মোহনা থেকে জাল, নৌকা ও শুঁটকি তৈরির উপকরণ নিয়ে চরাঞ্চলে রওনা হবেন হাজারো জেলে। শুঁটকি মৌসুম ঘিরে এবছর দুবলারচরে ৩০ হাজার জেলে-ব্যবসায়ী ও শ্রমিকের সমাগম ঘটবে বলে আশা করছে বন বিভাগ।

পূর্ব সুন্দরবনের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, এবার দুবলারচরের শুঁটকিসহ সুন্দরবন বিভাগ থেকে ছয় কোটি টাকা রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। মাছ আহরণ ও শুঁটকি তৈরির জন্য দুবলারচর, আলোরকোল, মেহের আলী এবং শ্যালারচরসহ কয়েকটি চর তারা নির্ধারণ করেছে।

২২ দিন ইলিশসহ সব ধরনের মাছ আহরণ নিষিদ্ধ থাকায় এবার কিছুটা দেরিতে শুরু হচ্ছে মৎস্য আহরণ ও শুঁটকি প্রক্রিয়ার কাজ। আগামী চার মাস মোংলা, রামপাল, খুলনা, সাতক্ষীরা, পিরোজপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী ও বরিশালসহ সুন্দরবন উপকূলের হাজারো জেলে মাছ আহরণ ও শুঁটকি তৈরির জন্য সাগরপাড়ে অস্থায়ী বসতি গড়বেন। এ ছাড়া চট্টগ্রাম অঞ্চলের জেলে ও মৎস্যজীবীরাও যাবেন দুবলারচরে। 

মৌসুমের শুরুতেই রাজস্ব আয় বৃদ্ধির লক্ষ্যে নানামুখী পদক্ষেপ নিয়েছে বন বিভাগ। মোংলা থেকে নদীপথে দুবলারচরের জেলেপল্লির দূরত্ব প্রায় ১২০ কিলোমিটার। পল্লির সব কর্মকাণ্ড জেলে ও মৎস্যজীবীদের ঘিরে। সুন্দরবনের অভ্যন্তরে ১৩টি মৎস্য আহরণ, প্রক্রিয়াকরণ ও বাজারজাতকরণ কেন্দ্র নিয়ে গঠিত দুবলা জেলেপল্লি।

জেলেদের অভিযোগ, আগে দুবলারচরে যাওয়ার পথে এবং গভীর সমুদ্রে মাছ ধরতে গেলে দস্যুদের কবলে পড়ে সর্বস্ব হারিয়ে পথে বসতে হতো। কিন্তু বর্তমান সরকারের প্রচেষ্টায় এখন সুন্দরবন দস্যুমুক্ত হলেও ভিনদেশি জেলে ও দস্যুদের উৎপাত বেড়েছে। জেলেদের জিম্মি করে মুক্তিপণ কিংবা মারধর করে মাছ লুট করে নিয়ে যায় তারা।

গত ৪ অক্টোবর থেকে ২২ দিন ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ ছিল। বাংলাদেশি জেলেরা ইলিশ ধরা বন্ধ রাখলেও ভারতীয় জেলেরা চুরি করে ধরেছে। তারা ভারতীয় সীমানা পেরিয়ে বাংলাদেশের সীমানায় ঢুকে ট্রলার দিয়ে ইলিশ ধরে নিয়ে গেছে। চলতি মৌসুমে জেলেরা যাতে সাগরে নির্বিঘ্নে মাছ শিকার ও শুঁটকি তৈরি করতে পারেন সে জন্য প্রশাসনকে নজরদারি বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন জেলে ও মহাজনরা।

মৎস্যজীবীদের সংগঠন ‘দুবলা ফিশারম্যান গ্রুপে’র সাধারণ সম্পাদক কামাল উদ্দিন বলেন, ঘূর্ণিঝড়-জলোচ্ছ্বাস ও ভিনদেশি জেলেদের উৎপাতের শঙ্কা মাথায় নিয়ে উপকূলীয় অঞ্চলের জেলেরা মাছ ও শুঁটকি আহরণের জন্য সমুদ্রে যাত্রা করছেন। তাই তাদের নিরাপত্তা দিতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে অনুরোধ জানাই।

কোস্টগার্ড পশ্চিম জোনের (মোংলা সদরদফতর) অপারেশন কর্মকর্তা লে. কমান্ডার শেখ মেজবাহ উদ্দিন আহাম্মেদ বলেন, সুন্দরবন এবং সাগর এলাকায় সবসময় দস্যু দমন বনসম্পদ ও বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে অভিযান অব্যাহত থাকে। তবে সাগরে শীতকালীন মৎস্য আহরণের জন্য যাত্রা করা জেলেরা যাতে নির্বিঘ্নে গন্তব্যে পৌঁছাতে পারেন, সে জন্য মোংলা থেকে দুবলারচর পর্যন্ত কোস্টগার্ডের টহল অব্যাহত থাকবে। শুঁটকি প্রক্রিয়াকরণের জন্য জেলেদের বাড়তি নিরাপত্তা দেওয়া হবে।

প্রতিবছর শীত মৌসুমে সুন্দরবনের সাগর পাড়ের দুবলা, মেহের আলীর চর, আলোরকোল, অফিস কিল্লা, মাঝের কিল্লা, শেলার চর, নারিকেলবাড়িয়া, ছোট আমবাড়িয়া, বড় আমবাড়িয়া, মানিক খালী, কবরখালী, চাপড়াখালীর চর, কোকিলমনি ও হলদাখালীর চরে হাজার হাজার জেলে ও মৎস্যজীবী জড়ো হন। এসব চরে অবস্থান নিয়ে জেলেরা সমুদ্র মোহনায় মৎস্য আহরণ করেন। পাশাপাশি নিজেদের থাকা ও শুঁটকি তৈরির জন্য অস্থায়ী ঘর তৈরি করেন। জেলেরা বিভিন্ন প্রজাতির মাছ শিকার করে শুঁটকি করার পর তা দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এমনকি বিদেশেও পাঠান।

/এএম/

সম্পর্কিত

দুই মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে প্রাণ গেলো ২ যুবকের

দুই মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে প্রাণ গেলো ২ যুবকের

নড়াইলে অস্ত্র মামলায় একজনের যাবজ্জীবন

নড়াইলে অস্ত্র মামলায় একজনের যাবজ্জীবন

রূপসার শিয়ালীর মন্দিরে হামলা মামলায় ২৩ আসামি জেলে

রূপসার শিয়ালীর মন্দিরে হামলা মামলায় ২৩ আসামি জেলে

 র‌্যাব পরিচয়ে ব্যবসায়ীর ৮ লাখ টাকা ছিনতাই করে ধরা

 র‌্যাব পরিচয়ে ব্যবসায়ীর ৮ লাখ টাকা ছিনতাই করে ধরা

মাইক্রোর ধাক্কায় মহাসড়কে পড়া ছাত্রকে পিষে দিলো ট্রাক

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৫৯

কুমিল্লার চান্দিনায় ট্রাকচাপায় মো. সালমান (৮) নামের এক মাদ্রাসাছাত্র নিহত হয়েছে। সোমবার (২৫ অক্টোবর) ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার মাধাইয়া বাস স্টেশন এলাকায় দুর্ঘটনাটি ঘটে।

নিহত সালমান চান্দিনা উপজেলার গল্লাই ইউনিয়নের বসন্তপুর গ্রামের হাবিবুর রহমানের ছেলে। সে বসন্তপুর খাদিজা (রা.) আদর্শ মাদ্রাসার ছাত্র ছিল।

স্থানীয় বাসিন্দা জামাল জানান, সালমান তার চাচা তোফাজ্জলের সঙ্গে রাস্তা পার হচ্ছিলো। এ সময় দাঁড়িয়ে থাকা ছোট মাইক্রোবাসকে ধাক্কা দেয় বালুবাহী একটি ট্রাক। ওই মাইক্রোর ধাক্কায় মহাসড়কে ছিটকে পড়ে সালমান। তারপর বালুবাহী ট্রাকের চাপায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই সালমান নিহত হয়। আহত হন চাচা তোফাজ্জল হোসেনও। তাকে চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

হাইওয়ে পুলিশ ইলিয়টগঞ্জ ফাঁড়ির এসআই মো. শাকিল আহমেদ বলেন, নিহতের লাশ উদ্ধার করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। দুর্ঘটনাকবলিত মাইক্রো ও ট্রাক আটক করা হয়েছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

সিনহা হত্যা মামলা: এসআই আমিনুলসহ ৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ

সিনহা হত্যা মামলা: এসআই আমিনুলসহ ৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ

কোকেন মামলার চার্জ গঠন পেছালো

কোকেন মামলার চার্জ গঠন পেছালো

চট্টগ্রামে পূজামণ্ডপে হামলাচেষ্টা মামলার ১৬ আসামি রিমান্ডে 

চট্টগ্রামে পূজামণ্ডপে হামলাচেষ্টা মামলার ১৬ আসামি রিমান্ডে 

নোয়াখালীতে হামলা: বিএনপি-জামায়াত নেতাসহ গ্রেফতার ১১

নোয়াখালীতে হামলা: বিএনপি-জামায়াত নেতাসহ গ্রেফতার ১১

‘জুড়ীতে সাফারি পার্ক হলে পাহাড়-জীববৈচিত্র্য রক্ষা পাবে’

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৪৪

মৌলভীবাজারের জুড়ীতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক স্থাপনের সম্ভাব্যতা সমীক্ষা প্রতিবেদন অনুমোদন করেছে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়।  

সোমবার (২৫ অক্টোবর) বিকালে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিনের সভাপতিত্বে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত এ সংক্রান্ত সভায় রিপোর্টে কিছু পর্যবেক্ষণ অন্তর্ভুক্তি সাপেক্ষে অনুমোদন দেওয়া হয়। 

সভায় পরিবেশমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন বলেন, সাফারি পার্কের প্রস্তাবিত এলাকায় অনেক জায়গা অবৈধ দখলে চলে গেছে। এখানে সাফারি পার্ক নির্মিত হলে আর কেউ অবৈধ অনুপ্রবেশ করতে পারবে না। ফলে এখানকার পাহাড় ও জীববৈচিত্র্য রক্ষা পাবে। বর্তমানে প্রস্তাবিত লাঠিটিলার জড়িছড়া ও লালছড়া গ্রামের ২৭০ একর সাফারি পার্ক এলাকায় অবৈধভাবে বসবাসকারী ৩৭টি পরিবারকে স্থানান্তরের জন্য প্রয়োজনীয় বরাদ্দের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। জাতির পিতার নামে নির্মিতব্য সাফারি পার্কের মহাপরিকল্পনা ও ডিপিপি প্রণয়নের কাজ ডিসেম্বরের মধ্যে সম্পন্ন করার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন মন্ত্রী।

সভায় মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোস্তফা কামাল, অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) ইকবাল আব্দুল্লাহ হারুন, অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) আহমদ শামীম আল রাজী, অতিরিক্ত সচিব সঞ্জয় কুমার ভৌমিক, অতিরিক্ত সচিব কেয়া খান, বন অধিদফতরের প্রধান বন সংরক্ষক মো. আমীর হোসাইন চৌধুরী এবং সম্ভাব্যতা যাচাই কমিটির প্রধান তপন কুমার দেসহ মন্ত্রণালয় ও বন অধিদফতরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

/এএম/

সম্পর্কিত

মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতালে অক্সিজেন প্ল্যান্ট চালু

মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতালে অক্সিজেন প্ল্যান্ট চালু

সরকারের পদত্যাগ করা উচিত: ফখরুল

সরকারের পদত্যাগ করা উচিত: ফখরুল

সাম্প্রদায়িক হামলায় আ.লীগ-ছাত্রলীগ জড়িত: মির্জা ফখরুল

সাম্প্রদায়িক হামলায় আ.লীগ-ছাত্রলীগ জড়িত: মির্জা ফখরুল

স্বামীকে নির্যাতনের অভিযোগে ওসির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৩৯

৫০ হাজার টাকা চাঁদা নিয়েও নুরে আলম (৩০) নামের এক মোটরসাইকেল মেকানিককে থানায় নিয়ে অমানুষিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে বগুড়ার দুপচাঁচিয়া থানার ওসি হাসান আলীর বিরুদ্ধে। চাঁদা নেওয়ার বিষয়ে ডিআইজির কাছে নালিশ করায় বালু ব্যবসায়ীকে দিয়ে নুরে আলম বিরুদ্ধে ‘মিথ্যা মামলা’ দিয়ে হাজতে পাঠানো হয়েছে।

সোমবার (২৫ অক্টোবর) দুপুরে নুরে আলমের স্ত্রী রাজিয়া বেগম বগুড়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এসব অভিযোগ তোলেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, ওসি হাসানের অপরাধের শাস্তি ও তার স্বামী সুষ্ঠু বিচার না পেলে তিনি ফেসবুক লাইভে এসে দুই শিশু সন্তানকে বিষপানে হত্যার পর নিজে আত্মহত্যা করবেন।

তবে অভিযোগের বিষয়ে ওসি বলেন, ‘সংবাদ সম্মেলনটি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত এবং ষড়যন্ত্রমূলক। আমার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার জন্য করা হয়েছে।’

লিখিত বক্তব্যে রাজিয়া বেগম জানান, তার স্বামী নূরে আলম দুপচাঁচিয়া বন্দরে দীর্ঘদিন ধরে মোটরসাইকেল মেকানিক হিসেবে কাজ করে সংসার পরিচালনা করে আসছেন। তিনি অত্যন্ত সহজ সরল ও নিরীহ প্রকৃতির। গত ২৯ আগস্ট বেলা ১১টার দিকে দুপচাঁচিয়া থানার এসআই মোসাদ্দেক দোকানে এসে মামলা থাকার কথা বলে নূরে আলমকে থানায় ডেকে নিয়ে যান। সেখানে ওসি হাসান আলী তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও মারধর করে ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। অন্যথায় হত্যা, মাদক, চোরাকারবারিসহ বিভিন্ন মামলায় আদালতে চালান দেওয়ার হুমকি দেয়। পরে খবর পেয়ে রাজিয়া থানায় গিয়ে ওসিকে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে স্বামীকে ছাড়িয়ে আনেন। পরে এ ঘটনায় নূরে আলম পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জের জিআইজির কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। এ অভিযোগ করার পর থেকে ওসি হাসান আলী, স্থানীয় বালু ব্যবসায়ী প্রভাবশালী আমিনুল ইসলাম বুলুসহ বেশ কয়েকজন তার পরিবারের ওপর নানাভাবে অত্যাচার চালিয়ে আসছেন। বুলু ১৬ অক্টোবর থানায় নূরে আলম ও তার ভাইসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মিনিবাস ভাঙচুরের মামলা করেন। গত ১৯ অক্টোবর আদালতে জামিন নিতে যান ভুক্তভোগী। আদালত কয়েকজনকে জামিন দিলেও নূরে আলমসহ তিন জনকে কারাগারে পাঠান। এদিকে ওসি হাসান আলী ওইদিন নূরে আলম ও তার ভাইদের বিরুদ্ধে একটি ধর্ষণ মামলা রেকর্ড করেন। এজাহারে ধর্ষণের তারিখ দেখানো হয়েছে ১২ অক্টোবর।

এ নারী আরও বলেন, ‘স্বামী ও তার ভাইয়েরা জেলে থাকায় বাড়িতে শুধু শিশু ও নারীরা রয়েছেন। কিন্তু ওসি হাসান আলীর লেলিয়ে দেওয়া লোকজন নানাভাবে অত্যাচার ও হয়রানি করে আসছেন। এমনকি শিশু ছেলেকে ট্রাকের নিচে পিষিয়ে হত্যার হুমকি দিচ্ছেন। তাদের হুমকির মুখে ১০ বছরের শিশুর মাদ্রাসায় যাওয়া বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে পরিবারের সদস্যরা বাড়িতে নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন।’

সংবাদ সম্মেলনে ওই নারীর চাচা শ্বশুর বেলাল হোসেন, ফিরোজ, রনি সরদার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

/এফআর/

সম্পর্কিত

চলনবিলে ফাঁদমুক্ত হলো শতাধিক পাখি

চলনবিলে ফাঁদমুক্ত হলো শতাধিক পাখি

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুশূন্য রামেকের করোনা ইউনিট

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুশূন্য রামেকের করোনা ইউনিট

কারাগারে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামির মৃত্যু

কারাগারে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামির মৃত্যু

ট্রাকচাপায় প্রাণ গেলো সেনা সদস্যের

ট্রাকচাপায় প্রাণ গেলো সেনা সদস্যের

সিনহা হত্যা মামলা: এসআই আমিনুলসহ ৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৯:২৮

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার ষষ্ঠ দফায় পুলিশের এসআই আমিনুল ইসলামসহ আট জনের সাক্ষ্যগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। সোমবার (২৫ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১০টায় কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইলের আদালতে এই মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়ে বিকাল সাড়ে ৫টায় শেষ হয়। এ নিয়ে এই মামলায় মোট ৪৩ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে।

সোমবার সাক্ষ্য দেওয়া আট জনের মধ্যে রয়েছেন– কনস্টেবল পলাশ ভট্টাচার্য, পুলিশ সদস্য আবু সালাম, হিরো মিয়া ওসালা মারমা, নবী হোসেন, আবুল কালাম ও শহীদ উদ্দিন।

এর আগে সকাল ১০টায় ওসি প্রদীপসহ এই মামলার ১৫ আসামিকে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থায় আদালতে নিয়ে আসা হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ফরিদুল আলম জানান, সোমবার মেজর (অব.) সিনহা হত্যা মামলার ষষ্ঠ দফায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে। সিনহার মরদেহের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করা পুলিশের এসআই আমিনুল ইসলামের সাক্ষ্যগ্রহণের মধ্য দিয়ে মামলার কার্যক্রম শুরু হয়। এ দিন এসআই আমিনুল ইসলাম ছাড়াও মোট ১৯ জন সাক্ষীকে আদালতে উপস্থাপন করা হয়। 

এস আই আমিনুল ইসলাম আদালতে জবানবন্দিতে জানান, ২০২০ সালের ৩১ জুলাই রাতে ঘটনার দিন তিনি কক্সবাজার সদর থানায় কর্মরত ছিলেন। ওইদিন রাত আনুমানিক সাড়ে ১২টার দিকে তিনি কক্সবাজার সদর হাসপাতালে মর্গে ডিউটিতে যান। সে সময় তার সঙ্গে ছিলেন কনস্টেবল পলাশ ও শুভ। তিনি কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের ডোম মনু ও ধলার সহযোগিতায় মেজর সিনহার লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করেন। প্রতিবেদন তৈরির সময় মেজর সিনহার ব্যবহৃত দ্রব্য-সামগ্রীর জব্দ তালিকা তৈরি করেন। পরদিন ১ আগস্ট বিকালে রামু ক্যান্টনমেন্টের সার্জেন্ট জিয়াউর রহমান ও আনিসুর রহমানের কাছে মেজর সিনহার লাশ হস্তান্তর করি। মামলার তদন্তকালে আইওর কাছে এ ব্যাপারে জবানবন্দি দিয়েছেন।

গত বছর ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান।

/এমএএ/

সম্পর্কিত

মাইক্রোর ধাক্কায় মহাসড়কে পড়া ছাত্রকে পিষে দিলো ট্রাক

মাইক্রোর ধাক্কায় মহাসড়কে পড়া ছাত্রকে পিষে দিলো ট্রাক

কোকেন মামলার চার্জ গঠন পেছালো

কোকেন মামলার চার্জ গঠন পেছালো

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

১০ বছর যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধার ভাতা তুলেছেন রাজাকার

১০ বছর যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধার ভাতা তুলেছেন রাজাকার

এক জেলায় ১০ মাসে সড়কে ঝরলো ১৩৬ প্রাণ

এক জেলায় ১০ মাসে সড়কে ঝরলো ১৩৬ প্রাণ

নৌকার জনসভায় বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের হামলার অভিযোগ

নৌকার জনসভায় বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের হামলার অভিযোগ

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে করোনা উপসর্গে ৪ জনের মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে করোনা উপসর্গে ৪ জনের মৃত্যু

এখনও প্রণোদনার টাকা পাননি ৬৬ শতাংশ চিকিৎসক-নার্স

ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজএখনও প্রণোদনার টাকা পাননি ৬৬ শতাংশ চিকিৎসক-নার্স

ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে বিজিবি সদস্যের আত্মহত্যা

ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে বিজিবি সদস্যের আত্মহত্যা

ময়মনসিংহে আরও ৩ রাজাকার গ্রেফতার 

ময়মনসিংহে আরও ৩ রাজাকার গ্রেফতার 

গফরগাঁওয়ে ট্রেনে কাটা পড়ে নিহত ২

গফরগাঁওয়ে ট্রেনে কাটা পড়ে নিহত ২

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় গ্রেফতার ৩

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় গ্রেফতার ৩

ময়মনসিংহে শনাক্তের সঙ্গে বেড়েছে মৃত্যু 

ময়মনসিংহে শনাক্তের সঙ্গে বেড়েছে মৃত্যু 

সর্বশেষ

মাছ ও শুঁটকি আহরণ যাত্রা শুরু হচ্ছে জেলেদের

মাছ ও শুঁটকি আহরণ যাত্রা শুরু হচ্ছে জেলেদের

এসক্রো সার্ভিসে আটকে থাকা টাকার বিষয়ে যা বললেন বাণিজ্যমন্ত্রী

এসক্রো সার্ভিসে আটকে থাকা টাকার বিষয়ে যা বললেন বাণিজ্যমন্ত্রী

ধানমন্ডির আড্ডা রেস্তোরাঁকে এক লাখ টাকা জরিমানা

ধানমন্ডির আড্ডা রেস্তোরাঁকে এক লাখ টাকা জরিমানা

যৌন হয়রানি রোধে রায়ের বাস্তবায়ন চাওয়া রিট কার্যতালিকা থেকে বাদ 

যৌন হয়রানি রোধে রায়ের বাস্তবায়ন চাওয়া রিট কার্যতালিকা থেকে বাদ 

ফৌজদারি কার্যবিধি আধুনিকায়নে ৯ সদস্যের কমিটি

ফৌজদারি কার্যবিধি আধুনিকায়নে ৯ সদস্যের কমিটি

© 2021 Bangla Tribune