X
শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮
Bangla Tribune Eid

সেকশনস

হেলে পড়া ভবনটির অনুমোদন নেই, ভেঙে ফেলতে চসিককে চিঠি

আপডেট : ১১ এপ্রিল ২০২১, ২৩:৫৩

গোয়ালপাড়ায় হেলে পড়া ভবনটি নির্মাণে ভবনের মালিক কোনও ধরনের ইমারত নির্মাণ প্রকৌশল বিধিমালা অনুসরণ করেননি বলে দাবি করেছেন চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ প্রকৌশলী শাহিনুল ইসলাম। এ কারণে নির্মাণের ১০ থেকে ১৫ বছরের মাথায় ভবনটি হেলে পড়েছে বলে তিনি জানান।

শাহিনুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ভবন নির্মাণের জন্য ভবন মালিক কোনও ইঞ্জিনিয়ারের কাছ থেকে ডিজাইন নেননি। ডিজাইন ছাড়াই উনি নিজের ডিজাইনে ভবন নির্মাণ করেছেন। এরপর নির্মাণ ত্রুটি পরিলক্ষিত হয়। তখনও তারা নিজেদের বুদ্ধিতে সেটি মেরামত করার চেষ্টা করছিলেন। গর্ত করে তারা গেটিস দেওয়ার চেষ্টা করছিলেন। এটা তো এক্সপার্টদের কাজ, এটা উনারা নিজেরা কেন করতে গেলেন? কোনও কাঠামোগত এক্সপার্টের সহযোগিতা না নিয়ে তারা ভবন মেরামত কাজ শুরু করায় ভবনটি হেলে পড়ে।’

রাতের বেলা ভবনটির সামনে পুলিশ পাহারা

এর আগে শনিবার (১০ এপ্রিল) রাত ৯টার দিকে কার্তিক ঘোষের মালিকানাধীন ৫ তলা ভবনটি হেলে পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে দ্রুত ভবনের বাসিন্দাদের সরিয়ে দেন।

স্থানীয়দের অভিযোগ, কোনও ধরনের অনুমোদন না নিয়েই ভবনটির সামনে দুটি পিলার বসানোর কাজ করছিলেন মালিকপক্ষ। সন্ধ্যার পর পাইলিং করতে গেলে ভবনটি সামনের দিকে হেলে পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস এসে ভবনের বাসিন্দাদের অন্যত্র সরে যেতে নির্দেশ দেন। রবিবার সকালে হেলে পড়া ভবনটি পরিদর্শন করেন সিডিএ’র ইঞ্জিনিয়ার শাহিনুল ইসলাম। এসময় তিনি ভবনটি ভেঙে ফেলার নির্দেশনা দেন।

এ সম্পর্কে জানতে চাইলে শাহিনুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ভবনটি নির্মাণের জন্য ভবনের মালিক ১৯৯৬ সালে সিডিএ থেকে অনুমোদন নিয়েছিলেন। কিন্তু, তিনি ওই সময় ভবনটি নির্মাণ করেননি। অনুমোদনের সময় পার হওয়ার পর তিনি ভবনটি নির্মাণ করেন। ভবনটি নির্মাণ করেছেন ১০ থেকে ১৫ বছর হচ্ছে। এ হিসেবে ভবনটি নির্মাণে সিডিএ’র অনুমোদন নেই। এর বাইরে ভবনটি নির্মাণে ইমারত নির্মাণ প্রকৌশল বিধিমালাও অনুসরণ করা হয়নি। তাই ভবনটি হেলে পড়েছে।

যে কোনও মুহূর্তে ভবনটি ভেঙে পড়ে জন-জীবনের ক্ষয়ক্ষতির কারণ হতে পারে জানিয়ে শাহিনুল ইসলাম বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ ভবনটি ভেঙে ফেলতে হবে। এর জন্য আমরা চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনকে চিঠি দিয়েছি। আমাদের (সিডিএ) কাজ হলো ঝুঁকিপূর্ণ ভবন চিহ্নিত করে সেগুলো সিটি করপোরেশনকে প্রদান করা। ভেঙে ফেলার কাজটি তারাই করবে।’

নিয়ম অনুযায়ী সিডিএ কোনও ভবনকে ঝুঁকিপূর্ণ ভবন হিসেবে ঘোষণা করে তা সিটি করপোরেশনকে চিঠির মাধ্যমে জানিয়ে ভাঙতে অনুরোধ করলে ভাঙার কাজটি করে সিটি করপোরেশনের রাজস্ব বিভাগ।

গোয়াল পাড়া ভবনটির ভেঙে ফেলার বিষয়ে জানতে সিটি করপোরেশনের প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা শাহেদা ফাতেমা চৌধুরীর মোবাইল ফোনে একাধিকবার মোবাইল করা হলে তিনি কল রিসিভ করেননি।

তবে এর আগে রবিবার দুপুরে হেলে পড়া ভবনটি পরিদর্শনে গিয়ে সিটি করপোশেনের মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী ভবনের মালিক কার্তিক ঘোষের পরিবারকে অচিরেই ভবনটি ভেঙে ফেলে নিরাপদে অপসারণ করে এলাকাকে ঝুঁকিমুক্ত করার আহ্বান জানান।

ওই সময় রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, ‘নগরীতে যে সকল ভবন হেলে পড়েছে বা ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে তার একটি সুনির্দিষ্ট তালিকা নিশ্চয়ই সিডিএ’র কাছে আছে। আমি মনে করি কোনও ধরনের বিপর্যয়ের আগেই কেবল কার্তিক ঘোষের বাড়িটি নয়, নগরীর সব ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ভেঙে অপসারণে এসব ভবন মালিককে বাধ্য করতে হবে।’

এদিকে সিটি করপোরেশন থেকে ভবনটি ভেঙে ফেলতে কার্যকর কোনও পদক্ষেপ না না নেওয়া হলেও রবিবার ভবনের মালিক পক্ষ নিজেরাই ভবনটি ভেঙে ফেলার কাজ শুরু করেছে। প্রথম দিন তারা ভবনটির দরজা, জানালাগুলো খুলে অন্যত্র নিয়ে যান। এরপর পর্যায়ক্রমে ভবনটি ভেঙে ফেলা হবে বলে জানিয়েছেন ভবনের মালিক।

এ সম্পর্কে জানতে চাইলে কার্তিক ঘোষের মেজো ছেলে রূপা ঘোষ জানান, রাস্তার পাশে ভবনটির একটি পিলারে ফাটল ধরায় সেটি সংস্কার করতে গেলে ভবনটি হেলে পড়ে। এরপর রবিবার সিডিএ, সিটি করপোরেশন থেকে লোকজন এসেছে। তারা ভবনটি ভেঙে ফেলার নির্দেশনা দিয়েছেন। তাদের নির্দেশনা মেনেই আমরা ভবনটি ভাঙার উদ্যোগ নিয়েছি। আজ থেকেই ভাঙার কাজ শুরু করেছি।

/টিএন/

সম্পর্কিত

ঈদের দিনেও ঠায় দাঁড়িয়ে ডিউটিতে যারা

ঈদের দিনেও ঠায় দাঁড়িয়ে ডিউটিতে যারা

বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরতে বেরিয়ে প্রাণ গেলো কিশোরের

বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরতে বেরিয়ে প্রাণ গেলো কিশোরের

কোয়ারেন্টিনে থাকা ভারতফেরত ২৫২ জনের মাঝে খাদ্য বিতরণ

কোয়ারেন্টিনে থাকা ভারতফেরত ২৫২ জনের মাঝে খাদ্য বিতরণ

নীলাচলে লেগেছে প্রকৃতির ছোঁয়া

নীলাচলে লেগেছে প্রকৃতির ছোঁয়া

ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের প্রথমবারের মতো খুশির ঈদ

ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের প্রথমবারের মতো খুশির ঈদ

ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলি হামলার প্রতিবাদে রাঙামাটিতে বিক্ষোভ

ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলি হামলার প্রতিবাদে রাঙামাটিতে বিক্ষোভ

ইসরায়েলি সন্ত্রাস বন্ধে পদক্ষেপ নিতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রতি বাবুনগরীর আহ্বান

ইসরায়েলি সন্ত্রাস বন্ধে পদক্ষেপ নিতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রতি বাবুনগরীর আহ্বান

মেঘনায় নিখোঁজের তিন দিন পর লাশ উদ্ধার

মেঘনায় নিখোঁজের তিন দিন পর লাশ উদ্ধার

বাবুলের বাবার দাবি, বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের বিষয়টি জানতো না পরিবার

বাবুলের বাবার দাবি, বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের বিষয়টি জানতো না পরিবার

নোয়াখালীর তিন গ্রামে ঈদ উদযাপন

নোয়াখালীর তিন গ্রামে ঈদ উদযাপন

চাঁদপুরের সেই ৪০ গ্রামে আজও উদযাপিত হচ্ছে ঈদ

চাঁদপুরের সেই ৪০ গ্রামে আজও উদযাপিত হচ্ছে ঈদ

ভারতীয় নারীর সঙ্গে পরকীয়া, হত্যার ছক কষেছিলেন বাবুল নিজেই

ভারতীয় নারীর সঙ্গে পরকীয়া, হত্যার ছক কষেছিলেন বাবুল নিজেই

সর্বশেষ

ইসরায়েলের একক আধিপত্যের যুগ শেষ: হামাস

ইসরায়েলের একক আধিপত্যের যুগ শেষ: হামাস

মুম্বাই থেকে ফিরে ‘বঙ্গবন্ধু’র অভিজ্ঞতা শেয়ার করলেন শুভ

ঈদ বিশেষমুম্বাই থেকে ফিরে ‘বঙ্গবন্ধু’র অভিজ্ঞতা শেয়ার করলেন শুভ

ক্ষতি নেই ফরমালিন বা কার্বাইড মেশানো আমে?

ক্ষতি নেই ফরমালিন বা কার্বাইড মেশানো আমে?

বেনাপোলে গাড়িচাপায় বন্দরের সিকিউরিটি গার্ড নিহত

বেনাপোলে গাড়িচাপায় বন্দরের সিকিউরিটি গার্ড নিহত

রাঙ্গাবালীতে মুদি দোকানিকে কুপিয়ে হত্যা

রাঙ্গাবালীতে মুদি দোকানিকে কুপিয়ে হত্যা

যে কারণে মুখ থুবড়ে পড়েছে ভারতের টিকাদান কর্মসূচি

যে কারণে মুখ থুবড়ে পড়েছে ভারতের টিকাদান কর্মসূচি

গোসলে নেমে নদীতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

গোসলে নেমে নদীতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

আজও ঘরমুখো মানুষের উপচেপড়া ভিড়

শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটআজও ঘরমুখো মানুষের উপচেপড়া ভিড়

এঁকেবেঁকে মোটরসাইকেল চালাতে গিয়ে সড়কে প্রাণ গেলো কলেজছাত্রের

এঁকেবেঁকে মোটরসাইকেল চালাতে গিয়ে সড়কে প্রাণ গেলো কলেজছাত্রের

স্বামী-স্ত্রীর দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৭

ঈদে ছেলেকে নতুন জামা না দেওয়া নিয়ে দ্বন্দ্বস্বামী-স্ত্রীর দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৭

লকডাউনে পুলিশকে বিচারিক ক্ষমতা দেওয়া নিয়ে যত মত

লকডাউনে পুলিশকে বিচারিক ক্ষমতা দেওয়া নিয়ে যত মত

তালায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় কলেজছাত্র নিহত

তালায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় কলেজছাত্র নিহত

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ঈদের দিনেও ঠায় দাঁড়িয়ে ডিউটিতে যারা

ঈদের দিনেও ঠায় দাঁড়িয়ে ডিউটিতে যারা

বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরতে বেরিয়ে প্রাণ গেলো কিশোরের

বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরতে বেরিয়ে প্রাণ গেলো কিশোরের

কোয়ারেন্টিনে থাকা ভারতফেরত ২৫২ জনের মাঝে খাদ্য বিতরণ

কোয়ারেন্টিনে থাকা ভারতফেরত ২৫২ জনের মাঝে খাদ্য বিতরণ

নীলাচলে লেগেছে প্রকৃতির ছোঁয়া

নীলাচলে লেগেছে প্রকৃতির ছোঁয়া

ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের প্রথমবারের মতো খুশির ঈদ

ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের প্রথমবারের মতো খুশির ঈদ

ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলি হামলার প্রতিবাদে রাঙামাটিতে বিক্ষোভ

ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলি হামলার প্রতিবাদে রাঙামাটিতে বিক্ষোভ

ইসরায়েলি সন্ত্রাস বন্ধে পদক্ষেপ নিতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রতি বাবুনগরীর আহ্বান

ইসরায়েলি সন্ত্রাস বন্ধে পদক্ষেপ নিতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রতি বাবুনগরীর আহ্বান

মেঘনায় নিখোঁজের তিন দিন পর লাশ উদ্ধার

মেঘনায় নিখোঁজের তিন দিন পর লাশ উদ্ধার

বাবুলের বাবার দাবি, বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের বিষয়টি জানতো না পরিবার

বাবুলের বাবার দাবি, বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের বিষয়টি জানতো না পরিবার

নোয়াখালীর তিন গ্রামে ঈদ উদযাপন

নোয়াখালীর তিন গ্রামে ঈদ উদযাপন

© 2021 Bangla Tribune