X
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ৮ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে স্মারকগ্রন্থ

সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের ভাবনায় বঙ্গবন্ধু

আপডেট : ১৩ এপ্রিল ২০২১, ২০:০৪

স্বাধীন বিচার বিভাগ এবং ন্যায়বিচারের প্রতি আপসহীন ছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ইতিহাসের এই মহান বীরের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ‘ইতিহাসের মহানায়ক’ নামে একটি স্বারকগ্রন্থ প্রকাশ করেছে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি। বিচার বিভাগের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর স্মরণে বইটিতে উঠে এসেছে সুপ্রিম কোর্টের উভয় বিভাগের বিচারপতিদের ভাবনা ও প্রত্যাশার কথা।

বইটি সম্পর্কে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন বলেন, ‘আইনজীবী, আদালত, আইনের শাসন ও বিচার বিভাগ নিয়ে বঙ্গবন্ধু কী ভেবেছিলেন, সেই বিষয়গুলো মানুষের সামনে তুলে ধরতেই আমাদের এই প্রকাশনা। একইসঙ্গে স্মারক গ্রন্থে বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য কর্মময় জীবন, বাঙালি জাতিসত্তার আত্মপ্রকাশে তার রাজনৈতিক সংগ্রাম, আত্মত্যাগ এবং স্বনির্ভর বাংলাদেশ বিনির্মাণে তার স্বপ্নের বিভিন্ন দিক নিয়ে বিশ্লেষণমূলক ও স্মৃতিচারণমূলক লেখা প্রকাশ হয়েছে।’

বইটিতে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানাসহ দেশের প্রতিথযশা আইনজীবী ও শিক্ষকদের লেখাও রয়েছে। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের ভাবনার কিছু অংশ বাংলা ট্রিবিউনের পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

শুরুতেই বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন লিখেছেন, ‘বাংলাদেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও ন্যায়ের শাসনের অনন্য প্রতীক সুপ্রিম কোর্ট। আমাদের স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর ও মুজিব শতবর্ষকে যথাযথ মর্যাদায় পালন স্বাধীন এ প্রতিষ্ঠানের আবশ্যিক চেতনাগত দায়িত্ব। এ দায়িত্ব পালনের অন্যতম অণুষঙ্গ হলো মুক্তি উপলক্ষে স্মারকগ্রন্থ প্রকাশ। আশা করছি এ স্মারকগ্রন্থে বর্তমান ও আগামী প্রজন্মের জন্য বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নে-প্রত্যাশায় স্বাধীন বাংলাদেশে ন্যায়বিচার ব্যবস্থার যে স্বরূপ পরিগ্রহ করেছিল তার একটি চিত্র যথাযথভাবে ফুটে উঠবে।’

সুপ্রিম কোর্ট আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী লিখেছেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে দেখার ভাগ্য আমার আর কোনও দিনই হবে না। তবে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, উনার দেখানো পথ এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা আমাদের সোনার বাংলা গড়ার জন্য উৎসাহিত করবে বলে আমি বিশ্বাস করি।’

আপিল বিভাগের আরেক বিচারপতি মো. নুরুজ্জামান লিখেছেন, ‘৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণে বঙ্গবন্ধু বিচার প্রক্রিয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ মূলনীতি দ্ব্যর্থহীন কণ্ঠে উচ্চারণ করেন। তিনি বলেন, যদি কেউ ন্যায্য কথা বলে, আমরা সংখ্যায় বেশি হলেও, একজনও যদি সে হয়, তার ন্যায্য কথা আমরা মেনে নেব। পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর প্রতি বঙ্গবন্ধুর উচ্চারিত এই বাক্যটির যে নিগূঢ় অর্থ আছে তা আইনের চোখে সমতা এবং ধর্ম, বর্ণ, লিঙ্গ, গোষ্ঠীভেদে বৈষম্যহীনতার বেদবাক্য হিসেবে পৃথিবীর সকল সভ্য দেশের সংবিধানে স্বীকৃত।’

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল ২-এর সাবেক চেয়ারম্যান ও আপিল বিভাগের বর্তমান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ‘বঙ্গবন্ধু ও তাঁর সহকর্মীগণ অবিচল আস্থা ও আনুগত্যের বন্ধন’ শিরোনামে একটি নিবন্ধ লিখেছেন। তাতে একটি অংশে তিনি লিখেছেন, ‘৭৫-এর ১৫ আগস্ট খন্দকার মোশতাকের নেতৃত্বে যখন জাতির জনককে এ দেশের কিছু নরপশু সপরিবারে হত্যা করে ঠিক তখন জাতীয় চার নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, ক্যাপ্টেন মনসুর আলী ও এএইচএম কামরুজ্জামান তাঁদের নেতার আদর্শের প্রতি অবিচল থেকে হাসিমুখে কারাবরণ করতে দ্বিধা করেননি। কারা অভ্যন্তরে তাঁরা তাঁদের জীবন দিয়ে প্রমাণ করে গেছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ছিলেন তাঁদের নেতা এবং তাঁর মৃত্যুর পরও তারা তাঁর (বঙ্গবন্ধু) আদর্শ থেকে এতটুকু বিচ্যুত হননি। জীবন দিয়ে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন এই জাতীয় চার নেতা। আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম যেন তাঁদের জীবনে এরূপ আদর্শ প্রতিষ্ঠা করতে পারে এই কামনা করি। সেই সঙ্গে তারা যেন ঘৃণা করে কপট বিশ্বাসঘাতকদের।’

‘আইন-আদালত-বিচারব্যবস্থা নিয়ে বঙ্গবন্ধুর অভিজ্ঞতা ও ভাবনা’ শিরোনামে লিখেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল ১-এর সাবেক চেয়ারম্যান ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম। তিনি লিখেছেন, ‘কারাগার, আইন-আদালত ও বিচারব্যবস্থা নিয়ে বঙ্গবন্ধুর অভিজ্ঞতা, মূল্যায়ন, ভাবনা ও প্রত্যয়সমূহ বর্তমান সময় হতে ৬০-৭০ বছর আগের। কিন্তু তাঁর ওইসব মূল্যবান অভিজ্ঞতা, মূল্যায়ন, দৃষ্টিভঙ্গি ও প্রত্যয়সমূহকে যদি বর্তমান সময়ের আইন-আদালত-বিচার ব্যবস্থার সঙ্গে মিলিয়ে দেখার চেষ্টা করা হয়, তবে বলতে দ্বিধা হওয়ার কথা নয় যে, বঙ্গবন্ধু যেন বর্তমান সময়ের বাস্তবতাকেই লিখে গেছেন। আরও বলতে দ্বিধা নেই যে, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা ও বিচারপ্রার্থীর ন্যায়বিচার-স্বচ্ছতা ও দ্রুততার সঙ্গে নিশ্চিত করার জন্য বাংলাদেশ রাষ্ট্রের অঙ্গীকার পূরণে এখনও অনেক করণীয় রয়েছে, যার দায়ভার মূলত রাষ্ট্রের নির্বাহী ও বিচার বিভাগের। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে সংশ্লিষ্ট সকলকে বিষয়টি গভীর আন্তরিকতা ও অঙ্গীকার নিয়ে ভাবতে হবে। প্রণয়ন করতে হবে যথাযথ কর্মকৌশল, জাতির জনকের প্রতি প্রকৃত শ্রদ্ধা জানাতে এবং তার রক্তঋণ পরিশোধের জন্য।’

বিলেতে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও আপিল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক লিখেছেন, ‘আজ যখন আমাদের দেশের দুই পয়সার চার পয়সার লোক বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে কটু কথা বলার ধৃষ্টতা প্রদর্শন করে, তখন তাদের মূর্খতার জন্য করুণা হয়। অবশ্য তাদের বিরাট অংশ ৭১-এর পরাজিত অপশক্তির অংশ বা তাদের বংশধর, যারা স্বাধীন-ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশ চায়নি, চায়নি পাকিস্তানের শোচনীয় পরাজয় এবং ভেঙে যাওয়া।’

/এফএ/

সম্পর্কিত

মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িতদের বঙ্গবন্ধু ক্ষমা করেননি

মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িতদের বঙ্গবন্ধু ক্ষমা করেননি

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত করার নির্দেশ

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত করার নির্দেশ

১৫ আগস্টের শহীদদের স্মরণে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মোমবাতি প্রজ্বলন

১৫ আগস্টের শহীদদের স্মরণে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মোমবাতি প্রজ্বলন

বাংলাদেশি দূতাবাসে শোক দিবস পালিত

বাংলাদেশি দূতাবাসে শোক দিবস পালিত

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০১:০৯

কোভিড-১৯, সংঘাত, ক্ষুধা, দারিদ্র্য ও জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বিশ্ব নানা সংকটে রয়েছে। এসব সংকট পরিষ্কার করে দিয়েছে যে সংহতির মাধ্যমেই এগিয়ে যেতে হবে। জাতিসংঘ দিবস উপলক্ষে এক বার্তায় জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস এসব কথা বলেন।

গুতেরেস বলেন, ‘বড় চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলায় এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে আমাদের একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন।’

ওই বার্তায় তিনি বলেন, ‘৭৬ বছর আগের বিপর্যয়কর এক সংঘাতের ছায়া থেকে বিশ্বের উত্তরণের প্রত্যাশার বাহন হিসেবে জাতিসংঘ প্রতিষ্ঠা পায়। আজ জাতিসংঘের নারী-পুরুষেরা সেই প্রত্যাশাকে বিশ্বজুড়ে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।’

জাতিসংঘ মহাসচিব বলেন, ‘আমাদের এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা ও টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে হবে। এ জন্য বিশ্বের সব জায়গার সব মানুষকে কোভিড-১৯ এর টিকা নিশ্চিত করা জরুরি।’

তিনি বলেন, ‘জাতিসংঘ সনদকে  ৭৬ বছর ধরে শক্তি জুগিয়েছে যেসব মূল্যবোধ যেমন: শান্তি, উন্নয়ন, মানবাধিকার, সবার জন্য সমান সুযোগ—এগুলোর প্রয়োজনীয়তা কখনও ফুরিয়ে যাবে না।’

গুতেরেস বলেন, ’আজ এই জাতিসংঘ দিবস পালনের সময় আমি এসব আদর্শে সবাইকে একতাবদ্ধ হওয়ার এবং জাতিসংঘের প্রতিশ্রুতি, সম্ভাবনা ও এই বিশ্ব সংস্থার প্রতি প্রত্যাশা পূরণের আহ্বান জানাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘সব মানুষের, বিশেষত দরিদ্রতম ও সবচেযে সুবিধাবঞ্চিত মানুষ, নারী ও মেয়েশিশু এবং শিশু ও তরণদের অধিকার ও মর্যাদা নিশ্চিত ও সুরক্ষিত করার মাধ্যমে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। বিশ্বে সংঘাত নিরসনের পথ অনুসন্ধানের মাধ্যমে আমাদের অগ্রসর হতে হবে।’

গুতেরেস বলেন, ‘আমাদের এই গ্রহটাকে রক্ষা করতে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বড় ধরনের প্রতিশ্রুতি এবং তা বাস্তবায়নের মাধ্যমে এগিয়ে যেতে হবে। অন্তর্ভুক্তিমূলক, আন্তঃসম্পর্কযুক্ত ও কার্যকর বৈশ্বিক সুশাসন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে আমাদের অগ্রসর হতে হবে, যার বিস্তারিত আমার সাম্প্রতিক প্রতিবেদন ‘আওয়ার কমন অ্যাজেন্ডা’য় আমি তুলে ধরেছি।’

 

/এসএসজেড/আইএ/

সম্পর্কিত

বাড্ডার আগুন নিয়ন্ত্রণে

বাড্ডার আগুন নিয়ন্ত্রণে

জাতিসংঘ দিবস আজ

জাতিসংঘ দিবস আজ

বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক ও মহাসচিব দীপ আজাদ

বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক ও মহাসচিব দীপ আজাদ

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

বাড্ডার আগুন নিয়ন্ত্রণে

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০০:২৪

রাজধানীর উত্তর বাড্ডার সাতারকুল এলাকায় একটি গোডাউনে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। শনিবার (২৩ অক্টোবর)  রাত সাড়ে ১১টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

এর আগে রাত ৯টা ৫৮ মিনিটের দিকে এ আগুন লাগে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ৬টি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভাতে কাজ করে।

ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের মিডিয়া শাখার কর্মকর্তা মো. রায়হান এসব তথ্য জানান।

রায়হান বলেন, ‘রাজধানীর উত্তর বাড্ডা সাতারকুল রোডের সাত তলা ভবনের নিচ তলায় আগুন লাগার সংবাদ পাই আমরা। ৬টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করেছে। পরে আগুন লাগার কারণ সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো যাবে।’

ফায়ার সার্ভিস জানায়, সাতারকুলের জিএম বাড়ি এলাকার তিন তলা ভবনের নিচ তলায় জ্যোতি লিকার স্টোরের কেমিক্যাল হতে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। আগুনে দ্বিতীয় তলার কাপড়ের দোকান এবং তৃতীয় তলার ইলেকট্রনিক ওয়ার্কসপ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’

 

 

/আইটি/আইএ/

সম্পর্কিত

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক ও মহাসচিব দীপ আজাদ

বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক ও মহাসচিব দীপ আজাদ

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

জাতিসংঘ দিবস আজ

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০০:০৫

আজ জাতিসংঘ দিবস। ১৯৪৫ সালের ২৪ অক্টোবর আনুষ্ঠানিকভাবে কার্যক্রম শুরু করে জাতিসংঘ। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য গঠিত এই সংস্থা কালের পরিক্রমায় কলেবরে অনেক বেড়েছে। ৫১টি সদস্য রাষ্ট্র নিয়ে ১৯৪৫ সালে যাত্রা শুরু করলেও বর্তমানে এর সদস্য সংখ্যা ১৯৩। সারা পৃথিবীব্যাপী বিভিন্ন দ্বন্দ্ব নিরসনে, শান্তি প্রতিষ্ঠায় ও উন্নয়নের জন্য কাজ করছে জাতিসংঘ। ১৯৪৫ সালে জাতিসংঘ ভবন

১৯৭১ সালে স্বাধীনতা লাভের পর জাতিসংঘের সদস্য হওয়ার জন্য চেষ্টা করে বাংলাদেশ। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশের আবেদন চীনের ভেটোর কারণে বাতিল হয়ে যায়। পরবর্তীতে ১৯৭৪ সালে বাংলাদেশ সদস্যপদ লাভ করে। ওই বছরই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রথমবারের মতো বাংলায় জাতিসংঘে বক্তব্য রাখেন।

প্রথম থেকেই বহুপাক্ষিক ব্যবস্থার সমর্থক বাংলাদেশ সবসময় জাতিসংঘের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছে এবং করছে। শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী বাহিনীতে অবদান রাখছে এমন দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। তবে একই সঙ্গে সংস্থাটির বিভিন্ন কার্যক্রম নিয়ে যেমন সমালোচনা রয়েছে তেমনি অনেক কাজ করতে সফল হয়নি বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠানটি।

এ বিষয়ে জেনেভাতে রাষ্ট্রদূত এবং জাতিসংঘে স্থায়ী প্রতিনিধি মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, সমালোচনা ও অসফলতা থাকলেও জাতিসংঘের কোনো বিকল্প নেই।

এটি একমাত্র বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠান যেখানে ধনী-গরিব, ছোট-বড় সব দেশই সদস্য এবং একমাত্র প্ল্যাটর্ফম যেখানে সবাই একসঙ্গে আলোচনা করতে পারে বলে তিনি জানান।

তিনি বলেন, ছোট বা কম শক্তিশালী দেশগুলো এখানে তাদের কথা বলতে পারে যা অন্য জায়গায় বলা সম্ভব হয় না।

জাতিসংঘকে কিভাবে আরও সফল করা যায় ‑ জানতে চাইলে তিনি বলেন, জাতিসংঘ একটি রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান এবং এটি ততটুকু সফল হবে যতটুকু এর সদস্য রাষ্ট্রগুলো চাইবে।

জাতিসংঘের সফলতা সদস্য রাষ্ট্রগুলোর সদিচ্ছার ওপর নির্ভর করে জানিয়ে তিনি বলেন, এজন্য সবচেয়ে বেশি দায়িত্ব তাদের।

/এসএসজেড/এমএস/

সম্পর্কিত

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বাংলাদেশে ‘সাম্প্রদায়িক হামলা’র নিরপেক্ষ তদন্ত চায় জাতিসংঘ

বাংলাদেশে ‘সাম্প্রদায়িক হামলা’র নিরপেক্ষ তদন্ত চায় জাতিসংঘ

মালিতে ১৪০ পুলিশ সদস্য জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা পদকে ভূষিত

মালিতে ১৪০ পুলিশ সদস্য জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা পদকে ভূষিত

করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রশংসায় ইউএনডিপি এবং আইওএম

করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রশংসায় ইউএনডিপি এবং আইওএম

বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক ও মহাসচিব দীপ আজাদ

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ২৩:৫২

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন-বিএফইউজে’র কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচনে সভাপতি হিসেবে বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার উপপ্রধান বার্তা সম্পাদক ওমর ফারুক এবং মহাসচিব পদে নাগরিক টিভির হেড অব নিউজ দীপ আজাদ নির্বাচিত হয়েছেন। খায়রুজ্জামান কামাল নির্বাচিত হয়েছেন কোষাধ্যক্ষ পদে।

শনিবার (২৩ অক্টোবর) রাতে ফল ঘোষণা করা হয়। এ দিন সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়া, সহসভাপতি পদে মধুসূদন মণ্ডল, যুগ্ম মহাসচিব পদে শেখ মামুনুর রশিদ ও দফতর সম্পাদক পদে সেবিকা রানী নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাহী পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন চার জন; তারা হলেন, উম্মুল ওয়ারা সুইটি, উৎপল কুমার সরকার, নূরে জান্নাত আখতার ও শেখ নাজমুল হক সৈকত। 

নির্বাচন পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক শাহজাহান সরদার। নির্বাচনে ভোট পর্যবেক্ষণের জন্য শ্রম অধিদফতরের প্রতিনিধি নিযুক্ত ছিলেন।

 

/এসটিএস/আইএ/

সম্পর্কিত

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বাড্ডার আগুন নিয়ন্ত্রণে

বাড্ডার আগুন নিয়ন্ত্রণে

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০০:১০

রাজধানীর উত্তর বাড্ডার সাতারকুল এলাকায় একটি ফার্নিচার গোডাউনে আগুন লেগেছে। শনিবার (২৩ অক্টোবর) রাত ৯টা ৫৮ মিনিটের দিকে এ আগুন লাগে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ৬টি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভাতে কাজ করছে।

ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের মিডিয়া শাখার কর্মকর্তা মো. রায়হান এসব তথ্য জানান।

রায়হান বলেন, ‘রাজধানীর উত্তর বাড্ডা সাতারকুল রোডের সাত তলা ভবনের নিচ তলায় আগুন লাগার সংবাদ পাই আমরা। এখন পর্যন্ত ৬টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে এলে পরে আগুন লাগার কারণ সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো যাবে।’

ফায়ার সার্ভিস জানায়, সাতারকুলের জিএম বাড়ি এলাকার তিন তলা ভবনের নিচ তলায় জ্যোতি লিকার স্টোরের কেমিক্যাল হতে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। আগুনে দ্বিতীয় তলার কাপড়ের দোকান এবং তৃতীয় তলার ইলেকট্রনিক ওয়ার্কসপ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’

 

/আরটি/আইএ/

সম্পর্কিত

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বাড্ডার আগুন নিয়ন্ত্রণে

বাড্ডার আগুন নিয়ন্ত্রণে

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িতদের বঙ্গবন্ধু ক্ষমা করেননি

মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িতদের বঙ্গবন্ধু ক্ষমা করেননি

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত করার নির্দেশ

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত করার নির্দেশ

১৫ আগস্টের শহীদদের স্মরণে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মোমবাতি প্রজ্বলন

১৫ আগস্টের শহীদদের স্মরণে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মোমবাতি প্রজ্বলন

বাংলাদেশি দূতাবাসে শোক দিবস পালিত

বাংলাদেশি দূতাবাসে শোক দিবস পালিত

জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করতে খুনি জিয়ার প্রতীকী বিচার দরকার: তাপস

জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করতে খুনি জিয়ার প্রতীকী বিচার দরকার: তাপস

তুরস্কে বঙ্গবন্ধুর স্মরণে ডাকটিকিট

তুরস্কে বঙ্গবন্ধুর স্মরণে ডাকটিকিট

যা থাকছে এবারের শোক দিবসের সরকারি কর্মসূচিতে

যা থাকছে এবারের শোক দিবসের সরকারি কর্মসূচিতে

বঙ্গবন্ধুর রচিত বই জাতির ঐতিহাসিক দলিল: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর রচিত বই জাতির ঐতিহাসিক দলিল: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

সর্বশেষ

ক্যাম্পে ৬ রোহিঙ্গা হত্যার ঘটনায় মামলা

ক্যাম্পে ৬ রোহিঙ্গা হত্যার ঘটনায় মামলা

উগ্রবাদের স্থান বাংলাদেশে হবে না: হানিফ

উগ্রবাদের স্থান বাংলাদেশে হবে না: হানিফ

মালদ্বীপে আকর্ষণীয় হলিডে প্যাকেজ ঘোষণা ইউএস-বাংলার

মালদ্বীপে আকর্ষণীয় হলিডে প্যাকেজ ঘোষণা ইউএস-বাংলার

‘ইলেকট্রনিক্স শিল্প গার্মেন্টসকে ওভারটেক করবে’

সালমান এফ রহমানের ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শন‘ইলেকট্রনিক্স শিল্প গার্মেন্টসকে ওভারটেক করবে’

এসডিজি অর্জনে ভূমিকা রাখবে উম্মুক্ত ডেটা

এসডিজি অর্জনে ভূমিকা রাখবে উম্মুক্ত ডেটা

© 2021 Bangla Tribune