X
শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ২৫ বৈশাখ ১৪২৮

সেকশনস

পরিবহন নিয়ে দুর্ভোগে পোশাক শ্রমিকরা

আপডেট : ১৫ এপ্রিল ২০২১, ১৫:৪৯

করোনা সংক্রমণরোধে কঠোর বিধিনিষেধে সরকারি-বেসরকারি সব ধরনের প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে জরুরি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ও পরিবহন, ব্যাংক, পোশাকশিল্প কারখানা চালু রয়েছে। এসব কারখানায় শ্রমিকদের জন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ব্যভস্থা করা হয়েছে। তবে কর্মস্থলে পৌঁছাতে শ্রমিকদের জন্য ব্যবস্থা করা হয়নি পরিবহনের। যে কারণে অনেক শ্রমিককে পায়ে হেঁটে কারখানায় যেতে হচ্ছে। আবার বিকল্প পরিবহনে কারখানায় পৌঁছাতে অনেককে গুনতে হচ্ছে বাড়তি ভাড়া।

গাজীপুর জেলা শিল্প পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শিল্প অধ্যুষিত গাজীপুরে তিন হাজারের বেশি তৈরি পোশাক কারখানা রয়েছে। এসব কারখানায় কাজ করছেন লাখ লাখ শ্রমিক। সর্বাত্মক লকডাউনে সরকারের ১৩ দফা নির্দেশনা অনুযায়ী শ্রীপুর, কালিয়াকৈর, জয়দেবপুর, কোনাবাড়ী, টঙ্গি, পোড়াবাড়ি, সালনাসহ জেলার শুরুত্বপূর্ণ এলাকায় গড়ে ওঠা কারখানাগুলো স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে। করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় শ্রমিকদের মাস্ক পরা, শরীর জীবাণুমুক্তকরণ, হাত ধোয়াসহ প্রত্যেক শ্রমিকের শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করে কর্মস্থলে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে। তবে শ্রমিকদের স্ব স্ব প্রতিষ্ঠান কর্তৃক নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থাপনায় আনা নেওয়ার বিষয়টি উপেক্ষিত রয়েছে। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় রিকশা, অটোরিকশা ও পায়ে হেঁটে কারখানায় আসছেন শ্রমিকেরা।

পুলিশের দেওয়া তথ্যমতে, গাজীপুরের পোশাক কারখানাগুলোর মধ্যে বিজিএমইএ’র আওতাভুক্ত কারখানা রয়েছে ৮৩০টি। এছাড়া বিকেএমইএ’র ১৩৮, বিটিএমইএ’র রয়েছে ১২২টি কারখানা। শুধুমাত্র সিটি এলাকায় অবস্থিত কারখানায় কাজ করছেন অন্তত ২২ লাখ শ্রমিক। দেশের অর্থনীতি সচল রাখতে এ শ্রমিকরা রাখছেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা।

কড়ইতলা এলাকার ডিজাইটেক্স কারখানার নারী শ্রমিক রেহেনা আক্তার বলেন, করোনা মোকাবিলায় শরীরের তাপমাত্রা মাপা, হাত ধোয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা ও সামাজিক দূরত্বের জন্য মালিকপক্ষ ব্যবস্থা নিয়েছেন। জীবন ও জীবিকার জন্য কারখানায় কাজ করতে চাই।

নারী শ্রমিক খাদিজা আক্তার বলেন, আমরা তো গার্মেন্টস শ্রমিক। এক কারখানায় প্রায় দুই থেকে তিন হাজার শ্রমিক কাজ করি। সবাই পৃথক বাড়িতে ভাড়া থাকি। কার বাড়িতে কার যাতায়াত, এটা বলা কঠিন। করোনা সংক্রমণের রোগী যদি কোনও এক বাড়িতে আসে, তাহলে আমাদেরও করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি রয়েছে। করোনার ঝুঁকি নিয়েই ভয়ে ভয়ে কারখানায় যাচ্ছি। আমাদের সবার জন্য পরিবহন ব্যবস্থা নেই।

সাদমা গ্রুপের পরিচারক সোহেল রানা বলেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ ঠেকাতে কারখানায় নানা পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। জীবন এবং জীবিকার জন্য এবং অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে আমরা প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে যাচ্ছি। কারখানায় প্রবেশের ক্ষেত্রে শ্রমিকদের তাপমাত্রা মাপা, তিন ফুট দূরত্ব বজায় রেখে প্রবেশ করানো, জীবাণুমুক্ত করণ ও হাতধোয়াসহ আক্রান্ত হলে আইসোলেশনের ব্যবস্থা করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। চারটি হাসপাতালের সঙ্গে আমাদের চুক্তি রয়েছে, কেউ করোনায় আক্রান্ত হলে তাদের কাছ থেকে সহযোগিতা পাবো। এভাবে আমরা শ্রমিকদের সার্বক্ষণিক নজরে রেখেছি, যাতে সুষ্ঠুভাবে কারখানা পরিচালনা করতে পারি।

শ্রীপুরের ডেনিমেক পোশাক কারখানার রফিকুল ইসলাম বলেন, লকডাউন হলেই অফিস যেতে সমস্যা হয়। গাড়ি পাওয়া যায় না, রিকশাভাড়া ডাবল হয়ে যায়। আমাদের খরচ বেড়ে যায়। কিন্তু কারখানা কিংবা সরকারতো এই টাকা আমাদের দেবে না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সালনা এলাকার প্যারাগন ড্রেস লিমিটেড কারখানা কর্তৃপক্ষ বলছে, জীবন ও জীবিকার প্রয়োজনে শ্রমিকদের স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে কারখানা পরিচালনা করছেন তারা। আর কর্মরত শ্রমিকেরাও তাদের জন্য নেওয়া এসব ব্যবস্থা নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করছেন। শ্রমিকদের সুরক্ষায় শিল্প পুলিশ ও বিজিএমইএ’র পক্ষ থেকেও নেওয়া হয়েছে নানা উদ্যোগ।

কল্লোটেক্স অ্যাপারেলস্ লিমিটেডের এক কর্মকর্তা জানান, সরকার এবং বিজিএমইএ’র নির্দেশনা মেনে কারখানায় স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। শ্রমিকদের কেউ করোনা আক্রান্ত হলে তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করছে মালিক পক্ষ। গত লকডাউনের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে করোনা মোকাবিলায় এবার কারখানা পরিচালনা করছেন তারা। কিন্তু শ্রমিকেরা পরিবহন নিয়ে যে দুর্গতি পোহাচ্ছেন, সে বিষয়ে কোনো কথা বলেনি কর্তৃপক্ষ।

বিজিএমইএ পরিচালক নাসির উদ্দিন বলেন, শ্রমিক সুরক্ষাসহ কারখানায় স্বাস্থ্যবিধি মানা ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে বিজিএমইএ’র পক্ষে ১২টি টিম কাজ করছে। আমরা চাই শতভাগ স্বাস্থ্যবিধি মেনে কারখানা খোলা রাখতে। এজন্য ১২টি টিম প্রত্যেকটি কারখানায় নিশ্চিত করবে প্রয়োজনী মাস্ক, সামাজিক দূরত্ব, হ্যান্ড স্যানিটাইজারসহ সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি। কোনো কারখানা স্বাস্থ্যবিধি না মানলে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিজস্ব পরিবহনে শ্রমিকদের আনা-নেওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের শ্রমিকদের ৮০ ভাগ কারখানার আশপাশের এলাকায় বসবাস করেন। তারা পায়ে হেঁটেই কারখানায় আসতে পারছেন। আর অফিসার, মার্চেন্ডাইজার, স্টাফ যারা আছেন, তারা নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থায় কারখানায় আসছেন।

শ্রীপুর আঞ্চলিক শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ জালাল আহমেদ বলেন, বড় বড় কিছু কারখানার আগে থেকেই পরিবহনের ব্যবস্থা রয়েছে। যাতে করে দূরের শ্রমিকরা যাতায়াত করে থাকে। কিন্তু নতুন করে কোনও কারখানা পরিবহনের ব্যবস্থা করেছেন বলে খবর পাইনি।

গাজীপুর শিল্পাঞ্চলের শিল্প পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এডিশনাল এসপি) সুশান্ত সরকার বলেন, গাজীপুর শিল্পাঞ্চলে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করার জন্য জোন ভিত্তিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এ ক্ষেত্রে শিল্প পুলিশ ছাড়াও জেলা প্রশাসন, কলকারখানা অধিদফতর, মেট্টোপলিটন পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে। কোনও কারখানার মালিক স্বাস্থ্যবিধি না মানতে চাইলে তাকে তা মানাতে বাধ্য করা হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

অবৈধভাবে যাত্রী পারাপার করায় পদ্মায় ৬ ট্রলার জব্দ

অবৈধভাবে যাত্রী পারাপার করায় পদ্মায় ৬ ট্রলার জব্দ

ভারত থেকে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়লো, সঙ্গে আরও কড়াকড়ি

ভারত থেকে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়লো, সঙ্গে আরও কড়াকড়ি

'কেউ কথা রাখেনি'

'কেউ কথা রাখেনি'

অটোচালকের টাকা ছিনতাই: তিন পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

অটোচালকের টাকা ছিনতাই: তিন পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

বিদেশে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে হানিফের শঙ্কা

বিদেশে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে হানিফের শঙ্কা

ধান চাষে দেশে নতুন কৃষি বিপ্লব ঘটবে: কৃষিমন্ত্রী

ধান চাষে দেশে নতুন কৃষি বিপ্লব ঘটবে: কৃষিমন্ত্রী

আরও দুই জনের শরীরে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত

আরও দুই জনের শরীরে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত

খালেদা জিয়া দেশে সর্বোচ্চ চিকিৎসা সুবিধা পাচ্ছেন: ড. হাছান মাহমুদ

খালেদা জিয়া দেশে সর্বোচ্চ চিকিৎসা সুবিধা পাচ্ছেন: ড. হাছান মাহমুদ

২৪ ঘণ্টায় ৪৫ মৃত্যু

২৪ ঘণ্টায় ৪৫ মৃত্যু

ফেরার যুদ্ধে উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি (ফটো স্টোরি)

ফেরার যুদ্ধে উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি (ফটো স্টোরি)

সর্বশেষ

৯২ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

৯২ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির মান বাঁচালো মতুয়া-রাজবংশীরা

পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির মান বাঁচালো মতুয়া-রাজবংশীরা

বায়ার্ন মিউনিখের টানা নবম শিরোপা

বায়ার্ন মিউনিখের টানা নবম শিরোপা

করোনায় আক্রান্ত ৯০ শতাংশের শরীরে অ্যান্টিবডি: গবেষণা

করোনায় আক্রান্ত ৯০ শতাংশের শরীরে অ্যান্টিবডি: গবেষণা

‘স্বাধীনভাবে’ উন্নত চিকিৎসা গ্রহণের সুযোগ পাচ্ছেন খালেদা জিয়া

‘স্বাধীনভাবে’ উন্নত চিকিৎসা গ্রহণের সুযোগ পাচ্ছেন খালেদা জিয়া

জামিন নিয়ে প্রধান বিচারপতির সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা চান ডা. জাফরুল্লাহ

জামিন নিয়ে প্রধান বিচারপতির সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা চান ডা. জাফরুল্লাহ

কাবুলে স্কুলের কাছে বোমা হামলায় নিহত অন্তত ২৫

কাবুলে স্কুলের কাছে বোমা হামলায় নিহত অন্তত ২৫

বার্সেলোনাকে এগিয়ে যেতে দিলো না আতলেতিকো

বার্সেলোনাকে এগিয়ে যেতে দিলো না আতলেতিকো

ঘুরে দাঁড়াতে সহায়তা চায় দেশি এয়ারলাইন্স, আশ্বাস প্রতিমন্ত্রীর

ঘুরে দাঁড়াতে সহায়তা চায় দেশি এয়ারলাইন্স, আশ্বাস প্রতিমন্ত্রীর

‘মানবিক কারণে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের চাকরি দিয়েছি’

রাবির সদ্য বিদায়ী উপাচার্যের দাবি‘মানবিক কারণে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের চাকরি দিয়েছি’

বিশ্বায়ন প্রসঙ্গে অর্থনীতি সমিতির ওয়েবিনার

বিশ্বায়ন প্রসঙ্গে অর্থনীতি সমিতির ওয়েবিনার

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর আরেকটি ঘাঁটি দখল করলো কারেন বিদ্রোহীরা

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর আরেকটি ঘাঁটি দখল করলো কারেন বিদ্রোহীরা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

অবৈধভাবে যাত্রী পারাপার করায় পদ্মায় ৬ ট্রলার জব্দ

অবৈধভাবে যাত্রী পারাপার করায় পদ্মায় ৬ ট্রলার জব্দ

বিদেশে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে হানিফের শঙ্কা

বিদেশে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে হানিফের শঙ্কা

ধান চাষে দেশে নতুন কৃষি বিপ্লব ঘটবে: কৃষিমন্ত্রী

ধান চাষে দেশে নতুন কৃষি বিপ্লব ঘটবে: কৃষিমন্ত্রী

আরও দুই জনের শরীরে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত

আরও দুই জনের শরীরে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত

খালেদা জিয়া দেশে সর্বোচ্চ চিকিৎসা সুবিধা পাচ্ছেন: ড. হাছান মাহমুদ

খালেদা জিয়া দেশে সর্বোচ্চ চিকিৎসা সুবিধা পাচ্ছেন: ড. হাছান মাহমুদ

বন্ধের নির্দেশনার মধ্যেও চলছে ৩ ফেরি

শিমুলিয়া-বাংলাবাজার রুটবন্ধের নির্দেশনার মধ্যেও চলছে ৩ ফেরি

পাটুরিয়ায় পারের অপেক্ষা

পাটুরিয়ায় পারের অপেক্ষা

© 2021 Bangla Tribune