X
বৃহস্পতিবার, ০৫ আগস্ট ২০২১, ২১ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

‘নারী চিকিৎসকের প্রতি পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেটের অসৌজন্যমূলক আচরণ দেখা যায়নি’

আপডেট : ২০ এপ্রিল ২০২১, ২০:৪৩

রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডে নারী চিকিৎসকের সঙ্গে পুলিশ ও ম্যাজিস্ট্রেটের বাকবিতণ্ডার বিষয়ে বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশন বলেছে, ১৮ এপ্রিলের আলোচিত পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেসির কর্মকাণ্ড নানাভাবে অবলোকন করে ডাক্তারের প্রতি পুলিশ বা ম্যাজিস্ট্রেটের কোনও অসৌজন্যমূলক আচরণ দেখতে পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় পুলিশ অ্যাসোসিয়েশন তীব্র ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানিয়েছে।

বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও বিমানবন্দর থানার ওসি এম ফরমান আলী এবং সাধারণ সম্পাদক ও যাত্রাবাড়ী থানার ওসি মাজহারুল ইসলামের সই করা  সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডে সরকারি প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, আরোপিত বিধি-নিষেধ কার্যকর করার লক্ষ্যে পুলিশ ও বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের যৌথ অভিযান পরিচালনার সময় প্রাইভেটকারে আরোহী একজন অনুমেয় নারী চিকিৎসককে সিগন্যাল দিয়ে আইডি কার্ড দেখতে চান। এতে তিনি উত্তেজিত হয়ে নানা অপ্রাসঙ্গিক কথাবার্তার অবতারণা করেন। পুলিশের কাজে সহায়তা না করে বরং পুলিশ ও বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের ওপর চড়াও হয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে অসৌজন্যমূলক ও শিষ্টাচার বহির্ভূত আচরণ করেছেন। বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে এ ঘটনায় গভীর ক্ষোভ ও প্রতিবাদ প্রকাশ করা হচ্ছে।’

‘কোভিড ১৯ মোকাবিলায় বাংলাদেশ সরকার  বিধিনিষেধ কঠোরভাবে বাস্তবায়নের জন্য বিভিন্ন সময় নির্দেশনা দিয়ে আসছে। চিকিৎসক ও পুলিশসহ অন্যান্য পেশাজীবী অনেকেই কোভিড ১৯ প্রতিরোধে সম্মুখ সারির যোদ্ধা হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন। এসকল কাজ করতে গিয়ে সম্মুখ সারির যোদ্ধারা নিজেরাও আক্রান্ত হচ্ছেন এবং প্রাণ উৎসর্গ করছেন। সেইসঙ্গে প্রাণঘাতী রোগের জীবাণুকে নিজের শরীরের মাধ্যমে বহন করছেন। তাই সরকার আরোপিত বিধি-নিষেধ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সকল পেশাজীবী ব্যক্তি ও যান চলাচলের মুভমেন্ট পাস বা আইডি কার্ড সঙ্গে রাখা জরুরি মর্মে প্রজ্ঞাপন জারি করে। পেশাগত দায়িত্বের অংশ হিসেবে নিউমার্কেট থানার পুলিশ ১৮ এপ্রিল দুপুর ১২টার দিকে একজন বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ এলিফ্যান্ট রোড এলাকায় চেকপোস্টের মাধ্যমে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করছিলেন। অন্যান্য দায়িত্বের পাশাপাশি আরোপিত বিধি-নিষেধ বাস্তবায়নে চলাচলকারি ব্যক্তিবর্গ যাতে অহেতুক বাইরে না বের হন, বা বাড়ি থেকে বের হলে আইডি কার্ড বা মুভমেন্ট পাস দেখতে চাওয়া, নির্দেশনা মোতাবেক দোকানপাট খোলা নাকি বন্ধ আছে— তা পর্যবেক্ষণ ও প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা এই বিশেষ মুহূর্তে পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেটের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কাজ। সে ক্ষেত্রে জনগণ পুলিশকে সহযোগিতা করবে এটাই কাম্য। সরকারি আদেশ বাস্তবায়ন করতে গিয়ে অ্যাপ্রন পরিহিত একজন নারী চিকিৎসকের পরিচয়পত্র দেখতে চাওয়া পুলিশ ম্যাজিস্ট্রেটের অনধিকার চর্চা বা হেনস্তার কিছু নয়। আইডি কার্ড দেখতে চাওয়ায় ওই চিকিৎসকের কাছে কর্তব্যরত পুলিশ ম্যাজিস্ট্রেট যেভাবে হেনস্থার শিকার হন, তা উপস্থিত জনতা এবং মিডিয়াকর্মীদের দ্বারা ধারণকৃত ভিডিওচিত্র বিভিন্ন ফেসবুক আইডিতে ভাইরাল হলে দেশের মানুষ তা দেখতে পায়।’

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ‘পুলিশ ম্যাজিস্ট্রেটের সঙ্গে একজন চিকিৎসকের ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন পেশাজীবী শ্রেণিকে মুখোমুখি দাঁড় করানোর অপচেষ্টা মাত্র। কিছু লোকের উচ্ছৃঙ্খল কর্মকাণ্ডের কারণে পেশার সবাই দায়ভার গ্রহণ করবে, তা অ্যাসোসিয়েশন কখনও মনে করে না। দেশের সকল চিকিৎসকদের প্রতি আমাদের অকৃত্রিম শ্রদ্ধা বোধ ও কৃতজ্ঞতা সর্বদা বিদ্যমান। ওই চিকিৎসকের সরকারি কাজে অসহযোগিতা, প্রকাশ্যে গালিগালাজ, ঔদ্ধত্যপূর্ণ ও অসৌজন্যমূলক আচরণে কর্তব্যরত পুলিশ ম্যাজিস্ট্রেটের নিজ নিজ ইউনিটের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে। বিএসএমএমইউ-এর একজন প্রত্যক্ষদর্শী ডাক্তার এ বিষয়ে তাৎক্ষণিক ম্যাজিস্ট্রেট-পুলিশের কাছে ওই ডাক্তারের অশোভন আচরণের জন্য ক্ষমা চান। তারপরও ওই নারী ডাক্তারের অন্যায়কে সায় দিয়ে কারও সাফাই গাওয়া দুঃখজনক।’

এতে আরও বলা হয়, ‘আমরা বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষে সেদিনের আলোচিত পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেসি কর্মকাণ্ড নানাভাবে অবলোকন করে ডাক্তারের প্রতি পুলিশ বা ম্যাজিস্ট্রেটকে  কোনও অসৌজন্যমূলক আচরণ করতে দেখতে পাইনি। এর বিহিত ব্যবস্থা না হলে মাঠ পর্যায়ে কাজ করতে গিয়ে পুলিশ ম্যাজিস্ট্রেট বারবার লাঞ্ছিত হবেন। কাজের উদ্যম হারিয়ে ফেলবেন এবং অনেকে আইনের প্রতি অশ্রদ্ধাশীল হয়ে এমন কাজ করার সুযোগ গ্রহণ করবেন।’

‘এমতাবস্থায় যেহেতু বিষয়টি সংবেদনশীল, যাতে রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন পেশাজীবী শ্রেণিকে মুখোমুখি দাঁড় বা একে অপরের ক্ষতি হোক বা দূরত্ব সৃষ্টি না হয়, সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রেখে দায়ী ব্যক্তির বিরুদ্ধে বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ ও প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানানো হচ্ছে।’

 

/জেইউ/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

ঋণগ্রহীতার গুদামেই জামানত, খেলাপি প্রতিষ্ঠানকে আবার ঋণ!

ঋণগ্রহীতার গুদামেই জামানত, খেলাপি প্রতিষ্ঠানকে আবার ঋণ!

করোনা আতঙ্কের মধ্যেই ডেঙ্গুর আশঙ্কাজনক রূপ

করোনা আতঙ্কের মধ্যেই ডেঙ্গুর আশঙ্কাজনক রূপ

টানা ডিউটিতে ‘ক্লান্ত’ পুলিশ

টানা ডিউটিতে ‘ক্লান্ত’ পুলিশ

মডেল পিয়াসার দুই সহযোগী মিশু ও জিসান রিমান্ডে

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১৭:২৯

মডেলদের নিয়ে পার্টি ও বিদেশে প্লেজার ট্যুরের আয়োজক ও মডেল পিয়াসার দুই সহযোগী শরফুল হাসান ওরফে মিশু হাসান ও মাসুদুল ইসলাম ওরফে জিসানের বিরুদ্ধে পৃথক চার মামলায় বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) মো. মামুনুর রশিদের আদালত রিমান্ডের এ আদেশ দেন।আদালতের সংশ্লিষ্ট থানার সাধারণ নিবন্ধন শাখা থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

এদিন ভাটারা থানার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আসামি মিশু হাসানকে আদালতে হাজির করে অস্ত্র আইন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ও পর্নোগ্রাফি আইনের পৃথক তিন মামলায় ১০ দিন করে মোট ৩০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন। অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন।

শুনানি শেষে আদালত মিশুর বিরুদ্ধে অস্ত্র মামলায় ৫ দিন, মাদক মামলায় ৩ দিন এবং পর্নোগ্রাফি আইনের মামলায় ১ দিনসহ তিন মামলায় মোট ৯ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

অন্যদিকে জিসানের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইন ও পর্নোগ্রাফি আইনের পৃথক দুই মামলায় ১০ দিন করে মোট ২০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়। অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত জিসানের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলায় তিনদিন ও পর্নোগ্রাফি মামলায় ১ দিনসহ দুই মামলায় মোট ৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) রাতে রাজধানীর বসুন্ধরা এলাকা থেকে অস্ত্র ও মাদকসহ শরফুল হাসান ওরফে মিশু হাসান ও তার সহযোগী মাসুদুল ইসলাম ওরফে জিসানকে অস্ত্র ও মাদকসহ গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।এসময় তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় ১টি অস্ত্র, ৬ রাউন্ড গোলাবারুদ, ইয়াবা ১৩ হাজার ৩০০ পিস, ১টি ফেরারি গাড়ি, সিসার সরঞ্জামাদি, ২টি ল্যাপটপ, মোবাইল ফোন, বিভিন্ন ব্যাংকের চেকবই ও এটিএম কার্ড, পাসপোর্ট এবং ভারতীয় ৪৯ হাজার ৫০০ জালমুদ্রা।

র‌্যাবের মুখপত্র খন্দকার আল মঈন জানান, গ্রেফতারকৃতরা একটি সংঘবদ্ধ চক্রের সদস্য। এই চক্রের সদস্য প্রায় ১০/১২ জন। তারা রাজধানীর বিভিন্ন অভিজাত এলাকা বিশেষ করে গুলশান, বারিধারা, বনানীসহ বিভিন্ন এলাকায় পার্টি বা ডিজে পার্টির নামে মাদক সেবনসহ নানাবিধ অনৈতিক কর্মকাণ্ডের ব্যবস্থা করে থাকে। পার্টিতে অংশগ্রহণকারীদের কাছ থেকে তারা বিপুল পরিমাণ অর্থ পেয়ে থাকে।

অংশগ্রহণকারীরা সাধারণত উচ্চবিত্ত পরিবারের সদস্য। প্রতিটি পার্টিতে ১৫-২০ জন অংশ নিতো। এছাড়া বিদেশেও প্লেজার ট্রিপের আয়োজন করতো তারা। একইভাবে উচ্চবিত্তের প্রবাসীদের জন্যেও দুবাই, ইউরোপ ও আমেরিকায় এ ধরণের পার্টি আয়োজন করা হতো। তারা ক্লায়েন্টদের গোপন ছবি ধারণ করে অপব্যবহার করতো বলে জিজ্ঞাসাবাদে জানায়।

/এমএইচজে/এমএস/

সম্পর্কিত

মতিঝিল আইডিয়ালের আতিককে গ্রেফতারের দাবি

মতিঝিল আইডিয়ালের আতিককে গ্রেফতারের দাবি

ভ্রাম্যমাণ আদালতে দুই শিশুর দণ্ড: ম্যাজিস্ট্রেটের ব্যাখ্যা চাইলেন হাইকোর্ট

ভ্রাম্যমাণ আদালতে দুই শিশুর দণ্ড: ম্যাজিস্ট্রেটের ব্যাখ্যা চাইলেন হাইকোর্ট

উপ-নির্বাচনের নতুন তারিখ নির্ধারণ করতে পারবে ইসি, হাইকোর্টের নির্দেশ

উপ-নির্বাচনের নতুন তারিখ নির্ধারণ করতে পারবে ইসি, হাইকোর্টের নির্দেশ

ফুলকোর্ট সভা ডেকেছেন প্রধান বিচারপতি

ফুলকোর্ট সভা ডেকেছেন প্রধান বিচারপতি

রাজউক ও অন্যান্য সংস্থাকে মশকনিধন অভিযানের নির্দেশ স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১৭:২৩

গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের অধীন রাজউক, স্থাপত্য অধিদফতরসহ অন্যান্য দফতর বা সংস্থার নির্মীত এবং নির্মাণাধীন সরকারি ও আবাসিক ভবনে স্ব স্ব উদ্যোগে মশকনিধন অভিযান পরিচালনার নির্দেশনা দিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী তাজুল ইসলাম। দুই সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে চলমান মশক নিধন কার্যক্রমে রাজউকসহ সব দফতর বা সংস্থাকে সহযোগিতার মাধ্যমে সমন্বয় করে কাজ করতে বলেন মন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) অনলাইনে আয়োজিত রাজউকের আওতাধীন সরকারি, ডেভেলপার ও ব্যক্তি পর্যায়ে নির্মিত বা নির্মাণাধীন ভবনে এডিস মশার বংশ বিস্তার ও ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব রোধে নিয়মিত তদারকি সংক্রান্ত সভায় সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

সভায় মশকনিধন অভিযানের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘রাজউক এবং স্থাপত্য অধিদফতরের অনেকগুলো নির্মাণাধীন ও নির্মিত অবকাঠামো রয়েছে। এছাড়া অনেক সরকারি এবং বেসরকারি আবাসিক এলাকা রয়েছে যেগুলোতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যাচ্ছে।’ তাই সব সরকারি ভবন ও আবাসিক এলাকা, নির্মাণাধীন ভবন এবং কাওরান বাজার ও নিউমার্কেটসহ সব বাজারে মশক নিধনে চিরুনি অভিযান পরিচালনা করতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে নির্দেশ দেন তিনি।

স্থানীয় সরকারমন্ত্রী এডিস মশা নিধন কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য রাজউকের উপযুক্ত কর্মকর্তাদের মাধ্যমে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করার নির্দেশনা দিয়ে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত সচিব এবং রাজউক চেয়ারম্যানকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলেন। এছাড়া মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন সব প্রতিষ্ঠানকে আলাদা আলাদা নির্দেশনা প্রদান, সব ধরনের ভবন পরিদর্শন এবং রিপোর্ট অনুযায়ী পদক্ষেপ নিতে বলেন তিনি।

মশা নিধনে যেসব ওষুধ ব্যবহার করা হচ্ছে সেগুলোর গুণগতমান পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেই ছিটানো হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি জানান, ওষুধের কোনও ঘাটতি নেই। পর্যাপ্ত মজুত রয়েছে। শুধু অভিযান পরিচালনা করে মশার প্রাদুর্ভাব বন্ধ করা যাবে না। এজন্য দরকার মানুষের সচেতনতা।

সভায় স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ, গৃহায়ন ও গণপূর্ত সচিব শহীদ উল্লাহ খন্দকার, রাজউক চেয়ারম্যন এবিএম আমিন উল্লাহ নুরী ড্যাপের প্রকল্প পরিচালক আশরাফুল ইসলাম এবং রিহাব ও বিএলডিএ’র প্রতিনিধিরা অন্যদের মধ্যে অংশগ্রহণ করেন।

 

/এসএস/এমএএ/

সম্পর্কিত

মতিঝিল আইডিয়ালের আতিককে গ্রেফতারের দাবি

মতিঝিল আইডিয়ালের আতিককে গ্রেফতারের দাবি

জনজীবন স্বাভাবিক, সড়কে বেড়েছে মানুষের চাপ

জনজীবন স্বাভাবিক, সড়কে বেড়েছে মানুষের চাপ

ডিএসসিসি’র নির্বাহী প্রকৌশলী তানভীর আহমদ বরখাস্ত

ডিএসসিসি’র নির্বাহী প্রকৌশলী তানভীর আহমদ বরখাস্ত

ফুলবাড়িয়া বাস টার্মিনালে তাণ্ডবের প্রতিবাদ নেতাদের

ফুলবাড়িয়া বাস টার্মিনালে তাণ্ডবের প্রতিবাদ নেতাদের

‘কিশোর গ্যাং’ কালচার বন্ধে শিক্ষার্থীদের সাংস্কৃতিক চর্চায় যুক্ত করার উদ্যোগ

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১৭:১৪

কিশোর গ্যাং কালচারে শিক্ষার্থীরা যাতে জড়িয়ে না পড়ে সে লক্ষ্যে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড ও খেলাধুলায় শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার উদ্যোগ নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। করোনাকালে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় অনলাইনে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা আয়োজনের ব্যবস্থা নিতেও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

জানতে চাইলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘কিশোর অপরাধ একটি সামাজিক ব্যাধি। এই ব্যাধি নির্মূলে প্রয়োজন সামাজিক আন্দোলন। অভিভাবক, শিক্ষক, সুশীল সমাজ ও মিডিয়ার সমন্বয়ে সচেতনতা বাড়াতে হবে। সচেতনতা বাড়াতে অনলাইনে অভিভাবক সম্মেলন আয়োজন করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। অনলাইনে শিক্ষার্থীদের সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। করোনা পরিস্থিতির অনুকূলে এলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর খেলাধুলাসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুপারিশ বাস্তবায়ন করতে মন্ত্রণালয় থেকে ইতোমধ্যেই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

গত কয়েক বছর ধরে রাজধানীসহ সারাদেশে কিশোর অপরাধ বেড়ে যাওয়ায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগকে গত ৩০ জুন কিশোর অপরাধ নির্মূলের ব্যবস্থা নিতে বেশ কিছু সুপারিশ করে। আইনি ব্যবস্থার পাশাপাশি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সচেতনতা বাড়ানোর প্রয়োজনে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিভিন্ন শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ বাস্তবায়নের অনুরোধ জানায়। শিক্ষকদের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের সচেতন করার কথাও বলা হয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুপারিশে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সুপারিশের ভিত্তিতে গত ২৭ জুলাই বৈঠক করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ। ওই বৈঠকে সুপারিশ নিয়ে আলোচনা করে বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

ওই বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ কারিগরি শিক্ষা অধিদফতর ও মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদফতরকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা দেয়। গত রবিবার (১ আগস্ট) কারিগরি শিক্ষা অধিদফতর দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের নির্দেশ দেয়।

সিদ্ধান্তে বলা হয়, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চালু হলে অ্যাসেম্বলিতে মাদকের কুফল নিয়ে আলোচনা করতে হবে। অভিভাবকদের মধ্যে মাদকের কুফল সম্পর্কে অনলাইনে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে।  করোনাকালে এ বিষয়ে বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের নিয়ে পর্যায়ক্রমে শিক্ষার্থীদের মাদকের কুফল নিয়ে অনলাইনে সভার আয়োজন করতে হবে। সভায় অধিদফতরের কর্মকর্তাদের যোগদান করবে।

জিপিএ-৫ পাওয়ার প্রতিযোগিতায় শিক্ষার্থীদের ব্যস্ত না রেখে খেলাধুলা, নাটক, সংগীত, বিতর্ক প্রতিযোগিতা, বিভিন্ন অলিম্পিয়াড, স্কাউটিং, গার্লস গাইডের মতো সুস্থ বিনোদনমূলক এক্সট্রা কারিকুলাম অ্যাক্টিভিটিস –এ শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।  করোনাকালে অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করতে হবে।

করোনাকালে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সময় পাঠ্যবইয়ের সিলেবাসের বাইরে শিক্ষার্থীদের অনলাইনভিত্তিক বিভিন্ন শিক্ষামূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে হবে। তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক অনলাইন প্রশিক্ষণের আয়োজন করতে হবে। প্রশিক্ষণের লব্ধ জ্ঞান প্রয়োগের জন্য প্রযুক্তির ব্যবহার সম্পর্কিত প্রতিযোগিতা আয়োজন করতে হবে। অনলাইন ক্লাস সংখ্যা বাড়াতে হবে। মনিটরিং জোরদার করতে সংশ্লিষ্ট সংস্থা কার্যকর পদক্ষেপ নেবে।

 

/এমআর/

সম্পর্কিত

মডেল পিয়াসার দুই সহযোগী মিশু ও জিসান রিমান্ডে

মডেল পিয়াসার দুই সহযোগী মিশু ও জিসান রিমান্ডে

রাজউক ও অন্যান্য সংস্থাকে মশকনিধন অভিযানের নির্দেশ স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর

রাজউক ও অন্যান্য সংস্থাকে মশকনিধন অভিযানের নির্দেশ স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর

ক্ষমতা নয় জাতি গঠনে নিবেদিত ছিলেন শেখ কামাল: মেয়র তাপস

ক্ষমতা নয় জাতি গঠনে নিবেদিত ছিলেন শেখ কামাল: মেয়র তাপস

রাজধানীতে প্রতারক চক্রের চার সদস্য গ্রেফতার

রাজধানীতে প্রতারক চক্রের চার সদস্য গ্রেফতার

ক্ষমতা নয় শেখ কামাল ছিলেন জাতি গঠনে নিবেদিত: মেয়র তাপস

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১৭:৩২

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, শহীদ শেখ কামালের পদ-পদবী-ক্ষমতার প্রতি আকর্ষণ ছিল না। তিনি আধুনিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সংগঠক হিসেবে নিজেকে জাতি গঠনে নিবেদিত করেছিলেন।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) সকালে শহীদ শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকীতে বনানী কবরস্থানে তাঁর কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে গণমাধ্যম কর্মীদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।

মেয়র বলেন, "শহীদ শেখ কামাল জাতির পিতার সুযোগ্য সন্তান হওয়া সত্ত্বেও নিজেকে জাতি গঠনে নিবেদিত করেছিলেন। কোনও পদ-পদবী-ক্ষমতার প্রতি তাঁর আকর্ষণ ছিল না। একজন সাংস্কৃতিক কর্মী, একজন আধুনিক ক্রীড়া সংগঠক হিসেবে জাতি গঠনে তিনি নিজেকে নিবেদিত করেছিলেন।" 

মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস বলেন, "শহীদ শেখ কামাল যে স্বপ্ন দেখেছিলেন, ক্রীড়াঙ্গন হবে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশকে পরিচিত করার অন্যতম উপাদান। আজ বাংলাদেশ ক্রিকেটে অস্ট্রেলিয়াকে হারায়। তাই আজ শহীদ শেখ কামালকে বিশেষ করে মনে পড়ছে।"

তাপস বলেন, "একজন নাগরিক হিসেবে শেখ কামালের দেশপ্রেম, দেশের প্রতি ভালোবাসা এবং দেশ গঠনে নিঃস্বার্থভাবে নিজেকে নিয়োজিত করার আকাঙ্ক্ষা, নিজেকে উৎসর্গ করার যে অনুপ্রেরণা তাঁর মধ্যে বিরাজমান ছিল, তা শুধু আজকের প্রজন্মই নয়, প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম অনুপ্রেরণা গ্রহণ করবে।"

এর আগে  মেয়র শহীদ শেখ কামালের কবরে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ এবং তাঁর আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত করেন।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাজী মোরশেদ হোসেন কামালসহ ডিএসসিসি'র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

/এসএস/এমএস/

সম্পর্কিত

ডিএসসিসি’র নির্বাহী প্রকৌশলী তানভীর আহমদ বরখাস্ত

ডিএসসিসি’র নির্বাহী প্রকৌশলী তানভীর আহমদ বরখাস্ত

২৩ ভবন মালিককে সোয়া ২ লাখ টাকা জরিমানা

২৩ ভবন মালিককে সোয়া ২ লাখ টাকা জরিমানা

ফুলবাড়িয়ায় পরিবহন শ্রমিকদের মাঝে ত্রাণ বিতরণে বিশৃঙ্খলা

ফুলবাড়িয়ায় পরিবহন শ্রমিকদের মাঝে ত্রাণ বিতরণে বিশৃঙ্খলা

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে সবাইকে দায়িত্বশীল হওয়ার আহ্বান ডিএসসিসি মেয়রের

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে সবাইকে দায়িত্বশীল হওয়ার আহ্বান ডিএসসিসি মেয়রের

রাজধানীতে প্রতারক চক্রের চার সদস্য গ্রেফতার

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১৬:৫৭

আইসিটি সচিব ও সচিবের পিএস পরিচয়ে রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় প্রতারণার অভিযোগে চার জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বুধবার (৪ আগস্ট) রাজধানীর বিভিন্ন থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলো‑ মোহাম্মদ ইদ্রিস খান (৫৮), মো. শাহাব উদ্দিন হাওলাদার (৪৩), মো. শহিদুল ইসলাম (৫৬), জাহিদ শিকদার (৩০)।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) পুলিশের ডিবি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানান ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ওয়ারী গোয়েন্দা বিভাগের উপ-কমিশনার মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন।

তিনি বলেন, প্রতারক চক্রটি সংসদ ভবন সংলগ্ন এলাকায় বিভিন্ন ভবনের মালিকের কাছে নিজেদের কখনো আইসিটি সচিব, কখনো আইসিটি সচিবের পিএস, আবার কখনো জমির মালিক পরিচয় দিয়ে আকৃষ্ট করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। দীর্ঘদিন ধরে ঢাকা ছাড়াও সাভার ও গাজীপুরে বিভিন্ন ভবন মালিকদের বিল্ডিংয়ের ছাদে মোবাইলের টাওয়ার নির্মাণ, জমি ক্রয়-বিক্রয়ের কথা বলে ভুয়া বায়নানামা তৈরির মাধ্যমে আর্থিক প্রলোভনের ফাঁদে ফেলতো। প্রতারণা করে এখন পর্যন্ত শতাধিক লোকের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে চক্রটি।

গ্রেফতারকৃত প্রতারক চক্রের চার সদস্যের বিরুদ্ধে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে বলেও জানায় পুলিশের গোয়েন্দা কর্মকর্তারা।

/আরটি/এমএস/

সম্পর্কিত

চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা: অভিযুক্ত মালেককে আটক করল র‍্যাব

চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা: অভিযুক্ত মালেককে আটক করল র‍্যাব

মানিকগঞ্জের ডিসি রিফাত ডিএমপির মতিঝিল গোয়েন্দা বিভাগের দায়িত্বে

মানিকগঞ্জের ডিসি রিফাত ডিএমপির মতিঝিল গোয়েন্দা বিভাগের দায়িত্বে

স্লিপার সেলের মাধ্যমে চলছিলো জঙ্গি কার্যক্রম: সিটিটিসি

স্লিপার সেলের মাধ্যমে চলছিলো জঙ্গি কার্যক্রম: সিটিটিসি

ডিএমপিতে তিন পুলিশ পরিদর্শক বদলি

ডিএমপিতে তিন পুলিশ পরিদর্শক বদলি

সর্বশেষ

সব রেকর্ড ভেঙে করোনায় একদিনে ২৬৪ জনের মৃত্যু

সব রেকর্ড ভেঙে করোনায় একদিনে ২৬৪ জনের মৃত্যু

ভারতকে সামরিক ঘাঁটি নির্মাণ করতে দেওয়া হয়নি: মরিশাস

ভারতকে সামরিক ঘাঁটি নির্মাণ করতে দেওয়া হয়নি: মরিশাস

আকবরের কাছে এই পুরস্কার গর্বের, অনুপ্রেরণার

শেখ কামাল ক্রীড়া পুরস্কারআকবরের কাছে এই পুরস্কার গর্বের, অনুপ্রেরণার

প্যানেল মেয়রের কারখানায় কাঠমিস্ত্রির লাশ

প্যানেল মেয়রের কারখানায় কাঠমিস্ত্রির লাশ

মডেল পিয়াসার দুই সহযোগী মিশু ও জিসান রিমান্ডে

মডেল পিয়াসার দুই সহযোগী মিশু ও জিসান রিমান্ডে

নিশিতার কণ্ঠে বঙ্গবন্ধুকে হারানোর শোক

নিশিতার কণ্ঠে বঙ্গবন্ধুকে হারানোর শোক

রাজউক ও অন্যান্য সংস্থাকে মশকনিধন অভিযানের নির্দেশ স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর

রাজউক ও অন্যান্য সংস্থাকে মশকনিধন অভিযানের নির্দেশ স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর

বিশ্বের সবচেয়ে মোটা গাছ

বিশ্বের সবচেয়ে মোটা গাছ

টিকা ছাড়া শরীরে খালি সিরিঞ্জ পুশ, ২ নার্সকে প্রত্যাহার

টিকা ছাড়া শরীরে খালি সিরিঞ্জ পুশ, ২ নার্সকে প্রত্যাহার

বসুন্ধরা কিংস-মোহনবাগান লড়াই ২৪ আগস্ট

বসুন্ধরা কিংস-মোহনবাগান লড়াই ২৪ আগস্ট

মিয়ানমারে গণহত্যা চলছে, জাতিসংঘকে সতর্ক করলেন রাষ্ট্রদূত

মিয়ানমারে গণহত্যা চলছে, জাতিসংঘকে সতর্ক করলেন রাষ্ট্রদূত

‘কিশোর গ্যাং’ কালচার বন্ধে শিক্ষার্থীদের সাংস্কৃতিক চর্চায় যুক্ত করার উদ্যোগ

‘কিশোর গ্যাং’ কালচার বন্ধে শিক্ষার্থীদের সাংস্কৃতিক চর্চায় যুক্ত করার উদ্যোগ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ঋণগ্রহীতার গুদামেই জামানত, খেলাপি প্রতিষ্ঠানকে আবার ঋণ!

জনতা ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারি পর্ব-৩ঋণগ্রহীতার গুদামেই জামানত, খেলাপি প্রতিষ্ঠানকে আবার ঋণ!

করোনা আতঙ্কের মধ্যেই ডেঙ্গুর আশঙ্কাজনক রূপ

করোনা আতঙ্কের মধ্যেই ডেঙ্গুর আশঙ্কাজনক রূপ

টানা ডিউটিতে ‘ক্লান্ত’ পুলিশ

টানা ডিউটিতে ‘ক্লান্ত’ পুলিশ

কাকরাইলে গ্যারেজের আগুন নিয়ন্ত্রণে

কাকরাইলে গ্যারেজের আগুন নিয়ন্ত্রণে

কাকরাইলে গাড়ির গ্যারেজে আগুন

কাকরাইলে গাড়ির গ্যারেজে আগুন

২৩ ভবন মালিককে সোয়া ২ লাখ টাকা জরিমানা

২৩ ভবন মালিককে সোয়া ২ লাখ টাকা জরিমানা

মাকে তাড়িয়ে দেওয়া সন্তানদের সতর্ক করলো পুলিশ

মাকে তাড়িয়ে দেওয়া সন্তানদের সতর্ক করলো পুলিশ

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর শাহাদত বার্ষিকী পালনের নির্দেশ

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর শাহাদত বার্ষিকী পালনের নির্দেশ

ব্যাংক এশিয়ার দুই কর্মকর্তাসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

ব্যাংক এশিয়ার দুই কর্মকর্তাসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

© 2021 Bangla Tribune