X
শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ১৫ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

পেশা বদলেছেন রানা প্লাজার পোশাক কর্মীরা

আপডেট : ২৪ এপ্রিল ২০২১, ১৩:৫৯

২৭ বছরের কোহিনুর, রানা প্লাজা ধসে আহত সাবেক গার্মেন্ট শ্রমিক। গত চার বছর কাজ করছেন গৃহকর্মী হিসেবে। ভারী কাজ করতে গেলে কোমরে এখনও ব্যথা পান। তাই ‘ছুটা বুয়া’র কাজ করেই দিন কাটছে তার। আয় মাসে পাঁচ হাজার, কোনও মাসে আরেকটু কম। কেন গার্মেন্ট কারখানায় কাজ করলেন না, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, দীর্ঘসময় কাজ করার পরিস্থিতি নেই। আর ভয়াবহ সেই স্মৃতি মনে করে ভয়ও লাগে। ফলে আর কারখানায় না গিয়ে, বাসাবাড়িতে কাজ নিয়েছি। ক্ষতিপূরণের টাকা পেয়ে কী করেছেন জানতে চাইলে বলেন, আমার হাত-পা কাটা পড়েনি, ভাঙেনি, কিন্তু কোমর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সেটা নাকি তেমন ক্ষতি না। অনেকের মতো তাই বেশি টাকা আমি পাইনি। যেটুকু পেয়েছি এলাকায় একটু জমি কিনে রেখেছি। কয়দিন কাজ করতে পারবো কে জানে। নিজের নিরাপত্তার ব্যবস্থাতো নিজেকেই নিতে হবে, রানা প্লাজা সেই শিক্ষা দিয়েছে।

রানা প্লাজা ধসের আট বছর পূর্তি উপলক্ষে একশনএইড বাংলাদেশের করা এক জরিপ বলছে, দুর্ঘটনায় আহত ব্যক্তিদের মধ্যে কাজে থাকা ৪৩ শতাংশ শ্রমিকের ১২ শতাংশ বর্তমানে পোশাক কারখানায়, ১২ শতাংশ দরজি, ৩ শতাংশ কৃষিকাজ, ২.৫ শতাংশ দিনমজুরি, ২ শতাংশ গৃহকাজ, সাড়ে ৩ শতাংশ বিক্রয়কর্মী এবং ৭ শতাংশ অন্যান্য কাজে যুক্ত আছেন।

৪ কারণে কাজে ফিরতে পারেননি রানা প্লাজার আহত শ্রমিকরা

তবে করোনাকালে আহত শ্রমিকদের মধ্যে বেকারত্ব বেড়ে গেছে। ২০১৯ সালে ৫১ শতাংশ শ্রমিক বেকার ছিলেন। গত বছর সেটি বেড়ে ৫৭ শতাংশ হয়েছে, যা গত ছয় বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ।

করোনাতে হয়েছে অবস্থার অবনতি
রানা প্লাজা ধসের পর থেকেই বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা আহত ও বেঁচে যাওয়া শ্রমিকদের নিয়ে নানা জরিপ করেছে। তাদের কত শতাংশ এখনও শারীরিক সমস্যা নিয়ে ভুগছেন, কত শতাংশ মানসিক ট্রমা থেকে বের হতে পারেননি তার উত্তর খোঁজার কাজ চলছে।

একশনএইডের সাম্প্রতিক জরিপে উঠে এসেছে, রানা প্লাজা ধসে আহত শ্রমিকদের মধ্যে ৯২ শতাংশই করোনাকালে সরকারের কোনও সহায়তা পাননি। মাত্র ৮ শতাংশ শ্রমিক অল্প কিছু সহায়তা পেয়েছেন। ১৪ শতাংশ শ্রমিকের স্বাস্থ্যের অবনতি হয়েছে। তারা মাথাব্যথা, হাত ও পায়ে ব্যথা এবং কোমরব্যথার সমস্যায় ভুগছেন। আবার সাড়ে ১২ শতাংশ শ্রমিক মানসিক ট্রমার মধ্যে আছেন। সংখ্যাটি ২০১৯ সালেও ছিল সাড়ে ১০ শতাংশ। এর মানে ২ শতাংশ শ্রমিকের মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতি হয়েছে।

শ্রমিকের নিরাপত্তা অবহেলিত
প্রাণে বেঁচে যাওয়া শ্রমিকরা দুঃসহ জীবন যাপন করছেন। শ্রমিক নেতারা বলছেন, ন্যায্যমজুরি দূরে থাক, শ্রমিকদের যেকোনও বিপদে একরকম জোর করে ঠেলে দেওয়ার মতো ঘটনাও হরহামেশা ঘটছে। তারা বলছেন, মালিকের মুনাফার শিকার হচ্ছেন পোশাক শ্রমিকরা। লকডাউনে যখন সবাইকে ঘরে থাকতে বলা হচ্ছে, তখন কারখানা খোলা রেখে শ্রমিককে বাইরে আসতে বাধ্য করা যায় না।

রানা প্লাজা থেকে করোনা বিপর্যয় সবখানেই শ্রমিকদের প্রতি মালিকদের আচরণ জুলুমের। এমনকি রানা প্লাজার ঘটনার পরে যে অ্যাকোর্ড ও অ্যালায়েন্স এসে কারখানা শ্রমিক বান্ধবের নামে কাজ করেছে, তাও মালিকদের পক্ষেই গেছে বলে অভিযোগ শ্রমিক নেতাদের।

গার্মেন্ট শ্রমিক নেতা জলি তালুকদার বলেন, রানা প্লাজার ঘটনার পর ব্র্যান্ড বা বায়াররা তাদের দায়বদ্ধতা প্রমাণ দিতে অ্যাকর্ড ও অ্যালায়েন্সের কার্যক্রম শুরু করে। তাদের কার্যক্রম কারখানার নিরাপত্তা ঝুঁকি হ্রাস ও নিরাপদ কর্মস্থল নিশ্চিত করতে ভূমিকা রেখেছে। তবে তার চেয়ে বেশি দর কষাকষিতে ব্র্যান্ডগুলোকে মজবুত অবস্থান করে দিয়েছে। একই সময়ে আমাদের রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান ডাইফও কারখানার নিরাপত্তার বিষয়ে কাজ শুরু করে। আমাদের সব সময়ের চাওয়া ছিল রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান তার ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালনে সফল হবে। নিশ্চয়ই দেশের কারখানাগুলোর নিরাপত্তা মান নিশ্চিত করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। কিন্তু তারা পারছে না।

রানা প্লাজা নিঃস্ব করেছে ‘ওদের’

তিনি আরও বলেন, নিরাপদ কারখানার প্রশ্নে কিছু ব্যতিক্রম বাদে মালিকদের মনোভাবে তেমন পরিবর্তন হয়েছে বলে মনে হয় না। মালিকরা এখনও বিল্ডিং কোড মানছেন না, আইন ভাঙছেন বলে অভিযোগ করেন জলি তালুকদার।

বাংলাদেশ পোশাক রফতানিকারক ও মালিক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি ফারুক হাসান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, কেউ পেশা পরিবর্তন করলে সেটা তার ব্যক্তিগত বিষয়। সেখানে আমাদের কিছু করার নেই। কিন্তু রানা প্লাজায় আহত শ্রমিকদের কাজের ব্যবস্থা করে দিতে আমরা বেশকিছু উদ্যোগ নিয়েছি, নানা সময়ে। আমরা চাইলেও রানা প্লাজার ঘটনার পূর্বের সময়ে ফেরত যেতে পারবো না কিন্তু আমরা যা পারবো, আর যেন এরকম ঘটনা না ঘটে সেই ব্যবস্থা নেওয়া। আমরা ভাড়া বিল্ডিংয়ের কারখানার ক্ষেত্রে বিল্ডিং স্ট্রাকচারের কাগজ জমা নেই এবং গত আট বছরে শ্রমিকবান্ধব কারখানা তৈরির চেষ্টা অব্যাহত রাখা হয়েছে। এটা আমাদের নিজেদের স্বার্থে, শ্রমিকদের স্বার্থে, দেশের স্বার্থে করতে হয়েছে বলে জানান তিনি।

/টিটি/

সম্পর্কিত

সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ঢিলেঢালা চেকপোস্ট

সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ঢিলেঢালা চেকপোস্ট

অধস্তন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কালো ব্যাজ পরিধানের নির্দেশ

অধস্তন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কালো ব্যাজ পরিধানের নির্দেশ

ইউনাইটেড হাসপাতালে আগুনে মৃত্যু: চার পরিবার পেলো ১ কোটি টাকা

ইউনাইটেড হাসপাতালে আগুনে মৃত্যু: চার পরিবার পেলো ১ কোটি টাকা

প্রযুক্তি সহায়ক শিক্ষাব্যবস্থা প্রবর্তনের আহ্বান ইউজিসির

প্রযুক্তি সহায়ক শিক্ষাব্যবস্থা প্রবর্তনের আহ্বান ইউজিসির

সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ঢিলেঢালা চেকপোস্ট

আপডেট : ৩০ জুলাই ২০২১, ১৩:১২

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে চলমান কঠোর লকডাউনে প্রতিদিনই রাজধানীর সড়কগুলোতে ব্যক্তিগত ও জরুরি পরিষেবার গাড়ি এবং রিকশার চাপ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তবে আজ শুক্রবার (৩০ জুলাই) সাপ্তাহিক ছুটির দিনে সড়কে মানুষের চলাচল কম লক্ষ্য করা গেছে। চেকপোস্টে দায়িত্বরত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা বলছেন, এমনিতেই সাপ্তাহিক ছুটির দিন, তারওপর সকাল থেকে বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি হওয়ায় লোকজন খুব একটা বাইরে বের হননি।

নগরীর মালিবাগ, শান্তিনগর, মৌচাক ও রামপুরাস্থ সড়কে থাকা পুলিশের চেকপোস্ট ঘুরে দেখা গেছে, কিছু মানুষ আজও রিকশা, মোটরসাইকেল বা প্রাইভেট কারে করে বাইরে বের হচ্ছেন। তাদের কেউ হাসপাতালে যাচ্ছেন বা কাঁচাবাজারের উদ্দেশে বেরিয়েছেন। তবে সন্দেহ হলে চেকপোস্টে তাদের বাইরে বের হওয়ার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

শান্তিনগর চেক পোস্টের পুলিশ সার্জেন্ট মো. ইউসুফ পাটোয়ারি বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, আজ এমনিতেই শুক্রবার। তাই ব্যাংক, বিমাসহ অন্যান্য সব অফিসই বন্ধ। বিশেষ করে এই এলাকা থেকে মতিঝিল, দিলকুশা ও এর আশপাশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মরতরা বেশি চলাচল করে থাকে। আজ ছুটির দিন হওয়ায় তাদের উপস্থিতি কম। এদিকে পাশেই রাজারবাগ পুলিশ লাইন থাকায় পুলিশ সদস্যদের এ এলাকা দিয়ে চলাচলটা বেশি। তবে সকাল থেকে এ পর্যন্ত কাউকে আটক বা জরিমানা করা হয়নি।

রামপুরা চেকপোস্টের পুলিশ সার্জেন্ট মো. আরিফুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে জানালেন, অনেকেই জরুরি প্রয়োজনেই সড়কে চলাচল করছেন। বিশেষ করে মধ্যবিত্তরা বেশি অসহায় পড়েছেন। আবার অনেকেই অযৌক্তিক কারণেও বাইরে বেরোচ্ছেন, আমরা সন্দেহ হলেই জিজ্ঞাসাবাদ করছি। বাইরে বের হওয়ার উপযুক্ত কারণ দেখাতে না পারলে জরিমানা করছি। সকাল থেকে এ পর্যন্ত ১০ জনকে প্রায় ১৯ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

কী কী কারণে লোকজন বাইরে বের হচ্ছেন- জানতে চাইলে তিনি বলেন, যাদের জরিমানা করা হয়েছে একজন সিগন্যাল অমান্য করেছেন এবং কয়েকজনের গাড়ির কাগজ ঠিক ছিল না। আর কেউ কেউ টিকা নেওয়ার জন্য বের হচ্ছেন, কেউ আবার ছুটির দিনেও জরুরি পরিষেবার অফিস খোলা থাকায় বাইরে বেরিয়েছেন।

/বিআই/ইউএস/

সম্পর্কিত

লকডাউনে বন্ধ মার্কেট ও দোকানে চলছে ‘বিকল্প’ লেনদেন

লকডাউনে বন্ধ মার্কেট ও দোকানে চলছে ‘বিকল্প’ লেনদেন

অধস্তন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কালো ব্যাজ পরিধানের নির্দেশ

অধস্তন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কালো ব্যাজ পরিধানের নির্দেশ

ডিএনসিসিতে দেড় হাজার কর্মহীন পরিবহন শ্রমিকের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

ডিএনসিসিতে দেড় হাজার কর্মহীন পরিবহন শ্রমিকের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

লকডাউন অমান্য করায় রাজধানীতে গ্রেফতার ৫৬৮

লকডাউন অমান্য করায় রাজধানীতে গ্রেফতার ৫৬৮

দেশে পৌঁছেছে সিনোফার্মের ৩০ লাখ ডোজ টিকা

আপডেট : ৩০ জুলাই ২০২১, ১৩:১১

চীনের সিনোফার্মের আরও ৩০ লাখ ডোজ করোনার টিকা দেশে এসে পৌঁছেছে।

শুক্রবার (৩০ জুলাই) স্বাস্থ্য অধিদফতরের ভ্যাকসিন ডেপ্লয়মেন্ট কমিটির সদস্য সচিব ডা. শামসুল হক বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

অধিদফতরের একটি সূত্র জানায়, এসব টিকার ১০ লাখ ডোজ স্বাস্থ্য অধিদফতরের কেন্দ্রীয় সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচির (ইপিআই) কোল্ড স্টোরে সংরক্ষণ করা হয়েছে। আর ২০ লাখ ডোজ টিকা বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের কোল্ড স্টোরেজে রাখা হয়েছে।

এর আগে, গত বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) দিনগত রাতে পৃথক ফ্লাইটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে টিকাগুলো এসে পৌঁছায়।

উল্লেখ্য, সিনোফার্মের দেড় কোটি ডোজ টিকা কিনতে চীনের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে সরকার। তিন মাসের মধ্যে এগুলো পর্যায়ক্রমে দেশে আসবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

এর আগে চুক্তির আওতায় গত ৩ জুলাই দিনে এবং ওইদিন রাতে দুই দফায় ২০ লাখ ডোজ সিনোফার্মের টিকা চীন থেকে দেশে পৌঁছায়। এরপর গত ১৭ জুলাই ১০ লাখ এবং ১৮ জুলাই আরও ১০ লাখ, মোট ২০ লাখ ডোজ টিকা দেশে আসে।

তারও আগে গত ১২ মে পাঁচ লাখ এবং ১৩ জুন ছয় লাখ ডোজ সিনোফার্মের টিকা উপহার হিসেবে বাংলাদেশকে দেয় চীন সরকার।

সেই হিসেবে উপহার এবং কেনা চুক্তির আওতায় মোট ৫১ লাখ ডোজ সিনোফার্মের টিকা দেশে এসেছে। বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) রাতে আসা ৩০ লাখ ডোজসহ এ পর্যন্ত মোট ৮১ লাখ সিনোফার্মের টিকা পেয়েছে বাংলাদেশ। 

আরও পড়ুন: সিনোফার্মের আরও ৩০ লাখ ডোজ টিকা আসছে রাতে

/জেএ/এমএস/

সম্পর্কিত

অন্তঃসত্ত্বা নারীদের অগ্রাধিকার-ভিত্তিতে টিকা দিতে আইনি নোটিশ

অন্তঃসত্ত্বা নারীদের অগ্রাধিকার-ভিত্তিতে টিকা দিতে আইনি নোটিশ

‘সবাইকে নিয়ে সেই বিপদেই পড়তে হলো’

‘সবাইকে নিয়ে সেই বিপদেই পড়তে হলো’

কোথায় গেলে একটা সিট পাবো?

কোথায় গেলে একটা সিট পাবো?

‘হতভম্ব’ জাতীয় কমিটি এবার ‘হতাশ’

‘হতভম্ব’ জাতীয় কমিটি এবার ‘হতাশ’

লকডাউনে বন্ধ মার্কেট ও দোকানে চলছে ‘বিকল্প’ লেনদেন

আপডেট : ৩০ জুলাই ২০২১, ১২:৪৭

করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে গত ২৩ জুলাই থেকে কঠোর বিধিনিষেধ জারি করা হয়। জরুরি সেবা ব্যতীত বন্ধ ঘোষণা করা হয় সকল শপিং মল ও দোকানপাট। আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্ত বিধিনিষেধ জারি করা থাকলেও এরইমধ্যে নানা কৌশলে যে যেভাবে পারছেন দোকান খোলা রাখা ও কেনাবেচা চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছেন।

রাজধানীতে মোবাইল বিক্রি ও সারাইয়ের অন্যতম বড় মার্কেট মোতালেব প্লাজা। চলমান লকডাউনে বন্ধ থাকলেও সকাল ১০টার পর থেকেই এই মার্কেটের সামনে দোকানের কর্মচারীদের আনাগোনা দেখা যায়। নতুন মোবাইল লাগবে? কিংবা ভেঙে গেছে মোবাইলের স্ক্রিন? ‑ মার্কেটের সামনে গেলে মিলবে সমাধান। কিংবা অনলাইনে কেনাবেচা চলছে? শাড়ি লাগবে কিংবা কাপড়ের থান? শপিং মলের ভেতর থেকে অথবা গোডাউন থেকে তাও পৌঁছে যাবে আপনার বাসায় ঠিকঠাক।

আবার আবাসিক এলাকা কিংবা পুরান ঢাকার সারি সারি দোকানে নেওয়া হয়েছে আরেক কৌশল। শংকর, মোহাম্মদপুর, মিরপুরের নানা এলাকা ঘুরে দেখা যায় দোকানের শাটার অর্ধেক খোলা থাকে। কোনওটা বা পুরো বন্ধ। কিন্তু দোকানের সামনে বা আশেপাশে রয়েছেন দোকানি। ক্রেতা দেখলে প্রয়োজন জেনে নিয়ে টুপ করে দোকানের ভেতর থেকে পাঠিয়ে দিচ্ছেন সদাই।

একদিকে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে নেওয়া হচ্ছে নানা উদ্যোগ, আরেকদিকে জীবিকার তাগিদে মানুষের এই চোর-পুলিশ খেলা। এতে করে সংক্রমণ আসলে কমবে না বলে শঙ্কা জনস্বাস্থ্যবিদদের। তারা বলছেন, যাদের জন্য এতো বিধিনিষেধ তারাই যদি বিষয়ের গুরুত্ব না বুঝতে চান তাহলে সবাই মিলেই বিপদে পড়তে হবে।

গত ২৪ ঘণ্টায় (স্বাস্থ্য অধিদফতরের ২৯ জুলাইয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী) করোনাতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২৩৯ জন। তাদের নিয়ে করোনাতে সরকারি হিসাবে মোট মারা গেলেন ২০ হাজার ২৫৫ জন।

একই সময়ে করোনাতে শনাক্ত হয়েছেন ১৫ হাজার ২৭১ জন। দেশে সরকারি হিসেবে করোনাতে মোট শনাক্ত হলেন ১২ লাখ ২৬ হাজার ২৫৩ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ২৩৯ জনের মধ্যে শনাক্ত হওয়া ১৫ হাজার ২৭১ জনের মধ্যে সবচেয়ে বেশী রোগীর মৃত্যু এবং সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছেন ঢাকা বিভাগে।

কথা হয় মোতালিব প্লাজার এক দোকানীর সঙ্গে। তিনি জানান, পরিচিতদের মধ্যে, অনলাইনে যারা যোগাযোগ করতে পারছেন তারা সেবা পাচ্ছেন। দিনের পর দিন দোকান বন্ধ রাখলে তাদের চাকরি থাকবে না বলে কর্মচারীরা রিস্ক নিয়ে মার্কেটের সামনে থাকেন।

মোহাম্মদপুরের এক ইলেক্ট্রিকের যন্ত্রপাতির দোকানের কর্মচারী বসে ছিলেন দোকানের সামনে। শুরুতে ক্রেতা ভেবে এগিয়ে এলেও সাংবাদিক শুনে আর কথা বলতে চাননি। পরে নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, আমাদের শাটার লাগিয়ে সামনে থাকতে বলা হয়েছে। ফোনে অর্ডার করা হলে দোকানে ঢুকে মাল নিয়ে আবার শাটার ফেলে দেওয়া হয়। পুলিশ টহলে এলে আশেপাশের গলিতে অবস্থান নেন সকলে।

image1(1)

ঘোষণা অনুযায়ী বন্ধ থাকার কথা থাকলেও লুকিয়ে দোকান-শপিং মল খোলার চেষ্টা হওয়ার কথা অস্বীকার করছেন না খোদ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মওদুদ হাওলাদার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী শপিং মলগুলো বন্ধ রয়েছে। তবে অনেক সময় আমরা শুনতে পাই শপিং মল খোলা রাখা হচ্ছে এবং পুলিশের তৎপরতা দেখলে বন্ধ করে তারা সরে যাচ্ছেন। মোতালেব প্লাজার বিষয়ে আপনি যে বিষয়টি আমাদেরকে অবহিত করেছেন সে বিষয়ে আমরা আরও খোঁজ-খবর নিচ্ছি। অনেক সময় আমরা দেখতে পাই‑ আমাদের উপস্থিতি টের পেয়ে অনেকে আমাদের সাথে চোর-পুলিশ খেলা শুরু করে।

/এমএস/

সম্পর্কিত

লকডাউন অমান্য করায় রাজধানীতে গ্রেফতার ৫৬৮

লকডাউন অমান্য করায় রাজধানীতে গ্রেফতার ৫৬৮

এখনও ভেঙে ভেঙে রাজধানীতে আসছে মানুষ

এখনও ভেঙে ভেঙে রাজধানীতে আসছে মানুষ

ঢাকায় গ্রেফতার বেড়েছে

ঢাকায় গ্রেফতার বেড়েছে

এখনও ঢাকা ছাড়ছেন মানুষ

এখনও ঢাকা ছাড়ছেন মানুষ

ঝরে পড়াদের শিক্ষায় ফিরিয়ে আনার আহ্বান বাউবি ভিসির

আপডেট : ৩০ জুলাই ২০২১, ১১:২৮

ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের শিক্ষায় ফিরিয়ে আনার আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাউবি) উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক ড. সৈয়দ হুমায়ুন আখতার। দেশের ১২টি আঞ্চলিক কেন্দ্রের আঞ্চলিক পরিচালকদের সঙ্গে ভার্চুয়াল মতবিনিময় সভায় সংশ্লিষ্টদের তিনি এ আহ্বান জানান।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বুধবার (২৮ জুলাই) রাতে মতবিনিময় সভায় উপাচার্য আঞ্চলিক পরিচালকদের ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের শিক্ষায় ফেরানোর বিষয়ে উদ্যোগ নিতে বলেন।

মতবিনিময় সভায় বাউবি উপাচার্য বলেন, “জাতির পিতার  ‘সোনার বাংলা’ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নে বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারকে দৃঢ় প্রত্যয় ও অঙ্গীকার নিতে হবে। এই লক্ষ্যে দক্ষ জনশক্তি সৃজনে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় সারাদেশে শিক্ষা সুবিধা বিস্তরণ করে চলেছে।”

মতবিনিময়কালে উপাচার্য মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নিষ্ঠা ও সততার সঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘দেশের আর্থসামাজিক অবস্থার কথা বিবেচনা করে প্রান্তিক জনগোষ্ঠী, পিছিয়ে পড়া নারী ও ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জনগণকে শিক্ষায় ফেরাতে হবে। পিছিয়ে পড়া অঞ্চলের চাহিদার সঙ্গে মিল রেখে বাউবিতে নীড বেজ এডুকেশন, গণশিক্ষা, কর্মমুখী শিক্ষা ও জীবনব্যাপী শিক্ষা চালু করতে হবে।’

মতবিনিময় সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ড. মহা. শফিকুল আলম বক্তব্য রাখেন।

/এসএমএ/এমএস/

সম্পর্কিত

এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা নিতে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই পরিকল্পনা

এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা নিতে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই পরিকল্পনা

এলএলএম-এ ভর্তির সুযোগ পাচ্ছেন না উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

এলএলএম-এ ভর্তির সুযোগ পাচ্ছেন না উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

হেলেনা জাহাঙ্গীরের আইপি টিভির কার্যালয়ে র‌্যাবের অভিযান

আপডেট : ৩০ জুলাই ২০২১, ০৮:৪১

আওয়ামী লীগের উপকমিটি থেকে অব্যাহতি পাওয়া মহিলা বিষয়ক সম্পাদক হেলেনা জাহাঙ্গীরের মালিকানাধীন আইপি টিভি জয়যাত্রা টেলিভিশন ও জয়যাত্রা ফাউন্ডেশনের কার্যালয়ে অভিযান চালিয়েছে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। গতকাল বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) দিবাগত রাত ২টার দিকে রাজধানীর মিরপুর ১১ নম্বরে জয়যাত্রার কার্যালয়ে যায় র‌্যাব। এর আগে গুলশানের বাসায় অভিযান চালিয়ে আটক করা হয় ব্যবসায়ী হেলেনাকে।

আজ শুক্রবার (৩০ জুলাই) ভোর ৪টা পর্যন্ত চলা সেই অভিযানের নেতৃত্ব দেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাদির শাহ। অভিযান শেষে তিনি সংবাদিকদের বলেন, অভিযান পরিচালনার সময় আইপিটিভি জয়যাত্রা টেলিভিশন নামক চ্যানেলটির কোন বৈধ কাগজপত্র পাওয়া যায়নি। তদন্ত করে যদি বৈধ কাগজপত্র না পাওয়া যায় তাহলে চ্যানেলটি বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বলেন, এই ভবনটিতে জয়যাত্রা ফাউন্ডেশন এবং জয়যাত্রা টেলিভিশন নামে দুটি প্রতিষ্ঠানের অফিস আমরা পেয়েছি। সম্প্রচার চ্যানেল হিসেবে যেসব সেটআপ থাকা দরকার তার সব কিছুই এখানে রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, জয়যাত্রা টেলিভিশন এর মাধ্যমে দেশে এবং দেশের বাইরে প্রতিনিধি নিয়োগের নামে অর্থ আদায় করে নিয়েছেন হেলেনা জাহাঙ্গীর। এসব বিষয় আমরা খতিয়ে দেখছি। তদন্তের পর তার দুই প্রতিষ্ঠান জয়যাত্রা ফাউন্ডেশন ও আইপি জয়যাত্রা টেলিভিশনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আটকের আগে গুলশান ২ নম্বরে তার নিজস্ব ভবনে বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) রাত সাড়ে ৮টা থেকে প্রায় ৪ ঘণ্টা অভিযান চলে। এ সময় তার বাসা থেকে মদ, ওয়াকি টকি, ক্যাসিনো সরঞ্জাম ও হরিণের চামড়া উদ্ধার করে র‌্যাব। অভিযানে নেতৃত্ব দেন সংস্থাটির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু।

আরও পড়ুন:

হেলেনা জাহাঙ্গীর আটক

/আরটি/ ইউএস/

সম্পর্কিত

হেলেনা জাহাঙ্গীর আটক

হেলেনা জাহাঙ্গীর আটক

হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসায় র‌্যাবের অভিযান

হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসায় র‌্যাবের অভিযান

অধস্তন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কালো ব্যাজ পরিধানের নির্দেশ

অধস্তন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কালো ব্যাজ পরিধানের নির্দেশ

৯৯ জনকে জরিমানা র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতের

৯৯ জনকে জরিমানা র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতের

সর্বশেষ

সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ঢিলেঢালা চেকপোস্ট

সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ঢিলেঢালা চেকপোস্ট

টানা বৃষ্টিতে সাতক্ষীরায় ব্যাপক ক্ষতি, বাঁধ ভাঙার শঙ্কা

টানা বৃষ্টিতে সাতক্ষীরায় ব্যাপক ক্ষতি, বাঁধ ভাঙার শঙ্কা

দেশে পৌঁছেছে সিনোফার্মের ৩০ লাখ ডোজ টিকা

দেশে পৌঁছেছে সিনোফার্মের ৩০ লাখ ডোজ টিকা

সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচন ৪ সেপ্টেম্বর

সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচন ৪ সেপ্টেম্বর

লকডাউনে বন্ধ মার্কেট ও দোকানে চলছে ‘বিকল্প’ লেনদেন

লকডাউনে বন্ধ মার্কেট ও দোকানে চলছে ‘বিকল্প’ লেনদেন

গৃহবধূর সঙ্গে পুলিশ সদস্যের অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ, বাড়ি ঘেরাও 

গৃহবধূর সঙ্গে পুলিশ সদস্যের অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ, বাড়ি ঘেরাও 

গাছের সঙ্গে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় প্রাণ গেল দুই বন্ধুর

গাছের সঙ্গে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় প্রাণ গেল দুই বন্ধুর

সাঁতারে বিশ্ব রেকর্ড গড়ে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম সোনা

টোকিও অলিম্পিকসাঁতারে বিশ্ব রেকর্ড গড়ে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম সোনা

ইয়াবাসহ গ্রেফতার পুলিশ সদস্য রিমান্ডে

ইয়াবাসহ গ্রেফতার পুলিশ সদস্য রিমান্ডে

করোনায় অসহায় মানুষের পাশে মৌসুমী ও সুমি  (ভিডিও)

করোনায় অসহায় মানুষের পাশে মৌসুমী ও সুমি  (ভিডিও)

খুলনার হাসপাতালে মৃত্যু কমেছে

খুলনার হাসপাতালে মৃত্যু কমেছে

বরগুনায় আগুনে পুড়েছে করোনা টিকা রাখার ফ্রিজ

বরগুনায় আগুনে পুড়েছে করোনা টিকা রাখার ফ্রিজ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ঢিলেঢালা চেকপোস্ট

সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ঢিলেঢালা চেকপোস্ট

অধস্তন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কালো ব্যাজ পরিধানের নির্দেশ

অধস্তন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কালো ব্যাজ পরিধানের নির্দেশ

ইউনাইটেড হাসপাতালে আগুনে মৃত্যু: চার পরিবার পেলো ১ কোটি টাকা

ইউনাইটেড হাসপাতালে আগুনে মৃত্যু: চার পরিবার পেলো ১ কোটি টাকা

প্রযুক্তি সহায়ক শিক্ষাব্যবস্থা প্রবর্তনের আহ্বান ইউজিসির

প্রযুক্তি সহায়ক শিক্ষাব্যবস্থা প্রবর্তনের আহ্বান ইউজিসির

নগরবাসীর কাছে ১০ মিনিট সময় চান আতিকুল ইসলাম

নগরবাসীর কাছে ১০ মিনিট সময় চান আতিকুল ইসলাম

ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়ার বিরুদ্ধে শিগগিরই চার্জশিট

ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়ার বিরুদ্ধে শিগগিরই চার্জশিট

রাজধানীতে কলেজছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

রাজধানীতে কলেজছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

কমিউনিটি ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভা অনুষ্ঠিত

কমিউনিটি ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভা অনুষ্ঠিত

প্রাথমিক শিক্ষা সংশ্লিষ্টদের ১১ আগস্টের মধ্যে টিকা গ্রহণের নির্দেশ

প্রাথমিক শিক্ষা সংশ্লিষ্টদের ১১ আগস্টের মধ্যে টিকা গ্রহণের নির্দেশ

মাদকের মামলায় ৪ নাইজেরিয়ান কারাগারে

মাদকের মামলায় ৪ নাইজেরিয়ান কারাগারে

© 2021 Bangla Tribune