X
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

৫ নারী পাবেন ‘বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব’ পদক

আপডেট : ২৭ এপ্রিল ২০২১, ০১:২৭

বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখায় চলতি বছর থেকে পাঁচ জন নারীকে দেওয়া হবে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব’ পদক।

প্রতিবছর ৮ আগস্ট বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব এর জন্মদিবস উপলক্ষে আয়োজিত ‘ক’ শ্রেণির জাতীয় দিবস অনুষ্ঠানে চূড়ান্তভাবে মনোনীত ব্যক্তিদের এ পদক প্রদান করা হবে।

আজ (সোমবার) ‘বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব পদক- ২০২১’ প্রদান সংক্রান্ত এক ভার্চ্যুয়াল সভায় এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

প্রথমবারের মতো রাজনীতি; অর্থনীতি; শিক্ষা, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া; সমাজসেবা; স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধ; গবেষণা; কৃষি ও পল্লিউন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান ও গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকার জন্য তারা এই পদক পাবেন।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেন, বাঙালির মুক্তি সংগ্রামে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের রয়েছে অপরিসীম অবদান। তিনি ছিলেন বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য সহধর্মিণী ও বাঙালির স্বাধীনতা অর্জনে নেপথ্য কারিগর।

মহীয়সী নারী বঙ্গমাতার দেশপ্রেম, রাজনৈতিক প্রজ্ঞা, দূরদর্শিতা, সাহসিকতা, মানবকল্যাণ ও ত্যাগের মহিমা বাঙালিসহ বিশ্বের সব নারীর কাছে চিরন্তন অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে রয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গমাতার অবদান চিরস্মরণীয় করার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারীর গৌরবোজ্জ্বল অবদানের স্বীকৃতির জন্য ‘বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব’ প্রবর্তন করেছে।

এসময় সভায় উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সায়েদুল ইসলাম, জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান চেমন আরা তৈয়ব, মহাপরিচালক রাম চন্দ্র দাস, অতিরিক্ত সচিব ফরিদা পারভীনসহ মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ।

সভায় জানানো হয়, এ বছর থেকে রাজনীতি; অর্থনীতি; শিক্ষা, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া; সমাজসেবা; স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধ; গবেষণা; কৃষি ও পল্লী উন্নয়ন এবং সরকার কর্তৃক নির্ধারিত অন্য যে কোন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান ও গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকার জন্য ‘বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব’ পদক প্রদান করা হবে। যা নারীদের জন্য ‘ক’ শ্রেণীভূক্ত সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পদক হিসেবে গণ্য হবে। পদক প্রদানের জন্য মনোনীত নারীকে অবশ্যই বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে। প্রতি বছর সর্বোচ্চ পাঁচজন নারীকে এ পদক প্রদান করা হবে।

পদকপ্রাপ্ত প্রত্যেকে পাবেন আঠারো ক্যারেট মানের চল্লিশ গ্রাম স্বর্ণের একটি পদক, পদকের একটি রেপ্লিকা, চার লক্ষ টাকার চেক ও সম্মাননা সনদ। এ লক্ষ্যে ‘বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব’ পদক নীতিমালা ২০২১ প্রনয়ণ করা হয়েছে।

পদকপ্রাপ্তদের মনোনয়ন প্রক্রিয়ায় রয়েছে নয় সদস্য বিশিষ্ট ‘প্রার্থী বাছাই কমিটি’। কমিটির আহবায়ক আছেন এই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী/প্রতিমন্ত্রী। সদস্য হিসেবে আছেন মহিলা ও শিশু বিষয় মন্ত্রণালয়; জননিরাপত্তা বিভাগ; সংস্কৃতি বিষয় মন্ত্রণালয়; মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ; তথ্য মন্ত্রণালয়; মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব। কমিটির সদস্য সচিব মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব প্রশাসন। এ কমিটি প্রাপ্ত আবেদন মূল্যায়ন করে সর্বোচ্চ দশজনের নাম জাতীয় পুরস্কার সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির নিকট বিবেচনার সুপারিশসহ প্রস্তাব প্রেরণ করবে। পরবর্তীতে জাতীয় পুরস্কার সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সুপারিশ ও প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনক্রমে ‘বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব’ পদক প্রদানের বিষয় চুড়ান্ত হবে।

এবছর পদক প্রাপ্তির ক্ষেত্র উল্লেখপূর্বক আগামী ৩১ মে এর মধ্যে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব পদক নীতিমালা ২০২১ অনুযায়ী ও নির্ধারিত ছকে আবেদন করতে হবে। আবেদনের নির্ধারিত ছক www.mowca.gov.bd I www.jms.gov.bd -এ পাওয়া যাবে। যা পুরণ করে আগামী ৩১ মে তারিখের মধ্যে ই-মেইলে ([email protected]) এবং ডাকযোগে হার্ড কপি সচিব, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় বরাবর প্রেরণ করতে হবে।

সূত্র: বাসস।

/এফএএন/

সম্পর্কিত

বঙ্গবন্ধুর পক্ষে সমাপনী ভাষণে যা বলেছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম

বঙ্গবন্ধুর পক্ষে সমাপনী ভাষণে যা বলেছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম

জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণের দিন আজ

জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণের দিন আজ

১৯৭৩ সালে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আবারও নতুন পদক্ষেপ নিতে হয়

১৯৭৩ সালে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আবারও নতুন পদক্ষেপ নিতে হয়

এদিন জাতিসংঘভুক্তি নিয়ে পাকিস্তানের অবস্থানের জবাব দেয় বাংলাদেশ

এদিন জাতিসংঘভুক্তি নিয়ে পাকিস্তানের অবস্থানের জবাব দেয় বাংলাদেশ

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:১১

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে আরও দুজনের মৃত্যু হয়েছে, এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৬১-তে। এই সময়ে নতুন ভর্তি রোগীর সংখ্যা ২৪২ জন। এর মধ্যে ঢাকায় ১৮৫ জন এবং ঢাকার বাইরে ৫৭ জন নতুন রোগী ভর্তি হয়েছেন। আর চলতি মাসে মোট ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন ৭ হাজার ১ জন।

রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের দেওয়া তথ্য থেকে এসব জানা গেছে।  

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, সারাদেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে বর্তমানে ১ হাজার ৪৩ জন রোগী ভর্তি আছে। এর মধ্যে ঢাকাতেই আছেন ৮১৪ জন, আর বাকি ২২৯ জন ঢাকার বাইরে অন্য বিভাগে। এ বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ২৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১৭ হাজার ৩৫৭ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন এবং এর মধ্যে ছাড়া পেয়েছেন ১৬ হাজার ২৫৩ জন।

/এসও/ইউএস/

সম্পর্কিত

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে আরও জনবল চায় রেল

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে আরও জনবল চায় রেল

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

আসছে মাস্টারপ্ল্যান, বদলে যাবে পর্যটনের চিত্র

আসছে মাস্টারপ্ল্যান, বদলে যাবে পর্যটনের চিত্র

বঙ্গবন্ধুর পক্ষে সমাপনী ভাষণে যা বলেছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম

বঙ্গবন্ধুর পক্ষে সমাপনী ভাষণে যা বলেছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম

বাংলাদেশকে বুঝতে শুরু করেছে তুরস্ক

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:২২

২০০৮ সালের নির্বাচনের পর যুদ্ধাপরাধীর বিচার প্রক্রিয়া জোরেশোরে শুরু করে আওয়ামী লীগ সরকার। তখন এটাকে ভালো চোখে দেখেনি তুরস্ক। একপর্যায়ে বাংলাদেশ থেকে রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার করে তারা। জবাবে বাংলাদেশও নিজেদের রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার করে। কূটনৈতিক সম্পর্কের এমন টানাপড়েন চলতে থাকে বেশ কিছু দিন। পরে ২০১৭ সালে রোহিঙ্গা ইস্যুকে কেন্দ্র করে ঢাকার সঙ্গে সম্পর্ক জোড়া লাগানোর চেষ্টা করে আঙ্কারা। রোহিঙ্গা ঢলের দুই সপ্তাহের মধ্যে তুরস্কের ফার্স্টলেডি এমিন এরদোয়ানসহ দেশটির আরও কয়েকজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা ঢাকা সফর করেন। এরপর দিনে দিনে সম্পর্ক আরও ঝালাই হয়েছে। এখন ঢাকার মন বুঝেই সামনে এগুতে চাইছে আঙ্কারা। বাংলাদেশও তুরস্কের কাছ থেকে ‘ন্যাটো স্ট্যান্ডার্ড’ নিরাপত্তা পণ্য কিনতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। যা কয়েক বছর আগেও আলোচনায় ছিল না।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেন, ‘তুরস্কের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কে কিছু চড়াই-উৎরাই ছিল। কিন্তু এখন মোটামুটি আমাদের অবস্থান আঙ্কারার কাছে অনেকটা পরিষ্কার। আমাদের স্পর্শকাতর বিষয়গুলো তারা বুঝতে শুরু করেছে।’

তুরস্কের উচ্চাকাঙ্ক্ষা রয়েছে এবং বাংলাদেশেরও আগ্রহের জায়গায় কিছু কিছু ক্ষেত্রে তাদের সঙ্গে মিল রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশ একটি শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হচ্ছে এবং বিষয়টি তুরস্ক অনুভব করতে পারছে। আবার অন্যদিকে মধ্যপ্রাচ্য এবং ওআইসিতে তুরস্ক উদীয়মান শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আমি বলবো রোহিঙ্গা ইস্যুর কারণে আমরা দুই দেশ একে অপরের কাছে এসেছি।’

‘বাংলাদেশ ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছে। ওআইসিতে বাংলাদেশের ভারসাম্যমূলক অবস্থান নিচ্ছে।’ বিষয়টিও হয়তো তুরস্ক পর্যবেক্ষণে নিয়েছে বলে তিনি জানান।

তিনি বলেন, এসব উপাদানের কারণে আমাদের আগ্রহ অবশ্যই আছে। তুরস্কের আগ্রহেও কমতি নেই।

কৌশলগত সম্পর্ক

বর্তমানে বাংলাদেশ তুরস্ক থেকে বিভিন্ন ধরনের নিরাপত্তা সামগ্রী কিনেছে। এ বিষয়ে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ‘তাদের নিরাপত্তা পণ্য ন্যাটোর মানসম্পন্ন। দামও কিছুটা কম হতে পারে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, এই ক্রয়ের সঙ্গে বিশেষ কোনও শর্ত জুড়ে দেওয়া হবে না।’

উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ আরও কয়েকটি দেশ থেকে উচ্চ প্রযুক্তির অস্ত্র কেনা হলে সেটার সঙ্গে বিভিন্ন শর্ত জুড়ে দেওয়া হয় (যেমন, যেকোনও সময় ওই অস্ত্র পরিদর্শন করতে দেওয়া)।

দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক কৌশলগত হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘দুটো দেশ মুসলিম হওয়ায় অনেক সাধারণ উপাদান আছে এখানে।’

/এফএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

রাষ্ট্রীয় সফরে তুরস্কে গেলেন সেনাপ্রধান

রাষ্ট্রীয় সফরে তুরস্কে গেলেন সেনাপ্রধান

ঢাকা-আঙ্কারা পর্যটন সহায়তা বাড়ানোর আহ্বান

ঢাকা-আঙ্কারা পর্যটন সহায়তা বাড়ানোর আহ্বান

ঢাকা-আঙ্কারা সম্পর্ক: ‘রিব্যালান্সিং করতে গিয়ে অফ-ব্যালান্সিং যেন না হয়’

ঢাকা-আঙ্কারা সম্পর্ক: ‘রিব্যালান্সিং করতে গিয়ে অফ-ব্যালান্সিং যেন না হয়’

নিরাপত্তা সরঞ্জাম কিনতে তুরস্কের সঙ্গে বাংলাদেশের চুক্তি

নিরাপত্তা সরঞ্জাম কিনতে তুরস্কের সঙ্গে বাংলাদেশের চুক্তি

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে আরও জনবল চায় রেল

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৫৩

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া বন্ধে রেলওয়ের নিরাপত্তা বাহিনীতে আরও দেড় হাজার জনবল চায় বাংলাদেশ রেলওয়ে। রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে রেলপথ বিভাগ থেকে এ জনবলের কথা বলা হয়। পরে কমিটির পক্ষ থেকেও এ নিয়োগের বিষয়ে সুপারিশ করা হয়।

বৈঠকে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়, বিদ্যমান জনবলের সঙ্গে আরও ১ হাজার ৫০০ বাড়ানো হলে চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে পদক্ষেপ নিতে সুবিধা হবে। আলোচনা শেষে কমিটি ওই জনবল বাড়ানোর জন্য মন্ত্রণালয়কে পদক্ষেপ নেওয়ার সুপারিশ করা হয়।

চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ নিয়ে স্থানীয় পর্যায়ে জনগণের সঙ্গে সমন্বয়ের ফলে এধরনের দুর্ঘটনা অনেকটা লাঘব হয়েছে বলেও মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়।
 
বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, মন্ত্রণালয় তাদের গৃহীত পদক্ষেপ নিয়ে কমিটিকে অবহিত করেছে। তারা জানিয়েছে বিদ্যমান জনবলের সঙ্গে আরও ১ হাজার ৫০০ জন বাড়ানো গেলে কাজটা সহজ হবে। আমরা জনবল বাড়ানোর সুপারিশ করেছি। 

সম্প্রতি চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের ঘটনায় গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী গুরুতর আহত হওয়ার ঘটনায় সমবেদনা প্রকাশ করে স্থায়ী কমিটি। 

সংসদ সচিবালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বৈঠকে রেলওয়ের সম্ভাব্য পরিকল্পনায় মুজিবনগরে নির্মিতব্য রেললাইনের সাথে সম্পৃক্ত করে দর্শনা-জীবননগর-দত্তনগর-মহেশপুর-চৌগাছা-যশোর পর্যন্ত রেললাইন অন্তর্ভুক্ত করে প্রকল্প গ্রহণ এবং এডিবির অর্থায়নে নির্মিত রেলওয়ের ওয়াশিং প্লান্টগুলো দ্রুত কার্যকর করার সুপারিশ করা হয়।

কমিটির সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে কমিটির সদস্য আসাদুজ্জামান নূর, মো. শফিকুল আজম খাঁন, মো. সাইফুজ্জামান, নাছিমুল আলম চৌধুরী, গাজী মোহাম্মদ শাহ নওয়াজ ও নাদিরা ইয়াসমিন জলি বৈঠকে অংশ নেন।

/ইএইচএস/ইউএস/

সম্পর্কিত

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

আসছে মাস্টারপ্ল্যান, বদলে যাবে পর্যটনের চিত্র

আসছে মাস্টারপ্ল্যান, বদলে যাবে পর্যটনের চিত্র

বঙ্গবন্ধুর পক্ষে সমাপনী ভাষণে যা বলেছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম

বঙ্গবন্ধুর পক্ষে সমাপনী ভাষণে যা বলেছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম

মানসম্মত গুঁড়া দুধ আমদানির সুপারিশ সংসদীয় কমিটির

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৫৪

গুঁড়া দুধ আমদানির ক্ষেত্রে গুণগতমান নিশ্চিত করার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেওয়া এবং খামারি পর্যায়ে দুধের দাম বাড়ানোর বিষয়ে সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। 

রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদের স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ সুপারিশ করা হয়। 

সংসদ সচিবালয় থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কমিটি গুঁড়া দুধ আমদানির ক্ষেত্রে দুধের গুণগত মান নিশ্চিত করার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেয়। দেশে মানসম্মত দুধ প্রাপ্তির জন্য সমবায়ের ভিত্তিতে বাড়ি বাড়ি গরুর খামার স্থাপন এবং খামারিদের কাছ থেকে দুধ সংগ্রহের ক্ষেত্রে চেয়ে বেশি দামে কিনা- সে বিষয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য সুপারিশ করে। 

এ ছাড়া বৈঠকে সমবায় অধিদফতরের নিবন্ধনকৃত অকার্যকর সমবায় সমিতি এবং যেসব সমবায় সমিতি নিয়মিত অডিট সম্পন্ন করছে না বা অব্যবস্থাপনা পরিলক্ষিত হচ্ছে; সেসব সমবায় সমিতির তালিকা পরবর্তী বৈঠকে উপস্থাপনের জন্য মন্ত্রণালয়কে নির্দেশনা দেওয়া হয়। 

কমিটির সভাপতি খন্দকার মোশাররফ হোসেনের সভাপতিত্বে বৈঠকে আরও অংশ গ্রহণ করেন কমিটি সদস্য স্থানীয় সরকার, মন্ত্রী তাজুল ইসলাম, প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য, মসিউর রহমান রাঙা, শেখ আফিল উদ্দিন, রেবেকা মমিন এবং আব্দুস সালাম মূর্শের্দী। 

/ইএইচএস/এনএইচ/

সম্পর্কিত

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

বাংলাদেশকে বুঝতে শুরু করেছে তুরস্ক

বাংলাদেশকে বুঝতে শুরু করেছে তুরস্ক

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে আরও জনবল চায় রেল

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে আরও জনবল চায় রেল

সড়ক বিভাগে সাত হাজারের বেশি শূন্যপদ 

সড়ক বিভাগে সাত হাজারের বেশি শূন্যপদ 

সড়ক বিভাগে সাত হাজারের বেশি শূন্যপদ 

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৪২

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ এবং এর আওতাধীন দফতরগুলোর শূন্যপদের সংখ্যা সাত হাজার ২৮৭টি। এর মধ্যে কিছু পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া বেশ কিছু পদে নিয়োগ কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। তবে শূন্যপদের মধ্যে কিছু পদোন্নতি যোগ্য এবং কিছু মামলাজনিত কারণে নিয়োগ আটকে রয়েছে।

রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের উপস্থাপিত প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। কমিটির আগের বৈঠকে এ বিভাগের শূন্যপদের তথ্য জানতে চাওয়া হয়েছিল।

বৈঠকের কার্যপত্র থেকে জানা গেছে, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ এবং এর আওতাধীন দফতরগুলোর বিভিন্ন গ্রেডের পদের সংখ্যা ১৬ হাজার ৩২৩টি। এর মধ্যে কর্মরত আছে নয় হাজার ৪৫ জন। শূন্যপদের সংখ্যা সাত হাজার ২৮৭টি।

মোট জনবলের মধ্যে সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের পদসংখ্যা হচ্ছে নয় হাজার ৪৩১টি। এর মধ্যে কর্মরত আছে চার হাজার ৮৯৭ জন এবং ‍শূন্যপদের সংখ্যা চার হাজার ৫৩৪টি। এসব পদের মধ্যে প্রথম শ্রেণির ১৮০টি, দ্বিতীয় শ্রেণির ২১৭টি, তৃতীয় শ্রেণির দুই হাজার ৬৯১টি এবং চতুর্থ শ্রেণির চার হাজার ৫৩৪টি।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) মোট ৮২৩টি পদের মধ্যে কর্মরত ৭০১ জন, শূন্য ১২২টি। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশনের (বিআরটিসি) ৫ হাজার ৮৯৩টি পদের মধ্যে কর্মরত তিন হাজার ৩৫৩ জন, শূন্যপদ দুই হাজার ৫৪০টি। ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের (ডিটিসিএ) ১৭৬টি পদের মধ্যে কর্মরত ৯৪ জন এবং শূন্যপদ ৮২টি।

বৈঠকে শূন্যপদে নিয়োগের বিস্তারিত পরিকল্পনা তুলে ধরা হয়। এতে বলা হয়ে, শূন্যপদের মধ্যে যেগুলো পদোন্নতির যোগ্য; সেগুলো পদোন্নতির মাধ্যমে পূরণের প্রক্রিয়া চলছে। অন্যগুলো বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে নিয়োগ চলমান রয়েছে।

কমিটির সভাপতি একাব্বর হোসেনের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, এনামুল হক, আবু জাহির, রেজওয়ান আহম্মদ তৌফিক, ছলিম উদ্দীন তরফদার, শেখ সালাহউদ্দিন, সৈয়দ আবু হোসেন এবং রাবেয়া আলীম অংশগ্রহণ করেন। 

/ইএইচএস/এনএইচ/

সম্পর্কিত

৪০তম বিসিএস: লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ১১ হাজার

৪০তম বিসিএস: লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ১১ হাজার

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

বঙ্গবন্ধুর পক্ষে সমাপনী ভাষণে যা বলেছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম

বঙ্গবন্ধুর পক্ষে সমাপনী ভাষণে যা বলেছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম

জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণের দিন আজ

জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণের দিন আজ

১৯৭৩ সালে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আবারও নতুন পদক্ষেপ নিতে হয়

১৯৭৩ সালে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আবারও নতুন পদক্ষেপ নিতে হয়

এদিন জাতিসংঘভুক্তি নিয়ে পাকিস্তানের অবস্থানের জবাব দেয় বাংলাদেশ

এদিন জাতিসংঘভুক্তি নিয়ে পাকিস্তানের অবস্থানের জবাব দেয় বাংলাদেশ

মুক্ত স্বদেশে ফিরে সেদিন কান্নায় ভেঙে পড়েন বাংলাদেশিরা

মুক্ত স্বদেশে ফিরে সেদিন কান্নায় ভেঙে পড়েন বাংলাদেশিরা

সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী বিলে যা ছিল

সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী বিলে যা ছিল

বঙ্গবন্ধু ভাষণের দিনকে এবারও 'বাংলাদেশি ইমিগ্রান্ট ডে' ঘোষণা

বঙ্গবন্ধু ভাষণের দিনকে এবারও 'বাংলাদেশি ইমিগ্রান্ট ডে' ঘোষণা

এদিন আটক বাঙালিদের ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়

এদিন আটক বাঙালিদের ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়

জাতিসংঘে বাংলাদেশের অন্তর্ভুক্তি নিয়ে তখন আলোচনা ‍তুঙ্গে

জাতিসংঘে বাংলাদেশের অন্তর্ভুক্তি নিয়ে তখন আলোচনা ‍তুঙ্গে

আটকে পড়া বাঙালিদের ফিরিয়ে আনার কাজ শুরু

আটকে পড়া বাঙালিদের ফিরিয়ে আনার কাজ শুরু

সর্বশেষ

১০,৫০০ শ্রমিককে ভিসা দেবে যুক্তরাজ্য

১০,৫০০ শ্রমিককে ভিসা দেবে যুক্তরাজ্য

‘স্বাধীনভাবে কাজ করতে না দিলে দখলকারীদের দমন সম্ভব নয়’

‘স্বাধীনভাবে কাজ করতে না দিলে দখলকারীদের দমন সম্ভব নয়’

প্রশিক্ষণের জন্য বরাদ্দ অর্ধকোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

প্রশিক্ষণের জন্য বরাদ্দ অর্ধকোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

কালীগঙ্গা নদীতে সেতুর খবরে এলাকাবাসীর মাঝে আনন্দ

কালীগঙ্গা নদীতে সেতুর খবরে এলাকাবাসীর মাঝে আনন্দ

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

© 2021 Bangla Tribune