X
মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ১ আষাঢ় ১৪২৮

সেকশনস

নারীর অগ্রগামীতার পরেও নির্যাতন কেন

আপডেট : ০৮ মে ২০২১, ১০:৪৭

পরিবারে-কর্মক্ষেত্রে নারীর এগিয়ে যাওয়া, গতিশীলতা, অর্থনৈতিক সম্পৃক্ততা ও দৃশ্যমান ভূমিকা রাখার পরও নারী নির্যাতন কমছে না। বরং নির্যাতনের ধরন বদলেছে। এর মাঝে আবার নারীর কাজের তালিকাও দীর্ঘ হয়েছে করোনাকালে। যুক্ত হয়েছে নতুন চ্যালেঞ্জ। বিশ্লেষকরা বলছেন, কেবল নারীর বেরিয়ে আসাই যথেষ্ট নয়। অর্থনৈতিকভাবে যুক্ত হওয়ার পাশাপাশি নারীর ক্ষমতায়নের জন্য দরকার আরও কিছু।

করোনা মহামারিতে নারী ও শিশু নির্যাতন বেড়েছে। মানবাধিকার সংস্কৃতি ফাউন্ডেশন (এমএসএফ) সংগঠনের ১ মে প্রকাশিত পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, গত এপ্রিলে দেশে ৩৭১টি নারী ও শিশু নির্যাতনের মধ্যে ১৩৭টিই ছিল ধর্ষণের ঘটনা। দলবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ৩১টি। এ ছাড়াও ৩২ জন কিশোরী, ৬৯জন নারী আত্মহত্যা করেছে। মোট ৭৫ নারী ও শিশু হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন।

ধর্ষণের শিকার ১৩৭ জনের মধ্যে ৭৬ জন শিশু ও কিশোরী। ধর্ষণের চেষ্টা হয়েছে ১৫টি। যৌন হয়রানি ২২টি ও শারীরিক নির্যাতনের ঘটনা ২৯টি। এ ছাড়াও অ্যাসিড সন্ত্রাসের শিকার হয়েছেন দুই নারী। অপহরণের শিকার হয়েছে তিন শিশু, চার কিশোরী ও দুই নারী। ১১টি শিশু এখনও নিখোঁজ।

প্রতিষ্ঠানটির গত নভেম্বরের শেষে দেশের ৫৯টি জেলার ১০ লাখ নারীর অংশগ্রহণে করা এক জরিপে দেখা যায়, এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৪০ হাজার নারী পারিবারিক সহিংসতা ও নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। যাদের মধ্যে ৪০ শতাংশ নারী প্রথমবারের মতো নির্যাতনের শিকার হয়েছেন।

সংস্থাটি জানিয়েছে, লকডাউন চলাকালে নারীর ওপর সহিংসতার মাত্রা অস্বাভাবিক বেড়েছে। পারিবারিক সহিংসতার ক্ষেত্রে শারীরিক নির্যাতনের চেয়েও মানসিক নির্যাতনের মাত্রা ছিল বেশি।

প্রশ্ন হলো, নারীর অগ্রগামিতা বাড়লেও নির্যাতন কেন কমছে না? নারী অধিকার সংগঠনগুলোর জোট উই ক্যানের সমন্বয়ক জিনাত আরা হক বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, “অগ্রগামিতা বা অর্থনৈতিক কাজে যুক্ত হলেই নির্যাতন কমবে, ব্যাপারটা এমন নয়। নারীর ক্ষমতায়নের জন্য এগুলো দরকার। কিন্তু নির্যাতন কমাতে দরকার আরও অনেক কিছু। দরকার পরিবারের সমর্থন ও নারীবান্ধব কর্মপরিবেশ। উন্নয়নকে খণ্ডিতভাবে দেখি বলে সমস্যা হচ্ছে।’

তিনি মন্তব্য করেন, ‘নারীর এগিয়ে যাওয়ায় নির্যাতনের ধরনও বদলেছে। আগে নারীর কণ্ঠ ছিল না। এখন যে নারীরা প্রতিবাদ করছে তাকে ভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হতে হচ্ছে। এ নির্যাতনকে মোকাবিলা করার জন্য তার কিছু ‘টুলস’ থাকতে হবে।”

তবে কি অগ্রগামিতা সঠিক স্থানে ঘটেনি? এমন প্রশ্নে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগের শিক্ষক কাবেরী গায়েন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘নারীর অগ্রগামিতা একটি তুলনামূলক শব্দ। কার সাপেক্ষে অগ্রগামী হয়েছে, কিংবা কার সাপেক্ষে হয়নি এ প্রশ্ন আসে। আমি যদি রাশা সুন্দরী দেবীর সময়কাল থেকে বলি, তা হলে অনেক আমরা এগিয়েছি। বাংলাদেশে নারীসমাজ দীর্ঘকাল ধরে কাজ করে আসছে। তবে সেটা ‘ট্যাবু’ সমাজে। আমি মনে করি, গার্মেন্টসে নারীরা যখন কাজ করা শুরু করলেন, আমাদের সামাজিক প্রতিবন্ধকতার যে মিথ ছিল, তা ভেঙে গেলো।’

তিনি মনে করেন, ‘তৃণমূলের চিন্তাধারার পরিবর্তন করা না গেলে কিছুই বদলাবে না। প্রান্তিক অঞ্চলে ছেলেমেয়েদের যেসব প্রণোদনা দেওয়া হতো, সেই স্কিম আবারও চালু হোক। তা না হলে এর ভয়াবহতা প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে যাবে। মেয়েদের বিয়ে হবে অল্প বয়সে। জন্ম নেবে অপুষ্ট সন্তান। সব মিলিয়ে রাষ্ট্র এতো বড় দায়ভার নিতে পারবে না। নারীদের আবার স্কুলে ফেরত নেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।’

কেন নির্যাতন কমছে না?

মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন-এর বনশ্রী মিত্র নিয়োগী মনে করেন, “নারীর এই বেরিয়ে আসাকে সমাজ সহজভাবে নিতে পারেনি। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করছে, ক্ষেত্রবিশেষে পুরুষ সঙ্গীর চেয়ে বেশি আয় করছে, এটাও গ্রহণ করতে চায় না। কাজ করতে আসা নিয়ে আপত্তি নেই; কিন্তু শুনতে হয় ‘সংসার সামলে যদি আয় করতে পারো করো’। নারীকে অর্থনৈতিক কাজে স্বাধীনতার কারণে বাইরে যেতে দিচ্ছি তা নয়, সংসার চালাতে সহায়তা হবে বলে অনুমতি দিচ্ছি।”

বনশ্রী নিয়োগী আরও বলেন, ‘কর্মক্ষেত্রে যাওয়ার পরে আরেক ধরনের নির্যাতনের শিকার হতে হয়। অর্থনৈতিক কাজের গতিশীলতার বাড়ার পরও গৃহস্থালী কাজ ও সেবামূলক কাজের যে বোঝাগুলো বইতে হচ্ছে সেটাও যে নির্যাতন, তা আলাদা করে চিহ্নিত করা হয় না। পাবলিক পরিসরে নির্যাতন বেড়ে যাওয়ার কারণে হচ্ছে, আমরা নারীকে বাইরে দেখতে প্রস্তুত নই। পুরুষ তার প্রয়োজনে নারীকে বের হওয়ার অনুমতি দিচ্ছে, কিন্তু সে তার স্বাধীনতায় বিশ্বাসী নয়। ধর্মান্ধতাও একটা ভূমিকা পালন করছে। দীর্ঘদিন ধরে নারীর অধিকার বিষয়ে ভুল তথ্য দিয়ে তারা সমাজে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।’ 

 

 

 
 
/এফএ/

সম্পর্কিত

গুলশানে ব্যবসায়ীর বহুতল ভবনের নিচে পড়েছিল স্ত্রীর রক্তাক্ত লাশ

গুলশানে ব্যবসায়ীর বহুতল ভবনের নিচে পড়েছিল স্ত্রীর রক্তাক্ত লাশ

রোহিঙ্গা তরুণীর পরিচয়পত্র তৈরি, সাবেক কাউন্সিলরসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা

রোহিঙ্গা তরুণীর পরিচয়পত্র তৈরি, সাবেক কাউন্সিলরসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা

নাসির ও অমির বিরুদ্ধে মাদক আইনেও মামলা হচ্ছে

নাসির ও অমির বিরুদ্ধে মাদক আইনেও মামলা হচ্ছে

অন্তরঙ্গ সম্পর্কের ভিডিও ধারণ করে নারীদের ফাঁদে ফেলতো আতিক

অন্তরঙ্গ সম্পর্কের ভিডিও ধারণ করে নারীদের ফাঁদে ফেলতো আতিক

যাত্রাবাড়ীতে চার মাছ ব্যবসায়ীকে জরিমানা

যাত্রাবাড়ীতে চার মাছ ব্যবসায়ীকে জরিমানা

৪৮ হাজার প্রাথমিক শিক্ষকের আপিল

৪৮ হাজার প্রাথমিক শিক্ষকের আপিল

অবিলম্বে আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের সন্ধান চায় অ্যামনেস্টি

অবিলম্বে আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের সন্ধান চায় অ্যামনেস্টি

গ্রেফতারের আগে যা বললেন নাসির

গ্রেফতারের আগে যা বললেন নাসির

৪৯ মামলার ‘গায়েবি বাদী’কে খুঁজতে সিআইডিকে নির্দেশ হাইকোর্টের

৪৯ মামলার ‘গায়েবি বাদী’কে খুঁজতে সিআইডিকে নির্দেশ হাইকোর্টের

মামলার এজাহারে যা বললেন পরীমণি

মামলার এজাহারে যা বললেন পরীমণি

নাসির মাহমুদসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে পরীমণির মামলা

নাসির মাহমুদসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে পরীমণির মামলা

ভার্চুয়াল আদালতের মাধ্যমে আরও ১৫০১ হাজতির জামিন

ভার্চুয়াল আদালতের মাধ্যমে আরও ১৫০১ হাজতির জামিন

সর্বশেষ

ইউ‌কে-বাংলা প্রেসক্লাবের সভা অনুষ্ঠিত

ইউ‌কে-বাংলা প্রেসক্লাবের সভা অনুষ্ঠিত

উত্তর প্রদেশে হামলার শিকার বয়স্ক মুসলিম, কাটা হলো দাড়ি

উত্তর প্রদেশে হামলার শিকার বয়স্ক মুসলিম, কাটা হলো দাড়ি

আবার এসেছে আশার ‘আষাঢ়’

আবার এসেছে আশার ‘আষাঢ়’

মিসরে মুসলিম ব্রাদারহুডের ১২ সদস্যের মৃত্যুদণ্ড বহাল

মিসরে মুসলিম ব্রাদারহুডের ১২ সদস্যের মৃত্যুদণ্ড বহাল

মেসি গোল পেলেও জিততে পারেনি আর্জেন্টিনা

মেসি গোল পেলেও জিততে পারেনি আর্জেন্টিনা

সন্ত্রাসবাদে অভিযুক্ত কানাডার সেই হামলাকারী

সন্ত্রাসবাদে অভিযুক্ত কানাডার সেই হামলাকারী

গোল মিসের মহড়ায় পয়েন্ট হারালো স্পেন

গোল মিসের মহড়ায় পয়েন্ট হারালো স্পেন

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের ঝুঁকি,  যুক্তরাজ্যে লকডাউন প্রত্যাহার হবে দেরিতে

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের ঝুঁকি, যুক্তরাজ্যে লকডাউন প্রত্যাহার হবে দেরিতে

অবশেষে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ‘তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন’

পরীমণিকে ধর্ষণ-হত্যাচেষ্টাঅবশেষে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ‘তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন’

ইয়াবা-স্বর্ণ ও টাকাসহ তিন রোহিঙ্গা গ্রেফতার

ইয়াবা-স্বর্ণ ও টাকাসহ তিন রোহিঙ্গা গ্রেফতার

বায়ু শক্তিকে উদযাপনের দিন আজ

অপার সম্ভাবনায় গুরুত্ব কমবায়ু শক্তিকে উদযাপনের দিন আজ

স্পর্শকাতর সিদ্ধান্তের মুখে ইসরায়েলের নতুন সরকার

স্পর্শকাতর সিদ্ধান্তের মুখে ইসরায়েলের নতুন সরকার

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গুলশানে ব্যবসায়ীর বহুতল ভবনের নিচে পড়েছিল স্ত্রীর রক্তাক্ত লাশ

গুলশানে ব্যবসায়ীর বহুতল ভবনের নিচে পড়েছিল স্ত্রীর রক্তাক্ত লাশ

নাসির ও অমির বিরুদ্ধে মাদক আইনেও মামলা হচ্ছে

নাসির ও অমির বিরুদ্ধে মাদক আইনেও মামলা হচ্ছে

অন্তরঙ্গ সম্পর্কের ভিডিও ধারণ করে নারীদের ফাঁদে ফেলতো আতিক

অন্তরঙ্গ সম্পর্কের ভিডিও ধারণ করে নারীদের ফাঁদে ফেলতো আতিক

যাত্রাবাড়ীতে চার মাছ ব্যবসায়ীকে জরিমানা

যাত্রাবাড়ীতে চার মাছ ব্যবসায়ীকে জরিমানা

৪৮ হাজার প্রাথমিক শিক্ষকের আপিল

৪৮ হাজার প্রাথমিক শিক্ষকের আপিল

অবিলম্বে আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের সন্ধান চায় অ্যামনেস্টি

অবিলম্বে আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের সন্ধান চায় অ্যামনেস্টি

গ্রেফতারের আগে যা বললেন নাসির

গ্রেফতারের আগে যা বললেন নাসির

৪৯ মামলার ‘গায়েবি বাদী’কে খুঁজতে সিআইডিকে নির্দেশ হাইকোর্টের

৪৯ মামলার ‘গায়েবি বাদী’কে খুঁজতে সিআইডিকে নির্দেশ হাইকোর্টের

মামলার এজাহারে যা বললেন পরীমণি

মামলার এজাহারে যা বললেন পরীমণি

ভার্চুয়াল আদালতের মাধ্যমে আরও ১৫০১ হাজতির জামিন

ভার্চুয়াল আদালতের মাধ্যমে আরও ১৫০১ হাজতির জামিন

© 2021 Bangla Tribune