X
শুক্রবার, ২৩ জুলাই ২০২১, ৮ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

খুনের আতঙ্কে মেহেন্দিগঞ্জ!

আপডেট : ২২ মে ২০২১, ২৩:২১

বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলায় ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের স্থানীয় পর্যায়ে প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে ৪০ দিনের ব্যবধানে ৪টি হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। এ ছাড়া বিভিন্ন সময় আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত হয়েছে আরও অনেকে। ভাংচুর হয়েছে অর্ধশতাধিক ঘরবাড়ি। আর এসব ঘটনায় পাল্টাপাল্টি দোষারোপ করছেন জেলা আওয়ামী লীগের নেতা ও স্থানীয় সংসদ সদস্য পংকজ নাথ।

ভবিষ্যতে আরও হত্যাকাণ্ডের আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী। তারা বলছেন দলীয়ভাবে আলোচনার মাধ্যমে সমাধানে যতো দেরি হবে ততো লাশের সংখ্যা বাড়বে। পুলিশও বলছে সব সমস্যার সমাধান প্রশাসনের হাতে নেই।

বিয়েবাড়িতে ইট নিক্ষেপ থেকে শুরু

গত ২০ এপ্রিল সকাল ১০টায় মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার উলানিয়ার উত্তর ইউনিয়নের সলদি লক্ষ্মীপুর গ্রামে এক তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে দুই ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়। ঘটনার ৩৪ ঘণ্টা পরও কোনও মামলা হয়নি।

ঘটনাটি ঘটেছে এক বিয়ের অনুষ্ঠানে। নিহতরা হলেন, ধুলখোলা ইউনিয়ন যুবলীগের বহিষ্কৃত আহ্বায়ক জামাল ঢালী গ্রুপের সিদ্দিকুর রহমান ও ছত্তার ঢালি। নিহত ছত্তার জামাল ঢালীর চাচাতো ভাই এবং সিদ্দিক ওই বাড়িতে কাজ করেন।

স্থানীয়রা জানায়, ধুলখোলা ই্উনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জামাল ঢালী (জেলা আওয়ামী লীগের অনুসারী) আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী (স্বতন্ত্র) এবং ধুলখোলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কালাম বেপারী (পংকজ নাথের অনুসারী) নৌকার প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেন।

নির্বাচনে দুজনই পরাজিত হন। জয়ী হন বিএনপি প্রার্থী। সেই থেকে দ্বন্দ্বের শুরু। কিছু ঘটলেই দুই পক্ষের অনুসারীরা জড়িয়ে পড়ে সংঘর্ষে।

জামাল ঢালীর পাশের বাড়িতেই তার বোনের মেয়ের বিয়ের অনুষ্ঠান হচ্ছিল। কে বা কারা ওই বিয়ের বাড়িতে ইট নিক্ষেপ করতে শুরু করে। বিষয়টি জামাল ঢালী জানতে পেরে দলবল নিয়ে কালাম বেপারীর বাড়িতে হামলা চালায়। কালাম ও তার লোকজন পাল্টা হামলা চালালে ঘটনাস্থলেই মারা যান সিদ্দিকুর রহমান। বেশ কয়েকজন আহন হন। এদের মধ্যে ছত্তার ঢালী নামের এক ব্যক্তি গুরুতর আহত হন। বরিশাল নেওয়ার পথে তিনিও মারা যান।

১১ এপ্রিল মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ উলানিয়া ইউনিয়নের সুলতানী গ্রামে আওয়ামী লীগ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে আধিপত্য বিস্তারের জেরে সংঘর্ষে দুইজন নিহত হন। আহত হয়েছেন কমপক্ষে ১০ জন। সংঘর্ষে ১০/১২টি ঘর ও দোকানপাট ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

নিহতরা হচ্ছেন, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রুমা বেগমের সমর্থক সাইফুল সরদার (জেলা আওয়ামী লীগের অনুসারী) ও আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী মিলন চৌধুরীর চাচাতো ভাই সাঈদ চৌধুরী (পংকজ নাথের অনুসারী)।

স্থানীয়রা জানান, উলানিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তারেক সরদার ও তার লোকজনদের সঙ্গে মিলন চৌধুরী, মিজান মোল্লা, নোমান মোল্লাদের দীর্ঘদিনের বিরোধ চলছে। যাকে কেন্দ্র করে উভয়পক্ষের মধ্যে একাধিক হামলা-মামলার ঘটনাও ঘটেছে।

এরই ধারাবাহিকতায় ঘটনার দিন ভোররাতে মিলন চৌধুরী, মিজান মোল্লা, নোমান মোল্লার নেতৃত্বে শতাধিক কথিত সন্ত্রাসী ধারালো অস্ত্র নিয়ে কালীগঞ্জ বাজার এবং আশপাশের এলাকার বাড়িঘরে অতর্কিতে হামলা চালায়।

এ সময় ধারালো অস্ত্রের কোপে সাইফুল ইসলাম নিহত এবং ১০/১২ জন আহত হন। এ সময় সন্ত্রাসীরা কয়েকটি বাড়ি ভাংচুর করে মালামাল লুট করে।

দক্ষিণ উলানিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান লিটন বলেন, রাত ৪টার দিকে কয়েক শ’লোক একত্রিত হয়ে দেশি অস্ত্র দিয়ে ওই গ্রামে হামলা চালায়। হামলাকারীরা এলাকার দোকান ও ঘরবাড়ি ভাংচুর করে। এলাকার বাসিন্দারা প্রতিরোধ করতে গেলে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে দু’পক্ষের দু’জন মারা যান। কমপক্ষে ১০-১২ জন আহত হন।

হামলাকারীরা উলানিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা। তারা চেয়ারম্যান প্রার্থী মিলন চৌধুরীর লোক বলে দাবি করেন হাবিবুর রহমান লিটন।

গত বছর ৪ ডিসেম্বর মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ উলানিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থক ও পুলিশের মধ্যে ত্রিমুখী সংঘর্ষে তিন পুলিশ সদস্যসহ ৩৩ জন আহত হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে ওই সময় পুলিশ ৪৬ রাউন্ড গুলি বর্ষণ করে। দুই পক্ষের সাতজনকে গ্রেফতার করা হয়। সংঘর্ষে আহত ১০ জনকে শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

একই বছরের ৭ ডিসেম্বর উলানিয়া উত্তর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ নেতাসহ ৪ জনকে কুপিয়ে-পিটিয়ে জখম করা হয। এ সময় স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের বাড়িঘর ভাংচুর ও মালামাল লুট করার অভিযোগ রয়েছে।

৮ ডিসেম্বর উলানিয়ার পশ্চিম সুলতানী ও যাদুয়া গ্রামে আনারস মার্কার (বিদ্রোহী) প্রার্থীর নেতৃত্বে নৌকার সমর্থকদের ওপর হামলা চালানো হয়। এতে নৌকার সমর্থকদের ১৯টি বাড়ি, ২টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুরসহ ধারালো অস্ত্রের কোপে ২০ জন আহত হন।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে আওয়ামী লীগের এক প্রবীণ নেতা বলেন, এখানে আওয়ামী লীগের একটি গ্রুপকে সরাসরি মদদ দিচ্ছে জেলা আওয়ামী লীগ। অপর গ্রুপটি নিয়ন্ত্রণ করছেন এমপি পংকজ নাথ। এ কারণে পংকজ নাথ জেলার নেতাদের গুরুত্ব দিচ্ছেন না। একইভাবে জেলার নেতারাও পংকজ নাথকে উপেক্ষা করায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

ওই নেতা আরও বলেন, তৃণমূল আওয়ামী লীগের দাবি উপেক্ষা করে গত ৬ ডিসেম্বর উলানিয়া করোনেশন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠে বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের নেতারা এক জনসভায় প্রকাশ্যে সংসদ সদস্য পংকজ নাথের বিরুদ্ধে উস্কানিমূলক বক্তব্য দেন। এর পরেই উলানিয়া ইউনিয়নে চলতে থাকে হামলা-পাল্টা হামলা।

কেউই আলোচনায় আগ্রহী নয়

সচেতন নাগরিক কমিটির (সনাক) সভাপতি অধ্যাপক শাহ সাজেদা বলেন, আওয়ামী লীগ তাদের ক্ষমতা বিস্তারে তুচ্ছ ঘটনায় ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ছে। যার ফলাফল একটি পর একটি হত্যাকাণ্ড।

সাধারণ মানুষ সারাক্ষণ আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে। সামান্য হাঁকডাক শুনলেই মানুষ এখন নিরাপদ আশ্রয়ে ছুটছে। গতবছরের ডিসেম্বর থেকে এ ধরনের সংঘর্ষ ঘটতে থাকলেও সংসদ সদস্য থেকে শুরু করে জেলা আওয়ামী লীগের কাউকে কোনও উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি। কেন্দ্র থেকে উদ্যোগ নিয়ে স্থানীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে সমঝোতা বৈঠক করলে চারটি মানুষকে স্বজনরা হারাতো না।

এ ব্যাপারে বরিশালের জেলা পুলিশ সুপার মারুফ হাসান বলেন, রাজনৈতিক ও স্থানীয় প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করেই এ চার হত্যাকাণ্ড। এ ধরনের ঘটনার যাতে পুনরাবৃত্তি না হয় সে জন্য দুই ইউনিয়নে দুটি পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপন করা হয়েছে।

মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি খোরশেদ আলম ভুলু বলেন, স্থানীয়ভাবে এ সমস্যার সমাধান সম্ভব নয়। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সম্পাদকদের হস্তক্ষেপ দরকার। না হলে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হবে।

এ সকল ঘটনার জন্য সংসদ সদস্য পংকজ নাথকে দায়ী করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি তালুকদার মো. ইউনুস। জবাবে পংকজ নাথ বলেন, ‘গতবছর সাত ডিসেম্বর উলানিয়ায় তালুকদার ইউনুস উস্কানিমূলক বক্তব্য দেওয়ার পর থেকেই রক্তারক্তির শুরু মেহেন্দিগঞ্জে। ইউনুস, বরিশাল জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মঈদুল ইসলাম এবং মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাড. আফজালুল করিমের ইন্ধনে ওই চার হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে। তারা মেহেন্দিগঞ্জে আওয়ামী লীগ ধ্বংস করে বিএনপিকে প্রতিষ্ঠিত করতে চায়। এ জন্য সড়ক দুর্ঘটনা এবং জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধে নিহত হওয়ার বিষয়গুলোকে হত্যাকাণ্ড বানিয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে হয়রানি করছে।’

/এফএ/

সম্পর্কিত

বিয়ের রাত কাটলো লঞ্চের ডেকে

বিয়ের রাত কাটলো লঞ্চের ডেকে

উপহারের ঘর তৈরিতে নামমাত্র নির্মাণসামগ্রী

উপহারের ঘর তৈরিতে নামমাত্র নির্মাণসামগ্রী

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১৫ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১৫ মৃত্যু

যশোরে যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা

যশোরে যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা

মাছের ড্রামের ভেতরে লুকিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলেন তারা

আপডেট : ২৩ জুলাই ২০২১, ২২:৪৬

করোনাভাইরাস রোধে সরকার আরোপিত কঠোর লকডাউনে জরুরি পণ্য পরিবহনের কাজে নিয়োজিত যানবাহন ছাড়া অন্যান্য যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে মাছের ড্রামের ভেতরে ঢুকে পিকআপে চড়ে রাজধানী থেকে ময়মনসিংহ যাচ্ছিলেন ১০ যাত্রী।

শুক্রবার (২৩ জুলাই) সকালে ঢাকা থেকে রওনা হয় পিকআপটি। এটির মাছের ড্রামে থাকা মানুষগুলো আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের চোখ ফাঁকি দিয়ে মহাসড়কের বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ চেকপোস্ট পার হলেও গাজীপুরের রাজেন্দ্রপুরে এসে পুলিশের হাতে ধরা পড়েন।

পিকআপটি দেখে রাজেন্দ্রপুরে কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশের সন্দেহ হলে দাঁড় করিয়ে তল্লাশি চালিয়ে মাছের ড্রামে লুকিয়ে থাকা যাত্রীদের বের করে আনা হয়। পরে তাদের ছেড়ে দেওয়া হলেও পিকআপ চালকের বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনে মামলা দায়ের করা হয়।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন ট্রাফিক পুলিশের এসি (উত্তর) মেহেদী হাসান জানান, লকডাউনে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের রাজেন্দ্রপুর চৌরাস্তায় চেকপোস্ট বসিয়ে বিভিন্ন গাড়িতে তল্লাশি চালায় ট্রাফিক পুলিশ। এ সময় ঢাকা থেকে ময়মনসিংহগামী একটি মাছের ড্রাম ভর্তি পিকআপ দেখে সন্দেহ হলে থামিয়ে তল্লাশি করা হয়। পিকআপে থাকা মাছের ড্রামের ভেতর থেকে ১০ জন যাত্রীকে বের করে আনা হয়। পরে যাত্রীদের নামিয়ে ছেড়ে দেওয়া হলেও চালকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

এদিকে, লকডাউনের প্রথম দিনে গাজীপুরের সড়কগুলোতে হালকা যানবাহন ছাড়া অন্য কোনও যানবাহন চলাচল করতে দেখা যায়নি। মহাসড়কের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে মোড়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়।

/এফআর/

সম্পর্কিত

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন ২৫ জন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন ২৫ জন

চাকরির প্রলোভনে টঙ্গীতে তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ

চাকরির প্রলোভনে টঙ্গীতে তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ

বিয়ের রাত কাটলো লঞ্চের ডেকে

বিয়ের রাত কাটলো লঞ্চের ডেকে

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন ২৫ জন

আপডেট : ২৩ জুলাই ২০২১, ২১:৪৩

করোনাভাইরাস রোধে সরকার আরোপিত কঠোর লকডাউন উপেক্ষা করে ঈদ পরবর্তী বিনোদনের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়ার একটি রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনেছেন ২৫ নারী-পুরুষ। শুক্রবার (২৩ জুলাই) দুপুরে জেলার কসবা উপজেলার কুটি ইউনিয়নের কাঠের পুল এলাকায় ‘কিং অব কসবা’ নামক রিসোর্টে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে তাদের জরিমানা করা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন কসবা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হাসিবা খান। তিনি বলেন, ‘সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে প্রশাসন কাজ করে যাচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে আজ দুপুরে কিং অফ কসবা রিসোর্টে ঘোরাঘুরি করতে আসা ২৫ জনকে ছয় হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘লকডাউন বাস্তবায়নে আমরা প্রচার-প্রচারণা ও মাস্ক বিতরণের মাধ্যমে মানুষকে সচেতন করছি। আমাদের এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।’

অভিযানকালে সেনাবাহিনীসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

/এফআর/

সম্পর্কিত

মাছের ড্রামের ভেতরে লুকিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলেন তারা

মাছের ড্রামের ভেতরে লুকিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলেন তারা

বিয়ের রাত কাটলো লঞ্চের ডেকে

বিয়ের রাত কাটলো লঞ্চের ডেকে

লকডাউন অমান্য করায় ব্যবসায়ীর ৭ দিনের জেল

লকডাউন অমান্য করায় ব্যবসায়ীর ৭ দিনের জেল

মদপানে ২ জনের মৃত্যু, হাসপাতালে ৫

আপডেট : ২৩ জুলাই ২০২১, ২০:৫৪

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে মদপানে দুই যুবকের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন আরও পাঁচজন।

মৃতরা হলেন- মেহেদী হাসান সোহাগ (৩২) ও তৌফিকুজ্জামান সৈকত (৩০)। এর মধ্যে শুক্রবার (২৩ জুলাই) সকাল ১১টায় বগুড়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় সোহাগের। বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) রাত ১০টার দিকে হাসপাতালে নেওয়ার সময় মারা যান সৈকত।

সোহাগ গোবিন্দগঞ্জ পৌর শহরের চক গোবিন্দ পাঠানপাড়ার আলমগীর হোসেন প্রধানের ছেলে এবং সৈকত চক গোবিন্দ ঝিলপাড়ার মোশারফ হোসেনের ছেলে।

আহতরা হলেন- চক গোবিন্দ পশ্চিম চৌমাথা এলাকার নুরুল ইসলামের ছেলে রানা (৩২), সাজু মিয়ার ছেলে রানা (২৮), মৃত বাদল চন্দ্রের ছেলে বাঁধন সরকার (২৬), বাপ্পী (২৮) ও অভি (৩০)। 

বিষয়টি নিশ্চিত করে গোবিন্দগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) তাজুল ইসলাম জানান, মারা যাওয়ার কারণ উদ্ধারে পুলিশ তদন্তে নেমেছে। তবে মৃতদের পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় কোনও অভিযোগ করা হয়নি।

এ বিষয়ে মেহেদী ও সৈকতের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তারা বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে রাজি হয়নি। স্থানীয়রা জানান, সোহাগ, সৈকতসহ অসুস্থরা বৃহস্পতিবার রাতে একসঙ্গে বসে মদপান করেন। মদপানের প্রায় দুই ঘণ্টা পর তারা অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাদেরকে স্থানীয় হাসপাতালে নেওয়া হলে রাতে সৈকত এবং আজ সকালে সোহাগের মৃত্যু হয়। অসুস্থ অন্যরা বগুড়ার শজিমেক ও রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

গোবিন্দগঞ্জ হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. শরিফুল ইসলাম জানান, সোহাগ, সৈকত ও রানা নামের তিন যুবককে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। অ্যালকোহল জাতীয় কিছু পান করার ফলে তারা অসুস্থ হয়ে পড়েন।

/এফআর/

সম্পর্কিত

লকডাউন অমান্য করায় ব্যবসায়ীর ৭ দিনের জেল

লকডাউন অমান্য করায় ব্যবসায়ীর ৭ দিনের জেল

ময়লার ভাগাড় ও রাস্তায় পড়ে আছে চামড়া

ময়লার ভাগাড় ও রাস্তায় পড়ে আছে চামড়া

রংপুরে আরও ১৫ মৃত্যু, খালি নেই আইসিইউ বেড

রংপুরে আরও ১৫ মৃত্যু, খালি নেই আইসিইউ বেড

রেজিস্ট্রার অফিসের বারান্দায় সন্তান প্রসব!

রেজিস্ট্রার অফিসের বারান্দায় সন্তান প্রসব!

চাকরির প্রলোভনে টঙ্গীতে তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ

আপডেট : ২৩ জুলাই ২০২১, ২০:৩১

গাজীপুরের টঙ্গীতে চাকরির প্রলোভনে এক তরুণীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ওই তরুণী শুক্রবার (২৩ জুলাই) দুপুরে টঙ্গী পূর্ব থানায় একটি মামলা করেছেন।

এর আগে, বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে টঙ্গীর ভরান এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। টঙ্গী পূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাবেদ মাসুদ মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলার অভিযুক্ত আসামিরা হলো- টঙ্গীর ভরান এলাকার জয় (২৫), সৈকত (২৬) এবং তাদের এক সহযোগী।

মামলার এজাহারের বরাত দিয়ে ওসি জাবেদ মাসুদ জানান, বৃহস্পতিবার রাজধানীর উত্তরার একটি রেস্টুরেন্টে ভুক্তভোগীর সঙ্গে অভিযুক্তদের পরিচয় হয়। পরিচয়ের সূত্র ধরে চাকরি দেওয়ার কথা বলে ওই তরুণীকে টঙ্গীতে আসতে বলে অভিযুক্তরা। রাত সাড়ে ১২টায় টঙ্গীর ভরান এলাকায় গেলে স্থানীয় সাদিয়া ফার্নিচারের গোডাউনের পেছনে নিয়ে তরুণীকে জোরপূর্বক সংঘবদ্ধ ধর্ষণ করে।

তিনি আরও জানান, সকালে অভিযুক্তরা ভুক্তভোগীকে ফেলে রেখে চলে যায়। ভুক্তভোগীর লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে আজ দুপুরে মামলা নেওয়া হয়েছে। তাকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

মাছের ড্রামের ভেতরে লুকিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলেন তারা

মাছের ড্রামের ভেতরে লুকিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলেন তারা

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে চলছে হালকা যানবাহন

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে চলছে হালকা যানবাহন

বিয়ের রাত কাটলো লঞ্চের ডেকে

আপডেট : ২৩ জুলাই ২০২১, ১৯:৫৫

ঈদের পরদিন বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) বিয়ে করেছেন মো. রাসেল ও সোনিয়া আক্তার। কিন্তু করোনা রোধে শুক্রবার (২৩ জুলাই) থেকে সরকার আরোপিত কঠোর লকডাউন শুরু হওয়ায় বিয়ের রাতে কর্মস্থলে ফিরতে নববধূকে নিয়ে লঞ্চের ডেকে বসেই ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন বরিশালের উজিরপুর উপজেলার ওটরা ইউনিয়নের বাসিন্দা রাসেল। এতে করে বর-কনের সাজে তাদের বিয়ের রাত কেটেছে লঞ্চের ডেকে।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাতেই পারাবত-১০ লঞ্চের চতুর্থতলায় লঞ্চ মাস্টারের সামনের খোলা জায়গায় চাদর বিছিয়ে সেখানেই সারারাত কাটিয়ে দেন এ নবদম্পতি। রোজার ঈদের সময় রাসেল ও সোনিয়ার দেখাদেখি শেষে বিয়ের পাকা কথা হয়। বিয়ের তারিখ নির্ধারণ করা হয় ঈদুল আজহার পরদিন। সিদ্ধান্ত ছিল, করোনার কারণে হাতেগোনা কয়েকজনের উপস্থিতিতে বিয়ে হবে। আর লকডাউনের কারণে আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে নবদম্পতি চলে যাবে ঢাকায়।

ঢাকার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করা রাসেল বলেন, ‘বসের সাফ কথা, কর্মস্থলে উপস্থিত থাকতে হবে। এ কারণে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে কোনোভাবে খাবার খেয়ে ঢাকায় যেতে বরিশাল নৌবন্দরে চলে আসি। কারণ মারাত্মক ভিড় হবে তাই আগেভাগেই আন্দাজ করেছি। বিকেলের মধ্যে বরিশাল নৌবন্দরে পৌঁছে পারাবত-১০ লঞ্চে উঠি। এর পূর্বে ঘাটে থাকা প্রতিটি লঞ্চে কেবিনের খোঁজ নিয়েছি। এমনকি স্টাফ কেবিনও খুঁজেছি। কিন্তু কোনও কিছুই ছিল না। ডেক থেকে শুরু করে ছাদেও যাত্রী ছিল। কোনোভাবে জায়গা ব্যবস্থা করতে না পেরে পারাবত লঞ্চের সারেংয়ের সামনে চাদর বিছিয়ে জায়গা করে নেই।’

রাসেল বলেন, ‘স্ত্রী বিয়ের কাপড়ে থাকায় বেশিরভাগ যাত্রীর দৃষ্টি ছিল আমাদের দিকে। বিয়ে করেই লঞ্চে ওঠার বিষয়টি সবাই বুঝতে পারে। এ নিয়ে একাধিক প্রশ্নের সম্মুখীনও হতে হয়েছে আমাকে। অনেকে আবার আস্তে আস্তে বলছিল, লকডাউনের মধ্যে বিয়ে। বিষয়গুলোর আমার কানে এলেও চুপচাপ থাকি।’

শুক্রবার ভোরবেলা সদরঘাট পৌঁছান তারা। হাসি দিয়ে সুমন বললেন, ‘বিয়ের রাতের ভিন্ন এক অভিজ্ঞতা হলো আমাদের দুইজনের।’

পারাবত-১০ লঞ্চের সুপারভাইজার মোখলেচুর রহমান বলেন, ‘আমারও তাদের কেবিন দেওয়ার চেষ্টা করেছি। কিন্তু এত যাত্রীর চাপ, এর মধ্যে কোনোভাবেই কেবিনের ব্যবস্থা করা যায়নি।’

/এফআর/

সম্পর্কিত

মাছের ড্রামের ভেতরে লুকিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলেন তারা

মাছের ড্রামের ভেতরে লুকিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলেন তারা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন ২৫ জন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন ২৫ জন

লকডাউন অমান্য করায় ব্যবসায়ীর ৭ দিনের জেল

লকডাউন অমান্য করায় ব্যবসায়ীর ৭ দিনের জেল

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে চলছে হালকা যানবাহন

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে চলছে হালকা যানবাহন

সম্পর্কিত

লকডাউনে সীমিত পরিসরে চলবে হাইকোর্টের বিচার

লকডাউনে সীমিত পরিসরে চলবে হাইকোর্টের বিচার

বিয়ের রাত কাটলো লঞ্চের ডেকে

বিয়ের রাত কাটলো লঞ্চের ডেকে

দারুসসালামে ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার দুই বোন কারাগারে

দারুসসালামে ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার দুই বোন কারাগারে

উপহারের ঘর তৈরিতে নামমাত্র নির্মাণসামগ্রী

উপহারের ঘর তৈরিতে নামমাত্র নির্মাণসামগ্রী

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১৫ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১৫ মৃত্যু

যশোরে যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা

যশোরে যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা

এক ঘণ্টায় ছাড়লো ১১টি লঞ্চ, যাত্রী কানায় কানায় পূর্ণ

এক ঘণ্টায় ছাড়লো ১১টি লঞ্চ, যাত্রী কানায় কানায় পূর্ণ

জয়পুরহাট থেকে ফেনসিডিল নিয়ে মিতু-রিতুর ঢাকা যাত্রা

জয়পুরহাট থেকে ফেনসিডিল নিয়ে মিতু-রিতুর ঢাকা যাত্রা

মগবাজার বিস্ফোরণ তিতাসের লিকেজ থেকেই: পুলিশ

মগবাজার বিস্ফোরণ তিতাসের লিকেজ থেকেই: পুলিশ

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১১ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১১ মৃত্যু

‘২০০ টাকায় কেনা চামড়ার দাম ২০০, বাড়ি যামু কী নিয়া’

‘২০০ টাকায় কেনা চামড়ার দাম ২০০, বাড়ি যামু কী নিয়া’

২৪ ঘণ্টায় শের-ই-বাংলা মেডিক্যালে ১৫ জনের মৃত্যু

২৪ ঘণ্টায় শের-ই-বাংলা মেডিক্যালে ১৫ জনের মৃত্যু

সর্বশেষ

৫ বছর পর হার, কারণটা জানালেন মাহমুদউল্লাহ 

৫ বছর পর হার, কারণটা জানালেন মাহমুদউল্লাহ 

মাছের ড্রামের ভেতরে লুকিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলেন তারা

মাছের ড্রামের ভেতরে লুকিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলেন তারা

বৌদ্ধ অধ্যুষিত তিব্বতে চীনের প্রেসিডেন্ট!

বৌদ্ধ অধ্যুষিত তিব্বতে চীনের প্রেসিডেন্ট!

লকডাউনে সীমিত পরিসরে চলবে হাইকোর্টের বিচার

লকডাউনে সীমিত পরিসরে চলবে হাইকোর্টের বিচার

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

ঈদে হাজী দানেশের বিদেশি শিক্ষার্থীদের ভিন্নরকম অভিজ্ঞতা

ঈদে হাজী দানেশের বিদেশি শিক্ষার্থীদের ভিন্নরকম অভিজ্ঞতা

সংক্রমণ ঠেকাতে ফাইজারের কার্যকারিতা কমছে: ইসরায়েলের গবেষণা

সংক্রমণ ঠেকাতে ফাইজারের কার্যকারিতা কমছে: ইসরায়েলের গবেষণা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন ২৫ জন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন ২৫ জন

হেরাতে তালেবান ঠেকানোর লড়াইয়ের নেতৃত্বে সাবেক মুজাহিদিন কমান্ডার

হেরাতে তালেবান ঠেকানোর লড়াইয়ের নেতৃত্বে সাবেক মুজাহিদিন কমান্ডার

করোনার মাঝেও অলিম্পিকের বর্ণাঢ্য উদ্বোধন

করোনার মাঝেও অলিম্পিকের বর্ণাঢ্য উদ্বোধন

অলিম্পিক গেমস উপলক্ষে গুগলের ডুডল

অলিম্পিক গেমস উপলক্ষে গুগলের ডুডল

দ্বিতীয় ঢেউয়েও বাংলাদেশের অর্থনীতির ঘুরে দাঁড়ানো অব্যাহত: এডিবি

দ্বিতীয় ঢেউয়েও বাংলাদেশের অর্থনীতির ঘুরে দাঁড়ানো অব্যাহত: এডিবি

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

বিয়ের রাত কাটলো লঞ্চের ডেকে

বিয়ের রাত কাটলো লঞ্চের ডেকে

উপহারের ঘর তৈরিতে নামমাত্র নির্মাণসামগ্রী

উপহারের ঘর তৈরিতে নামমাত্র নির্মাণসামগ্রী

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১৫ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১৫ মৃত্যু

যশোরে যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা

যশোরে যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা

এক ঘণ্টায় ছাড়লো ১১টি লঞ্চ, যাত্রী কানায় কানায় পূর্ণ

এক ঘণ্টায় ছাড়লো ১১টি লঞ্চ, যাত্রী কানায় কানায় পূর্ণ

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১১ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১১ মৃত্যু

‘২০০ টাকায় কেনা চামড়ার দাম ২০০, বাড়ি যামু কী নিয়া’

‘২০০ টাকায় কেনা চামড়ার দাম ২০০, বাড়ি যামু কী নিয়া’

২৪ ঘণ্টায় শের-ই-বাংলা মেডিক্যালে ১৫ জনের মৃত্যু

২৪ ঘণ্টায় শের-ই-বাংলা মেডিক্যালে ১৫ জনের মৃত্যু

ভ্যানের চাকায় ওড়না পেঁচিয়ে শিক্ষিকার মৃত্যু

ভ্যানের চাকায় ওড়না পেঁচিয়ে শিক্ষিকার মৃত্যু

১৫ জেলায় ঈদ উদযাপন

১৫ জেলায় ঈদ উদযাপন

© 2021 Bangla Tribune