X
শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ৬ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

ভারতের পাটবীজের ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে নতুন প্রকল্প

আপডেট : ২৫ মে ২০২১, ১০:০০

সরকার পাটবীজ সরবরাহে ভারতের ওপর নির্ভরশীলতা কমানোর উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। আগামী ৫ বছরেই পাটবীজে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে চায় বাংলাদেশ। অর্থাৎ ২০২৫ সালের মধ্যে পটবীজে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করেছে কৃষি মন্ত্রণালয়। প্রতিবছর ভারত থেকে চাহিদার ৮৫ থেকে ৯০ শতাংশ পাটবীজ আমদানি করে বাংলাদেশ। যার পরিমাণ সাড়ে ৪ হাজার টন। আগামী ২০২১-২২ অর্থবছর থেকে ২০২৫-২৬ এই ৫ বছরের মধ্যে দেশে ৪ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন পাটবীজ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এই পাটবীজ উৎপাদনের জন্য ৮ হাজার ৭৮০ হেক্টর জমিতে চাষের প্রয়োজন হবে।-কৃষি মন্ত্রণালয় সূত্রে এমন তথ্য জানা গেছে।

কৃষি মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, পাটআঁশ এবং পাটবীজ ফসল দুইটি আলাদা ফসল। পাটবীজ রবি মৌসুমের (আগষ্ট-ডিসেম্বর) ফসল। তোষা পাটবীজ সাধারণত আগস্ট-ডিসেম্বর মাসের ফসল। এ সময়ে উচ্চমূল্যের রবি ফসলের পরিবর্তে কৃষক পাটবীজ উৎপাদনে আগ্রহী হয় না। দেশে মূলত দেশি ও তোষা এ দুই জাতের পাটের চাষ হয়। বর্তমানে ১৫ শতাংশ দেশি পাট ও ৮৫ শতাংশ তোষা পাট উৎপন্ন হয়। তোষা পাটবীজের চাহিদার প্রায় ৮৫-৯০ শতাংশ ভারত থেকে আমদানিকৃত জেআরও-৫২৪ জাতের মাধ্যমে মেটানো হয়।

অথচ, জিনোম গবেষণার মাধ্যমে বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনস্টিটিটউট (বিজেআরআই) উদ্ভাবিত পাটের জাত রবি-১ (তোষা পাট-৮) এর ফলন জেআরও-৫২৪ জাতের চেয়ে ১০-১৫ শতাংশ বেশি। এটি ফরিদপুর ও যশোর অঞ্চলের কৃষকের মধ্যে ব্যাপক আগ্রহের সৃষ্টি করেছে। যথাযথভাবে রবি-১ পাট জাতকে সম্প্রসারণের মাধ্যমে পাট বীজে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করা সম্ভব হবে বলে মনে কৃষি মন্ত্রণালয়।

সূত্র জানায়, পাটবীজ উৎপাদনের মৌলিক ধাপ তিনটি। এগুলো হচ্ছে- ১. প্রজনন বীজ। ২. ভিত্তি বীজ ও ৩. প্রত্যায়িত বীজ। প্রথমত প্রজননবিদের সরাসরি তত্ত্বাবধানে উৎপাদিত শতভাগ কৌশলিত্বাত্তিক দিক থেকে বিশুদ্ধ বীজকেই প্রজনন বীজ নামে পরিচিত। দ্বিতীয়ত প্রজনন বীজকে বাড়িয়ে যে বীজ পাওয়া যায় তাকে বলা হয় ভিত্তি বীজ। সরাসরি বা গবেষণা খামারে গবেষক বা কৃষিতত্ত্ববিদ এবং বীজ প্রত্যায়ন এজেন্সির কর্মকর্তাদের তত্ত্বাবধানে এই বীজ উৎপাদন করা হয়। তৃতীয়ত, ভিত্তিবীজ বর্ধিত করে যে বীজ পাওয়া যায় তাকে বলা হয় প্রত্যায়িত বীজ। এই বীজই কৃষকদের মাঝে চাষের জন্য বিতরণ করা হয়। বীজ প্রত্যায়ন এজেন্সি এই বীজের সনদ প্রদান করে।

কৃষি মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, বর্তমানে দেশে ৬ থেকে ৭ লাখ হেক্টর জমিতে সব মিলিয়ে প্রতিবছর ৭০ থেকে ৭৫ লাখ বেল পাট উৎপাদন হয়। দেশি, ও তোষা এই দুই জাতের পাট চাষ করা হয়। তবে কেনাফ ও মেসতা জাতের পাটও বাংলাদেশে চাষ করা হয়। যার মান ততটা উন্নত নয়। বাংলাদেশে এই পরিমাণ পাট উৎপাদনে পাটবীজের প্রয়োজন ৬ থেকে ৭ হাজার মেট্রিক টন। চাহিদার ৮৫ থেকে ৯০ শতাংশ পাটবীজ আমদানি করা হয় ভারত থেকে। এর মধ্যে তোষাপাট উন্নত জাতের হওয়ায় এর চাহিদা ব্যাপক। যা জেআর-৫২৪ জাতের পাট নামে পরিচিত।

সূত্র জানিয়েছে, উচ্চ ফলনশীল বিজেআরআই রবি-১ জাতটি পাটচাষিদের মধ্যে জনপ্রিয়করণের লক্ষ্যে গত ২০২০ সালের পাট মৌসুমে কৃষি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর এবং পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট এর তত্বাবধানে দেশের বিভিন্ন এলাকায় ৩ হাজার ৪০০টি প্রদর্শনী প্লট স্থাপন এবং পাটচাষিদের নিয়ে দেশের বিভিন্ন এলাকায় মাঠ দিবস পালন করা হয়েছে। এসব কর্মসূচিতে কৃষকদের কাছ থেকে ব্যাপক সাড়া পাওয়ায় গেছে বলে নিজস্ব পাটের নতুন জাত রবি-১ (বিজেআরআই তোষা-৮) কে কার্যকরভাবে সম্প্রসারিত করা সম্ভব বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। এ কারণেই ৫ বছরের জন্য রোডম্যাপ তৈরি করেছে কৃষি মন্ত্রণালয়।

জানা গেছে, অন্য ফসলের তুলনায় কম লাভজনক হওয়ায় কৃষকেরা পাটবীজ চাষ করতে চায় না। কৃষকরা মনে করে পাট বীজ উৎপাদনের চেয়ে বাজার থেকে কিনে আনাই লাভজনক। উচ্চমূল্যের রবি ফসলের দাম বেশি পায় বলে কৃষক পাটবীজ উৎপাদনে তেমন আগ্রহী হয় না। হিসেব করে দেখা গেছে, তোষা পাটবীজ চাষ করে একর প্রতি কৃষকের নীট লাভ ৪৮ হাজার টাকা, একই জমিতে ফুলকপি চাষে ৩ লাখ ৮০ হাজার টাকা, বাধাকপি চাষে ১ লাখ ৮৫ হাজার টাকা নীট লাভ হয়।

কৃষি মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এ কারণেই পাটবীজে কৃষকদের আগ্রহী করতে ভর্তুকি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এজন্য অন্যের ওপর নির্ভরশীল না থেকে পাটবীজ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে সমন্বিত উদ্যোগও গ্রহণ করা হয়েছে। চলতি ২০২১ সালের ৭ জানুয়ারি কৃষি মন্ত্রণালয় ‘উচ্চফলনশীল পাটবীজ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে রোডম্যাপ বাস্তবায়ন’ বিষয়ে মতবিনিময় সভাও অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই সভায় পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী ও মন্ত্রণালয়ের সেই সময়কালের সচিব লোকমান হোসেন মিয়া বর্তমানে (স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে কর্মরত) এবং বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব মো. নাসিরুজ্জামান সংযুক্ত ছিলেন। সভাটি সঞ্চালনা করেন বর্তমান কৃষিসচিব মেসবাহুল ইসলাম।

কৃষি মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, বাংলাদেশে বছরে কৃষক পর্যায়ে প্রত্যায়িত পাট বীজের চাহিদা ৫ হাজার ২১৫ মেট্রিক টন। আর চাহিদার বিপরীতে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি) সরবরাহ করে ৭৭৫ মেট্রিক টন (এর মধ্যে তোষা পাট ৫১৫ টন ও দেশি পাট ২৬০ টন)। তোষা পাটবীজের প্রায় পুরোটাই ভারত থেকে আমদানি করা হয়। এই বিদেশ নির্ভরতা কমিয়ে পাটবীজে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ার জন্যই কৃষি মন্ত্রণালয় ৫ বছর মেয়াদী কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করেছে। আগামী ২০২১-২২ অর্থবছর থেকে ২০২৫-২৬ এই ৫ বছরের মধ্যে দেশে ৪ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন পাটবীজ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এই তোষা পাটবীজ উৎপাদনের জন্য ৮ হাজার ৭৮০ হেক্টর জমিতে চাষের প্রয়োজন হবে।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের বীজ অণুবিভাগ সূত্রে জানা গেছে, কোনও এক সময় দেশের কৃষকরাই পাট ক্ষেতের একাংশ পাট বীজ উৎপাদনের জন্য রাখতো। এ পদ্ধতিতে বীজ সংগ্রহে সময় লাগে ১০ থেকে ১১ মাস। এই সমস্যা সমাধানে বিজেআরআই ‘নাবী পাট বীজ উৎপাদন প্রযুক্তির’ মাধ্যমে বছরের সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর মাত্র এই চার মাসে উন্নত মানের বীজ উৎপাদনে সক্ষম। কিন্তু এই সময়ে রবিশস্য রেখে পাটবীজ চাষে আগ্রহী হয় না। এ কারণে দেশে তোষাপাট বীজ উৎপাদন বাড়েনি। এ কারণেই অতিদ্রুত সময়ের মধ্যে পাটবীজ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করার উদ্যোগ গ্রহণ করে সরকার। এর ফলেই তোষা-৮ বা রবি-১ নামের পাটের জাত উদ্ভাবন করেছে বাংলাদেশ জুট রিসার্স এনস্সিটটিউট (বিজেআরআই)। বিজেআরআই বলেছে,  এই জাতের পাট ১৫ থেকে ২০ ফুট লম্বা হয় বলে উৎপাদনের পরিমাণ বেশি। এতে কৃষকরাই লাভবান হবেন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের বরাদ দিয়ে কৃষি মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, আগামী ২০২৫ সালের মধ্যে অর্থাৎ আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে পাটবীজে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে সরকার যে মহপরিকল্পনা নিয়েছে তা হলো- গত ২০১৭-১৮ অর্থবছর ৭ দশমিক ৫৮ লাখ হেক্টর জমিতে পাট চাষ করা হয়েছে। যা গত কয়েক বছরের তুলনায় সর্বোচ্চ। সে হিসেব অনুযায়ী ২০১৭-১৮ সালের জমির পরিমাণকে ভিত্তি ধরে বীজ উৎপাদনের চাহিদা এবং আনুষঙ্গিক বিষয়াদি হিসাব করা হয়েছে। ভিত্তিবছর অনুযায়ী তোষাপাট বীজে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের জন্য প্রতি হেক্টরে ৬ দশমিক ৫ কেজি হিসেবে ধরে ৬ লাখ ৭৬ হাজার হেক্টর জমিতে চার হাজার ৩৯১ টন প্রত্যায়িত বীজের প্রয়োজন হবে। এই চার হাজার ৩৯১ মেট্রিকটন বীজের জন্য প্রয়োজন হবে ৫৮ দশমিক ৫৪ মেট্রিক টন ভিত্তি বীজের। বিএডিসি এই পরিমাণ বীজ উৎপাদন করবে। এ ক্ষেত্রে বিএজআরআই প্রযুক্তিগত সহায়তা দেবে।

পাটবীজ উৎপাদনে কৃষি মন্ত্রণালয়ের বীজ অণুবিভাগ ৫ বছর মেয়াদি রোডম্যাপ অনুযায়ী প্রথম বছর ২০ মেট্রিক টন ভিত্তিবীজ উৎপাদন করা হবে। এর জন্য পাট উৎপাদন এলাকায় ৩ হাজারটি প্রদর্শনী প্লট স্থাপন করা হবে। এ ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় প্রজনন বীজ বিজেআরআই সরবরাহ করবে।

দ্বিতীয় বছর ৪০ মেট্রিক টন ভিত্তিবীজ উৎপাদন করা হবে। এ দিয়ে ১ হাজার ৪৬৪ মেট্রিক টন প্রত্যায়িত বীজ উৎপাদন করা হবে। একইভাবে এ ক্ষেত্রেও নিবিড় পাট উৎপাদন এলাকায় ৩ হাজারটি প্রদর্শনী প্লট স্থাপন করা হবে এবং উৎপাদিত বীজ বিনামূল্যে পাটচাষিদের কাছে বিতরণ করা হবে। এজন্য প্রয়োজনীয় প্রজনন বীজ বিজেআরআই সরবরাহ করবে।

তৃতীয় বছর বাড়িয়ে ৫৯ মেট্রিক টন ভিত্তিবীজ উৎপাদন করা হবে যা দিয়ে ২ হাজার ৯২৭ মেট্রিক টন প্রত্যায়িত বীজ উৎপাদন করা হবে। একইভাবে ৩ হাজারটি প্রদর্শনী প্লট স্থাপন করা হবে এবং উৎপাদিত বীজ একই পদ্ধতিতে পাটচাষীদের বিতরণ করা হবে। প্রজনন বীজ বিজেআরআই সরবরাহ করবে।

চতুর্থ বছর একইভাবে বিজেআরআই’র সরবরাহ করা প্রজনন বীজের মাধ্যমে ৫৯ মেট্রিক টন ভিত্তিবীজ উৎপাদনের মধ্য দিয়ে শতভাগ অর্থাৎ প্রয়োজনীয় ৪ হাজার ৩৯১ মেট্রিক টন প্রত্যায়িত বীজ উৎপাদন করতে সক্ষম হবে সরকার। যা বিনামূল্যে না দিয়ে কিছুটা ভর্তুকি মূল্যে প্রতিকেজি বীজের মূল্য ১০০ টাকা দরে পাটচাষীদের কাছে বিক্রি করা হবে। এ ক্ষেত্রেও ৩ হাজারটি প্রদর্শনী প্লট স্থাপন করা হবে।

সরকারের রোডম্যাপ অনুযায়ী সর্বশেষ পঞ্চম বছর আরও ৫৯ মেট্রিক টন ভিত্তিবীজ উৎপাদনের মধ্য দিয়ে শতভাগ অর্থাৎ প্রয়োজনীয় চার হাজার ৩৯১ মেট্রিক টন প্রত্যায়িত বীজ উৎপাদনের সক্ষমতা নিশ্চিত করা হবে। এটিও ভর্তুকি মূল্যে ১০০ টাকা কেজি দরে পাটচাষীদের কাছে বিক্রি করা হবে।

এ প্রসঙ্গে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী জানিয়েছেন, ভর্তুকি দিয়ে হলেও পাটবীজের উৎপাদন বাড়ানোর কোনও বিকল্প নাই। অন্যের ওপর নির্ভরশীল থাকলে সবসময় অনিশ্চয়তায় থাকতে হয়।

কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী ও সময়োপযোগী উদ্যোগে কৃষি মন্ত্রণালয়ের পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট পাটের জিনোম আবিষ্কার করেছে। সেই জিনোম ব্যবহার করে আমাদের বিজ্ঞানীরা উচ্চফলনশীল পাটবীজ রবি-১ জাত উদ্ভাবন করেছে। এর ফলন ভারতের পাটজাতের চেয়ে ১০-১৫ শতাংশ বেশি। কৃষক পর্যায়ে এটির চাষ বাড়াতে পারলে পাটবীজে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়া সম্ভব। আমরা পাটবীজের জন্য অন্যদেশের ওপর নির্ভরশীল থাকতে পারি না।

 

/এফএএন/

সম্পর্কিত

ফের বাড়লো চালের দাম

ফের বাড়লো চালের দাম

বিদেশ থেকে আসা সব টাকাই রেমিট্যান্স নয়

বিদেশ থেকে আসা সব টাকাই রেমিট্যান্স নয়

তৈরি পোশাকশিল্পে এশিয়ায় আঞ্চলিক সহযোগিতা জরুরি: বিজিএমইএ সভাপতি

তৈরি পোশাকশিল্পে এশিয়ায় আঞ্চলিক সহযোগিতা জরুরি: বিজিএমইএ সভাপতি

ডলারের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ চায় চট্টগ্রাম চেম্বার

ডলারের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ চায় চট্টগ্রাম চেম্বার

ফের বাড়লো চালের দাম

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৩০

নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য নিয়ে অস্বস্তি কাটছে না সাধারণ মানুষের। সয়াবিন, চাল, সবজি ও মুরগি বেশ কিছু দিন ধরে নিম্ন আয়ের মানুষদের ভোগাচ্ছে। এরমধ্যে আবারও বেড়েছে চাল, চিনি, মুরগি, সয়াবিন তেলসহ আরও কিছু নিত্যপণ্যের দামও।

বাজারের তথ্য বলছে, নতুন করে ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়েছে কেজিতে ৫ টাকার মতো। এছাড়া গত সপ্তাহের তুলনায় এই সপ্তাহে নতুন করে চিকন চালের দাম কেজিতে বেড়েছে ৩ টাকা। খোলা সয়াবিন তেলের দাম প্রতিলিটারে বেড়েছে ৫ টাকার বেশি। একইভাবে ১ লিটার ওজনের বোতলজাত সয়াবিনের দাম বেড়েছে ৫ টাকা। প্রতি লিটার খোলা পাম অয়েলের দাম বেড়েছে ৫ টাকা। চিনির দাম বেড়েছে কেজিতে ৩ টাকা। শুধু তা-ই নয়, রাজধানীর বাজারগুলোতে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে সব ধরনের সবজি।

শুক্রবার (২২ অক্টোবর) রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, ব্যবসায়ীরা ব্রয়লার মুরগির কেজি বিক্রি করছেন ১৯০ থেকে ১৯৫ টাকা। সরকারি বিপণন সংস্থা টিসিবির আজকের তথ্য বলছে, গত সপ্তাহের তুলনায় এই সপ্তাহে ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়েছে ৭ দশমিক ৩৫ শতাংশ।

এদিকে ব্যবসায়ীরা পাকিস্তানি কক বা সোনালি মুরগির কেজি বিক্রি করছেন ৩৩০ থেকে ৩৫০ টাকা। আর লাল লেয়ার মুরগির কেজি বিক্রি করছেন ২২০ থেকে ২৩০ টাকা।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, আদা, পেঁয়াজ ও রসুন ছাড়া প্রায় সব পণ্যের দাম বেড়েছে। তারা বলছেন, গত সপ্তাহে যে সরু চাল বিক্রি হয়েছে ৫৫ টাকা কেজি দরে, সেই চাল আজ বিক্রি হচ্ছে ৫৮ টাকা দরে। অর্থাৎ এই সপ্তাহে নতুন করে সরু চালের দাম কেজিতে বেড়েছে ৩ টাকা।

টিসিবির হিসাব বলছে, এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতিকেজি চালের দাম বেড়েছে প্রায় তিন শতাংশের মতো। আর খোলা সয়াবিন তেলের দাম এখন ১৪৫ টাকা লিটার। গত সপ্তাহে এই সয়াবিন বিক্রি হয়েছে ১৪০ টাকা লিটার। অর্থাৎ গত সপ্তাহের তুলনায় দাম বেড়েছে ৫ টাকার বেশি। একইভাবে ১ লিটার ওজনের বোতলজাত সয়াবিনের দাম এখন ১৫৫ টাকা। গত সপ্তাহে ছিল  ১৫০ টাকা। প্রতি লিটার খোলা পাম অয়েলের দাম এখন ১৩২ টাকা লিটার। আগের সপ্তাহে ছিল ১২৫ থেকে ১৩০ টাকা লিটার। চিনির দাম এখন ৮২ টাকা কেজি। গত সপ্তাহে প্রতিকেজি চালের দাম ছিল ৭৯ টাকা। অর্থাৎ প্রতিকেজিতে দাম বেড়েছে ৩ টাকা।

জিনিসপত্রের দাম অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় বেশ কিছু দিন ধরে হতাশা ব্যক্ত করছেন নিম্ন আয়ের মানুষেরা। মানিকনগর বাজারে ব্রয়লার মুরগি কিনতে আসা সালমান রব্বানি বলেন, বিনা কারণে ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়েছে। এটা আমাদের মতো সীমিত আয়ের মানুষদের জন্য অস্বস্তিকর।

এদিকে সবজি ব্যবসায়ীরা আগের মতোই বেশি দামে বিক্রি করছেন গাজর ও টমেটো। মানভেদে এক কেজি গাজর ১০০ থেকে ১৬০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। টমেটোর কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৪০ থেকে ১৬০ টাকা। এর বাইরে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে অন্যান্য সব সবজি। শীতের আগাম সবজি শিম গত সপ্তাহের মতো কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১২০ টাকা। ঝিঙের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। ছোট ফুলকপি ও বাঁধাকপির পিস বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৫০ টাকা। মুলা বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৬০ টাকা কেজি। করলা বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৮০ টাকা, চিচিঙ্গা বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি, পটলের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা, ঢেঁড়সের কেজি পাওয়া যাচ্ছে ৪০ থেকে ৬০ টাকার মধ্যে, বরবটির কেজি পাওয়া যাচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ টাকা। কাঁচকলার হালি ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, লাল শাকের আঁটি ১০ থেকে ২০ টাকা, মুলা শাকের আঁটি ১৫ থেকে ২০ টাকা, কলমি শাকের আঁটি ৫ থেকে ১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এর আগে পেঁয়াজের কেজি ৮০ টাকা হয়ে গিয়েছিল। সরকার শুল্ক প্রত্যাহারের ঘোষণা দেওয়ার পর ৬০ টাকায় নেমেছে। বাজারের তথ্য বলছে, গত সপ্তাহের তুলনায় পেঁয়াজের দাম কেজিতে ৫ টাকা কমে এখন ৬০ থেকে ৬৫ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ার প্রভাবে দেশেও চাল, ডাল, তেল, আটাসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম অস্থির হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) বলছে, সর্বশেষ সেপ্টেম্বর মাসে গড় মূল্যস্ফীতি বেড়ে ৫ দশমিক ৫৯ শতাংশ দাঁড়িয়েছে, যা আগস্টে ছিল ৫ দশমিক ৫৪ শতাংশ। গড় মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৫৯ শতাংশে দাঁড়ানোর অর্থ হলো গত বছরের সেপ্টেম্বরে যে পণ্যটি ১০০ টাকায় কেনা যেত, সেটি কিনতে এ বছরের সেপ্টেম্বরে লেগেছে ১০৫ টাকা ৫৯ পয়সা। বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) ওয়েবসাইটে মূল্যস্ফীতির হালনাগাদ তথ্য প্রকাশ করেছে বিবিএস। এতে দেখা যাচ্ছে, শহর ও গ্রাম দুই জায়গাতেই খাদ্য ও খাদ্যবহির্ভূত সব ধরনের নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে।

খাদ্য মূল্যস্ফীতির হার সেপ্টেম্বরে বেড়ে ৫ দশমিক ২১ শতাংশ হয়েছে, যা আগের মাসে ছিল ৫ দশমিক ১৬ শতাংশ। আর খাদ্যবহির্ভূত মূল্যস্ফীতি বেড়ে হয়েছে ৬ দশমিক ১৯ শতাংশ, যা আগের মাসে ছিল ৬ দশমিক ১৩ শতাংশ। বিবিএসের তথ্য বলছে, নিত্যপণ্যের চেয়ে খাদ্যবহির্ভূত পণ্যের পেছনে বেশি টাকা খরচ হচ্ছে মানুষের। স্বাস্থ্য, শিক্ষা, পরিবহন, আসবাব ও বিনোদনের পেছনে খরচ বেড়েছে।

/এমআর/এমওএফ/

সম্পর্কিত

পেঁয়াজ নিয়ে খেলে কারা?

পেঁয়াজ নিয়ে খেলে কারা?

নতুন পেঁয়াজ আসার আগে দাম কমার সম্ভাবনা নেই: বাণিজ্য সচিব

নতুন পেঁয়াজ আসার আগে দাম কমার সম্ভাবনা নেই: বাণিজ্য সচিব

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছেই

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছেই

দাম বেড়েছে নিত্যপণ্যের, নিম্ন আয়ের মানুষের ভোগান্তি

দাম বেড়েছে নিত্যপণ্যের, নিম্ন আয়ের মানুষের ভোগান্তি

বিদেশ থেকে আসা সব টাকাই রেমিট্যান্স নয়

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ১৩:০০

বিদেশ থেকে দেশে অনেকেই টাকা পাঠান। তবে ব্যাংকিং চ্যানেলে আসা সব টাকাই রেমিট্যান্স নয়। কেবল রেমিট্যান্সের বিপরীতে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দেওয়া হয়। কিন্তু অন্য ক্ষেত্রে কোনও প্রণোদনা দেওয়া হয় না। রেমিট্যান্সের সুবিধা পেতে বেশ কয়েকটি শর্ত ও কিছু নিয়ম মানতে হয়। যারা এসব নিয়ম ও শর্ত মানেন না তারা বিদেশ থেকে বৈদেশিক মুদ্রা আনার পরও রেমিট্যান্সের এই সুবিধা পান না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা বলছেন, বিদেশ থেকে টাকা আনলেও রেমিট্যান্সের স্বীকৃতি না পাওয়ার কারণে অনেকেই ২ শতাংশ হারে প্রণোদনার সুবিধা পান না। 

তৈরি পোশাকের পরে অর্থনীতিতে প্রবাসীদের অবদান সবচেয়ে বেশি ‑ যা দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে রাখতে ব্যাপক ভূমিকা রাখছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ম অনুযায়ী রেমিট্যান্সের সুবিধা পেতে হলে সরাসরি বিদেশে থাকার পাশাপাশি সেখানে বৈধভাবে আয় করতে হবে। এছাড়া বিদেশে অবস্থিত বিভিন্ন মানি এক্সচেঞ্জ হাউজের মাধ্যমে অথবা ওইসব দেশের বিভিন্ন ব্যাংকের মাধ্যমে "রেমিট্যান্স" ঘোষণা দিয়ে টাকা পাঠাতে হবে।

সাধারণত, মানিগ্রামসহ বেশ কিছু ইন্টারন্যাশনাল মানি ট্রান্সফার কোম্পানির মাধ্যমে বেশিরভাগ রেমিট্যান্স আসে। তবে সরাসরি ব্যাংকের মাধ্যমেও কিছু রেমিট্যান্স দেশে আসে।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, প্রবাসে যারা ছোট-খাটো চাকরি করেন, তারা রেমিট্যান্সের ঘোষণা দিয়ে ব্যাংকিং চ্যানেলে যে টাকা পাঠান সেগুলোকে সাধারণত আমরা রেমিট্যান্স বলি। এছাড়া বিভিন্ন দেশে অনেকেই ব্যবসা-বাণিজ্য করে অল্প পরিমাণ টাকা পাঠালে সেগুলোও রেমিট্যান্স। অর্থাৎ প্রবাসে কর্মরত বাংলাদেশি নাগরিকরা তাদের আত্মীয়-স্বজনের কাছে ঘোষণা দিয়ে টাকা পাঠালে রেমিট্যান্স হিসেবে স্বীকৃত হবে।

জানা গেছে, রেমিট্যান্সের বিপরীতে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দেওয়ার নিয়ম রয়েছে। বৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠানোকে উৎসাহিত করতে ২০১৯-২০ অর্থবছর থেকে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দিচ্ছে সরকার। অর্থাৎ ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স পাঠালে প্রতি ১০০ টাকায় দুই টাকা করে নগদ প্রণোদনা পাচ্ছেন প্রবাসীর স্বজনরা। এ প্রণোদনা দিতে গত অর্থবছরে মূল বাজেটে ৩ হাজার ৬০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হলেও সংশোধিত বাজেটে তা বাড়িয়ে ৩ হাজার ৮০০ কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়। এর আগের অর্থবছরে ৩ হাজার ৬০ কোটি টাকা অর্থ বরাদ্দ রাখা হয়েছিল। চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে বাজেটে রেমিট্যান্স খাতে প্রণোদনার পরিমাণ বাড়িয়ে ৪ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, প্রবাসী শ্রমিকরা যে পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা দেশে পাঠাচ্ছেন, তা দেশের মোট রফতানি আয়ের প্রায় অর্ধেক। এছাড়া অর্থনৈতিক উন্নয়নে রেমিট্যান্সের অবদান মোট জিডিপির ১২ শতাংশের মতো। প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে বেশ গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, করোনার মধ্যে ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রবাসীরা দুই হাজার ৪৭৮ কোটি ডলার রেকর্ড সমপরিমাণ অর্থ দেশে পাঠিয়েছেন। যেখানে আগের অর্থবছর পাঠিয়েছিলেন এক হাজার ৮২০ কোটি ডলার।

রেমিট্যান্সের শর্ত

রেমিট্যান্সের সুবিধা পেতে দেশের বাইরে সশরীরে থাকতে হবে। ওই দেশে বৈধভাবে থাকার অনুমতির পাশাপাশি থাকতে হবে ওয়ার্ক পারমিট ও বৈধ নিয়োগপত্র। এছাড়াও বিদেশে ব্যবসা-বাণিজ্য করলে তার বৈধ কাগজপত্রও দেখাতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা বলছেন, বিদেশে অবস্থিত বিভিন্ন মানি এক্সচেঞ্জ হাউজে গিয়ে অথবা ওইসব দেশের বিভিন্ন ব্যাংকে গিয়ে রেমিট্যান্সের ঘোষণা দিয়ে পাঠানো টাকার বিপরীতে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দেওয়ার নিয়ম রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণী ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. জায়েদ বখত বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন,  রেমিট্যান্স হিসেবে টাকা পাঠাতে গেলে প্রথমত সোর্স অব মানি বা টাকার উৎস কি সেটা জানাতে হয়। তিনি বলেন, বিদেশ থেকে কাউকে কোনও টাকা পাঠাতে গেলে এন্টি মানি লন্ডারিংয়ের পার্ট হিসেবে বেশ কিছু তথ্য দিতে হয়। যেসব ব্যাংক ও এক্সচেঞ্জ হাউজের মাধ্যমে প্রবাসীরা টাকা পাঠান, ওই সব ব্যাংকের কাছে রেমিট্যান্স সংক্রান্ত সব তথ্য সংরক্ষিত থাকে। ওই টাকা দেশে আসার পর বাংলাদেশের ব্যাংকগুলো টাকার উৎস ও বিভিন্ন তথ্যের সঠিকতা নিশ্চিত করার পর রেমিট্যান্স হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

২০১৯ সালে প্রকাশিত বিশ্বব্যাংকের তথ্য অনুসারে, বিশ্বব্যাপী রেমিট্যান্স ২০১৮ সালে ৬৮৯ বিলিয়ন ডলার হয়েছে। ২০১৮ সালে রেমিট্যান্স আহরণে বাংলাদেশ ৯ম স্থানে রয়েছে।

বাংলাদেশের প্রবাসীরা মধ্যপ্রাচ্যের সৌদি আরব, কাতার, আরব আমিরাত, কুয়েত, মিসর, মরক্কো, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, ব্রুনাই, দক্ষিণ কোরিয়াসহ ইউরোপ, আমেরিকা ও অস্ট্রেলিয়া মহাদেশে বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত রয়েছেন।

যেগুলো রেমিট্যান্স নয়

অগ্রণী ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. জায়েদ বখত বলেন, অনেকেই বিদেশ থেকে টাকা পাঠান সঞ্চয়পত্র কেনার জন্য। সেটাকে রেমিট্যান্স বলে না। ওই টাকার বিপরীতে কোনও প্রণোদনা দেওয়া হয় না। এছাড়া অনেকেই বিদেশ থেকে গিফট হিসেবে টাকা পাঠান। সেগুলোও রেমিট্যান্স নয়।

বিদেশ থেকে অনেকে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন এওয়ার্ড বা পুরস্কারের টাকা পান। সেটাও রেমিট্যান্স নয়। অনেকে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সেমিনারে বক্তৃতা করে টাকা আয় করেন, সেটাও রেমিট্যান্স নয়। অনেকে বিশ্বব্যাংকের পরামর্শকের চাকরি করেন, সেখান থেকে পাঠানো টাকাও রেমিট্যান্স নয়।

অনেকে বিবিসি, ডয়েচেভেলেসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে চাকরি করেন, সেখান থেকে পাঠানো টাকাও রেমিট্যান্স নয়। কারণ উল্লেখ করে জায়েদ বখত বলেন, তারা দেশের ভেতরে থেকে কাজ করছেন। এটা এক ধরনের রফতানি আয়। তারা বিদেশে সেবা রফতানি করে বৈদেশিক মুদ্রা আয় করেন। একইভাবে অনেকেই দেশে থেকে ফ্রিল্যান্সিং করে মুদ্রা আয় করেন, সেগুলোও রেমিট্যান্স নয়। এগুলো সেবা রফতানি। এছাড়া পণ্য রফতানি আয়ও রেমিট্যান্স নয়। আবার বিদেশি বিনিয়োগ বা ফরেন ইনভেস্টমেন্ট বা এফডিআই রেমিট্যান্স নয়।

/এমএস/ইউএস/

সম্পর্কিত

টানা সাতদিন পর ঘুরে দাঁড়ালো শেয়ার বাজার

টানা সাতদিন পর ঘুরে দাঁড়ালো শেয়ার বাজার

কয়লাভিত্তিক বিদ্যুতে অর্থায়ন করবে না এডিবি

কয়লাভিত্তিক বিদ্যুতে অর্থায়ন করবে না এডিবি

সাগরে দুই ট্রিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা

সাগরে দুই ট্রিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা

আজ ব্যাংক ও শেয়ার বাজার বন্ধ

আজ ব্যাংক ও শেয়ার বাজার বন্ধ

তৈরি পোশাকশিল্পে এশিয়ায় আঞ্চলিক সহযোগিতা জরুরি: বিজিএমইএ সভাপতি

আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০২১, ২১:২৩

টেক্সটাইল এবং পোশাকখাতে আরও পারস্পরিক সুবিধা লাভের জন্য এশিয়ার মধ্যে আঞ্চলিক ভ্যালু চেইন ও সহযোগিতা জরুরি বলে মনে করেন তৈরি পোশাক মালিক ও রফতানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি ফারুক হাসান।

বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স অন টেক্সটাইলস অ্যান্ড অ্যাপারেল’র ১৩তম সংস্করণে এসব কথা বলেন ফারুক হাসান। কনফেডারেশন অব ইন্ডিয়ান ইন্ডাস্ট্রি (সিআইআই) আয়োজিত ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সম্মেলনে ভার্চুয়ালি অংশ নেন ভারতের বস্ত্র প্রতিমন্ত্রী দর্শনা বিক্রম জারদোস, সিআইআই ন্যাশনাল কমিটি অন টেক্সটাইলস অ্যান্ড অ্যাপারেলের চেয়ারম্যান দিলীপ গৌর, কো-চেয়ারম্যান কুলিন লালভাই, স্ট্র্যাটেজি অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট ব্র্যান্ডিং লঙ্কা গ্রুপের পরিচালক সুচিরা সুরেন্দ্রনাথ, সিআইআই (উত্তর অঞ্চল) চেয়ারম্যান অভিমণ্য মুঞ্জাল প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান বলেন,  প্রতিবেশী দেশগুলো যদি একে অপরের পরিপূরক হতে পারি, তাহলে আমাদের একসঙ্গে বেড়ে উঠার বিশাল সুযোগ রয়েছে।

তিনি জানান, উচ্চ প্রবৃদ্ধির রূপকল্প বাস্তবায়নে বাংলাদেশ টেক্সটাইল উপাদানকে বৈচিত্র্যময় করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। বিশেষ করে কটন থেকে নন-কটনে যাওয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে। যার লক্ষ্য হচ্ছে পরিমাণ থেকে গুণ-মান এবং ভলিউম থেকে ভ্যালুতে ঘুরে দাঁড়ানো।

তিনি বলেন, যেহেতু আমরা কটন থেকে নন-কটনে যাওয়ার মাধ্যমে পণ্যে বৈচিত্র্য আনার বিষয়টিকে অগ্রাধিকার দিচ্ছি, তাই বাংলাদেশ ভারতীয় এমএমএফ টেক্সটাইলগুলোর জন্য ভালো বাজার হতে পারে। আমরা যত বেশি পোশাক রফতানিতে উন্নতি করতে পারবো, ততই ভারতের সঙ্গে বাণিজ্য করার সুযোগ তৈরি হবে। বিশেষ করে টেক্সটাইল, ডাইস, কেমিকেল এবং যন্ত্রপাতির ক্ষেত্রে ভালো হবে। তিনি ভারত এবং এশিয়ার অন্যান্য দেশ থেকে বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে নন-কটন টেক্সটাইল খাতে বিনিয়োগের সুযোগ গ্রহণের আমন্ত্রণ জানান।

ফারুক হাসান টেকসই এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়নের জন্য এই অঞ্চলের মধ্যে জ্ঞান, দক্ষতা ও প্রযুক্তির বিনিময়ের ওপরও জোর দেন। তিনি বলেন, আমরা ২০০০ সালে বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজি (বিইউএফটি) নামে একটি ফ্যাশন-ডিজাইনিং বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছি। একটি উদ্ভাবন কেন্দ্রও স্থাপন করতে যাচ্ছি। এই প্রতিষ্ঠানগুলো এবং ভারতের ফ্যাশন একাডেমিগুলোর মধ্যে সহযোগিতা আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্র হতে পারে, যেখানে আমরা একে অপরের পরিপূরক হতে পারি।

/জিএম/এমএস/

সম্পর্কিত

ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছে ১২ বছর শুল্ক সুবিধা চায় বিজিএমইএ

ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছে ১২ বছর শুল্ক সুবিধা চায় বিজিএমইএ

বিমানবন্দরের স্ক্যানার সচল করার অনুরোধ বিজিএমইএ’র

বিমানবন্দরের স্ক্যানার সচল করার অনুরোধ বিজিএমইএ’র

ব্রাজিলের বাজারে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার চায় বিজিএমইএ

ব্রাজিলের বাজারে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার চায় বিজিএমইএ

বাংলাদেশ থেকে আরও সোর্সিং করুন: মার্কিন ক্রেতাদের প্রতি বিজিএমইএ সভাপতি

বাংলাদেশ থেকে আরও সোর্সিং করুন: মার্কিন ক্রেতাদের প্রতি বিজিএমইএ সভাপতি

ডলারের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ চায় চট্টগ্রাম চেম্বার

আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০২১, ১৮:১৭

টাকার বিপরীতে মার্কিন ডলারের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণের আহ্বান জানিয়েছেন চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মাহবুবুল আলম। বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবিরকে দেওয়া চিঠিতে তিনি এ আহ্বান জানান।

চিঠিতে মাহবুবুল আলম বলেন, ‘সম্প্রতি মুদ্রাবাজারে টাকার বিপরীতে মার্কিন ডলারের মূল্য বৃদ্ধি পরিলক্ষিত হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে বৈদেশিক মুদ্রাবাজার স্থিতিশীল রাখা, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ ও আমদানি-রফতানি বাণিজ্য বিষয়ক লেনদেনের ক্ষেত্রে ভারসাম্যপূর্ণ অবস্থান রক্ষা করার জন্য ডলারের মূল্য সহনীয় ও যৌক্তিক পর্যায়ে রাখতে বাংলাদেশ ব্যাংকের আশু হস্তক্ষেপ অপরিহার্য। দেশের বৃহত্তর অর্থনীতির স্বার্থে টাকার বিপরীতে ডলারের উচ্চমূল্য নিয়ন্ত্রণে জরুরি পদক্ষেপ নেওয়া দরকার।’

চিঠিতে তিনি বলেন, ‘গত সপ্তাহে ডলারের বিপরীতে টাকার মূল্য হ্রাস পেয়েছে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, সোমবার (১৮ অক্টোবর) আন্তঃব্যাংক মুদ্রা বাজারে প্রতি ডলার বিক্রি হয়েছে ৮৬.২০ টাকা। অন্যদিকে, খোলা বাজারে ও নগদ মূল্যে ডলার বিক্রি হয়েছে ৮৯.৫০ টাকা। সংশ্লিষ্টরা ডলারের এই দাম আগামীতে আরও বৃদ্ধি পাবে বলে আশঙ্কা করছেন।’

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, ‘দেশের ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে শিল্পের কাঁচামাল ও মূলধনী যন্ত্রপাতিসহ সব ধরনের পণ্যের আমদানি বাড়ছে। ইউরোপ-আমেরিকাসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে করোনা পরিস্থিতি ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হয়ে আসছে। করোনার মধ্যেই দেশের শিল্প-কারখানা পুরোদমে চালুর নির্দেশনা দেওয়ায় বর্তমানে উৎপাদন কার্যক্রম স্বাভাবিক রয়েছে।’

এতে বলা হয়, ‘টাকার বিপরীতে হঠাৎ ডলারের মূল্য বৃদ্ধির ফলে আমদানি করা পণ্যের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তাদের আর্থিকভাবে যথেষ্ট ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। যার দায়ভার শেষ পর্যন্ত ভোক্তা সাধারণকেই বহন করতে হবে। একইসঙ্গে মহামারিগ্রস্ত অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে, যা অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করবে।’

চিঠিতে তিনি আরও বলেন, ‘দেশে আমদানি ও রফতানি বাণিজ্যের স্বাভাবিক গতি অক্ষুণ্ণ রাখতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক মুদ্রাবাজার বিশেষ করে ডলারের মূল্য সব সময় গ্রহণযোগ্য পর্যায়ে স্থিতিশীল রাখার জন্য কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করে। সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলোকে যথাযথ নির্দেশনা দেওয়ার মাধ্যমে বাজার নিয়ন্ত্রণ করে।’

 

/জিএম/আইএ/

সম্পর্কিত

আজ ব্যাংক ও শেয়ার বাজার বন্ধ

আজ ব্যাংক ও শেয়ার বাজার বন্ধ

বাংলাদেশ থেকে আরও সোর্সিং করুন: মার্কিন ক্রেতাদের প্রতি বিজিএমইএ সভাপতি

বাংলাদেশ থেকে আরও সোর্সিং করুন: মার্কিন ক্রেতাদের প্রতি বিজিএমইএ সভাপতি

রাজস্ব আদায়ে রেকর্ড, দুই মাসে ১৪.৫৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি

রাজস্ব আদায়ে রেকর্ড, দুই মাসে ১৪.৫৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি

যেকোনও কোম্পানির আর্থিক হিসাব যাচাই করতে পারবে এনবিআর

যেকোনও কোম্পানির আর্থিক হিসাব যাচাই করতে পারবে এনবিআর

টানা সাতদিন পর ঘুরে দাঁড়ালো শেয়ার বাজার

আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৩৭

টানা সাত কার্যদিবস পতনের পর ঘুরে দাঁড়ালো শেয়ার বাজার। বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতার দেখা মিলেছে দেশের শেয়ার বাজারে। এদিন শেষ ঘণ্টার ঝলকে এই ঊর্ধ্বমুখীতা দেখা যায়।

এর আগে চলতি সপ্তাহের প্রথম তিন কার্যদিবসসহ টানা সাত কার্যদিবস দরপতন হয় শেয়ার বাজারে। এতে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্যসূচক ৩৪৭ পয়েন্ট পড়ে যায়। এর মধ্যে চলতি সপ্তাহের প্রথম তিন কার্যদিবসেই পড়ে ২২৩ পয়েন্ট।

শেয়ার বাজারে এমন টানা দরপতন হওয়ায় বিনিয়োগকারীদের মধ্যে এক ধরনের আতঙ্ক দেখা দেয়। তবে সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস সূচকের বড় উত্থান হওয়ায় বিনিয়োগকারীদের মধ্যে কিছুটা হলেও স্বস্তি ফিরে এসেছে।

সাত কার্যদিবসের টানা পতনের পর বৃহস্পতিবার শেয়ার বাজারে লেনদেন শুরু হতেই দাম বেড়ে যায় প্রায় সবকটি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের।

দুপুর দেড়টার পর সূচক ঘুরতে থাকে। শেষ আধঘণ্টা সূচকের ঊর্ধ্বমুখী ধারা অব্যাহত থাকে। ফলে পতন কাটিয়ে বড় উত্থান দিয়ে শেষ হয় দিনের লেনদেন।

দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসই-এক্স আগের দিনের তুলনায় ৫৫ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়ায় ৭ হাজার ৭৬ পয়েন্টে। ডিএসইর অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরিয়াহ্ ১৩ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৫১৮ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর বাছাই করা ভালো কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচক ৪৩ পয়েন্ট বেড়ে ২ হাজার ৬৯৯ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

দিনভর ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেওয়া ১৫৩টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১৭৯টির। আর ৪২টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

এদিকে সূচক ঘুরে দাঁড়ালেও লেনদেনের গতি কমেছে। দিনভর ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৩১০ কোটি ৯৭ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ১ হাজার ৬৮২ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। সে হিসেবে লেনদেন কমেছে ৩৭১ কোটি ৮৮ লাখ টাকা।

টাকার অঙ্কে ডিএসইতে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে বেক্সিমকোর শেয়ার। কোম্পানিটির ২৮৫ কোটি ৫৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা আইএফআইসি ব্যাংকের ৬৪ কোটি ৫২ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। ৫৯ কোটি ৩২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে এনআরবিসি ব্যাংক।

এদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক মূল্যসূচক সিএএসপিআই বেড়েছে ১৭২ পয়েন্ট। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৪১ কোটি ৮১ লাখ টাকা। লেনদেনে অংশ নেওয়া ২৭৩টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১১৪টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১৩২টির এবং ২৭টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

/জিএম/এমএস/

সম্পর্কিত

বিদেশ থেকে আসা সব টাকাই রেমিট্যান্স নয়

বিদেশ থেকে আসা সব টাকাই রেমিট্যান্স নয়

কয়লাভিত্তিক বিদ্যুতে অর্থায়ন করবে না এডিবি

কয়লাভিত্তিক বিদ্যুতে অর্থায়ন করবে না এডিবি

সাগরে দুই ট্রিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা

সাগরে দুই ট্রিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা

আজ ব্যাংক ও শেয়ার বাজার বন্ধ

আজ ব্যাংক ও শেয়ার বাজার বন্ধ

সর্বশেষ

টেস্ট খেলুড়ে দেশকে হারিয়ে নামিবিয়ার ইতিহাস

টেস্ট খেলুড়ে দেশকে হারিয়ে নামিবিয়ার ইতিহাস

প্রায় চার কোটি নাগরিককে নগদ অর্থ দেবে ফ্রান্স

প্রায় চার কোটি নাগরিককে নগদ অর্থ দেবে ফ্রান্স

মার্কিন সেনাবাহিনীর হাইপারসোনিক পরীক্ষা ব্যর্থ

মার্কিন সেনাবাহিনীর হাইপারসোনিক পরীক্ষা ব্যর্থ

ভ্রাম্যমাণ আদালত ছেড়ে আহতকে হাসপাতালে নিলেন ইউএনও

ভ্রাম্যমাণ আদালত ছেড়ে আহতকে হাসপাতালে নিলেন ইউএনও

রাজধানীতে ট্রেনের ধাক্কা ও কাটা পড়ে তিনজনের মৃত্যু

রাজধানীতে ট্রেনের ধাক্কা ও কাটা পড়ে তিনজনের মৃত্যু

করোনাতে মৃত্যুহীন ৬০ জেলা

করোনাতে মৃত্যুহীন ৬০ জেলা

প্লে-স্টোরের সাবস্ক্রিপশন ফি অর্ধেক করছে গুগল

প্লে-স্টোরের সাবস্ক্রিপশন ফি অর্ধেক করছে গুগল

ফের বাড়লো চালের দাম

ফের বাড়লো চালের দাম

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফের বাড়লো চালের দাম

ফের বাড়লো চালের দাম

বিদেশ থেকে আসা সব টাকাই রেমিট্যান্স নয়

বিদেশ থেকে আসা সব টাকাই রেমিট্যান্স নয়

তৈরি পোশাকশিল্পে এশিয়ায় আঞ্চলিক সহযোগিতা জরুরি: বিজিএমইএ সভাপতি

তৈরি পোশাকশিল্পে এশিয়ায় আঞ্চলিক সহযোগিতা জরুরি: বিজিএমইএ সভাপতি

ডলারের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ চায় চট্টগ্রাম চেম্বার

ডলারের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ চায় চট্টগ্রাম চেম্বার

টানা সাতদিন পর ঘুরে দাঁড়ালো শেয়ার বাজার

টানা সাতদিন পর ঘুরে দাঁড়ালো শেয়ার বাজার

© 2021 Bangla Tribune