X
শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৯ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

বাজেটের ফ্যাশন যখন ব্রিফকেস

আপডেট : ০৩ জুন ২০২১, ২১:৩৬

দেশে প্রতি বছরই জাতীয় বাজেট পেশের আগে হাতে কালো রঙয়ের ব্রিফকেস নিয়ে সংসদে প্রবেশ করেন অর্থমন্ত্রীরা। এটা অনেকটাই রীতিতে পরিণত হয়েছে। তবে দেশ-বিদেশে এই প্রথা নতুন নয়। জানা যায়, ১৮ দশকের দিকে যুক্তরাজ্যে প্রথম এই রীতি চালু হয়। সে সময় লাল স্যুটকেসে নিয়ে আসা নথি থেকে বাজেট পেশ করতেন অর্থমন্ত্রীরা।

যদিও অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল কিছুটা ব্যতিক্রম। লাল নয়, বরং চকোলেট রঙয়ের ব্রিফকেস হাতে নিয়ে বৃহস্পতিবার (৩ জুন) সংসদ ভবনে প্রবেশ করেন তিনি। হাসি মুখে ব্রিফকেস হাতে নিয়ে গাড়ি থেকে নামেন এবং ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেট উত্থাপনের জন্য সংসদে প্রবেশ করেন। এসময় সবাইকে হাত তুলে সালাম এবং অভিবাদন জানান।

গত বছর ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট পেশকালেও অর্থমন্ত্রী কালো রঙয়ের একটি ব্যাগ নিয়ে সংসদে এসেছিলেন। সেই ব্যাগটিও ছিল কিছুটা ব্রিফকেসের আদলেই তৈরি।

বৃহস্পতিবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে বাজেট প্রস্তাব অনুমোদনের পর রাষ্ট্রপ্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গেই অধিবেশনে যোগদানের জন্য বের হন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। গতবছর অর্থমন্ত্রী কোটপ্যান্ট পরে বাজেট পেশ করলেও এবার তার পরনে ছিল পাজামা-পাঞ্জবির ওপরে মুজিব কোট।  আর হাতে ছিল সেই চিরচেনা ব্রিফকেস,  যার রঙ চকোলেট।

জানা যায়, বাজেটের সময়  ব্রিফকেস ব্যবহারের এই রীতি শুরু হয় ১৮ দশক থেকে। প্রথম শুরু হয় যুক্তরাজ্যে। সেখানে বাজেটপ্রধানকে  ব্রিফকেস খুলে বাজেট পেশ করতে বলা হতো। ১৮৬০ সালে ব্রিটেনের বাজেটপ্রধান উইলিয়াম ই গ্ল্যাডস্টোন লাল একটি স্যুটকেসে করে বাজেট সংক্রান্ত নথি নিয়ে আসেন। সেই স্যুটকেসের ওপরে সোনা দিয়ে রানির মুখের আদলের ছাপ দেওয়া ছিল। ওই একই স্যুটকেস সেদেশের বহু সরকারের আমলেই ব্যবহার করা হয়।

প্রথা অনুযায়ী, ‘লাল ব্রিফকেস’ হাতে বাজেট পেশ করতে সংসদে ঢোকেন অর্থ মন্ত্রীরা। তবে এই রহস্যময় ব্রিফকেসের রঙ সব সময় লাল ছিল না, অনেক সময়ই তা বদলেছে। তবে রঙ যা–ই হোক না কেন, এই ব্রিফকেসকে বাজেটের প্রতীক হিসেবে ধরা হয়, যা বাজেটের ফ্যাশন বলা চলে।

বাজেট শব্দটির উৎপত্তিও এই ব্রিফকেসকেই নির্দেশ করে। বাজেট শব্দটি এসেছে পুরনো ফরাসি শব্দ ব্যুজেট (বোগেট) থেকে। ব্যুজেটের অর্থ হলো থলে বা ব্যাগ। অতীতে থলেতে ভরে দেশের আয়-ব্যয়ের হিসাব আইনসভা বা সংসদে আনা হতো বলে একে ‘বাজেট’ নামে অভিহিত করা হয়।

এ বিষয়ে লেখা আছে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক অর্থ উপদেষ্টা আকবর আলি খানের বইতে। তার ‘বাংলাদেশে বাজেট: অর্থনীতি ও রাজনীতি’ শীর্ষক লেখায় বলা হয়েছে, ‘শিল্পবিপ্লবের পর ইংল্যান্ডের অর্থনীতি অনেক বড় হয়ে যায়। বাজেটবিষয়ক প্রস্তাবগুলো শুধু একটা মানিব্যাগে সংকুলান করা সম্ভব হচ্ছিল না। মানিব্যাগের জায়গায় তাই আসে ব্রিফকেস। বইটিতে বাজেট প্রস্তাবের দিন ব্রিফকেস ব্যবহারের আরেকটি কারণ উল্লেখ করা হয়।  সেটি হচ্ছে, বাজেটে কোন কর বাড়বে বা কোন কর কমবে, তার গোপনীয়তা বজায় রাখা অপরিহার্য।  ব্রিফকেসের ভেতরে থাকা বাজেটের কোনও তথ্য জেনে গেলে ব্যবসায়ীরা রাতারাতি তার ব্যবহার করতে পারেন।  তাই প্রস্তাবগুলো গোপন রাখার স্বার্থে ব্রিফকেসে করে আনা হয়।

/এসও/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

উচ্চ শিক্ষায় করারোপের প্রস্তাব পুনর্বিবেচনার দাবি বিসিআই'র

উচ্চ শিক্ষায় করারোপের প্রস্তাব পুনর্বিবেচনার দাবি বিসিআই'র

 ‘বাজেটে আমলাদের খাতির করা হয়েছে’

 ‘বাজেটে আমলাদের খাতির করা হয়েছে’

বাজেটে নতুন দরিদ্রদের স্বীকৃতি নেই

বাজেটে নতুন দরিদ্রদের স্বীকৃতি নেই

শুক্রবারে শপথ, শনিবারে ডাকাতি

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:৪৪

ডাকাতির জন্য নির্দিষ্ট দিন ঠিক করে রাখতো তারা। সেটা ছিল সপ্তাহের প্রথম দিন শনিবার। এর আগে শুক্রবার তারা একসঙ্গে জড়ো হয়ে শপথ নিতো। যেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে ধরা পড়লে সহযোগীদের নাম কেউ না বলে। এভাবেই পরিকল্পনা করে মাসের পর মাস ডাকাতি করে আসছিল এই গ্রুপ। তাদের টার্গেট ছিল মতিঝিলের ব্যাংক পাড়া। ব্যাংক বা মানি এক্সচেঞ্জ প্রতিষ্ঠান থেকে পরিমাণে বেশি টাকা বহন করছেন এমন ব্যক্তিদের পিছু নিতো। সুবিধাজনক জায়গায় অস্ত্রের মুখে ছিনিয়ে নিতো টার্গেটকৃত ব্যক্তির সর্বস্ব।

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) রাজধানী ঢাকা, সাভার ও যশোরে অভিযান চালিয়ে এই চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেফতার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের রমনা জোনাল টিম। গ্রেফতারকৃতরা হলো—জলিল মোল্লা, রিয়াজ ও দীপু। তাদের কাছ থেকে ডাকাতি করে নেওয়া নগদ এক লাখ টাকা, ৫০ রাউন্ড গুলিসহ দুটি অত্যাধুনিক বিদেশি রিভলভার ও ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত দুটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের রমনা জোনাল টিমের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মিশু বিশ্বাস বলেন, ‘গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে আগের ডাকাতি মামলা ছাড়াও নতুন করে অস্ত্র আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ডাকাতি মামলায় তিন জনের মধ্যে জলিল মোল্লার তিন দিন ও বাকি দুই জনের দুই দিন করে রিমান্ডে আনা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে সহযোগীদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান চালানো হচ্ছে।’

গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানান, এই ডাকাতদের দলনেতা হলো জালাল মোল্লা। তারা গত মাসের ২৮ তারিখে মৌচাক ফ্লাইওভারে একজন মানি এক্সচেঞ্জ ব্যবসায়ীর গাড়ি আটকিয়ে ৬০ লাখ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় মুন্সি শিমুল হাসান নামে ওই ব্যবসায়ী রমনা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় তিনি বলেন, ‘মতিঝিলের প্রাইড ও নিহন মানি এক্সচেঞ্জ থেকে তার ভাতিজা আবিদ ও গাড়িচালক টাকা নিয়ে প্রাইভেটকারে করে ফ্লাইওভারের ওপর দিয়ে গুলশানের দিকে যাচ্ছিলেন। মৌচাক ফ্লাইওভারের ওপর তার গাড়ির গতিরোধ করে হাতুড়ি দিয়ে গ্লাস ভেঙে অস্ত্রের মুখে টাকার ব্যাগটি নিয়ে চলে যায়। যাওয়ার সময় ডাকাত দলের সদস্যরা কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে। এতে এক পথচারী গুলিবিদ্ধ হন।’

সংশ্লিষ্টরা জানান, মৌচাকের ঘটনার এক সপ্তাহ পর (৪ সেপ্টেম্বর, শনিবার) এই ডাকাত চক্রটি আরেকটি ঘটনা ঘটায়। নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারের বাসিন্দা জয়নাল আবেদীন নামে এক ব্যবসায়ী ৪ সেপ্টেম্বর মতিঝিল থেকে ২৫ লাখ টাকা নিয়ে এলাকায় ফিরছিলেন। সিদ্ধিরগঞ্জ সাইনবোর্ড এলাকায় দুটি মোটরসাইকেলে ডাকাত দলের সদস্যরা তার মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে অস্ত্রের মুখে ২৫ লাখ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানান, এই ডাকাত দলের সদস্যরা প্রতি শনিবার ডাকাতি করে থাকে। ডাকাতির আগের দিন শুক্রবারে তারা প্রত্যেকেই শপথ নেয়। এছাড়া দলে কোনও নতুন সদস্য যোগদান করলেও তাকে শপথ করানো হয়। আর শনিবারে ডাকাতির কারণ হিসেবে তারা জানিয়েছে, বন্ধের দিন হলেও শনিবারে কিছু কিছু অফিস খোলা থাকে। ব্যাংকেও সীমিত সময়ের জন্য লেনদেন হয়। মানি এক্সচেঞ্জ প্রতিষ্ঠানগুলোতে লেনদেন হয়। এছাড়া শনিবারে রাস্তায় তুলনামূলক যানজট কম থাকার কারণে ডাকাতরা দ্রুত পালিয়ে যেতে পারে। এ জন্য ডাকাত দলের চক্রের একজন-দুজন মতিঝিলের বিভিন্ন মানি এক্সচেঞ্জ প্রতিষ্ঠানগুলোতে ঘোরাফেরা করে বেশি টাকা নিয়ে বের হওয়াদের অনুসরণ করে। মৌচাক ও সিদ্ধিরগঞ্জের দুটি ডাকাতির ঘটনাতেই ডাকাত দলের সদস্যরা মতিঝিল থেকেই তাদের অনুসরণ করেছিল বলে রিমান্ডের জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে।

বিপুল সম্পত্তি, মামলা হবে মানিলন্ডারিংয়ের

গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তারা বলছেন, ডাকাত দলের সদস্যদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধেই আগে থেকেই একাধিক মামলা রয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানিয়েছে, ডাকাতি করে তারা বিপুল সম্পত্তির মালিকও হয়েছে। ডাকাত চক্রের দলনেতা জালাল মোল্লার গ্রামের বাড়ি বরিশালে। ডাকাতি করা অর্থ দিয়ে তিনি ১০০ শতাংশ জমি কিনে সেখানে মাছের ঘের করেছেন। আরেক ডাকাত সদস্য দীপুর বাড়ি যশোরে। তিনিও ডাকাতির টাকায় এলাকায় অনেক সম্পত্তি কিনেছেন। তার স্ত্রী স্থানীয় একটি সরকারি প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষিকা।

গোয়েন্দা পুলিশের একজন কর্মকর্তা জানান, এই ডাকাত চক্রের পলাতক আরেকজন সদস্য পটুয়াখালীতে মিষ্টির দোকান ও গরুর খামার গড়ে তুলেছেন। তারা যে আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করেন তাও অনেক দামি। গ্রেফতারকৃত তিন ডাকাতের কাছ থেকে যে দুটি বিদেশি রিভলভার উদ্ধার করা হয়েছে তার প্রত্যেকটির দাম ছয় লাখ টাকা করে। এছাড়া পলাতক ডাকাত সদস্যদের কাছেও আরও একাধিক অস্ত্র রয়েছে বলে তারা জানতে পেরেছেন।

গোয়েন্দা পুলিশের এই কর্মকর্তা জানান, ডাকাত দলের অন্যান্য সদস্যদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান চালানো হচ্ছে। এই ডাকাত দলের সদস্যদের বিষয়ে মানিলন্ডারিংয়ের মামলা দায়েরের জন্য পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের কাছে চিঠি পাঠানো হবে।

 

/আইএ/

সম্পর্কিত

ঘুমধুম সীমান্তে দেড় লাখ পিস ইয়াবা জব্দ

ঘুমধুম সীমান্তে দেড় লাখ পিস ইয়াবা জব্দ

আইস আসছে মিয়ানমার হয়ে, কারবারে বিদেশফেরত উচ্চ শিক্ষিতরা

আইস আসছে মিয়ানমার হয়ে, কারবারে বিদেশফেরত উচ্চ শিক্ষিতরা

আদাবরে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে যুবক আহত

আদাবরে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে যুবক আহত

বাড্ডায় ১০ কেজি গাঁজাসহ গ্রেফতার ২

বাড্ডায় ১০ কেজি গাঁজাসহ গ্রেফতার ২

ঘুমধুম সীমান্তে দেড় লাখ পিস ইয়াবা জব্দ

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:০৯

কক্সবাজারের উখিয়ার ঘুমধুম সীমান্ত থেকে দেড় লাখ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ করেছে বিজিবি। যার আনুমানিক মূল্য ৪ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) ব্যাটালিয়নের ঘুমধুম বিওপি এই অভিযান পরিচালনা করে। ব্যাটালিয়ন (৩৪ বিজিবি) অধিনায়ক আলী হায়দার আজাদ আহমেদ এ তথ্য জানান।

আলী হায়দার জানান, বিজিবি’র কক্সবাজার ব্যাটালিয়ন (৩৪ বিজিবি) এর অধীনস্থ ঘুমধুম বিওপির সদস্যরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারেন, কতিপয় ইয়াবা ব্যবসায়ী বিপুল পরিমাণ ইয়াবা নিয়ে মিয়ানমার হতে বাংলাদেশে প্রবেশ করবে। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে আজ ভোরে ঘুমধুম বিওপির একটি চৌকস টহল দল কক্সবাজার উখিয়া উপজেলার ৪ নম্বর রাজাপালং ইউপির উখিয়া হিন্দুপাড়া এলাকায় অবস্থান নেয়। পরে কয়েকজনকে পায়ে হেঁটে বাংলাদেশের দিকে আসতে দেখে টহলদল তাদের চ্যালেঞ্জ করে। পরে তারা তাদের ব্যাগ ফেলে মিয়ানমারের দিকে পালিয়ে যায়। টহলদল ঘটনাস্থল হতে লুঙ্গি দিয়ে মোড়ানো ব্যাগ তল্লাশি করে এক লাখ ৫০ হাজার পিস বার্মিজ ইয়াবা উদ্ধার করে। এ ব্যাপারে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। 

কক্সবাজার ব্যাটালিয়ন (৩৪ বিজিবি) এর দায়িত্বপূর্ণ এলাকায় গত ১ জানুয়ারি হতে আজ পর্যন্ত মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করে ১১৩ কোটি ৪৩ লাখ ২১ হাজার ৬০০ টাকা মূল্যের ৩৭ লাখ  ৮১ হাজার ২ পিস বার্মিজ ইয়াবাসহ ১৮৩ জনকে আটক করা হয়েছে।

 

/আরটি/আইএ/

সম্পর্কিত

শুক্রবারে শপথ, শনিবারে ডাকাতি

শুক্রবারে শপথ, শনিবারে ডাকাতি

আইস আসছে মিয়ানমার হয়ে, কারবারে বিদেশফেরত উচ্চ শিক্ষিতরা

আইস আসছে মিয়ানমার হয়ে, কারবারে বিদেশফেরত উচ্চ শিক্ষিতরা

আদাবরে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে যুবক আহত

আদাবরে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে যুবক আহত

বাড্ডায় ১০ কেজি গাঁজাসহ গ্রেফতার ২

বাড্ডায় ১০ কেজি গাঁজাসহ গ্রেফতার ২

রাজধানীতে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় নারী নিহত

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৩৯

রাজধানীর ধনিয়ায় রাস্তা পার হওয়ার সময়ে উল্টো পথের মোটরসাইকেলের ধাক্কায় মহিফুল বেগম (৬৫) নামে এক নারী পথচারী নিহত হয়েছেন। শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের ছেলে মিলন জানিয়েছেন, তার মা বিকালে বাসা থেকে বের হয়ে ধনিয়া মেইন রোড পার হচ্ছিলেন। এ সময় উল্টো পথের একটি মোটরসাইকেল তাকে ধাক্কা দেয়। তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতাল এবং পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে এলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘মৃতদেহটি হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট থানাকে অবহিত করা হয়েছে। এ ঘটনায় মোটরসাইকেলটিকে জব্দ ও চালককে আটক করেছে পুলিশ।’

নিহত মহিফুল বেগম ভোলা জেলার লালমোহন উপজেলার কাল মোল্লা গ্রামের মফিজুল ইসলামের স্ত্রী। বর্তমানে তিনি ধনিয়া বেলতলায় পরিবারের সঙ্গে থাকতেন। এক ছেলে এক মেয়ের জননী ছিলেন তিনি।

 

/আরটি/আইএ/

সম্পর্কিত

অফিসের ফ্যানে লামিয়া গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যানের ঝুলন্ত লাশ

অফিসের ফ্যানে লামিয়া গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যানের ঝুলন্ত লাশ

লোকজ পণ্যের সমাহার (ফটোস্টোরি)

লোকজ পণ্যের সমাহার (ফটোস্টোরি)

আদাবরে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে যুবক আহত

আদাবরে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে যুবক আহত

‘ভবনে বৃষ্টির পানি ধরে রাখার ব্যবস্থা থাকলে ট্যাক্সে বিশেষ ছাড়’

‘ভবনে বৃষ্টির পানি ধরে রাখার ব্যবস্থা থাকলে ট্যাক্সে বিশেষ ছাড়’

ঢাবি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের ৭৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:১৯

ঢাকা ইউনিভার্সিটি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের ৭৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) উদযাপন করা হয়েছে। নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবন চত্বরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কর্মসূচির উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আখতারুজ্জামান বলেন, ‘টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন ও চতুর্থ শিল্প বিল্পব উপযোগী বিশ্ববিদ্যালয় বিনির্মাণ এবং দক্ষ মানবসম্পদ তৈরিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মৌলিক ও প্রায়োগিক গবেষণাসহ উদ্ভাবন ও উদ্যোক্তামুখী নানারকম কর্মপ্রয়াস গ্রহণ করেছে। অ্যালামনাই নেটওয়ার্কিং ও ইন্ড্রাস্ট্রি অ্যাকাডেমিয়া সম্পর্ক বৃদ্ধির মাধ্যমে এসব উদ্যোগ বাস্তবায়নে ঢাকা ইউনিভার্সিটি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এসডিজি বাস্তবায়ন ও প্রচারণায় এবং এসডিজিমুখী একটি সমাজ বিনির্মাণে অনন্য অবদানের জন্য বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্প্রতি জাতিসংঘ থেকে ‘Jewel in the crown of the day’ স্বীকৃতি পেয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর এই অর্জন ও স্বীকৃতি ধরে রাখার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় এবং অ্যালামনাই নেটওয়ার্কিং অনুষঙ্গী শক্তি হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আমার প্রত্যাশা।’

এ সময় অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এ. কে. আজাদের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল হক ভূঁইয়া, অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব রঞ্জন কর্মকারসহ অ্যালামনাইবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

 

/আইএ/

সম্পর্কিত

কারখানা মালিক ও সংশ্লিষ্টদের বিচারের দাবি

কারখানা মালিক ও সংশ্লিষ্টদের বিচারের দাবি

‘ভবনে বৃষ্টির পানি ধরে রাখার ব্যবস্থা থাকলে ট্যাক্সে বিশেষ ছাড়’

‘ভবনে বৃষ্টির পানি ধরে রাখার ব্যবস্থা থাকলে ট্যাক্সে বিশেষ ছাড়’

জ্বালানি-নির্ভর বিদ্যুতে বিনিয়োগ বন্ধের দাবি

জ্বালানি-নির্ভর বিদ্যুতে বিনিয়োগ বন্ধের দাবি

একটি হাত ব্যাগ ও সৌদি আরব প্রবাসীর কান্না-হাসি

একটি হাত ব্যাগ ও সৌদি আরব প্রবাসীর কান্না-হাসি

রূপগঞ্জে ৫৪ শ্রমিকের মৃত্যু

কারখানা মালিক ও সংশ্লিষ্টদের বিচারের দাবি

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:০১

নারায়গঞ্জের রূপগঞ্জে সেজান জুস কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে ৫৪ জন শ্রমিকের মৃত্যুর জন্য কারখানা মালিক ও সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মকর্তাদের দায়ী করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছে শ্রমিক কর্মচারী পরিষদ (স্কপ)। শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টায় রূপগঞ্জের সেজান সুজ কারখানার সামনে শ্রমিক সমাবেশে বক্তারা এ দাবি জানান।

তাদের অন্য দাবিগুলো হলো:

—সুষ্ঠু তদন্ত ও সঠিক কারণ উদ্ঘাটনের স্বার্থে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করতে হবে।

—মৃত্যুবরণকারী শ্রমিকদের আইএলও কনভেনশন-১২১ অনুযায়ী আজীবন আয়ের সমান ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। এ ক্ষেত্রে হাইকোর্টের নির্দেশনা এবং রানা প্লাজা ধসের ঘটনায় ক্ষতিপূরণের হারকে বিবেচনায় নেওয়া যেতে পারে।

—ক্ষতিপূরণের একই হারে আহতদের চিকিৎসা, পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করতে হবে।

—ফ্যাক্টরি বন্ধ থাকা অবস্থায় কর্মহীন শ্রমিকদের মজুরি দিতে হবে।

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন শ্রমিক নেতা আব্দুল হাই শরিফ এবং সঞ্চালনা করেন হাফিজুর রহমান।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন স্কপ এর যুগ্ম সমন্বয়ক ও জাতীয়তাবদী শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, রূপ সমন্বয়ক ও জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি কামরুল আহসান, জাতীয় শ্রমিক জোট বাংলাদেশের সভাপতি সাইফুজ্জামান বাদশা, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব বুলবুল, জাতীয় শ্রমিক লীগের ট্রেড ইউনিয়ন সমন্বয় সম্পাদক ফিরোজ হুসাইন, সরদার খোরশেদসহ আরও অনেকে।

বক্তারা বলেন, অগ্নিকাণ্ড ও শ্রমিক নিহত হওয়ার কারণ অনুসন্ধানে গঠিত ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটির পর্যবেক্ষণে সেজান জুস কারখানায় ভবন নির্মাণে ত্রুটি, অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা বিধি অনুযায়ী পর্যাপ্ত না থাকা, প্রতিটি ফ্লোর তোলাবদ্ধ করে রাখা, শিশু শ্রমিক নিয়োগ, মালিক পক্ষের শ্রম আইন ও বিধি মেনে না চলা, পরিদর্শন অধিদফতরের শ্রম আইনের বিধান অনুযায়ী পরিদর্শন কাজে অবহেলা, স্বল্প মজুরিতে কাজ করানোসহ নানা অসঙ্গতি দৃশ্যমান হয়েছে। আর অগ্নি নির্বাপণ কর্তৃপক্ষ, স্থানীয় সরকার প্রশাসন, শ্রম দফতর, কলকারখানা পরিদর্শন অধিদফতরের দুর্নীতিগ্রস্ত কর্মকর্তাদের যোগসাজশে মালিক কর্তৃপক্ষ এসব অসঙ্গতি নিয়ে কারখানা পরিচালনা করে শ্রমিকদের কাঠামোগত হত্যাকাণ্ডের মধ্যে ঠেলে দিয়েছে।’

এ সময় তারা এ ঘটনার জন্য দায়ীদের শাস্তির দাবি জানান। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তারা। শ্রমিক সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল সংশ্লিষ্ট এলাকার সড়ক প্রদিক্ষণ করে।

 

/আইএ/

সম্পর্কিত

ঢাবি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের ৭৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

ঢাবি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের ৭৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

‘ভবনে বৃষ্টির পানি ধরে রাখার ব্যবস্থা থাকলে ট্যাক্সে বিশেষ ছাড়’

‘ভবনে বৃষ্টির পানি ধরে রাখার ব্যবস্থা থাকলে ট্যাক্সে বিশেষ ছাড়’

জ্বালানি-নির্ভর বিদ্যুতে বিনিয়োগ বন্ধের দাবি

জ্বালানি-নির্ভর বিদ্যুতে বিনিয়োগ বন্ধের দাবি

একটি হাত ব্যাগ ও সৌদি আরব প্রবাসীর কান্না-হাসি

একটি হাত ব্যাগ ও সৌদি আরব প্রবাসীর কান্না-হাসি

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

উচ্চ শিক্ষায় করারোপের প্রস্তাব পুনর্বিবেচনার দাবি বিসিআই'র

উচ্চ শিক্ষায় করারোপের প্রস্তাব পুনর্বিবেচনার দাবি বিসিআই'র

 ‘বাজেটে আমলাদের খাতির করা হয়েছে’

 ‘বাজেটে আমলাদের খাতির করা হয়েছে’

বাজেটে নতুন দরিদ্রদের স্বীকৃতি নেই

বাজেটে নতুন দরিদ্রদের স্বীকৃতি নেই

‘বাজেটে খেটে খাওয়া মানুষের কোনও সুখবর নেই’

‘বাজেটে খেটে খাওয়া মানুষের কোনও সুখবর নেই’

রেমিট্যান্সের বিপরীতে প্রণোদনা আরও এক শতাংশ বৃদ্ধির দাবি

রেমিট্যান্সের বিপরীতে প্রণোদনা আরও এক শতাংশ বৃদ্ধির দাবি

‘বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়ের ওপর কর বাড়ানো যৌক্তিক নয়’

‘বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়ের ওপর কর বাড়ানো যৌক্তিক নয়’

এমপিওভুক্তিতে সুখবর, বরাদ্দ ৩০০ কোটিরও বেশি

এমপিওভুক্তিতে সুখবর, বরাদ্দ ৩০০ কোটিরও বেশি

সর্বশেষ

‘নারীদের দাবি মেনে নেওয়া ছাড়া উপায় নেই তালেবানের’

‘নারীদের দাবি মেনে নেওয়া ছাড়া উপায় নেই তালেবানের’

শুক্রবারে শপথ, শনিবারে ডাকাতি

শুক্রবারে শপথ, শনিবারে ডাকাতি

বিদেশের কাছে দেনা বাড়ছেই

বিদেশের কাছে দেনা বাড়ছেই

ফেন্সিংয়ের সাবেক সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি

ফেন্সিংয়ের সাবেক সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি

মেয়ের জামাইকে গাছের সঙ্গে বেঁধে পেটালেন শ্বশুর-শাশুড়ি!

মেয়ের জামাইকে গাছের সঙ্গে বেঁধে পেটালেন শ্বশুর-শাশুড়ি!

© 2021 Bangla Tribune