X
শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ৪ আষাঢ় ১৪২৮

সেকশনস

নওগাঁয় উপেক্ষিত কঠোর বিধিনিষেধ!

আপডেট : ০৬ জুন ২০২১, ১৩:৫৪

করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে নওগাঁ পৌরসভা এলাকা ও নিয়ামতপুর উপজেলায় সর্বাত্মক লকডাউন চলছে। রবিবার (৬ জুন) এই দুই এলাকায় ১৫ বিধিনিষেধ আরোপের চতুুুুর্থ দিন পার হচ্ছে। এদিন লকডাউনের আগের তিন দিনের তুলনায় রাস্তাঘাটে মানুষের চলাচল বেড়েছে। তবে অনেকের মুখে নেই মাস্ক। স্বাস্থ্যবিধি না মেনে একে অপরের গা ঘেঁষে চলাচল করছে। রাস্তার ধারে এবং বিভিন্ন পাড়ায় অনেক দোকান খোলা রাখতেও দেখা গেছে।

পুলিশ ও প্রশাসনের তৎপরতার কারণে নওগাঁ পৌর শহরের প্রধান সড়কগুলোতে যানবাহন ও মানুষের চলাচল কম দেখা গেলেও পাড়া-মহল্লার রাস্তায় স্থানীয়দের অবাধে ঘুরে বেড়াতে দেখা গেছে।

শহরের বিভিন্ন এলাকা ও নিয়ামতপুর উপজেলায় এসব দৃশ্য দেখা যায়। সকালে নওগাঁ শহরের বাঙ্গাবাড়িয়া, ডিগ্রি কলেজের মোড়, তাড়ের মোড়, ডাবপট্টি ঘুরে দেখা গেছে, সড়কে রিকশা, অটোরিকশা, ভ্যান, মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন যানবাহন ও মানুষের চলাচল বেড়েছে। এসব মহল্লার অধিকাংশ দোকানপাট খোলা থাকতেও দেখা গেছে।

একই অবস্থা নিয়ামতপুর উপজেলার টিএলবি বাজার, নীমদিঘী, রামকুড়া মোড় গিয়ে
দেখা গেছে, অনেকটা স্বাভাবিক দিনের মতো অবস্থা।

এদিকে কয়েকদিন ধরে জেলায় করোনা সংক্রমণের হার কিছুটা নিম্নমুখী লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তবে এখনও করোনা সংক্রমণের হার উদ্বেগজনক বলে মনে করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

নওগাঁর সিভিল সার্জন ডা. এবিএম আবু হানিফ বলেন, মানুষ সচেতন না হলে লকডাউন কিংবা বিধিনিষেধ যতই আরোপ করা হোক না কেন, তা কাজে আসবে না। মানুষের এমন উদাসীনতার কারণে আমাদের সবাইকে মূল্য দিতে হবে। বিধিনিষেধ আরোপের ফলে সাময়িক একটু কষ্ট হলেও জীবন রক্ষা হবে, এই বোধ থেকে আমাদের সবাইকে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা উচিত।

তিনি আরও বলেন, নওগাঁয় প্রথম করোনা শনাক্ত হয় গত বছরের ১৩ মে। রবিবার পর্যন্ত দুই হাজার ৩৮৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে ৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানান তিনি। যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললেই কেবল এই সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ হতে পারে।

তিনি বলেন, নওগাঁর কোনও হাসপাতালে আইসিইউ নেই। জেলার করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট নওগাঁ সদর আধুনিক হাসপাতালের করোনা ইউনিটসহ সরকারি-বেসরকারি কোনও হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ) নেই।

নওগাঁ জেলা প্রশাসক হারুন অর রশিদ বলেন, আমরা প্রশাসনের পক্ষ থেকে লকডাউন বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছি। নিয়মিত আমরা মাঠে রয়েছি। লকডাউনের পাশাপাশি বাজারে যেন নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বৃদ্ধি না হয় সেই জন্য বাজার মনিটরিংও করছি। তবে অধিকাংশ মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মানছে না। অনেকেই মাস্ক ছাড়া বাড়ির বাইরে বের হচ্ছেন। সামাজিক দূরত্ব মানার বিষয়েও অনেকেই উদাসীন। কেউ-কেউ প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে দোকান খোলা রাখছে। তবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সবাইকে বুঝিয়ে লকডাউন সফল করার চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

১২ ঘণ্টা হাসপাতালে হিন্দু ব্যক্তির লাশ, সৎকার করলেন মুসলিম যুবকরা

১২ ঘণ্টা হাসপাতালে হিন্দু ব্যক্তির লাশ, সৎকার করলেন মুসলিম যুবকরা

পরীক্ষা বাড়ালেই রোগী বাড়ে

পরীক্ষা বাড়ালেই রোগী বাড়ে

টিকা নিলেই মুরগি উপহার

টিকা নিলেই মুরগি উপহার

চট্টগ্রামে বেড়েছে মৃত্যু ও সংক্রমণ 

চট্টগ্রামে বেড়েছে মৃত্যু ও সংক্রমণ 

ঢাকায় ৬০ নমুনার ৬৮ শতাংশ ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট!

ঢাকায় ৬০ নমুনার ৬৮ শতাংশ ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট!

এত বড় হোয়াইট ফাঙ্গাস আগে দেখেননি চিকিৎসকও

এত বড় হোয়াইট ফাঙ্গাস আগে দেখেননি চিকিৎসকও

যশোর হাসপাতালে করোনা রোগী রাখার জায়গা নেই

যশোর হাসপাতালে করোনা রোগী রাখার জায়গা নেই

বিদেশগামী কর্মীরা পাচ্ছেন সিনোফার্মের টিকা

বিদেশগামী কর্মীরা পাচ্ছেন সিনোফার্মের টিকা

ফেসবুকে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে বাড়ি ডেকে টাকা আদায়, গ্রেফতার ৩

ফেসবুকে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে বাড়ি ডেকে টাকা আদায়, গ্রেফতার ৩

কোভিশিল্ডের টিকা এক কোটি ৮৪ হাজার শেষ

কোভিশিল্ডের টিকা এক কোটি ৮৪ হাজার শেষ

শৃঙ্খলা ভঙ্গ, বগুড়া পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি বহিষ্কার

শৃঙ্খলা ভঙ্গ, বগুড়া পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি বহিষ্কার

নোয়াখালীতে তৃতীয় দফায় বাড়লো বিশেষ লকডাউন

নোয়াখালীতে তৃতীয় দফায় বাড়লো বিশেষ লকডাউন

সর্বশেষ

পুতিনের সাড়ে ৪ হাজার কোটি টাকার বিমানে সোনায় মোড়ানো টয়লেট

পুতিনের সাড়ে ৪ হাজার কোটি টাকার বিমানে সোনায় মোড়ানো টয়লেট

শটগান নিয়ে নির্বাচনি এলাকায় ঘোরাফেরা, আটক ১

শটগান নিয়ে নির্বাচনি এলাকায় ঘোরাফেরা, আটক ১

ইউটার্নের সময় বাসের ধাক্কায় প্রাইভেটকার চালকসহ নিহত ৩

ইউটার্নের সময় বাসের ধাক্কায় প্রাইভেটকার চালকসহ নিহত ৩

১২ ঘণ্টা হাসপাতালে হিন্দু ব্যক্তির লাশ, সৎকার করলেন মুসলিম যুবকরা

১২ ঘণ্টা হাসপাতালে হিন্দু ব্যক্তির লাশ, সৎকার করলেন মুসলিম যুবকরা

সপ্তাহের সেরা চাকরির বিজ্ঞাপন

সপ্তাহের সেরা চাকরির বিজ্ঞাপন

মাসে ৫৭ হাজার টাকা আয় করা প্রবাসী দেশে এসে সাহায্য চান

মাসে ৫৭ হাজার টাকা আয় করা প্রবাসী দেশে এসে সাহায্য চান

টিকা নিলেই মুরগি উপহার

টিকা নিলেই মুরগি উপহার

পরীক্ষা বাড়ালেই রোগী বাড়ে

পরীক্ষা বাড়ালেই রোগী বাড়ে

সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের ৫২৯১ কোটি টাকা

সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের ৫২৯১ কোটি টাকা

অশ্রুবিন্দুর মতো স্পষ্ট ও নিঃসঙ্গ

পাখিদের নির্মিত সাঁকোঅশ্রুবিন্দুর মতো স্পষ্ট ও নিঃসঙ্গ

শুরুতে কত ছিল বিদ্যার পারিশ্রমিক?

শুরুতে কত ছিল বিদ্যার পারিশ্রমিক?

রোনালদোদের বোতল সরাতে নিষেধ করেছে উয়েফা

রোনালদোদের বোতল সরাতে নিষেধ করেছে উয়েফা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

১২ ঘণ্টা হাসপাতালে হিন্দু ব্যক্তির লাশ, সৎকার করলেন মুসলিম যুবকরা

১২ ঘণ্টা হাসপাতালে হিন্দু ব্যক্তির লাশ, সৎকার করলেন মুসলিম যুবকরা

চট্টগ্রামে বেড়েছে মৃত্যু ও সংক্রমণ 

চট্টগ্রামে বেড়েছে মৃত্যু ও সংক্রমণ 

যশোর হাসপাতালে করোনা রোগী রাখার জায়গা নেই

যশোর হাসপাতালে করোনা রোগী রাখার জায়গা নেই

ফেসবুকে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে বাড়ি ডেকে টাকা আদায়, গ্রেফতার ৩

ফেসবুকে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে বাড়ি ডেকে টাকা আদায়, গ্রেফতার ৩

শৃঙ্খলা ভঙ্গ, বগুড়া পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি বহিষ্কার

শৃঙ্খলা ভঙ্গ, বগুড়া পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি বহিষ্কার

নোয়াখালীতে তৃতীয় দফায় বাড়লো বিশেষ লকডাউন

নোয়াখালীতে তৃতীয় দফায় বাড়লো বিশেষ লকডাউন

হটলাইনে কল দিলেই বাসায় পৌঁছে যাবে অক্সিজেন

হটলাইনে কল দিলেই বাসায় পৌঁছে যাবে অক্সিজেন

আইসিইউ সরঞ্জাম বাক্সবন্দি,  সেবাবঞ্চিত মুমূর্ষু শ্বাসকষ্টের রোগীরা 

আইসিইউ সরঞ্জাম বাক্সবন্দি, সেবাবঞ্চিত মুমূর্ষু শ্বাসকষ্টের রোগীরা 

সাতক্ষীরায় ফের বাড়লো লকডাউন

সাতক্ষীরায় ফের বাড়লো লকডাউন

© 2021 Bangla Tribune