X
মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ১ আষাঢ় ১৪২৮

সেকশনস

নদী বাঁচাতে শুধু আইন নয়, প্রয়োজন আইনের কঠোর প্রয়োগ

আপডেট : ০৬ জুন ২০২১, ১৮:৪৫

নদী বাঁচাতে শুধু নতুন নতুন আইন পাস করলেই হবে না, বরং বিদ্যমান আইনগুলোর কঠোর প্রয়োগ প্রয়োজন বলে মনে করছেন বিশিষ্টজনরা। রবিবার (৬ মে) বিশ্ব পরিবেশ দিবস-২০২১ উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) উদ্যোগে ‘বাংলাদেশের নদী ব্যবস্থাপনা ও খনন’ শীর্ষক এক ওয়েবিনারে বক্তারা এমন মত দেন।

ওয়েবিনারে সভাপতিত্ব করেন বাপার সহ-সভাপতি ড. নজরুল ইসলাম। আলোচনা করেন নদী বিশেষজ্ঞ ও সিইজিআইএস এর উপদেষ্টা ড. মমিনুল হক সরকার, বাপার নির্বাহী সহ-সভাপতি ডা. মো. আব্দুল মতিন, যুক্তরাষ্ট্রের লকহ্যাভেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মো. খালেকুজ্জামান, জাতীয় নদী জোটের আহ্বায়ক শারমীন মুরশিদ, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক তুহিন ওয়াদুদ, চলনবিল রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য আফজাল হোসেনসহ আরও অনেকেই। ওয়েবিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মুজিবুর রহমান হাওলাদার।

আলোচনায় আফজাল হোসেন বলেন, পদ্মা ও যমুনার সাথে সাথে চলনবিলকে ক্যাপিটাল ড্রেজিং-এর আওতায় নিয়ে আসা দরকার। চলনবিল পুরোটা খননের প্রয়োজন নেই। কিন্তু নিয়মিত ড্রেজিং করতে হবে। এর আগে যে ড্রেজিং করা হয়েছিল তাতে ড্রেজিং-এর মাটি এমন জায়গায় রাখা হচ্ছিল তাতে সেই মাটি আবার নদীতেই এসে পড়ছে। মাঝে অভিযোগ তোলার পর বন্ধ হলেও এখন আবার একইভাবেই ড্রেজিং চলছে। বড়াল নদীর ক্ষেত্রেও ড্রেজিং-এর একই অবস্থা। আমরা চাই পরিবেশ ও প্রতিবেশ বান্ধব ড্রেজিং করা হোক।

এ আলোচনার সূত্র ধরেই ড. খালেকুজ্জামান বলেন, আমাদের ড্রেজিং এবং পলিমাটির কোনও সঠিক তথ্য নেই। এত টাকা খরচ করে ড্রেজিং করার পর যদি আবার সেই মাটি নাদীতেই পড়ে তাহলে তো এর কোনও লাভ নেই। সঠিক পরিকল্পনা করে এই ড্রেজিং করতে হবে। সরকার বেশ কিছু ড্রেজার কিনেছে। এগুলো দিয়ে আসলে কী পরিমাণ ড্রেজিং করা যাবে তার পরিকল্পনা কিন্তু নেই।

ড্রেজিং-এর মাটির ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, অনেক দেশ পলিমাটি কেনে। আমরা এই মাটি গ্রামের রাস্তা উঁচু করাসহ নানা কাজে ব্যবহার করতে পারি। এতে ড্রেজিং এর পরের মাটিগুলো কাজে লাগানো সম্ভব।

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মুজিবুর রহমান হাওলাদার বলেন, নদী সমীক্ষা না করে ড্রেজিং করা উচিত নয়। নদীভিত্তিক কোনও প্রকল্প নিতে হলে সব ধরনের পরীক্ষা করতে হবে। নদী রক্ষায় সবাইকে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলেও তা হচ্ছে না। সমস্যাগুলো জানা আছে, আইনও আছে, এখন আমরা সকলে মিলে কাজ করলে নদী বাঁচানো সম্ভব। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে যারা ভাল কাজ করতে চান তারা করতে পারছেন না।

ওয়েবিনারের সভাপতির বক্তব্যে নজরুল ইসলাম বলেন, প্রকৃতিসম্মত পন্থা অবলম্বন করলে নদী খননের প্রয়োজনই হতো না। নদীর জীবন আছে, নদী একটি জীবন্ত সত্ত্বা। আমরা যদি প্রকৃতিসম্মত পন্থা অবলম্বন করতাম, তাহলে নদী মারা যেতো না। মূল ব্যর্থতাটা এখানেই।

/এসএনএন/ ইউএস/

সম্পর্কিত

বিক্রয় খাতে নারী এবং প্রতিবন্ধীরা উপেক্ষিত: ব্র্যাক

বিক্রয় খাতে নারী এবং প্রতিবন্ধীরা উপেক্ষিত: ব্র্যাক

গার্ড অব অনার: নারী ইউএনও’র বিকল্প প্রস্তাবের নিন্দা সিপিবির

গার্ড অব অনার: নারী ইউএনও’র বিকল্প প্রস্তাবের নিন্দা সিপিবির

আমি স্বস্তি নিয়ে বাঁচতে চাই: পরীমনি

আমি স্বস্তি নিয়ে বাঁচতে চাই: পরীমনি

সিপিবি-ভাঙা দলগুলো কেমন আছে?

ভাঙনের ২৮ বছরসিপিবি-ভাঙা দলগুলো কেমন আছে?

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৩৩ লাখ গাছ লাগানো হবে

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৩৩ লাখ গাছ লাগানো হবে

চার ব্যাংকের টাকা ঋণ নিয়ে ২ বছর পালিয়ে ছিলেন শহিদুল

চার ব্যাংকের টাকা ঋণ নিয়ে ২ বছর পালিয়ে ছিলেন শহিদুল

মিলাররা কেন চাল দিচ্ছেন না খতিয়ে দেখুন: খাদ্যমন্ত্রী

মিলাররা কেন চাল দিচ্ছেন না খতিয়ে দেখুন: খাদ্যমন্ত্রী

গার্ড অব অনার: সংসদীয় কমিটির চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় হাইকোর্ট

গার্ড অব অনার: সংসদীয় কমিটির চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় হাইকোর্ট

উচ্চশিক্ষা-গবেষণায় বঙ্গবন্ধুর আকাঙ্ক্ষা পূরণের অঙ্গীকার ইউজিসির

উচ্চশিক্ষা-গবেষণায় বঙ্গবন্ধুর আকাঙ্ক্ষা পূরণের অঙ্গীকার ইউজিসির

কক্সবাজারে ইয়াবা গিলে ঢাকায় এসে ধরা

কক্সবাজারে ইয়াবা গিলে ঢাকায় এসে ধরা

প্রথমবারের মতো ৬ বিলিয়ন ডলার লোকসানে এমিরেটস 

প্রথমবারের মতো ৬ বিলিয়ন ডলার লোকসানে এমিরেটস 

মুজিব আদর্শে বিশ্বাসীরা ৩টি করে গাছ লাগান: প্রধানমন্ত্রী

মুজিব আদর্শে বিশ্বাসীরা ৩টি করে গাছ লাগান: প্রধানমন্ত্রী

সর্বশেষ

বিয়ের বাজারের জন্য ডেকে নিয়ে তরুণীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ

বিয়ের বাজারের জন্য ডেকে নিয়ে তরুণীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ

গুগল মিটে নেওয়া ক্লাসের সপ্তাহভিত্তিক তথ্য নিয়মিত পাঠানোর নির্দেশ

গুগল মিটে নেওয়া ক্লাসের সপ্তাহভিত্তিক তথ্য নিয়মিত পাঠানোর নির্দেশ

বিক্রয় খাতে নারী এবং প্রতিবন্ধীরা উপেক্ষিত: ব্র্যাক

বিক্রয় খাতে নারী এবং প্রতিবন্ধীরা উপেক্ষিত: ব্র্যাক

আড়াই মাস পর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় থামলো ট্রেন

আড়াই মাস পর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় থামলো ট্রেন

আবু ত্ব-হা’র সন্ধান বের করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব: বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস

আবু ত্ব-হা’র সন্ধান বের করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব: বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস

গৃহবধূকে অপহরণ করে আটকে রেখে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেফতার ১

গৃহবধূকে অপহরণ করে আটকে রেখে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেফতার ১

বাইডেনের সঙ্গে বৈঠক নিয়ে যা বললেন এরদোয়ান

বাইডেনের সঙ্গে বৈঠক নিয়ে যা বললেন এরদোয়ান

নোবেলকে মহানায়ক বললেন আমান রেজা

নোবেলকে মহানায়ক বললেন আমান রেজা

ঢাকা মহানগর হেফাজতের সাবেক নেতা আজহারুল রিমান্ডে

ঢাকা মহানগর হেফাজতের সাবেক নেতা আজহারুল রিমান্ডে

গার্ড অব অনার: নারী ইউএনও’র বিকল্প প্রস্তাবের নিন্দা সিপিবির

গার্ড অব অনার: নারী ইউএনও’র বিকল্প প্রস্তাবের নিন্দা সিপিবির

সীমান্ত স্কয়ারে অগ্নিকাণ্ড

সীমান্ত স্কয়ারে অগ্নিকাণ্ড

ফ্লাইওভারে প্রাইভেটকার আটকিয়ে হেনস্তা, সেই পাঁচ তরুণ গ্রেফতার

ফ্লাইওভারে প্রাইভেটকার আটকিয়ে হেনস্তা, সেই পাঁচ তরুণ গ্রেফতার

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

বিক্রয় খাতে নারী এবং প্রতিবন্ধীরা উপেক্ষিত: ব্র্যাক

বিক্রয় খাতে নারী এবং প্রতিবন্ধীরা উপেক্ষিত: ব্র্যাক

আমি স্বস্তি নিয়ে বাঁচতে চাই: পরীমনি

আমি স্বস্তি নিয়ে বাঁচতে চাই: পরীমনি

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৩৩ লাখ গাছ লাগানো হবে

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৩৩ লাখ গাছ লাগানো হবে

চার ব্যাংকের টাকা ঋণ নিয়ে ২ বছর পালিয়ে ছিলেন শহিদুল

চার ব্যাংকের টাকা ঋণ নিয়ে ২ বছর পালিয়ে ছিলেন শহিদুল

গার্ড অব অনার: সংসদীয় কমিটির চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় হাইকোর্ট

গার্ড অব অনার: সংসদীয় কমিটির চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় হাইকোর্ট

উচ্চশিক্ষা-গবেষণায় বঙ্গবন্ধুর আকাঙ্ক্ষা পূরণের অঙ্গীকার ইউজিসির

উচ্চশিক্ষা-গবেষণায় বঙ্গবন্ধুর আকাঙ্ক্ষা পূরণের অঙ্গীকার ইউজিসির

কক্সবাজারে ইয়াবা গিলে ঢাকায় এসে ধরা

কক্সবাজারে ইয়াবা গিলে ঢাকায় এসে ধরা

প্রথমবারের মতো ৬ বিলিয়ন ডলার লোকসানে এমিরেটস 

প্রথমবারের মতো ৬ বিলিয়ন ডলার লোকসানে এমিরেটস 

নাসির উদ্দিন মাহমুদসহ ৫ জন আদালতে

নাসির উদ্দিন মাহমুদসহ ৫ জন আদালতে

পরীমণিকে ধর্ষণ-হত্যাচেষ্টার মামলা: তদন্ত প্রতিবেদন ৮ জুলাই

পরীমণিকে ধর্ষণ-হত্যাচেষ্টার মামলা: তদন্ত প্রতিবেদন ৮ জুলাই

© 2021 Bangla Tribune