X
মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৬ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

বঙ্গবন্ধু বলতেন ছয় দফাই এক দফা: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ০৭ জুন ২০২১, ২১:১৮

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ছয় দফার ভেতরেই এক দফা নিহিত ছিল। সেটা অন্তত আমরা পরিবারের সদস্যরা জানতাম। বঙ্গবন্ধু সব সময় বলতেন—ছয় দফা মানেই এক দফা। অর্থাৎ স্বাধীনতা। আজকে আমরা সেই স্বাধীন জাতি।

সোমবার (৭ জুন) ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ টেলিভিশনে সম্প্রচারিত (রেকর্ডকৃত) একটি অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

ঐতিহাসিক ছয় দফার ভেতরেই স্বাধীনতার এক দফা নিহিত ছিল মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু সব সময় বলতেন, ছয় দফা মানেই এক দফা। অর্থাৎ স্বাধীনতা।

কারাবন্দি বঙ্গবন্ধুর মুক্তি এবং ছয় দফার দাবিতে আন্দোলন করতে গিয়ে ১৯৬৬ সালের ৭ জুন যারা শহীদ হয়েছিলেন, তাদের কথা স্মরণ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এই ৭ জুনে রক্তের অক্ষরে তারা ছয় দফা দাবির কথা লিখে গিয়েছিল বলেই এই ছয় দফার ভিত্তিতে নির্বাচন এবং আমাদের যুদ্ধে বিজয়। আমরা স্বাধীনতা অর্জন করি।’ 

টানা তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সেই হরতালে অনেক মানুষকে তারা হত্যা করেছে। ১১ জন সেখানে জীবন দেন। রক্তের অক্ষরে ছয় দফা তারা লিখে যায়, আর সেই ছয় দফার ভিত্তিকে ৭০-এর নির্বাচন হয়। সেই নির্বাচনে সমগ্র পাকিস্তানে আওয়ামী লীগ সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন পায়, যেটা পাকিস্তানিরা কোনও দিনই আশা করেনি।’

এরপর অসহযোগ আন্দোলন ও ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ। অসহযোগ আন্দোলন থেকে সশস্ত্র বিপ্লব, সশস্ত্র বিপ্লব থেকে বিজয় অর্জন আমরা করেছি।’

বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর ছাত্রজীবন থেকে এ দেশের মানুষের জন্য সংগ্রাম করেছেন। বাঙালি জাতি একটা উন্নত জীবন পাবে, সুন্দর জীবন পাবে—এটাই তার আকাঙ্ক্ষা ছিল। তিনি সেটাই চেয়েছিলেন। তার সব সময় চিন্তা ছিল—কীভাবে এ জাতিকে দুঃখ ও দারিদ্র্য থেকে মুক্তি দেবেন, ক্ষুধা-শোষণ-বঞ্চনা থেকে মুক্তি দিয়ে একটা উন্নত জীবন দেবেন।’

তিনি বলেন, ‘পাকিস্তান সৃষ্টির পর থেকেই বাঙালি জাতির ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য যে চিন্তা চেতনাগুলো তাঁর (বঙ্গবন্ধু) ভেতরে লালিত ছিল, সেটাই প্রতিফলিত হয়েছিল ছয় দফা প্রণয়নের মাধ্যমে। আর সেটার আরও সুযোগ এসে গেলো ১৯৬৫ সালে পাকিস্তান-ভারত যুদ্ধের মধ্যে দিয়ে। যখন দেখা গেলো, এই ভূ-খণ্ডের মানুষ সম্পূর্ণভাবেই নিরাপত্তাহীন, সেই সময় তিনি এই ছয় দফা দাবিটা উত্থাপন করেন।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘ছয় দফা দাবি উত্থাপন করার সঙ্গে সঙ্গেই পাকিস্তানি শাসকদের কথা ছিল—এটা সম্পূর্ণভাবে পাকিস্তানকে বিচ্ছিন্ন করার জন্য এই দাবি তিনি তুলেছেন। কিন্তু সেটা বাস্তব না। তিনি মানুষের অধিকারের কথা বলেছেন।’

ছয় দফা দাবিকে জনগণের দাবিতে রূপান্তর করতে বঙ্গবন্ধুর ত্যাগের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘ছয় দফা দাবিকে জাতির পিতা নাম দিয়েছিলেন বাংলাদেশের মানুষের বাঁচার দাবি হিসেবে। তিনি যখন ছয় দফা দাবি উত্থাপন করেন, তখন তিনি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।’

দলের অনেকের দ্বিধাদ্বন্দ্ব থাকার মধ্যেই পরে আওয়ামী লীগের ওয়ার্কিং কমিটির সভায় ছয় দফাকে গ্রহণ করা হয় বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

এরপর ১৯ মার্চ দলের কাউন্সিলে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘সেখানে তিনি তার ভাষণে বলেছিলেন, ছয় দফার প্রশ্নে কোনও আপস নাই।’

বঙ্গবন্ধুকন্যা আরও বলেন, ‘এরপর ২০ মার্চ পল্টন ময়দানে জনসভা হয়। সেই জনসভায় সকলে ভাষণ দেন এবং ছয় দফাকে গ্রহণ করেন। তারপর তিনি (বঙ্গবন্ধু) শুরু করেন সারা বাংলাদেশ সফর। তিনি বাংলাদেশের প্রতিটি জেলায় আনাচে-কানাচে সফর করেন। একদিকে দলকে সংগঠিত করা এবং ছয় দফা দাবির প্রতি জনগণের সমর্থন আদায় করা। সেই সঙ্গে ছয় দফার জন্য আন্দোলন গড়ে তোলেন। জনগণ এই ছয় দফাকে খুব দ্রুত মেনে নেয়।’

তিনি বলেন, ‘ছয় দফা দেওয়ার পর আন্দোলন চলতে থাকে। তিনি সফর করতে থাকেন। ৮ মে নারায়ণগঞ্জে জনসভা শেষে ফিরে আসার সময় তাকে গ্রেফতার করা হয়। এছাড়া চট্টগ্রাম, পাবনা, যশোরসহ খুলনা, ময়মনসিংহ, সিলেট—যেখানেই জনসভা করেছেন, বিভিন্ন জায়গায় তাঁর বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। বক্তৃতা করার কারণে তাকে গ্রেফতার করেছে, তাকে জেলে নিয়েছে। আবার সেখান থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে আরেক জায়গায় তিনি জনসভা করেছেন। তিনি কীভাবে মানুষকে কী উৎসর্গ করেছিলেন—তাঁর বক্তব্যের মধ্য দিয়ে সেই কথাগুলো উঠে এসেছে।’

৭ জুনের হরতাল সফল করতে নিজের মায়ের অবদানের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘মে মাসে বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতারের পর তাঁর মুক্তির দাবিতে এবং ছয় দফা বাস্তবায়নের দাবিতে আন্দোলন চলছিল, তিনি কারাবন্দি থাকা অবস্থায়। তখন ৭ জুন হরতাল ডাকা হয়। এখানে আমি আমার মায়ের কথা বলবো। এই হরতাল সফল করার জন্য আমার মা বিশেষ ভূমিকা নিয়েছিলেন। তিনি ইন্টেলিজেন্স বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে আমাদের ছাত্রদের সঙ্গে, সংগঠনগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ করে হরতাল সফল করার জন্য কাজ করেছেন। ছয় দফা দাবি আদায় এবং কারাবন্দি শেখ মুজিবের মুক্তির দাবিতে ১৯৬৬ সালের ৭ জুন ঢাকাসহ সারা বাংলায় আওয়ামী লীগের ডাকে হরতাল পালিত হয়।’

 

 

/পিএইচসি/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

মৃত্যু কমেছে ২০ শতাংশ

মৃত্যু কমেছে ২০ শতাংশ

করোনায় মৃত্যু: ২৬ জনের ১৫ জনই নারী

করোনায় মৃত্যু: ২৬ জনের ১৫ জনই নারী

বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন অত্যন্ত শক্তিশালী: হাছান মাহমুদ

বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন অত্যন্ত শক্তিশালী: হাছান মাহমুদ

দুর্গাপূজা উপলক্ষে হিন্দু কল্যাণ ট্রাস্টকে প্রধানমন্ত্রীর অনুদান

দুর্গাপূজা উপলক্ষে হিন্দু কল্যাণ ট্রাস্টকে প্রধানমন্ত্রীর অনুদান

অবশেষে ৬ শর্তে ইলিশ রফতানির সিদ্ধান্ত

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:১০

সব অনুরোধ উপেক্ষা করেই ইলিশ রফতানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। দেশের ৫২টি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানকে ইলিশ রফতানির অনুমতি দিয়ে আদেশ জারি করেছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে ৪০ মেট্রিক টন করে মোট ২ হাজার ৮০ মেট্রিক টন ইলিশ রফতানির এই অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) মন্ত্রণালয়ের রফতানি-২ শাখা থেকে জারি করা এ সংক্রান্ত চিঠি আমদানি ও রফতানি-প্রধান নিয়ন্ত্রককে পাঠানো হয়েছে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব তানিয়া ইসলাম স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়েছে, আসন্ন দুর্গাপূজা উপলক্ষে ভারতে এই পরিমাণে ইলিশ মাছ রফতানির সুযোগ পাবে দেশের ৫২টি প্রতিষ্ঠান। সে ক্ষেত্রে রফতানিকারক প্রতিষ্ঠানকে ৬টি শর্ত মানতে হবে। শর্তগুলো হচ্ছে: রফতানি নীতি ২০১৮-২০২১-এর বিধিবিধান অনুসরণ করতে হবে। শুল্ক কর্তৃপক্ষ দ্বারা রফতানিকৃত পণ্যের কায়িক পরীক্ষা করাতে হবে। প্রতিটি কনসাইনমেন্ট শেষে রফতানি সংক্রান্ত কাগজপত্র রফতানি-২ অধিশাখায় পাঠাতে হবে। অনুমোদিত পরিমাণের বেশি পণ্য রফতানি করা যাবে না। আগামী ১০ অক্টোবরের মধ্যে পণ্য রফতানি করতে হবে। এরপর রফতানি আদেশ বাতিল বলে গণ্য হবে। তবে সরকার মৎস্য আহরণ ও পরিবহনের ক্ষেত্রে কোনও ধরনের বিধিনিষেধ আরোপ করলে তা কার্যকর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এ অনুমতির মেয়াদ শেষ হবে। এই অনুমতি কোনোভাবেই হস্তান্তরযোগ্য নয় বা অনুমোদিত রফতানিকারক ব্যতীত সাব-কন্ট্রাক্টে রফতানি করা যাবে না।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা চিঠিতে বলা হয়েছে, আসন্ন দুর্গাপূজা উপলক্ষে ইলিশ মাছ রফতানি বিষয়ে প্রাপ্ত আবেদনগুলো যাচাই-বাছাই করে শর্তসাপেক্ষে ৫২টি প্রতিষ্ঠানকে নির্ধারিত পরিমাণ ইলিশ মাছ ভারতে রফতানির অনুমতি দেওয়া হলো। প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে ৪০ মেট্রিক টন ইলিশ রফতানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে। সে হিসাবে মোট ২ হাজার ৮০ মেট্রিক টন মাছ রফতানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষ জানিয়েছেন, সাময়িক সময়ের জন্য নির্দিষ্ট পরিমাণ ইলিশ রফতানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এতে বাজারে কোনও প্রভাব পড়বে না। 

এ প্রসঙ্গে মৎস ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম জানিয়েছেন, রাষ্ট্রীয় আচারের অংশ হিসেবে সীমিত পরিমাণে ইলিশ রফতানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে, এটি বাণিজ্যিকভাবে নয়। 

 

/এসআই/আইএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

দুজনের প্রাণহানি ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে: ইসি সচিব

দুজনের প্রাণহানি ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে: ইসি সচিব

মৃত্যু কমেছে ২০ শতাংশ

মৃত্যু কমেছে ২০ শতাংশ

করোনায় মৃত্যু: ২৬ জনের ১৫ জনই নারী

করোনায় মৃত্যু: ২৬ জনের ১৫ জনই নারী

চার মাস পর সর্বনিম্ন মৃত্যু

চার মাস পর সর্বনিম্ন মৃত্যু

দুজনের প্রাণহানি ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে: ইসি সচিব

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৪২

মহেশখালী ও কুতুবদিয়ার দুটি কেন্দ্রকে ঘিয়ে দুজনের প্রাণহানির ঘটনা ছাড়া অন্যত্র নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে বলে দাবি করেছেন নির্বাচন কমিশন। সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) ভোট শেষে আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে সংবাদ ব্রিফিংয়ে ইসি সচিব হুমায়ুন কবীর খোন্দকার এ দাবি করেন।

সচিব বলেন, যেসব তথ্য পেয়েছি- আমরা মনে করি নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে। কিছু প্রার্থী ও সমর্থক খুবই ইমোশনাল হয়ে যান, তাদের কারণে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। দুই গ্রুপের মধ্যে মহেশখালীতে সহিংসতা ঘটেছে ও কুতুবদিয়ায় দুষ্কৃতিকারীরা ব্যালট ছিনতাই করতে গিয়েছে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী প্রিজাইডিং অফিসারের নির্দেশে ব্যবস্থা নিয়েছে।

ভোট চলাকালে সহিংসতায় কুতুবদিয়ায় ও মহেশখালীতে দুজন নিহতের ঘটনাকে দুঃখজনক উল্লেখ করে ইসি সচিব বলেন, এটা খুবই বেদনাদায়ক। নির্বাচনি সহিংসতায় মহেশখালী ও কুতুবদিয়ায় ২ জনের প্রাণহানি হয়েছে, আরও কয়েক জায়গায় প্রার্থীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় সংঘর্ষে আহত অনেকে হয়েছে। এছাড়া বাকি সব জায়গায় নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে।

তিনি জানান, কুতুবদিয়ায় একদল সন্ত্রাসী সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রে প্রবেশ করে প্রিজাইডিং অফিসারের কাছ থেকে ব্যালট পেপার নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে এবং কর্মকর্তাকে হুমকি দেয়। তখন আইনশৃঙ্খলা বাহিনী গুলি করে, সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

অনিয়মের কারণে ৫টি কেন্দ্রে ভোট বন্ধ করতে হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

এ নির্বাচনে ভোট পড়ার হার নিয়ে প্রাথমিক পাওয়া তথ্যও তুলে ধরেন সচিব হুমায়ুন কবীর খোন্দকার। তিনি জানান, ইভিএমে ইউপিতে অন্তত ৫০ শতাংশ ভোট পড়েছে। পৌরসভায় ৫৫ শতাংশের বেশি ভোট পড়েছে। ব্যালটের মাধ্যমে যেসব জায়গায় ভোট পড়েছে তাতে ৬৫ শতাংশের বেশি ভোট হবে।

নির্বাচনে সহিংসতার প্রশ্নে সচিব  জানান, ইউপিতে ঘরে ঘরে নির্বাচনি আমেজ থাকে। প্রার্থী যারা রয়েছেন তারা এত বেশি ইমোশনাল হয়ে যান, নিজেরাই দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়ে। এতে অকস্মাৎ নিজেদের মধ্যে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে ও ঘটে যেতে পারে।

/ইএইচএস/এমআর/

সম্পর্কিত

রাত পোহালেই ১৬০ ইউপিতে ভোট

রাত পোহালেই ১৬০ ইউপিতে ভোট

অন্য ধাপের ইউপি ভোটের তফসিল এ মাসের শেষে

অন্য ধাপের ইউপি ভোটের তফসিল এ মাসের শেষে

ইউপিতে ভোট পড়ার হার ৬৪ দশমিক ৭৩ শতাংশ

ইউপিতে ভোট পড়ার হার ৬৪ দশমিক ৭৩ শতাংশ

ইউপি ভোট শান্তিপূর্ণ হয়েছে: ইসি সচিব

ইউপি ভোট শান্তিপূর্ণ হয়েছে: ইসি সচিব

মৃত্যু কমেছে ২০ শতাংশ

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:০১

গত সপ্তাহে তার আগের সপ্তাহের চেয়ে করোনায় রোগী শনাক্ত, মৃত্যু এবং সুস্থ হওয়ার সংখ্যা কমেছে। তবে বেড়েছে নমুনা পরীক্ষা। সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাবিষয়ক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সপ্তাহভিত্তিক বিশ্লেষণে এ তথ্য জানানো হয়।

অধিদফতর জানায়, গত সপ্তাহে ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে ১৯ সেপ্টেম্বর করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে এক লাখ ৯০ হাজার ৯২৩টি। এর আগের সপ্তাহে ছয় সেপ্টেম্বর থেকে ১২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল এক লাখ ৮২ হাজার ৭১৮টি। অর্থাৎ, নমুনা পরীক্ষার হার বেড়েছে চার দশমিক ৪৯ শতাংশ।

গত সপ্তাহে রোগী শনাক্ত হয়েছেন ১২ হাজার ২৭০ জন, আর আগের সপ্তাহে শনাক্ত হয়েছিলেন ১৫ হাজার ৯৫৭ জন। রোগী শনাক্তের হার কমেছে ২৩ দশমিক ১১ শতাংশ। গত সপ্তাহে রোগী সুস্থ হয়েছেন ২২ হাজার ৭২০ জন। আর আগের সপ্তাহে সুস্থ হয়েছিলেন ২৭ হাজার ৭৫৮ জন। রোগী সুস্থ হওয়ার হার কমেছে ১৮ দশমিক ১৫ শতাংশ।

অধিদফতর জানায়, গত সপ্তাহে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ২৯৪ জনের, আর গত সপ্তাহে মারা গিয়েছেন ৩৬৮ জন। গত সপ্তাহে মৃত্যুহার কমেছে ২০ দশমিক ১১ শতাংশ।

 

/জেএ/আইএ/

সম্পর্কিত

করোনায় মৃত্যু: ২৬ জনের ১৫ জনই নারী

করোনায় মৃত্যু: ২৬ জনের ১৫ জনই নারী

চার মাস পর সর্বনিম্ন মৃত্যু

চার মাস পর সর্বনিম্ন মৃত্যু

বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন অত্যন্ত শক্তিশালী: হাছান মাহমুদ

বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন অত্যন্ত শক্তিশালী: হাছান মাহমুদ

করোনায় মৃত্যু: ২৬ জনের ১৫ জনই নারী

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৫৩

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ২৬ জন মারা গেছেন; যা গত চার মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। এর আগে ২৭ মে ২২ জনের মৃত্যুর কথা জানিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদফতর।

অধিদফতর জানাচ্ছে, মারা যাওয়া ২৬ জনের মধ্যে নারী মৃত্যু বেশি। ২৬ জনের মধ্যে ১৫ জন নারী আর ১১ জন পুরুষ।

তবে গত এক সপ্তাহের (১৩ সেপ্টেম্বর থেকে ১৯ সেপ্টেম্বর) নারী ও পুরুষের মৃত্যু তুলনায় স্বাস্থ্য অধিদফতর জানিয়েছে, গত এক সপ্তাহে পুরুষ মারা গেছেন ১৫৪ জন এবং দুই জন অন্তঃসত্ত্বা নারীসহ ১৪০ জন। এক সপ্তাহের শতকরা হিসাবে পুরুষ মৃত্যু ৫২ দশমিক ৩৮ শতাংশ এবং নারী ৪৬ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

দেশে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে মোট পুরুষ মারা গেলেন ১৭ হাজার ৫২৩ জন এবং নারী ৯ হাজার ৭২৮ জন। শতকরা হিসাবে পুরুষ মৃত্যু ৬৪ দশমিক ৩০ শতাংশ আর নারী ৩৫ দশমিক ৭০ শতাংশ।

এর আগে ১৯ সেপ্টেম্বর বাদ দিয়ে পরপর দুই দিন ১৮ ও ১৭ সেপ্টেম্বরেও নারী মৃত্যু বেশি ছিল। ১৮ সেপ্টেম্বরে মারা যাওয়া ৩৫ জনের মধ্যে পুরুষ ছিলেন ১৬ জন এবং নারী ১৯ জন। তার আগের দিন ১৭ সেপ্টেম্বর মারা যাওয়া ৩৮ জনের মধ্যে পুরুষ ছিলেন ১৩ জন এবং নারী ২৫ জন।

গত ১২ আগস্টে দেশে করোনা মহামারিকালে প্রথম পুরুষ মৃত্যুকে ছাড়িয়ে যায় নারী মৃত্যু। সেদিনই প্রথমবারের মতো একদিনে মৃত্যুর তালিকায় পুরুষের চেয়ে নারী বেশি ছিল। সেদিন অধিদফতর জানায়, করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া ২১৫ জনের মধ্যে পুরুষ ১০৭ জন এবং নারী ১০৮ জন।

করোনা মহামারি শুরুর পর থেকে দেশে পুরুষ আক্রান্তের হার এবং মৃত্যুহার বেশি ছিল। নারীর তুলনায় পুরুষ বাইরে যান বেশি, এ কারণে তারা আক্রান্ত হন বেশি। আর আক্রান্ত হলে মৃত্যুও বেশি হবে এতদিন এটাই জানিয়ে এসেছেন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু চলতি বছরের এপ্রিল থেকে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হলে নারী মৃত্যু বেড়ে যায়। আর এখন দৈনিক মৃত্যুতে পুরুষের তুলনায় কোনও কোনও দিন নারী মৃত্যু বেশি হচ্ছে।

নারী মৃত্যুর জন্য বিশেষজ্ঞরা ডেলটা ভ্যারিয়েন্টের দাপটের কথা বলেছেন। সেইসঙ্গে টিকা গ্রহণে নারীর পিছিয়ে থাকার বিষয়টিও কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছেন তারা।

জাতীয় টিকা পরামর্শক কমিটি (ন্যাশনাল ইমিউনাইজেশন টেকনিক্যাল অ্যাডভাইজরি গ্রুপ) নাইট্যাগ ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের সাবেক পরিচালক অধ্যাপক ডা. বে-নজির আহমেদ মনে করেন টিকা গ্রহণে পিছিয়ে থাকার কারণে নারী মৃত্যু বাড়ছে। হরমোনাল কারণে নারীরা এতদিন সুরক্ষা পেলেও টিকা নেওয়ার ক্ষেত্রে পুরুষের এগিয়ে থাকার কারণে নারী মৃত্যু বাড়ছে।

 

/জেএ/আইএ/

সম্পর্কিত

মৃত্যু কমেছে ২০ শতাংশ

মৃত্যু কমেছে ২০ শতাংশ

চার মাস পর সর্বনিম্ন মৃত্যু

চার মাস পর সর্বনিম্ন মৃত্যু

বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন অত্যন্ত শক্তিশালী: হাছান মাহমুদ

বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন অত্যন্ত শক্তিশালী: হাছান মাহমুদ

চার মাস পর সর্বনিম্ন মৃত্যু

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৪৬

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২৬ জন। এর আগে গত ২৭ মে এরচেয়ে কম ২২ জনের মৃত্যুর কথা জানিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদফতর। সেই হিসাবে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত চার মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন মৃত্যু হলো। এই ২৬ জনকে নিয়ে দেশে করোনায় সরকারি হিসাবে মোট মারা গেলেন ২৭ হাজার ২৫১ জন। 

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ৫৫৫ জন। এ নিয়ে দেশে সরকারি হিসাবে মোট শনাক্ত হলেন ১৫ লাখ ৪৪ হাজার ২৩৮ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৫৬৫ জন। তাদের নিয়ে মোট ১৫ লাখ তিন হাজার ১৯৬ জন সুস্থ হলেন।

সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনা বিষয়ক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ২৭ হাজার ৮০০টি আর পরীক্ষা করা হয়েছে ২৭ হাজার ৪৩১টি। দেশে এখন পর্যন্ত করোনার মোট ৯৪ লাখ ৬৫ হাজার ৮৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এরমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা করা হয়েছে ৬৯ লাখ ৮৬ হাজার ৩১৫টি এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ২৪ লাখ ৭৮ হাজার ৭৭২টি। 

গত ২৪ ঘণ্টায় রোগী শনাক্তের হার পাঁচ দশমিক ৬৭ শতাংশ এবং এখন পর্যন্ত শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৩২ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৩৪ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার এক দশমিক ৭৬ শতাংশ।

২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ২৬ জনের মধ্যে পুরুষ ১১ জন এবং নারী ১৫ জন। দেশে এখন পর্যন্ত করোনায় পুরুষ মারা গেলেন ১৭ হাজার ৫২৩ জন এবং নারী ৯ হাজার ৭২৮ জন। 

মারা যাওয়াদের বয়স বিবেচনায় ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে রয়েছেন চার জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে তিন জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ছয় জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৯ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে তিন জন এবং ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে একজন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, মারা যাওয়া ২৬ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ১৫ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের পাঁচ জন, খুলনা বিভাগের দুই জন এবং বরিশাল, সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগের আছেন একজন করে।

২৬ জনের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ২৩ জন এবং বাকি তিন জন বেসরকারি হাসপাতালে।

/জেএ/আইএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

মৃত্যু কমেছে ২০ শতাংশ

মৃত্যু কমেছে ২০ শতাংশ

করোনায় মৃত্যু: ২৬ জনের ১৫ জনই নারী

করোনায় মৃত্যু: ২৬ জনের ১৫ জনই নারী

মৃত্যু বাড়লেও কমেছে শনাক্তের হার

মৃত্যু বাড়লেও কমেছে শনাক্তের হার

সাড়ে তিন মাস পর সর্বনিম্ন শনাক্ত

সাড়ে তিন মাস পর সর্বনিম্ন শনাক্ত

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মৃত্যু কমেছে ২০ শতাংশ

মৃত্যু কমেছে ২০ শতাংশ

করোনায় মৃত্যু: ২৬ জনের ১৫ জনই নারী

করোনায় মৃত্যু: ২৬ জনের ১৫ জনই নারী

বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন অত্যন্ত শক্তিশালী: হাছান মাহমুদ

বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন অত্যন্ত শক্তিশালী: হাছান মাহমুদ

দুর্গাপূজা উপলক্ষে হিন্দু কল্যাণ ট্রাস্টকে প্রধানমন্ত্রীর অনুদান

দুর্গাপূজা উপলক্ষে হিন্দু কল্যাণ ট্রাস্টকে প্রধানমন্ত্রীর অনুদান

নিজস্ব অর্থায়নে গ্যাসের প্রিপেইড মিটার স্থাপনের সুপারিশ

নিজস্ব অর্থায়নে গ্যাসের প্রিপেইড মিটার স্থাপনের সুপারিশ

সাংবাদিকদের ব্যাংক হিসাব চাওয়ার চিঠি অপ্রত্যাশিত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সাংবাদিকদের ব্যাংক হিসাব চাওয়ার চিঠি অপ্রত্যাশিত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ইডেন কলেজ ছাত্রী সংসদ সদস্যদের সাক্ষাৎ

বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ইডেন কলেজ ছাত্রী সংসদ সদস্যদের সাক্ষাৎ

দুর্নীতিবাজদের শাস্তি নিশ্চিত করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

দুর্নীতিবাজদের শাস্তি নিশ্চিত করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ফের টিকা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ফের টিকা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

বনভূমিতে প্রশিক্ষণ অ্যাকাডেমি নয়: সংসদীয় কমিটি

বনভূমিতে প্রশিক্ষণ অ্যাকাডেমি নয়: সংসদীয় কমিটি

সর্বশেষ

আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস আজ

আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস আজ

হাবিপ্রবিতে তিন প্রশাসনিক পদে রদবদল 

হাবিপ্রবিতে তিন প্রশাসনিক পদে রদবদল 

বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের ম্যাজিক ফিগার: আইজিপি

বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের ম্যাজিক ফিগার: আইজিপি

ব্রাজিল থেকে বাংলাদেশে এসে করলেন ২১ গোল

ব্রাজিল থেকে বাংলাদেশে এসে করলেন ২১ গোল

পশ্চিমবঙ্গে দিলিপ ঘোষকে সরালো বিজেপি

পশ্চিমবঙ্গ বিজেপিতে রদবদল

© 2021 Bangla Tribune