X
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৮ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

দুর্ভিক্ষের পরিস্থিতিতে ইথিওপিয়ার সাড়ে তিন লাখ মানুষ

আপডেট : ১০ জুন ২০২১, ১৮:০৯
image

ইথিওপিয়ার সংঘাত কবলিত টাইগ্রে এলাকার প্রায় সাড়ে তিন লাখ মানুষ দুর্ভিক্ষের মতো পরিস্থিতির মুখে রয়েছে। ওই এলাকার মানবিক সংকট মোকাবিলায় গঠিত জাতিসংঘের নেতৃত্বাধীন উচ্চ পর্যায়ের একটি কমিটির অপ্রকাশিত মূল্যায়নে এই ধারণা দেওয়া হয়েছে। বুধবার এ সংক্রান্ত জাতিসংঘের একটি অভ্যন্তরীণ নথি দেখার কথা জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

গত সোমবার ইন্টার এজেন্সি স্টান্ডিং কমিটির বৈঠকে টাইগ্রে অঞ্চলের পরিস্থিতি তুলে ধরা হয়। জাতিসংঘের অন্তর্গত এবং অন্তর্গত নয় এমন ১৮টি সংস্থা নিয়ে এই কমিটি গঠন করা হয়েছে। এর নেতৃত্বে রয়েছেন জাতিসংঘের মানবিক সহায়তা বিষয়ক প্রধান মার্ক লোকক। কূটনীতিকরা বলছেন, কমিটির বিশ্লেষণ বৃহস্পতিবার নাগাদ প্রকাশ করা হতে পারে।

ওই মূল্যায়নে বলা হয়েছে  দুর্ভিক্ষের এড়াতে টাইগ্রে অঞ্চলে জরুরি ভিত্তিতে খাবার এবং কৃষি অথবা জীবিকা সহযোগিতার প্রয়োজন। তবে ইথিওপিয়ার জাতীয় দুর্যোগ প্রতিরোধ ও প্রস্তুতি কমিটির প্রধান মিতুকু কাসা বলেছেন, টাইগ্রে অঞ্চলে দুর্ভিক্ষ ঘোষণা করা ঠিক হবে না। স্থানীয় স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী টাইগ্রে পিপল’স লিবারেশন ফোর্স (টিপিএলএফ) ত্রাণের গাড়িবহরে হামলা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

মিতুকু কাসা বলেন, আমাদের কোনও খাবার সংকট নেই। ৯০ শতাংশের বেশি মানুষকে ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি। টিপিএলএফ বাহিনী ত্রাণ সংস্থার কর্মী এবং খাবারের ট্রাকে হামলা করছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। তবে তাৎক্ষণিকভাবে এই অভিযোগের কোনও প্রতিক্রিয়া জানায়নি টিপিএলএফ।

২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আবি আহমেদ ক্ষমতা আসার পর আফ্রিকার দেশ ইথিওপিয়ার রাজনৈতিক অবস্থার আমূল পরিবর্তন হতে শুরু করে। প্রতিবেশী ইরিত্রিয়ার সঙ্গে দুই দশক ধরে চলা রক্তক্ষয়ী সংঘাতের অবসান ঘটে তারই হাত ধরে। এই কারণে ক্ষমতায় আসার মাত্র এক বছরের মাথায় নোবেল শান্তি পুরস্কার পান তিনি। প্রতিবেশীর সঙ্গে সুসম্পর্ক প্রতিষ্ঠায় প্রশংসিত হলেও নিজ দেশের স্বাধীনতাকামী অঞ্চল টাইগ্রেতে শান্তি ফেরাতে তেমন পদক্ষেপ নেননি তিনি। উল্টো ব্যাপক রাজনৈতিক সংস্কারের নামে টাইগ্রেয়ানদের কোণঠাসা করে ফেলার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এর প্রভাবেই টাইগ্রে পিপলস লিবারেশন ফ্রন্ট পার্টির (টিপিএলএফ) সঙ্গে দেশটির কেন্দ্রীয় সরকারের বিরোধ চরম আকার ধারণ করে গত বছরের নভেম্বরে শুরু হয় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ। 

/জেজে/

সম্পর্কিত

মরক্কোর বিমানের জন্য আকাশসীমা বন্ধ করলো আলজেরিয়া

মরক্কোর বিমানের জন্য আকাশসীমা বন্ধ করলো আলজেরিয়া

চার সন্তান বিক্রির অভিযোগে নারী গ্রেফতার

চার সন্তান বিক্রির অভিযোগে নারী গ্রেফতার

সুদানে অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা নস্যাৎ

সুদানে অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা নস্যাৎ

‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরোর’ ২৫ বছরের কারাদণ্ড

‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরোর’ ২৫ বছরের কারাদণ্ড

অকাস জোটে ভারত-জাপানকে রাখছে না যুক্তরাষ্ট্র

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:৫৬

চীনকে মোকাবিলায় সম্প্রতি অকাস নামের একটি নিরাপত্তা জোট গঠন করেছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়া। ওই জোটে ভারত ও জাপানকে অন্তর্ভুক্ত করার সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি। 

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, ‘এই চুক্তি ঘোষণার সময়েই পরিষ্কার করে বলা হয়েছে, তিনটি শক্তি একসঙ্গে ভারত মহাসাগর ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় রাজনীতিতে কাজ করবে। এই তিনটি দেশের মধ্যে অন্য কোনও দেশের অন্তর্ভুক্তি সম্ভব নয়’।

প্রেস সেক্রেটারি সাকি আরও বলেন, ‘গত সপ্তাহে ঘোষণা কোনো সূচনা হওয়ার কথা নয়। আমি মনে করি প্রেসিডেন্ট বাইডেন, ফরাসি প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোঁর কাছেও এই বার্তাই দিয়েছেন যে, ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরের নিরাপত্তায় অন্তর্ভুক্ত হওয়ার মতো আর কেউ নেই।

সম্প্রতি অকাস নামের নিরাপত্তা চুক্তিতে উপনীত হয় যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়া। এতে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের পক্ষ থেকে অস্ট্রেলিয়াকে পারমাণবিক সাবমেরিন নির্মাণের জন্য উন্নত প্রতিরক্ষা প্রযুক্তি সরবরাহের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়। ওই চুক্তির পরপরই প্যারিসের সঙ্গে কয়েকশ‌’ কোটি ডলারের সাবমেরিন নির্মাণ চুক্তি বাতিলের ঘোষণা দেয় অস্ট্রেলীয় সরকার। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে ফ্রান্স। যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়ায় নিযুক্ত ফরাসি রাষ্ট্রদূতদেরও দেশে ফিরিয়ে নেওয়া হয়।

এ অবস্থায় নতুন করে প্রশ্ন দেখা দেয় ত্রিদেশীয় ওই জোটে এশিয়ার জাপান এবং ভারতের মতো শক্তিকে রাখা হচ্ছে কিনা। এর মধ্যেই বিষয়টি নাকচ করে দিলো হোয়াইট হাউস।

/এলকে/

সম্পর্কিত

১২ তলা থেকে ঝাঁপ, তারপর...

১২ তলা থেকে ঝাঁপ, তারপর...

বাইডেন-ম্যাক্রোঁ ‘বন্ধুত্বপূর্ণ’ ফোনালাপ, যুক্তরাষ্ট্রে ফিরছেন ফরাসি দূত

বাইডেন-ম্যাক্রোঁ ‘বন্ধুত্বপূর্ণ’ ফোনালাপ, যুক্তরাষ্ট্রে ফিরছেন ফরাসি দূত

শর্ত সাপেক্ষে যুক্তরাষ্ট্রে বুস্টার ডোজ অনুমোদন

শর্ত সাপেক্ষে যুক্তরাষ্ট্রে বুস্টার ডোজ অনুমোদন

উন্নয়নশীল দেশগুলোকে আরও ৫০ কোটি ডোজ টিকা দেবে যুক্তরাষ্ট্র

উন্নয়নশীল দেশগুলোকে আরও ৫০ কোটি ডোজ টিকা দেবে যুক্তরাষ্ট্র

গনিমতের মাল নিয়েও তালেবানে বিরোধ

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:৫১

আফগানিস্তানে তালেবান নেতাদের মধ্যে বিরোধের খবর প্রকাশিত হচ্ছে। এর ফলে গত মাসে দেশটির নিয়ন্ত্রণ নেওয়া গোষ্ঠীটির ঐক্য নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। এই মাসের শুরুতে উপ-প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়া মোল্লা আবদুল গণি বারাদার জনসম্মুখ থেকে সরে গেলে এই সন্দেহ আরও বাড়ে। পরে তার হত্যার খবরও ছড়িয়ে পড়ে।

একটি রেকর্ডকৃত ভিডিও বার্তা দিয়ে বারাদার পুনরায় হাজির হন। লিখিত বক্তব্যের মতো তিনি বলেন, ভ্রমণের জন্য তিনি জনসম্মুখে ছিলেন না। তালেবানও দাবি করেছে, তাদের মধ্যে কোনও বিরোধ নেই।

মৃত্যু বা আহতের গুজব উড়িয়ে দিতে সোমবার জাতিসংঘ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বারাদারের বৈঠকের ছবি প্রকাশ করা হয়েছে। কূটনৈতিক ও রাজনৈতিক কয়েকটি সূত্র কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরাকে জানিয়েছে, তালেবান নেতাদের মধ্যে বিরোধের খবর সত্যি। তারা বলছেন, যদি এই মতানৈক্য বাড়ে তাহলে আফগান জনগণের দুর্ভোগ আরও বাড়তে পারে।

তালেবান নেতাদের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে সম্পর্ক থাকা এক রাজনৈতিক সূত্র জানায়, শীর্ষ নেতাদের বিরোধ তৃণমূল পর্যায়েও ছড়িয়ে পড়েছে। তালেবান যোদ্ধারা গুরুত্বপূর্ণ শহরগুলোতে সাবেক কর্মকর্তা ও তাদের পরিবারের সম্পত্তি দখল করছে।

তার কথায়, এখন তারা শুধু মানুষের গাড়ি ও বাড়ি দখল করছে।

সাবেক কর্মকর্তাদের কয়েকটি পরিবারও জানিয়েছে, তালেবান যোদ্ধারা তাদের বাড়ি, গাড়ি ও সম্পত্তি দখলের চেষ্টা করছে।

অথচ তালেবানের মুখপাত্র কাবুল দখলের দুই দিন পরে বলেছিলেন, তাদের যোদ্ধাদের কারও বাড়িতে প্রবেশ না করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

পরিস্থিতির সঙ্গে পরিচিত কয়েকটি সূত্র জানায়, সাবেক প্রেসিডেন্ট আশরাফ গণি যেমন পরিস্থিতির মুখে পড়েছিলেন, তালেবান নেতারাও একই পরিস্থিতিতে রয়েছেন।

সূত্র জানায়, আগের সরকারের মতো তালেবানের বিরোধও ব্যক্তিগত পর্যায়ে। তবে আগের প্রশাসনে ব্যক্তিগত উচ্চাকাঙ্ক্ষা বা রাজনৈতিক বিরোধ ছিল। কিন্তু তালেবানের এই বিরোধ আরও বেশি মৌলিক।  

সূত্র মতে, তালেবানে এখন গনিমতের মালের অপেক্ষায় থাকা যোদ্ধাদের সঙ্গে জনগণ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আশ্বস্ত করতে চাওয়া রাজনীতিকদের বিরোধ রয়েছে।

 

/এএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

‘আমরা কি আফগানিস্তানে বাস করছি?’, পুলিশের সমালোচনায় ইসরায়েলি বিচারক

‘আমরা কি আফগানিস্তানে বাস করছি?’, পুলিশের সমালোচনায় ইসরায়েলি বিচারক

চীন, রাশিয়া ও পাকিস্তানের কূটনীতিকদের যা বললো তালেবান

চীন, রাশিয়া ও পাকিস্তানের কূটনীতিকদের যা বললো তালেবান

১২ তলা থেকে ঝাঁপ, তারপর...

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:১৩

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের একটি বহুতল ভবন থেকে আত্মহত্যা করতে লাফ দিলে আরেকজনের ওপর পড়েন ওই ব্যক্তি। এতে দুজনই মারা গেছেন। একে 'নির্মম' ঘটনা অ্যাখ্যা দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।

পুলিশ জানায়, সোমবার আত্মহত্যা করতে নিউ ইয়র্কের একটি ১২ তলা ভবন ওঠেন ২৫ বছরের ওই যুবক। একপর্যায়ে লাফ দিলে নিচে থাকা ৬১ বছর বয়সী বৃদ্ধার ওপর পড়লে দুজনই ঘটনাস্থলে নিহত হন।

‘এটি একটি করুণ ঘটনা। এ বিষয়ে আমরা তদন্ত শুরু করেছি’। বিবৃতিতে এমনটাই জানায় পুলিশ।

গত এপ্রিলেও যুক্তরাষ্ট্রের সান ডিয়াগোতে এক ব্যক্তি ভবন থেকে ঝাঁপ দিলে নারীর ওপর পড়লে দুজনের মৃত্যু হয়।   

/এলকে/এমওএফ/

সম্পর্কিত

বাইডেন-ম্যাক্রোঁ ‘বন্ধুত্বপূর্ণ’ ফোনালাপ, যুক্তরাষ্ট্রে ফিরছেন ফরাসি দূত

বাইডেন-ম্যাক্রোঁ ‘বন্ধুত্বপূর্ণ’ ফোনালাপ, যুক্তরাষ্ট্রে ফিরছেন ফরাসি দূত

শর্ত সাপেক্ষে যুক্তরাষ্ট্রে বুস্টার ডোজ অনুমোদন

শর্ত সাপেক্ষে যুক্তরাষ্ট্রে বুস্টার ডোজ অনুমোদন

উন্নয়নশীল দেশগুলোকে আরও ৫০ কোটি ডোজ টিকা দেবে যুক্তরাষ্ট্র

উন্নয়নশীল দেশগুলোকে আরও ৫০ কোটি ডোজ টিকা দেবে যুক্তরাষ্ট্র

এক আলিঙ্গনের জন্য ৫৮ বছর অপেক্ষা

এক আলিঙ্গনের জন্য ৫৮ বছর অপেক্ষা

জার্মানির নির্বাচন: চ্যান্সেলর ম্যার্কেলের উত্তরসূরি হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে কারা

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:২৯

জার্মানির দরজায় কড়া নাড়ছে জাতীয় নির্বাচন। আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর পার্লামেন্ট নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ভোটারদের মন গলাতে শেষ সময়ের প্রচারণায় ব্যস্ত চ্যান্সেলর পদপ্রার্থীরা। আর এই নির্বাচনের মধ্য দিয়েই শেষ হতে চলছে দীর্ঘ ১৬ বছর জার্মানির নেতৃত্বে থাকা চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের শাসন।

দীর্ঘ পথ চলায় ম্যার্কেল নিজেকে নিয়ে গেছেন অন্যন্য উচ্চতায়। বিশেষ করে নারীর ক্ষমতায়ন, ব্রেক্সিট সংকট, বৈশ্বিক রাজনৈতিক সমস্যা নিরসন এবং শরণার্থীদের পাশে দাঁড়ানোসহ জার্মানিকে ইউরোপের শক্ত অবস্থানে নিয়ে যাওয়ায় তার ভূমিকা অনস্বীকার্য। এখন দেখার বিষয় চ্যান্সেলের পদে ম্যার্কেলের বিদায়ে তার শূন্যতা কতটুকু পূরণ করতে পারবেন নতুনরা।

২০০৫ সাল থেকে জার্মানির সর্বোচ্চ পদে থেকে যেভাবে দেশ পরিচালনা করেছেন ঠিক সেভাবেই ইউরোপের যেকোনও বিপদে তাকেই পাশে পেয়েছেন বিশ্ব নেতারা। কিন্তু জার্মানির আসন্ন পার্লামেন্টে নির্বাচনে এবার ৬৭ বছর বয়সী ম্যার্কেল আর প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন না। অনেক আগেই চিন্তাটা করে রেখেছিলেন এবার অবসরে যাওয়ার। 

ম্যার্কেল প্রার্থী না হওয়ার কারণে এবারে ইউরোপের মনোযোগ আকর্ষণ করছে জার্মানির নির্বাচন। গবেষক পেপিজন বার্গেসনের মতে, আঙ্গেলা ম্যার্কেল অংশ না নেওয়ায় ২০১৩ এবং ২০১৭ সালের চেয়ে এবারের নির্বাচন পরবর্তী জার্মানির রাজনীতি ও নীতিতে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আসার সম্ভাবনা রয়েছে। বিশেষ করে ম্যার্কেলের উত্তরসূরি কে হতে চলছেন তা ভোটের কিছুদিন পরই স্পষ্ট হয়ে যাবে। কারণ ফলাফল পেতে সপ্তাহখানেকও লেগে যেতে পারে। যিনি পরবর্তী চ্যান্সেলর হচ্ছেন তাকে দেশে এবং বিদেশের বহুমুখী চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে।

জার্মানির এবারের নির্বাচনে প্রধান দুই প্রতিদ্বন্দ্বী দল হলো, ক্ষমতাসীন ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়ন (সিডিইউ) ও সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (এসপিডি)। বিগত আট বছর এই দুই দল জোটবদ্ধভাবে সরকার পরিচালনা করলেও এখন তারা পরস্পরের প্রতিদ্বন্দ্বী। এই দলগুলোর বাইরে জোট সহযোগী দল হিসেবে শক্ত অবস্থানে রয়েছে পরিবেশবাদী গ্রিন পার্টি।

ম্যার্কেলের উত্তরসূরি হলেন ক্ষমতাসীন ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়ন (সিডিইউ)-এর নেতৃত্বে থাকা ৬০ বছর বয়সী আরমিন লাশেট। তিনি দীর্ঘদিন ধরেই রাজনীতিতে। সবচেয়ে বড় বিষয় আসন্ন নির্বাচনে চ্যান্সেলর পদপ্রার্থী ল্যাশেট-এর প্রতি পূর্ণ সমর্থনের কথা জানিয়েছেন চ্যান্সেলর ম্যার্কেল। নির্বাচনে বিজয়ী হতে তাকে ইতোমধ্যে নানাভাবে পরামর্শও দিয়ে আসছেন তিনি।

কিন্তু তার প্রতিপক্ষরাও বেশ ভালো অবস্থানেই আছেন। লাশেটের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হলেন এসপিডির ওলাফ শলৎস, যিনি সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে নির্বাচনী প্রচারণা বেশ ঘটা করেই করেছেন। নিজেকে এগিয়েই রেখেছেন তিনি। 

পরিবেশবাদী গ্রিন পার্টির নেতৃত্বে রয়েছেন আনালেনা বেরবক। ওলাফ শলৎস আভাস দিয়েছেন, আগামী দিনে বিজয়ী হলে তার দল গ্রিন পার্টির সঙ্গে জোট সরকার গঠন করবে।
বিভিন্ন জরিপে এসেছে, সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি ২৬ শতাংশ, ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়ন ২২, পরিবেশবাদী গ্রিন পার্টি ১৮ শতাংশ ভোট পাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। 

এবারের বড় দলগুলোর প্রধান ইস্যুই হচ্ছে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলা করা। ক্ষমতায় এলে কোন দল কীভাবে তা বাস্তবায়ন করবে সেটিই এখন তুলে ধরা হচ্ছে। কারণ গত জুলাইয়ে জার্মানিতে ভয়াবহ বন্যায় ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। প্রাণহানি ঘটে অনেকের। ফলে গ্রিন পার্টি তাদের নির্বাচনি প্রচারণায় ২০৩০ সাল নাগদ গ্রিস হাউস গ্যাস নিঃসরণ ৭০ শতাংশ কমিয়ে আনার আহ্বান জানিয়েছে। অন্যান্য দলগুলো জলবায়ু ইস্যুকেই সামনে রেখে জার্মানির অর্থনীতিকে আরও শক্তিশালী করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

আগামী ২৬ সেপ্টেম্বরের মোট ৭০৯টি আসনের মধ্য ২৯৯টি আসনে সরাসরি নির্বাচন হবে। অন্য আসনগুলো দলগুলোর প্রাপ্ত ভোটের অনুপাত অনুযায়ী মীমাংসিত হবে। ১৬ রাজ্যে ৬ কোটি ৪০ লাখ ভোটার দুটি করে ভোট দেবেন। একটি ভোট সরাসরি প্রার্থী নির্বাচনের, অপরটি পছন্দের দলকে।

/এলকে/

সম্পর্কিত

‘তালেবান শো’ কোনও কাজে আসবে না: জার্মানি

‘তালেবান শো’ কোনও কাজে আসবে না: জার্মানি

'সতর্ক বার্তা', পারমাণবিক সাবমেরিন ইস্যুতে ফ্রান্সের পাশে জার্মানি

'সতর্ক বার্তা', পারমাণবিক সাবমেরিন ইস্যুতে ফ্রান্সের পাশে জার্মানি

মারা গেছেন চীনে সদ্য নিযুক্ত জার্মান রাষ্ট্রদূত

মারা গেছেন চীনে সদ্য নিযুক্ত জার্মান রাষ্ট্রদূত

জার্মানির ‘স্বীকৃতি’ ও ‘আর্থিক সহযোগিতা’ চায় তালেবান

জার্মানির ‘স্বীকৃতি’ ও ‘আর্থিক সহযোগিতা’ চায় তালেবান

মরক্কোর বিমানের জন্য আকাশসীমা বন্ধ করলো আলজেরিয়া

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৫১

মরক্কোর সব ধরনের বিমানের জন্য আকাশসীমা বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে আলজেরিয়া। পশ্চিম সাহারা নিয়ে দুই প্রতিবেশী দেশের চলমান বিরোধে এটি সর্বশেষ ঘটনা। আলজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট কার্যালয়ের বরাতে এখবর জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।

খবরে বলা হয়েছে, বুধবার আলজেরীয় প্রেসিডেন্ট আবদেলমাজিদ তেব্বৌনের সভাপতিত্বে উচ্চ নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকের পর এই ঘোষণা দেওয়া হয়।

এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এই নিষেধাজ্ঞা অবিলম্বে কার্যকর মরক্কোর সামরিক ও বেসামরিক বিমানের জন্য।

মরক্কোর শত্রুতাপূর্ণ আচরণ ও উসকানিমূলক কর্মকাণ্ডের ফলে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

এই বিষয়ে মরক্কোর কোনও প্রতিক্রিয়া জানা যায়নি। তবে রয়্যাল এয়ার মারোক-এর একটি সূত্র জানায়, এই নিষেধাজ্ঞঅর ফলে মরক্কোর তুরস্ক, তিউনিসিয়া ও মিসরের সঙ্গে সপ্তাহে ১৫টি ফ্লাইট প্রভাবিত হবে। এতে খুব সমস্যায় পড়বে না মরক্কো। এসব ফ্লাইটকে সহজেই ভূমধ্যসাগর দিয়ে গন্তব্যে পাঠানো যাবে।

/এএ/

সম্পর্কিত

চার সন্তান বিক্রির অভিযোগে নারী গ্রেফতার

চার সন্তান বিক্রির অভিযোগে নারী গ্রেফতার

সুদানে অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা নস্যাৎ

সুদানে অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা নস্যাৎ

‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরোর’ ২৫ বছরের কারাদণ্ড

‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরোর’ ২৫ বছরের কারাদণ্ড

সন্ত্রাসবাদে অভিযুক্ত হলেন ‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরো’

সন্ত্রাসবাদে অভিযুক্ত হলেন ‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরো’

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মরক্কোর বিমানের জন্য আকাশসীমা বন্ধ করলো আলজেরিয়া

মরক্কোর বিমানের জন্য আকাশসীমা বন্ধ করলো আলজেরিয়া

চার সন্তান বিক্রির অভিযোগে নারী গ্রেফতার

চার সন্তান বিক্রির অভিযোগে নারী গ্রেফতার

সুদানে অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা নস্যাৎ

সুদানে অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা নস্যাৎ

‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরোর’ ২৫ বছরের কারাদণ্ড

‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরোর’ ২৫ বছরের কারাদণ্ড

সন্ত্রাসবাদে অভিযুক্ত হলেন ‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরো’

সন্ত্রাসবাদে অভিযুক্ত হলেন ‘হোটেল রুয়ান্ডা হিরো’

গাড়ি দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন জোহানেসবার্গের নতুন মেয়র

গাড়ি দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন জোহানেসবার্গের নতুন মেয়র

গ্রেটার সাহারায় আইএস প্রধানকে হত্যা, বড় সাফল্য বলছে ফ্রান্স

গ্রেটার সাহারায় আইএস প্রধানকে হত্যা করেছে ফ্রান্স

জেনারেল সিসির আমন্ত্রণে মিসরে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী

জেনারেল সিসির আমন্ত্রণে মিসরে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী

ইথিওপিয়া: ১৩ মাসে বছর হয় যে দেশে

১৩ মাসে বছর হয় যে দেশে

গিনিতে অভ্যুত্থান চেষ্টা: সেনাবাহিনীর ক্ষমতা দখলের দাবি

গিনিতে ক্ষমতা দখলের দাবি সেনাদের

সর্বশেষ

অকাস জোটে ভারত-জাপানকে রাখছে না যুক্তরাষ্ট্র

অকাস জোটে ভারত-জাপানকে রাখছে না যুক্তরাষ্ট্র

সরকারি কর্মচারীদের প্রতিবন্ধী সন্তানের জন্য হচ্ছে দিবাযত্ন কেন্দ্র

সরকারি কর্মচারীদের প্রতিবন্ধী সন্তানের জন্য হচ্ছে দিবাযত্ন কেন্দ্র

শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে যুবলীগের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি

শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে যুবলীগের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি

রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তনে পাশে থাকবে জার্মানি: তাজুল ইসলাম

রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তনে পাশে থাকবে জার্মানি: তাজুল ইসলাম

গাজীপুর মেয়রের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ, অগ্নিসংযোগ

গাজীপুর মেয়রের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ, অগ্নিসংযোগ

© 2021 Bangla Tribune