X
বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ী হওয়ার সুবিধা বঞ্চিত হচ্ছেন প্রায় ৪ লাখ মানুষ

আপডেট : ১৩ জুন ২০২১, ০২:৫৬

যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ীভাবে বসবাসের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন প্রায় ৪ লাখ মানুষ। টেম্পোরারি প্রটেকটেড স্ট্যাটাস (টিপিএস) নিয়ে দেশটিতে এতদিন ধরে কাজ করে আসা এই লোকগুলো আর মার্কিন গ্রিনকার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবেন না। সম্প্রতি এমন রায় দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্ট। বার্তা সংস্থা এপি’র এক খবরে বলা হয়েছে, সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এলিনা কাগান চলতি সপ্তাহে তার এক রায়ে বলেছেন, ফেডারেল ইমিগ্রেশন আইন অনুযায়ী যদি কোনও ব্যক্তি এদেশে অবৈধভাবে প্রবেশ করে, তাহলে তারা গ্রিনকার্ডের জন্য আবেদন করার জন্য অনুপযুক্ত।

খবরে বলা হয়েছে, এই স্ট্যাটসটি (টিপিএস) দেওয়া হয়েছিল যুদ্ধ বা প্রাকৃতিক দুর্যোগে বিধ্বস্ত দেশ থেকে আসা লোকদের জন্য। ১৯৯০ সালে পাস হওয়া আইনে টিপিএস-এর এই সুবিধায় তারা যুক্তরাষ্ট্রে বৈধভাবে কাজ করার সুবিধা পেয়েছেন।

১৯৯৭ সালে অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে আসেন এল সালভাদরের এক নাগরিক। ২০০১ সালে তিনি টিপিএস সুবিধা পান। পরে ২০১৪ সালে তিনি দেশটিতে স্থায়ী হওয়ার (গ্রিনকার্ড) জন্য আবেদন করেন। তার সেই আবেদন প্রত্যাখ্যাত হলে তা চ্যালেঞ্জ করে আদালতের দ্বারস্থ হন সেই নাগরিক। এরপর থেকেই বিষয়টি নিয়ে দেশটিতে ব্যাপক আলোচনা শুরু হয়। এমনকি দেশজুড়ে বিভিন্ন নিম্ন আদালতে এ সংক্রান্ত মামলায় ব্যাপক বিরোধমূলক সিদ্ধান্তও আসে। বিষয়টি উচ্চ আদালতে গড়ালে দীর্ঘ আইনি লড়াইয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত এলো এ রায়ের মাধ্যমে।

লিখিত রুলিংয়ে কাগান লিখেছেন, এই টিপিএস সুবিধায় অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে আসাদের ‘মানবিক সুরক্ষা’ দেওয়া হয়েছিল। তবে এর মাধ্যমে অভিবাসন আইনে যুক্তরাষ্ট্রে তাদের কখনোই ‘স্বীকৃতি’ দেওয়া হয়নি।

অন্যদিকে অভিবাসী গ্রুপগুলো তাদের যুক্তিতে বলে যে, মানবিক কারণে যুক্তরাষ্ট্রে আগত অনেক লোক অনেক বছর ধরে এদেশে বসবাস করছে। তাদের অনেকেই এরই মধ্যে এদেশে সন্তান জন্ম দিয়েছেন; যারা জন্মসূত্রে মার্কিন নাগরিক, তারা তাদের শিকড় ছড়িয়েছেন।

টিপিএস সুবিধায় বিশ্বের ১২টি দেশ থেকে চার লাখ লোক যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করছেন। এল সালভাদোর ছাড়া অন্য ১১টি দেশ হলো- হাইতি, হন্ডুরাস, মিয়ানমার, নেপাল, নিকারাগুয়া, সোমালিয়া, সাউথ সুদান, সুদান, সিরিয়া, ভেনেজুয়েলা এবং ইয়েমেন।

এপির খবরে বলা হয়েছে, সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এই সুবিধা বাতিল করার চেষ্টা করেছিলেন। তারপর থেকেই এমন অভিবাসী প্রত্যাশীরা এমন আশঙ্কায় ছিলেন যে, তাদের হয়তো আবার এত বছর পর নিজের দেশে ফিরে যেতে হবে, যেখানে তারা দীর্ঘদিন ধরে থাকেন না। এই গ্রিনকার্ড প্রত্যাশীদের আইনি সহায়তা দিচ্ছে ন্যাশনাল ইমিগ্র্যান্ট জাস্টিস সেন্টার। তাদের নিয়োগ করা আইনজীবী লিসা কুপার বলেছেন, এই পরিবারগুলো যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিষ্ঠিত এবং আমাদের সঙ্গেই বসবাস করে আসছে। তারা কয়েক দশক ধরে সত্যিই খুব হুমকির মধ্যে রয়েছে।

তবে এসব টিপিএস সুবিধাধারীদের স্থায়ী বসবাসের অনুমতি দিতে একটি বিলও পাস করেছে মার্কিন কংগ্রেসের নিম্ন কক্ষে (প্রতিনিধি পরিষদ)। রুলিংয়ে সেই তথ্যও উল্লেখ করে বিচারপতি কাগন লিখেছেন, তবে বিলটি সিনেটে ‘অনিশ্চিত সম্ভাবনার’ মুখোমুখি।

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, তিনি নিজেও আইনটি পরিবর্তনের পক্ষে। কিন্তু ট্রাম্প প্রশাসনের মতোই তার প্রশাসনও এতে আপত্তি জানিয়ে বলেছে, বর্তমান ইমিগ্রেন্ট আইন অবৈধভাবে দেশে প্রবেশকারীদের কোনভাবেই স্থায়ী বসবাসের অনুমতি দেওয়াকে বৈধতা দেয় না।

তবে যারা বৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করে টিপিএস সুবিধা নিয়ে কাজ করছেন এবং তাদের ভিসার মেয়াদ বাড়িয়ে নিয়েছেন, তাদের জন্য এই রায় কোন সঙ্কট সৃষ্টি করবে না বলে বিচারপতি নিজেই তার রায়ে উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেছেন, কারণ এই লোকেরা বৈধভাবে দেশে প্রবেশ করেছেন এবং পরে তাদের মানবিক সুরক্ষা দেওয়া হয়েছে। তারা স্থায়ীভাবে বসবাসের আবেদন করতে পারেন।

সূত্র: এপি

/ইউএস/

সম্পর্কিত

ভূমিকম্পের পর আলাস্কা-হাওয়াইতে সুনামির সতর্কতা

ভূমিকম্পের পর আলাস্কা-হাওয়াইতে সুনামির সতর্কতা

আফগানিস্তান নিয়ে চীনের আগ্রহ ইতিবাচক: যুক্তরাষ্ট্র

আফগানিস্তান নিয়ে চীনের আগ্রহ ইতিবাচক: যুক্তরাষ্ট্র

বলপূর্বক কাবুল দখল করলে তালেবান স্বীকৃতি পাবে না: যুক্তরাষ্ট্র

বলপূর্বক কাবুল দখল করলে তালেবান স্বীকৃতি পাবে না: যুক্তরাষ্ট্র

রাজনীতি ছাড়ছেন ট্রাম্পের জামাই

রাজনীতি ছাড়ছেন ট্রাম্পের জামাই

প্রথমবারের মতো কাতারে অনুষ্ঠিত হবে আইনসভার নির্বাচন

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ২০:১৭
image

কাতারে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আইনসভার নির্বাচন। দেশটির আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানি এই সংক্রান্ত একটি আইনের অনুমোদন দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার তার কার্যালয় থেকে জানানো হয়েছে, আগামী অক্টোবরে এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

নতুন অনুমোদিত আইন অনুযায়ী ৪৫ সদস্যের শুরা কাউন্সিলের ৩০ সদস্য নির্বাচিত হবেন। বাকি এক তৃতীয়াংশ সদস্য মনোনীত করা অব্যাহত রাখবেন দেশটির আমির। মনোনীত ও নির্বাচিত সদস্যদের অধিকার ও দায়িত্ব একই থাকবে। তারা সরকারের সাধারণ নীতি ও বাজেট অনুমোদন করবেন। এছাড়াও নির্বাহী কর্তৃপক্ষের উপর তাদের নিয়ন্ত্রণ থাকবে।

কাতারের শুরা কাউন্সিলের সদস্যরা জনগণ সংক্রান্ত ইস্যুতে প্রস্তাব সরকারকে দিতে পারবে। কাতারের আমিরের কার্যালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, শুরা কাউন্সিলের নির্বাচন নাগরিকদের অংশগ্রহণ নিশ্চিতের লক্ষ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ।

কাতারের প্রধানমন্ত্রী শেখ খালিদ বিন খলিফা আল থানি জানিয়েছেন, পুরো দেশকে ৩০টি নির্বাচনি জেলায় ভাগ করা হবে। প্রতিটি জেলা থেকে একজন করে প্রতিনিধি নির্বাচিত হবেন।

নতুন আইন অনুযায়ী ১৮ বছরের বেশি বয়সী কাতারের সব নাগরিক ভোট দিতে পারবেন। তবে যেসব নাগরিকের দাদার জন্ম কাতারে হয়নি তারা ভোট দিতে পারবেন না। প্রার্থীকে অবশ্যই কাতারি বংশোদ্ভূত এবং অন্তত ৩০ বছর বয়সী হতে হবে।

কাতারে এখনই মিউনিসিপ্যাল নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। তবে দেশটিতে সব রাজনৈতিক দল নিষিদ্ধ। ২০০৩ সালে গণভোটের মাধ্যমে অনুমোদিত হয় দেশটির নতুন সংবিধান।

/জেজে/

সম্পর্কিত

চুরি হওয়া প্রত্ন নিদর্শন ইরাককে ফিরিয়ে দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

চুরি হওয়া প্রত্ন নিদর্শন ইরাককে ফিরিয়ে দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

ইসরায়েলি কাস্টডিতে ফিলিস্তিনিকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

ইসরায়েলি কাস্টডিতে ফিলিস্তিনিকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

ইসরায়েলি এজেন্ট আটকের দাবি ইরানের, অস্ত্র উদ্ধার

ইসরায়েলি এজেন্ট আটকের দাবি ইরানের, অস্ত্র উদ্ধার

এই বছরই ইরাক ছাড়বে মার্কিন বাহিনী

এই বছরই ইরাক ছাড়বে মার্কিন বাহিনী

বিমানবন্দরেই করোনার বিশাল হাসপাতাল

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ২০:১৭

সংকট কাটিয়ে উঠতে বিমানবন্দরের গুদাম ঘরকে বিশাল হাসপাতালে পরিণত করেছে থাইল্যান্ড। রাজধানীর একটি বিমানবন্দরের গুদাম হাউজে ১৮শ’ শয্যার অস্থায়ী হাসপাতাল গড়ে নজির স্থাপন করেছে দেশটি। বৃহস্পতিবার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।

করোনার ধাক্কায় থমকে গেছে থাইল্যান্ডের জনজীবন। অনেকেই থাইল্যান্ডকে করোনার কেন্দ্রবিন্দু বলছে। ডেল্টার প্রকোপসহ স্থানীয় ভ্যারিয়েন্টেও আক্রান্ত হচ্ছেন বহু মানুষ। হাসপাতালগুলোতে রোগীদের তিল ধারণের ঠাঁই নেই। বেডের জন্য এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে ছুটছেন আক্রান্তরা। ভেঙে পড়েছে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা।

করোনায় আক্রান্ত রোগীদের চাপ সামাল দিতে ব্যাংককের ডন মুয়াং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আঠারশো শয্যার একটি ফিল্ড হাসপাতাল গড়ে তুলেছে সরকার। এতে পর্যাপ্ত রোগী সেবা পাবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

হাসপাতালের পরিচালক রেইনথং নান্না জানান, ফিল্ড হাসপাতাল একসঙ্গে অনেক রোগী চিকিৎসা নিতে পারবেন। যেসব রোগীর অবস্থা স্থিতিশীল তাদের এখানে চিকিৎসা দেওয়া হবে। যাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক তাদের অন্য হাসপাতালে স্থানান্তর করা হবে।

থাইল্যান্ডে টিকা সংকটের কারণে মাত্র ৫ শতাংশ মানুষকে পুরোপুরি ভ্যাকসিনের আওতায় আনা গেছে। ফলে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনা কঠিন হয়ে পড়ছে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৪ হাজার মানুষ কোভিডে মারা গেছেন।

/এলকে/

সম্পর্কিত

করোনার আঁতুড়ঘর চীনেই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের প্রকোপ

করোনার আঁতুড়ঘর চীনেই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের প্রকোপ

করোনায় মৃতের সংখ্যা ৪২ লাখ ছাড়িয়েছে

করোনায় মৃতের সংখ্যা ৪২ লাখ ছাড়িয়েছে

করোনা কবলিত মালয়েশিয়ায় বিধিনিষেধ শিথিলে ক্ষোভ

করোনা কবলিত মালয়েশিয়ায় বিধিনিষেধ শিথিলে ক্ষোভ

বিধিনিষেধ শিথিলে ভ্যাকসিন প্রতিরোধী স্ট্রেইন-এর আশঙ্কা: গবেষণা

বিধিনিষেধ শিথিলে ভ্যাকসিন প্রতিরোধী স্ট্রেইন-এর আশঙ্কা: গবেষণা

'ইতিহাসের চরম বিতর্কিত অধ্যায় শেষ হোক': অস্ট্রেলিয়া

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৯:০৩

চুরি যাওয়া ১৪টি মূল্যবান প্রত্ন সামগ্রী অবশেষে ভারতকে ফিরিয়ে দিচ্ছে অস্ট্রেলিয়া। প্রাচীন সম্পদগুলো অধিকাংশই চুরি যাওয়া অথবা চোরাচালানকারীদের হাত ঘুরে বিদেশে পাচার হয়। মহামূল্য প্রত্ন সম্পদ কীভাবে ভারত থেকে গায়েব হয় তা অজানাই রয়ে গেছে।

ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার সৌহার্দ্যের সম্পর্কের অংশ হিসেবেই, কয়েকটি ভাস্কর্য, তৈলচিত্রসহ আরও কিছু জিনিস ফিরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে অস্ট্রেলিয়ার ন্যাশানাল গ্যালারি কর্তৃপক্ষ।

রাজধানী ক্যানবেরা সংগ্রহশালার তরফ থেকে ১৪টি প্রাচীন সামগ্রী ভারতের হাতে তুলে দেওয়ার জন্য চিহ্নিত করা হয়েছে। সিডনির ন্যাশানল গ্যালারির পরিচালক নিক মিতজেভিচ জানিয়েছেন, আগামী একমাসের মধ্যে ভারত সরকারের হাতে তুলে দেবে স্কট মরিসন সরকার।

তিনি জানান, ‘ভারতীয়দের হারিয়ে যাওয়া সম্পদ ফিরিয়ে দিতে পারলে অনেকটা নিশ্চিন্ত হওয়া যাবে। ইতিহাসের অতি বিতর্কিত একটা অধ্যায়ের পরিসমাপ্তি চায় ন্যাশানাল গ্যালারি’। এই প্রত্ন শিল্পগুলোর দাম আনুমানিক ২২ লাখ মার্কিন ডলার।

মিতজেভিচ আরও জানান, একটি দেশ থেকে চুরি করে আনা সম্পদ, অন্য একটি দেশের সংগ্রহশালার শোভা বর্ধন করবে, তা কোনও রাষ্ট্রের কাছেই কাম্য নয়। 

/এলকে/

সম্পর্কিত

শুধু শুধু বিরক্ত করায় যুবককে পিষে দিলো হাতি (ভিডিও)

শুধু শুধু বিরক্ত করায় যুবককে পিষে দিলো হাতি (ভিডিও)

আমি লিডার নই, ক্যাডার: দিল্লিতে মমতা

আমি লিডার নই, ক্যাডার: দিল্লিতে মমতা

আমি জ্যোতিষী নই: মমতা

আমি জ্যোতিষী নই: মমতা

মোদির কাছে পশ্চিমবঙ্গের নাম বদলের কথা তুললেন মমতা

মোদির কাছে পশ্চিমবঙ্গের নাম বদলের কথা তুললেন মমতা

আজেরি সীমান্তে রুশ সেনা চায় আর্মেনিয়া

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৮:৪৬
image

আজারবাইজান-আর্মেনিয়া সীমান্তে নতুন করে উত্তেজনা বাড়ায় সেখানে রুশ সেনা মোতায়েনের প্রস্তাব দিয়েছেন আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী নিকোল পাশিনিয়ান। বৃহস্পতিবার এই প্রস্তাব দেন তিনি। এর আগে পরস্পরের বিরুদ্ধে যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনেছে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

রাশিয়ার মধ্যস্ততায় গত বছর সেপ্টেম্বরে শুরু হওয়া আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার সংঘাতের অবসান ঘটলেও নতুন করে সংঘাতে জড়িয়েঝে দেশ দুইটি। বুধবার আর্মেনিয়া দাবি করেছে, আজেরি বাহিনী আকস্মিক তাদের সেনাদের ওপর হামলা চালিয়েছে। এতে তাদের তিন সেনা প্রাণ হারিয়েছেন। আহত হন আরও দু’জন। সীমান্ত এলাকায় সংঘাতে জড়ানোর অভিযোগ তোলে দেশটি। সামরিক উত্তেজনা সৃষ্টিতে একে অপরকে দায়ী করেছে উভয় দেশ।

বৃহস্পতিবার এক সরকারি বৈঠকে আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী নিকোল পাশিনিয়ান বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতির আলোকে আমার মনে হয় আর্মেনিয়ান-আজেরি সীমান্তের পুরো অঞ্চলে রাশিয়ার সীমান্ত রক্ষীদের মোতায়েনের প্রশ্নটি বিবেচনা করা যেতে পারে।’

নিকোল পাশিনিয়ান জানান, বিষয়টি নিয়ে মস্কোর সঙ্গে আলোচনা শুরুর প্রস্তুতি নিচ্ছেন তিনি। আর এটি বাস্তবায়িত হলে সামরিক সংঘাত ছাড়াই সীমান্ত বিরোধ নিষ্পত্তি করা যাবে বলে আশা প্রকাশ করেন আর্মেনিয়ান প্রধানমন্ত্রী।

উল্লেখ্য, নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চল নিয়ে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের পুরনো সংঘাত গত বছরের ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে নতুন করে আবার শুরু হয়। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন জানান, ওই সংঘাতে অন্তত পাঁচ হাজার মানুষ নিহত হয়েছেন। পরে নভেম্বরে রাশিয়ার মধ্যস্থতায় যুদ্ধ বন্ধে উপনীত হয় দু’দেশ।

/জেজে/

সম্পর্কিত

আফগানিস্তান নিয়ে চীনের আগ্রহ ইতিবাচক: যুক্তরাষ্ট্র

আফগানিস্তান নিয়ে চীনের আগ্রহ ইতিবাচক: যুক্তরাষ্ট্র

শুধু শুধু বিরক্ত করায় যুবককে পিষে দিলো হাতি (ভিডিও)

শুধু শুধু বিরক্ত করায় যুবককে পিষে দিলো হাতি (ভিডিও)

আমি লিডার নই, ক্যাডার: দিল্লিতে মমতা

আমি লিডার নই, ক্যাডার: দিল্লিতে মমতা

আফগানিস্তানের মাটি চীনের বিরুদ্ধে ব্যবহার করতে দেওয়া হবে না: তালেবান

আফগানিস্তানের মাটি চীনের বিরুদ্ধে ব্যবহার করতে দেওয়া হবে না: তালেবান

করোনার আঁতুড়ঘর চীনেই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের প্রকোপ

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৮:০৬

করোনার উৎপস্থিল চীনে এবার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ছে। করোনার সংক্রমণের হার দেশটিতে যখন নিচের দিকে তখন এই ধরণ শনাক্ত হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, চীনজুড়ে ডেল্টার ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়লে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে করোনাভাইরাসের উৎপত্তি হয় চীনের উহানের কাঁচাবাজার থেকে। এরপর ধীরে ধীরে ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বে। ধারণ করেছে মহামারি। কঠোর বিধিনিষেধে করোনা শনাক্তের হার চীনে প্রায় শূন্যের কোটায়। এমন অবস্থায় ডেল্টার প্রকোপ দেখা দিয়েছে জিয়াংসু প্রদেশের নানজিং শহরে।

চীন যখন স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যাচ্ছে তখনই উৎকণ্ঠার খবর দিলো দেশটির সরকার। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার ৪৯ জনের দেহে কোভিড শনাক্ত হয়েছে। আগের দিন এই সংখ্যা ছিল ৮৬। 

চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন জানিয়েছে, স্থানীয়ভাবে বিভিন্ন প্রদেশে ২৪ জন করোনায় শনাক্ত হন। এর মধ্যে রাজধানী বেইজিংয়েও একজন আছেন। এ ছাড়া ১৪ জনের শরীরে নতুন করে করোনার উপসর্গ পাওয়া গেছে।
নানজিং শহরের নানজিং লুকোউ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের এক কর্মী পর্যাপ্ত সুরক্ষা ব্যবস্থা না নিয়ে উড়োজাহাজ পরিষ্কার করছিলেন। সেখান থেকে ডেল্টার ধরণ ছড়িয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ফলে শহরটিতে ডেল্টার আতঙ্কে স্থানীয়রা। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বিমানবন্দরটি।

শুধু বিমানবন্দর নয় ডেল্টার সংক্রমণ ঠেকাতে নানজিং শহরও লকডাউনের আওতায় আনা হয়েছে। বলা হচ্ছে, বৃহস্পতিবার ২০০ জন কোভিডে শনাক্ত হয়েছেন। কর্তৃপক্ষও নিশ্চিত করেছেন এই শক্তিশালী ভ্যারিয়েন্টের কারণেই সংক্রমণ বাড়ছে। যা বিশ্বজুড়ে উদ্বেগের কারণ। সংক্রমণ ঠেকাতে চলছে টিকাকরণ। প্রথম ভারতে এই করোনার অতিসংক্রামক ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট দেখা দেয়। পরে দেশে দেশে ছড়িয়ে পড়ে এই ধরণটি।

/এলকে/

সম্পর্কিত

বিমানবন্দরেই করোনার বিশাল হাসপাতাল

বিমানবন্দরেই করোনার বিশাল হাসপাতাল

চীনে সরকার সমালোচক ধনকুবেরের কারাদণ্ড

চীনে সরকার সমালোচক ধনকুবেরের কারাদণ্ড

আফগানিস্তান নিয়ে চীনের আগ্রহ ইতিবাচক: যুক্তরাষ্ট্র

আফগানিস্তান নিয়ে চীনের আগ্রহ ইতিবাচক: যুক্তরাষ্ট্র

করোনায় মৃতের সংখ্যা ৪২ লাখ ছাড়িয়েছে

করোনায় মৃতের সংখ্যা ৪২ লাখ ছাড়িয়েছে

সর্বশেষ

পিপিপি কনসেপ্ট আমরা এখনও ভালোভাবে নিতে পারিনি: অর্থমন্ত্রী

পিপিপি কনসেপ্ট আমরা এখনও ভালোভাবে নিতে পারিনি: অর্থমন্ত্রী

এবার অভিযুক্ত নির্মাতা বান্নাহ, চাইলেন ক্ষমা

এবার অভিযুক্ত নির্মাতা বান্নাহ, চাইলেন ক্ষমা

জনদুর্ভোগ কমাতে এসিল্যান্ডদের নির্দেশ দিয়ে পরিপত্র জারি

জনদুর্ভোগ কমাতে এসিল্যান্ডদের নির্দেশ দিয়ে পরিপত্র জারি

১৯ আগস্টের মধ্যে এসএসসির অ্যাসাইনমেন্টের তথ্য পাঠানোর নির্দেশ

১৯ আগস্টের মধ্যে এসএসসির অ্যাসাইনমেন্টের তথ্য পাঠানোর নির্দেশ

সরকারি ৮ হাসপাতালের আইসিইউতে বেড ফাঁকা নেই

সরকারি ৮ হাসপাতালের আইসিইউতে বেড ফাঁকা নেই

প্রথমবারের মতো কাতারে অনুষ্ঠিত হবে আইনসভার নির্বাচন

প্রথমবারের মতো কাতারে অনুষ্ঠিত হবে আইনসভার নির্বাচন

৭১ বছরের বৃদ্ধের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ায় তরুণীর আত্মহত্যা

৭১ বছরের বৃদ্ধের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ায় তরুণীর আত্মহত্যা

সুন্দরবন যেমন আছে তেমনই থাকতে দিন: সুলতানা কামাল

সুন্দরবন যেমন আছে তেমনই থাকতে দিন: সুলতানা কামাল

কুমিল্লায় লকডাউনের ছয় দিনে ১২ লাখ টাকা জরিমানা আদায় 

কুমিল্লায় লকডাউনের ছয় দিনে ১২ লাখ টাকা জরিমানা আদায় 

স্বাগতিকদের কাঁদিয়ে সেমিতে জোকোভিচ 

স্বাগতিকদের কাঁদিয়ে সেমিতে জোকোভিচ 

বিমানবন্দরেই করোনার বিশাল হাসপাতাল

বিমানবন্দরেই করোনার বিশাল হাসপাতাল

মোটরসাইকেল চালককে টেনে-হিঁচড়ে ৫ কিলোমিটার নিয়ে গেলো ট্রাকটি

মোটরসাইকেল চালককে টেনে-হিঁচড়ে ৫ কিলোমিটার নিয়ে গেলো ট্রাকটি

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ভূমিকম্পের পর আলাস্কা-হাওয়াইতে সুনামির সতর্কতা

ভূমিকম্পের পর আলাস্কা-হাওয়াইতে সুনামির সতর্কতা

আফগানিস্তান নিয়ে চীনের আগ্রহ ইতিবাচক: যুক্তরাষ্ট্র

আফগানিস্তান নিয়ে চীনের আগ্রহ ইতিবাচক: যুক্তরাষ্ট্র

বলপূর্বক কাবুল দখল করলে তালেবান স্বীকৃতি পাবে না: যুক্তরাষ্ট্র

বলপূর্বক কাবুল দখল করলে তালেবান স্বীকৃতি পাবে না: যুক্তরাষ্ট্র

রাজনীতি ছাড়ছেন ট্রাম্পের জামাই

রাজনীতি ছাড়ছেন ট্রাম্পের জামাই

চুরি হওয়া প্রত্ন নিদর্শন ইরাককে ফিরিয়ে দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

চুরি হওয়া প্রত্ন নিদর্শন ইরাককে ফিরিয়ে দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

চীনের চাঞ্চল্যকর তথ্য ফাঁস করলো যুক্তরাষ্ট্র

চীনের চাঞ্চল্যকর তথ্য ফাঁস করলো যুক্তরাষ্ট্র

এক ঘুমে হারিয়ে গেলো দুই দশক!

এক ঘুমে হারিয়ে গেলো দুই দশক!

ক্যাপিটলে হামলার লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন ৪ পুলিশ সদস্য

ক্যাপিটলে হামলার লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন ৪ পুলিশ সদস্য

টিকা নিলেও সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা, মাস্ক পরার পরামর্শ সিডিসি’র

টিকা নিলেও সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা, মাস্ক পরার পরামর্শ সিডিসি’র

১৫ হাজার বছর পুরনো ভাইরাসের সন্ধান

১৫ হাজার বছর পুরনো ভাইরাসের সন্ধান

© 2021 Bangla Tribune