X
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

বাসের সঙ্গে অ্যাম্বুলেন্সের সংঘর্ষ: নিহত ১, আহত ২

আপডেট : ১৭ জুন ২০২১, ০০:৩৭

পাবনার ঈশ্বরদীতে যাত্রীবাহী বাস ও অ্যাম্বুলেন্সের মুখোমুখি সংঘর্ষে এনামুল হক (৩০) নামে এক যাত্রীর নিহত হয়েছেন। বুধবার (১৬ জুন) বিকালে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এছাড়া আহত অবস্থায় দুই যাত্রীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বুধবার বেলা ১১টায় ঈশ্বরদী-পাবনা মহাসড়কের দাশুড়িয়ার তেঁতুলতলা এলাকায় পাবনা চিনিকলের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ঈশ্বরদী ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন অফিসার আরিফুল ইসলাম আরিফ জানান, এ দুর্ঘটনায় অ্যাম্বুলেন্সটি দুমড়ে-মুচড়ে রাস্তার ওপর উল্টে যায় এবং বাসের সামনের অংশ ভেঙে যায়।

নিহত এনামুল পাবনা সদর উপজেলার পাঁচবাড়িয়া গ্রামের ইব্রাহিম হোসেনের ছেলে। আহতরা হলেন– ঈশ্বরদীর দাশুড়িয়া ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামের আব্দুস সালামের ছেলে অ্যাম্বুলেন্স চালক মোহাম্মদ আসিফ হোসেন (২০), একই গ্রামের রবিউল ইসলামের ছেলে রাকিবুল (২২)।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বেলা ১১টার দিকে রাজশাহী থেকে ছেড়ে আসা মোহাম্মদ পরিবহন নামে বাসটি পাবনার দিকে যাচ্ছিল। পাবনা থেকে ঈশ্বরদীর দিকে আসা অ্যাম্বুলেন্সটির সঙ্গে বিপরীতমুখী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে অ্যাম্বুলেন্সের চালকসহ ভেতরে থাকা দুইজন গুরুতর আহত হন। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আহতদের উদ্ধার করে ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান।

ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) শফিকুল ইসলাম শামিম জানান, গুরুতর আহতদের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে এনামুল নামে একজন মারা যান।

পাকশী হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ মনিরুজ্জামান মনির জানান, দুর্ঘটনার পরপরই বাসের চালক ও তাদের সহকারীরা পালিয়ে গেছে। দুর্ঘটনাকবলিত গাড়ি দুটি জব্দ করে হাইওয়ে থানায় রাখা হয়েছে।

/এমএএ/

সম্পর্কিত

ঢাকার পথে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

ঢাকার পথে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম স্টেশনে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম স্টেশনে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

রামেক হাসপাতালে আরও ১৪ জনের মৃত্যু

রামেক হাসপাতালে আরও ১৪ জনের মৃত্যু

মোটরসাইকেলের ধাক্কায় সেনা সার্জেন্ট নিহত

মোটরসাইকেলের ধাক্কায় সেনা সার্জেন্ট নিহত

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ২০:২৬

মৃত্যুর ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই চাঞ্চল্যকর শিশু সায়মন হত্যারহস্য উদ্ঘাটন করেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানা পুলিশ। বাবা বাদল মিয়াই নয় বছরের শিশুটিকে হত্যা করেছে বলে নিশ্চিত হয়েছে পুলিশ। রবিবার (২৫ জুলাই) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আনোয়ার সাদাতের আদালতে ১৬৪ ধারায় হত্যার কথা স্বীকার করে বাদল।

এর আগে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমরানুল ইসলামের কাছেও শিশুসন্তানকে হত্যার কথা স্বীকার করে ১৬১ ধারায় জবানবন্দি দেয় বাদল।

বাদল মিয়া সদর উপজেলার সুহিলপুর ইউনিয়নের নদ্দাপাড়ার বাসিন্দা। তিনি দীর্ঘদিন সৌদি আরবে ছিলেন। তার তিন ছেলের মধ্যে সায়মন বড়। সে স্থানীয় একটি মাদ্রাসার ছাত্র। আয়মন (৬) ও নাঈম (৪) নামে তার আরও দুই ছেলে রয়েছে।

আদালতের বরাত দিয়ে ওসি বলেন, ‘সন্দেহের বশে বাদল মিয়া ছেলেকে খুন করেছে। শনিবার সকালে সে সায়মনকে নিয়ে বাড়ি থেকে প্রায় আধা কিলোমিটার দূরে জমিতে ঘাস কাটতে যায়। সেখানে ছেলেকে সে গলা কেটে হত্যা করে লাশ ধানি জমিতে ফেলে দেয়। পরে সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বাদল বাড়িতে এসে শিশু সায়মনকে খোঁজাখুঁজির অভিনয় করে। এক পর্যায়ে পরিবারের লোকজনকে নিয়ে ওই জমি থেকে গলাকাটা অবস্থায় লাশ উদ্ধার করে। এ খবর পেয়ে পুলিশ সায়মনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। এ সময় কথাবার্তা অসংলগ্ন হওয়ায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ বাদল মিয়াকে থানায় নিয়ে যায়।’

ওসি আরও বলেন, ‘জিজ্ঞাসাবাদে বাদল জানায়, দীর্ঘদিন সৌদি আরবে থেকে ২০১২ সালে সে দেশে ফিরে আসে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার ভাদুঘর গ্রামের দেওয়ান পাড়ায় বিয়ে করে। বিয়ের পর পাঁচ মাস পর সে পুনরায় সৌদি আরবে চলে যায়। সেখানে যাওয়ার দুই মাস পর সায়মনের জন্ম হয়। এতে তার মনে সন্দেহ হয় এই ছেলে তার কিনা? এছাড়া সাত মাসে কোনও শিশুর জন্ম হয় কিনা। এসব সন্দেহ তার মনে দানা বাঁধে। পরে এক বছর পর বাদল মিয়া আবারও দেশে ফিরে আসে। সে খোঁজ নিয়ে জানতে পারে বিয়ের আগে তার স্ত্রীর সঙ্গে একজনের সম্পর্ক ছিল। বাদল মিয়ার সন্দেহ হয়, বিয়ের সময় তার স্ত্রী অন্তঃসত্ত্বা ছিল।

‘বাদল মিয়া পুলিশকে আরও জানায়, সায়মনের পরে ও আয়মন ও নাঈম নামে তার আর দুই ছেলের জন্ম হয়। কিন্তু তাদের সঙ্গে সায়মনের চেহারার কোনও মিল নেই। এছাড়া সায়মন ছিল একটু বেপরোয়া ও ক্ষেপাটে প্রকৃতির। সে প্রায়ই তার অপর দুই ছেলেকে মারধর করতো। গত শুক্রবারও সে নাঈমকে মারধর করে। দুই ছেলের সঙ্গে সায়মনের চেহারার মিল না থাকায় বাদলের সন্দেহ আরও বাড়ে। এসব কারণে সে সায়মনকে হত্যার পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী শনিবার ভোরবেলা সে সায়মনকে ঘুম থেকে তুলে তার ঘাস কাটতে বাড়ি থেকে প্রায় আধা কিলোমিটার দূরের জমিতে নিয়ে যায়।’

জবানবন্দি দেওয়ার পর আদালতের নির্দেশে বাদল মিয়াকে কারাগারে পাঠানো হয় বলে জানান ওসি।

 

/এমএএ/

সম্পর্কিত

‘চাঁদপুরে রিকশাও চলবে না, প্রয়োজনে কারাগারে’

‘চাঁদপুরে রিকশাও চলবে না, প্রয়োজনে কারাগারে’

ফুটবল মাঠে গরু চরানো নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০

ফুটবল মাঠে গরু চরানো নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০

পুকুরে ভাসছিল দুই শিশুর মরদেহ

পুকুরে ভাসছিল দুই শিশুর মরদেহ

‘চাঁদপুরে রিকশাও চলবে না, প্রয়োজনে কারাগারে’

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ২০:১৬

চাঁদপুর জেলায় করোনা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় আরও কঠোর হচ্ছে প্রশাসন। সোমবার (২৬ জুলাই) থেকে চলমান বিধিনিষেধের বাইরে থাকা রিকশা চলাচলও বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নির্দেশ অমান্য করলে জরিমানার পাশাপাশি প্রয়োজনে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হবে। রবিবার (২৫ জুলাই) জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির ভার্চুয়াল সভায় এ সিদ্ধান্তের কথা জানান জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ। 

তিনি বলেন, ‘জেলায় করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসছে না। দিন দিন শনাক্তের হার বেড়েই চলছে। গত ২৪ ঘণ্টায় পাঁচ জনের মৃত্যু হয়েছে। শনাক্ত ও মৃত্যুর হার বাড়লেও বেশির ভাগ মানুষ অসচেতন। অসচেতনতা এখন বেশির ভাগই মানুষের মধ্যে পরিলক্ষিত হচ্ছে। কোনও কারণ ছাড়াই ঘর থেকে বেরিয়ে রাস্তায় আসছে। রিকশা চলাচল করার সুযোগে এক রিকশায় ৩-৪ জন করে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এ অবস্থা কোনোভাবেই চলতে দেওয়া যায় না।’

জেলা প্রশাসক বলেন, ‘সোমবার থেকে জেলা শহর, পৌর এলাকা এবং অন্যান্য পৌর এলাকা, হাটবাজারে ও অতিরিক্ত লোকসমাগমস্থলে রিকশা চলাচল বন্ধ থাকবে। শুধুমাত্র রোগী আনা-নেওয়া ছাড়া কোনও রিকশা সড়কে চলবে না। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া রাস্তায় যাকে পাওয়া যাবে, হয় জরিমানা না হয় গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের এই নির্দেশনা বাস্তবায়নের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

জেলা কারাগারের জেলারের উদ্দেশ্যে ডিসি বলেন, ‘লকডাউনে যারা গ্রেফতার হবেন- তাদের আলাদা সেলে রাখবেন। যাতে তাদের মাধ্যমে অন্যরা সংক্রমিত না হয়। করোনার ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ পরিস্থিতিতে এমন কঠোর সিদ্ধান্ত নেওয়া ছাড়া আমাদের উপায় ছিল না।’

সভায় আরও বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র মো. জিল্লুর রহমান জুয়েল, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপারেশন ও অপরাধ) সুদীপ্ত রায়, চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. হাবিব উল করিম, সিভিল সার্জন ডা. মো. সাখাওয়াত উল্যাহ, ডিডি এনএসআই শেখ আরমান আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটোয়ারী দুলাল, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার এম এ ওয়াদুদ, ফরিদগঞ্জ পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল খায়ের পাটোয়ারী, মতলব উত্তর উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস ও মতলব পৌরসভার মেয়র আওলাদ হোসেন লিটন প্রমুখ।

/এএম/

সম্পর্কিত

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

ফুটবল মাঠে গরু চরানো নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০

ফুটবল মাঠে গরু চরানো নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০

পুকুরে ভাসছিল দুই শিশুর মরদেহ

পুকুরে ভাসছিল দুই শিশুর মরদেহ

চট্টগ্রামে করোনায় মৃত অধিকাংশের বয়স ষাটোর্ধ্ব

চট্টগ্রামে করোনায় মৃত অধিকাংশের বয়স ষাটোর্ধ্ব

ফুটবল মাঠে গরু চরানো নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১৯:৪৪

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষে কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন। রবিবার দুপুরে উপজেলার চাতলপাড় ইউনিয়নের রতনপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল এবং নাসিরনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। নাসিরনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাবিল্লাহ সরকার সংঘর্ষের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

পুলিশ প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শনিবার বিকালে রতনপুর খেলার মাঠে পার্শ্ববর্তী ভলাকুট ইউনিয়নের কয়েকজন যুবক ফুটবল খেলছিলেন। এ সময় রতনপুর গ্রামের হুমায়ুন সেখানে গরু চরাতে গেলে দড়ি ছিঁড়ে গরুটি খেলার মাঠে ঢুকে যায়। এ কারণে খেলায় বাধাগ্রস্ত হয়। পরে যুবকরা গরুটিকে মাঠ থেকে তাড়িয়ে দেন। পরে এ নিয়ে রতনপুর গ্রামের ছাড়ন গোষ্ঠীর হুমায়নের সঙ্গে পাশের গ্রাম ভলাকুট ইউনিয়নের হুনারু গোষ্ঠীর ছুট্টু মিয়া ও মঙ্গল মিয়ার কথা কাটাকাটি হয়।

এক পর্যায়ে হুমায়নকে একা পেয়ে হুনারু গোষ্ঠীর লোকজন মারধর করেন। পরে এ ঘটনার জের ধরে রবিবার দুপুরে হুনারু গোষ্ঠীর ও ছাড়ন গোষ্ঠীর লোকজন দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এতে উভয় পক্ষের কমপক্ষে ২০ জন আহত হন। ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে আহতদের উদ্ধার করে নাসিরনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়া আহতরা হলেন– কামাল (৪৫) হুমায়ন মিয়া (৩২), ফিরোজ মিয়া (৬৫), মোবারক (৩৫), আলমগীর হোসেন (৩৭), মো. এবাদত মিয়া (৩৩), আলামিন (২৭), মো. সালাউদ্দিন (৩৭), সুজন মিয়া (৩২) মোশারফ (৪০), আব্দুর রহমান (৪৫) ও জিন্নত আলী (৭০)। বাকিদের নাসিরনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. ফায়েজুর রহমান ফয়েজ বলেন, ‘আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তবে তাদের কারও অবস্থা আশঙ্কাজনক নয়।’

নাসিরনগর থানার ওসি জানান, সংঘর্ষের ঘটনার পর চাতলপাড় এবং ভলাকুট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের বিষয়টি নিষ্পত্তি করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তবে এই ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। এখন পর্যন্ত কোনও পক্ষই থানায় মামলা দায়ের করেনি।

/এমএএ/

সম্পর্কিত

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

‘চাঁদপুরে রিকশাও চলবে না, প্রয়োজনে কারাগারে’

‘চাঁদপুরে রিকশাও চলবে না, প্রয়োজনে কারাগারে’

পুকুরে ভাসছিল দুই শিশুর মরদেহ

পুকুরে ভাসছিল দুই শিশুর মরদেহ

‘রোহিঙ্গা’ সম্বোধনে পিটিয়ে হত্যা, প্রতিবাদে বিক্ষোভ

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১৯:২৮

দিনাজপুরের হিলিতে ‘রোহিঙ্গা’ বলে সম্বোধন করায় ইলিয়াস হোসেন (৩৪) নামের এক মাইক্রোবাসচালককে পিটিয়ে হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছেন এলাকাবাসী। একই সঙ্গে ইলিয়াসের হত্যাকারী সাফিন ও লাবুসহ অন্যদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন তারা। অন্যথায় বড় ধরনের কর্মসূচি দেওয়ার হুঁশিয়ারি দেন।

রবিবার (২৫ জুলাই) সকালে বাংলাহিলি মাইক্রোবাসচালক সমিতি ও স্থানীয় এলাকাবাসীর আয়োজনে হিলি স্থলবন্দরের চারমাথা মোড় থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে একই স্থানে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন পালন করেন তারা। মানববন্ধনে বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড হাতে মাইক্রোবাসচালক ও এলাকাবাসী অংশ নেন। এ সময় সমিতির নেতারাও উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধনে ইলিয়াসের ছেলে সজিব বলেন, আমার বাবার হত্যাকারীদের ফাঁসি চাই। তারা আমার বাবাকে নির্মমভাবে হত্যা করলো। এখন আমাদের কে দেখবে। বাবার স্বপ্ন ছিল, আমাকে পুলিশ অফিসার বানাবে, স্বপ্ন ভেঙে গেলো। আমার এক ছোট বোন আছে। কে নেবে আমাদের দায়িত্ব?

ইলিয়াসের ভাই রুহুল হোসেন ও আব্দুর নূর জানান, বিনা দোষে তারা ইলিয়াসকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করেছে। তাকে কথা বলার সুযোগ দেয়নি। ঈদের সময় যেখানে আনন্দ করার কথা; সেখানে কবরে শায়িত রয়েছে। তার ছোট দুই ছেলে ও মেয়ে আছে। এখন তাদের কে দেখবে। আমরা চাই, লাবু ও শাফিনকে দ্রুত গ্রেফতার করা হোক।

তাদের আন্দোলনে একাত্মতা জানিয়ে হাকিমপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান শাহিনুর রেজা শাহীন বলেন, ইলিয়াসের হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। হত্যাকাণ্ডে যারা তাদের সহযোগিতা করেছে তাদেরও আইনের আওতায় আনার দাবি জানাই।

হাকিমপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফেরদৌস ওয়াহিদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে ইলিয়াসের লাশ বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। ওই ঘটনায় পাঁচ জনকে আসামি মামলা করেছে নিহতের পরিবার। আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে। তবে ঘটনার পর থেকে আসামিরা পলাতক। আমরা তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছি।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার হিলির বৈগাম এলাকার বাসিন্দা আকতারুজ্জামানকে ‘রোহিঙ্গা’ বলে সম্বোধন করায় তিনি ও তার স্বজনরা ইলিয়াসকে মারধর করে স্থলবন্দরের চারমাথা মোড়ে ফেলে রেখে যান। শনিবার সকালে বিরামপুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। ইলিয়াস হিলির পাইকপাড়া গ্রামের মৃত মহসিন আলীর ছেলে। হিলি এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে মাইক্রোবাস চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন।

/এএম/

সম্পর্কিত

৬ দিন পর হিলি দিয়ে আমদানি-রফতানি শুরু

৬ দিন পর হিলি দিয়ে আমদানি-রফতানি শুরু

পাথর শ্রমিকদের জালে ২৮ কেজির বাঘাইড়

পাথর শ্রমিকদের জালে ২৮ কেজির বাঘাইড়

পাইকার না আসায় চামড়া নিয়ে বিপাকে হিলির ব্যবসায়ীরা

পাইকার না আসায় চামড়া নিয়ে বিপাকে হিলির ব্যবসায়ীরা

পুকুরে ভাসছিল দুই শিশুর মরদেহ

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১৮:৫০

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার সুহিলপুর গ্রামের পুকুর থেকে তাবাসসুম আক্তার (৪) ও উমর মিয়া (৬) নামে দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। রবিবার (২৫ জুলাই) দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমরানুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

উমর সুহিলপুর গ্রামের মানিক মিয়ার ছেলে এবং তাবাসসুম একই গ্রামের মহসিন মিয়ার মেয়ে।

সুহিলপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আজাদ হাজারী আঙ্গুর জানান, দুপুরে ওমর ও তাবাসসুম বাড়ির উঠানে খেলছিল। হঠাৎ করে তারা সেখান থেকে হারিয়ে যায়। দীর্ঘক্ষণ খোঁজাখুঁজি করে বাড়ির অদূরে একটি পুকুরে তাদের মরদেহ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা লাশ উদ্ধার করেন।

 

/এমএএ/

সম্পর্কিত

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

‘চাঁদপুরে রিকশাও চলবে না, প্রয়োজনে কারাগারে’

‘চাঁদপুরে রিকশাও চলবে না, প্রয়োজনে কারাগারে’

ফুটবল মাঠে গরু চরানো নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০

ফুটবল মাঠে গরু চরানো নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০

সর্বশেষ

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে তিন বাহিনী প্রধানের সাক্ষাৎ

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে তিন বাহিনী প্রধানের সাক্ষাৎ

বিমান হামলায় ২৬২ তালেবান যোদ্ধাকে হত্যার দাবি আফগানিস্তানের

বিমান হামলায় ২৬২ তালেবান যোদ্ধাকে হত্যার দাবি আফগানিস্তানের

চামড়া নিয়ে এবার কোনও অভিযোগ পাইনি: শিল্পমন্ত্রী

চামড়া নিয়ে এবার কোনও অভিযোগ পাইনি: শিল্পমন্ত্রী

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

যেখানে ডেঙ্গু রোগী সেখানেই বিশেষ অভিযান: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী

যেখানে ডেঙ্গু রোগী সেখানেই বিশেষ অভিযান: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী

‘চাঁদপুরে রিকশাও চলবে না, প্রয়োজনে কারাগারে’

‘চাঁদপুরে রিকশাও চলবে না, প্রয়োজনে কারাগারে’

‘সংক্রমণ না কমিয়ে হাসপাতালের শয্যা বাড়িয়ে লাভ হবে না’ 

‘সংক্রমণ না কমিয়ে হাসপাতালের শয্যা বাড়িয়ে লাভ হবে না’ 

স্বস্তির জয়ে সিরিজ বাংলাদেশের

স্বস্তির জয়ে সিরিজ বাংলাদেশের

চারদিন পর মৃত্যু ২০০ পার, ফের শনাক্ত ১১ হাজারের বেশি

চারদিন পর মৃত্যু ২০০ পার, ফের শনাক্ত ১১ হাজারের বেশি

সরকারি চাকরিজীবীদের সম্পদের হিসাব চেয়েছে সরকার

সরকারি চাকরিজীবীদের সম্পদের হিসাব চেয়েছে সরকার

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ১ আগস্ট থেকে ড্রপডাউন ব্যানার টানানোর নির্দেশ

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ১ আগস্ট থেকে ড্রপডাউন ব্যানার টানানোর নির্দেশ

ড. ইউনূসকে অভিনন্দন জানিয়ে মির্জা ফখরুলের চিঠি

ড. ইউনূসকে অভিনন্দন জানিয়ে মির্জা ফখরুলের চিঠি

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ঢাকার পথে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

ঢাকার পথে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম স্টেশনে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম স্টেশনে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

রামেক হাসপাতালে আরও ১৪ জনের মৃত্যু

রামেক হাসপাতালে আরও ১৪ জনের মৃত্যু

মোটরসাইকেলের ধাক্কায় সেনা সার্জেন্ট নিহত

মোটরসাইকেলের ধাক্কায় সেনা সার্জেন্ট নিহত

ট্রাক্টরের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী সহোদর নিহত

ট্রাক্টরের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী সহোদর নিহত

রাজশাহী মেডিক্যালে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমেছে

রাজশাহী মেডিক্যালে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমেছে

আদালতের বাইরে মীমাংসা, শাস্তি হয় না পাচারকারীদের

আদালতের বাইরে মীমাংসা, শাস্তি হয় না পাচারকারীদের

যমজ সন্তান জন্মের এক সপ্তাহ পর করোনা আক্রান্ত মায়ের মৃত্যু

যমজ সন্তান জন্মের এক সপ্তাহ পর করোনা আক্রান্ত মায়ের মৃত্যু

© 2021 Bangla Tribune