X
বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

৭৩ বছরের আ. লীগের কাছে বিশিষ্টজনদের প্রত্যাশা

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বাঙালী জাতীয়তাবাদকে মিনিংফুল করা

আপডেট : ২৩ জুন ২০২১, ১২:২৯

আওয়ামী লীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ। ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন ঢাকার কেএম দাস লেনের রোজ গার্ডেনে গঠিত হয় পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ। দলের নামের সঙ্গে মুসলিম শব্দটি নিয়ে অনেকই আপত্তি তুলেছিল। পরে ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে বিজয়ের পর ১৯৫৫ সালে কাউন্সিলে ‘মুসলিম’ শব্দটি বাদ দেওয়া হয়। ফলে দলটি পুরোপুরি অসাম্প্রদায়িক চরিত্র পায়। ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলের এই দলে যোগ দেওয়ার সুযোগ তৈরি হয়।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এই দিনে ৭২ বছরের পুরনো আওয়ামী লীগকে নিয়ে কথা বলেন দেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। বাংলা ট্রিবিউনের সঙ্গে আলোচনায় আওয়ামী লীগের কাছে তারা তাদের প্রত্যাশার কথা বলেন। ৭৩ বছরে পা রাখা আওয়ামী লীগের কাছে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের প্রত্যাশা হলো মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বাঙালী জাতীয়তাবাদকে মিনিংফুল করা। নির্বাচনী সংস্কৃতিতে যে অবক্ষয় এসেছে সেটাকে আবার ট্র্যাকে তুলে আনতে আওয়ামী লীগের পদক্ষেপ জরুরি বলে জানান বিশিষ্টজনরা। আর রাজনৈতিক দলে পেশাদারিত্ব ফিরিয়ে আনা, দ্বিতীয় ও তৃতীয় সারির নেতৃত্ব তৈরির প্রত্যাশা আওয়ামী লীগের কাছে তাদের। আওয়ামী লীগের অন্যান্য পর্যায়ের নেতারা যাতে জনগণের কাছাকাছি থাকেন, আওয়ামী লীগের কাছে সেই প্রত্যাশাও করেন এই বিশ্লেষকরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসের অধ্যাপক সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের সবচেয়ে প্রাচীন, সবচেয়ে বড় এবং সবচেয়ে বেশি তৃণমূল সংলগ্ন দল। আওয়ামী লীগ বাংলাদেশকে অনেক কিছু দিয়েছে। আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব দিয়ে দেশ ও জনগণের জন্য কাজ করেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তার কন্যা শেখ হাসিনা। দেশ এবং জাতির জন্য আওয়ামী লীগের অনেক অবদান আছে।

তিনি বলেন, আমার কাছে মনে হয় সাম্প্রতিক আওয়ামী লীগের অনেক কিছু করণীয় ছিল, তেমনি কিছু বর্জনীয়ও ছিল। করণীয়র মধ্যে অন্যতম হলো সরকার এবং দল যে একাকার হয়ে আছে সেটার একটা বিহিত করা। বঙ্গবন্ধু কিন্তু সরকার এবং দলকে একাকার করেননি।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনার চারদশক নেতৃত্বে দল এবং সরকার একাকার হয়ে আছে। দল এবং সরকার একাকার হয়ে থাকা অগণতান্ত্রিক। এটা পাশের দেশ ভারতেও নাই। আরেকটি করণীয় হচ্ছে, দ্বিতীয় ও তৃতীয় সারির নেতৃত্ব তৈরি করা। সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বলেন, শেখ হাসিনা ৪০ বছরের নেতৃত্বে তিনি বিকল্পহীন হয়ে উঠেছেন। কিন্তু যদি কোনও কারণে তিনি অপারগ হন, অবর্তমান হন তাহলে আওয়ামী লীগের হাল ধরবে কে? বঙ্গবন্ধু ৬৬ তে সভাপতি হয়ে ৭১- এর মধ্যে দ্বিতীয় সারির নেতা তৈরি করেছিলেন যারা মুক্তিযুদ্ধে যুদ্ধ পরিচালনার সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। যাদেরকে আমরা বলি জাতীয় চার নেতা। এখনের আওয়ামী লীগে আমি নেতা খুঁজে পাচ্ছি না। তাহলে আওয়ামী লীগের ভবিষ্যৎ কী হবে?

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই অধ্যাপক আরও বলেন, বর্জনীয় হচ্ছে, ধর্মান্ধ সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর সঙ্গে, বিশেষ করে হেফাজত এবং কওমি মাদ্রাসার সঙ্গে বর্তমান আওয়ামী লীগের যে সখ্য সেটি আওয়ামী লীগের সঙ্গে যায় না। সেইজন্যে বর্তমান আওয়ামী লীগ মূল আওয়ামী লীগ থেকে আদর্শিকভাবে বিচ্যুত।

দলের জনগণ-সংলগ্নতা নিয়েও প্রশ্ন করেন অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন। তিনি বলেন, বর্তমানের আওয়ামী লীগ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব যতটা জনগণ লগ্ন, নেতৃত্বের অন্যান্য পর্যায় ততটা নয়। শেখ হাসিনা সেনাপতি হিসেবে নির্দেশ দিচ্ছেন ঠিকই, ভূমিকাও পালন করছেন। কিন্তু মাঠ পর্যায়ের সৈন্য সামন্তরা সঠিকভাবে পারছেন না, জনবিচ্ছিন্ন হয়ে আছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক শান্তনু মজুমদার বলেন, আওয়ামী লীগের অর্জনের তালিকাটা অনেক লম্বা। এই দল বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলন নেতৃত্ব দিয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব দিয়েছে। প্রথম সরকার গঠন করেছে। সংবিধান তৈরি করেছে। সামরিক শাসন বিরোধী আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছে। গত ১২ বছর ধরে ক্ষমতায় আছে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত। সেই ক্রেডিট রয়েছে আওয়ামী লীগের।

তিনি বলেন, পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধু হত্যার পরে আওয়ামী লীগের উপরে রাষ্ট্রীয়ভাবে যে দমন-পীড়ন চলেছিল। সেটা থেকে তারা সার্ভাইভ করেছে। শুধু সার্ভাইভ করেনি এই মুহূর্তে সাউথ এশিয়াতে একটি লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি হিসেবে তারা এক্সপান্ড করেছে। যেখানে ভারতের কংগ্রেস, পাকিস্তানের পিডিপির মতো পার্টি ছোট হয়েছে সেখানে আওয়ামী লীগ এক্সপান্ড করেছে। এইগুলো সফলতার তালিকা।

এই শিক্ষক বলেন, বাঙালি জাতীয়তাবাদ এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এই দুটি কতটা মিনিংফুলি বাংলাদেশ একজিস্ট করে আমি নিশ্চিত নই। যদি এই বড় দলের ভেতরে এই দুটি চেতনা প্রস্ফুটিত হতে দেখতাম তাহলে আমার মনে হয় এটা গোটা সাউথ এশিয়ার জন্য মঙ্গলকর হতো।

তিনি বলেন, যে কোনও কারণেই হোক, কে দায়ী সেই প্রসঙ্গে যাব না আমি। তবে এইটুকু বলবো বাংলাদেশের নির্বাচনী ব্যাপারটা বিপথগামী হয়ে গেছে। এটাকে আবার ট্র্যাকে তোলার জন্য আওয়ামী লীগের কাছে আমার প্রত্যাশা থাকবে।

তিনি বলেন, নেতৃত্বের ক্ষেত্রে নিজেদের মধ্যে বিরোধ থাকতে পারে। জাসদ, ওয়ার্কার্স পার্টি, সিপিবি এসব দলগুলো কিন্তু মুক্তিযুদ্ধ ইস্যুতে এক। তো এই দলগুলোকে এক করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বাঙালী জাতীয়তাবাদকে মিনিংফুলি জাতীয় পর্যায়ে প্রতিষ্ঠা করার ক্ষেত্রে আমার মনে হয় আওয়ামী লীগের বড় ভূমিকা রয়েছে।

৭৩ বছরে পা রাখা আওয়ামী লীগের কাছে কী প্রত্যাশা- এই প্রশ্নে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক উন্নয়ন বিভাগের অধ্যাপক ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, সবচেয়ে যেটা জরুরি সেটা হচ্ছে নেতৃত্ব তৈরি করা। এখন থেকেই যদি এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগ সজাগ না থাকে তাহলে ভ্যাকিউম তৈরি হবে। তিনি বলেন, কীভাবে নেতৃত্ব বাছাই করা হবে, একেবারে ছোট নেতা থেকে বড় নেতা পর্যন্ত; সেখানে যদি এক ধরনের পেশাদারিত্ব থাকে, একটা ফর্মুলা চালু করা যায়, তাহলে ওই ভ্যাকিউমটা আর থাকে না।

কারণ হিসাবে তিনি বলেন, আমরা সব সময় দেখেছি, আওয়ামী লীগের ইতিহাসেও দেখা গেছে, হয়তো কোনও একটা দুর্ঘটনা ঘটলো বা কিছু একটা হল, তখন একটা ভ্যাকিউম তৈরি হয়ে যায়।

তিনি বলেন, জনগণের মনে এখন এমন প্রশ্ন জেগেছে- এরপর কে? পরবর্তী নেতৃত্ব তৈরি করা না গেলে এরপর কী হবে আওয়ামী লীগের? সে কারণেই আওয়ামী লীগের মধ্যে নেতৃত্ব তৈরিতে পেশাদারিত্ব থাকতে হবে। যাতে একটা বড় ভূমিকা থাকবে মেধার। তাহলে মানুষের মধ্যেও কিন্তু ওই দলের প্রতি সাপোর্ট বেড়ে যাবে।

ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, আওয়ামী লীগ এখনও ৭১ এর চেতনার মধ্যে আছে। এতে কোন সন্দেহ নেই। কিন্তু এখানে অনেক কম্প্রোমাইজ তাকে করতে হয়েছে নির্বাচনকে সামনে রেখে। তারপরও মূল জায়গায় আমার মনে হয় এখনও আছে। বিশেষ করে একাত্তরের চারটা প্রিন্সিপাল আওয়ামী লীগই আবার নিয়ে এসেছে সংবিধানে।

তিনি বলেন, আমার মনে হয় যদি পার্টিতে পেশাদারিত্ব আনতে না পারি তাহলে তো দেখা যাবে যে আমরা ঝামেলায় পড়ে যাব। প্রতিষ্ঠান-ইনস্টিটিউশন করার নজরটা আমাদের আরও বাড়ানো দরকার।

 

/এনএইচ/

সম্পর্কিত

৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ আ.লীগের ইউনিট কমিটি করার নির্দেশ

৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ আ.লীগের ইউনিট কমিটি করার নির্দেশ

সম্পদের হিসাব দিতে কারও আপত্তি থাকার কথা নয়, আমিও প্রস্তুত: ওবায়দুল কাদের

সম্পদের হিসাব দিতে কারও আপত্তি থাকার কথা নয়, আমিও প্রস্তুত: ওবায়দুল কাদের

আমাদের আন্দোলনে যেতে হবে: মির্জা ফখরুল

আমাদের আন্দোলনে যেতে হবে: মির্জা ফখরুল

পদক জীবনের চেয়ে মূল্যবান হতে পারে না: আ স ম রব

পদক জীবনের চেয়ে মূল্যবান হতে পারে না: আ স ম রব

৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ আ.লীগের ইউনিট কমিটি করার নির্দেশ

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৭:৫০

আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) আওয়ামী লীগের প্রতিটি ইউনিট কমিটি করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মান্নাফী ও সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ নির্দেশ দেন।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তারা মোট ১১ দফার নির্দেশনা প্রদান করেন। তৃণমূল থেকে সংগঠনকে সুসংগঠিত করার লক্ষ্যে আগামীতে অনুষ্ঠিতব্য থানা, ওয়ার্ড সম্মেলন সুন্দরভাব সফল করার জন্য ঢাকা দক্ষিণের অন্তর্গত ৮টি সংসদীয় আসনে দক্ষিণের নেতাদের সমন্বয়ে ৮টি টিমও গঠন করে দেন তারা।

এই টিমগুলোকে ১১টি নির্দেশনা দেওয়া হয়। নির্দেশনাগুলো হলো:

১. দায়িত্বপ্রাপ্ত টিমসমূহকে দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পরামর্শগ্রহণ পূর্বক সংগঠনকে সুসংগঠিত করতে হবে।

২. টিমসমূহের সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও দায়িত্ব পালনে পদমর্যাদাক্রম অনুসরণ করতে হবে।

৩. এ লক্ষ্যে প্রতিটি ওয়ার্ডের আওতায় নির্বাচন কমিশন নির্ধারিত ভোটকেন্দ্র-ভিত্তিক ইউনিট গঠনের লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের অনুসারী কর্মী বাছাই করে গঠনতন্ত্রের নির্দেশিকা পদ্ধতিতে কমিটি গঠন করে তাদের যোগ্যতা অনুযায়ী স্থান দিতে হবে।

৪. আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রের ৩৫ ধারার ১ উপধারা অনুযায়ী কমপক্ষে ১৫০ জন সদস্য কোনও ইউনিটে না থাকলে সেটি শাখা ইউনিট মর্যাদাপ্রাপ্ত হবে না।

৫. নির্দিষ্ট সংসদীয় আসনের ওয়ার্ড, থানার আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্ব স্ব থানার আওতাধীন ওয়ার্ড ও ইউনিট কমিটি গঠন কার্যক্রমে সম্পৃক্ত থাকবেন এবং শক্তিশালী কমিটি গঠনে কার্যকর ভূমিকা রাখবেন।

৬. কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ মনোনীত স্ব স্ব এলাকার সংসদ সদস্য ও দলীয় কাউন্সিলরের পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে।

৭. ইউনিট ওয়ার্ড এবং থানা শাখা কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী নির্দেশিত পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে।

৮. উল্লিখিত শাখা কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে লক্ষ্য রাখতে হবে যেন চিহ্নিত চাঁদাবাজ, মাস্তান, নেশাগ্রস্ত এবং বিএনপি-জামায়াত থেকে আগত সুবিধাভোগীরা কমিটিতে স্থান না পায়।

৯. দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতৃবৃন্দ দায়িত্ব পালনে সততা, বিচক্ষণতা এবং গঠনতান্ত্রিক নির্দেশিকা অনুসরণ করবেন।

১০. দায়িত্বপ্রাপ্ত সব কমিটিকে ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রতিটি ওয়ার্ডের ইউনিট কমিটি গঠন করে ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে অবহিত করতে হবে।

১১. কোনও থানা বা ওয়ার্ড নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কমিটি গঠনে ব্যর্থ হলে উক্ত থানা বা ওয়ার্ডের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করে সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করতে হবে।

 

/পিএইচসি/আইএ/

সম্পর্কিত

সম্পদের হিসাব দিতে কারও আপত্তি থাকার কথা নয়, আমিও প্রস্তুত: ওবায়দুল কাদের

সম্পদের হিসাব দিতে কারও আপত্তি থাকার কথা নয়, আমিও প্রস্তুত: ওবায়দুল কাদের

শেখ হাসিনা বার্নের ওয়ার্ড বয়কে মারধর করা সেই ছাত্রলীগনেতা বহিষ্কার

শেখ হাসিনা বার্নের ওয়ার্ড বয়কে মারধর করা সেই ছাত্রলীগনেতা বহিষ্কার

জয়ের নেতৃত্বের অপেক্ষায় আগামীর বাংলাদেশ: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

জয়ের নেতৃত্বের অপেক্ষায় আগামীর বাংলাদেশ: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

দেশে করোনায় মৃত্যুর হার ভারতের চেয়ে বেশি: ওবায়দুল কাদের

দেশে করোনায় মৃত্যুর হার ভারতের চেয়ে বেশি: ওবায়দুল কাদের

সম্পদের হিসাব দিতে কারও আপত্তি থাকার কথা নয়, আমিও প্রস্তুত: ওবায়দুল কাদের

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৮:১২

এমপি-মন্ত্রীদের সম্পদের হিসাব নেওয়ার বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সম্পদের হিসাব বিবরণী দাখিলে আমাদের কারও আপত্তি থাকার কথা নয়। আমি নিজেও সম্পদের হিসাব দিতে প্রস্তুত।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে দলটির ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির উদ্যোগে বিভিন্ন প্রতিনিধিদের মাঝে করোনা সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শতভাগ সততা ও স্বচ্ছতার সাথে সরকার পরিচালনা করছেন। অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে তার সরকারের অবস্থান অত্যন্ত কঠোর এবং স্পষ্ট।

তিনি বলেন, এমপি-মন্ত্রীসহ কেউই জবাবদিহিতার ঊর্ধ্বে নয়, স্বাধীন সংস্থা হিসেবে দুদক যে কোনও অপরাধের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে পারে। ইতোমধ্যে অনেক নেতাকর্মী এবং এমপির বিরুদ্ধে দুদক ব্যবস্থা নিয়েছে, সরকার কাউকে রক্ষা করতে যায়নি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, দুর্নীতি, অনিয়মের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নিতে দুদকের উপর সরকারের পক্ষ থেকে কোন হস্তক্ষেপ বা বাধা নেই। সম্পদের হিসাব বিবরণী দাখিলে আমাদের কারও আপত্তি থাকার কথা নয়। আমি নিজেও সম্পদের হিসাব দিতে প্রস্তুত।

তিনি বলেন, প্রতি বছর আয়কর-রিটার্নের মাধ্যমেও সম্পদের হিসাব দেওয়া হয়। সে হিসাব বা ট্যাক্স প্রদানে গড়মিল থাকলে তাও দুদক তদন্ত করে দেখতে পারবে। 

সবাইকে শতভাগ মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করার আহবান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ভ্যাকসিনের চেয়েও কার্যকরী হচ্ছে মাস্ক। বাংলাদেশের যে পরিমাণ ভ্যাকসিন প্রয়োজন বিভিন্ন দেশ থেকে সে পরিমাণ ভ্যাকসিন পর্যায়ক্রমে আসবে। ভ্যাকসিন নিয়ে কোনও সংকট হবে না।

তিনি বলেন, সংকটে দায়িত্বশীল রাজনৈতিক দলের ভূমিকা পালনের চরম ব্যর্থতা আড়াল করতে মিথ্যাচারই বিএনপির এখন একমাত্র অবলম্বন। বিএনপি নেতারা জনগণের পাশে দাঁড়ানোর অক্ষমতা ঢাকতেই সরকারের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছে।

ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটিকে একাধিক টিম করে বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় জনগণকে সঠিকভাবে মাস্ক পরিধানে উৎসাহিত করার উপরও গুরুত্বারোপ করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে এতোগুলা রাজনৈতিক দল অথচ কেবল মাত্র আওয়ামী লীগই এখন সরেজমিনে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। একটি দল ঘরে বসে লিপসার্ভিস দিয়ে যাচ্ছে কিন্তু জনগণ এখন লিপসার্ভিস চায় না।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ বিএনপির মতো কথা- সর্বস্ব কোন রাজনৈতিক দল নয়। নিজের সবকিছু নিয়ে অকাতরে মানুষের পাশে দাঁড়ায় বলেই জনগণ আওয়ামী লীগকেই বিপদে বন্ধু মনে করেন।

তিনি বলেন, সারা দুনিয়ায় আজ প্রশংসিত হচ্ছে শেখ হাসিনার নেতৃত্ব। তার অসীম সাহসের কারণেই করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলা করে যাচ্ছে সরকার। শেখ হাসিনার নেতৃত্বের জন্য সারা বিশ্বের উন্নত দেশগুলো বাংলাদেশকে গুরুত্ব দিচ্ছে। বাংলাদেশকে আজ বিশ্ব দরবার মূল্যায়িত করছে কেবলমাত্র প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণ ও দক্ষ নেতৃত্বের কারণে।

এ সময় ঘরে ঘরে সচেতনতার দুর্গ গড়ে তোলার উপরও গুরুত্বারোপ করেন ওবায়দুল কাদের।

দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরীর সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আরও উপস্থিত ছিলেন‑ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, কেন্দ্রীয় কার্যকরী সদস্য রিয়াজুল কবির কাউছার ও সৈয়দ আবদুল আউয়াল শামীম, সংসদ সদস্য উম্মে কুলসুম স্মৃতি, ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউটের সভাপতি এম এ হামিদ, সাধারণ সম্পাদক শামসুর রহমান প্রমুখ।

/পিএইচসি/এমএস/

সম্পর্কিত

৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ আ.লীগের ইউনিট কমিটি করার নির্দেশ

৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ আ.লীগের ইউনিট কমিটি করার নির্দেশ

শেখ হাসিনা বার্নের ওয়ার্ড বয়কে মারধর করা সেই ছাত্রলীগনেতা বহিষ্কার

শেখ হাসিনা বার্নের ওয়ার্ড বয়কে মারধর করা সেই ছাত্রলীগনেতা বহিষ্কার

জয়ের নেতৃত্বের অপেক্ষায় আগামীর বাংলাদেশ: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

জয়ের নেতৃত্বের অপেক্ষায় আগামীর বাংলাদেশ: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

দেশে করোনায় মৃত্যুর হার ভারতের চেয়ে বেশি: ওবায়দুল কাদের

দেশে করোনায় মৃত্যুর হার ভারতের চেয়ে বেশি: ওবায়দুল কাদের

আমাদের আন্দোলনে যেতে হবে: মির্জা ফখরুল

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ২২:০৭

বর্তমান সংকট উত্তরণে আন্দোলনের বিকল্প নেই বলে উল্লেখ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ‘আমরা এই অবস্থার পরিবর্তন চাই। সেজন্য আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, আমাদের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, যিনি বন্দি হয়ে আছেন, তাদের নেতৃত্বে আজকে দল সংগঠিত হচ্ছে। আমাদের আন্দোলনে যেতে হবে এবং এই ভয়াবহ যে দানব আমাদের বুকের ওপর চেপে বসে আছে, সেই দানবকে সরিয়ে দিতে হবে।’

বুধবার (২৮ জুলাই) ভার্চুয়াল এক আলোচনা সভায় বিএনপি মহাসচিব এই অভিযোগ করেন।

স্বেচ্ছাসেবক দলের প্রয়াত সভাপতি শফিউল বারী বাবুর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিএনপির উদ্যোগে এই ভার্চুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

ফখরুল বলেন, ‘আমাদের মনে রাখতে হবে, এই দানব ছোটখাটো দানব নয়, এটা একটা ভয়াবহ দানব। এরমধ্যে আন্তর্জাতিক চক্রান্ত রয়েছে, সাম্রাজ্যবাদ এবং আধিপত্যবাদের চক্রান্ত রয়েছে। সব মিলিয়ে আমাদের অত্যন্ত শক্তি নিয়ে, আমাদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে, জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে এদের সরাতে হবে। এর কোনও বিকল্প নেই।’

তিনি বলেন, ‘আমরা দেখলাম এই কোভিডে তারা কীভাবে পুরো বিষয়টাকে উদাসীনতা, অযোগ্যতা, ব্যর্থতা দিয়ে জনগণের জীবন-জীবিকাকে বিপন্ন করে ফেলেছে। এখন মানুষকে এত বেশি তারা প্রতারণা করে, এত মিথ্যা কথা বলে, এত ভাঁওতাবাজি করে, দেখেন টিকাই এখন পর্যন্ত পুরো সংগ্রহ হলো না। এ পর্যন্ত তিন কোটি টিকাই আনতে পারলো না ভারত থেকে।’

‘তারা এখন বলছে ই্উনিয়ন পর্যায়ে টিকা দেবে। এগুলো জাতিকে বিভ্রান্ত করা ছাড়া আর কিছু নয়। এই সরকার এই একটা জিনিস খুব ভালো পারে, অবলীলায় গোয়েবলসীয় পদ্ধতিতে মিথ্যা প্রচার করতে থাকে এবং সেই মিথ্যাকে সত্য প্রমাণিত করতে থাকে, যোগ করেন তিনি।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, তারা ‘শিক্ষা ব্যবস্থা একেবারে ধ্বংস করে দিয়েছে। আপনারা দেখেছেন ভিখারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের মতো একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একজন সন্ত্রাসী দলবাজ মহিলাকে অধ্যক্ষ করা হয়েছে। আমরা দেখলাম যে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে যাদের উপাচার্য নিয়োগ দেওয়া হলো, তারা দুর্নীতি করছে, নিয়োগে দুর্নীতি করছে। এভাবে তারা শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে ফেলেছে এবং এই করোনার অজুহাতে তারা শিক্ষা বন্ধ করে দিয়েছে।’

‘স্বাস্থ্য ব্যবস্থা তো পুরোপুরি ভেঙে চুরমার হয়ে গেছে। ব্যাংকিং সেক্টরকে গিলে ফেলেছে। তারা আমাদের সব অর্জন ধ্বংস করছে।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘মানুষকে জাগাতে হবে, তাদের নতুন স্বপ্ন দেখাতে হবে। মানুষকে সেই সুদিনের গান শোনাতে হবে, যেন তারা জেগে ওঠেন—তাদের সেই পথ দেখাতে হবে।’

/এসটিএস/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

জয়ের নেতৃত্বের অপেক্ষায় আগামীর বাংলাদেশ: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

জয়ের নেতৃত্বের অপেক্ষায় আগামীর বাংলাদেশ: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

ভিকারুননিসায় নতুন অধ্যক্ষ নিয়োগের দাবি মির্জা ফখরুলের

ভিকারুননিসায় নতুন অধ্যক্ষ নিয়োগের দাবি মির্জা ফখরুলের

মণি সিংহের ১২০তম জন্মবার্ষিকী কাল

মণি সিংহের ১২০তম জন্মবার্ষিকী কাল

পদক জীবনের চেয়ে মূল্যবান হতে পারে না: আ স ম রব

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ১৮:৪৫

পদক জীবনের চেয়ে মূল্যবান হতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি’র সভাপতি আ স ম আবদুর রব। তিনি কোভিড পরিস্থিতিতে সরকারিভাবে ওসমানী মিলনায়তনে গতকাল মঙ্গলবার পদক প্রদান অনুষ্ঠান আয়োজনের সমালোচনা করেন।

বুধবার (২৮ জুলাই) বিকালে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে রব এ কথা জানান।

বিবৃতিতে বলা হয়, পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেট  দিয়ে যখন স্বাস্থ্যবিধি পালন নিশ্চিত করতে নাগরিকদের গ্রেপ্তার ও জেল-জরিমানা করা হচ্ছে তখন পদক প্রদানের জন্য শারিরীক উপস্থিতি ও সমাবেশ অনুষ্ঠানের আয়োজন সরকারের করোনা নিয়ন্ত্রণের সকল কার্যক্রমকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে।

রব বলেন, ‘করোনার ভয়াবহ বিস্তার এবং কঠোর লকডাউনের মধ্যে এই ধরনের অনুষ্ঠান শুধু মৃত্যুঝুঁকি নয় সরকারের ঘোষিত লকডাউন পরিস্থিতির সাথেও সাংঘর্ষিক।এর মাধ্যমে জনগণের কাছে ভুল বার্তা যাচ্ছে।’

রবের মন্তব্য, করোনা মহামারিতে দীর্ঘ হচ্ছে লাশের মিছিল। এই অবস্থায় ওসমানী মিলনায়তনে পদক প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করা কোনক্রমেই সরকারের সুবিবেচনার বহিঃপ্রকাশ নয়। পদক কখনো জীবনের চেয়ে মূল্যবান হতে পারে না।

তিনি বলেন, ‘জীবন সুরক্ষার প্রশ্নে যখন রাষ্ট্রীয় সকল অনুষ্ঠান বাতিল করা হচ্ছে, সারাদেশে কঠোর লকডাউন পালিত হচ্ছে তখন 'জাতীয় পাবলিক সার্ভিস দিবস' বা পদক প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করা কোনোক্রমেই রাষ্ট্রের জন্য  অতীব জরুরি কাজ হতে পারে না।’

/এসটিএস/এমএস/

সম্পর্কিত

‘আইসোলেশন ও কন্টাক্ট ট্রেসিং ছাড়া লকডাউন অকার্যকর’

‘আইসোলেশন ও কন্টাক্ট ট্রেসিং ছাড়া লকডাউন অকার্যকর’

ভোটার তালিকা নির্বাহী বিভাগে স্থানান্তর হবে অসাংবিধানিক: আবদুর রব

ভোটার তালিকা নির্বাহী বিভাগে স্থানান্তর হবে অসাংবিধানিক: আবদুর রব

রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা রাষ্ট্রের ভয়ংকর চিত্র: রব

রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা রাষ্ট্রের ভয়ংকর চিত্র: রব

শেখ হাসিনা বার্নের ওয়ার্ড বয়কে মারধর করা সেই ছাত্রলীগনেতা বহিষ্কার

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ১৬:৪৬

সাংগঠনিক শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হলের উপ-দফতর সম্পাদক আকতারুল করিম রুবেলকে বহিষ্কার করা হয়েছে। বুধবার (২৮ জুলাই) ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের এক জরুরি সিদ্ধান্ত মোতাবেক জানানো যাচ্ছে যে, সংগঠনের নীতি-আদর্শ ও শৃঙ্খলা পরিপন্থী কার্যকলাপে জড়িত থাকায় আকতারুল করিম রুবেলকে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার করা হলো।

বহিষ্কারের বিষয়ে জানতে চাইলে লেখক ভট্টাচার্য বলেন, ‘রুবেলের বিরুদ্ধে মাদক সেবন, চাঁদা দাবি এবং শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের ওয়ার্ড বয়কে মারার যে অভিযোগ সেটা প্রমাণিত হয়েছে। ইতোমধ্যে প্রশাসন তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিয়েছে। অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

গত ২৬ জুলাই শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের এক ওয়ার্ড বয়ের কাছে চাঁদা দাবি করে না পেলে তাকে মারধর করে রুবেল। ভুক্তভোগী ওয়ার্ড বয়ের মামলা দায়েরের ভিত্তিতে ২৭ জুলাই তার এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। রুবেল নিজেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের রাজা দাবি করতেন বলে একাধিক সূত্রে জানা যায়।

 

/আইএ/

সম্পর্কিত

৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ আ.লীগের ইউনিট কমিটি করার নির্দেশ

৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ আ.লীগের ইউনিট কমিটি করার নির্দেশ

সম্পদের হিসাব দিতে কারও আপত্তি থাকার কথা নয়, আমিও প্রস্তুত: ওবায়দুল কাদের

সম্পদের হিসাব দিতে কারও আপত্তি থাকার কথা নয়, আমিও প্রস্তুত: ওবায়দুল কাদের

জয়ের নেতৃত্বের অপেক্ষায় আগামীর বাংলাদেশ: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

জয়ের নেতৃত্বের অপেক্ষায় আগামীর বাংলাদেশ: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

দেশে করোনায় মৃত্যুর হার ভারতের চেয়ে বেশি: ওবায়দুল কাদের

দেশে করোনায় মৃত্যুর হার ভারতের চেয়ে বেশি: ওবায়দুল কাদের

সর্বশেষ

বিনা দোষে মিনুর কারাভোগ, কুলসুম ও তার সহযোগী রিমান্ডে 

বিনা দোষে মিনুর কারাভোগ, কুলসুম ও তার সহযোগী রিমান্ডে 

জেলের বড়শিতে বিশাল বোয়াল

জেলের বড়শিতে বিশাল বোয়াল

অনির্দিষ্টকাল ইরানের সঙ্গে আলোচনা চলতে পারে না: মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

অনির্দিষ্টকাল ইরানের সঙ্গে আলোচনা চলতে পারে না: মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বিয়ের চার দিনের মাথায় কিশোরীর ‘আত্মহত্যা’

বিয়ের চার দিনের মাথায় কিশোরীর ‘আত্মহত্যা’

হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসায় র‌্যাবের অভিযান

হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসায় র‌্যাবের অভিযান

করোনার 'সুপার স্প্রেডার' রাষ্ট্র হওয়ার পথে মিয়ানমার

করোনার 'সুপার স্প্রেডার' রাষ্ট্র হওয়ার পথে মিয়ানমার

লকডাউনে মায়ের চেহলাম আয়োজন করায় ছেলেকে জরিমানা

লকডাউনে মায়ের চেহলাম আয়োজন করায় ছেলেকে জরিমানা

ফেরি ‘শাহজালাল’ দুর্ঘটনার অনুসন্ধানে চার সদস্যের কমিটি

ফেরি ‘শাহজালাল’ দুর্ঘটনার অনুসন্ধানে চার সদস্যের কমিটি

অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধে নীতিমালা প্রণয়নের আহ্বান

অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধে নীতিমালা প্রণয়নের আহ্বান

অধস্তন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কালো ব্যাজ পরিধানের নির্দেশ

অধস্তন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কালো ব্যাজ পরিধানের নির্দেশ

অবৈধ মজুতদারদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হবে: খাদ্যমন্ত্রী

অবৈধ মজুতদারদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হবে: খাদ্যমন্ত্রী

২৪ ঘণ্টায় ঢাকায় মৃত্যু ৭৬, শনাক্ত ৬৯৯৬

২৪ ঘণ্টায় ঢাকায় মৃত্যু ৭৬, শনাক্ত ৬৯৯৬

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ আ.লীগের ইউনিট কমিটি করার নির্দেশ

৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ আ.লীগের ইউনিট কমিটি করার নির্দেশ

সম্পদের হিসাব দিতে কারও আপত্তি থাকার কথা নয়, আমিও প্রস্তুত: ওবায়দুল কাদের

সম্পদের হিসাব দিতে কারও আপত্তি থাকার কথা নয়, আমিও প্রস্তুত: ওবায়দুল কাদের

আমাদের আন্দোলনে যেতে হবে: মির্জা ফখরুল

আমাদের আন্দোলনে যেতে হবে: মির্জা ফখরুল

পদক জীবনের চেয়ে মূল্যবান হতে পারে না: আ স ম রব

পদক জীবনের চেয়ে মূল্যবান হতে পারে না: আ স ম রব

শেখ হাসিনা বার্নের ওয়ার্ড বয়কে মারধর করা সেই ছাত্রলীগনেতা বহিষ্কার

শেখ হাসিনা বার্নের ওয়ার্ড বয়কে মারধর করা সেই ছাত্রলীগনেতা বহিষ্কার

জয়ের নেতৃত্বের অপেক্ষায় আগামীর বাংলাদেশ: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

জয়ের নেতৃত্বের অপেক্ষায় আগামীর বাংলাদেশ: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

দেশে করোনায় মৃত্যুর হার ভারতের চেয়ে বেশি: ওবায়দুল কাদের

দেশে করোনায় মৃত্যুর হার ভারতের চেয়ে বেশি: ওবায়দুল কাদের

‘সুপারিশ’ বন্ধ না হলে আ.লীগে বিতর্কিতদের সংখ্যা বাড়বেই

‘সুপারিশ’ বন্ধ না হলে আ.লীগে বিতর্কিতদের সংখ্যা বাড়বেই

ভিকারুননিসায় নতুন অধ্যক্ষ নিয়োগের দাবি মির্জা ফখরুলের

ভিকারুননিসায় নতুন অধ্যক্ষ নিয়োগের দাবি মির্জা ফখরুলের

মণি সিংহের ১২০তম জন্মবার্ষিকী কাল

মণি সিংহের ১২০তম জন্মবার্ষিকী কাল

© 2021 Bangla Tribune