X
বুধবার, ০৪ আগস্ট ২০২১, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

টিভি-টুর্নামেন্টের শামীম এখন জাতীয় দলে

আপডেট : ২৩ জুন ২০২১, ১৭:১৩

মাঠের সব দিকে বাহারি শট খেলতে পারদর্শী শামীম হোসেন। দলের প্রয়োজনে হাতও ঘোরাতে পারেন। তার পারফরম্যান্স শুধু ব্যাট-বলেই সীমাবদ্ধ থাকে না। মাঠে দুর্দান্ত একজন ফিল্ডার। এই কারণেই যুব বিশ্বকাপজয়ী দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ছিলেন চাঁদপুর থেকে উঠে আসা এই তরুণ। বয়সভিত্তিক ক্রিকেট পার হয়ে প্রথমবারের মতো জাতীয় দলেও সুযোগ করে নিলেন তিনি। জায়গা পেয়েছেন জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি দলে।

ছোটবেলায় যে স্বপ্নটা দেখতে ভয় পেতেন, সেটাই এখন শামীমের হাতের নাগালে! বিশ্বকাপ খেলে আসার পর থেকেই বেশ কয়েকটি টুর্নামেন্ট ও সিরিজে দারুণ ছন্দে ছিলেন। যেমন আয়ারল্যান্ড উলভসের বিপক্ষে শেষ দুই ওয়ানডেতেই ঝড় তুলে খেলেছেন। বঙ্গবন্ধু টি টোয়েন্টি কাপে তো সেরা ফিল্ডার হয়ে মাহমুদউল্লাহর কাছ থেকে ব্যাটই উপহার পেয়েছিলেন। প্রাইম দোলেশ্বরের হয়ে চলমান লিগে ব্যাট কিংবা বোলিংয়ে খুব একটা সুযোগ না পেলেও ফিল্ডিংয়ে নিজের কাজটা ঠিকই করে গেছেন শামীম। সবমিলিয়ে নির্বাচকরা কুড়ি ওভারের ফরম্যাটে আস্থা রাখছেন এই তরুণের ওপর।

শামিমও অবগত নিজের ভূমিকা নিয়ে। প্রথমবারের মতো ডাক পেয়ে বাংলা ট্রিবিউনকে বলেছেন, ‘ব্যাটিংয়ে আমার পজিশন ছয় নম্বর। আমি চাই যেভাবেই হোক ফিনিশিংটা করতে আর দলকে এগিয়ে নিতে। এটাই আমার লক্ষ্য থাকে। তবে আমি জানি, নিজের ভূমিকা সম্পর্কে। ব্যাটিং, বোলিং কিংবা ফিল্ডিং- যেভাবেই সুযোগ আসবে, সেভাবেই দলকে এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা থাকবে।’

শৈশবে চাচাতো ভাইদের ব্যাট-বলের খেলা দেখেই ক্রিকেটের প্রেমে মজে গিয়েছেলেন শামীম। ৮-৯ বছর বয়সে স্থানীয় টিভি-টুর্নামেন্টে নাম লিখিয়েছিলেন। ঠিকাদারি পেশায় ব্যস্ত বাবা ছেলের ক্রিকেট-প্রেমের কথা জানতেন। কিন্তু অন্য অনেক বাবার মতো বাগড়া দেননি। শুধু শর্ত ছিল পড়া-লেখাটা ঠিকমতো করতে হবে। গোবিন্দপুর উত্তর ইউনিয়নের ধানুয়া গ্রামের হামিদ পাটওয়ারী ও রিনা বেগমের পাঁচ সন্তানের মধ্যে শামীম সবার ছোট।

তার জাতীয় দলে সুযোগের খবরে দারুণ খুশি পরিবার। বাংলা ট্রিবিউনকে শামীম বলেছেন, ‘পরিবারের সবাই খুব খুশি। মা-বাবাতো সবচেয়ে বেশি খুশি। খুশি না হয়ে কি পারে? দল ঘোষণার আগেই জানতে পেরেছিলাম, সুযোগ হতে পারে। আসলে সুযোগটাইতো বড় নয়, কাজে লাগানোটাই বড়। নির্বাচকরা আমার ওপর আস্থা রেখেছেন, আমাকে অবশ্যই সেই আস্থার প্রতিদান দিতে হবে।’

ক্রিকেটার হয়ে ওঠার পথে বাবার চেয়ে চাচা আনোয়ারের সমর্থনকেই বেশি স্মরণ করেন বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের এই অলরাউন্ডার। সবসময়ই শামীমের পাশে ছিলেন চাচা। পাশাপাশি চাচাতো ভাইদেরও সহযোগিতা পেয়েছেন। স্থানীয় ক্রিকেটে শামীমের আশাজাগানিয়া পারফরম্যান্স দেখে তারাই তাকে ভর্তি করে দেন ক্লেমন ক্রিকেট একাডেমিতে। সেখান থেকেই শামীমের ঠিকানা হয় দেশের ক্রিকেটের সূতিকাগার বিকেএসপি। এমন খুশির দিনে চাচাকেও স্মরণ করলেন শামীম, ‘চাচা অনেক খুশি। সবাইকে ধন্যবাদ, যারা আমাকে ক্রিকেটার হয়ে উঠতে সহায়তা করেছেন। আমার শৈশবের কোচ, বিকেএসপির কোচ যারা আছেন, সবাইকে অনেক ধন্যবাদ।’

 /এফআইআর/

সম্পর্কিত

আগের দিন থেকেই উত্তেজনায় কাঁপছিলেন নাসুম

আগের দিন থেকেই উত্তেজনায় কাঁপছিলেন নাসুম

তবুও পা মাটিতেই রাখছেন মাহমুদউল্লাহরা

তবুও পা মাটিতেই রাখছেন মাহমুদউল্লাহরা

অবশেষে অস্ট্রেলিয়া-বধ

অবশেষে অস্ট্রেলিয়া-বধ

অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টিতে গর্জন বাংলাদেশের

অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টিতে গর্জন বাংলাদেশের

আগের দিন থেকেই উত্তেজনায় কাঁপছিলেন নাসুম

আপডেট : ০৩ আগস্ট ২০২১, ২৩:১৭

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট ও ওয়ানডে ফরম্যাটে আগেই জিতেছিল বাংলাদেশ। ২০০৫ সালে কার্ডিফে আশরাফুলের কাব্যিক ইনিংসের অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে জিতেছিল বাংলাদেশ। এরপর ২০১৭ সালে সাকিবের অলরাউন্ড পারফর‌ম্যান্সে আসে টেস্টের প্রথম জয়। বাকি ছিল টি-টোয়েন্টি। মঙ্গলবার সেই আক্ষেপও দূর হয়েছে।

নাসুমের স্পিন ঘূর্ণির সামনে অসহায় আত্মসমর্পণ করা সফরকারীরা হেরেছে ২৩ রানের ব্যবধানে। অথচ বাংলাদেশকে প্রথম জয় উপহার দেওয়া নাসুম আহমেদ অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের আগের দিন উত্তেজনায় কাঁপছিলেন।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের আগের দিনেই নাসুমকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল তিনি আছেন একাদশে। কোচের কাছ থেকে এমন কথা শুনেই উত্তেজনায় কাঁপছিলেন বাঁহাতি এই স্পিনার। ম্যাচ সেরার পুরষ্কার হাতে নাসুম জানালেন সেই কথা, ‘কালকে যখন নেটে বল করছিলাম তখন কোচ আমাকে বলল যে কাল (মঙ্গলবার) তুমি খেলবে। তাই তোমার ওপর অনেক দায়িত্ব। সেখান থেকেই আমি ভাবছিলাম খেললে আমি কী করবো, কী করবো। অনেক উত্তেজিত ছিলাম। ’

হারারেতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একটি ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন নাসুম। কিন্তু ৩৭ রান খরচ করে ছিলেন উইকেটশূন্য। ব্যর্থতার কথা মনে করে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের আগে সংকল্পবদ্ধ ছিলেন ২৬ বছর বয়সী এই স্পিনার, ‘শেষ একটা ম্যাচে একটু বাজে বল করেছি। তো যখন আমরা ১৩১ করেছি, তখন নামার আগে রিয়াদ ভাই বলছিল আমরা এ রানেই ফাইট করবো, ডট বল করবো, যতটুকু পারি চেষ্টা করবো জেতার জন্য। আমার পরিকল্পনাও ছিল ডট বল।’

ম্যাচের নায়ক নাসুমকে দ্বিতীয় বলেই ছক্কা হজম করতে হয়েছিল। পরে অবশ্য নিজেকে গুছিয়ে নিয়েছিলেন এই স্পিনার। শেষ পর্যন্ত ৪ ওভারে ১৯ রান খরচায় তুলে নিয়েছেন চারটি উইকেট। এমন সাফল্যে সাকিবের পরামর্শ কাজে দিয়েছে বলে জানিয়েছেন নাসুম, ‘যখন প্রথম দুটো বল করলাম ব্যাক অব লেন্থে তখন সাকিব ভাই আমাকে বললেন, এই উইকেটে আস্তে বলটাই ভালো এবং সামনে করলে ভালো হয়। তো ওটাই চেষ্টা করেছি। চারটা ওভার যে করেছি সবসময়ই সাকিব ও রিয়াদ ভাই আমার সঙ্গে কথা বলেছে।’

১৩১ রান করার পরও বাংলাদেশের ভাবনায় জয় ছাড়া কিছু ছিল না। সংবাদ সম্মেলনে নাসুম জানালেন, ‘আমরা যে রান করছি ওটাতে ডিফেন্ড করা সম্ভব ছিল। আমাদের চেষ্টাও ছিল সেই সঙ্গে উইকেটেও সাহায্য ছিল। সবার ইচ্ছা ছিল ভাল কিছু একটা করে দেখানোর। আর ওই ইচ্ছার কারণে আমরা সফল হয়েছি।’

/আরআই/এমআর/

সম্পর্কিত

তবুও পা মাটিতেই রাখছেন মাহমুদউল্লাহরা

তবুও পা মাটিতেই রাখছেন মাহমুদউল্লাহরা

অবশেষে অস্ট্রেলিয়া-বধ

অবশেষে অস্ট্রেলিয়া-বধ

অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টিতে গর্জন বাংলাদেশের

অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টিতে গর্জন বাংলাদেশের

মিরপুরে নাসুম-শো

মিরপুরে নাসুম-শো

তবুও পা মাটিতেই রাখছেন মাহমুদউল্লাহরা

আপডেট : ০৩ আগস্ট ২০২১, ২৩:১৭

অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং লাইনআপকে গুঁড়িয়ে দিয়ে প্রথমবারের মতো জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ। ২৩ রানের দারুন জয়ে ৫ ম্যাচ সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে থাকলো স্বাগতিকরা। এমন জয়ের পরও পা মাটিতে রাখছেন বাংলাদেশর অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। মঙ্গলবার ম্যাচ জেতার পর পুরষ্কার বিতরণী মঞ্চে এমনটাই বলেছেন মাহমুদউল্লাহ।

অস্ট্রেলিয়াকে প্রথমবার হারলেও ব্যাটিংয়ে নিজের সেরাটা দিতে পারেনি বাংলাদেশ। মিরপুরের স্লো উইকেটে স্বাগতিকরা সংগ্রহ করেছে ১৩১ রান। অস্ট্রেলিয়ার ইনিংস শুরু হওয়ার আগে দলীয় আলোচনা মাহমুদউল্লাহ সতীর্থদের বলেছিলেন ১০ রানের আক্ষেপের কথা, ‘আমারা দলীয়ভাবে আলোচনা করেছিলাম আমাদের দশটা রান কম হয়েছে, তাই আমাদের ভালো ফিল্ডিং করে সেটি পূরণ করতে হবে।’

এত অল্প রানের পরও সতীর্থদের আক্রমণত্মক মনোভাবে মুগ্ধ মাহমুদউল্লাহ, ‘এটা খুবই দারুন ব্যাপার সবাই ভালো করতে ক্ষুধার্ত ছিল। বোলাররা তাদের পরিকল্পনা দারুণভাবে বাস্তবায়ন করতে পেরেছে। প্রত্যেক বলেই আমাদের আক্রমণাত্মক মানসিকতার প্রয়োজন ছিল, আমরা সেটিই করতে পেরেছি।’

ব্যাটিংয়ে ব্যর্থ হওয়ার পরও জিতেছে বাংলাদেশ। প্রতি ম্যাচে এমন সুযোগ পাবে না স্বাগতিকরা। তাইতো জিতলেও সতীর্থদের সতর্ক করেছেন বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক, ‘আমরা টপে ছিলাম না, তারপরও ম্যাচ জিতেছি। তবে এটা চলে গেছে। এখন আমাদের পরের ম্যাচের জন্য তৈরি হতে হবে। প্রথম বল থেকেই যেন আমরা আমাদের সেরাটা দিতে পারি। আমরা আমাদের পা মাটিতেই রাখছি।’

 

/আরআই/এফএএন/

সম্পর্কিত

আগের দিন থেকেই উত্তেজনায় কাঁপছিলেন নাসুম

আগের দিন থেকেই উত্তেজনায় কাঁপছিলেন নাসুম

অবশেষে অস্ট্রেলিয়া-বধ

অবশেষে অস্ট্রেলিয়া-বধ

অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টিতে গর্জন বাংলাদেশের

অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টিতে গর্জন বাংলাদেশের

মিরপুরে নাসুম-শো

মিরপুরে নাসুম-শো

৭ গোলের ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনীর জয়

আপডেট : ০৩ আগস্ট ২০২১, ২২:৪৮

১৪ দিন বিরতি দিয়ে প্রিমিয়ার ফুটবল লিগ আবারও শুরু হয়েছে। শুরুর দিনে ৭ গোলের রোমাঞ্চকর ম্যাচে জিতেছে চট্টগ্রাম আবাহনী। মারুফুল হকের দল ৪-৩ গোলে হারিয়েছে উত্তর বারিধারাকে। অন্য ম্যাচে রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস সোসাইটি ২-০ গোলে জিতেছে ব্রাদার্স ইউনিয়নের বিপক্ষে।

আজ (মঙ্গলবার) কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে ম্যাচের ১০ মিনিটে এগিয়ে যায় উত্তর বারিধারা। ইভজেনি কোচনেভ পেনাল্টি থেকে লক্ষ্যভেদ করেন। পিছিয়ে থেকে বন্দরনগীর দলটি ম্যাচে ফিরতে সময় নেয়নি। ২১ ও ৪১ মিনিটে ব্রাজিলিয়ান গুলের্মের জোড়া গোলে এগিয়ে যায়। চিনেদু ম্যাথিউ ৫০ মিনিটে স্কোরলাইন ৩-১ করেন। এছাড়া সেইদস্তনের আত্মঘাতী গোলে চট্টগ্রাম আবাহনী ব্যবধান আরও বাড়ায়।

বারিধারা তখনও হতোদ্যম হয়নি। ৬৭ মিনিটে সুমন রেজা ও ৮০ মিনিটে মারুফ ২ গোল শোধ দেন। স্কোরলাইন ৪-৩ হলেও শেষ পর্যন্ত দলের হার এড়ানো যায়নি।

অন্য ম্যাচে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ব্রাদার্সকে দ্বিতীয়ার্ধের ২ গোলে হারায় রহমতগঞ্জ। ৪৯ মিনিটে ক্রিস রেমি ও যোগ করা সময়ে ফেলিক্স চিডি গোল দুটি করেন।

১৯ ম্যাচে ৩৪ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে আছে চট্টগ্রাম আবাহনী। এক ম্যাচ কম খেলে উত্তর বারিধারা ১৫ পয়েন্ট নিয়ে দশম স্থানে। অন্যদিকে ১৯ ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে নবম স্থানে রহমতগঞ্জ। ব্রাদার্স ১৮ ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে আছে অবনমন অঞ্চলে।

/টিএ/কেআর/

সম্পর্কিত

ব্রাজিল-স্পেনের জমজমাট ফাইনাল

ব্রাজিল-স্পেনের জমজমাট ফাইনাল

টাইব্রেকার জিতে ফাইনালে ব্রাজিল

টাইব্রেকার জিতে ফাইনালে ব্রাজিল

ভারতীয় প্রতিযোগিতায় খেলবে বাংলাদেশের দুই ক্লাব

ভারতীয় প্রতিযোগিতায় খেলবে বাংলাদেশের দুই ক্লাব

নেইমার-এমবাপ্পে নেই, শিরোপা খোয়ালো পিএসজি

নেইমার-এমবাপ্পে নেই, শিরোপা খোয়ালো পিএসজি

অবশেষে অস্ট্রেলিয়া-বধ

আপডেট : ০৩ আগস্ট ২০২১, ২২:৩৫

বাংলাদেশকে অল্প রানে বেঁধে হাসি মুখেই ড্রেসিং রুমে ফিরেছিল অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু ব্যাটিংয়ে নামতেই তাদের হাসি উধাও!

বাংলাদেশের বোলাররা একটি করে ওভার শেষ করেন, আর ড্রেসিং রুমের অজি ক্রিকেটারদের হাসি মুখগুলো কালো হতে থাকে। বাংলাদেশের কাছে হেরে যাচ্ছেন, এটা যেন বিশ্বাসই করতে পারছিলেন না অস্ট্রেলিয়ানরা। কুড়ি ওভারের ক্রিকেটে বড় অনেক দলের বিপক্ষে জয়হীন বাংলাদেশ, তার মধ্যে ছিল অস্ট্রেলিয়াও। অবশেষে অস্ট্রেলিয়াকে হারানোর আনন্দে মাতলো লাল-সবুজ জার্সিধারীরা।

বাংলাদেশের স্পিন আক্রমণের বিপক্ষে ভেঙে পড়ে অজিদের ব্যাটিং লাইনআপ। আর তাতেই ২৩ রানের জয়ে পাঁচ ম্যাচের সিরিজ হাসিমুখে শুরু করে স্বাগতিকরা। জৈব সুরক্ষা বলয়ের কারণে করমর্দন করেনি অস্ট্রেলিয়া। তবে বাংলাদেশের ড্রেসিং রুমের কাছে গিয়ে হাততালির মাধ্যমে বাংলাদেশকে ঠিকই শুভেচ্ছা জানিয়ে গেছেন অস্ট্রেলিয়া।

২০০৬ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে যাত্রা শুরু বাংলাদেশের। এরপর কেটে গেছে ১৫ বছর। এতো বছরে এই প্রথম অস্ট্রেলিয়াকে দ্বিপাক্ষিক সিরিজে পেয়েছে বাংলাদেশ। বিশ্বকাপে চারবার মুখোমুখি হলেও দ্বিপাক্ষিক সিরিজে এবারই প্রথম দেখা। বাংলাদেশের সঙ্গে সিরিজগুলোতে বাণিজ্যিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে হয়, এই অজুহাতে খেলতে চায় না অস্ট্রেলিয়া। এমনকি ভবিষ্যৎ সফরসূচিতে থাকা ম্যাচগুলোও নানা অজুহাতে অনেক সময় বাতিল করে দেওয়ার ইতিহাসও আছে তাদের। সব মিলিয়ে তাই অস্ট্রেলিয়াকে হারানো বাংলাদেশের জন্য স্বস্তিরও বটে।

আইসিসির ইভেন্ট- বিশ্বকাপ না থাকলে এতোদিনে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের মুখোমুখি হওয়ার সংখ্যা থাকতো শূন্য! কেননা ২০০৭, ২০১০, ২০১৪ ও ২০১৬ সালের বিশ্বকাপ ইভেন্টেই কেবল অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হতে পেরেছে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। অবশ্য বিশ্বকাপের সব ম্যাচেই হতাশাজনক পারফরম্যান্স ছিল। এর মধ্যে বেঙ্গালুরুতে অনুষ্ঠিত ২০১৬ সালের বিশ্বকাপেই খানিকটা ভালো পারফরম্যান্স এসেছে। ওই ম্যাচে ভালো ব্যাটিংয়ের পরও ৩ উইকেটে হেরেছিল বাংলাদেশ।

আজ (মঙ্গলবার) আগের সব হতাশা ভুলিয়ে দিয়ে হাসি মুখে পাঁচ ম্যাচের সিরিজ শুরু করেছে বাংলাদেশ। এদিন মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে কন্ডিশনের সুবিধা কাজে লাগিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে কোনও সুযোগই দেয়নি স্বাগতিকরা।

মুশফিকুর রহিম, লিটন দাস ও তামিম ইকবালকে হারিয়ে এমনিতেই খর্বশক্তির দলে পরিণত হয়েছে বাংলাদেশ। ব্যাটিংয়ে এই তিন ক্রিকেটারের অভাব ফুটে উঠলেও বোলাররা তাদের কাজ ঠিকমতোই করেছেন। শুরু থেকেই স্পিনারদের দিয়ে আক্রমণ শুরু করেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। দুই প্রান্ত থেকে মেহেদী হাসান ও নাসুম আহমেদ চেপে ধরেন অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানদের। ১১ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়া অস্ট্রেলিয়া ‘গর্ত’ থেকে আর বের হতে পারেনি। ছয় বোলারের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের সামনে অসহায় আত্মসমর্পণ করে মাত্র ১০৮ রানে অলআউট হয় সফরকারীরা।

/কেআর/

সম্পর্কিত

আগের দিন থেকেই উত্তেজনায় কাঁপছিলেন নাসুম

আগের দিন থেকেই উত্তেজনায় কাঁপছিলেন নাসুম

তবুও পা মাটিতেই রাখছেন মাহমুদউল্লাহরা

তবুও পা মাটিতেই রাখছেন মাহমুদউল্লাহরা

অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টিতে গর্জন বাংলাদেশের

অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টিতে গর্জন বাংলাদেশের

মিরপুরে নাসুম-শো

মিরপুরে নাসুম-শো

অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টিতে গর্জন বাংলাদেশের

আপডেট : ০৩ আগস্ট ২০২১, ২২:৩২

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজ জিতেছে। সেই আত্মবিশ্বাস নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ঘরের মাঠে নামা। তবে বলার অপেক্ষা রাখে না, জিম্বাবুয়ে ও অস্ট্রেলিয়া একই মানের দল নয়। বাংলাদেশের খেলোয়াড়রাও বিষয়টি জানতেন। তবে মাহমুদউল্লাহ সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছিলেন, নিজেরদের সেরাটা দিতে পারলে অস্ট্রেলিয়াকে হারানো সম্ভব। ব্যাটিংয়ে সেই ‘সেরা’টা দিতে না পারলেও বোলারদের অসাধারণ পারফরম্যান্সে জয় দিয়েই পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু করেছে বাংলাদেশ।

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে প্রথম টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়াকে ২৩ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ। স্পিনাররা, বিশেষ করে নাসুম আহমেদের দুর্দান্ত বোলিংয়ে একেবারেই সুবিধা করতে পারেনি সফরকারীরা। বাংলাদেশের ৭ উইকেটে করা ১৩১ রানের জবাবে অস্ট্রেলিয়া নির্ধারিত ২০ ওভারে অলআউট হয় ১০৮ রানে।

আর এরই সঙ্গে টি-টোয়েন্টিতে নিজেদের শক্তির জানান দিলো বাংলাদেশ। কুড়ি ওভারের ক্রিকেটে বাংলাদেশ পিছিয়ে আছে অনেক- এই অপবাদ ও ব্যর্থতা থেকে বেরোনোর প্রথম ধাপটাও হয়তো ফেললো শক্তিধর অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে। তাও আবার মাত্র ১৩১ রানের সংগ্রহ দাঁড় করিয়ে। বলার অপেক্ষা রাখে না, জয়ের পুরো কৃতিত্বই পাবেন বোলাররা। যেখানে নাসুম ৪ ওভারে মাত্র ১৯ রান দিয়ে নিয়েছেন ৪ উইকেট।

অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে আগের চারবারের সাক্ষাতে কোনও জয় ছিল না বাংলাদেশের। পঞ্চমবারে সফল লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। ব্যাটসম্যানরা সুবিধা করতে না পারলেও বোলাররা স্বল্প পুঁজিতে এনে দিয়েছেন জয়ের আনন্দ। সফরকারীদের অলআউট করার পথে নেতৃত্ব দিয়েছেন ম্যাচসেরার পুরস্কার জেতা নাসুম আহমেদ। এছাড়া মোস্তাফিজুর রহমান ৪ ওভারে ১৬ রান দিয়ে নেন ২ উইকেট। আরেক পেসার শরিফুল ইসলাম ৩ ওভারে পেয়েছেন ২ উইকেট। মেহেদী ৪ ওভারে ২২ রান দিয়ে পান ১ উইকেট। সাকিব আল হাসানও ১ উইকেট ‍পেয়েছেন ২৪ রান খরচায়।

মিরপুরে নাসুম-শো

বাংলাদেশের উইকেট উৎসবের শুরুটা করেছিলেন শেখ মেহেদী হাসান। তবে অস্ট্রেলিয়ার ওপর ছড়ি ঘুরিয়েছেন আসলে নাসুম আহমেদ। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে চলেছে নাসুম-শো। এই বাঁহাতি স্পিনার একের পর এক উইকেট তুলে নিয়ে এনে দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়া-বধের আনন্দ।

৪ ওভারের বোলিং কোটা পূরণ করেছেন এই স্পিনার। তার বোলিং ফিগারটা এমন- ৪-০-১৯-৪। অর্থাৎ, ১৯ রান দিয়ে নিয়েছেন ৪ উইকেট। শুরুটা করেছিলেন ওপেনার জশ ফিলিপেকে দিয়ে। এরপর তুলে নেন ম্যাথু ওয়েড ও অ্যাশটন অ্যাগারের উইকেট। আর সবশেষে এই ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উইকেট মিচেল মার্শকে তুলে নেন।

মার্শ টিকে থাকায় অস্ট্রেলিয়া আশার আলো দেখতে পাচ্ছিল। কিন্তু নিজের শেষ ওভারে এই ব্যাটসম্যানকেও নাসুম ফেরান শরিফুল ইসলামের হাতে ক্যাচ বানিয়ে। ফেরার আগে মার্শ ৪৫ বলে ৪ বাউন্ডারি ও ১ ছক্কায় করেন ৪৫ রান।

অস্ট্রেলিয়ার ‘মরার ওপর খাড়ার ঘা’

এমনিতেই বাংলাদেশের স্পিনারদের সামনে নাস্তানাবুদ, এর ওপর আবার হিট উইকেটের শিকার! এ যেন অস্ট্রেলিয়ার ‘মরার ওপর খাড়ার ঘা’ অবস্থা। অ্যাশটন অ্যাগার পা দিয়ে আঘাত করে স্টাম্প ভাঙলে পঞ্চম উইকেট হারায় সফরকারীরা।

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে পাঁচ ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে স্বাগতিক স্পিনারদের সামনে ৪৯ রানে ৪ উইকেট হারানোর পর অ্যাগারকে নিয়ে জুটি গড়ার চেষ্টায় ছিলেন মিচেল মার্শ। সঙ্গ দেওয়া অ্যাগার উইকেট বিলিয়ে এসেছেন হিট উইকেট হয়ে।

নাসুম আহমেদের বল এতটা পিছিয়ে খেলতে গিয়েছিলেন অ্যাগার যে, তার জুতার পেছনের অংশ আঘাত করে স্টাম্পে। বেল পড়ে যাওয়ায় হতাশায় পোড়ে অস্ট্রেলিয়া, আর উইকেট আনন্দে মাতে বাংলাদেশ।

ব্যর্থ ওয়েড

অ্যারন ফিঞ্চের অনুপস্থিতিতে অস্ট্রেলিয়ার টি-টোয়েন্টির নেতৃত্ব পেয়েছেন ম্যাথু ওয়েড। জাতীয় দলের জার্সিতে অধিনায়কত্বের অভিষেকটা মোটেও সুখকর হলো না তার। ব্যাট হাতে কিছুই করতে পারেননি। প্রয়োজনের সময় ২৩ বলে ১৩ রান করে নাসুমের শিকার হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। যেখানে চাপের মধ্যে থাকা দলকে তোলার দায়িত্ব ছিল তার। তা তো করতে পারেনইনি, উল্টো দলকে ফেলে আসেন আরও বিপদে।

বাংলাদেশের স্পিনে এলোমেলো অস্ট্রেলিয়া

দ্বিতীয় ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং শুরুর হচ্ছে, টেলিভিশনের সামনে থাকা দর্শকেরা নড়েচড়ে বসারও সুযোগ পেলেন না। উইকেট আনন্দে মাতলেন শেখ মেহেদী হাসান। সেই শুরু, একে একে আসতে থাকলো উৎসবের উপলক্ষ। নাসুম আহমেদ হয়ে সাকিব আল হাসান। ফল, বাংলাদেশের স্পিন আক্রমণে এলোমেলো অস্ট্রেলিয়া।

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে ১১ রান তুলতে ৩ উইকেট হারায় অস্ট্রেলিয়া। প্রথম বলে উইকেট হারানোর পর ধাক্কা আরও জোরে লাগে দ্রুত ২ উইকেট হারালে। বাংলাদেশের স্পিন আক্রমণের বিপক্ষে যে কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে, সে কথা অস্ট্রেলিয়ান খেলোয়াড়রা বলে গিয়েছিলেন সংবাদমাধ্যমের কাছে। তাই বলে এতটা হবে, সেটা হয়তো চিন্তা করেননি।

সাকিব বল তুলে নিয়েই করেছেন উইকেট উদযাপন। মোয়েসেস হেনরিকসকে বোল্ড করে তৃতীয় উইকেট এনে দিয়েছেন তিনি। অফ স্টাম্পের বল লেগ সাইডে টেনে খেলতে গিয়ে বোল্ডের শিকার এই ব্যাটসম্যান। ফেরার আগে ২ বলে করেন মাত্র ১ রান।

প্রথম বলেই উইকেট

প্রথম বলেই উইকেট বাংলাদেশের। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে বাংলাদেশকে দুর্দান্ত শুরু এনে দিলেন শেখ মেহেদী হাসান। এই স্পিনারের প্রথম বলে আউট হয়ে গেছেন অ্যালেক্স ক্যারি। এখানেই শেষ নয়, দ্বিতীয় ওভারে বাংলাদেশ পেয়েছে আরেকটি উইকেট।

প্রথম টি-টোয়েন্টিতে আগে ব্যাট করে ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৩১ রান করেছে বাংলাদেশ। বড় স্কোর গড়তে না পারায় বোলিংয়ে দারুণ শুরু প্রয়োজন ছিল স্বাগতিকদের। সেই শুরুটা এনে দিলেন মেহেদী। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ শুরুতে তার হাতেই তুলে দিয়েছিলেন বল। বল পেয়েই বোল্ড করে প্যাভিলিয়নে ফিরিয়েছেন ক্যারিকে।

তাতে কোনও রান তোলার আগেই উইকেট হারায় অস্ট্রেলিয়া। শুরুর ধাক্কা সামলাবে কী, দ্বিতীয় ওভারে আবার উইকেট হারিয়েছে তারা। নাসুম আহমেদের বলে ফিরে গেছেন জশ ফিলিপে। স্টাম্পিং হয়ে ফেরার আগে ৫ বলে ১ ছক্কায় করেন ৯ রান।

বাংলাদেশের ১৩১

অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বমানের বোলারদের সামলানোর চ্যালেঞ্জ অবশ্যই ছিল। বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ সে কথা সংবাদ সম্মেলনে বলেও গিয়েছিলেন। তবে অস্ট্রেলিয়ান বোলারদের ‍খুব বেশি চেষ্টা করতে হয়নি, বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরাই উইকেট বিলিয়ে দিয়ে তাদের কাজ সহজ করে দিয়েছেন। উইকেট ছেড়ে ‍আসার খেলায় নির্ধারিত ২০ ওভারে বাংলাদেশ করেছে ৭ উইকেটে ১৩১ রান।

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে বাজেভাবে আউট হয়েছেন বাংলাদেশের প্রায় সব ব্যাটসম্যান। দুই ওপেনার সৌম্য সরকার (৯ বলে ২) ও নাঈম শেখের (২৯ বলে ৩০) আউট ছিল দৃষ্টিকটু। নুরুল হাসান সোহানও (৪ বলে ৩) উঠবেন কাঠগড়ায়। ধৈর্যশীল ইনিংস খেলা সাকিব আল হাসানের (৩৩ বলে ৩৬) আউটেও কৃতিত্ব পাবেন না বোলার জশ হ্যাজেলউড। ‍কেবল আফিফ হোসেন (১৬ বলে ২৩) ও শামীম হোসেনের (৩ বলে ৪) আউট দুটিতে ছিল মিচেল স্টার্কের প্রশংসা করার মতো বোলিং।

অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে সফল বোলার হ্যাজেলউড। ৪ ওভারে ২৪ রান দিয়ে তার শিকার ৩ উইকেট। স্টার্ক ৪ ওভারে ৩৩ রান দিয়ে নেন ২ উইকেট। আর একটি করে উইকেট পেয়েছেন অ্যাডাম জাম্পা ও অ্যান্ড্রু টাই।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ: ২০ ওভারে ১৩১/৭ (সাকিব ৩৬, নাঈম ৩০, আফিফ ২৩, মাহমুদউল্লাহ ২০; হ্যাজেলউড ৩/২৪, স্টার্ক ২/৩৩)।

অস্ট্রেলিয়া: ২০ ওভারে ১০৮ (মার্শ ৪৫, স্টার্ক ১৪, ওয়েড ১৩; নাসুম ৪/১৯, মোস্তাফিজ ২/১৬, শরিফুল ২/১৯)।

ফল: বাংলাদেশ ২৩ রানে জয়ী।

ম্যাচসেরা: নাসুম আহমেদ।

/কেআর/

সম্পর্কিত

আগের দিন থেকেই উত্তেজনায় কাঁপছিলেন নাসুম

আগের দিন থেকেই উত্তেজনায় কাঁপছিলেন নাসুম

তবুও পা মাটিতেই রাখছেন মাহমুদউল্লাহরা

তবুও পা মাটিতেই রাখছেন মাহমুদউল্লাহরা

অবশেষে অস্ট্রেলিয়া-বধ

অবশেষে অস্ট্রেলিয়া-বধ

মিরপুরে নাসুম-শো

মিরপুরে নাসুম-শো

সর্বশেষ

স্বামীর ৪ ঘণ্টা পর শ্বাসকষ্টে স্ত্রীরও মৃত্যু

স্বামীর ৪ ঘণ্টা পর শ্বাসকষ্টে স্ত্রীরও মৃত্যু

দশ টাকার ভাড়া নিয়ে রিকশাচালককে রডের আঘাতে হত্যা

দশ টাকার ভাড়া নিয়ে রিকশাচালককে রডের আঘাতে হত্যা

কাবুলে শক্তিশালী বিস্ফোরণ, গোলাগুলি, নিহত ৩

কাবুলে শক্তিশালী বিস্ফোরণ, গোলাগুলি, নিহত ৩

বৃদ্ধ বাবা-মাকে আশ্রয়হীন করায় ৩ ছেলেকে পুলিশে দিলেন ইউএনও

বৃদ্ধ বাবা-মাকে আশ্রয়হীন করায় ৩ ছেলেকে পুলিশে দিলেন ইউএনও

মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতরের বাইরে গোলাগুলি

মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতরের বাইরে গোলাগুলি

৩ থেকে ১৭ বছর বয়সীদেরও টিকা দেবে আমিরাত

৩ থেকে ১৭ বছর বয়সীদেরও টিকা দেবে আমিরাত

স্ত্রীকে অপহরণের অভিযোগে সেনাসদস্য গ্রেফতার

স্ত্রীকে অপহরণের অভিযোগে সেনাসদস্য গ্রেফতার

বঙ্গোপসাগরে বিকল সেন্টমার্টিনগামী যাত্রীবাহী ট্রলার

বঙ্গোপসাগরে বিকল সেন্টমার্টিনগামী যাত্রীবাহী ট্রলার

আগের দিন থেকেই উত্তেজনায় কাঁপছিলেন নাসুম

আগের দিন থেকেই উত্তেজনায় কাঁপছিলেন নাসুম

তবুও পা মাটিতেই রাখছেন মাহমুদউল্লাহরা

তবুও পা মাটিতেই রাখছেন মাহমুদউল্লাহরা

কলকাতা পৌরসভায় নিরঙ্কুশ জয়ের পথে তৃণমূল!

কলকাতা পৌরসভায় নিরঙ্কুশ জয়ের পথে তৃণমূল!

৩ লাখ ২২ হাজার টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

৩ লাখ ২২ হাজার টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

আগের দিন থেকেই উত্তেজনায় কাঁপছিলেন নাসুম

তবুও পা মাটিতেই রাখছেন মাহমুদউল্লাহরা

৭ গোলের ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনীর জয়

অবশেষে অস্ট্রেলিয়া-বধ

অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টিতে গর্জন বাংলাদেশের

মিরপুরে নাসুম-শো

অস্ট্রেলিয়ার ‘মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা’

টোকিও অলিম্পিকব্রাজিল-স্পেনের জমজমাট ফাইনাল

বাংলাদেশের স্পিনে এলোমেলো অস্ট্রেলিয়া

প্রথম বলেই উইকেট, দুর্দান্ত শুরু বাংলাদেশের

© 2021 Bangla Tribune