X
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

কাজে আসছে না কঠোর বিধিনিষেধ, কুড়িগ্রামে বাড়ছে সংক্রমণ

আপডেট : ২৫ জুন ২০২১, ১৪:৪৯

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণে জেলা শহরসহ কুড়িগ্রাম পৌর এলাকায় কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হলেও সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হচ্ছে না। জেলা শহরের পৌর এলাকায় গত ১৭ জুন শুরু হওয়া বিধিনিষেধ এক সপ্তাহ ধরে চলমান থাকলেও সংক্রমণের মাত্রা বেড়েই চলছে।

অন্যদিকে মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণে কুড়িগ্রাম পৌর এলাকার বেশ কিছু সড়কে বাঁশ দিয়ে ব্যারিকেড দেওয়া হলেও প্রশাসনের নজরদারির অভাবে কোনও কাজে আসছে না তা। ফলে নিয়ন্ত্রিত সড়কেও জনগণের অনিয়ন্ত্রিত চলাচল বেড়েছে।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, বিধিনিষেধ আরোপের এক সপ্তাহ পার হলেও সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হয়নি। বরং সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী রয়েছে। গত এক সপ্তাহে যে পরিমাণ মানুষ সংক্রমিত হয়েছে, তা সপ্তাহ বিবেচনায় এ বছরের সর্বোচ্চ। এ অবস্থায় বিধিনিষেধ কার্যকরে প্রশাসনের নজরদারির পাশাপাশি মানুষের সচেতনতার বিকল্প নেই।

জেলা শহরের পৌর এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে, জনসাধারণের অবাধ চলাচল নিয়ন্ত্রণে শহরের কয়েকটি সড়কের প্রবেশপথে বাঁশ দিয়ে যান চলাচল বন্ধসহ মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তবে সাধারণ মানুষ বাধা উপেক্ষা করেই সংশ্লিষ্ট সড়কগুলোতে চলাচল করছে। নিয়ন্ত্রিত এলাকায় সড়কে দেওয়া ব্যারিকেডের বাঁশ সরিয়ে চলাচল করছে মানুষ। সেই সঙ্গে বেড়েছে মোটরসাইকেল ও বাইসাইকেলে যাতায়াত।

আবার পৌর এলাকায় বেশিরভাগ মানুষকে মাস্ক ছাড়াই বাইরে বের হতে দেখা যাচ্ছে। ছোট ছোট যানবাহনগুলোতে কোনও রকম স্বাস্থ্যবিধি ছাড়াই চলছে মানুষের যাতায়াত। বাজারগুলোতে ক্রেতা ও বিক্রেতার মাঝে মাস্ক ব্যবহারে অনীহা লক্ষ্য করা গেছে। সংক্রমণের মাত্রা বাড়তে থাকার বিপরীতে মানুষের মাঝে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষার প্রবণতা চলছে।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী ২৪ জুন জেলায় ৮৮টি নমুনা পরীক্ষায় ৩৬ জন করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছেন। শনাক্তের হার ৪০ শতাংশ। এর মধ্যে সদর উপজেলার ২৩ জন। গত এক সপ্তাহে জেলায় ১৫৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানায়, গত ২২ জুন থেকে ২৪ জুন পর্যন্ত তিন দিনে জেলায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৮৮ জনের। যার মধ্যে ৫৪ জনই সদর উপজেলার বাসিন্দা। অথচ জেলা শহরের পৌর এলাকায় কঠোর বিধিনিষেধ চলমান।

জানতে চাইলে জেলার সাবেক সিভিল সার্জন ও জেলা করোনা সংক্রান্ত কমিটির সদস্য ডা. আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘কঠোর বিধিনিষেধের আওতাধীন এলাকায় নজরদারি বাড়াতে হবে। পাশাপাশি জেলার সীমান্ত এলাকার উপজেলাগুলোতেও বিধিনিষেধ আরোপ করা জরুরি। তবে মানুষ নিজে সচেতন না হলে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে দাঁড়াবে।’

কঠোর বিধিনিষেধ আরোপের পরও জেলায় করোনা সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী রয়েছে জানিয়ে সিভিল সার্জন ডা. হাবিবুর রহমান বলেন, ‘গত এক সপ্তাহে সংক্রমণ আরও বেড়েছে। এ অবস্থায় কঠোর বিধিনিষেধের সময়সীমা বাড়ানো হচ্ছে। পাশাপাশি বিধিনিষেধের আওতাধীন এলাকায় প্রশাসনিক নজরদারি বাড়ানোর পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।’

 

/এএম/

সম্পর্কিত

‘রোহিঙ্গা’ সম্বোধনে পিটিয়ে হত্যা, প্রতিবাদে বিক্ষোভ

‘রোহিঙ্গা’ সম্বোধনে পিটিয়ে হত্যা, প্রতিবাদে বিক্ষোভ

৬ দিন পর হিলি দিয়ে আমদানি-রফতানি শুরু

৬ দিন পর হিলি দিয়ে আমদানি-রফতানি শুরু

পাথর শ্রমিকদের জালে ২৮ কেজির বাঘাইড়

পাথর শ্রমিকদের জালে ২৮ কেজির বাঘাইড়

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক ফাঁকা

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক ফাঁকা

সাতক্ষীরায় করোনার চেয়ে উপসর্গে মৃত্যু ছয় গুণ

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ২১:৫৬

সাতক্ষীরায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গে আরও নয় জনের মৃত্যু হয়েছে। সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজ (সামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়। এর মধ্যে আট জন করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। অন্যজন করোনায় আক্রান্ত ছিলেন। এ নিয়ে জেলায় ২৪ জুলাই পর্যন্ত করোনা ও উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ৫১০ জন। এর মধ্যে করোনায় মারা গেছেন ৮৩ জন। হিসাবে করোনার চেয়ে উপসর্গ নিয়ে জেলায় মৃত্যু ছয় গুণ বেশি।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানায়, জ্বর, সর্দি, কাশি ও শ্বাসকষ্টসহ করোনার নানা উপসর্গ নিয়ে  সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি হন এসব ব্যক্তি। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়। 

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় সামেক হাসপাতালের পিসিআর ল্যাব ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২৯২ নমুনা পরীক্ষায় ৬১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ২০ দশমিক ৮৯ শতাংশ। 

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মেডিক্যাল কর্মকর্তা ও জেলা করোনা বিষয়ক তথ্য কর্মকর্তা ডা. জয়ন্ত কুমার সরকার বলেন, এ পর্যন্ত সাতক্ষীরায় করোনা রোগীর সংখ্যা পাঁচ হাজার ২২৯ জন। জেলায় সুস্থ হয়েছেন চার হাজার ৩২ জন। 

বর্তমানে করোনা রোগী রয়েছেন এক হাজার ১২৩ জন। হাসপাতালে ভর্তি করোনা রোগীর সংখ্যা ২৬ জন। এদের মধ্যে সামেক হাসপাতালে ১৯ জন ও বেসরকারি হাসপাতালে সাত জন ভর্তি আছেন। হোম আইসোলেশনে আছেন এক হাজার ৯৭ জন। উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন ২৩০ জন। এর মধ্যে সরকারি হাসপাতালে ভর্তি ১৮১ জন এবং বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি ৪৯ জন। সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ২৩৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৫৬ জন। করোনায় এ পর্যন্ত মারা গেছেন ৮৩ জন। উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ৫১০ জন।

/এএম/

সম্পর্কিত

চট্টগ্রামে করোনায় মৃত অধিকাংশের বয়স ষাটোর্ধ্ব

চট্টগ্রামে করোনায় মৃত অধিকাংশের বয়স ষাটোর্ধ্ব

খুলনা বিভাগে বেড়েছে শনাক্ত ও মৃত্যু

খুলনা বিভাগে বেড়েছে শনাক্ত ও মৃত্যু

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

মসজিদের নামকরণ নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১২

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ২১:৩৯

মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলায় ‘সুজানগর জামে মসজিদ’ নামকরণ নিয়ে বিরোধের জেরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে নারীসহ ১২ জন আহত হয়েছেন।

এ ঘটনায় রবিবার (২৫ জুলাই) থানায় মামলা করেছে দুই পক্ষ। এর আগে শনিবার (২৪ জুলাই) আসরের নামাজের পর উপজেলার সুজানগর ইউনিয়নের সুজানগর গ্রামে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। 

আহতরা হলেন আজাদ হোসেন, আবিদ আহমদ, সাজ্জাদ হোসেন, এমাদ হোসেন, মওরুন বেগম, শিপা বেগম, বকুল বক্স, সুকরাম বিন আলা বক্স, জাবের আহমদ, মহসিন আলী, আজিজুর রহমান ও আলিম উদ্দিন। তাদের সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সুজানগর গ্রামের মসজিদের নামকরণ নিয়ে এলাকার সাজ্জাদ হোসেন ও আনছারুল হক পক্ষের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। একপক্ষ চাইছে গ্রামের মসজিদের নাম হবে ‘সুজানগর জামে মসজিদ’ অন্য পক্ষ চাইছে ‘বক্সবাড়ি জামে মসজিদ’ নাম হবে। নামকরণের বিষয়টি নিয়ে গত বছরের আগস্ট মাসে একটি সালিশ বৈঠক হয়। 

সালিশ বৈঠকে মসজিদের জমির দলিল দেখে ‘সুজানগর জামে মসজিদ’ নাম রাখার সিদ্ধান্ত দেন এবং উভয় পক্ষকে বিরোধে না জড়াতে বলেন সালিশদাররা। এরপরও শনিবার আসরের নামাজের পর দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এতে নারীসহ উভয় পক্ষের ১২ জন আহত হন।

এ ঘটনায় সাজ্জাদ হোসেন পক্ষের মোক্তাদির আলী বাদী হয়ে অন্য পক্ষের ফয়সাল বক্সকে প্রধান আসামি করে ২৩ জনের নামে মামলা করেন। অন্যদিকে আনছারুল হক পক্ষের আনোয়ার হোসেন বাদী হয়ে সাজ্জাদকে প্রধান আসামি করে ১৫ জনের নামে মামলা করেন।

বড়লেখা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার বলেন, মসজিদের নামকরণ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে দীর্ঘদিন বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে কয়েকজন আহত হন। এ ঘটনায় থানায় দুটি মামলা হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

/এএম/

সম্পর্কিত

ফুটবল মাঠে গরু চরানো নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০

ফুটবল মাঠে গরু চরানো নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০

নুডলস কিনতে গিয়ে নিখোঁজের ৫ দিন পর মিললো শিশুর লাশ

নুডলস কিনতে গিয়ে নিখোঁজের ৫ দিন পর মিললো শিশুর লাশ

খেলায় লাল কার্ড দেখানো নিয়ে সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক

খেলায় লাল কার্ড দেখানো নিয়ে সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক

চাঁদপুরে করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে অক্সিজেন সংকট

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ২১:২১

করোনা ডেডিকেটেড চাঁদপুর ২৫০ শয্যার সরকারি জেনারেল হাসপাতালে অক্সিজেন সংকট দেখা দিয়েছে। করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা কয়েকগুণ বাড়ায় এ অবস্থা দেখা দিয়েছে। ঈদের আগের দিন থেকেই এ সমস্যা হচ্ছে বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এদিকে, শনিবার প্রায় আট ঘণ্টার ব্যবধানে এ হাসপাতালে আইসোলেশনে থাকা পাঁচ রোগী মারা গেছেন।

জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. হাবিব উল করিম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘অক্সিজেন সংকট তেমন বেশি না, মাঝে মাঝে সমস্যা হয়। রোগী বেড়ে যাওয়ার কারণে এ সমস্যা হচ্ছে। শনিবার এ হাসপাতালে ১৪৮ জন আইসোলেশনে ছিলেন। ঈদের আগের দিন থেকে অনেকটা জোয়ারের মতো রোগী বাড়ছে।’

অক্সিজেন সরবরাহ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘গত ১৫ জুলাই থেকে আবুল খায়ের গ্রুপ অক্সিজেন দিচ্ছে। এছাড়া কুমিল্লা থেকে প্রতিদিনই অক্সিজেন সিলিন্ডার রিফিল করে আনা হচ্ছে। এরপরও সমস্যা হয়ে যাচ্ছে। অক্সিজেন সংকট কিছু সময়ের জন্য হলেও তা খুব বেশি না। হাসপাতালে বর্তমানে ২৪০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার ব্যবহার করা হচ্ছে। যার মধ্যে ১৮০টি বড় এবং ৬০টি ছোট সিলিন্ডার।’

তিনি আরও জানান, স্পেকট্রার মাধ্যমে নির্মিত সদর হাসপাতালের অক্সিজেন প্লান্ট পুরোপুরি প্রস্তুত। তবে লিকুইড অক্সিজেন আসতে দেরি হওয়ার কারণে তা চালু করা যাচ্ছে না। সারাদেশের ৩০টি লিকুইড অক্সিজেন প্লান্ট এখনও চালু করা যায়নি। অক্সিজেন পেলে এগুলো চালু হবে।

সিভিল সার্জন ডা. মো. সাখাওয়াত উল্লাহ বলেন, ‘রোগী যে হারে বাড়ছে, তাতে এখন অক্সিজেন সংকট দেখা দিয়েছে। উপজেলা হাসপাতালে করোনা বেড থাকার পরেও সেসব এলাকার রোগীরা ২৫০ শয্যা হাসপাতালমুখী হচ্ছেন। সদর হাসপাতালে মাঝে মাঝে অক্সিজেন কমে যায়। অনেক সময় সিলিন্ডার খালি হয়ে যায়। রাতে কিছুটা সংকট মাঝে মাঝে দেখা দেয়। আবার রিফিল করলে ঠিক হয়ে যায়। একটা সিলিন্ডার তিন থেকে চার ঘণ্টার মধ্যেই শেষ হয়ে যায়। নবনির্মিত লিকুইড অক্সিজেন প্লান্ট চালু হয়ে গেলে এ সমস্যা কেটে যাবে। আগামী রবিবারের মধ্যেই এটি চালু হয়ে যাবে বলে নির্মাতারা জানিয়েছেন।’

তিনি জানান, চাঁদপুরে করোনা পরিস্থিতি দিন দিনই অবনতি হচ্ছে। গড়ে এখন ৩শ’র উপরে নমুনা নেওয়া হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় পাঁচ জন হাসপাতালে মারা গেছেন। এ যাবৎ জেলায় সাত হাজার ৯শ’ ৫৭ জন আক্রান্ত। গত কয়েকদিনে আক্রান্তের হার ৪৫ থেকে ৫৫ শতাংশ। জেলার ভেতরে মারা যাওয়ার সংখ্যা এ পর্যন্ত ১৫৪ জন। তাছাড়া চাঁদপুরে বাড়ি কিন্তু ঢাকা বা অন্য কোথায়ও মারা গেছেন আরও ১৯৩ জন। সেই হিসাবে জেলার ৩৪৭ জন অধিবাসী করোনায় মারা গেছেন।

/এমএএ/

সম্পর্কিত

বিয়ের ৬ দিনের মাথায় শ্বশুরবাড়ির সামনে জামাইয়ের গলাকাটা লাশ

বিয়ের ৬ দিনের মাথায় শ্বশুরবাড়ির সামনে জামাইয়ের গলাকাটা লাশ

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

‘চাঁদপুরে রিকশাও চলবে না, প্রয়োজনে কারাগারে’

‘চাঁদপুরে রিকশাও চলবে না, প্রয়োজনে কারাগারে’

বিয়ের ৬ দিনের মাথায় শ্বশুরবাড়ির সামনে জামাইয়ের গলাকাটা লাশ

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ২০:৫২

খাগড়াছড়ির রামগড়ে বিয়ের ছয় দিনের মাথায় শ্বশুরবাড়ির সামনের মাঠ থেকে জামাইয়ের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রবিবার (২৫ জুলাই) দুপুর ২টার দিকে উপজেলার দুর্গম দক্ষিণ নতুন পাড়া এলাকা থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। শনিবার (২৪ জুলাই) রাতের কোনও একসময় তাকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা পুলিশের।

নিহত চাইথোয়াই অং মারমা একই উপজেলার খাগড়াবিল এলাকার বজেন্দ্র মারমার ছেলে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রামগড় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ শামসুজ্জামান।

ওসি বলেন, লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে শনিবার রাতের কোনও একসময় তাকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। গত মঙ্গলবার (২০ জুলাই) পাতাছড়া এলাকার পেঞ্চাচিও মারমার মেয়ে চপাইয়ে মারমার সঙ্গে চাইথোয়াই অং মারমার বিয়ে হয়। এটি চপাইয়ে মারমার দ্বিতীয় বিয়ে ছিল।

তিনি বলেন, দুই বছর আগে সাবেক স্বামী খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গা উপজেলার বাসিন্দা পাইচা থ্যওয়াই মারমাকে ডিভোর্স দেন চপাইয়ে মারমা। ওই সংসারে তার এক কন্যাসন্তান আছে।

চপাইয়ে মারমা বলেন, ‘বিয়ের পর থেকে সাবেক স্বামী ফোন করে বর্তমান স্বামীকে ছাড়তে বিভিন্নভাবে হুমকি দেয়। এ নিয়ে বর্তমান এবং সাবেক স্বামীর মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। বিরোধের জেরে আমার স্বামীকে সাবেক স্বামী হত্যা করতে পারে বলে ধারণা করছি।’

/এএম/

সম্পর্কিত

চাঁদপুরে করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে অক্সিজেন সংকট

চাঁদপুরে করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে অক্সিজেন সংকট

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

‘চাঁদপুরে রিকশাও চলবে না, প্রয়োজনে কারাগারে’

‘চাঁদপুরে রিকশাও চলবে না, প্রয়োজনে কারাগারে’

উগ্রবাদী বইসহ জেএমবি সদস্য গ্রেফতার

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ২০:৪৫

ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ার জোরবাড়ীয়া এলাকা থেকে উগ্রবাদী বইসহ আমির হামজা ওরফে আমিরুল (২৮) নামে জামায়াতুল মোজাহেদিন বাংলাদেশ-জেএমবির এক সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। শনিবার (২৪ জুলাই) রাত সাড়ে ১২টায় র‌্যাব-১৪-এর ক্যাম্পের কমান্ডার মেজর আখের মোহাম্মদ জয়ের নেতৃত্বে একটি দল তাকে গ্রেফতার করে।

রবিবার (২৫ জুলাই) বিকালে মেজর আখের মোহাম্মদ জয় প্রেস রিলিজের মাধ্যমে এই তথ্য নিশ্চিত করে জানান, আমির ফুলবাড়িয়ার জোরবাড়িয়ার আব্দুল হাকিমের ছেলে। তার কাছ থেকে পাঁচটি উগ্রবাদী বই, ১৪টি বুকলেট, চারটি লিফলেট, নগদ চার হাজার ৮৩০ টাকা ও তিনটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার আমির হামজা নিজেকে জেএমবির সক্রিয় সদস্য হিসেবে পরিচয় দেয়। সে নিষিদ্ধ ঘোষিত এই জঙ্গি সংগঠনের জন্য বিভিন্ন এলাকা থেকে কৌশলে সদস্য সংগ্রহ করে আসছিল। বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নিয়ে গোপন বৈঠক করে পরবর্তী নাশকতার পরিকল্পনার কথাও স্বীকার করেছে সে।

/এমএএ/

সম্পর্কিত

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

বুদ্ধি প্রতিবন্ধী কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেফতার ৩

বুদ্ধি প্রতিবন্ধী কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেফতার ৩

প্রতিবন্ধী কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ২

প্রতিবন্ধী কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ২

সর্বশেষ

সম্প্রচারের আগে কাদা মেখে বিতর্কে জার্মান সাংবাদিক

সম্প্রচারের আগে কাদা মেখে বিতর্কে জার্মান সাংবাদিক

দুর্বল দেশগুলোকে আর্থিক সহায়তা দেওয়া আবশ্যক

কপ-২৬ মন্ত্রিপর্যায়ের বৈঠকে পরিবেশমন্ত্রীদুর্বল দেশগুলোকে আর্থিক সহায়তা দেওয়া আবশ্যক

সাতক্ষীরায় করোনার চেয়ে উপসর্গে মৃত্যু ছয় গুণ

সাতক্ষীরায় করোনার চেয়ে উপসর্গে মৃত্যু ছয় গুণ

‌‘ইত্যাদি’ এবার মেট্রোরেলের ডিপোতে!

‌‘ইত্যাদি’ এবার মেট্রোরেলের ডিপোতে!

সরকারের ভুলেই করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ: মির্জা ফখরুল

সরকারের ভুলেই করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ: মির্জা ফখরুল

ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট ও  ব্রুনাইয়ের সুলতানের জন্য আম পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী

ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট ও  ব্রুনাইয়ের সুলতানের জন্য আম পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী

মসজিদের নামকরণ নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১২

মসজিদের নামকরণ নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১২

সাকিবের সঙ্গে ট্রফি জিতে গর্বিত শামীম

সাকিবের সঙ্গে ট্রফি জিতে গর্বিত শামীম

টি-২০ সিরিজ জেতায় রাষ্ট্রপতির অভিনন্দন

টি-২০ সিরিজ জেতায় রাষ্ট্রপতির অভিনন্দন

১৫ আগস্টে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মসূচি

১৫ আগস্টে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মসূচি

মোটরবাইক এখন দূরপাল্লার বাহন!

মোটরবাইক এখন দূরপাল্লার বাহন!

ঈদ বার্তায় এরদোয়ানের ‘ঘুমিয়ে পড়া’র ভিডিও ভাইরাল

ঈদ বার্তায় এরদোয়ানের ‘ঘুমিয়ে পড়া’র ভিডিও ভাইরাল

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

‘রোহিঙ্গা’ সম্বোধনে পিটিয়ে হত্যা, প্রতিবাদে বিক্ষোভ

‘রোহিঙ্গা’ সম্বোধনে পিটিয়ে হত্যা, প্রতিবাদে বিক্ষোভ

৬ দিন পর হিলি দিয়ে আমদানি-রফতানি শুরু

৬ দিন পর হিলি দিয়ে আমদানি-রফতানি শুরু

পাথর শ্রমিকদের জালে ২৮ কেজির বাঘাইড়

পাথর শ্রমিকদের জালে ২৮ কেজির বাঘাইড়

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক ফাঁকা

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক ফাঁকা

ঘাটে ঢাকামুখী যাত্রীর চাপ

ঘাটে ঢাকামুখী যাত্রীর চাপ

টেস্ট করাতে হাসপাতালে রোগীর চাপ 

টেস্ট করাতে হাসপাতালে রোগীর চাপ 

খুলনা বিভাগে বেড়েছে শনাক্ত ও মৃত্যু

খুলনা বিভাগে বেড়েছে শনাক্ত ও মৃত্যু

পাইকার না আসায় চামড়া নিয়ে বিপাকে হিলির ব্যবসায়ীরা

পাইকার না আসায় চামড়া নিয়ে বিপাকে হিলির ব্যবসায়ীরা

রংপুরে প্রথম ত্বীন চাষ, সাত মাসে লাখ টাকা আয়

রংপুরে প্রথম ত্বীন চাষ, সাত মাসে লাখ টাকা আয়

© 2021 Bangla Tribune